× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

আন্তর্জাতিক
Beijing angered by restrictions on Chinese travelers traveling abroad
hear-news
player
google_news print-icon

১২ দেশে চীনা ভ্রমণকারীদের ওপর বিধিনিষেধে ক্ষুব্ধ বেইজিং

১২-দেশে-চীনা-ভ্রমণকারীদের-ওপর-বিধিনিষেধে-ক্ষুব্ধ-বেইজিং
করোনার বিধিনিষেধ শিথিল করার পর চীনে বাড়ছে করোনার সংক্রমণ। ছবি: সংগৃহীত
বিক্ষোভের মুখে গত মাসে কঠোর করোনা বিধিনিষেধ থেকে সরে আসে চীন। এরপরই দেশটিতে হু হু করে বাড়তে থাকে ভাইরাসটির সংক্রমণ।

চীনের কোনো বাসিন্দা বা সে দেশফেরত যাত্রীদের জন্য করোনাভাইরাস শনাক্তের পরীক্ষা বাধ্যতামূলক করেছে যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বের ১২টি দেশ। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে বেইজিং জানিয়েছে, পাল্টা ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বিক্ষোভের মুখে গত মাসে কঠোর করোনা বিধিনিষেধ থেকে সরে আসে চীন। এরপরই দেশটিতে হু হু করে বাড়তে থাকে ভাইরাসটির সংক্রমণ।

এ প্রেক্ষাপটে চীনে বাস করা বা সে দেশ থেকে কেউ যদি যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, ফ্রান্স ও জাপানসহ বিশ্বের প্রায় ১২টি দেশে যেতে চায়, তাহলে অবশ্যই করোনার নেগেটিভ ফল দেখাতে হবে বলে জানায় দেশগুলো।

চীনের পক্ষ থেকে এ নিয়ে মঙ্গলবার ক্ষোভের বার্তা এসেছে বলে এএফপির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মাও নিং বলেন, ‘শুধু চীন ভ্রমণকারীদের লক্ষ্য করে কিছু দেশ এই বিধিনিষেধ দিয়েছে। এর কোনো বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই। পারস্পরিকতার নীতির ভিত্তিতে চীন পাল্টা ব্যবস্থা নিতে পারে।’

করোনার উৎসভূমি চীন সম্প্রতি এ ভাইরাসে মৃত্যুর সংজ্ঞায় পরিবর্তন এনেছে। গত মাস থেকে এ পর্যন্ত করোনায় দেশটিতে ২২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

আরও পড়ুন:
চীনের নতুন রাষ্ট্রদূত এখন ঢাকায়
রাতে দেশে ফিরছেন সেব্রিনা ফ্লোরা
যুক্তরাষ্ট্রে চীনা ভ্রমণকারীদের জন্য করোনা টেস্ট বাধ্যতামূলক
বুড়িমারী স্থলবন্দরে করোনা সতর্কতা
বিএফ ৭ ঠেকাতে চার দেশের যাত্রীদের পরীক্ষা করা হচ্ছে

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
Canada appointed adviser to combat Islamophobia

ইসলামবিদ্বেষ কাটাতে উপদেষ্টা নিয়োগ করল কানাডা

ইসলামবিদ্বেষ কাটাতে উপদেষ্টা নিয়োগ করল কানাডা কানাডার সাংবাদিক আমিরা এলঘাওয়াবি। ছবি: এএফপি
মানবাধিকার কর্মী এলঘাওয়াবি কানাডার দাতব্য সংস্থ রেস রিলেশনস ফাউন্ডেশনের যোগাযোগ বিভাগের প্রধান ও টরন্টো স্টার পত্রিকার একজন কলামিস্ট। এর আগে রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম সিবিসিতে এক দশকেরও বেশি সময় ধরে কাজ করেছেন তিনি।

ইসলামবিদ্বেষ কাটাতে প্রথমবারের মতো উপদেষ্টা নিয়োগ করলো কানাডা সরকার।

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার কানাডার ইসলামবিদ্বেষবিরোধী উপদেষ্টা হিসেবে সাংবাদিক আমিরা এলঘাওয়াবির নাম ঘোষণা করা হয়।

এ নিয়ে বিবৃতিতে কানাডার প্রধানমন্ত্রীর অফিস থেকে বলা হয়, সাংবাদিক ও অ্যাক্টিভিস্ট আমিরা এলঘাবাবি ইসলামভীতি, বর্ণবাদ, জাতিগত বৈষম্য এবং ধর্মীয় অসহিষ্ণুতার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের প্রচেষ্টাকে উন্নত করতে কাজ করবেন।

মানবাধিকার কর্মী এলঘাওয়াবি কানাডার দাতব্য সংস্থ রেস রিলেশনস ফাউন্ডেশনের যোগাযোগ বিভাগের প্রধান ও টরন্টো স্টার পত্রিকার একজন কলামিস্ট। এর আগে রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম সিবিসিতে এক দশকেরও বেশি সময় ধরে কাজ করেছেন তিনি।

এলঘাওয়াবিকে নিয়োগ দেয়ার বিষয়ে কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো বলেন, ‘ইসলামবিদ্বেষ ও সব ধরনের ঘৃণা-বিদ্বেষের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে এটি আমাদের গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। বৈচিত্রতা সত্যিই কানাডার অন্যতম বড় শক্তি, কিন্তু অনেক মুসলমান ইসলামবিদ্বেষের শিকার।’

গত কয়েক বছর ধরে কানাডার মুসলমান সম্প্রদায়কে লক্ষ্য করে একের পর এক ভয়াবহ হামলা চালানো হয়েছে।

২০২১ সালের জুনে অন্টারিওতে একটি মুসলিম পরিবারের চার সদস্যকে ট্রাক দিয়ে পিষে হত্যা করেন এক ব্যক্তি। এর চার বছর আগে, কুইবেক সিটির একটি মসজিদে চালানো হামলায় ছয়জন মুসল্লি নিহত এবং পাঁচজন আহত হন।

আরও পড়ুন:
কানাডীয় দূতের সঙ্গে বৈঠক, কিছু জানাবে না বিএনপি
২০২৫ সালে রেকর্ড অভিবাসী নেবে কানাডা
কানাডায় ছুরি হামলার দ্বিতীয় সন্দেহভাজনের মৃত্যু
কানাডায় সন্দেহভাজন হামলাকারীর মরদেহ উদ্ধার
কানাডায় সিরিজ ছুরি হামলায় নিহত ১০

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Opium production increased in Myanmar under military rule UN

সেনাশাসনে আফিম উৎপাদন বেড়েছে মিয়ানমারে: জাতিসংঘ

সেনাশাসনে আফিম উৎপাদন বেড়েছে মিয়ানমারে: জাতিসংঘ মিয়ানমারের কায়াহ রাজ্যের লইকাউয়ে একটি পপি ক্ষেতে কাজ করছেন এক ব্যক্তি। ছবি: রয়টার্স
অং সান সু চির নেতৃত্বাধীন গণতান্ত্রিক সরকারকে হটিয়ে ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারিতে সেনাবাহিনী ক্ষমতা নেয়ার পর পপি চাষের প্রথম পূর্ণ মৌসুমের ডেটা সংগ্রহ করে ইউএনওডিসি। সে ডেটা অনুযায়ী, ২০২২ সালে মিয়ানমারে পপির চাষ বেড়েছে ৩৩ শতাংশ, যেখানে আফিমের সম্ভাব্য উৎপাদন বাড়ে ৮৮ শতাংশ।

মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ২০২১ সালে ক্ষমতা দখলের পর থেকে দেশটিতে আফিমের উৎপাদন বেড়েছে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘের মাদক ও অপরাধবিষয়ক দপ্তর ইউএনওডিসি।

সংস্থাটি জানিয়েছে, সেনা-অভ্যুথানের আগে ২০১৪ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত মিয়ানমারে পপি উৎপাদন ধীরে ধীরে কমছিল।

অং সান সু চির নেতৃত্বাধীন গণতান্ত্রিক সরকারকে হটিয়ে ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারিতে সেনাবাহিনী ক্ষমতা নেয়ার পর পপি চাষের প্রথম পূর্ণ মৌসুমের ডেটা সংগ্রহ করে ইউএনওডিসি। সে ডেটা অনুযায়ী, ২০২২ সালে মিয়ানমারে পপির চাষ বেড়েছে ৩৩ শতাংশ, যেখানে আফিমের সম্ভাব্য উৎপাদন বাড়ে ৮৮ শতাংশ।

জাতিসংঘের সংস্থাটির মতে, গত বছর মিয়ানমারে ৪০ হাজার হেক্টরের চেয়ে সামান্য বেশি জমিতে পপির চাষ হয়। এ থেকে আফিমের সম্ভাব্য উৎপাদন হয় ৭৯০ টন।

ইউএনওডিসির বৃহস্পতিবারের বিবৃতিতে বলা হয়, ২০২২ সালের জরিপ বলছে, মিয়ানমারের আফিমকেন্দ্রিক অর্থনীতির উল্লেখযোগ্য বিকাশ হয়েছে।

ইউএনওডিসির আঞ্চলিক প্রতিনিধি জেরেমি ডগলাস বলেন, সেনারা মিয়ানমারের দায়িত্ব নেয়ার পর অর্থনৈতিক, নিরাপত্তা এবং শাসনজনিত যে ব্যাঘাত ঘটেছে, তা থেকে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে দেশটিতে আফিম উৎপাদন বেড়েছে।

তিনি বলেন, প্রত্যন্ত ও সংঘাতপীড়িত উত্তরাঞ্চলীয় রাজ্য শান ও সীমান্তবর্তী রাজ্যগুলোতে আফিম চাষে ফিরে যাওয়া ছাড়া খুব কমই বিকল্প আছে স্থানীয় কৃষকদের।

আরও পড়ুন:
তুমব্রু সীমান্তে আবারও গোলাগুলি, আতঙ্ক
মিয়ানমারের ছয় নাগরিকের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
মিয়ানমার ছাড়ার চেষ্টা, ১১২ রোহিঙ্গার কারাদণ্ড
সু চির আরও ৭ বছরের জেল, সব মিলিয়ে ৩৩
নাফ নদীতে বাংলাদেশি জেলে গুলিবিদ্ধ

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Amanat Shah got the green factory certificate

সবুজ কারখানার সনদ পেল আমানত শাহ

সবুজ কারখানার সনদ পেল আমানত শাহ পরিবেশবান্ধব কারখানা হিসেবে আমানত শাহর পাওয়া লিড প্লাটিনাম ফলক। ছবি: সংগৃহীত
সবুজ কারখানায় উৎপাদিত পোশাকের গায়ে একটি গ্রিন ট্যাগ সংযুক্ত থাকে। এর অর্থ পণ্যটি সবুজ কারখানায় উৎপাদিত। সাধারণ ভোক্তার কাছে এর আলাদা কদর আছে।

২০২৩ সালের প্রথম পরিবেশসম্মত সবুজ কারখানা বা গ্রিন ফ্যাক্টরির আন্তর্জাতিক সনদ পেয়েছে আমানত শাহ ফেব্রিকস লিমিটেড।

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ইউএস গ্রিন বিল্ডিং কাউন্সিল (ইউএসজিবি) গত ২২ জানুয়ারি লিডারশিপ ইন এনার্জি অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল ডিজাইন বা লিড নামের এ সনদ দেয়।

বিভিন্ন সূচকে ১০০ পয়েন্টের মধ্যে ৬০ পয়েন্টের ওপরে পাওয়ায় নরসিংদীর পাঁচদোনায় অবস্থিত সবুজ এ কারখানাটি দেয়া হয়েছে প্লাটিনাম সনদ।

এ নিয়ে দেশে লিড সনদ পাওয়া সবুজ কারখানার সংখ্যা দাঁড়াল ১৮৪টি।

তৈরি পোশাক প্রস্তুত ও রপ্তানিকারকদের সংগঠন বিজিএমইএর পরিচালক মহিউদ্দিন রুবেল নিউজবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, ‘নতুন বছরের প্রথম মাসেই গ্রিন ফ্যাক্টরির সনদ পেয়ে যাত্রা শুরু করতে পারলাম। গত বছর আমরা সর্বোচ্চ সংখ্যক প্লাটিনাম সনদ পেয়েছি। এবছরও আশা করছি এ ধারা অব্যাহত থাকবে। সরকারি সুযোগ সুবিধা পেলে এ খাতকে বৈশ্বিক অর্থনৈতিক সংকটেও এগিয়ে নিয়ে যাওয়া সম্ভব।’

বাণিজ্যিক ভবন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, বাড়িসহ অন্যান্য স্থাপনার ক্ষেত্রেও এ সনদ দিয়ে থাকে ইউএসজিবি। বিশেষত, শিল্প কারখানার ভবন নির্মাণ থেকে শুরু করে পণ্য উৎপাদন পর্যন্ত ছোট-বড় সব পর্যায়ে পরিবেশ সুরক্ষার বিষয়টি কতটা মানা হলো তার কঠিন তদারকি এবং চুলচেরা বিশ্নেষণ করে সর্বোচ্চ মানের কারখানাকে এ সনদ দেওয়া হয়।

বর্তমানে দেশে ইউএসজিবির সনদ পাওয়া সবুজ কারখানার মধ্যে রয়েছে প্লাটিনাম ৬০টি, গোল্ড ১১০টি, সিলভার ১০টি ও সার্টিফাইড ৪টি।

সবুজ কারখানায় উৎপাদিত পোশাকের গায়ে একটি গ্রিন ট্যাগ সংযুক্ত থাকে। এর অর্থ পণ্যটি সবুজ কারখানায় উৎপাদিত। সাধারণ ভোক্তার কাছে এর আলাদা কদর আছে।

ক্রেতাদের সঙ্গে দর কষাকষিতেও এগিয়ে থাকা যায়। এমনকি দেশের এবং পোশাকখাতের ব্র্যান্ড ইমেজ বাড়ে এতে।

আরও পড়ুন:
বাংলাদেশের আরও ২ প্রতিষ্ঠানকে সবুজ কারখানার স্বীকৃতি
বাংলাদেশ এখন সবচেয়ে নিরাপদ পোশাক কারখানার দেশ
দেশে সবুজ পোশাক কারখানা এখন ১৭৩টি
রপ্তানির পাশাপাশি বাড়ছে সবুজ কারখানার সংখ্যা
পোশাক খাত সবুজায়নে নীতি-বিনিয়োগের অভাব: সিপিডি

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Hipkins took over as Prime Minister of New Zealand

নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ হিপকিন্সের

নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ হিপকিন্সের অভিষেক অনুষ্ঠানে সহকর্মীদের সঙ্গে নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী ক্রিস হিপকিন্স। ছবি: নিউজিল্যান্ড হেরাল্ড
শপথ নেয়ার পর প্রতিক্রিয়ায় হিপকিন্স বলেন, ‘এটা আমার জীবনে পাওয়া সবচেয়ে বড় সুযোগ ও দায়িত্ব। আমি সামনে থাকা চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় উজ্জীবিত ও উচ্ছ্বসিত।’

নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে অভিষেক হয়েছে লেবার পার্টির প্রধান ক্রিস হিপকিন্সের।

গত সপ্তাহে প্রধানমন্ত্রী পদ থেকে জেসিন্ডা আরডার্নের আকস্মিক সরে দাঁড়ানোর ঘোষণার পর স্থানীয় সময় বুধবার আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্বভার গ্রহণ করেন হিপকিন্স।

আল জাজিরার প্রতিবেদনে জানানো হয়, রাজধানী ওয়েলিংটনে হিপকিন্সকে শপথবাক্য পড়ান নিউজিল্যান্ডের গভর্নর জেনারেল সিন্ডি কিরো।

হিপকিন্সের সঙ্গে উপপ্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন ক্যারমেল সেপুলোনি, যিনি প্রশান্ত মহাসগরীয় দ্বীপাঞ্চল থেকে এ পদে আসীন হওয়া প্রথম ব্যক্তি।

শপথ নেয়ার পর প্রতিক্রিয়ায় হিপকিন্স বলেন, ‘এটা আমার জীবনে পাওয়া সবচেয়ে বড় সুযোগ ও দায়িত্ব। আমি সামনে থাকা চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় উজ্জীবিত ও উচ্ছ্বসিত।’

নিউজিল্যান্ডে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের সময়ে মহামারি মোকাবিলায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখা ৪৪ বছর বয়সী হিপকিন্স গত রোববার লেবার পার্টির প্রধান হন।

তার পূর্বসূরি জেসিন্ডা আরডার্ন ২০১৭ সালে প্রথমবারের মতো প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন। ২০২০ সালের নির্বাচনে বিশাল ব্যবধানে জয়ী হন তিনি।

গত দুই বছর ধরে ক্রমবর্ধমান মূল্যস্ফীতি, অর্থনৈতিক মন্দাসহ বিভিন্ন পরিস্থিতি মোকাবিলায় হিমশিম খাচ্ছিল জেসিন্ডার নেতৃত্বাধীন মধ্য বামপন্থি সরকার। এমন বাস্তবতায় হঠাৎ পদত্যাগের ঘোষণা দেন বিশ্বজুড়ে জনপ্রিয় এ সরকারপ্রধান।

আরও পড়ুন:
কনওয়ের সেঞ্চুরির পর শেষ সেশনে ম্যাচে ফিরল পাকিস্তান
শেষ পর্যন্ত ড্র হলো করাচি টেস্ট
উইলিয়ামসনের ডাবল সেঞ্চুরিতে প্রাধান্য নিউজিল্যান্ডের
জোড়া শতকে লিডে নিউজিল্যান্ড
লেইথাম-কনওয়ের ব্যাটে পাকিস্তানকে দারুণ জবাব দিচ্ছে নিউজিল্যান্ড

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Brazil Argentina to introduce common currency

অভিন্ন মুদ্রা চালু করতে চায় ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা

অভিন্ন মুদ্রা চালু করতে চায় ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ফুটবল উন্মাদনায় ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনার পতাকা টানাচ্ছেন সমর্থকরা। ছবি: এএফপি
আর্জেন্টিনার একটি সংবাদপত্রে এ নিয়ে একটি নিবন্ধ লিখে বিস্তারিত জানিয়েছেন ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট লুইজ ইনাসিও লুলা ডা সিলভা ও আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট আলবার্তো ফার্নান্দেজ।

লেনদেনের জন্য একই মুদ্রা চালু করতে চায় ফুটবল উন্মাদনায় মুখর দক্ষিণ আমেরিকার দুই দেশ ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা।

আর্থিক ও বাণিজ্যিক লেনদেনের জন্য দু দেশের কর্তৃপক্ষের এই চিন্তাভাবনার কার্যকারিতা এখনও প্রাথমিক পর্যায়ে আছে বলে জানিয়েছে ব্লুমবার্গ

আর্জেন্টিনার বুয়েনস আইরেসে সোমবার একটি শীর্ষ সম্মেলনে যৌথ মুদ্রার ব্যাপারে আলোচনা হবে।

তবে তার আগেই আর্জেন্টিনার একটি সংবাদপত্রে এ নিয়ে একটি নিবন্ধ লিখে বিস্তারিত জানিয়েছেন ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট লুইজ ইনাসিও লুলা ডা সিলভা ও আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট আলবার্তো ফার্নান্দেজ।

প্রস্তাবিত মুদ্রার নাম হতে পারে ‘সুর’ (দক্ষিণ)। এই মুদ্রা কীভাবে আঞ্চলিক বাণিজ্য বাড়াতে এবং ডলারের ওপর নির্ভরতা কমাতে পারে তা নিয়ে আলোচনা হতে পারে বৈঠকে।

যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘বিনিময়ের প্রতিবন্ধকতা দূর করে নীতি সহজ ও আধুনিকীকরণ করতে এই উদ্যোগ। এ ছাড়া স্থানীয় মুদ্রার ব্যবহার উন্নীত করারও উদ্দেশ্য রয়েছে আমাদের।

‘আমরা একটি সাধারণ দক্ষিণ আমেরিকান মুদ্রা নিয়ে আলোচনা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি যা আর্থিক এবং বাণিজ্যিক লেনদেনের জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে। এতে খরচ এবং আমাদের বাহ্যিক দুর্বলতা কমতে পারে।’

আরও পড়ুন:
তরুণীর অন্তর্বাস স্পর্শের অভিযাগে পুলিশে ধরেছে দানি আলভেজকে
জুনে বাংলাদেশে আসছেন মেসিরা!
সমর্থকদের তাণ্ডব: তদন্তে বলসোনারোর ভূমিকা

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Storm of condemnation over Koran burning in Stockholm

স্টকহোমে কোরআন পোড়ানোর ঘটনায় নিন্দার ঝড়

স্টকহোমে কোরআন পোড়ানোর ঘটনায় নিন্দার ঝড় কট্টর ডানপন্থি রাজনীতিক রাসমুস প্যালুডেন (ক্যাপ পরা) বিভিন্ন সময়ে বিক্ষোভে কোরআন পুড়িয়েছেন। ছবি: এপি
সৌদি আরবের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়, ‘সৌদি আরব সংলাপ, সহিষ্ণুতা ও সহাবস্থানের মূল্যবোধ ছড়িয়ে দেয়ার আহ্বান জানানোর পাশাপাশি ঘৃণা ও চরমপন্থাকে প্রত্যাখ্যান করে।’

সুইডেনের রাজধানীতে শনিবার তুরস্কবিরোধী বিক্ষোভে পবিত্র কোরআন পোড়ানোর ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়েছে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ বিভিন্ন দেশ।

স্টকহোমে তুরস্কের দূতাবাস ভবনের সামনে এক কপি কোরআন পুড়িয়ে প্রতিবাদ জানান কট্টর ডানপন্থি রাজনীতিক রাসমুস প্যালুডেন। এর আগেও বিভিন্ন বিক্ষোভে কোরআন পোড়ানোর নজির আছে তার।

তুরস্ক, পাকিস্তান, কুয়েতসহ বিভিন্ন দেশ এ ঘটনার নিন্দা জানিয়েছে বলে টিআরটি ওয়ার্ল্ডের প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

তুরস্ক

কোরআন পোড়ানোর ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে তুরস্কের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়, ‘আমাদের পবিত্র ধর্মগ্রন্থের ওপর জঘন্য হামলার তীব্র প্রতিবাদ জানাই…মতপ্রকাশের স্বাধীনতার নামে মুসলিমদের লক্ষ্যবস্তু বানানোর পাশাপাশি আমাদের পবিত্র মূল্যবোধকে অপমানকারী এ ধরনের ইসলামবিরোধী কর্মকাণ্ডের অনুমোদন দেয়াটা সম্পূর্ণভাবে অগ্রহণযোগ্য।’

পাকিস্তান

পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়, ‘এ ধরনের কাণ্ডজ্ঞানহীন ও উসকানিমূলক ইসলামভীতিকর কর্মকাণ্ড বিশ্বের দেড় শ কোটির বেশি মুসলিমের ধর্মীয় সংবেদনশীলতাকে আঘাত করেছে।’

কুয়েত

দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ সালেম আবদুল্লাহ আল জাবের আল সাবাহকে উদ্ধৃত করে রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা কেইউএনএর বিবৃতিতে বলা হয়, এ ঘটনা বিশ্বজুড়ে মুসলিমদের অনুভূতিতে আঘাত হানার পাশাপাশি মারাত্মক উসকানির সৃষ্টি করেছে।

সৌদি আরব

দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়, ‘সৌদি আরব সংলাপ, সহিষ্ণুতা ও সহাবস্থানের মূল্যবোধ ছড়িয়ে দেয়ার আহ্বান জানানোর পাশাপাশি ঘৃণা ও চরমপন্থাকে প্রত্যাখ্যান করে।’

সংযুক্ত আরব আমিরাত

সংযুক্ত আরব আমিরাতের পক্ষ থেকে বলা হয়, দেশটি মানবিক ও নৈতিক মূল্যবোধ এবং নীতির বিপরীতে নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা বিঘ্নকারী যেকোনো কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে।

কাতার

মধ্যপ্রাচ্যের রাষ্ট্রটি বলেছে, কোরআন পোড়াতে সুইডেনের কর্তৃপক্ষ যে অনুমোদন দিয়েছে, তার প্রতিবাদ জানাচ্ছে তারা।

দেশটি ঘৃণা ও সহিংসতার বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়েছে।

ইরান

কোরআন পোড়ানোকে ঘৃণা ও সহিংসতা ছড়ানোর চেষ্টা আখ্যা দিয়ে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র নাসের কানানি বলেন, বাকস্বাধীনতায় সমর্থনের ভুয়া অজুহাতে ইউরোপের কিছু দেশ চরমপন্থি ও উগ্রবাদীদের ইসলামের পবিত্রতা ও মূল্যবোধের বিরুদ্ধে ঘৃণা ছড়ানোর সুযোগ করে দেয়।

আরও পড়ুন:
দায়িত্ব নিয়েই পদত্যাগ করলেন সুইডেনের প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী
প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী পেতে যাচ্ছে সুইডেন
চীনে কোরআনের অ্যাপ সরাল অ্যাপল
কোরআনের শিক্ষক একজন মঞ্জু আরা
বিনা খরচে কোরআন শিক্ষা

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Jacinda is succeeded by Hipkins

জেসিন্ডার উত্তরসূরি হচ্ছেন হিপকিন্স

জেসিন্ডার উত্তরসূরি হচ্ছেন হিপকিন্স ক্রিস হিপকিন্স ও জেসিন্ডা আরডার্ন। ছবি: দ্য উইকেন্ড অস্ট্রেলিয়ান
স্থানীয় সময় শনিবার ক্ষমতাসীন লেবার পার্টির একমাত্র প্রধানমন্ত্রী প্রার্থী হিসেবে নাম এসেছে হিপকিন্সের। রোববার ৬৪ জন লেবার আইনপ্রণেতার বৈঠকে ৪৪ বছর বয়সী এ রাজনীতিককেই নতুন নেতা ঠিক করা হবে বলে ধরে নেয়া হচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে জেসিন্ডা আরডার্নের সরে দাঁড়ানোর আকস্মিক ঘোষণার পর নতুন সরকারপ্রধান পেতে যাচ্ছে নিউজিল্যান্ড।

করোনাভাইরাস মহামারির সময়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখা ক্রিস হিপকিন্স হতে যাচ্ছেন দেশটির পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে জানানো হয়, স্থানীয় সময় শনিবার ক্ষমতাসীন লেবার পার্টির একমাত্র প্রধানমন্ত্রী প্রার্থী হিসেবে নাম এসেছে হিপকিন্সের। রোববার ৬৪ জন লেবার আইনপ্রণেতার বৈঠকে ৪৪ বছর বয়সী এ রাজনীতিককেই নতুন নেতা ঠিক করা হবে বলে ধরে নেয়া হচ্ছে।

একমাত্র প্রার্থী হিসেবে দলের পক্ষ থেকে নাম ঘোষণার পর সংবাদ সম্মেলনে হিপকিন্স বলেন, ‘আমি মনে করি, আমরা দারুণ শক্তিশালী একটি টিম পেয়েছি।

‘আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে এ প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে গিয়েছি এবং আমরা সেটি অব্যাহত রাখব। নিউজিল্যান্ডের জনগণকে সেবা দিতে সত্যিকার অর্থে অঙ্গীকারবদ্ধ একদল চমৎকার মানুষের সঙ্গে কাজ করতে পেরে নিজেকে ভাগ্যবান মনে করছি।’

সরকারপ্রধান হয়ে মন্ত্রিসভায় ব্যাপক পরিবর্তন আনতে হবে না হিপকিন্সকে। জেসিন্ডা আরডার্নের প্রস্তাব অনুযায়ী রদবদল হবে মন্ত্রিসভায়, তবে স্বপদে বহাল থাকার সম্ভাবনা রয়েছে অর্থমন্ত্রী গ্র্যান্ট রবার্টসনের।

গত বৃহস্পতিবার আকস্মিক পদত্যাগের ঘোষণা দেন জেসিন্ডা আরডার্ন। তার উত্তরসূরি হতে যাওয়া হিপকিন্স লেবার পার্টির হয়ে প্রথম আইনপ্রণেতা নির্বাচিত হন ২০০৮ সালে।

হিপকিন্সকে ২০২০ সালের জুলাইয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ করা হয়। ওই বছরের শেষের দিকে তাকে করোনাভাইরাস মহামারি মোকাবিলা মন্ত্রী করা হয়।

আরও পড়ুন:
ড্র হলো পাকিস্তান-নিউজিল্যান্ডের দ্বিতীয় টেস্ট
শাকিলের সেঞ্চুরির পরও পিছিয়ে পাকিস্তান
দ্বিতীয় দিন শেষে ২৯৫ রানে পিছিয়ে পাকিস্তান
কনওয়ের সেঞ্চুরির পর শেষ সেশনে ম্যাচে ফিরল পাকিস্তান
শেষ পর্যন্ত ড্র হলো করাচি টেস্ট

মন্তব্য

p
উপরে