× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

আন্তর্জাতিক
103 killed in bombing at Qasem Soleimani memorial in Iran
google_news print-icon

ইরানে নিহত বেড়ে ১০৩, মধ্যপ্রাচ্যে ঘনাচ্ছে আশঙ্কার মেঘ

ইরানে-নিহত-বেড়ে-১০৩-মধ্যপ্রাচ্যে-ঘনাচ্ছে-আশঙ্কার-মেঘ
হামলার পর উদ্ধার তৎপরতা চালাচ্ছেন ইরানের জাতীয় জরুরি পরিষেবার কর্মীরা। ছবি: সংগৃহীত
কেরমানের জরুরি পরিষেবা বিভাগের প্রধান মোহাম্মদ সাবেরি বলেন, ‘বোমা হামলায় ঘটনাস্থলেই ৭৩ জন নিহত হন। আর বোমায় গুরুতর আহতদের অধিকাংশই হাসপাতালে নেয়ার পর মারা যান। বর্তমানে হাসপাতালের বেডে শুয়ে কাতরাচ্ছেন আরও ১৪১ জন। তাদের মধ্যে কয়েকজনের অবস্থা গুরুতর।’

ইরানের বিপ্লবী গার্ড বাহিনীর (আইআরজিসি) শীর্ষ কমান্ডার কাসেম সোলাইমানির চতুর্থ মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত স্মরণসভায় জোড়া বোমা হামলার ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১০৩ জনে দাঁড়িয়েছে।

দেশটির দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় শহর কেরমানে বুধবারের এ ঘটনায় আরও অন্তত ১৪১ জন আহত হয়েছেন। এখানে সোলাইমানির সমাধিস্থলের কাছে ওই স্মরণসভার আয়োজন করা হয়েছিল।

দেশটির রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কেরমানের জরুরি পরিষেবা বিভাগের প্রধান মোহাম্মদ সাবেরি।

এক বিবৃতিতে সাবেরি বলেন, ‘বোমা হামলায় ঘটনাস্থলেই ৭৩ জন নিহত হন। আর বোমায় গুরুতর আহতদের অধিকাংশই হাসপাতালে নেয়ার পর মারা যান। বর্তমানে হাসপাতালের বেডে শুয়ে কাতরাচ্ছেন আরও ১৪১ জন। তাদের মধ্যে কয়েকজনের অবস্থা গুরুতর।’

হামলার বিবরণ

ইরানের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা ইরনা জানায়, প্রথম বোমাটি বিস্ফোরিত হয় সোলাইমানির সমাধিস্থলের ৭০০ মিটার দূরে। একটি পুজো কারের ভেতর স্যুটকেসের মধ্যে রাখা ছিল বোমাটি। রিমোট কন্ট্রোলারের সাহায্যে সেটির বিস্ফোরণ ঘটানো হয়।

রাষ্ট্রীয় সংবাদ চ্যানেল আইআরআইবি-কে দেয়া সাক্ষাৎকারে ইরানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আহমাদ ওয়াহিদি বলেন, ‘প্রথম বিস্ফোরণটি ঘটে স্থানীয় সময় বুধবার বিকেল ৩টার দিকে। বিস্ফোরণে আহতদের উদ্ধার করতে যখন সভায় উপস্থিতরা ঘটনাস্থলে জড়ো হন, তখন অর্থাৎ ২০ মিনিট পর দ্বিতীয় বিস্ফোরণটি ঘটানো হয়। এটির প্রভাব ছিল ধ্বংসাত্মক।’

এখন পর্যন্ত নৃশংস এই বোমা হামলার দায় স্বীকার করেনি কোনো পক্ষ বা সংগঠন।

বোমা বিস্ফোরণে হতাহত হওয়ার ঘটনায় বৃহস্পতিবার একদিনের রাষ্ট্রীয় শোক ঘোষণা করেছে ইরান।

হুঁশিয়ারি

ঘটনার পর ইরানের বিচার বিভাগের প্রধান গোলাম হোসেন মোহসেনি-ইজেই বিবৃতি দিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘এই নৃশংস ঘটনার হোতা ও বাস্তবায়নকারীদের খুঁজে বের করে কঠোর শাস্তির আওতায় আনা হবে।’

সব তথ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে অপরাধীদের শনাক্ত করে তাদের ধরে আইনের হাতে তুলে দিতে ইরানের গোয়েন্দা বিভাগ, নিরাপত্তা বিভাগ ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোকে অবিলম্বে কাজ শুরু করার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

আইআরজিসি যা বলছে

বোমা হামলার মতো ঘটনা ঘটিয়ে শত্রুরা ইরানের ওপর মনস্তাত্ত্বিক চাপ প্রয়োগ করছে উল্লেখ করে দেশবাসীকে সতর্ক করেছেন ইরানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আইআরজিসি কমান্ডার আহমেদ ওয়াহিদি।

তিনি বলেন, ‘শত্রুদের পাতানো ফাঁদে পা দিয়ে কেউ বিভ্রান্ত হবেন না। কোনো ধরনের গুজবে কান দেবেন না।’

হামলা সম্পর্কিত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে দাবি করে দেশটির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনকে তিনি বলেন, ‘পর্যালোচনা ও যাচাই করার পরই তা আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশ করা হবে।’

নিহতের মধ্যে বেশকিছু শিশুও রয়েছে

ইরানের রাজনৈতিক বিশ্লেষক মোস্তফা খোশচেশম আল জাজিরাকে বলেন, ভয়াবহ এই বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় নিহতদের মধ্যে বেশকিছু শিশুও রয়েছে।

হুতির সংহতি

জেনারেল সোলাইমানির শাহাদাৎ বার্ষিকীতে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় নিন্দা এবং ইরানের প্রতি সংহতি জানিয়ে একটি বিবৃতি প্রকাশ করেছে ইয়েমেনের বিদ্রোহী গোষ্ঠী হুতি।

বিবৃতিতে তারা বলেছে, ‘ইসলামী প্রজাতন্ত্রকে দুর্বল করার মতো চেষ্টার সমস্ত অপরাধের সম্প্রসারণকে প্রতিনিধিত্ব করে এ হামলা। এ ঘটনার পর ইসলামী প্রজাতন্ত্রের বিরুদ্ধে বৈশ্বিক ঔদ্ধাত্যের মোকাবিলায় ইরানের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করছে হুতি।’

বিস্ফোরণের নৃশংসতা ও নিচতায় হতবাক পুতিন

জোড়া বিস্ফোরণের পর ইরানের প্রতি সহমর্মিতা প্রকাশ করেছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি এবং সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনিকে লেখা এক চিঠিতে পুতিন বলেছেন, ‘সমাধিস্থলে আসা বেসামরিক মানুষের ওপর এমন বর্বরোচিত হামলা চরম নিষ্ঠুরতার প্রকাশ।’

ঘটনাটিকে ‘মর্মান্তিক’ উল্লেখ করে এ ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছেন তিনি।

তুরস্কের নিন্দা

নিষ্ঠুর এ হামলার ঘটনায় নিন্দাজ্ঞাপন করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে করা এক পোস্টে তিনি বলেছেন, ‘ইরানের কেরমান প্রদেশে চালানো জঘন্য সন্ত্রাসী হামলায় আমরা গভীরভাবে মর্মাহত। যারা হামলায় প্রাণ হারিয়েছেন আল্লাহ তাদের প্রতি রহম করুন। সেইসঙ্গে যারা আহতদের দ্রুত আরোগ্য কামনা করছি।’

‘আমার বন্ধুত্বপরায়ণ ও ভ্রাতৃপ্রতিম ইরানি জনগণের প্রতি আমি সমবেদনা প্রকাশ করছি’, বলেন তিনি।

হিজবুল্লাহ নেতার সমবেদনা

বিস্ফোরণে নিহতদের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন হিজবুল্লাহ নেতা হাসান নাসরাল্লাহও।

বিবৃতিতে অপরাধীদের বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি নাসরুল্লাহ। তবে বলেছেন, ‘নিহতরা সোলেইমানির মতো সংগ্রামের একই পথে প্রাণ দিয়েছেন।’

হামলার নেপথ্যে কে?

তেহরান বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধ্যপ্রাচ্য অধ্যয়ন বিভাগের অধ্যাপক হাসান আহমেদিয়ান হামলার ঘটনায় সবচেয়ে বড় প্রশ্নটি তুলেছেন। তিনি বলেছেন, ‘এই ভয়াবহ বিস্ফোরণের পর ইরানে এখন একটি প্রশ্নই সব মনোযোগের কেন্দ্রবিন্দুতে। তা হলো- কে করল এমন কাজ?’

আল জাজিরাকে দেয়া সাক্ষাতকারে তিনি জানিয়েছেন, ‘প্রেসিডেন্ট (ইব্রাহিম রাইসি) অবশ্যই এ ঘটনার নেপথ্যে থাকা কলাকুশলীদের খুঁজে বের করে শাস্তির আওতায় আনবেন। তিনি হয়তো প্রতিশোধের কথাও বলবেন। কিন্তু প্রশ্ন রয়ে গেল- কে বা কারা এটি ঘটাল?’

‘আইসিস সম্প্রতি যেসব ঘটনা ঘটিয়েছে (ব্যাপক সংখ্যায় হত্যাকাণ্ড), তাতে তাদের দায় থাকার সম্ভাবনা উড়িয়ে দেয়া যায় না। আবার ইসরায়েলও এমন ঘটনা ঘটিয়ে থাকতে পারে।’

এর ব্যাখ্যা হিসেবে তিনি বলেছেন, ‘তারা (ইসরায়েল) হয়তো এমন কিছু চায় যা ইরানের বিরুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে (সংঘাতে) টেনে আনবে।’

‘এগুলোই বাস্তবিক সম্ভাবনা’, বলেন এ অধ্যাপক।

মধ্যপ্রাচ্যে ঘনাচ্ছে আশঙ্কার মেঘ

গত ৭ অক্টোবর ইসরায়েলে হামাসের হামলার পর চলমান হামাস-ইসরায়েল যুদ্ধের মধ্যেই এবার উত্তেজনা ছড়াল ইরানে। গত সোমবার সিরিয়ার দামেস্ক উপকণ্ঠে ইসরায়েলি বিমান হামলায় নিহত হন আইআরজিসির আরও এক শীর্ষ নেতা সাইয়েদ রাজি মুসাভি।

মুসাভি আইরাজিসির শীর্ষ কমান্ডার জেনারেল কাসেম সোলাইমানির ঘনিষ্ঠজন ছিলেন। ইসলামিক রেভল্যুশনারি গার্ড বাহিনীর জ্যেষ্ঠ এ উপদেষ্টা ইরান ও সিরিয়ার মধ্যে সামরিক জোট সমন্বয়কের ভূমিকায় ছিলেন।

যদিও ওই ঘটনায় সে সময় নিজেদের সম্পৃক্ততার কথা অস্বীকার করে ইসরায়েল। তবে ইসরায়েলকে দায়ী করে তাদের ওপর কঠিন প্রতিশোধ নেয়ার অঙ্গীকার করে হিজবুল্লাহ।

তার আগে ইরানের বিরুদ্ধে হামাসকে অর্থায়নের অভিযোগ আনে ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষ। ফিলিস্তিনের শাসকগোষ্ঠীকে অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগ এনে ইসরায়েলের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী ইয়োভ গ্যালান্ট গত মাসে বলেছিলেন যে, তার দেশ একটি বহুমুখী যুদ্ধের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে।

‘ইরানসহ সাতটি দেশ থেকে ইসরায়েলের ওপর আক্রমণ আসছে। আমরা এরই মধ্যে ছয়টি দেশকে জবাব দিয়েছি। বাকিদের বিষয়েও কাজ করছি’, সে সময় বলেন তিনি।

যুক্তরাষ্ট্রও সম্প্রতি মধ্যপ্রাচ্যে সামরিক তৎপরতা বাড়িয়েছে। গত মাসে একটি হামলায় যুক্তরাষ্ট্রের তিন সেনা আহত হওয়ার পর দেশটির সেনাবাহিনী ইরান-সমর্থিত কাতাইব হিজবুল্লাহ ও ইরাকে তাদের ‘সহযোগী গোষ্ঠীর’ ওপর বিমান হামলা চালায়।

এ সমস্ত ঘটনার পর্যালোচনা করে আল জাজিরার জ্যেষ্ঠ রাজনৈতিক বিশ্লেষক মারওয়ান বিশারা বলেছেন, কয়েক দিনের ব্যবধানে আঞ্চলিক উত্তেজনা এতটাই বৃদ্ধি পেয়েছে যে, মধ্যপ্রাচ্যের আকাশে ‘যুদ্ধের কালো মেঘ’ ঘনীভূত হচ্ছে, তা স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে।

বিশারা বলেন, ‘এই অঞ্চলে এখন যেকোনো কিছু ঘটতে পারে। এখানে অনেক বেশি হিংস্রতা, উত্তেজনা, আর দ্বন্দ্ব বেড়েছে; অনেকগুলো লড়াই চলমান। লোহিত সাগর, ইরান-ইরাকি সীমান্ত, ইয়েমেন থেকে উপসাগরীয় অঞ্চল সর্বত্র এখন যুদ্ধের চাপা দামামা বাজছে।’

আরও পড়ুন:
ইরানে সোলাইমানির মৃত্যুবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে জোড়া বোমা হামলা, নিহত ৭৩

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
Response to attack not now Iranian official

হামলার জবাব এখনই নয়: ইরানের কর্মকর্তা

হামলার জবাব এখনই নয়: ইরানের কর্মকর্তা ইরানের রাজধানী তেহরানের উত্তরাঞ্চলে ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়ার ছবি সংবলিত ব্যানারের পাশ দিয়ে শুক্রবার হেঁটে যান এক নারী। ছবি: এপি
নাম প্রকাশ না করার শর্তে ইরানের ওই কর্মকর্তা বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেন, ‘ঘটনার বিদেশি উৎসের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায়নি। আমরা বাইরের কোনো হামলার শিকার হইনি এবং আলোচনা হামলার চেয়ে বেশি হচ্ছে অনুপ্রবেশ নিয়ে।’

ইরানের ইস্পাহানে শুক্রবার ‘ইসরায়েলের’ হামলার তাৎক্ষণিক জবাব দেয়ার কোনো পরিকল্পনা নেই বলে জানিয়েছেন ইসলামি প্রজাতন্ত্রটির জ্যেষ্ঠ এক কর্মকর্তা।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওই কর্মকর্তা বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেন, ‘ঘটনার বিদেশি উৎসের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায়নি। আমরা বাইরের কোনো হামলার শিকার হইনি এবং আলোচনা হামলার চেয়ে বেশি হচ্ছে অনুপ্রবেশ নিয়ে।’

সিরিয়ার দামেস্কে গত ১ এপ্রিল ইরানি কনস্যুলেটে ইসরায়েলি হামলার জবাবে গত শনিবার রাতে ইসরায়েলে ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় ইরান। এর এক সপ্তাহের মধ্যেই বৃহস্পতিবার রাতে ইরানের মধ্যাঞ্চলীয় নগর ইস্পাহানে ইসরায়েলি হামলার খবর পাওয়া গেছে।

ইরানের বার্তা সংস্থা ফার্স নিউজ জানায়, ইস্পাহানের একটি বিমানবন্দরে বিস্ফোরণের শব্দ শোনা গেছে, তবে কী কারণে এ বিস্ফোরণ হয়েছে তা জানা যায়নি।

‘নির্ভরযোগ্য সূত্রের’ বরাত দিয়ে ইরানের বার্তা সংস্থা তাসনিমের খবরে বলা হয়, ‘ইস্পাহান প্রদেশের পরমাণু ক্ষেত্রগুলো সম্পূর্ণ নিরাপদ।’

দেশটির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন জানায়, ইস্পাহানের কাছে বিস্ফোরণের পর কয়েকটি ড্রোন ভূপাতিত করা হয়। সেখানে কোনো ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানো হয়নি।

ইস্পাহান শহরের কাছে ইরানের কয়েকটি পারমাণবিক ক্ষেত্র রয়েছে, যেগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি বলে দাবি করেছে রাষ্ট্রীয় সম্প্রচারমাধ্যম।

আরও পড়ুন:
ইরানে হামলার খবরে পুঁজিবাজারে ধস, তেলের দামে উল্লম্ফন
ইসরায়েলের তিন ড্রোন ভূপাতিত: ইরান
ইরানের পরমাণু ক্ষেত্রগুলো সম্পূর্ণ নিরাপদ: প্রতিবেদন
ইরানে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা ইসরায়েলের
ইরানের ওপর পশ্চিমাদের নতুন নিষেধাজ্ঞা

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Oil prices jump on news of attack on Iran

ইরানে হামলার খবরে পুঁজিবাজারে ধস, তেলের দামে উল্লম্ফন

ইরানে হামলার খবরে পুঁজিবাজারে ধস, তেলের দামে উল্লম্ফন যুক্তরাষ্ট্রের একটি পুঁজিবাজারে হতাশ বিনিয়োগকারী ও একটি তেলক্ষেত্র। ছবি: পিবিএস ও সিজিটিএন
রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, ইসরায়েলি হামলার বিষয়টি জানার পর পুঁজিবাজার ও তেলের বাজারে শুরুতে যে প্রভাব পড়ে, সেটি কমে এসেছে। হামলার পরিসর ছোট এবং কোনো ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয়নি বলে ইরানের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে এমন বাস্তবতা সৃষ্টি হয়।

ইরানের ইস্পাহানে বৃহস্পতিবার রাতে ইসরায়েলের হামলার খবরে শুক্রবার পুঁজিবাজারে দরপতন হয়েছে উল্লেখ করে রয়টার্স জানিয়েছে, এশিয়ার শেয়ার ও বন্ডে ধস নামে, যেখানে উল্লম্ফন দেখা যায় স্বর্ণ ও অশোধিত জ্বালানি তেলের দামে।

বার্তা সংস্থাটির প্রতিবেদনে বলা হয়, ইসরায়েলি হামলার বিষয়টি জানার পর পুঁজিবাজার ও তেলের বাজারে শুরুতে যে প্রভাব পড়ে, সেটি কমে এসেছে। হামলার পরিসর ছোট এবং কোনো ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয়নি বলে ইরানের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে এমন বাস্তবতা সৃষ্টি হয়।

শুরুতে যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্ক সিটিভিত্তিক এমএসসিআইয়ের এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় সূচকের পতন হয় দুই দশমিক ছয় শতাংশ, যেটি পরবর্তী সময়ে কমে দাঁড়ায় দুই শতাংশে।

অন্যদিকে মধ্যপ্রাচ্য থেকে সরবরাহে বিঘ্ন ঘটার শঙ্কায় ব্রেন্টের অশোধিত জ্বালানি তেলের দাম শুরুতে চার দশমিক দুই শতাংশ বাড়লেও পরবর্তী সময়ে তা কমে বৃদ্ধির পরিমাণ দাঁড়ায় দুই দশমিক চার শতাংশ। মূল্যবৃদ্ধি কমার পর ব্যারেলপ্রতি ব্রেন্টের অশোধিত তেলের দাম দাঁড়ায় ৮৯ দশমিক ২২ ডলারে।

সিরিয়ার দামেস্কে গত ১ এপ্রিল ইরানি কনস্যুলেটে ইসরায়েলি হামলার জবাবে গত শনিবার রাতে ইসরায়েলে ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় ইরান। এর এক সপ্তাহের মধ্যেই বৃহস্পতিবার রাতে ইরানের মধ্যাঞ্চলীয় নগর ইস্পাহানে ইসরায়েলি হামলার খবর পাওয়া গেছে।

ইরানের বার্তা সংস্থা ফার্স নিউজ জানায়, ইস্পাহানের একটি বিমানবন্দরে বিস্ফোরণের শব্দ শোনা গেছে, তবে কী কারণে এ বিস্ফোরণ হয়েছে তা জানা যায়নি।

‘নির্ভরযোগ্য সূত্রের’ বরাত দিয়ে ইরানের বার্তা সংস্থা তাসনিমের খবরে বলা হয়, ‘ইস্পাহান প্রদেশের পরমাণু ক্ষেত্রগুলো সম্পূর্ণ নিরাপদ।’

দেশটির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন জানায়, ইস্পাহানের কাছে বিস্ফোরণের পর কয়েকটি ড্রোন ভূপাতিত করা হয়। সেখানে কোনো ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানো হয়নি।

ইস্পাহান শহরের কাছে ইরানের কয়েকটি পারমাণবিক ক্ষেত্র রয়েছে, যেগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি বলে দাবি করেছে রাষ্ট্রীয় সম্প্রচারমাধ্যম।

আরও পড়ুন:
২৫ হাজার টন বিস্ফোরক ছোড়া হয়েছে গাজায়: জাতিসংঘের দূত
বড় হামলা করলে ইসরাইলের কিছুই অবশিষ্ট থাকত না
ইরানের তেল বাণিজ্যে লাগাম টানতে পারে যুক্তরাষ্ট্র
ইসরায়েল হামলা করলে কয়েক সেকেন্ডেই জবাব: ইরান
ইরানকে কঠোর জবাব দেবে ইসরায়েল, মন্ত্রিসভায় সিদ্ধান্ত

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Three Israeli drones shot down Iran

ইসরায়েলের তিন ড্রোন ভূপাতিত: ইরান

ইসরায়েলের তিন ড্রোন ভূপাতিত: ইরান ইসরায়েল কোয়াডকপ্টার দিয়ে হামলা চালিয়েছে বলে দাবি করেছে ইরান। ছবি: এক্স
সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এক্সে শুক্রবার দেয়া পোস্টে ইরানের মহাকাশ সংস্থার মুখপাত্র হোসেইন দালিরিয়ান লিখেন, ‘তারা (ইসরায়েল) বলেছে যে, আমরা ৫০০ সুইসাইড ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়েছি...এখন তারা জবাব দিয়েছে এই তিন কোয়াডকপ্টার (ড্রোনসদৃশ আকাশযান) দিয়ে, যার সবগুলোকে ভূপাতিত করা হয়েছে।’

ইসরায়েলের তিনটি ড্রোন ইরান ভূপাতিত করেছে বলে দাবি করেছে দেশটির মহাকাশ সংস্থা।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এক্সে শুক্রবার কোয়াডকপ্টারের ছবি সংযুক্ত করে দেয়া পোস্টে ইরানের মহাকাশ সংস্থার মুখপাত্র হোসেইন দালিরিয়ান লিখেন, ‘তারা (ইসরায়েল) বলেছে যে, আমরা ৫০০ সুইসাইড ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়েছি...এখন তারা জবাব দিয়েছে এই তিন কোয়াডকপ্টার (ড্রোনসদৃশ আকাশযান) দিয়ে, যার সবগুলোকে ভূপাতিত করা হয়েছে।’

হাসির ইমোজি দিয়ে ওই পোস্টে দালিরিয়ান আরও লিখেন, ‘তারা শুধু বলেছে যে, তারা (হামলার) আগে আমেরিকাকে জানায়নি।’

সিরিয়ার দামেস্কে গত ১ এপ্রিল ইরানি কনস্যুলেটে ইসরায়েলি হামলার জবাবে গত শনিবার রাতে ইসরায়েলে ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় ইরান। এর এক সপ্তাহের মধ্যেই বৃহস্পতিবার রাতে ইরানের মধ্যাঞ্চলীয় নগর ইস্পাহানে ইসরায়েলি হামলার খবর পাওয়া গেছে।

ইরানের বার্তা সংস্থা ফার্স নিউজ জানায়, ইস্পাহানের একটি বিমানবন্দরে বিস্ফোরণের শব্দ শোনা গেছে, তবে কী কারণে এ বিস্ফোরণ হয়েছে তা জানা যায়নি।

‘নির্ভরযোগ্য সূত্রের’ বরাত দিয়ে ইরানের বার্তা সংস্থা তাসনিমের খবরে বলা হয়, ‘ইস্পাহান প্রদেশের পরমাণু ক্ষেত্রগুলো সম্পূর্ণ নিরাপদ।’

আরও পড়ুন:
বড় হামলা করলে ইসরাইলের কিছুই অবশিষ্ট থাকত না
ইরানের তেল বাণিজ্যে লাগাম টানতে পারে যুক্তরাষ্ট্র
ইসরায়েল হামলা করলে কয়েক সেকেন্ডেই জবাব: ইরান
ইরানকে কঠোর জবাব দেবে ইসরায়েল, মন্ত্রিসভায় সিদ্ধান্ত
ইরানের ওপর প্রতিশোধমূলক হামলায় অংশ নেবে না যুক্তরাষ্ট্র: হোয়াইট হাউস

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Irans nuclear sites completely safe report

ইরানের পরমাণু ক্ষেত্রগুলো সম্পূর্ণ নিরাপদ: প্রতিবেদন

ইরানের পরমাণু ক্ষেত্রগুলো সম্পূর্ণ নিরাপদ: প্রতিবেদন ইস্পাহানের কাছে শেকারি সেনা বিমানঘাঁটিতে তিনটি বিস্ফোরণের আওয়াজ পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা ফার্স নিউজ। ছবি: এএফপি
‘নির্ভরযোগ্য সূত্রের’ বরাত দিয়ে ইরানের বার্তা সংস্থা তাসনিমের খবরে বলা হয়, ‘ইস্পাহান প্রদেশের পরমাণু ক্ষেত্রগুলো সম্পূর্ণ নিরাপদ।’

ইসরায়েলের হামলার খবরের মধ্যে ইরানের স্থানীয় একটি সংবাদমাধ্যম শুক্রবার বলেছে, দেশটির পরমাণু ক্ষেত্রগুলো সম্পূর্ণ নিরাপদে আছে।

সিরিয়ার দামেস্কে গত ১ এপ্রিল ইরানি কনস্যুলেটে ইসরায়েলি হামলার জবাবে গত শনিবার রাতে ইসরায়েলে ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় ইরান। এর এক সপ্তাহের মধ্যেই বৃহস্পতিবার রাতে ইরানের মধ্যাঞ্চলীয় নগর ইস্পাহানে ইসরায়েলি হামলার খবর পাওয়া গেছে।

ইরানের বার্তা সংস্থা ফার্স নিউজ জানায়, ইস্পাহানের একটি বিমানবন্দরে বিস্ফোরণের শব্দ শোনা গেছে, তবে কী কারণে এ বিস্ফোরণ হয়েছে তা জানা যায়নি।

‘নির্ভরযোগ্য সূত্রের’ বরাত দিয়ে ইরানের বার্তা সংস্থা তাসনিমের খবরে বলা হয়, ‘ইস্পাহান প্রদেশের পরমাণু ক্ষেত্রগুলো সম্পূর্ণ নিরাপদ।’

এদিকে ইরানের মহাকাশ সংস্থার মুখপাত্র হোসেইন দালিরিয়ান সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এক্সে দেয়া পোস্টে লিখেন, দেশটির আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার মাধ্যমে সফলভাবে কিছু ড্রোন ভূপাতিত করা হয়েছে। এ মুহূর্তে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার কোনো খবর নেই।

ইস্পাহানের কাছে শেকারি সেনা বিমানঘাঁটিতে তিনটি বিস্ফোরণের আওয়াজ পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা ফার্স নিউজ।

আরও পড়ুন:
ইরানে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা ইসরায়েলের
ইরানের ওপর পশ্চিমাদের নতুন নিষেধাজ্ঞা
হিজবুল্লাহর ক্ষেপণাস্ত্র ড্রোন হামলায় ১৪ ইসরায়েলি সেনা আহত
২৫ হাজার টন বিস্ফোরক ছোড়া হয়েছে গাজায়: জাতিসংঘের দূত
বড় হামলা করলে ইসরাইলের কিছুই অবশিষ্ট থাকত না

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Israels missile attack on Iran
এবিসির প্রতিবেদন

ইরানে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা ইসরায়েলের

ইরানে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা ইসরায়েলের ইসরায়েলের একটি ক্ষেপণাস্ত্র। ছবি: ডিফেন্স এক্সপ্রেস
এবিসির বরাতে বার্তা সংস্থা রয়টার্স শুক্রবার জানায়, ইরানের কেন্দ্রস্থলে বিস্ফোরণ হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম।

ইরানের একটি স্থানে ইসরায়েল ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে বলে বৃহস্পতিবার রাতে জানিয়েছে এবিসি নিউজ।

যুক্তরাষ্ট্রের এক কর্মকর্তার বরাত দিয়ে সংবাদমাধ্যমটি এ খবর জানায়।

এবিসির বরাতে বার্তা সংস্থা রয়টার্স শুক্রবার জানায়, ইরানের কেন্দ্রস্থলে বিস্ফোরণ হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম।

সিরিয়ার দামেস্কে গত ১ এপ্রিল ইরানি কনস্যুলেটে ইসরায়েলি হামলার জবাবে গত শনিবার রাতে ইসরায়েলে ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় ইরান। এর এক সপ্তাহের মধ্যেই ইরানে ইসরায়েলি হামলার খবর পাওয়া গেল।

এবিসির প্রতিবেদনের সত্যতা তাৎক্ষণিকভাবে যাচাই করতে পারেনি রয়টার্স।

ইরানের বার্তা সংস্থা ফার্স নিউজ জানায়, দেশটির মধ্যাঞ্চলীয় শহর ইস্পাহানের একটি বিমানবন্দরে বিস্ফোরণের শব্দ শোনা গেছে, তবে কী কারণে এ বিস্ফোরণ হয়েছে তা জানা যায়নি।

ইসলামি প্রজাতন্ত্রটির রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম জানায়, ইস্পাহান, সিরাজ ও তেহরানে বিমান চলাচল স্থগিত রাখা হয়েছে।

ইরানের বেশ কয়েকটি পারমাণবিক ক্ষেত্র রয়েছে ইস্পাহান প্রদেশে। অঞ্চলটিতে ইরানের ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণের কেন্দ্রে থাকা নাতাঞ্জ পারমাণবিক কেন্দ্রও রয়েছে।

গত শনিবারের হামলার জবাব দেয়ার কথা জানিয়েছিল ইসরায়েল। দেশটি বড় পরিসরে কোনো হামলা চালালে এবং এর জবাবে ইরানও পাল্টা হামলা করলে গাজা যুদ্ধ পুরো অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়ার শঙ্কা রয়েছে।

আরও পড়ুন:
ইসরায়েল হামলা করলে কয়েক সেকেন্ডেই জবাব: ইরান
ইরানকে কঠোর জবাব দেবে ইসরায়েল, মন্ত্রিসভায় সিদ্ধান্ত
ইরানের ওপর প্রতিশোধমূলক হামলায় অংশ নেবে না যুক্তরাষ্ট্র: হোয়াইট হাউস
ইসরায়েলে হামলার আগে সতর্ক করা হয়েছিল: ইরান
ইসরায়েল-ইরান যুদ্ধ চায় না বাংলাদেশ: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
New Western sanctions on Iran

ইরানের ওপর পশ্চিমাদের নতুন নিষেধাজ্ঞা

ইরানের ওপর পশ্চিমাদের নতুন নিষেধাজ্ঞা ইসরায়েলে হামলার পর ১৪ এপ্রিল ইরানের সরকার-দলীয় সমর্থকরা তেহরানের প্যালেস্টাইন স্কোয়ারে একটি বিশাল ফিলিস্তিনি পতাকা নিয়ে উল্লাস করে। ছবি: এএফপি
যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, ‘যারা ইরানকে হামলায় ইন্ধন দেয় ও তা সমর্থন করে, তাদের সবাইকে এটি স্পষ্ট করতে চাই যে, সবাইকে জবাবদিহিতার আওতায় আনতে যুক্তরাষ্ট্র প্রয়োজনীয় সমস্ত পদক্ষেপ নেবে।’

ইসরায়েলে রকেট ও ড্রোন হামলার পর ইরানের ওপর নতুন করে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে ইসরায়েলের ঘনিষ্ট দুই মিত্র হিসেবে পরিচিত যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাষ্ট্র। কারণ হিসেবে ইসরায়েলের ওপর তেহরানের ওই আক্রমণ মধ্যপ্রাচ্যে ব্যাপক যুদ্ধের ইন্ধন যোগাতে পারে বলে জানানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার অ্যাসোসিয়েট প্রেসের (এপি) এক প্রতিবেদন থেকে এ খবর জানা গেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের ট্রেজারি অফিস অফ ফরিন অ্যাসেট কন্ট্রোল (ওএফএসি) জানিয়েছে, ১৩ এপ্রিলের হামলায় ব্যবহৃত ড্রোন উৎপাদনে জাড়িত ইরানের ১৬ ব্যক্তি ও ২ প্রতিষ্ঠানের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করছে যুক্তরাষ্ট্র।

এছাড়া ইরানের সামরিক বাহিনী ও অন্যান্য নিষিদ্ধ গোষ্ঠীকে সরঞ্জাম দিয়ে সহায়তা করার অভিযোগ এনে দেশটির ইস্পাত উৎপাদনের সঙ্গে জড়িত পাঁচটি সংস্থা ও গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান বাহমান গ্রুপকেও নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে ওএফএসি।

অন্যদিকে, ড্রোন ও ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র শিল্পের সঙ্গে জড়িত সামরিক বাহিনী-সংশ্লিষ্ট বেশ কয়েকটি ইরানি সংস্থা, ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে নিষেধাজ্ঞার আওতায় এনেছে যুক্তরাজ্য।

গত ১ এপ্রিল সিরিয়ায় অবস্থিত ইরানের কনস্যুলেটে হামলার জবাবে ১৩ এপ্রিল রাতে ইসরায়েলকে লক্ষ্য করে তিন শতাধিক ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় তেহরান। এসব অস্ত্রের বেশির ভাগ ভূপাতিত করে ইসরায়েল, যুক্তরাষ্ট্র ও মিত্র দেশগুলো।

হামলায় দক্ষিণ ইসরায়েলে বিমান বাহিনীর একটি ঘাঁটি ক্ষতিগ্রস্ত হলেও সেটিতে কার্যক্রম স্বাভাবিক আছে বলে জানা যায়। এ হামলায় সাত বছর বয়সী এক ইসরায়েলি শিশু মারাত্মক আহত হয়। এর বাইরে বড় ধরনের ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি।

ইতোমধ্যে ইরানের জবাবের পাল্টা দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে ইসরায়েল। দেশটির প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বলেছেন, ইসরায়েলের অবশ্যই নিজেদের সুরক্ষা করার অধিকার রয়েছে।

এ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে ইরানের সামরিক তৎপরতাকে নিরুৎসাহিত করে, দেশটির ওপর এমন নিষেধাজ্ঞা আরোপ চালিয়ে যেতে ওএফএসিকে নির্দেশ দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

বাইডেন বলেছেন, ‘যারা ইরানকে হামলায় ইন্ধন দেয় ও তা সমর্থন করে, তাদের সবাইকে এটি স্পষ্ট করতে চাই যে, সবাইকে জবাবদিহিতার আওতায় আনতে যুক্তরাষ্ট্র প্রয়োজনীয় সমস্ত পদক্ষেপ নেবে।’

ট্রেজারি বিভাগের পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ও ইরানের বাণিজ্যিক গ্রেডের মাইক্রোইলেক্ট্রনিক্স শিল্পের ওপর নতুন নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। মাইক্রোইলেক্ট্রনিক্স খাতে ইরানের রাশ টেনে ধরতেই তাদের এ সিদ্ধান্ত বলে জানানো হয়েছে। তবে এ নিষেধাজ্ঞা শুধু যুক্তরাষ্ট্রের প্রযুক্তি ব্যবহার করে দেশটির বাইরে উৎপাদিত প্রযুক্তি পণ্যের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে।

ইসরায়েলে হামলার পর এ অঞ্চলে ইরানের কার্যকলাপের প্রতিক্রিয়া ও ভবিষ্যতের সম্ভাব্য হামলা ঠেকাতে তেহরানের ওপর নিষেধাজ্ঞার প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে বলে চলতি সপ্তাহেই সতর্ক করে যুক্তরাষ্ট্র। তার পরপরই বৃহস্পতিবার এমন সিদ্ধান্তের কথা জানাল ওয়াশিংটন।

ইসলামী প্রজাতন্ত্রের দেশ ইরান ও এর নেতাদের আর্থিক শাস্তির মুখোমুখি করতেই ক্যাপিটল হিলে তড়িঘড়ি করে এসব আইন প্রণয়ন করা হয়েছে বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

তবে শুধু যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য নয়, ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) নেতারাও ইরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। নিষেধাজ্ঞার কারণ হিসেবে তেহরানের মিত্র দেশগুলো তথা গাজা, ইয়েমেন ও লেবাননে ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র সরবাহের অভিযোগ আনা হয়েছে, যা মধ্যপ্রাচ্য পরিস্থিতিকে আরও উত্তপ্ত করে তুলছে।

এ বিষয়ে ইইউ-এর পররাষ্ট্র নীতি বিভাগের প্রধান জোসেফ বরেল বলেছেন, ‘তেহরানকে শাস্তি দিতে ও ইসরায়েলের ওপর ভবিষ্যত হামলা প্রতিরোধে সহায়তায় বিদ্যমান ইইউ নিষেধাজ্ঞা ব্যবস্থাকে আরও শক্তিশালী ও প্রসারিত করা হবে।’

তবে একইসঙ্গে ইসরায়েলকেও সংযমী হতে বলেছেন তিনি।

বরেল বলেন, ‘আমরা একটি যুদ্ধের দ্বারপ্রান্তে রয়েছি, মধ্যপ্রাচ্যের আঞ্চলিক যুদ্ধ, যা বিশ্বের বাকি অংশ বিশেষ করে ইউরোপের দেশগুলোতে ব্যাপক প্রভাব ফেলবে। তাই যেকোনো মূল্যে আমাদের এটি বন্ধে কার্যকর ব্যবস্থা নেয়া উচিৎ।’

আরও পড়ুন:
২৫ হাজার টন বিস্ফোরক ছোড়া হয়েছে গাজায়: জাতিসংঘের দূত
বড় হামলা করলে ইসরাইলের কিছুই অবশিষ্ট থাকত না
ইসরায়েল হামলা করলে কয়েক সেকেন্ডেই জবাব: ইরান
ইরানকে কঠোর জবাব দেবে ইসরায়েল, মন্ত্রিসভায় সিদ্ধান্ত

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Voting for the Lok Sabha elections began on Friday

লোকসভা নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শুরু শুক্রবার

লোকসভা নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শুরু শুক্রবার ভারতের নতুন পার্লামেন্ট ভবন। ছবি: সংগৃহীত
ভারতের ২৯টি রাজ্য ও ৮টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের মধ্যে শুক্রবার ভোটগ্রহণ হচ্ছে ১৮টি রাজ্য ও চারটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের ১০২টি আসনে। একইসঙ্গে এদিন ভোটগ্রহণ হবে অরুণাচল প্রদেশের বিধানসভার ৬০ ও সিকিমের ৩২টি আসনে।

ভারতে ১৮তম লোকসভা নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শুরু হচ্ছে শুক্রবার। লোকসভার ৫৪৩টি আসনে সাত দফায় ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

লোকসভায় পশ্চিমবঙ্গের রয়েছে ৪২টি আসন। শুরুর দিনে এই রাজ্যে তিনটি আসনে ভোটগ্রহণ হবে। আসন তিনটি হলো-কোচবিহার, জলপাইগুড়ি ও আলিপুরদুয়ার।

বাকি ২৮টি রাজ্য ও ৮টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের মধ্যে শুক্রবার ভোটগ্রহণ হচ্ছে ১৭টি রাজ্য ও ৪টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের ১০২টি আসনে। একইসঙ্গে এদিন ভোটগ্রহণ হবে অরুণাচল প্রদেশের বিধানসভার ৬০টি ও সিকিমের ৩২টি আসনে।

ভারতে রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলো হলো- পশ্চিমবঙ্গ, বিহার, উত্তর প্রদেশ, উত্তরাখন্ড, ত্রিপুরা, তামিলনাড়ু, সিকিম, রাজস্থান, পদুচেরি, নাগাল্যান্ড, মিজোরাম, মেঘালয়, মণিপুর, মহারাষ্ট্র, মধ্যপ্রদেশ, লাক্ষাদ্বীপ, জম্মু ও কাশ্মীর, ছত্রিশগড়, আসাম, অরুণাচল প্রদেশ এবং আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ।

২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে লোকসভার ৫৪৩টি আসনের মধ্যে বিজেপি ৩০৩, কংগ্রেস ৫২, সমাজবাদী পার্টি ৫, বহুজন সমাজ পার্টি ১০, তৃণমূল ২২, ডিএমকে ২৩, ওয়াইএসআর কংগ্রেস ২২ ও টিডিপি ২টি আসনে জয় পেয়েছিল।

গত নির্বাচনে গোটা দেশে নারী সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন বিজেপির ৪০ জন, তৃণমূলের ৯ জন, কংগ্রেসের ৬ জন, ওডিশার বিজেডির ৫ জন মিলিয়ে সর্বমোট ৭৮ জন।

এ বছর ভারতে প্রথমবারের মতো ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন (১৮-১৯ বছর বয়সী) এক কোটি ৮০ লাখ ভোটার।

মন্তব্য

p
উপরে