× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

আন্তর্জাতিক
Israel took control of the Rafah crossing
google_news print-icon

রাফাহ ক্রসিংয়ের নিয়ন্ত্রণ নিল ইসরায়েল

রাফাহ-ক্রসিংয়ের-নিয়ন্ত্রণ-নিল-ইসরায়েল
ইসরায়েলি সেনাবাহিনী প্রকাশিত এ ছবিতে ৪০১তম ব্রিগেডের সেনা দলের ট্যাংককে মঙ্গলবার গাজা ও মিসরের মধ্যকার রাফাহ সীমান্ত ক্রসিংয়ের ফিলিস্তিন অংশে প্রবেশ করতে দেখা যাচ্ছে। ছবি: এএফপি/ইসরায়েলের সেনাবাহিনী
গাজা সীমান্ত ক্রসিং কর্তৃপক্ষের মুখপাত্র হিশাম এদওয়ান বলেন, রাফাহ সীমান্ত ক্রসিং বন্ধ করে উপত্যকার বাসিন্দাদের মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে দখলদার ইসরায়েল।

ইসরায়েলের সেনাবাহিনী মঙ্গলবার ফিলিস্তিনের গাজা ও মিসরের মধ্যকার গুরুত্বপূর্ণ রাফাহ সীমান্ত ক্রসিংয়ের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে বলে জানিয়েছে রয়টার্স।

বার্তা সংস্থাটির প্রতিবেদনে জানানো হয়, গাজার দক্ষিণাঞ্চলীয় শহরটিতে আগের রাতে বিমান হামলা ও যুদ্ধবিরতি চুক্তি নিয়ে অনিশ্চয়তার মধ্যে ক্রসিংয়ের দখল নিয়েছে হামাসের সঙ্গে যুদ্ধরত দেশটি।

হামাস সোমবার রাতে বলেছে, মধ্যস্থতাকারীরা যুদ্ধবিরতির যে প্রস্তাব দিয়েছে, তাতে সম্মত হয়েছে গাজার শাসক দল।

অন্যদিকে ইসরায়েলের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, যুদ্ধবিরতির শর্তগুলোতে তাদের দাবি পূরণ হয়নি।

দেশটি সোমবার রাতভর রাফাহতে সামরিক অভিযান চালায়।

ট্যাংক ও বিমান দিয়ে দক্ষিণাঞ্চলীয় শহরটির বেশ কিছু জায়গা ও বাড়িতে হামলা চালায় ইসরায়েল, যার ফলে ২০ ফিলিস্তিনি নিহত ও কয়েকজন আহত হয়।

ফিলিস্তিনের স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের ভাষ্য, রাফাহর কমপক্ষে চারটি বাড়িতে হামলা চালায় ইসরায়েল।

গাজা সীমান্ত ক্রসিং কর্তৃপক্ষের মুখপাত্র হিশাম এদওয়ান বলেন, রাফাহ সীমান্ত ক্রসিং বন্ধ করে উপত্যকার বাসিন্দাদের মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে দখলদার ইসরায়েল।

তিনি আরও বলেন, স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থা ধসিয়ে দেয়ার মধ্য দিয়ে দেশটি ক্যানসারে আক্রান্ত রোগীদেরও প্রাণদণ্ড দিয়েছে।

মিসর সীমান্তবর্তী রাফাহতে আকস্মিক বড় ধরনের হামলার হুমকি দিয়ে আসছিল ইসরায়েল।

দেশটির ভাষ্য, রাফাহতে হাজারো হামাস যোদ্ধা রয়েছেন, যাদের পাশাপাশি বেশ কিছু বন্দি থাকার সম্ভাবনাও রয়েছে। রাফাহর দখল নেয়া ছাড়া যুদ্ধ জয় অসম্ভব।

আরও পড়ুন:
যুক্তরাষ্ট্রে চলমান আন্দোলনে সংহতি জানিয়ে ঢাবিতে সমাবেশ
গাজায় যুদ্ধবিরতি কত দূর
ইসরায়েলের লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হয়েছেন গাজার নারীরা: ইউএনআরডব্লিউএ
স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার দাবিতে ছাত্রলীগের কর্মসূচি
যুদ্ধবিরতির আলোচনায় মিসরে প্রতিনিধি দল পাঠাচ্ছে হামাস

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
77 killed in Israeli attack in Gaza in one day amid cease fire efforts

যুদ্ধবিরতির চেষ্টার মধ্যে গাজায় এক দিনে ইসরায়েলি হামলায় নিহত ৭৭

যুদ্ধবিরতির চেষ্টার মধ্যে গাজায় এক দিনে ইসরায়েলি হামলায় নিহত ৭৭ ইসরায়েলি হামলায় মঙ্গলবার প্রাণ হারানো ফিলিস্তিনিদের পাশে বসে কাঁদছে এক বালক। ছবিটি গাজার দক্ষিণাঞ্চলীয় খান ইউনিসের নাসের হাসপাতাল থেকে তোলা। ছবি: মোহাম্মেদ সালেম/রয়টার্স
আল-আউদা স্কুলে হামলাকে ‘ফিলিস্তিনি জনগণকে নির্মূলে জায়নবাদী সন্ত্রাসী সরকারের যুদ্ধের সম্প্রসারণ’ আখ্যা দিয়ে যুদ্ধের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জোরালো করতে আরব ও মুসলিম বিশ্বের প্রতি আহ্বান জানায় গাজার শাসক দল হামাস।

গাজায় যুদ্ধবিরতির চেষ্টার মধ্যেই হামলা ব্যাপক বাড়িয়ে মঙ্গলবার কমপক্ষে ৭৭ ফিলিস্তিনিকে হত্যা করেছে ইসরায়েল, যা সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোর মধ্যে এক দিনে অন্যতম সর্বোচ্চ প্রাণহানি।

আক্রমণের মাত্রা বৃদ্ধি মধ্যস্থতাকারীদের মাধ্যমে যুদ্ধবিরতির আলোচনাকে ব্যাহত করতে পারে—হামাসের এমন সতর্কবার্তার পরও গতকাল প্রাণঘাতী কয়েকটি হামলা চালাল ইসরায়েল। কাতারের রাজধানী দোহায় নতুন করে আলোচনা শুরুর কথা রয়েছে।

আল জাজিরা জানায়, মঙ্গলবার নিহত ফিলিস্তিনিদের মধ্যে একটি স্কুলে আশ্রয় নেয়া অনেকে রয়েছেন।

মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যমটির প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, দক্ষিণ গাজার খান ইউনিসের পূর্বে আব্বাসান শহরে আল-আউদাহ স্কুলে ইসরায়েলি বিমান হামলায় কমপক্ষে ৩০ জন নিহত ও ৫৩ জন আহত হন।

ফিলিস্তিনি চিকিৎসকদের ভাষ্য, হতাহত লোকজনের বেশির ভাগই নারী ও শিশু।

আল জাজিরার কাছে আসা স্কুল এলাকার এক্সক্লুসিভ ফুটেজে দেখা যায়, ভবনটির আঙিনায় ফুটবল খেলছিলেন তরুণ ফিলিস্তিনিরা। অনেক লোকজন সেই খেলা দেখছিলেন। এমন সময় বিকট শব্দে বিস্ফোরণ শোনা যায়। লোকজন নিরাপদ আশ্রয়ে যেতে ছোটাছুটি করেন।

ফিলিস্তিনি এক বালক আল জাজিরাকে জানায়, হামলায় বেশ কয়েকজন স্বজনকে হারিয়েছে সে।

সে বলে, ‘আমরা বসে ছিলাম। একটি ক্ষেপণাস্ত্র পড়ে সব ধ্বংস করে দিল।’

এদিকে গাজার মধ্যাঞ্চলীয় বুরেইজ ক্যাম্পে ইসরায়েলি বাহিনীর বোমা হামলায় কমপক্ষে ১৭ জন নিহত হয়, যাদের মধ্যে ১৪ জনই শিশু। এ ছাড়া উপত্যকার মধ্যাঞ্চলীয় দেইর এল-বালাহতেও হানা দেয় ইসরায়েলি বাহিনী। ওই সময় তিনজন নিহত হন।

আল-আউদা স্কুলে হামলাকে ‘ফিলিস্তিনি জনগণকে নির্মূলে জায়নবাদী সন্ত্রাসী সরকারের যুদ্ধের সম্প্রসারণ’ আখ্যা দিয়ে যুদ্ধের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জোরালো করতে আরব ও মুসলিম বিশ্বের প্রতি আহ্বান জানায় গাজার শাসক দল হামাস।

আরও পড়ুন:
যুদ্ধবিরতির আলোচনার মধ্যে গাজায় ইসরায়েলি হামলায় নিহত ২৭
ইসরায়েলের সেনা অবস্থানে ২০০ রকেট ছুড়েছে হিজবুল্লাহ
যুদ্ধবিরতি ও জিম্মি চুক্তির ‘দ্বারপ্রান্তে’ ইসরায়েল ও হামাস
লেবাননে ইসরায়েলি হামলায় হিজবুল্লাহর সিনিয়র কমান্ডার নিহত
গাজায় যুদ্ধে বাস্তুচ্যুত ১৯ লাখ ফিলিস্তিনি: জাতিসংঘ

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
27 killed in Israeli strikes in Gaza amid ceasefire talks

যুদ্ধবিরতির আলোচনার মধ্যে গাজায় ইসরায়েলি হামলায় নিহত ২৭

যুদ্ধবিরতির আলোচনার মধ্যে গাজায় ইসরায়েলি হামলায় নিহত ২৭ গাজার দক্ষিণাঞ্চলীয় খান ইউনিসের নাসের মেডিক্যাল কমপ্লেক্সের বাইরে স্ট্রেচারে ইসরায়েলি হামলায় নিহত এক ফিলিস্তিনির মরদেহ। ছবি: বাশার তালেব/এএফপি
হাসপাতাল সূত্রের বরাত দিয়ে আল জাজিরা জানায়, শুক্রবার ভোর থেকে গাজায় ২৭ জন নিহত হয়েছেন। নিহত লোকজনের মধ্যে ফিলিস্তিনি দুই সাংবাদিক রয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।

ফিলিস্তিনের গাজায় যুদ্ধবিরতির জন্য কাতারে মধ্যস্থতকারীদের সঙ্গে শুক্রবার ইসরায়েলের প্রতিনিধিদলের আলোচনার মধ্যে উপত্যকায় ইসরায়েলি হামলায় অনেকে হতাহত হয়েছেন।

হাসপাতাল সূত্রের বরাত দিয়ে আল জাজিরা জানায়, শুক্রবার ভোর থেকে গাজায় ২৭ জন নিহত হয়েছেন। নিহত লোকজনের মধ্যে ফিলিস্তিনি দুই সাংবাদিক রয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।

দাতব্য সংস্থা ডক্টরস উইদাউট বর্ডার্স (এমএসএফ) জানায়, ইসরায়েলি হামলা বৃদ্ধির মধ্যে গাজার খান ইউনিসের নাসের মেডিক্যাল কমপ্লেক্স ভারাক্রান্ত হয়ে যাওয়ার শঙ্কা তৈরি হয়েছে।

ফিলিস্তিনি শরণার্থীদের জন্য নিয়োজিত জাতিসংঘের সংস্থা ইউএনআরডব্লিউএর পরিচালক ফিলিপ লাজ্জারিনি বলেন, গাজার বেসামরিক নাগরিকদের গণহারে বাস্তুচ্যুতির ‘অব্যাহত চক্র’ এবং লোকজনের ‘অস্তিত্বের লড়াইয়ে থাকার অবস্থা’র নিরসন হওয়া দরকার।

এদিকে গাজায় ইসরায়েলি আগ্রাসনের মধ্যেই শুক্রবার যুদ্ধবিরতির বিষয়ে কাতারে মধ্যস্থতাকারীদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন ইসরায়েলের গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের প্রধানসহ প্রতিনিধিরা। তারা ওই দিনই কাতার ছাড়েন।

এ নিয়ে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বলেছেন, শান্তি আলোচনার পক্ষগুলোর মধ্যে দূরত্ব রয়ে গেছে। আগামী সপ্তাহে আলোচনা ফের শুরু হবে।

গত বছরের ৭ অক্টোবর ইসরায়েলে ঢুকে হামাসের হামলার পরিপ্রেক্ষিতে ওই দিন থেকেই গাজায় হামলা শুরু করে ইসরায়েল। দেশটির হামলায় উপত্যকায় নিহত মানুষের সংখ্য বেড়ে ৩৮ হাজার ছাড়িয়েছে। অন্যদিকে হামাসের হামলায় নিহত ইসরায়েলির সংখ্যা ১ হাজার ১৩৯।

আরও পড়ুন:
গাজায় সৈন্য কমিয়ে হিজবুল্লার বিরুদ্ধে যুদ্ধের ইঙ্গিত নেতানিয়াহুর
গাজা সিটিতে ইসরায়েলি হামলায় নিহত ৪২
রেডক্রসের গাজা অফিসের কাছে হামলায় নিহত ২২
রাফাহতে ইসরায়েলি হামলায় ১০ ফিলিস্তিনি নিরাপত্তাকর্মী নিহত
গাজায় দুটি শরণার্থী শিবিরে ইসরায়েলের হামলা, নিহত ১৭

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
19 million Palestinians displaced by war in Gaza UN

গাজায় যুদ্ধে বাস্তুচ্যুত ১৯ লাখ ফিলিস্তিনি: জাতিসংঘ

গাজায় যুদ্ধে বাস্তুচ্যুত ১৯ লাখ ফিলিস্তিনি: জাতিসংঘ ঘরবাড়ি ছেড়ে নতুন গন্তব্যের পথে ফিলিস্তিনিরা। ছবি: আনাদোলু এজেন্সি
গাজার খান ইউনিসের বাসিন্দাদের সরে যেতে ইসরায়েলের নতুন আদেশে ‘গভীর উদ্বেগের’ কথা জানান জাতিসংঘের মানবিকবিষয়ক সমন্বয়ক।

ফিলিস্তিনের গাজায় যুদ্ধে ১৯ লাখ ফিলিস্তিনি বাস্তুচ্যুত হয়েছে বলে জানিয়েছেন জতিসংঘের মানবিকবিষয়ক সমন্বয়ক সিগরিদ কাগ।

স্থানীয় সময় মঙ্গলবার জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদকে তিনি এ তথ্য জানান।

টিআরটি ওয়ার্ল্ডের প্রতিবেদনে বলা হয়, গাজার খান ইউনিসের বাসিন্দাদের সরে যেতে ইসরায়েলের নতুন আদেশে ‘গভীর উদ্বেগের’ কথা জানান জাতিসংঘের মানবিকবিষয়ক সমন্বয়ক।

জাতিসংঘের এ কর্মকর্তা বলেন, ফের বাস্তুচ্যুত হলো ১০ লাখের বেশি মানুষ, যারা আশ্রয় ও নিরাপত্তার জন্য মরিয়া। বর্তমানে গাজাজুড়ে বাস্তুচ্যুত ১৯ লাখ মানুষ।

তিনি আরও বলেন, ‘খান ইউনিস এলাকা খালি করা সংক্রান্ত আদেশ জারির প্রতিবেদন নিয়ে আমি গভীরভাবে উদ্বিগ্ন।’

জাতিসংঘের হিসাব অনুযায়ী, গাজার দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর খান ইউনিসের আল কারারা, বানি সুহাইলা ও অন্যান্য এলাকার বেসামরিক নাগরিকদের জন্য ইসরায়েলি আদেশের ভুক্তভোগী আড়াই লাখের মতো মানুষ।

সিগরিদ কাগ বলেন, গাজার বেসামরিক নাগরিকরা অন্তহীন দুর্দশায়। তাদের গৃহজীবন তছনছ হয়ে গেছে; গোটা জীবন ওলট-পালট হয়ে গেছে।

তার ভাষ্য, যুদ্ধবিধ্বস্ত গাজায় পৌঁছাচ্ছে না পর্যাপ্ত পরিমাণ ত্রাণসামগ্রী। মানবিক বিপর্যয় রোধে বিশেষত দক্ষিণ গাজায় নতুন সীমান্ত ক্রসিং খোলা দরকার।

আরও পড়ুন:
রাফাহতে ইসরায়েলি হামলায় ১০ ফিলিস্তিনি নিরাপত্তাকর্মী নিহত
গাজায় দুটি শরণার্থী শিবিরে ইসরায়েলের হামলা, নিহত ১৭
ইসরায়েলে যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা ভেঙে দিলেন নেতানিয়াহু
গাজায় হামাসের হামলায় ইসরায়েলের ৮ সেনা নিহত
শিগগিরই গাজায় যুদ্ধবিরতি চুক্তির সম্ভাবনা দেখছেন না বাইডেন

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
More than 13 hundred deaths in Hajj this year

চলতি বছর হজে ১৩ শতাধিক মৃত্যু

চলতি বছর হজে ১৩ শতাধিক মৃত্যু পবিত্র কাবা শরিফ তাওয়াফে হজযাত্রীরা। ছবি: উইকিমিডিয়া কমন্স
সৌদির স্বাস্থ্যমন্ত্রী ফাহাদ আল-জালাজিলের বরাত দিয়ে আরব নিউজ সোমবার জানায়, হজযাত্রীদের অনেকের মৃত্যু হয়েছে পর্যাপ্ত সুরক্ষা ব্যবস্থা না নিয়ে দীর্ঘ দূরত্বে হাঁটার কারণে।

চলতি বছর হজের সময় এক হাজার তিন শর বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে বলে রোববার জানিয়েছে সৌদি আরব।

সৌদির স্বাস্থ্যমন্ত্রী ফাহাদ আল-জালাজিলের বরাত দিয়ে আরব নিউজ সোমবার জানায়, হজযাত্রীদের অনেকের মৃত্যু হয়েছে পর্যাপ্ত সুরক্ষা ব্যবস্থা না নিয়ে দীর্ঘ দূরত্বে হাঁটার কারণে।

সংবাদমাধ্যমটির প্রতিবেদনে জানানো হয়, হজে গিয়ে প্রাণ হারানো ব্যক্তিদের মধ্যে কয়েকজন প্রাপ্তবয়স্ক ও দূরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত ছিলেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী ফাহাদ জোর দিয়ে বলেন, হজ করতে আসা লোকজনকে হিট স্ট্রেসের বিপদ এবং সুরক্ষামূলক ব্যবস্থা নিতে সচেতন করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ নিয়েছে।

তিনি হজে গিয়ে প্রাণ হারানো ব্যক্তিদের পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

মৃত হজযাত্রীদের শনাক্তকরণ, দাফন, যথাযথ সম্মান প্রদর্শন ও তাদের পরিবারকে ডেথ সার্টিফিকেট দিতে যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ করা হয়েছে বলে জানান মন্ত্রী।

আরও পড়ুন:
অবশেষে ঈদের নাটকে মেহজাবীন
আরাফাতের ময়দানে সমবেত হয়েছেন ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা
গাজায় যুদ্ধের মধ্যে হজ শুরু
সৌদিতে হজের নতুন আইন কার্যকর, ভাঙলেই সাজা
বাংলাদেশ থেকে ৩৪,৭৪১ হজযাত্রী সৌদি পৌঁছেছেন

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
42 killed in Israeli attack on Gaza City

গাজা সিটিতে ইসরায়েলি হামলায় নিহত ৪২

গাজা সিটিতে ইসরায়েলি হামলায় নিহত ৪২ গাজা সিটির আল-শাতি শরণার্থী শিবিরে শনিবার বাড়িঘরে ইসরায়েলি হামলার পর দুই শিশুকে নিয়ে নিরাপদে ছুটছেন রেড ক্রিসেন্টের এক উদ্ধারকর্মী। ছবি: আয়মান আল হাসি/রয়টার্স
রয়টার্স জানায়, গাজার ঐতিহাসিক আটটি শরণার্থী শিবিরের অন্যতম আল-শাতির বাড়িঘরে ইসরায়েলি হামলায় ২৪ জন নিহত হয় বলে জানান ইসমাইল আল-থাউয়াবতা নামের এক কর্মকর্তা।

ফিলিস্তিনের গাজার উত্তরাঞ্চলীয় গাজা সিটিতে শনিবার ইসরায়েলি হামলায় কমপক্ষে ৪২ জন নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছে উপত্যকার শাসক দল হামাস পরিচালিত গণমাধ্যম কার্যালয়।

রয়টার্স জানায়, গাজার ঐতিহাসিক আটটি শরণার্থী শিবিরের অন্যতম আল-শাতির বাড়িঘরে ইসরায়েলি হামলায় ২৪ জন নিহত হয় বলে জানান ইসমাইল আল-থাউয়াবতা নামের এক কর্মকর্তা।

বার্তা সংস্থাটির প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, আল-তুফাহ এলাকার বাড়িঘরে হামলায় আরও ১৮ ফিলিস্তিনি নিহত হয়।

হামলার বিষয়ে ইসরায়েলি সেনাবাহিনীর সংক্ষিপ্ত বিবৃতিতে বলা হয়, কিছুক্ষণ আগে ইসরায়েল ডিফেন্স ফোর্সেসের (আইডিএফ) যুদ্ধবিমান গাজা সিটিতে হামাসের দুটি সামরিক অবকাঠামোতে হামলা করেছে।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, হামলার বিষয়ে বিস্তারিত দ্রুতই জানানো হবে।

সামরিক অবকাঠামোতে হামলা নিয়ে ইসরায়েলি দাবির বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেনি হামাস।

সংগঠনটির বিবৃতিতে বলা হয়, ইসরায়েলি হামলায় বেসামরিক লোকজনকে লক্ষ্যবস্তু বানানো হয়েছে।

এতে আরও বলা হয়, এ ধরনের হামলার জন্য দখলদার ও তার নাৎসি নেতাদের মূল্য দিতে হবে।

ঘটনাস্থল থেকে রয়টার্স যেসব ফুটেজ পেয়েছে, সেগুলোতে দেখা যায়, বিধ্বস্ত বাড়িঘরের মধ্যে ভুক্তভোগীদের সন্ধান করছেন ফিলিস্তিনিরা।

শাতি শরণার্থী শিবিরের ধ্বংস হওয়া বাড়িঘর, বিস্ফোরিত দেয়াল, ধ্বংসস্তূপ ও ধুলায় আচ্ছন্ন সড়ক ধরা পড়ে ফুটেজে।

আরও পড়ুন:
শিগগিরই গাজায় যুদ্ধবিরতি চুক্তির সম্ভাবনা দেখছেন না বাইডেন
যুক্তরাষ্ট্রের দাবি যুদ্ধবিরতির প্রস্তাবে পরিবর্তন চায় হামাস, অস্বীকার দলটির
লেবাননে ইসরায়েলি হামলায় হিজবুল্লাহ শীর্ষ কমান্ডারসহ নিহত ৪
নুসেইরাতের ঘটনায় যুদ্ধাপরাধে অভিযুক্ত হতে পারে ইসরায়েল-হামাস: জাতিসংঘ
জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে হামাস-ইসরায়েল যুদ্ধবিরতি প্রস্তাব পাস

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Israeli attack in Rafah kills 10 Palestinian security personnel

রাফাহতে ইসরায়েলি হামলায় ১০ ফিলিস্তিনি নিরাপত্তাকর্মী নিহত

রাফাহতে ইসরায়েলি হামলায় ১০ ফিলিস্তিনি নিরাপত্তাকর্মী নিহত গাজায় ইসরায়েলি হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত ভবন ও ধ্বংসাবশেষ। ফাইল ছবি
সিনহুয়া সংবাদ সংস্থা জানায়, রাফাহ শহরের পূর্বে বুধবার বাণিজ্যিক পণ্যের নিরাপত্তা প্রদানকারী একদল নিরাপত্তাকর্মীকে লক্ষ্য করে বিমান থেকে গুলিবর্ষণ করে ইসরায়েলি বাহিনী।

গাজা উপত্যকার দক্ষিণে রাফাহ শহরে ইসরায়েলি সেনাবাহিনীর গুলিতে অন্তত ১০ ফিলিস্তিনি নিরাপত্তাকর্মী নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে দেশটির নিরাপত্তা ও চিকিৎসা বিভাগ।

এ দুই বিভাগের বরাত দিয়ে বৃহস্পতিবার চীনের রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা সিনহুয়া জানায়, রাফাহ শহরের পূর্বে বুধবার বাণিজ্যিক পণ্যের নিরাপত্তা প্রদানকারী একদল নিরাপত্তাকর্মীকে লক্ষ্য করে বিমান থেকে গুলিবর্ষণ করে ইসরায়েলি বাহিনী।

এ ঘটনায় নিহত ও আহতদের সবাইকে ইউরোপিয়ান গাজা হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়ে গাজার স্বাস্থ্য বিভাগ, তবে ইসরায়েলের পক্ষ থেকে এখনও এ বিষয়ে কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

সংবাদ সংস্থা ইউএনবি জানায়, এর আগে সোমবার রাতেও বাণিজ্যিক পণ্যের নিরাপত্তাকর্মীদের লক্ষ্য করে ইসরায়েলি বিমান হামলায় অন্তত ৯ জন নিহত হয়।

ফিলিস্তিনের নিরাপত্তা বিভাগ জানিয়েছে, শর্ত সাপেক্ষে পশ্চিম তীর থেকে দক্ষিণের যুদ্ধ-বিধ্বস্ত অবরুদ্ধ অঞ্চলগুলোতে বাণিজ্যিক পণ্য প্রবেশের অনুমতি দিয়েছে ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষ। তারপরও এসব কর্মকাণ্ড চলাকালে হামলা চালাচ্ছে ইসরায়েল।

গত বছরের ৭ অক্টোবর ইসরায়েলে ঢুকে হামাসের হামলায় দেশটির অন্তত ১ হাজার ২০০ বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়। সে সময় ২০০ ইসরায়েলিকে জিম্মি করে নিয়ে যায় ফিলিস্তিসের সশস্ত্র শাসক গোষ্ঠী হামাস। ওই ঘটনার পর থেকে গাজায় ক্রমাগত হামলা চালিয়ে আসছে ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী।

ইসরায়েলি হামলায় বুধবার সকাল পর্যন্ত ৩৭ হাজার ৩৯৬ জন ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছে হামাস পরিচালিত গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

যুদ্ধের মধ্যে সব সীমান্ত বন্ধ করে দেওয়ায় খাদ্য, ওষুধ এবং অন্যান্য মৌলিক সামগ্রী গাজায় প্রবেশ করতে পারছে না। দীর্ঘদিন ধরে এমন অচলাবস্থা থাকায় উপত্যকায় দুর্ভিক্ষ দেখা দিয়েছে।

আরও পড়ুন:
লেবাননে ইসরায়েলি হামলায় হিজবুল্লাহ শীর্ষ কমান্ডারসহ নিহত ৪
নুসেইরাতের ঘটনায় যুদ্ধাপরাধে অভিযুক্ত হতে পারে ইসরায়েল-হামাস: জাতিসংঘ
জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে হামাস-ইসরায়েল যুদ্ধবিরতি প্রস্তাব পাস
ইসরায়েলের যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ বেনি গানৎজের
নুসেইরাত ক্যাম্প থেকে ৪ ইসরায়েলি জিম্মি উদ্ধার

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Hajj ends with stoning Satan and Tawaf of Kaaba Sharif

শয়তানকে পাথর নিক্ষেপ ও কাবা শরিফ তাওয়াফের মাধ্যমে হজ সমাপ্ত

শয়তানকে পাথর নিক্ষেপ ও কাবা শরিফ তাওয়াফের মাধ্যমে হজ সমাপ্ত মিনায় তিন দিনের পাথর ছুঁড়ে মারার অনুষ্ঠানটি হজের চূড়ান্ত আনুষ্ঠানিক কার্যক্রমগুলোর মধ্যে একটি। ছবি: সংগৃহীত
মঙ্গলবার সৌদি আরবের জাতীয় আবহাওয়া অফিসের তথ্যানুসারে, মক্কা ও এর আশেপাশের পবিত্র স্থানগুলোতে তাপমাত্রা ৪৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছিল। প্রচণ্ড গরমে বৃদ্ধদের অনেকে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। এছাড়া, হিট স্ট্রোকে হাজিদের বেশ কয়েকজনের মৃত্যুও হয়েছে বলে জানা গেছে।

গ্রীষ্মের প্রচণ্ড উত্তাপের মধ্যে তৃতীয় দিন মঙ্গলবার শয়তানকে প্রতীকী পাথর নিক্ষেপ এবং মক্কায় ইসলামের পবিত্রতম স্থান কাবা শরিফ তাওয়াফ (প্রদক্ষিণ) করার মধ্য দিয়ে হজের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শেষ করেছেন হাজিরা।

মক্কার বাইরে মরু এলাকা মিনায় তিন দিনের পাথর ছুঁড়ে মারার অনুষ্ঠানটি হজের চূড়ান্ত আনুষ্ঠানিক কার্যক্রমগুলোর মধ্যে একটি। এটি অশুভ ও পাপ দূরীকরণের প্রতীক হিসেবেও বিবেচিত। শনিবার আরাফাতের ময়দানে হাজিদের জমায়েতের একদিন পর এই কার্যক্রম শুরু হয়।

হজের শেষ দিনগুলোতে বিশ্বজুড়ে মুসলমানরা একসঙ্গে ঈদুল আজহা উদযাপন করে। এসময় আর্থিক সামর্থ্যের আলোকে বিশ্বাসীরা ইসলামের নবী ইব্রাহিম (আ.)-এর বিশ্বাসের পরীক্ষার কথা স্মরণ করেন। আল্লাহ তাকে (নবী ইব্রাহিম) তার একমাত্র পুত্রকে (ইসমাইল) কোরবানি দেয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে গবাদি পশু জবাই করে এর মাংস দরিদ্রদের মধ্যে বিতরণ করে থাকে মুসলমানরা।

ইসলামের পাঁচটি স্তম্ভের মধ্যে হজ অন্যতম। ইসলামের পবিত্র গ্রন্থ কুরআন অনুসারে, এর অনুষ্ঠানগুলো মূলত নবী ইব্রাহিম ও তার পুত্র নবী ইসমাইল, ইসমাইলের মা হাজেরা এবং নবী মুহাম্মদের (সা.) বর্ণনায় উঠে এসেছে।

ইসলামের বিশ্বাস অনুযায়ী, সেদিন আল্লাহ তার রহমতের হাত বাড়িয়ে দিয়ে ইসমাইলকে রক্ষা করেন।

ইয়েমেন থেকে আসা হাজি মেজাহেদ আল-মেহরাবি পাথর ছুড়ে মারার অনুষ্ঠানের তৃতীয় দিনে বার্তাসংস্থা এপিকে বলেন, ‘আমি শান্তি পেয়েছি। এখন বেশ স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করছি। যদি কারও (মক্কায়) গ্র্যান্ড মসজিদ পরিদর্শন করার সুযোগ থাকে, তার তা অবশ্যই করা উচিত।’

নাইজেরিয়ার হাজি আমির ওমর প্রতীকী পাথর নিক্ষেপ শেষ করার পর আনন্দে আত্মহারা হয়ে পড়েন। তিনি বলেন, ‘আমার খুব ভালো লাগছে যে, আমি আমার ধর্মের একটি ফরজ পালন করেছি। আমি (আল্লাহর প্রতি) খুব কৃতজ্ঞ বোধ করছি।’

মঙ্গলবার সৌদি আরবের জাতীয় আবহাওয়া অফিসের তথ্যানুসারে, মক্কা ও এর আশেপাশের পবিত্র স্থানগুলোতে তাপমাত্রা ৪৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছিল। প্রচণ্ড গরমে বৃদ্ধদের অনেকে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। এছাড়া, হিট স্ট্রোকে হাজিদের বেশ কয়েকজনের মৃত্যুও হয়েছে বলে জানা গেছে।

জর্ডান ও তিউনিসিয়া কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, নিহতদের মধ্যে অন্তত ৪১ জন জর্ডানের এবং ৩৫ জন তিউনিসিয়ার নাগরিক। মিসরের স্থানীয় গণমাধ্যমও মিশরীয় হাজিদের মধ্যে বেশ কয়েক জনের মৃত্যুর খবর দিয়েছে। এবারের হজে এখনও মোট মৃত্যুর সংখ্যা জানায়নি সৌদি কর্তৃপক্ষ।

হজ পালনের সময় আরও অনেক হাজির হিসাব পাওয়া যায়নি। অনেক মিসরীয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আরাফাতের ময়দান ও মিনা উল্লেখ করে তাদের আত্মীয়দের খোঁজে পোস্ট দিয়েছেন। কয়েকজন হাজি গরমে অসুস্থ হয়ে পড়ায় তাদের মক্কার আশপাশের হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পাওয়া গেছে।

মঙ্গলবার তৃতীয় দিনের প্রতীকী পাথর নিক্ষেপের পর হাজিরা গ্র্যান্ড মসজিদে কাবা শরিফকে সাতবার তাওয়াফ করতে করতে মক্কার দিকে রওনা হন। শেষ তাওয়াফ নামে পরিচিত এই প্রদক্ষিণের মাধ্যমে হজের সমাপ্তি করে হাজিরা মক্কা শহর ছাড়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

হজ শেষে পুরুষরা তাদের মাথা ন্যাড়া করবে এবং নারীরা সমস্ত চুল ধরে আঙুলের এক কড় কেটে ফেলবেন, যা ইসলামের নবী রাসূলের সুন্নাহ।

এরপর অধিকাংশ হাজি মক্কা ছেড়ে প্রায় ৩৪০ কিলোমিটার দূরে মদিনা শহরের উদ্দেশে রওনা দেবেন এবং মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর কবর জিয়ারত করবেন।

নবীজির কবরের পবিত্র কক্ষটি নবীর মসজিদের অংশ, ইসলামের তিনটি পবিত্রতম স্থানগুলোর মধ্যে একটি। অন্য দুটি হচ্ছে- মক্কার গ্র্যান্ড মসজিদ ও জেরুজালেমের আল আকসা মসজিদ।

শারীরিক ও আর্থিকভাবে সামর্থ্য থাকলে প্রত্যেক মুসলমানের জীবনে একবার হজ করা বাধ্যতামূলক (ফরজ)। অনেক ধনী মুসলমান একাধিকবারও হজ করে থাকেন।

সৌদি হজ কর্তৃপক্ষের মতে, ২০২৪ সালে ২২টি দেশের ১৬ লাখেরও বেশি হাজি এবং প্রায় ২ লাখ ২২ হাজার সৌদি নাগরিকসহ ১৮ লাখ ৩ হাজারেরও বেশি মুসলমান হজ পালন করেছেন।

২০২৪ সালে বিধ্বংসী হামাস- ইসরায়েল যুদ্ধের পটভূমিতে হজের কার্যক্রম শুরু হয়। হামাস ও ইসরায়েলের এই যুদ্ধটি মধ্যপ্রাচ্যকে আঞ্চলিক সংঘাতের দ্বারপ্রান্তে ঠেলে দিয়েছে।

ফিলিস্তিনি উপত্যকায় যুদ্ধ এবং নিজ দেশে এক দশক ধরে চলা সংঘাতের কথা উল্লেখ করে ইয়েমেনের হাজি আল-মেহরাবি বলেন, ‘আমি প্রথমে গাজা ও পরে ইয়েমেনের জন্য প্রার্থনা করেছি।’

আরও পড়ুন:
শয়তানকে পাথর ছোড়ার মধ্য দিয়ে হজের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন
হজের চূড়ান্ত পর্বে আরাফাতে ফিলিস্তিনিদের জন্য প্রার্থনা

মন্তব্য

p
উপরে