× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

আন্তর্জাতিক
US diplomats warned against travel to Israel
google_news print-icon

ইসরায়েলের অভ্যন্তরে ভ্রমণের ক্ষেত্রে কূটনীতিকদের সতর্ক করল যুক্তরাষ্ট্র

ইসরায়েলের-অভ্যন্তরে-ভ্রমণের-ক্ষেত্রে-কূটনীতিকদের-সতর্ক-করল-যুক্তরাষ্ট্র
ছবি: বিবিসি
ভ্রমণ সতর্কতা সম্পর্কে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র ম্যাথু মিলার বলেন, ‘কী কারণে এই ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দেয়া হলো, তা সুনির্দিষ্ট করে প্রকাশ করা হবে না।’

নিরাপত্তাজনিত কারণে নিজ দেশের কূটনীতিকদের ইসরায়েলের অভ্যন্তরে ভ্রমণের ক্ষেত্রে সতর্কবার্তা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

সিরিয়ায় কনস্যুলেটে হামলার জবাবে ইসরায়েলে ইরানের পাল্টা হামলার উদ্বেগের মধ্যে দেশটি এ সতর্কতা জারি করেছে বলে বার্তা সংস্থা এএফপির প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

গত ১ এপ্রিল সিরিয়ার রাজধানী দামেস্কে ইরানের কনস্যুলেটে বিমান হামলা চালায় ইসরায়েল। এতে ইরানের ইসলামি বিপ্লবী গার্ড কোরের (আইআরজিসি) কয়েকজন কর্মকর্তাসহ ১৩ জন নিহত হন। ওই হামলার জন্য ইসরায়েলকে দায়ী করেছে ইরান।

ইসরায়েল এ হামলায় দায় স্বীকার না করলেও এর জবাব দেয়া হবে বলে তেহরানের পক্ষ থেকে হুঁশিয়ারি দেয়া হয়েছে।

গাজা উপত্যকায় চলমান যুদ্ধ যেন পুরো অঞ্চলে ছড়িয়ে না পড়ে, তা নিশ্চিত করতে যুক্তরাষ্ট্রসহ মিত্রদের কূটনৈতিক তৎপরতার মধ্যেই ইরানের কনস্যুলেটে হামলা হয়।

যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘যুক্তরাষ্ট্র সরকারের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং তাদের পরিবারের সদস্যদের পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত তেল আবিব, জেরুজালেম এবং বির শেভা এলাকার বাইরে ভ্রমণ না করার পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।’

গত রোববার ইরানের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘ইসরায়েলের দূতাবাসগুলো এখন আর নিরাপদ নয়।’ কোনো একটি কনস্যুলেট ভবনকে হামলার টার্গেট করা হবে বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি।

এদিকে ইসরায়েলের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইয়োয়েভ গালান্টও একই আশঙ্কার কথা প্রকাশ করেছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষামন্ত্রীকে তিনি বলেন, ‘ইসরায়েলি ভূখণ্ডে সরাসরি হামলা চালাতে পারে ইরান।’

এদিকে বৃহস্পতিবার ভ্রমণ সতর্কতা সম্পর্কে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র ম্যাথু মিলার বলেন, ‘কী কারণে এই ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দেয়া হলো, তা সুনির্দিষ্ট করে প্রকাশ করা হবে না, তবে অবশ্যই আমরা মধ্যপ্রাচ্যে, বিশেষ করে ইসরায়েল যে হুমকিতে আছে, তার ওপর নজর রেখেছি।’

আরও পড়ুন:
ইরানে এবার সরাসরি হামলা চালানোর হুমকি ইসরায়েলের
ঈদের দিনে ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্নের আহ্বান ইরানের সর্বোচ্চ নেতার
ইসরায়েলি হামলা অবরোধের মধ্যে নিরুত্তাপ ঈদ গাজায়

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
Israels cabinet rifts over Gaza are out in the open

গাজা নিয়ে ইসরায়েলের মন্ত্রিসভার বিরোধ প্রকাশ্যে

গাজা নিয়ে ইসরায়েলের মন্ত্রিসভার বিরোধ প্রকাশ্যে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইউআভ গালান্ট, যাদের বিরোধ এরই মধ্যে প্রকাশ্যে চলে এসেছে। ছবি: রয়টার্স
কয়েক মাস আগে ইসরায়েলের সেনারা যেসব জায়গায় হামাসের সঙ্গে লড়ছিল, সেসব এলাকায় তাদের ফিরে যাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর কাছে স্পষ্ট কৌশল জানতে চান প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইউআভ গালান্ট। এর মধ্য দিয়ে মন্ত্রিসভায় বিরোধের বিষয়টি উন্মুক্ত হয়ে যায়।

ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকায় যুদ্ধ নিয়ে ইসরায়েলের মন্ত্রিসভার বিরোধ চলতি সপ্তাহে প্রকাশ্যে চলে এসেছে বলে জানিয়েছে রয়টার্স।

বার্তা সংস্থাটির প্রতিবেদনে জানানো হয়, কয়েক মাস আগে ইসরায়েলের সেনারা যেসব জায়গায় হামাসের সঙ্গে লড়ছিল, সেসব এলাকায় তাদের ফিরে যাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর কাছে স্পষ্ট কৌশল জানতে চান প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইউআভ গালান্ট। এর মধ্য দিয়ে মন্ত্রিসভায় বিরোধের বিষয়টি উন্মুক্ত হয়ে যায়।

গালান্টের ভাষ্য, গাজা উপত্যকায় সামরিক সরকার বসানোর বিষয়ে তার সমর্থন নেই।

তার এ বক্তব্যে যুদ্ধ শেষে গাজার শাসনভার অর্পণ নিয়ে নেতানিয়াহুর নির্দেশনার ঘাটতি নিয়ে শীর্ষ নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের ক্রমবর্ধমান অস্বস্তির বিষয়টি ফুটে উঠেছে।

গালান্টের এ বক্তব্যের পক্ষে-বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে নিজেদের বিভক্তি স্পষ্ট করেছেন প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহুর নেতৃত্বাধীন মন্ত্রিসভার চার সদস্য।

ইসরায়েলের প্রতিরক্ষামন্ত্রীর বক্তব্যকে সমর্থন করেছেন মধ্যমপন্থি হিসেবে পরিচিত সেনাবাহিনীর সাবেক দুই জেনারেল বেনি গানৎজ ও গাদি এইজেনকট। অন্যদিকে কট্টর ডানপন্থি অর্থমন্ত্রী বেজালেল স্মোটরিচ ও অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা মন্ত্রী ইতামার বেন-গভির গালান্টের বক্তব্যের নিন্দা জানিয়েছেন।

রয়টার্সের খবরে বলা হয়, নেতানিয়াহুর মন্ত্রিসভার বিরোধ নিয়ে ‘এটি যুদ্ধ চালানোর কোনো পন্থা নয়’ শিরোনামে খবর ছাপে ডানপন্থি ইসরায়েলি ট্যাবলয়েড ইসরায়েল টুডে। সংবাদে বিভিন্ন দিকে তাকানো নেতানিয়াহু ও গালান্টের ছবি ছাপা হয়েছে।

গাজার শাসক দল হামাসকে নির্মূল ও তাদের হাতে থাকা ১৩০ জনের মতো বন্দিকে ফেরতের পাশাপাশি উপত্যকায় যুদ্ধ অভিযান শেষ করার কৌশলগত কোনো লক্ষ্য ঠিক করেননি নেতানিয়াহু। এরই মধ্যে ইসরায়েলের হামলায় গাজায় ৩৫ হাজারের বেশি ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে। এটি ইসরায়েলের আন্তর্জাতিক বিচ্ছিন্নতা প্রতিনিয়ত বাড়াচ্ছে।

আরও পড়ুন:
বাইডেন ইসরায়েলে সব সহায়তা বন্ধ করতে চান: ট্রাম্প
ফিলিস্তিনকে পূর্ণ সদস্য করতে জাতিসংঘে বিপুল ভোটে প্রস্তাব পাস
আমেরিকান অস্ত্র দিয়ে আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করে থাকতে পারে ইসরায়েল
গাজায় একা লড়তে প্রস্তুত ইসরায়েল: নেতানিয়াহু
বাইডেনের হুঁশিয়ারি উপেক্ষা করে রাফায় ইসরায়েলের হামলা

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Unraveling the secret of making pyramids

পিরামিড তৈরির রহস্য উন্মোচন!

পিরামিড তৈরির রহস্য উন্মোচন! ছবি: সংগৃহীত
গবেষক দলের একজন ড. সুজান অনস্টাইন বলেন, ‘নীল নদের হারিয়ে যাওয়া শাখাটি ৩১টি পিরামিডের সীমানায় রয়েছে। এই জলপথ ভারী ব্লক, সরঞ্জাম ও মানুষ পরিবহনের জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকতে পারে। আর এসব কিছুই আমাদের পিরামিড নির্মাণ ব্যাখ্যা করতে সাহায্য করেছে।’

চার হাজার বছরেরও বেশি সময় আগে মিসরে বিশ্বখ্যাত গিজা কমপ্লেক্সসহ ৩১টি পিরামিড কীভাবে তৈরি হয়েছিল সেই রহস্যের সমাধান করেছেন- এমনটা বিশ্বাস করেন বিজ্ঞানীরা।

ইউনিভার্সিটি অফ নর্থ ক্যারোলিনা উইলমিংটনের একটি গবেষক দল বলছে, পিরামিডগুলো সম্ভবত দীর্ঘ-হারিয়ে যাওয়া নীল নদের একটি প্রাচীন শাখার পাশে নির্মিত হয়েছিল যা এখন মরুভূমি এবং কৃষি জমির নিচে ঢাকা পড়ে গেছে।

প্রত্নতত্ত্ববিদরা বহু বছর ধরেই ধারণা পোষণ করে আসছেন যে প্রাচীন মিসরীয়রা নদীর ওপর পিরামিড নির্মাণের জন্য প্রয়োজনীয় পাথরের খণ্ডের মতো উপকরণ পরিবহনের জন্য নিকটবর্তী জলপথ ব্যবহার করেছিল।

অধ্যাপক ইমান ঘোনিমের মতে, এখনও পর্যন্ত এই মেগা জলপথের পাশে প্রকৃত পিরামিড সাইটের অবস্থান, আকৃতি, আকার বা নৈকট্য সম্পর্কে কিছুই নিশ্চিত ছিল না। গবেষকরা স্যাটেলাইট থেকে প্রাপ্ত ছবি থেকে এই নদের শাখাটি শনাক্ত করে। পরে ফিল্ড সার্ভে ও সেখান থেকে পাওয়া পলি থেকে বিজ্ঞানীরা নদীর শাখা থাকার বিষয়টি নিশ্চিত হন।

গবেষণায় বলা হয়, বিজ্ঞানীদের আবিষ্কার করা ৬৪ কিলোমিটার দীর্ঘ নীল নদের শাখাটি শুকিয়ে মরুভূমির নিচে চাপা পড়ে গেছে। এই নদী থেকে এখন বিজ্ঞানীরা বের করার চেষ্টা করছেন যে কেন গিজা পিরামিড কমপ্লেক্সের ৩১টি পিরামিড এই মরুভূমিতে এক সারিতে তৈরি করা হয়েছিল।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, এই পিরামিডগুলো চার হাজার ৭০০ থেকে তিন হাজার ৭০০ বছরের পুরনো।

নেচার জার্নালে প্রকাশিত গবেষণায় বলা হয়েছে, রাডার প্রযুক্তি ব্যবহার করে গবেষক দলটি বালির পৃষ্ঠে লুকানো বৈশিষ্ট্যগুলোর চিত্র আঁকতে সক্ষম হয়েছিলেন।

গবেষণার একজন সহ-লেখক ড. সুজান অনস্টাইন বিবিসিকে বলেন, ‘ডেটা বিশ্লেষণে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে এটা বলা যায় যে এখানে একটি জলপথ ছিল যা ভারী ব্লক, সরঞ্জাম ও মানুষ পরিবহনের জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকতে পারে। আর এসব কিছুই আমাদের পিরামিড নির্মাণ ব্যাখ্যা করতে সাহায্য করেছে।’

বিজ্ঞানীদের দাবি, নীল নদের হারিয়ে যাওয়া শাখাটি প্রায় ৬৪ কিলোমিটার দীর্ঘ ছিল। আর নদীটির প্রস্থ ছিলে দু শ’ থেকে সাত শ’ মিটার। ওই শাখাটি ৩১টি পিরামিডের সীমানায় রয়েছে, যা চার হাজার ৭০০ থেকে তিন হাজার ৭০০ বছর আগে নির্মিত হয়েছিল।

বিলুপ্ত নদী শাখার আবিষ্কারটি গিজা এবং লিস্ট (মধ্য রাজ্যের সমাধিস্থল)-এর মধ্যে উচ্চ পিরামিডের ঘনত্ব ব্যাখ্যা করতে সাহায্য করে, যা এখন সাহারান মরুভূমির অন্তর্ভুক্ত।

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Aid is flowing into Gaza through the US built ghats

‘যুক্তরাষ্ট্র নির্মিত ঘাট দিয়ে গাজায় ত্রাণ ঢুকছে’

‘যুক্তরাষ্ট্র নির্মিত ঘাট দিয়ে গাজায় ত্রাণ ঢুকছে’ মানবিক সহায়তা প্রবেশের উদ্দেশ্যে গাজা উপকূলে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী ও ইসরায়েলি সামরিক বাহিনীর সদস্যরা এই অস্থায়ী ঘাটটি নির্মাণ করেছে। ছবি: যুক্তরাষ্ট্রের সেন্ট্রাল কমান্ড/রয়টার্স
এর আগে ইসরায়েলের আশদোদ বন্দরে একটি ঘাট নির্মাণ করে যুক্তরাষ্ট্র। ওই ঘাটের অবকাঠামো খুলে নিয়ে গাজা উপকূলে অস্থায়ী ঘাট নির্মাণ করেছে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনী।

ইসরায়েলের ওপর ক্রমবর্ধমান আন্তর্জাতিক চাপের মধ্যে অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকায় ত্রাণবাহী ট্রাক ঢুকতে শুরু করেছে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

শুক্রবার স্থানীয় সময় সকাল ৯টায় গাজা উপকূলে যুক্তরাষ্ট্রের নির্মিত একটি অস্থায়ী ঘাট দিয়ে আনা ত্রাণসামগ্রী নিয়ে ট্রাকগুলো ঢুকতে শুরু করেছে বলে যুক্তরাষ্ট্রের সেন্ট্রাল কমান্ডের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে।

রয়টার্সের খবরে বলা হয়েছে, এর আগে ইসরায়েলের আশদোদ বন্দরে একটি ঘাট নির্মাণ করে যুক্তরাষ্ট্র। ওই ঘাটের অবকাঠামো খুলে নিয়ে গাজা উপকূলে অস্থায়ী ঘাট নির্মাণ করেছে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনী।

উপকূলে ঘাট তৈরি করলেও যুক্তরাষ্ট্রের কোনো সেনা তীরে পদার্পণ করেননি বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করেছে সেন্ট্রাল কমান্ড।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, এই পথে আসা ত্রাণ একটি চলমান বহুজাতিক প্রচেষ্টার অংশ। বেশ কয়েকটি দেশের দান করা মানবিক সহায়তা এই পথ দিয়ে গাজায় ঢুকছে।

এদিকে যুক্তরাজ্য বলেছে, ওই ঘাটের মাধ্যমে তারা ইতোমধ্যে প্রাথমিক চিকিৎসার একটি চালান সরবরাহ করেছে। অন্যদিকে, এ পথ দিয়ে গাজায় প্রবেশ করা ত্রাণসামগ্রী কোথায়, কীভাবে বণ্টন করা হবে, সেসব পরিকল্পনা চূড়ান্ত করা হয়েছে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ।

গাজার উদ্দেশে পাঠানো ত্রানসামগ্রী প্রথমে সাইপ্রাসে পরীক্ষা করে দেখবে ইসরায়েলি নিরাপত্তা বাহিনী। এরপর গাজায় ইসরায়েলি চেকপয়েন্টগুলোর মধ্য দিয়ে সেগুলোকে যেতে হবে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা।

গত ৭ অক্টোবর ইসরায়েলে ঢুকে আকস্মিক হামলা চালায় হামাস। ওই হামলার প্রতিক্রিয়ায় গাজায় টানা হামলা চালাচ্ছে ইসরায়েল। হামলা শুরুর পর ৯ অক্টোবর গাজায় সর্বাত্মক অবরোধের ঘোষণা দেয় দখলদার ইসরায়েল।

টানা হামলায় খাবার, পানি, ওষুধ ও জ্বালানির অভাবে অনেক আগে থেকেই ধুঁকছে হামাস নিয়ন্ত্রিত উপত্যকাটি। সীমানা অবরুদ্ধ করে ইসরায়েলের আগ্রাসনে মৃত্যু নগরীতে পরিণত হয়েছে গাজা।

হামাস পরিচালিত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুসারে, গাজায় চলমান ইসরায়েলি সামরিক হামলায় সাড়ে ৩৪ হাজারের বেশি ফিলিস্তিনি নিহত এবং ৭৮ হাজারের মতো আহত হয়েছেন। আর হামাসের হামলায় নিহত হয়েছেন এক হাজার ১৩৯ ইসরায়েলি।

আরও পড়ুন:
নিজেদের হামলায় ৫ ইসরায়েলি সেনা নিহত
অবস্থান পাল্টাল বাইডেন প্রশাসন, যুক্তরাষ্ট্রের অস্ত্রেই গাজায় হামলা চালাবে ইসরায়েল
রাফায় হামলা চালিয়ে হামাসকে নির্মূল করা যাবে না: ব্লিংকেন

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Putin in Little Moscow China on the second day of the visit

সফরের দ্বিতীয় দিনে চীনের ‘লিটল মস্কোতে’ পুতিন

সফরের দ্বিতীয় দিনে চীনের ‘লিটল মস্কোতে’ পুতিন দুই দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে বৃহস্পতিবার চীনে পৌঁছান পুতিন। ছবি: দ্য গার্ডিয়ান
বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, দুই দিনের রাষ্ট্রীয় বৃহস্পতিবার সফরে চীনে পৌঁছান রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। প্রথম দিনের শুরুতে প্রেসিডেন্ট শি চিনপিংয়ের সঙ্গে বেইজিংয়ের গ্রেট হল অফ দ্য পিপলে মিলিত হন তিনি।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন চীনের শহর হারবিনে পৌঁছেছেন। ‘লিটল মস্কো’ নামে পরিচিত শহরটিতে বিপুল রাশিয়ান জনসংখ্যা রয়েছে।

দুই দেশের মধ্যে অর্থনৈতিক সম্পর্ক জোরদার করতে পুতিন আজ চীন-রাশিয়া বাণিজ্য মেলায় যাচ্ছেন বলে জানিয়েছে বিবিসি।

চীনা নেতা শি চিনপিংয়ের সঙ্গে বৈঠকের একদিন পর হারবিন গেলেন পুতিন। দুই নেতা বৈঠকে তাদের গভীর সম্পর্কের প্রশংসা করেন।

পুতিন বলেছেন, তারা ইউক্রেন নিয়েও আলোচনা করেছেন। উভয় নেতা যুদ্ধের একটি রাজনৈতিক সমাধান খুঁজতে চেয়েছেন।

পঞ্চমবারের মতো রাষ্ট্রপতি হওয়ার পর এটাই পুতিনের প্রথম আন্তর্জাতিক সফর।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, রাশিয়া চীনকে ‘লাইফলাইন’ হিসেবে দেখেছে, কারণ দেশটি যুক্তরাষ্ট্র এবং তার পশ্চিমা মিত্রদের কাছ থেকে শত শত নিষেধাজ্ঞার মুখোমুখি হয়েছে। বেইজিংয়ের বিরুদ্ধে প্রযুক্তি এবং উপাদান সরবরাহ করে মস্কোর যুদ্ধে সহায়তা করার অভিযোগ আনা হয়েছে। তবে চীন বলে আসছে, এর কোনোটিই প্রাণঘাতী নয়।

এর আগে বৃহস্পতিবার দুই দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে চীনে পৌঁছান রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। প্রথম দিনের শুরুতে প্রেসিডেন্ট শি চিনপিংয়ের সঙ্গে বেইজিংয়ের গ্রেট হল অফ দ্য পিপলে মিলিত হন তিনি।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, সফরে ইউক্রেন সংকট, এশিয়া, জ্বালানি ও বাণিজ্যের মতো বিষয় নিয়ে শির সঙ্গে বিশদ আলোচনার কথা আছে পুতিনের।

ইউক্রেনে ২০২২ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি বিশেষ সামরিক অভিযান শুরুর কয়েক দিন আগে বেইজিংয়ে সফরে যান পুতিন। ওই সময় চীন ও রাশিয়া ‘সীমাহীন’ অংশীদারত্বের ঘোষণা দেয়।

আরও পড়ুন:
ইউক্রেন যুদ্ধে ৫০ হাজারের বেশি রুশ সেনা নিহত
নারায়ণগঞ্জে নির্মাণাধীন ভবন থেকে পড়ে চীনা প্রকৌশলীর মৃত্যু
রাশিয়ায় বন্যা, জরুরি অবস্থা জারি
ন্যাটো দেশে হামলা নয়, ইউক্রেনকে যুদ্ধবিমান দিলে ধ্বংস করা হবে
মস্কোতে আইএসের হামলার সামর্থ্যে বিশ্বাস নেই রাশিয়ার

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
5 Israeli soldiers were killed in their attack

নিজেদের হামলায় ৫ ইসরায়েলি সেনা নিহত

নিজেদের হামলায় ৫ ইসরায়েলি সেনা নিহত
বুধবার সংঘর্ষের সময় জাবালিয়ার উত্তরাঞ্চলীয় শরণার্থী শিবিরে দুটি ইসরায়েলি ট্যাংক ভুলভাবে তাদের অবস্থান করা ভবনে শেল নিক্ষেপ করলে নিহত হয় ওই সেনা সদস্যরা।

নিজেদের হামলায় ইসরায়েলের পাঁচ সেনা সদস্য নিহত হয়েছে।

ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষের বরাতে বৃহস্পতিবার এএফকি প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

বুধবার সংঘর্ষের সময় জাবালিয়ার উত্তরাঞ্চলীয় শরণার্থী শিবিরে দুটি ইসরায়েলি ট্যাংক ভুলভাবে তাদের অবস্থান করা ভবনে শেল নিক্ষেপ করলে নিহত হয় ওই সেনা সদস্যরা।

সামরিক বাহিনী বলেছে, এ ঘটনায় আরও সাত সৈন্য আহত হয়েছে। ২০২তম প্যারাট্রুপার ব্যাটালিয়নের পাঁচজন সৈন্য রাতে তাদের বাহিনীর ওপর গুলি চালানোর ফলে এই ঘটনা ঘটে।

ইসরায়েল ডিফেন্স ফোর্সেস (আইডিএফ) বলেছে, পাঁচজন সৈন্য আমাদের বাহিনীর গুলির ফলে নিহত হয়েছে।

এএফপির সাংবাদিক, প্রত্যক্ষদর্শী ও চিকিৎসকরা বলেন, ইসরায়েলি যুদ্ধবিমানগুলি আবারও গাজা জুড়ে রাতের বেলা গাজা নগরী ও এর দক্ষিণের জেইতুন এলাকা, জাবালিয়া এবং নুসিরাত শরণার্থী শিবিরসহ বিভিন্ন অঞ্চলকে লক্ষ্যবস্তু করেছে।

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Slovakias prime minister is in critical condition after being shot

স্লোভাকিয়ার প্রধানমন্ত্রী গুলিবিদ্ধ, অবস্থা আশঙ্কাজনক

স্লোভাকিয়ার প্রধানমন্ত্রী গুলিবিদ্ধ, অবস্থা আশঙ্কাজনক স্লোভাকিয়ার প্রধানমন্ত্রী রবার্ট ফিকো। ছবি: সংগৃহীত
রাজধানী ব্রাতিস্লাভা থেকে দুই ঘণ্টার দূরত্বের শহর হান্দলোভায় সরকারি কর্মকর্তাদের নিয়ে বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী রবার্ট ফিকো। বৈঠকের পর তাকে লক্ষ্য করে বেশ কয়েকবার গুলি করা হয়। তাকে বান্সকা বাইস্ট্রিকার একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

স্লোভাকিয়ার প্রধানমন্ত্রী রবার্ট ফিকো গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। সরকারি এক বৈঠকের পর তাকে লক্ষ্য করে বেশ কয়েকবার গুলি করা হয়েছে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।

রবার্ট ফিকো’র অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, গুলিবিদ্ধ স্লোভাক নেতাকে বান্সকা বাইস্ট্রিকার একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

একটি সরকারি বৈঠকের জন্য হান্দলোভা শহরে ছিলেন সরকারি কর্মকর্তারা। সেখানে প্রধানমন্ত্রীকে গুলি করা হয়। শহরটি রাজধানী ব্রাতিস্লাভা থেকে দুই ঘণ্টার দূরত্বে অবস্থিত।

বার্তা সংস্থা টিএএসআর জানায়, ফিকোকে লক্ষ্য করে বেশ কয়েকটি গুলি করা হয়। তার অবস্থা তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি। স্লোভাকিয়ার জরুরি চিকিৎসা সেবা বিভাগ জানিয়েছে, তারা ঘটনাস্থলে একটি হেলিকপ্টার অ্যাম্বুলেন্স পাঠিয়েছে।

স্লোভাকিয়ার প্রেসিডেন্ট জুজানা চাপুতোভা ৫৯ বছর বয়সী এই রাজনীতিবিদের ওপর নৃশংস ও বেপরোয়া হামলার নিন্দা জানিয়েছেন। ফেসবুকে পোস্টে তিনি লিখেছেন, ‘আমি হতবাক। এই সংকটময় মুহূর্তে রবার্তো ফিকোর সেরে ওঠার জন্য সর্বশক্তি কামনা করছি।’

ফিকো এর আগে এক দশকেরও বেশি সময় ধরে স্লোভাকিয়ার প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। প্রথমে ২০০৬ থেকে ২০১০ এবং তারপরে ২০১২ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত।

ইউরোপীয় নেতারা তাৎক্ষণিকভাবে এই হামলার নিন্দা জানিয়েছেন। ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্ট উরসুলা ভন ডার লিয়েন এক টুইট বার্তায় বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী রবার্ট ফিকোর ওপর জঘন্য হামলার তীব্র নিন্দা জানাই। আমাদের সমাজে এ ধরনের সহিংসতার কোনো স্থান নেই। এটা আমাদের সবচেয়ে মূল্যবান সর্বজনীন কল্যাণ গণতন্ত্রকে ক্ষুণ্ন করছে। প্রধানমন্ত্রী ফিকো ও তার পরিবারের প্রতি আমার সমবেদনা।’

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
The Biden administration changed its position that Israel will attack Gaza with US weapons

অবস্থান পাল্টাল বাইডেন প্রশাসন, যুক্তরাষ্ট্রের অস্ত্রেই গাজায় হামলা চালাবে ইসরায়েল

অবস্থান পাল্টাল বাইডেন প্রশাসন, যুক্তরাষ্ট্রের অস্ত্রেই গাজায় হামলা চালাবে ইসরায়েল যুক্তরাষ্ট্র ফের ইসরায়েলি বাহিনীর কাছে অস্ত্র পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ছবি: সংগৃহীত
গাজার দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর রাফাতে ইসরায়েলি বাহিনী বড় ধরনের স্থল অভিযান শুরু করলে যুক্তরাষ্ট্র তাদের অস্ত্র সরবরাহ বন্ধ করে দেবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন দেশটির প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকতায় হামলা চালানোর জন্য ইসরায়েলি বাহিনীকে অস্ত্র পাঠানো হবে না বলে যে হুমকি এসেছিল যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষে, তা থেকে সরে এসে নতুন করে অস্ত্র পাঠানোর পরিকল্পনা করা হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা বলেছেন, হোয়াইট হাউস মঙ্গলবার কংগ্রেসকে অনানুষ্ঠানিকভাবে এ পরিকল্পনার কথা জানিয়েছে। পরিকল্পনা বাস্তবায়নে এখন শুধু কংগ্রেসের অনুমোদন লাগবে। এক বিলিয়ন বা ১০০ কোটি সমমূল্যের অস্ত্র পাঠাতে চায় যুক্তরাষ্ট্র।

গাজার দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর রাফাতে ইসরায়েলি বাহিনী বড় ধরনের স্থল অভিযান শুরু করলে যুক্তরাষ্ট্র তাদের অস্ত্র সরবরাহ বন্ধ করে দেবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন দেশটির প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

সপ্তাহখানেক আগের ওই ঘোষণার পর এবার যুক্তরাষ্ট্রের অস্ত্র পাঠানোর তথ্য প্রকাশ্যে এসেছে বলে বিবিসির প্রতিবেদেন বলা হয়েছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, প্যাকেজের মধ্যে ট্যাংকের গোলাবারুদ, মর্টার এবং কৌশলগত সাঁজোয়া যান অন্তর্ভুক্ত থাকবে। এখন শুধু আইন প্রণেতাদের দ্বারা অনুমোদিত হলেই এই অস্ত্র পাঠানো যাবে।

বাইডেন প্রশাসনের ইসরায়েলে অস্ত্র পাঠানোর সিদ্ধান্ত স্থগিত করার এক সপ্তাহের মধ্যে প্রথম বারের মতো এবার অস্ত্র পাঠাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। এপির তথ্য বলছে, এর মধ্যে ৭০০ মিলিয়ন মূল্যের ট্যাংক গোলাবারুদ, ৫০০ মিলিয়নের কৌশলগত যান এবং ৬০ মিলিয়নের মর্টার থাকবে।

সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের এক প্রতিবেদনে দেখা গেছে, ইসরায়েলকে দেয়া কিছু আমেরিকান-নির্মিত অস্ত্র আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘনের জন্য ব্যবহার করা হতে পারে।

এর আগে গত সপ্তাহে ইসরায়েলকে হুঁশিয়ারি দিয়ে সংবাদমাধ্যম সিএনএনকে এক সাক্ষাৎকারে বাইডেন বলেন, যদি তারা (ইসরয়েল) রাফাতে যায়, আমি সেই অস্ত্র সরবরাহ করব না যা রাফাকে মোকাবিলায় ঐতিহাসিকভাবে ব্যবহার করা হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, তবে যুক্তরাষ্ট্রের এমন দৃঢ় এবং কঠোর অবস্থান সত্ত্বেও ইসরায়েল রাফাতে একটি বড় আকারের আগ্রাসন চালানোর জন্য প্রস্তুত বলে মনে হচ্ছে।

এই হুমকির আগেও রাফাতে ইসরায়েলি বাহিনীর সম্ভ্যাব্য হামলার পরিকল্পনা নিয়ে উদ্বেগের প্রেক্ষাপটে একটি বোমার চালান স্থগিত করে যুক্তরাষ্ট্র।
এক কর্মকর্তা তখন বলেন, ‘আমরা অস্ত্রের একটি চালান স্থগিত করেছি। এতে ১৮০০টি ২০০০-পাউন্ড (৯০৭ কেজি) ওজনের এবং ৫০০-পাউন্ড (২২৬ কেজি) ওজনের ১৭০০টি বোমা ছিল।’

ওয়াশিংটনের বিরোধিতা সত্ত্বেও ইসরায়েল যখন রাফাতে একটি বড় স্থল অভিযানের দ্বারপ্রান্তে, তখন বাইডেন প্রশাসন ওই সিদ্ধান্ত নেয়।
দক্ষিণ গাজার ঘনবসতিপূর্ণ অংশ রাফা হামাসের শেষ প্রধান শক্ত ঘাঁটি। এ এলাকায় ইসরায়েলিহামলা বহু বেসামরিক লোকের প্রাণহানির কারণ হতে পারে।

হামাস পরিচালিত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুসারে, গাজায় চলমান ইসরায়েলি সামরিক হামলায় সাড়ে ৩৪ হাজারের বেশি ফিলিস্তিনি নিহত এবং ৭৮ হাজারের মতো আহত হয়েছেন। আর হামাসের হামলায় নিহত হয়েছেন এক হাজার ১৩৯ ইসরায়েলি।

মন্তব্য

p
উপরে