× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

আন্তর্জাতিক
US military wanted to escape apartheid North Korea
google_news print-icon

বর্ণবাদ থেকে বাঁচতে চেয়েছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের সেনা: উত্তর কোরিয়া

বর্ণবাদ-থেকে-বাঁচতে-চেয়েছিলেন-যুক্তরাষ্ট্রের-সেনা-উত্তর-কোরিয়া
উত্তর কোরিয়ায় প্রবেশ করা যুক্তরাষ্ট্রের সেনা ট্র্যাভিস কিং। ফাইল ছবি
উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়ার সীমান্তের জয়েন্ট সিকিউরিটি এরিয়াতে (জেএসএ) বেসামরিক সফরে গিয়ে উত্তর কোরিয়ায় ঢুকে পড়েন যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীর প্রাইভেট পদধারী সেনা ট্র্যাভিস।

যুক্তরাষ্ট্র ও সেনাবাহিনীতে ‘অমানবিক অসদাচরণ’ ও ‘বর্ণবৈষম্য’ থেকে বাঁচতে দেশটির সেনা ট্র্যাভিস কিং দক্ষিণ কোরিয়ার সীমান্ত অতিক্রম করে প্রতিবেশী দেশে আশ্রয় নেন বলে জানিয়েছে উত্তর কোরিয়া।

স্থানীয় সময় বুধবার উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা কেসিএনএ এ তথ্য জানায়।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে জানানো হয়, ট্র্যাভিস কিং দক্ষিণ কেরিয়া থেকে গত ১৮ জুলাই উত্তর কোরিয়া যাওয়ার পর তাকে নিয়ে এটিই পিয়ংইয়ংয়ের প্রথম প্রকাশ্য বিবৃতি।

উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়ার সীমান্তের জয়েন্ট সিকিউরিটি এরিয়াতে (জেএসএ) বেসামরিক সফরে গিয়ে উত্তর কোরিয়ায় ঢুকে পড়েন যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীর প্রাইভেট পদধারী সেনা ট্র্যাভিস।

যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা বলেছেন, তারা মনে করছেন ট্র্যাভিস কিং স্বেচ্ছায় দক্ষিণ কোরিয়া থেকে উত্তর কোরিয়ায় ঢুকেছেন।

দেশটির কর্মকর্তারা ট্র্যাভিসকে যুদ্ধবন্দি হিসেবে শ্রেণিভুক্ত করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে।

উত্তর কোরিয়ার তদন্তকারীরাও বলেছেন, উত্তর কোরিয়া কিংবা তৃতীয় কোনো দেশে থাকতে যুক্তরাষ্ট্রের সেনা ইচ্ছাকৃত ও অবৈধভাবে সীমান্ত পাড়ি দিয়েছেন।

কেসিএনএর সংবাদে বলা হয়, অনুসন্ধানে জানা যায়, যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীতে অসদাচরণ ও বর্ণবৈষম্যে ক্ষুব্ধ হয়ে উত্তর কোরিয়ায় যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন ট্র্যাভিস কিং।

আরও পড়ুন:
দুর্নীতিবাজদের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত নিয়ে যা বলছে যুক্তরাষ্ট্র
নিষেধাজ্ঞাকে দুর্নীতি দমনের হাতিয়ার হিসেবে দেখে যুক্তরাষ্ট্র: নেফিউ
দুদকে যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধি দলের বৈঠক
ইমরান খানের নামে মামলা অভ্যন্তরীণ বিষয়: যুক্তরাষ্ট্র
উত্তর কোরিয়ায় বন্দি যুক্তরাষ্ট্রের সেনা ট্র্যাভিস কিং

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
Running for president and going to win Biden

প্রেসিডেন্ট পদে লড়ছি, জিততে যাচ্ছি: বাইডেন

প্রেসিডেন্ট পদে লড়ছি, জিততে যাচ্ছি: বাইডেন যুক্তরাষ্ট্রের ডেট্রয়টে শুক্রবার এক সমাবেশে বক্তব্য দেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। ছবি: রয়টার্স
গত ২৭ জুন ট্রাম্পের সঙ্গে বিতর্কে দুর্বল পারফরম্যান্সের পর মানসিক দৃঢ়তাকেন্দ্রিক আলোচনা থেকে বের হয়ে আসতে চাইছেন ৮১ বছর বয়সী বাইডেন। তিনি সমর্থকদের উদ্দেশে বলেন, ‘আমি প্রতিযোগিতায় আছি এবং আমরা জিততে যাচ্ছি।’

চলতি বছরের নভেম্বরে অনুষ্ঠেয় প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রার্থিতা থেকে সরে দাঁড়াচ্ছেন না বলে সমর্থকদের আশ্বস্ত করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

স্থানীয় সময় শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের ডেট্রয়টে এক সমাবেশে তিনি এমন আশ্বাস দেন বলে জানায় রয়টার্স।

বার্তা সংস্থাটির প্রতিবেদনে বলা হয়, সমাবেশে উচ্ছ্বসিত জনতার উদ্দেশে বাইডেন তার রিপাবলিকান পার্টির প্রতিদ্বন্দ্বী ডনাল্ড ট্রাম্প যে ‍যুক্তরাষ্ট্রের সামনে মারাত্মক হুমকি, সে বিষয়টি তুলে ধরেন।

গত ২৭ জুন ট্রাম্পের সঙ্গে বিতর্কে দুর্বল পারফরম্যান্সের পর মানসিক দৃঢ়তাকেন্দ্রিক আলোচনা থেকে বের হয়ে আসতে চাইছেন ৮১ বছর বয়সী বাইডেন।

তিনি সমর্থকদের উদ্দেশে বলেন, ‘আমি প্রতিযোগিতায় আছি এবং আমরা জিততে যাচ্ছি।’

ওই সময় বাইডেন সমর্থকদের কাউকে কাউকে ‘আপনি সরে যাবেন না’ বলতে শোনা যায়।

বাইডেন আরও বলেন, ‘আমি (প্রেসিডেন্ট পদে) মনোনীত ব্যক্তি। আমি থাকছি।’

দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় এলে প্রথম ১০০ দিন কী করবেন, তাও সমর্থকদের সামনে তুলে ধরেন বাইডেন। এর মধ্যে রয়েছে গর্ভপাতের অধিকারের আইনি স্বীকৃতি, জন লুইস ভোটাধিকার আইনে সই, চিকিৎসা ঋণ মওকুফ, ন্যূনতম মজুরি বৃদ্ধি ও অ্যাসল্ট অস্ত্র নিষিদ্ধ করা।

আরও পড়ুন:
সুপ্রিম কোর্টে ট্রাম্পের দায়মুক্তি বিপজ্জনক নজির: বাইডেন
তহবিল সংগ্রহ অনুষ্ঠানে বাইডেনের কণ্ঠে জয়ের প্রত্যয়
বাইডেনকে সরে দাঁড়াতে বলল নিউ ইয়র্ক টাইমস সম্পাদকীয় পরিষদ
বিতর্কে বাজে পারফরম্যান্স স্বীকার করে ট্রাম্পকে হারানোর প্রতিজ্ঞা বাইডেনের
বিতর্কে বাইডেনকে ‘খুব খারাপ ফিলিস্তিনি’ বললেন ট্রাম্প

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Biden has vowed to fight for the presidency despite the pressure

চাপ সত্ত্বেও প্রেসিডেন্ট পদে লড়াইয়ে থাকার প্রতিশ্রুতি বাইডেনের

চাপ সত্ত্বেও প্রেসিডেন্ট পদে লড়াইয়ে থাকার প্রতিশ্রুতি বাইডেনের যুক্তরাষ্ট্রের নর্থ ক্যারোলিনার র‌্যালেইতে গত ২৮ জুন নির্বাচনি প্রচার সমাবেশে বক্তব্য দেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। ছবি: রয়টার্স
প্রচার দলের উদ্বিগ্ন সদস্যদের সঙ্গে ফোনালাপ করে বাইডেন জানান, তিনি নির্বাচনি লড়াই থেকে সরে দাঁড়াচ্ছেন না।

প্রতিদ্বন্দ্বী ডনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে বিতর্কে বাজে পারফরম্যান্সের পর প্রতিদ্বন্দ্বিতা থেকে সরে আসার চাপ বাড়া সত্ত্বেও প্রেসিডেন্ট পদে লড়াইয়ে শেষ নাগাদ থাকার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপ্রধান জো বাইডেন।

স্থানীয় সময় বুধবার নির্বাচনি প্রচার দলের কর্মীদের সঙ্গে কল এবং ডেমোক্রেটিক পার্টির আইনপ্রণেতা ও গভর্নরদের সঙ্গে বৈঠকের পর বাইডেন এ অবস্থানের কথা জানান বলে উল্লেখ করে রয়টার্স।

ঘনিষ্ঠ দুটি সূত্রের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থাটির খবরে বলা হয়, প্রচার দলের উদ্বিগ্ন সদস্যদের সঙ্গে ফোনালাপ করে বাইডেন জানান, তিনি নির্বাচনি লড়াই থেকে সরে দাঁড়াচ্ছেন না।

অন্যদিকে প্রচার দলের মাধ্যমে এক ইমেইল বার্তায় সমর্থকদের উদ্দেশে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘কেউ আমাকে বের করে দিচ্ছে না। আমি যাচ্ছি না। আমি শেষ নাগাদ (প্রেসিডেন্ট পদে লড়াইয়ের) দৌড়ে আছি।’

বার্তায় আগামী ৫ নভেম্বর অনুষ্ঠেয় প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ট্রাম্পকে হারাতে সমর্থকদের সহায়তা চান বাইডেন।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বুধবার সন্ধ্যায় ডেমোক্রেটিক পার্টির ২৪ গভর্নর ও ওয়াশিংটন ডিসির মেয়রের সঙ্গে ভার্চুয়ালি ও সশরীরে সাক্ষাৎ করে প্রেসিডেন্ট পদে লড়াইয়ে থাকার বিষয়ে আশ্বস্ত করেন।

বাইডেনের সঙ্গে আলাপ শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন নিউ ইয়র্ক, মিনেসোটা ও ম্যারিল্যান্ডের গভর্নর।

তারা জানান, গত সপ্তাহের বিতর্কে বাজে পারফরম্যান্সের বিষয়ে সৎ আলোচনা করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট।

আরও পড়ুন:
বিতর্কে বাজে পারফরম্যান্স স্বীকার করে ট্রাম্পকে হারানোর প্রতিজ্ঞা বাইডেনের
বিতর্কে বাইডেনকে ‘খুব খারাপ ফিলিস্তিনি’ বললেন ট্রাম্প
যুক্তরাষ্ট্রে এবারের প্রেসিডেন্সিয়াল বিতর্ক যে পাঁচ কারণে গুরুত্বপূর্ণ
বাইডেনের স্টুডেন্ট লোন প্রোগ্রাম আংশিক স্থগিত
যুক্তরাষ্ট্রের স্বপ্নযাত্রা থামিয়ে সেমিতে ইংল্যান্ড

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Biden vows to beat Trump after admitting poor performance in debates

বিতর্কে বাজে পারফরম্যান্স স্বীকার করে ট্রাম্পকে হারানোর প্রতিজ্ঞা বাইডেনের

বিতর্কে বাজে পারফরম্যান্স স্বীকার করে ট্রাম্পকে হারানোর প্রতিজ্ঞা বাইডেনের ট্রাম্পের সঙ্গে বিতর্কের এক দিন পর শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের নর্থ ক্যারোলিনাতে সমাবেশে দেশটির প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। ছবি: রয়টার্স
বাইডেন বলেন, ‘আমি যতটা স্বাচ্ছন্দ্যের সঙ্গে হাঁটতাম, সেভাবে হাঁটতে পারছি না; যতটা মসৃণভাবে কথা বলতাম, সেভাবে বলতে পারছি না। আমি যতটা ভালোভাবে বিতর্ক করতাম, সেভাবে করতে পারছি না।’

চলতি বছরের ৫ নভেম্বর অনুষ্ঠেয় নির্বাচনের আগে প্রথম বিতর্কে বাজে পারফরম্যান্সের কথা শুক্রবার স্বীকার করে প্রতিদ্বন্দ্বী ডনাল্ড ট্রাম্পকে হারানোর প্রতিজ্ঞা করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

ডেমোক্র্যাটদের হতাশ করা এ পারফরম্যান্সের পর প্রেসিডেন্ট পদে প্রার্থিতা থেকে সরে আসার কোনো ইঙ্গিতও দেননি ৮১ বছর বয়সী এ রাজনীতিক।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার ট্রাম্পের সঙ্গে বিতর্কে বাইডেনের পরাজয় হয়েছে বলে মনে করছেন অনেকে। এমন বাস্তবতায় বাগ্‌যুদ্ধের এক দিন পর নর্থ ক্যারোলিনাতে সমাবেশে অংশ নিয়ে বাইডেন বলেন, ‘আমি জানি আমি তরুণ ব্যক্তি নই, যেমনটা সবার জ্ঞাত।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি যতটা স্বাচ্ছন্দ্যের সঙ্গে হাঁটতাম, সেভাবে হাঁটতে পারছি না; যতটা মসৃণভাবে কথা বলতাম, সেভাবে বলতে পারছি না। আমি যতটা ভালোভাবে বিতর্ক করতাম, সেভাবে করতে পারছি না।’

ওই সময় সমাবেশে উপস্থিত লোকজন ‘আরও চার বছর’ স্লোগান দেন।

বাইডেন আরও বলেন, ‘মনে-প্রাণে এ কাজ করতে পারব বিশ্বাস না করলে আমি ফের (প্রেসিডেন্ট পদে) লড়তাম না।’

আরও পড়ুন:
বাইডেনের যুদ্ধবিরতির প্রস্তাব মানবেন না নেতানিয়াহু
দাঙ্গা বাধাতে চান রায়ে ক্ষুব্ধ ট্রাম্প সমর্থকরা
দোষী সাব্যস্ত ট্রাম্প কি লড়তে পারবেন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে
যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম প্রেসিডেন্ট হিসেবে অপরাধে দোষী ট্রাম্প
‘ট্রাম্পের কিছু একটা ছিঁড়ে গেছে’

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Trump called Biden a very bad Palestinian in the debate

বিতর্কে বাইডেনকে ‘খুব খারাপ ফিলিস্তিনি’ বললেন ট্রাম্প

বিতর্কে বাইডেনকে ‘খুব খারাপ ফিলিস্তিনি’ বললেন ট্রাম্প বিতর্কে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের দুই প্রার্থী জো বাইডেন ও ডনাল্ড ট্রাম্প। কোলাজ: বিবিসি
আল জাজিরার প্রতিবেদনে জানানো হয়, স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার জর্জিয়া অঙ্গরাজ্যের আটলান্টায় এ বিতর্ক অনুষ্ঠিত হয়। এতে গাজায় যুদ্ধে হামাসকে সামরিকভাবে পুরোপুরি অক্ষম করে দিতে ইসরায়েল যে লক্ষ্য নিয়েছে, বাইডেন তা পূরণ হতে দিচ্ছেন না বলে অভিযোগ করেন ট্রাম্প।

যুক্তরাষ্ট্রে চলতি বছরের ৫ নভেম্বর অনুষ্ঠেয় নির্বাচনের আগে প্রথম বিতর্কে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে ‘খুব খারাপ ফিলিস্তিনি’ আখ্যা দিয়েছেন সাবেক প্রেসিডেন্ট ও রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থী ডনাল্ড ট্রাম্প।

আল জাজিরার প্রতিবেদনে জানানো হয়, স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার জর্জিয়া অঙ্গরাজ্যের আটলান্টায় এ বিতর্ক অনুষ্ঠিত হয়। এতে গাজায় যুদ্ধে হামাসকে সামরিকভাবে পুরোপুরি অক্ষম করে দিতে ইসরায়েল যে লক্ষ্য নিয়েছে, বাইডেন তা পূরণ হতে দিচ্ছেন না বলে অভিযোগ করেন ট্রাম্প।

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘তিনি এটা (ইসরায়েলের লক্ষ্যপূরণ) করতে চান না। তিনি ফিলিস্তিনিদের মতো হয়ে গেছেন, তবে তারা তাকে পছন্দ করে না। কারণ তিনি খুব বাজে ফিলিস্তিনি; তিনি দুর্বল।’

বিতর্কে ট্রাম্পের এ মন্তব্যকে ‘মারাত্মক বর্ণবাদী’ আখ্যা দিয়েছেন ‘আমেরিকান মুসলিমস ফর প্যালেস্টাইন’ নামের একটি সংস্থার পরিচালক আয়াহ জিয়াদেহ।

তিনি বলেন, ‘ফিলিস্তিনি শব্দটাকে গালি হিসেবে ব্যবহার এখানে (যুক্তরাষ্ট্র) বর্ণবাদের গভীরতাকে তুলে ধরেছে।’

যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে দুই প্রেসিডেন্ট প্রার্থীর বিতর্কের সময় অনুষ্ঠানস্থলের বাইরে ফিলিস্তিনপন্থিরা বিক্ষোভ করেন।

বিতর্কে পররাষ্ট্রনীতি ও মধ্যপ্রাচ্য নিয়ে আলোচনা হলেও গত বছরের ৭ অক্টোবর থেকে গাজায় ইসরায়েলের হামলায় প্রায় ৩৮ হাজার মানুষের প্রাণহানি ও ফিলিস্তিনের দুর্ভোগের বিষয়ে আলোচনা হয়নি বললেই চলে।

আরও পড়ুন:
ট্রাম্পের রায়কে সঠিক ও স্বচ্ছ মনে করছেন অধিকাংশ ভোটার: জরিপ
বাইডেনের যুদ্ধবিরতির প্রস্তাব মানবেন না নেতানিয়াহু
দাঙ্গা বাধাতে চান রায়ে ক্ষুব্ধ ট্রাম্প সমর্থকরা
দোষী সাব্যস্ত ট্রাম্প কি লড়তে পারবেন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে
যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম প্রেসিডেন্ট হিসেবে অপরাধে দোষী ট্রাম্প

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
General arrested in failed coup attempt in Bolivia

বলিভিয়ায় অভ্যুত্থানচেষ্টা ব্যর্থ, জেনারেল গ্রেপ্তার

বলিভিয়ায় অভ্যুত্থানচেষ্টা ব্যর্থ, জেনারেল গ্রেপ্তার বলিভিয়ার সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ অভ্যুত্থানচেষ্টায় নেতৃত্ব দেয়া জুনিগাকে গ্রেপ্তার করে প্রাসাদ থেকে নিয়ে গেছে। ছবি: ইপিএ
বাইরে সশস্ত্র সেনাদের অবস্থানের মধ্যে প্রাসাদ থেকে প্রেসিডেন্ট আস দেশটির জনগণের উদ্দেশে বলেন, ‘আজ বলিভিয়ার জনগণকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানানো হচ্ছে। অভ্যুত্থান রুখে দিয়ে গণতন্ত্রের পক্ষে সংগঠিত ও জড়ো হওয়া দরকার বলিভিয়ার জনগণের।’

দক্ষিণ আমেরিকার দেশ বলিভিয়ার প্রশাসনিক রাজধানী লা পাজে প্রেসিডেন্টের প্রাসাদ থেকে বুধবার সন্ধ্যায় পিছু হটেছেন অভ্যুত্থানের চেষ্টা করা সামরিক বাহিনীর সদস্যরা।

এ ঘটনায় এক জেনারেলকে গ্রেপ্তারের খবর জানিয়েছে রয়টার্স।

বার্তা সংস্থাটির প্রতিবেদনে জানানো হয়, প্রেসিডেন্ট লুইস আস এ অভ্যুত্থানচেষ্টার নিন্দা জানিয়ে আন্তর্জাতিক সমর্থন চেয়েছেন।

এর আগে সামরিক কমান্ড থেকে সম্প্রতি দায়িত্বচ্যুত জেনারেল হুয়ান হোসে জুনিগার নেতৃত্বাধীন কয়েকটি সামরিক ইউনিট লা পাজের প্রাণকেন্দ্রে ‘প্লাজা মুরিল্লো’ নামের চত্বরে জড়ো হয়। এ চত্বরেই বলিভিয়ার প্রেসিডেন্ট প্রাসাদ ও কংগ্রেস।

এক প্রত্যক্ষদর্শী রয়টার্সকে জানান, একটি সাঁজোয়া যান প্রেসিডেন্ট প্রাসাদের দরজায় ধাক্কা মারার পর সেনারা দ্রুত ছুটছিলেন।

বাইরে সশস্ত্র সেনাদের অবস্থানের মধ্যে প্রাসাদ থেকে প্রেসিডেন্ট আস বলেন, দেশ সামরিক অভ্যুত্থানচেষ্টার মুখোমুখি। বলিভিয়া আরও একবার কায়েমি স্বার্থের মুখোমুখি, যা দেশ থেকে গণতন্ত্রকে মুছে ফেলতে চায়।

দেশটির জনগণের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘আজ বলিভিয়ার জনগণকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানানো হচ্ছে। অভ্যুত্থান রুখে দিয়ে গণতন্ত্রের পক্ষে সংগঠিত ও জড়ো হওয়া দরকার বলিভিয়ার জনগণের।’

এর কয়েক ঘণ্টা পর প্লাজা মুরিল্লো থেকে সেনাদের সরে যাওয়ার পাশাপাশি পুলিশকে স্থানটির নিয়ন্ত্রণ নিতে দেখেন এক প্রত্যক্ষদর্শী।

বলিভিয়ার সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ অভ্যুত্থানচেষ্টায় নেতৃত্ব দেয়া জুনিগাকে গ্রেপ্তার করে প্রাসাদ থেকে নিয়ে গেছে, তবে তাকে কোথায় নেয়া হয়েছে, তা নিশ্চিত হতে পারেনি রয়টার্স।

আরও পড়ুন:
ঐতিহাসিক গণঅভ্যুত্থান দিবস আজ
অবৈধভাবে রাষ্ট্রক্ষমতা দখলের পথ চিরতরে রুদ্ধ করেছি: প্রধানমন্ত্রী
স্বামীর যৌনাঙ্গে গরম পানি

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Freed Assange on his way to Australia

অস্ট্রেলিয়ার পথে কারামুক্ত অ্যাসাঞ্জ

অস্ট্রেলিয়ার পথে কারামুক্ত অ্যাসাঞ্জ যুক্তরাষ্ট্রের নর্দার্ন মারিয়ানা দ্বীপপুঞ্জের সাইপ্যানে বুধবার দেশটির ডিস্ট্রিক্ট আদালতের বাইরে উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ। ছবি: রয়টার্স
মামলায় তিন ঘণ্টার শুনানিতে অ্যাসাঞ্জ যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় প্রতিরক্ষাবিষয়ক নথিগুলো সংগ্রহ ও ফাঁসের আইন লঙ্ঘনের একটি অভিযোগের বিষয়ে দায় স্বীকার করেছেন, তবে তিনি বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধানের প্রথম সংশোধনী মতপ্রকাশের স্বাধীনতার সুরক্ষা দেয়, যা তার কর্মকাণ্ডের রক্ষাব্যুহ।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপাঞ্চল সাইপ্যানে দেশটির গুপ্তচরবৃত্তি আইন লঙ্ঘনের মামলায় দোষ স্বীকার করে বুধবার আদালত থেকে খালাস পেয়েছেন উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ।

আদালতের এ রায়ের পর স্বদেশ অস্ট্রেলিয়ার উদ্দেশে রওনা হয়েছেন সাড়া জাগানো ওয়েবসাইটটির কর্ণধার।

রয়টার্স জানায়, অ্যাসাঞ্জের মুক্তির মধ্য দিয়ে ১৪ বছর ধরে চলা আইনি অধ্যায়ের অবসান হলো।

বার্তা সংস্থাটির প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, মুক্ত হওয়ার আগে যুক্তরাজ্যের উচ্চ নিরাপত্তার একটি কারাগারে পাঁচ বছরের বেশি সময় এবং লন্ডনে ইকুয়েডরের দূতাবাসে সাত বছর পার করেন অ্যাসাঞ্জ।

যুক্তরাষ্ট্রে অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে ১৮টি অভিযোগ ছিল। দেশটিতে প্রত্যর্পণ থেকে বাঁচতে অ্যাসাঞ্জকে দূতাবাসে থাকতে হয়েছিল দীর্ঘদিন।

মামলায় তিন ঘণ্টার শুনানিতে অ্যাসাঞ্জ যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় প্রতিরক্ষাবিষয়ক নথিগুলো সংগ্রহ ও ফাঁসের আইন লঙ্ঘনের একটি অভিযোগের বিষয়ে দায় স্বীকার করেছেন, তবে তিনি বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধানের প্রথম সংশোধনী মতপ্রকাশের স্বাধীনতার সুরক্ষা দেয়, যা তার কর্মকাণ্ডের রক্ষাব্যুহ।

তিনি আদালতের উদ্দেশে বলেন, ‘সাংবাদিক হিসেবে কাজ করার সময় আমি আমার সূত্রকে (সোর্স) গোপনীয় হিসেবে পরিচিত তথ্য সরবরাহ করতে উৎসাহ দিয়েছি, যাতে করে এগুলো প্রকাশ করা যায়।

‘আমি মনে করি, প্রথম সংশোধনী এ কর্মকাণ্ডের সুরক্ষা দেয়, তবে আমি মেনে নিচ্ছি যে, এটা ছিল গুপ্তচরবৃত্তি আইনের লঙ্ঘন।’

যুক্তরাষ্ট্রের ডিস্ট্রিক্ট জজ র‌্যামোনা ভি. ম্যাংলোনা অ্যাসাঞ্জের স্বীকারোক্তি গ্রহণ করে তাকে মুক্তির আদেশ দেন।

যুক্তরাজ্যের কারাগারে এরই মধ্যে সাজা খেটে খেলায় অ্যাসাঞ্জকে আর কারাবন্দি থাকতে হবে না।

আরও পড়ুন:
কারামুক্ত জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ, যাচ্ছেন যুক্তরাষ্ট্রে
অ্যাসাঞ্জকে যুক্তরাষ্ট্রে পাঠানোর অনুমতি দিল যুক্তরাজ্য
অ্যাসাঞ্জকে যুক্তরাষ্ট্রে পাঠানোর অনুমতি লন্ডন আদালতের

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Heavy rains kill 13 in El Salvador and Guatemala

ভারি বর্ষণে এল সালভাদর ও গুয়েতেমালায় ১৩ প্রাণহানি

ভারি বর্ষণে এল সালভাদর ও গুয়েতেমালায় ১৩ প্রাণহানি মধ্য আমেরিকায় এ পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এল সালভাদর। ছবি: দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট
মধ্য আমেরিকায় প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে শত শত লোক প্রাণ হারায় এবং অবকাঠামোর ব্যাপক ক্ষতি হয়।

মধ্য আমেরিকায় প্রবল বর্ষণের ফলে সৃষ্ট বন্যা ও ভূমিধসে এল সালভাদর ও গুয়েতেমালায় ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে।

উভয় দেশের কর্তৃপক্ষ এ কথা জানিয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে প্যারিসভিত্তিক টিভি নেটওয়ার্ক ফ্রান্স টোয়েন্টিফর।

মধ্য আমেরিকায় এ পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এল সালভাদর।

দেশটির বেসামরিক প্রতিরক্ষা প্রধান লুইস আমিয়া বলেছেন, পশ্চিমাঞ্চলীয় তাকুবা জেলায় সোমবার ভূমি ধসে পাঁচ জন মারা গেছেন। শুক্রবার ও রোববারের মধ্যে বন্যা ও ভূমি ধসে আরও চার ব্যক্তি প্রাণ হারিয়েছেন।

রোববার রাজধানীতে গাছ ও খুঁটি উপড়ে একটি গাড়ির ওপর পড়লে আরও দুই জন নিহত হন।

এ প্রেক্ষিতে দেশটির কংগ্রেস ত্রাণ সরবরাহের সুবিধার্থে জরুরি অবস্থা অনুমোদন করেছে।

এ ছাড়া দেশটির প্রেসিডেন্ট নায়িব বুকেলে এক্সে জানিয়েছেন, যাতায়াতসহ অন্যান্য ঝুঁকি এড়াতে তিনি মঙ্গলবার ছুটি ঘোষণা করতে বলেছেন কংগ্রেসকে।

গুয়েতেমালায় পশ্চিম পৌরসভা সাকাপুলাসের চাচায়া গ্রামে ৫৯ বছরের এক নারী এবং ৬৮ বছরের এক পুরুষ দেয়াল চাপা পড়ে প্রাণ হারিয়েছেন। শনিবার থেকে উভয় দেশেই বৃষ্টি অব্যাহত রয়েছে।

এদিকে ইকুয়েডরে ভূমি ধসে প্রাণহানির সংখ্যা ছয় থেকে সাত জনে দাঁড়িয়েছে। আহত হয়েছে ২২ জন।

মধ্য আমেরিকায় প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে শত শত লোক প্রাণ হারায় এবং অবকাঠামোর ব্যাপক ক্ষতি হয়।

আরও পড়ুন:
মৌলভীবাজারে পানিতে ডুবে ২ শিশুর মৃত্যু
ভাটারায় ভবনে বিস্ফোরণ: দগ্ধ আরও একজনের মৃত্যু
ফুলপুরে পানিতে ডুবে এক পরিবারের তিন শিশুর মৃত্যু
দুর্গন্ধের উৎস খুঁজতে গিয়ে পুকুরে মিলল মাদ্রাসাছাত্রের মরদেহ
ঢামেকে অসুস্থ হাজতির মৃত্যু

মন্তব্য

p
উপরে