× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

আন্তর্জাতিক
Amartya Sen is all about BJPs politics of division
hear-news
player
google_news print-icon

বিজেপির বিভাজনের রাজনীতি, সরব অমর্ত্য সেন

বিজেপির-বিভাজনের-রাজনীতি-সরব-অমর্ত্য-সেন
বক্তব্য রাখছেন অমর্ত্য সেন। ছবি: নিউজবাংলা
অমর্ত্য সেন বলেন, ‘মতের মিল না হলে মানুষকে মারধর করা হচ্ছে। অন্যের বক্তব্য শুনতে আপত্তি করা হচ্ছে। মানুষকে মর্যাদা দেয়ার ক্ষমতা কমেছে। আর সেটাই আমাদের পিছিয়ে থাকার অন্যতম কারণ।’

বিজেপির নাম না নিয়েই বিজেপির বিভাজনের রাজনীতির বিরুদ্ধে সরব হলেন নোবেল জয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন। তিনি বলেছেন, ভারতে এখন যে ঘৃণা-বিদ্বেষ ও বিভেদের পরিস্থিতি চলছে, তা বেশিদিন চলবে না।

ভারতরত্ন অমর্ত্য সেন বলেন, ‘ভারতে কখনও এমন পরিস্থিতি বেশি দিন চলেনি।’

কলকাতার সল্টলেকে রোববার রিসার্চ সেন্টারে প্রতীচী ট্রাস্ট এবং নো ইয়র নেবর-এর আয়োজনে বৈচিত্রের সমন্বয় শীর্ষক আলোচনা সভায় হিন্দু-মুসলিম যুক্ত সাধনার বিষয়ে তাজমহলের নিদর্শন তুলে ধরে অমর্ত্য সেন বলেন, ‘মতের মিল না হলে মানুষকে মারধর করা হচ্ছে। অন্যের বক্তব্য শুনতে আপত্তি করা হচ্ছে। মানুষকে মর্যাদা দেয়ার ক্ষমতা কমেছে। আর সেটাই আমাদের পিছিয়ে থাকার অন্যতম কারণ।

‘এ পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসার জন্য আমাদের একসঙ্গে কাজ করার প্রবণতা বাড়াতে হবে। পার্থক্য ত্যাগ করতে হবে। দূরত্ব কমাতে হবে।’

ভারতের নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন বলেন, ‘এরা যেভাবে বিভাজন চায়, সেটাতে আমি আর অবাক হই না।’

অন্যদিকে অমর্ত্য সেনের বিজেপিবিরোধী মন্তব্য নিয়ে উত্তপ্ত্য হয়ে উঠেছে পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতি।

বিজেপির সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি দিলীপ ঘোষ অমর্ত্য সেনের বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ‘ভারত নিয়ে অমর্ত্য সেনকে ভাবতে হবে না। সারা পৃথিবীতেই ভারত এখন শক্তিশালী। তবে পশ্চিমবঙ্গে বেশিদিন এমন অবস্থা চলবে না। এখানে পরিবর্তন হবেই। সেটা অমর্ত্যবাবু জেনে রাখুন।’

তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদ সুখেন্দুশেখর রায়, দিলীপ ঘোষকে পাল্টা কটাক্ষ করে বলেন, ‘অমর্ত্য সেন শুধু বাংলা বা ভারতের নন। তার কথায় সারা পৃথিবীর জ্ঞান চর্চা সাধন হয়। তাই তার সম্পর্কে বলার আগে, পেটে কালির অক্ষরের চিহ্ন কিছুটা হলেও থাকতে হয়।’

সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক মো. সেলিম অমর্ত্য সেনের বক্তব্য প্রসঙ্গে বলেন, ‘একজন প্রকৃত চিন্তাবিদ হিসেবেই তিনি তার উপলব্ধি জানিয়েছেন। রবীন্দ্রনাথ থেকে অমর্ত্য সেন, ভারত যে ট্র্যাডিশন বহন করে, যেখানে সংখ্যাগরিষ্ঠ নয়, বহুত্ববাদের কথা বলা হয়। অমর্ত্য সেন সে কথাই ব্যক্ত করেছেন।’

ছবি : বক্তব্য রাখছেন অমর্ত্য সেন

আরও পড়ুন:
সুরিয়ার সেঞ্চুরিতে সিরিজ জয় ভারতের
অনলাইনে অর্ডার করা ‘বিরিয়ানি খেয়ে’ তরুণীর মৃত্যু
উড়োজাহাজে নারীর গায়ে প্রস্রাব করা সেই ব্যক্তি গ্রেপ্তার
ভারতকে হারিয়ে সিরিজে সমতা শ্রীলঙ্কার
দেবে যাচ্ছে শহর, প্রতি ঘণ্টায় ফাটল

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
Imran is threatened with arrest if he starts the movement

আন্দোলন শুরু করলেই ইমরানকে গ্রেপ্তারের হুমকি

আন্দোলন শুরু করলেই ইমরানকে গ্রেপ্তারের হুমকি পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। ছবি: এএফপি
পাকিস্তানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রানা সানাউল্লাহ বলেছেন, ইমরান খান যদি ‘জেল ভরো’ কর্মসূচি এগিয়ে নিতে চান তাহলে সরকার বসে থাকবে না। সরকার ইমরান খানকে গ্রেফতারে প্রস্তুত।

পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান নতুন করে সরকারবিরোধী আন্দোলন করলেই তাকে গ্রেপ্তার করা হবে বলে জানিয়েছেন দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রানা সানাউল্লাহ। সোমবার মুলতানে পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নাওয়াজের (পিএমএল-এন) একটি সম্মেলনে অংশ নিয়ে তিনি এমনটি জানান।

নির্বাচনের দাবিতে পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের (পিটিআই) প্রধান ইমরান নতুন করে আন্দোলন শুরুর পরিকল্পনার কথা জানানোর কয়েকদিনের মধ্যে রানা সানাউল্লাহ এমন হুমকি দিলেন।

শনিবার নিজের জামান পার্কের বাসভবন থেকে দেয়া এক ভাষণে ইমরান তার দলের নেতাকর্মীদের সরকারের জুলুমের প্রতিবাদে স্বেচ্ছায় গ্রেফতার হতে প্রস্তুত হওয়ার আহ্বান জানান।

ইমরান তার দলের সিনিয়র ভাইস-প্রেসিডেন্ট ফাওয়াদ চৌধুরী ও সাবেক এমপি শানদানা গুলজারের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা দায়ের করার পর এ ঘোষণা দেন।

এর জবাবে পাকিস্তানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রানা সানাউল্লাহ বলেছেন, ইমরান খান যদি ‘জেল ভরো’ কর্মসূচি এগিয়ে নিতে চান তাহলে সরকার বসে থাকবে না। সরকার ইমরান খানকে গ্রেফতারে প্রস্তুত।

২০১৮ সালে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হন ইমরান খান। ২০২২ সালে পার্লামেন্টে অনাস্থা ভোটে হেরে ক্ষমতা হারান তিনি। ক্ষমতা হারানোর পর থেকেই আগাম নির্বাচনের দাবিতে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। চলতি বছরের অক্টোবরেই শেষ হচ্ছে পাকিস্তানের বর্তমান পার্লামেন্টের মেয়াদ।

আরও পড়ুন:
প্রধানমন্ত্রী ইমরানের হেলিকপ্টার ব্যয় ১০০ কোটি
ভিক্ষার থালা নিয়ে ঘুরছে পাকিস্তান: ইমরান
ফেরেশতা নই, প্লেবয় ছিলাম: ইমরান খান
ইমরানের ‘অন্তরঙ্গ ফোনালাপ ফাঁস’, ভুয়া দাবি পিটিআইয়ের
পিটিআইয়ের ক্ষমতাচ্যুতির পেছনে সাবেক সেনাপ্রধান: ইমরান

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Former President of Pakistan Pervez Musharraf passed away

পাকিস্তানের সাবেক প্রেসিডেন্ট পারভেজ মোশাররফের মৃত্যু

পাকিস্তানের সাবেক প্রেসিডেন্ট পারভেজ মোশাররফের মৃত্যু পাকিস্তানের সাবেক প্রেসিডেন্ট পারভেজ মোশাররফ। ছবি: দি ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস
১৯৯৮ সালে সেনাবাহিনীতে জেনারেল পদে উন্নীত হন পারভেজ মোশাররফ। ওই বছর তিনি চিফ অফ আর্মি স্টাফ (সিওএএস) হিসেবে দায়িত্ব নেন। পরের বছরের ১২ অক্টোবর সেনা অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতার দখল নেন এ জেনারেল।

পাকিস্তানের সাবেক প্রেসিডেন্ট অবসরপ্রাপ্ত জেনারেল পারভেজ মোশাররফের মৃত্যু হয়েছে।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইয়ের একটি হাসপাতালে ৭৯ বছর বয়সী এ সেনাশাসকের মৃত্যু হয় বলে পাকিস্তানভিত্তিক জিও টিভির প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

মোশাররফের পরিবার রোববার তার মৃত্যুর বিষয়টি জানিয়েছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

দুবাইয়ের আমেরিকান হসপিটালে চিকিৎসা চলছিল মোশাররফের।

ব্রিটিশ শাসনাধীন ভারতের দিল্লিতে ১৯৪৩ সালের ১১ আগস্ট জন্ম হয় পারভেজ মোশাররফের। পাকিস্তানের কাকুলে দেশটির মিলিটারি অ্যাকাডেমি থেকে ১৯৬১ সালের ১৯ এপ্রিল কমিশন পান তিনি।

কমিশনপ্রাপ্তির পর স্পেশাল সার্ভিসেস গ্রুপে যোগ দেন মোশাররফ। তিনি ১৯৬৫ সালে ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধ এবং ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানের হয়ে অংশ নিয়েছিলেন।

১৯৯৮ সালে সেনাবাহিনীতে জেনারেল পদে উন্নীত হন পারভেজ মোশাররফ। ওই বছর তিনি চিফ অফ আর্মি স্টাফ (সিওএএস) হিসেবে দায়িত্ব নেন। পরের বছরের ১২ অক্টোবর সেনা অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতার দখল নেন এ জেনারেল।

পাকিস্তানের ইতিহাসে সবচেয়ে দীর্ঘ সময় ক্ষমতায় থাকা প্রেসিডেন্ট ছিলেন পারভেজ মোশাররফ। ২০০২ সালে গণভোটের মাধ্যমে প্রেসিডেন্ট হয়ে ২০০৮ পর্যন্ত দায়িত্বে ছিলেন তিনি।

নাইন-ইলেভেনের পর পাকিস্তানকে সন্ত্রাসবিরোধী যুদ্ধের সঙ্গী বানাতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্তাব গ্রহণ করেছিলেন মোশাররফ।

২০০৪ সালে পাকিস্তানের সংবিধানের ১৭তম সংশোধনীর মাধ্যমে সেনাশাসিত সরকারের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন তিনি।

আরও পড়ুন:
মসজিদে হামলার দায় স্বীকার পাকিস্তানি তালেবানের, নিহত বেড়ে ৪৬
পাকিস্তানে পুলিশ হেডকোয়ার্টার মসজিদে বোমা, নিহত ২৮
একাই ৩৩ আসনে লড়বেন ইমরান
প্রধানমন্ত্রী ইমরানের হেলিকপ্টার ব্যয় ১০০ কোটি
পাকিস্তানে জ্বালানির দামে রেকর্ড

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Child dies after being stabbed by a hot iron rod

নিউমোনিয়ার চিকিৎসায় উত্তপ্ত রডের খোঁচা, হাসপাতালে মৃত্যু শিশুর

নিউমোনিয়ার চিকিৎসায় উত্তপ্ত রডের খোঁচা, হাসপাতালে মৃত্যু শিশুর ভারতের মধ্যপ্রদেশের একটি জেলায় উত্তপ্ত রডের খোঁচায় ৩ মাস বয়সী শিশুর মৃত্যু হয়। ছবি: সংগৃহীত
স্থানীয় চিকিৎসক ও যুব কংগ্রেসের সভাপতি বিক্রান্ত ভুরিয়া জানান, রড দিয়ে খোঁচা দিলে মৃত্যু হতে পারে, এটি ব্যথা কমানোর একটি উপায়, কিন্তু সমস্যা হলো সংক্রমণটি ছড়িয়ে মৃত্যু হতে পারে।

ভারতের মধ্যপ্রদেশে প্রচলিত চিকিৎসার অংশ হিসেবে উত্তপ্ত রড দিয়ে ৫১ বার খোঁচা দেয়া হয়েছে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত এক শিশুকে।

এ ঘটনার দুই সপ্তাহ পর হাসপাতালে মৃত্যু হয়েছে ৩ মাস বয়সী মেয়েটির।

রাজ্যের শাহদোল জেলার আদিবাসী অধ্যুষিত এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে বলে এনডিটিভির শনিবারের প্রতিবেদনে জানানো হয়।

স্থানীয় কর্মকর্তারা জানান, সমাধিস্থ করার পর শিশুটির মরদেহ আবার তোলা হয়েছে। শনিবার শিশুটির ময়নাতদন্ত হবে।

শাহদোল জেলা প্রশাসক বন্দনা বৈধ জানান, নারী ও শিশু উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ হাসপাতালে পৌঁছার পর দেখতে পায়, অন্ধ বিশ্বাস থেকে ১৫ দিন আগে এমন ঘটনা ঘটানো হয়। নিউমোনিয়ার চিকিৎসা না করানোয় শিশুটির অবস্থার অবনতি হয়।

তিনি আরও জানান, স্থানীয় এক স্বাস্থ্যকর্মী শিশুটিকে গরম রড দিয়ে খোঁচা না দিতে তার মাকে অনুরোধ করেছিলেন।

মধ্যপ্রদেশের অনেক আদিবাসী-অধ্যুষিত এলাকায় নিউমোনিয়ার চিকিৎসা করার জন্য উত্তপ্ত রড দিয়ে খোঁচা দেয়ার রীতি প্রচলিত।

স্থানীয় চিকিৎসক ও যুব কংগ্রেসের সভাপতি বিক্রান্ত ভুরিয়া জানান, রড দিয়ে খোঁচা দিলে মৃত্যু হতে পারে, এটি ব্যথা কমানোর একটি উপায়, কিন্তু সমস্যা হলো সংক্রমণটি ছড়িয়ে মৃত্যু হতে পারে।

বিজেপির মুখপাত্র ডা. হিতেশ বাজপেয়ি বলেন, ‘এই ধরনের রীতি এখনও প্রচলিত এবং আমি এলাকার প্রধান মেডিক্যাল অফিসারকে একটি অভিযোগ নথিভুক্ত করে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধ করছি।’

আরও পড়ুন:
বাসায় যেতে চাওয়া রেজাকে মর্গে পাঠাল মধ্যরাতের ট্রাক
নাতির মরদেহ দেখতে গিয়ে দাদির মৃত্যু
খেলার সময় ছাদ থেকে পড়ে মারা গেল দুই শিশু
সংবাদকর্মী টুটুল মারা গেছেন
বল আনতে গিয়ে ছয়তলা থেকে পড়ে শিশুর মৃত্যু

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Lok Sabha heated over Adani issue

আদানি ইস্যুতে উত্তপ্ত লোকসভা

আদানি ইস্যুতে উত্তপ্ত লোকসভা আদানি গ্রুপের কর্ণধার গৌতম আদানি। ছবি: সংগৃহীত
যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক প্রতিষ্ঠান হিনডেনবার্গ রিসার্চ-এর প্রতিবেদনে আদানি গ্রুপের বিরুদ্ধে শেয়ারবাজারে কারসাজি ও আর্থিক প্রতারণার অভিযোগ আনা হয়। লোকসভার অধিবেশনে এই অভিযোগ তদন্তের জন্য যৌথ সংসদীয় কমিটি অথবা সুপ্রিম কোর্টের তত্ত্বাবধানে একটি প্যানেল গঠনের দাবি জানিয়েছে বিরোধীরা।

ভারতের শীর্ষস্থানীয় ধনী ব্যবসায়ী গৌতম আদানির বাণিজ্যিক সাম্রাজ্যের বিরুদ্ধে জালিয়াতির অভিযোগ এনে প্রতিবেদন প্রকাশের পর এই ইস্যুতে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে দেশটির রাজনৈতিক অঙ্গন।

বিরোধী রাজনৈতিক দলের এমপিরা এই অভিযোগের ব্যাপারে তদন্তের দাবি জানিয়ে সংসদের অধিবেশন শুক্রবারও দ্বিতীয় দিনের মতো ভণ্ডুল করে দিয়েছেন। সূত্র: বিবিসি বাংলা

অনেকের অভিযোগ, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ককে কাজে লাগিয়ে গৌতম আদানি দ্রুত সময়ের মধ্যে বিপুল ধন-সম্পদের মালিক হয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক হিনডেনবার্গ রিসার্চ নামের গবেষণা প্রতিষ্ঠানটির প্রতিবেদনে গত সপ্তাহে গৌতম আদানির ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আদানি গ্রুপের বিরুদ্ধে শেয়ারবাজারে কারসাজি ও আর্থিক প্রতারণার অভিযোগ আনা হয়। এই অভিযোগ ওঠার পর থেকেই আদানি গ্রুপের সব প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের দরপতন অব্যাহত রয়েছে।

অবশ্য আদানি গ্রুপের পক্ষ থেকে সব অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে।

ভারতীয় সংসদ লোকসভায় শুক্রবার সকালের অধিবেশনে বিরোধী নেতারা অভিযোগের তদন্ত দাবি করলে উভয় কক্ষের অধিবেশন মুলতবি হয়ে যায়।

আদানি গ্রুপের বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগ তদন্তের জন্য যৌথ সংসদীয় কমিটি অথবা সুপ্রিম কোর্টের তত্ত্বাবধানে একটি প্যানেল গঠনের দাবি জানায় বিরোধীরা।

আরও পড়ুন:
পুঁজিবাজারে নজরদারিতে আদানির তিন প্রতিষ্ঠান
ইসরায়েলের বন্দর হাইফা কিনল আদানি গ্রুপ
বিশ্বের শীর্ষ ধনীর পাঁচেও নেই আদানি
পুঁজিবাজারে কয়েক ঘণ্টায় ২ লাখ কোটি রুপি উধাও আদানির
ভারতের আদানি এখন বিশ্বের তৃতীয় ধনী

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Only 18 days import expenditure reserve is in the hands of Pakistan

মাত্র ১৮ দিনের আমদানি ব্যয়ের রিজার্ভ পাকিস্তানের হাতে

মাত্র ১৮ দিনের আমদানি ব্যয়ের রিজার্ভ পাকিস্তানের হাতে ফাইল ছবি
পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ বলেন, ‘আমরা অকল্পনীয় অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জের মধ্যে আছি। আইএমএফের যেসব শর্ত, সেগুলো ধারণাতীত। তবে আমাদের শর্তগুলো মেনে নিতে হবে।’

অর্থনীতিসহ নানা সংকটে জর্জরিত পাকিস্তানের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ আরও কমেছে। কমতে কমতে দেশটির রিজার্ভ নেমেছে ৩১০ কোটি ডলারে। এই পরিমাণ রিজার্ভ দিয়ে দেশটির তিন সপ্তাহেরও কম সময়ের আমদানি খরচ মেটানো সম্ভব।

স্টেট ব্যাঙ্ক অফ পাকিস্তানের (এসবিপি) সর্বশেষ ২৭ জানুয়ারির তথ্যের বরাতে বিশ্লেষকরা এমন ধারণা করছেন বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম ডন।

বিশ্লেষকরা বলছেন, ২০১৪ সালের ফেব্রুয়ারির পর এই মুহূর্তে পাকিস্তানের রিজার্ভ সবচেয়ে কম। এখন যে রিজার্ভ আছে তাতে সবমিলিয়ে হয়তো ১৮ দিনের আমদানি ব্যয়ের খরচ মেটানো যাবে।

স্থানীয় বিনিয়োগ প্রতিষ্ঠান আরিফ হাবিব লিমিটেডের (এএইচএল) গবেষক তাহির আব্বাস রয়টার্সকে বলেছেন, দেশের সঙ্কট এড়াতে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব নতুন অর্থপ্রবাহ এবং আইএমফের সহায়তা দরকার।

অর্থাভাবে বিদেশ থেকে আমদানি যখন অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে, সে সময় বাজারে অনেক নিত্যপণ্য নিয়েও তৈরি হয়েছে অনিশ্চয়তা। এর কারণ, বিদেশ থেকে পণ্য আমদানির জন্য পর্যাপ্ত ডলার পাওয়া যাচ্ছে না।

ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, ব্যাংকগুলো এলসি খুলতে চাইছে না। তবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক বলছে, তারা এই ধরনের কোনো নির্দেশ দেয়নি। ব্যবসায়ীদের অভিযোগ সুনির্দিষ্ট, আর সেই বিষয়টি কেবল একজন বলেননি, বহু ব্যবসায়ীই দিচ্ছেন একই তথ্য।

সম্প্রতি স্থবিরতা কাটিয়ে আর্থিক সহায়তার ব্যাপারে আইএমএফের সঙ্গে পাকিস্তানের আলোচনা শুরু হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় সংস্থাটির একটি প্রতিনিধি দল পৌঁছেছে পাকিস্তানে।

এ অবস্থায় শুক্রবার টেলিভিশনে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ বলেন, ‘আমরা অকল্পনীয় অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জের মধ্যে আছি। আইএমএফের যেসব শর্ত, সেগুলো ধারণাতীত। তবে আমাদের শর্তগুলো মেনে নিতে হবে।’

রিজার্ভে নতুন অর্থ যোগ না হলে এই মজুদ দিয়ে যে আমদানি ব্যয় মেটানো যাবে তা সত্যিকার অর্থেই আশঙ্কাজনক। অবশ্য একটি দেশের আমদানির জন্য তিন মাসের রিজার্ভকে ধরা হয় নিরাপদ।

রিজার্ভে প্রতিনিয়ত অর্থ যোগ হতে থাকে রেমিট্যান্স ও রপ্তানি আয়ের কারণে। পাকিস্তানে এই দুটি আয়েও দেখা দিয়েছে ভাটা।

বিপদের এই সময়ে রেমিট্যান্স গতি হারিয়েছে দেশটিতে। ব্যাংকিং চ্যানেলের বদলে হুন্ডিতেই অর্থ পাঠাচ্ছে প্রবাসীদের একটি বড় অংশ। কারণ, ব্যাংকের চেয়ে সেখানে দর পাওয়া যায় বেশি। খোলাবাজারে এক ডলারে এখন বিক্রি হচ্ছে ২৭১ রুপিতে।

যদি আইএমএফ হাত বাড়িয়ে না দেয় এবং আরও কিছু সহায়তা না আসে, তাহলে শ্রীলঙ্কার পর দেউলিয়া হওয়ার দ্বারপ্রান্তে পাকিস্তানও। চলতি বছরও কয়েক বিলিয়ন ডলারের ঋণ পরিশোধ করতে হবে তাদের। কিন্তু রিজার্ভ যেভাবে কমছে, তাতে নিত্যপণ্য আমদানিতেই তৈরি হয়েছে অনিশ্চয়তা, সেখানে ঋণ পরিশোধ হবে বিলাসিতা।

দুর্বল অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ইতোমধ্যেই পাকিস্তানে সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ কমিয়ে দিয়েছে। গত জুলাই-নভেম্বর অর্থবছরে পাকিস্তানে ৪৩০ মিলিয়ন ডলারের বিনিয়োগ হয়েছে; যা আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে ৫১ শতাংশ কম।

আরও পড়ুন:
পেশাওয়ারে মিলল হামলাকারীর মাথা, নিহত বেড়ে ১০০
পাকিস্তানের মসজিদে হামলায় নিহত বেড়ে ৮৩
মসজিদে হামলার দায় স্বীকার পাকিস্তানি তালেবানের, নিহত বেড়ে ৪৬

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Adanis three institutions under surveillance in the capital market

পুঁজিবাজারে নজরদারিতে আদানির তিন প্রতিষ্ঠান

পুঁজিবাজারে নজরদারিতে আদানির তিন প্রতিষ্ঠান আদানি গ্রুপের লোগোর পাশে কর্ণধার গৌতম আদানি। ছবি: সংগৃহীত
অন্যান্য দিনের মতো বৃহস্পতিবারও আদানি গ্রুপের হোল্ডিং কোম্পানি আদানি এন্টারপ্রাইজেসের শেয়ার ২৬ শতাংশের বেশি দর হারিয়েছে। গ্রুপের অন্য কোম্পানিগুলোর শেয়ারের দরপতনও অব্যাহত রয়েছে। সব মিলিয়ে ছয় দিনে পুঁজিবাজার থেকে কোম্পানিগুলোর ৮ লাখ ৭৬ হাজার কোটি রুপি উধাও হয়ে গেছে।

পুঁজিবাজারে দরপতনের হিড়িকের মধ্যে স্বল্পমেয়াদি বাড়তি নজরদারি ব্যবস্থায় (এএসএম) রাখা হয়েছে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় ধনকুবের গৌতম আদানির মালিকানাধীন আদানি গ্রুপের তিনটি প্রতিষ্ঠানকে।

ভারতের মুম্বাইভিত্তিক বোম্বে স্টক এক্সচেঞ্জ (বিএসই) ও ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জ (এনএসই) থেকে বৃহস্পতিবার পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে শুক্রবার এ খবর জানায় এনডিটিভি।

নজরদারিতে থাকা প্রতিষ্ঠান তিনটি হলো- আদানি এন্টারপ্রাইজ, আদানি পোর্টস অ্যান্ড স্পেশাল ইকনোমিক জোন এবং আম্বুজা সিমেন্টস।

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক প্রতিষ্ঠান হিন্ডেনবার্গ রিসার্চ গ্রুপের সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনে আদানি গ্রুপের বিরুদ্ধে পুঁজিবাজারে লেনদেনে প্রতারণা ও শেয়ার দরে কারসাজির অভিযোগ করা হয়। এর পর থেকে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত আদানি গ্রুপের কোম্পানিগুলোর শেয়ারের দরে ধস নামে।

ওই প্রতিবেদনকে মিথ্যা আখ্যা দিয়ে আদানি গ্রুপ বলেছে, তাদের কোম্পানিগুলো সব আইন মেনে চলছে।

বেশ কয়েকটি বিষয়ের ভিত্তিতে কোনো কোম্পানিকে এএসএমের আওতায় রাখা হয়। এর মধ্যে রয়েছে কোম্পানির আয়ের ওপর গ্রাহকদের অংশীদারত্ব, প্রাইস-আর্নিং রেশিও ইত্যাদি।

এনএসই ও বিএসই জানিয়েছে, আদানি গ্রুপের তিনটি কোম্পানি নির্ধারিত মানদণ্ডে পড়ায় এগুলোকে এএসএমের আওতাভুক্ত করা হয়েছে।

এদিকে অন্যান্য দিনের মতো বৃহস্পতিবারও আদানি গ্রুপের হোল্ডিং কোম্পানি আদানি এন্টারপ্রাইজেসের শেয়ার ২৬ শতাংশের বেশি দর হারিয়েছে। গ্রুপের অন্য কোম্পানিগুলোর শেয়ারের দরপতনও অব্যাহত রয়েছে।

সব মিলিয়ে ছয় দিনে পুঁজিবাজার থেকে কোম্পানিগুলোর ৮ লাখ ৭৬ হাজার কোটি রুপি উধাও হয়ে গেছে।

আরও পড়ুন:
সূচক কমলেও বেড়েছে লেনদেন
সূচকের সঙ্গে কমল লেনদেনও
ডিএসই’র সতর্কতার পরও ছুটছে ঢাকা ইন্স্যুরেন্স
বিশ্বের শীর্ষ ধনীর পাঁচেও নেই আদানি
পুঁজিবাজারে কয়েক ঘণ্টায় ২ লাখ কোটি রুপি উধাও আদানির

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Kappan the popular journalist of Kerala released after 2 years

২ বছর পর কারামুক্ত কেরালার আলোচিত সাংবাদিক কাপ্পান

২ বছর পর কারামুক্ত কেরালার আলোচিত সাংবাদিক কাপ্পান কেরালার সাংবাদিক সিদ্দিক কাপ্পান বৃহস্পতিবার লক্ষ্ণৌর কারাগার থেকে মুক্তি পান। ছবি: সংগৃহীত
উত্তর প্রদেশের রাজধানীর কারাগার থেকে বের হয়ে এনডিটিভিকে কাপ্পান বলেন, ‘আমাকে জেলে রেখে কার লাভ হয়েছে, জানি না। এ দুই বছর খুবই কঠিন ছিল, তবে আমি কখনোই শঙ্কিত ছিলাম না।’

ভারতের উত্তর প্রদেশে দলিত তরুণীকে ‘ধর্ষণের’ পর হত্যার বিষয়ে প্রতিবেদন করতে গিয়ে গ্রেপ্তার হওয়া কেরালার আলোচিত সাংবাদিক সিদ্দিক কাপ্পান বৃহস্পতিবার কারামুক্ত হয়েছেন।

দুই মামলায় জামিন পাওয়ার এক মাসের বেশি সময় পর লক্ষ্ণৌর বিশেষ আদালত কাপ্পানের মুক্তির আদেশে সই করে বলে এনডিটিভির প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

উত্তর প্রদেশের রাজধানীর কারাগার থেকে বের হয়ে এনডিটিভিকে কাপ্পান বলেন, ‘নির্মম আইনের বিরুদ্ধে লড়াই অব্যাহত রাখব। জামিন পাওয়ার পরও তারা আমাকে কারারুদ্ধ করে রেখেছে।

‘আমাকে জেলে রেখে কার লাভ হয়েছে, জানি না। এ দুই বছর খুবই কঠিন ছিল, তবে আমি কখনোই শঙ্কিত ছিলাম না।’

কারাগার থেকে কাপ্পানের মুক্তি পাওয়ার কথা ছিল বুধবার সন্ধ্যায়, তবে অর্থপাচার প্রতিরোধবিষয়ক বিশেষ আদালতের বিচারক বার কাউন্সিল নির্বাচন নিয়ে ব্যস্ত থাকায় মুক্তির আদেশে সই করতে পারেননি।

উত্তর প্রদেশে দলিত তরুণীকে ‘সংঘবদ্ধ ধর্ষণের’ পর হত্যার সংবাদ সংগ্রহ করতে ঘটনাস্থল হাথরাসে যাওয়ার পথে ২০২০ সালের অক্টোবরে গ্রেপ্তার হন সিদ্দিক কাপ্পান।

রাজ্য পুলিশ সে সময় জানিয়েছিল, দেশজুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি করা ঘটনা কাভার করতে যাওয়া সাংবাদিক হাথরাসে অস্থিরতা তৈরি করতে যাচ্ছিলেন।

সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগের দুই সপ্তাহ পর দিল্লির একটি হাসপাতালে মৃত্যু হয়েছিল দলিত তরুণীর। পরে মধ্যরাতে তরুণীর শেষকৃত্য সম্পন্ন করে হাথরাস জেলা প্রশাসন, যাকে অনেকে ঘটনা আড়াল করার চেষ্টা হিসেবে অভিহিত করে ব্যাপক সমালোচনা করে যোগী আদিত্যনাথের নেতৃত্বাধীন রাজ্য সরকারের।

কাপ্পানের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগ করা হয়, যাকে অভিযুক্ত করা হয় সন্ত্রাসবিরোধী কঠোর আইন ইউএপিএতে। নিষিদ্ধ সংগঠন পিপল’স ফ্রন্ট অফ ইন্ডিয়ার কাছ থেকে অর্থ গ্রহণের অভিযোগে ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারিতে তার নামে অর্থ পাচারের মামলা করে ভারতের অর্থ গোয়েন্দা সংস্থা এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট।

এ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে আনুষ্ঠনিক কোনো অভিযোগ গঠন না করায় গত বছরের সেপ্টেম্বরে তাকে জামিন দেয় সুপ্রিম কোর্ট।

আরও পড়ুন:
উত্তর প্রদেশে সড়কে গেল ৩১ প্রাণ
দলিত বোনদের ধর্ষণ ও হত্যায় ভেঙে পড়েছে পরিবারটি
বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ-হত্যা দলিত ২ বোনকে
গাছে ঝুলছিল দুই বোনের নিথর দেহ
মায়ের হত্যার বিচার চেয়ে রক্তে লেখা চিঠি

মন্তব্য

p
উপরে