× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

আন্তর্জাতিক
Fears of election violence are growing in the United States
hear-news
player
google_news print-icon

যুক্তরাষ্ট্রে বাড়ছে নির্বাচনী সহিংসতার ভয়

যুক্তরাষ্ট্রে-বাড়ছে-নির্বাচনী-সহিংসতার-ভয়
যুক্তরাষ্ট্রে মধ্যবর্তী নির্বাচন কেন্দ্র করে সহিংসতার ঘটনা ঘটতে পারে বলে ধারণা করছেন বিশেষজ্ঞরা। ছবি: টাইম
ভোটের গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করা একটি সংস্থার তথ্যানুসারে, যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী নির্বাচনে ৪ কোটি ৩০ লাখেরও বেশি নাগরিক ইতোমধ্যেই ডাকযোগে বা সশরীরে ভোটদান করেছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের হাউস স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির স্বামীর ওপর ২৮ অক্টোবরের হামলার ঘটনা দেশটিতে বাড়িয়ে দিয়েছে নির্বাচনী সহিংসতার ভয়।

সোমবার এক শোভাযাত্রায় পেলোসিকে ডনাল্ড ট্রাম্প ‘জানোয়ার’ (Animal) বলে অভিহিত করায় সেই ভয় আরও জোরদার হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে সহিংসতার আশঙ্কা নিয়ে মঙ্গলবার এক প্রতিবেদনে প্রকাশ করেছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

দেশটির মধ্যবর্তী নির্বাচনে ডনাল্ড ট্রাম্পের প্রতিদ্বন্দ্বিতার গুঞ্জনে নির্বাচনকর্মী ও ভোটারদের হুমকি ও হয়রানির অভিযোগ উঠেছে সাবেক এই প্রেসিডেন্টের সমর্থকদের বিরুদ্ধে।

এসবের মাঝেই দেশটির বর্তমান প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বোভি স্টেট ইউনিভার্সিটিতে এক বক্তৃতায় ‘গণতন্ত্র ঝুঁকির মধ্যে আছে’ জানিয়ে তা রক্ষার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন জনগণের প্রতি।

যদিও আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনী সোমবার পর্যন্ত নির্বাচনসংক্রান্ত কোনো হুমকির নির্দিষ্ট ও নির্ভরযোগ্য তথ্য পায়নি বলে জানিয়েছে হোয়াইট হাউস। নির্বাচনী সহিংসতা নিরসনে সারা দেশে ৬৪টি স্থানে ভোট পর্যবেক্ষণ করবে বলে জানিয়েছে মার্কিন বিচার বিভাগ।

ভোটের গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করা সংস্থা ‘যুক্তরাষ্ট্র নির্বাচন প্রকল্প’ এর তথ্যানুসারে, মধ্যবর্তী নির্বাচনে দেশটির ৪ কোটি ৩০ লাখেরও বেশি নাগরিক ইতোমধ্যেই ডাকযোগে বা সশরীরে ভোটদান করেছেন।

‘নির্বাচনে কংগ্রেসের স্পষ্ট নিয়ন্ত্রণ আছে’ জানিয়ে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ‘এখন পর্যন্ত ভোট কার্যক্রমে উল্লেখযোগ্য কোনো সমস্যা দেখা যায়নি। তীব্র প্রতিযোগিতার দৃশ্য সামনে আসতে আরও কয়েক দিন বা সপ্তাহ পর্যন্ত সময় লাগতে পারে।’

দেশটির সবচেয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ নির্বাচনী এলাকা জর্জিয়ার কোব কাউন্টিতে ৭১৬ জন ভোটারের জন্য ভোটদানের সময়সীমা ১৪ নভেম্বর পর্যন্ত বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন নির্বাচন কর্মকর্তারা। ওই ৭১৬ জন ভোটার ডাকযোগে ভোটের আবেদন করার পরও ব্যালট না পাওয়ায় তাদের জন্য বাড়ানো হয়েছে ভোটের সময়সীমা।

তবে ডাকযোগে ভোটের আবেদন করে ব্যালট না পাওয়া অনেকেই সশরীরে ভোট দিতে গেছেন শেষ পর্যন্ত।

ডাকযোগে ভোটদানের ব্যালট না পেয়ে ওয়াশিংটন থেকে ৬ ঘণ্টা ভ্রমণ করে কোব কাউন্টিতে ভোট দিতে আসা ২০ বছরের অ্যালিস মার্টিন বলেন, ‘সশরীরে ভোট দিতে আসায় বেশ কয়েকটা ক্লাসে উপস্থিত থাকতে পারলাম না। তবে আমি মনে করি, শেষ পর্যন্ত আমার এই শ্রম বৃথা যাবে না।’

আরও পড়ুন:
ঢাকা সফরে আসছেন যুক্তরাষ্ট্রের উপসহকারী মন্ত্রী
ওয়াশিংটন-সিউল মহড়ায় পিয়ংইয়ংয়ের অস্বস্তি
পেলোসির বাড়িতে হামলা: ডেভিডের হতে পারে ৫০ বছরের জেল
যুক্তরাষ্ট্রের সব অভিযোগের সত্যতা নেই, জবাব দেয়া হয়েছে: র‍্যাব ডিজি
শ্রমমান উন্নয়নে একসঙ্গে কাজ করবে বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
Amazon deforestation has slowed but deforestation has not stopped

উজাড় কমলেও ধ্বংসযজ্ঞ বন্ধ হয়নি আমাজনে

উজাড় কমলেও ধ্বংসযজ্ঞ বন্ধ হয়নি আমাজনে ব্রাজিলে আমাজন বনের উজাড় করা একটি অংশ। ছবি: এএফপি
আইএনপিই জানায়, ২০২১ সালের আগস্ট থেকে ২০২২ সালের জুলাই পর্যন্ত সময়ে আমাজন বনের ১১ হাজার ৫৬৮ বর্গকিলোমিটার অংশ উজাড় হয়েছে, যা আয়তনে মধ্যপ্রাচ্যের উপদ্বীপ কাতারের চেয়েও বড়। ২০২০ সালের আগস্ট থেকে ২০২১ সালের জুলাই পর্যন্ত সময়ে ১১ শতাংশ বেশি বন উজাড় হয়েছিল।

আমাজনের ব্রাজিল অংশে চলতি বছরের জুলাই পর্যন্ত ১২ মাসে বন উজাড় কমেছে বলে জানিয়েছে দেশটির জাতীয় মহাকাশ সংস্থা আইএনপিই।

স্থানীয় সময় বুধবার সংস্থাটি এ তথ্য দিয়েছে বলে আল জাজিরার প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

পৃথিবীর ফুসফুস হিসেবে পরিচিত বনটি সংরক্ষণে প্রেসিডেন্ট পদে জয়ী লুই ইনাসিও লুলা দা সিলভার উদ্যোগ নেয়ার আশ্বাসের মধ্যেই এমন তথ্য প্রকাশ করল আইএনপিই।

সংস্থাটি জানায়, ২০২১ সালের আগস্ট থেকে ২০২২ সালের জুলাই পর্যন্ত সময়ে আমাজন বনের ১১ হাজার ৫৬৮ বর্গকিলোমিটার অংশ উজাড় হয়েছে, যা আয়তনে মধ্যপ্রাচ্যের উপদ্বীপ কাতারের চেয়েও বড়।

২০২০ সালের আগস্ট থেকে ২০২১ সালের জুলাই পর্যন্ত সময়ে ১১ শতাংশ বেশি বন উজাড় হয়েছিল। প্রেসিডেন্ট জায়ের বলসোনারোর শাসনামলে ওই মেয়াদে ১৫ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ বন ধ্বংস হয়।

এক বছরের ব্যবধানে বন উজাড় কমে যাওয়া নিয়ে পরিবেশবাদী সংগঠন ক্লাইমেট অবজারভেটরির প্রধান মার্সিও অ্যাস্ত্রিনি বলেন, ‘ (বন উজাড়ের) পরিসর বাড়ার চেয়ে কমা ভালো, তবে এখনও ব্যাপ্তিটা অনেক বড়—১৩ বছরের মধ্যে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ।’

পরিবেশবিদদের ভাষ্য, বলসোনারোর চার বছর মেয়াদে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে পড়েছে আমাজন।

সাবেক এ প্রেসিডেন্ট বন উজাড় করে কৃষিভূমি তৈরি ও শিল্পায়নের নামে পরিবেশ ও আদিবাসীদের বিপর্যয়ের দিকে ঠেলে দেন।

আইএনপিই তাদের প্রতিবেদনে জানায়, সাবেক সেনা কর্মকর্তা বলসোনারোর অধীনে বার্ষিক বন উজাড় আগের চার বছরের তুলনায় ৫৯ দশমিক ৫ শতাংশ বেড়ে গিয়েছিল। আগের দশক থেকে তার আমলে বন উজাড় বেড়েছে ৭৫ দশমিক ৫ শতাংশ।

আরও পড়ুন:
প্রতিবন্ধীদের বিদ্যালয় এমপিওভুক্তির দাবিতে মানববন্ধন
খাওয়ার সময় প্রাণ হারাল ‘সৈকত বাহাদুর’
কুমিল্লায় ডিবির গাড়িতে হামলা, গুলিবিদ্ধ ১ ‘ডাকাত’
৮০ শতাংশ গাড়ি আসে মোংলা বন্দর দিয়ে: বারবিডা 
তিন শুল্ক স্টেশন আধুনিকায়নে প্রকল্প

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Lava is coming out of the worlds largest volcano

বিশ্বের সবচেয়ে বড় আগ্নেয়গিরিতে বের হচ্ছে লাভা

বিশ্বের সবচেয়ে বড় আগ্নেয়গিরিতে বের হচ্ছে লাভা সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ১৩ হাজার ৬৭৯ ফুট উপরে মাউনা লোয়া শৃঙ্গ থেকে লাভা বের হওয়া শুরু হয়েছে। ছবি: ইউএসজিএস
আগ্নেয়গিরিবিষয়ক ব্রিটিশ বিশেষজ্ঞ ও হাওয়াই ভলকানো অবজারভেটরিতে কর্মরত ড. জেসিকা জনসন বলেন, ‘লাভার স্রোত হিলো ও কোনা শহরের বাসিন্দাদের জীবনকে ভয়াবহ হুমকিতে ফেলে দিয়েছে। এমন উত্তপ্ত লাভা শহরের অবকাঠামো ও প্রকৃতি পুরোপুরি ধ্বংস করে দিতে পারে। সেই সঙ্গে উদগিরিত বিষাক্ত গ্যাস ও ছাইয়ের কারণে শ্বাসকষ্টে মানুষের মৃত্যুও হতে পারে।’

৩৮ বছর পর যুক্তরাষ্ট্রে বিশ্বের সবচেয়ে বড় সক্রিয় আগ্নেয়গিরি মাউনা লোয়া থেকে লাভা বের হওয়া শুরু হয়েছে।

দেশটির পশ্চিমাঞ্চলীয় দ্বীপ রাজ্য হাওয়াইতে স্থানীয় সময় রোববার রাত সাড়ে ১১টায় আগ্নেয়গিরিটি থেকে লাভার উদগিরণ শুরু হয়। এরই মধ্যে স্থানীয়দের জন্য সতর্কবার্তার মাত্রা বাড়িয়েছে প্রশাসন। এ খবর প্রকাশ করেছে সংবাদমাধ্যম বিবিসি

অগ্ন্যুৎপাত শুরুর কয়েক ঘণ্টার মধ্যে এই অঞ্চলে রিখটার স্কেল প্রায় তিন মাত্রার ১০টির বেশি ভূকম্পন আঘাত হেনেছে। তবে সবচেয়ে বেশি মাত্রার ভূকম্পনটি ছিল ৪ দশমিক ২ মাত্রার।

যুক্তরাষ্ট্রের ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থা ইউএসজিএসের তথ্য অনুযায়ী, এই মুহূর্তে উদগিরিত গলিত লাভা পবর্তের সুউচ্চ শৃঙ্গ কলডেরাসে সীমাবদ্ধ রয়েছে। পাদদেশের বাসিন্দাদের জন্য এটি তেমন বিপজ্জনক নাও হতে পারে। তবে আগের ভয়াবহ উদগিরণের কথা বিবেচনায় রেখে স্থানীয়দের জন্য সতর্কবার্তা বাড়িয়ে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। তারা জানিয়েছে, লাভার পরিমাণ যেকোনো সময় বাড়তে পারে এবং তা গড়িয়ে পাদদেশে নেমে এসে জনবহুল দুটি শহর হিলো ও কোনাতে ধ্বংসলীলা চালাতে পারে।

আগ্নেয়গিরিবিষয়ক ব্রিটিশ বিশেষজ্ঞ ও হাওয়াই ভলকানো অবজারভেটরিতে কর্মরত ড. জেসিকা জনসন বলেন, ‘লাভার স্রোত হিলো ও কোনা শহরের বাসিন্দাদের জীবনকে ভয়াবহ হুমকিতে ফেলে দিয়েছে। এমন উত্তপ্ত লাভা শহরের অবকাঠামো ও প্রকৃতি পুরোপুরি ধ্বংস করে দিতে পারে। সেই সঙ্গে উদগিরিত বিষাক্ত গ্যাস ও ছাইয়ের কারণে শ্বাসকষ্টে মানুষের মৃত্যুও হতে পারে।’

ইউএসজিএস জানিয়েছে, অগ্ন্যুৎপাতের ঘটনা গভীরভাবে পর্যবেক্ষণে রাখা হচ্ছে। প্রয়োজনে সতর্কতার মাত্রা আরও বাড়ানো হবে এবং স্থানীয়দের নিরাপত্তায় জরুরি ব্যবস্থা নেয়ার পরামর্শ দেয়া হবে।

হাওয়া ভলকানোস ন্যাশনাল পার্কের মধ্যে অবস্থিত মাউনা লোয়া পর্বতটি হাওয়াইয়ের ‘বিগ আইল্যান্ড’-এ অর্ধেকেরও বেশি জায়গা দখল করে রেখেছে। মাউনা লোয়া পবর্তটি ২,০০০ বর্গমাইল এলাকাজুড়ে বিস্তৃত।

আগ্নেয়গিরির চূড়াটি সমুদ্রের উপরিভাগ থেকে ১৩ হাজার ৬৭৯ ফুট ওপরে।

এর আগে ১৯৮৪ সালের অগ্ন্যুৎপাত হয়েছিল মাউনা লোয়াতে। সে সময় ওই দ্বীপের সবচেয়ে জনবহুল শহর হিলোর পাঁচ মাইল ভেতরেও লাভা চলে গিয়েছিল।

চার দশকে এই বিগ আইল্যান্ডের জনসংখ্যা দ্বিগুণ বেড়ে হয়েছে দুই লাখের বেশি।

১৮৪৩ সাল থেকে মাউনা লোয়ায় অন্তত ৩৩টি অগ্ন্যুৎপাতের ঘটনা ঘটে।

আরও পড়ুন:
যুক্তরাষ্ট্র ও জাপানে সুনামি সতর্কতা
সাগরতলে অগ্ন্যুৎপাত, টোঙ্গায় সুনামি
আবার জেগেছে নিরাগঙ্গো, আতঙ্কে ডিআর কঙ্গো
ভাঙল ৮০০ বছরের ঘুম

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
The pressure has eased as Argentinas president returns to work

চাপ কমেছে আর্জেন্টাইন প্রেসিডেন্টের, ফিরেছেন কাজে

চাপ কমেছে আর্জেন্টাইন প্রেসিডেন্টের, ফিরেছেন কাজে আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট আলবার্তো ফার্নান্দেজ। ছবি: সংগৃহীত
আগের চেয়ে ভালো আছেন আলবার্তো ফার্নান্দেজ। মানসিক ও শারীরিক চাপ না নেয়ার ব্যাপারে তার ওপর যে নির্দেশনা ছিল তা-ও কিছুটা শিথিল হয়েছে। কদিন বিশ্রামের পর কাজে ফিরেছেন তিনি।

কয়েক ঘণ্টা পরই বিশ্বকাপ ফুটবলে মেক্সিকোর মুখোমুখি হচ্ছে আর্জেন্টিনার ফুটবল দল। শঙ্কা বুকে নিয়েও জয়ের আশা করছেন সমর্থকরা। মেসিদের ভবিষ্যৎ নিয়ে যখন এমন দ্বিধা; তখন দেশের জন্য কিছুটা হলেও এলো সুসংবাদ। না, ফুটবল দলের জন্য না। এই সুসংবাদ আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্টের স্বাস্থ্য নিয়ে।

আগের চেয়ে ভালো আছেন আলবার্তো ফার্নান্দেজ। মানসিক ও শারীরিক চাপ না নেয়ার ব্যাপারে তার ওপর যে নির্দেশনা ছিল তা-ও কিছুটা শিথিল হয়েছে। কদিন বিশ্রামের পর কাজে ফিরেছেন তিনি।

আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্সির মুখপাত্র গ্যাব্রিয়েলা সেরুতি বলেছেন, প্রেসিডেন্ট আলবার্তো ফার্নান্দেজ ভালো আছেন এবং দাপ্তরিক কাজে ফিরেছেন।

১৫ নভেম্বর ইন্দোনেশিয়ার বালিতে জি-২০ সম্মেলনে যোগ দেন আলবার্তো ফার্নান্দেজ। সম্মেলনে শারীরিকভাবে অসুস্থ বোধ করার পর তিনি সেখানে আর কোনো বৈঠকে যোগ দেননি।

এ পরিস্থিতিতে চিকিৎসকরা তখন আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট চাপ নিতে নিষেধ করেন। একই সঙ্গে পূর্ণ বিশ্রামে থাকতে বলা হয় তাকে।

প্রেসিডেন্ট আলবার্তোকে এমন এক সময় চাপ নিতে নিষেধ করা হয়, যার দুদিন পরই কাতারে হওয়া বিশ্বকাপে সৌদি আরবের বিপক্ষে তার দেশ পরাজিত হয়। সে সময় অনেকেই প্রশ্ন তোলেন, খেলা নিয়ে মানসিক চাপে থেকে তিনি অসুস্থ হয়েছেন কি না। তবে খেলার সঙ্গে তার অসুস্থ হওয়া নিয়ে কোনো যোগসূত্র মেলেনি।

প্রেসিডেন্টের স্বাস্থ্যের দায়িত্বে থাকা মেডিক্যাল ইউনিট এক বিবৃতিতে জানায়, ফার্নান্দেজের এন্ডোস্কোপিক পরীক্ষা করা হয়। তবে শরীরে কোনো ক্ষত পাওয়া যায়নি।

প্রেসিডেন্ট ফার্নান্দেজ গ্যাস্ট্রাইটিসে ভুগছিলেন। এই রোগ সংক্রামক ডায়রিয়া নামেও পরিচিত। চিকিৎসাবিজ্ঞানের মতে, এতে পাকস্থলী এবং ক্ষুদ্রান্ত্রের প্রদাহ হয়। বমি, পেটে ব্যথা জ্বর, শক্তির অভাব এবং পানিশূন্যতা ঘটতে পারে এই রোগে।

পেনাল্টির গোলে লিওনেল মেসি শুরুটা ভালো করলেও সৌদি আরবের বিপক্ষে মাঠে নেমে শেষ পর্যন্ত শুরুটা ভালো করতে পারেনি আর্জেন্টিনা। ২-১ গোলে মাঠ ছাড়তে হয়েছে তাদের। শনিবার রাত ১টায় মেক্সিকোর বিপক্ষে আবার মাঠে নামছে তারা।

আরও পড়ুন:
বাঁচা-মরার লড়াইয়ে আর্জেন্টিনা
মেসিই সেই জাদুকর: ওচোয়া
আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্টের চাপ নেয়া নিষেধ

মন্তব্য

ফের ধর্ষণ মামলা খেলেন ট্রাম্প

ফের ধর্ষণ মামলা খেলেন ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প (বাঁয়ে) এবং আমেরিকান লেখক ই. জিন ক্যারল। ছবি: সংগৃহীত
মামলাটি করেছেন আমেরিকান লেখক ই জিন ক্যারল। ক্যারলের অভিযোগ, নব্বই দশকে নিউ ইয়র্কের একটি বিলাসবহুল ডিপার্টমেন্টাল স্টোরের ড্রেসিং রুমে তাকে ধর্ষণ করেছিলেন ট্রাম্প।

কিছুদিন আগেই যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার ঘোষণা দেন ডনাল্ড ট্রাম্প। জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটারে নিজের অ্যাকাউন্টও ফিরে পেয়েছেন তিনি। আমেরিকার মধ্যবর্তী নির্বাচনে কংগ্রেসের উচ্চকক্ষ সিনেটে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায় ট্রাম্পের দল রিপাবলিকান পার্টি। সব মিলিয়ে সময়টা বেশ ভালোই কাটছিল যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্টের।

আজীবন বিতর্ক যার সঙ্গী সেই ট্রাম্পের জীবন ঝামেলামুক্ত কাটবে, তা কী করে হয়। বৃহস্পতিবার ফের ধর্ষণ মামলা খেলেন ট্রাম্প।

মামলাটি করেছেন আমেরিকান লেখক ই জিন ক্যারল। ক্যারলের অভিযোগ, নব্বইয়ের দশকে নিউ ইয়র্কের একটি বিলাসবহুল ডিপার্টমেন্টাল স্টোরের ড্রেসিং রুমে তাকে ধর্ষণ করেছিলেন ট্রাম্প।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, বৃহস্পতিবার থেকে কার্যকর হওয়া অ্যাডাল্ট সারভাইভার্স অ্যাক্ট নামে নতুন একটি আইনের আওতায় নিউ ইয়র্কে মামলাটি করেন ৭৮ বছরের ক্যারল। ট্রাম্প অবশ্য তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

নিউ ইয়র্কে সাধারণত ধর্ষণের শিকার ভুক্তভোগীরা এক বছরের মধ্যে যৌন নিপীড়নের মামলা করতে পারে। তবে অ্যাডাল্ট সারভাইভার্স অ্যাক্ট আইনে ঘটনার সময় ভুক্তভোগীর বয়স ১৮-এর বেশি হলে যেকোনো সময় তিনি মামলা করতে পারবেন।

এক বিবৃতিতে ক্যারলের আইনজীবী রবার্টা কাপলান বলেন, ‘ট্রাম্পকে তার অপরাধের সাজা দেয়ার জন্যই মামলাটি করা হয়েছে।’

ট্রাম্পের আইনজীবী আলিনা হাব্বা বলেন, ‘দুর্ভাগ্যবশত মামলাটি আইনের অপব্যবহারের উদ্দেশে করা হয়েছে।’

মামলাটির বিচার প্রক্রিয়া শুরু হবে ৬ ফেব্রুয়ারি থেকে।

ট্রাম্পের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ আগে উঠেছিল। অভিযোগগুলো করেন পর্নস্টার ও মডেলরা।

২০১৬ সালের নির্বাচনের আগে প্রেসিডেন্ট ট্রামের বিরুদ্ধে সরব হয়েছিলেন পর্নস্টার স্টর্মি ড্যানিয়েলস। পরে অবশ্য বিপুল অর্থে বিষয়টি রফাদফা করেন ট্রাম্প।

২০২০ সালের নির্বাচনের কয়েক মাস আগে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ তুলেছিলেন আমেরিকার মডেল অ্যামি ডরিস।

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
4 dead bodies arrested in ganja farm 1

গাঁজার খামারে ৪ মরদেহ; গ্রেপ্তার ১

গাঁজার খামারে ৪ মরদেহ; গ্রেপ্তার ১ যুক্তরাষ্ট্রের ওকলাহোমা রাজ্যে ১০ একর জমির ওপর নির্মিত হয় গাঁজা খামারটি। ছবি: সংগৃহীত
চিকিৎসার জন্য ওকলাহোমা রাজ্যে গাঁজার বৈধতা রয়েছে। তবে ১০ একর জমির এই খামারটির লাইসেন্স আছে কি না, তা স্পষ্ট নয়।

যুক্তরাষ্ট্রের ওকলাহোমা রাজ্যের একটি গ্রামীণ গাঁজার খামারে চার চীনা নাগরিককে হত্যার ঘটনায় সন্দেহভাজন একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

আইন প্রয়োগকারী কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ৪৫ বছরের উ চেনকে মঙ্গলবার ২ হাজার ৪০০ কিলোমিটার দূরের ফ্লোরিডা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। তিনি কোন দেশের নাগরিক তা অবশ্য প্রকাশ হয়নি।

ওকলাহোমা সিটি থেকে ৫৫ মাইল উত্তরে হেনেসি শহরের কাছে রোববার পুলিশ একটি জিম্মি পরিস্থিতির কল পায়। সেদিন ঘটনাস্থলে পৌঁছে তারা চার চীনা নাগরিকের মরদেহ উদ্ধার করে। তাদের মধ্যে তিনজন পুরুষ ও একজন নারী। আহত অবস্থায় আরেক চীনা নাগরিককেও উদ্ধার করা হয়।

চিকিৎসার জন্য ওকলাহোমা রাজ্যে গাঁজার বৈধতা রয়েছে। তবে ১০ একর জমির এই খামারটির লাইসেন্স আছে কি না, তা স্পষ্ট নয়।

পুলিশ বলছে, সন্দেহভাজন ব্যক্তি রোববার স্থানীয় সময় বিকেল ৫টা ৪৫ মিনিটের দিকে গাঁজা খামারের একটি ভবনে প্রবেশ করেছিলেন। তখন ভেতরে ‘বেশ কয়েকজন কর্মচারী’ ছিল।

ওকলাহোমা স্টেট ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন বলেছে, অনেক সময় ওই ব্যক্তি ভবনের ভেতর ছিলেন।

পুলিশ জানিয়েছে, ভাষাগত জটিলতার কারণে এখন পর্যন্ত নিহতদের পরিবারকে বিষয়টি জানানো হয়নি। গাড়ি ট্র্যাক করে সন্দেহভাজনকে মঙ্গলবার মায়ামি বিচ এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার বিরুদ্ধে হত্যা ও হত্যার উদ্দেশ্যে গুলো চালানোসহ বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে।

‘বন্দুকধারী সম্ভবত নিহতদের পরিচিত ছিল।’

ওকলাহোমার বাসিন্দারা ২০১৮ সালে ভোটের মাধ্যমে চিকিৎসায় গাঁজাকে বৈধ করে। আগামী মার্চে ভোটাররা চিত্তবিনোদনের উদ্দেশ্যে গাঁজাকে বৈধতা দেয়ার সিদ্ধান্ত নেবেন।

যুক্তরাষ্ট্রের ২১ রাজ্য গাঁজার বিনোদনমূলক ব্যবহারের অনুমতি রয়েছে; ৩৭ রাজ্য চিকিৎসা উদ্দেশ্যে এটির অনুমতি দেয়।

আরও পড়ুন:
রিপাবলিকানদের সঙ্গে কাজ করার প্রতিশ্রুতি বাইডেনের
নিম্নকক্ষে জয়ের পথে রিপাবলিকানরা, সিনেটে হাড্ডাহাড্ডি
হাউসে এগিয়ে রিপাবলিকানরা, সিনেটে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই
বাইডেন-ট্রাম্পের ভবিষ্যৎ নির্ধারণী নির্বাচন শুরু
যুক্তরাষ্ট্রে বাড়ছে নির্বাচনী সহিংসতার ভয়

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
The attack on Walmart in the United States killed several people including the gunman

যুক্তরাষ্ট্রে ওয়ালমার্টে হামলা, বন্দুকধারীসহ কয়েকজন নিহত

যুক্তরাষ্ট্রে ওয়ালমার্টে হামলা, বন্দুকধারীসহ কয়েকজন নিহত যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়ার চেসাপিক শহরে স্থানীয় সময় মঙ্গলবার রাতে ওয়ালমার্টে বন্দুক হামলার খবর পেয়ে ছুটে যায় পুলিশ। ছবি: টুইটার
ওয়ালমার্টে হামলাকারীর পরিচয় শনাক্ত করা যায়নি। তিনি নিজস্ব আঘাতে নিহত হয়েছেন কি না, তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়া অঙ্গরাজ্যের চেসাপিক শহরে সুপারশপ ওয়ালমার্টের একটি স্টোরে বন্দুক হামলায় কয়েকজন হতাহত হয়েছেন।

স্থানীয় সময় মঙ্গলবার রাতে এ হামলা হয়।

চেসাপিক পুলিশ জানিয়েছে, ওয়ালমার্ট স্টোরে হামলাকারীও নিহত হয়েছেন।

শহরের পাবলিক ইনফরমেশন অফিসার লিও কসিনস্কির ব্রিফিংয়ের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে জানানো হয়, ওয়ালমার্টের ভেতর বন্দুক হামলার খবর পেয়ে মঙ্গলবার রাত ১০টা ১২ মিনিটে ঘটনাস্থলে ছুটে যান পুলিশ সদস্যরা।

গুলিতে প্রাণহানির প্রকৃত সংখ্যা না জানিয়ে কসিনস্কি বলেন, এ ঘটনায় ১০ জনের কম নিহত হয়েছে।

ওয়ালমার্টে হামলাকারীর পরিচয় শনাক্ত করা যায়নি। তিনি নিজের ছোড়া গুলির আঘাতে নিহত হয়েছেন কি না, তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

কসিনস্কি বলেন, তার জানা মতে, পুলিশকে লক্ষ্য করে কোনো গুলি ছোড়া হয়নি।

চেসাপিক সিটির পক্ষ থেকে বলা হয়, ‘স্যাম’স চত্বরে ওয়ালমার্টে বন্দুক হামলার একটি ঘটনা নিশ্চিত করেছে চেসাপিক পুলিশ যাতে প্রাণহানি হয়েছে। বন্দুকধারী মারা গেছে।’

ওয়ালমার্টের পক্ষ থেকে মঙ্গলবার গভীর রাতে বিবৃতিতে বলা হয়, চেসাপিক স্টোরে বন্দুক হামলার ঘটনায় প্রতিষ্ঠানটি শোকাহত।

প্রতিষ্ঠানটি আরও জানায়, তারা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে নিবিড়ভাবে কাজ করছে।

আরও পড়ুন:
নিম্নকক্ষে জয়ের পথে রিপাবলিকানরা, সিনেটে হাড্ডাহাড্ডি
হাউসে এগিয়ে রিপাবলিকানরা, সিনেটে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই
বাইডেন-ট্রাম্পের ভবিষ্যৎ নির্ধারণী নির্বাচন শুরু
যুক্তরাষ্ট্রে বাড়ছে নির্বাচনী সহিংসতার ভয়
যুক্তরাষ্ট্রে মধ্যবর্তী নির্বাচনের গুরুত্ব যেখানে

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
The president of Argentina was forbidden to take pressure and went to full rest

আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্টের চাপ নেয়া নিষেধ

আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্টের চাপ নেয়া নিষেধ আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট আলবার্তো ফার্নান্দেজ। ছবি: সংগৃহীত
বিবৃতিতে বলা হয়, তাকে চাপ নিতে নিষেধ করা হয়েছে। থাকতে বলা হয়েছে পূর্ণ বিশ্রামে। এখনই না করে বরং ধীরে ধীরে দাপ্তরিক কাজ শুরু করতে বলা হয়েছে।

আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট আলবার্তো ফার্নান্দেজকে চাপ নিতে নিষেধ করা হয়েছে, একই সঙ্গে পূর্ণ বিশ্রামে থাকতে বলা হয়েছে তাকে।

অবশ্য এ ঘটনার সঙ্গে মঙ্গলবার কাতারে হওয়া ফিফা বিশ্বকাপে সৌদি আরবের বিপক্ষে তার দেশের পরাজয়ের কোনো সম্পর্ক নেই। স্বাস্থ্যগত কারণেই চিকিৎসক তাকে ওই সব পরামর্শ দিয়েছেন।

ইন্দোনেশিয়ার বালিতে সম্প্রতি জি-২০ সম্মেলনে যোগ দেন প্রেসিডেন্ট ফার্নান্দেজ। ওই সময়ই শারীরিকভাবে অসুস্থ বোধ করেন তিনি। অসুস্থ হওয়ার পর তিনি আর কোনো বৈঠকে যোগ দেননি।

প্রেসিডেন্টের স্বাস্থ্যের দায়িত্বে থাকা মেডিক্যাল ইউনিট এক বিবৃতিতে বলেছে, ফার্নান্দেজের এন্ডোস্কোপিক পরীক্ষা করা হয়েছে। শরীরে কোনো ক্ষত পাওয়া যায়নি।

রোববারের ওই বিবৃতিতে আরও বলা হয়, তাকে চাপ নিতে নিষেধ করা হয়েছে। থাকতে বলা হয়েছে পূর্ণ বিশ্রামে। এখনই না করে বরং ধীরে ধীরে দাপ্তরিক কাজ শুরু করতে বলা হয়েছে।

এমন একসময় ফার্নান্দেজকে চিকিৎসক ‘শান্ত’ থাকতে পরামর্শ দেন, যখন বেশ ‘অশান্ত’ হওয়ার কারণ সামনে ছিল তার। কারণ এর এক দিন পরই এবারের বিশ্বকাপে প্রথমবারের মতো মাঠে নামে আর্জেন্টিনা।

প্রেসিডেন্ট ফার্নান্দেজ ভুগছেন গ্যাস্ট্রাইটিসে। এই রোগ সংক্রামক ডায়রিয়া নামেও পরিচিত। চিকিৎসাবিজ্ঞানের মতে, এতে পাকস্থলী এবং ক্ষুদ্রান্ত্রের প্রদাহ হয়। বমি, পেটে ব্যথা জ্বর, শক্তির অভাব এবং পানিশূন্যতা ঘটতে পারে এই রোগে।

পেনাল্টির গোলে লিওনেল মেসি শুরুটা ভালো করলেও কাতারের মাঠে শেষ পর্যন্ত জয়ী হতে পারেনি আর্জেন্টিনা। ২-১ গোলে মাঠ ছাড়তে হয়েছে তাদের।

এ অবস্থায় প্রেসিডেন্টের মনোবেদনা নিয়ে অনুমান করা যায় সহজেই। তবে শরীরের সর্বশেষ অবস্থা নিয়ে অবশ্য এরপর আর কোনো আপডেট দেয়নি দেশটির সংবাদমাধ্যমগুলো।

আরও পড়ুন:
আর্জেন্টিনাকে সমর্থন করা রিস্ক: মাশরাফি
ফুটবল জ্বরে কাঁপছে সৌদি, বুধবার সরকারি ছুটি
হারের অজুহাত দিতে চান না মেসি

মন্তব্য

p
উপরে