× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

আন্তর্জাতিক
Where the importance of US midterm elections
hear-news
player
google_news print-icon

যুক্তরাষ্ট্রে মধ্যবর্তী নির্বাচনের গুরুত্ব যেখানে

যুক্তরাষ্ট্রে-মধ্যবর্তী-নির্বাচনের-গুরুত্ব-যেখানে
যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী নির্বাচনের আগে বুথ গোছানোর প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। ছবি: সংগৃহীত
মধ্যবর্তী নির্বাচনে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট পরিবর্তন না হলেও সিদ্ধান্ত হবে কংগ্রেসের পাশাপাশি বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে আইনসভা এবং গভর্নরের অফিস কে নিয়ন্ত্রণ করবে।

আর মাত্র ২৪ ঘণ্টারও কম সময়ের মধ্যে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী নির্বাচন। আমেরিকার স্থানীয় সময় মঙ্গলবার এই ভোট অনুষ্ঠিত হবে? এই নির্বাচনে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট পরিবর্তন না হলেও সিদ্ধান্ত হবে কংগ্রেসের পাশাপাশি বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে আইনসভা এবং গভর্নরের অফিস কে নিয়ন্ত্রণ করবে।

মধ্যবর্তী নির্বাচন কী?

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের চার বছর মেয়াদের মাঝামাঝি সময়ে এই নির্বাচন হয়, তাই একে মধ্যবর্তী নির্বাচন বলা হয়। যুক্তরাষ্ট্রের সরকারে জনগণের প্রতিনিধিত্ব করেন ৫৩৫ জন আইন প্রণেতা, যারা কংগ্রেস সদস্য হিসেবে পরিচিত।

কংগ্রেসের আছে দুটি কক্ষ- সিনেট ও হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভস। আইন তৈরির জন্য কংগ্রেসের এই দুটি কক্ষ একসঙ্গে কাজ করে।

সিনেট হচ্ছে কংগ্রেসের ১০০ সদস্যের উচ্চকক্ষ। যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিটি অঙ্গরাজ্য, তাদের আকার যাই হোক, দুজন করে সিনেট সদস্য নির্বাচিত করে। সিনেটররা নির্বাচিত হন ছয় বছর মেয়াদের জন্য। প্রতি দুই বছর পর পর সিনেটের এক-তৃতীয়াংশ আসনের জন্য নির্বাচন হয়। এবার ৩৫ জন সিনেটর নির্বাচিত হবেন।

হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভস বা প্রতিনিধি পরিষদে (যাকে সংক্ষেপে হাউস বলে ডাকা হয়) সদস্য আছেন ৪৩৫ জন। প্রত্যেক সদস্য তাদের অঙ্গরাজ্যের একটি নির্দিষ্ট ডিস্ট্রিক্ট বা জেলার প্রতিনিধিত্ব করেন। তারা দুই বছর মেয়াদের জন্য নির্বাচিত হন। কাজেই এবার যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী নির্বাচনে প্রতিনিধি পরিষদে সব আসনের জন্যই নির্বাচন হবে।

নির্বাচনের গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো

কংগ্রেসের আকারে পরিবর্তন ঘটলে তা সারা দেশে আমেরিকানদের দৈনন্দিন জীবনকে সরাসরিভাবে প্রভাবিত করতে পারে। এর একটি ভালো উদাহরণ হলো নারীদের গর্ভপাতের অধিকার।

গত জুন মাসে যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্ট নারীদের গর্ভপাতের সাংবিধানিক অধিকার বাতিল করে। মধ্যবর্তী মেয়াদের এই নির্বাচনে কংগ্রেসের নিয়ন্ত্রণ হাতে নিতে পারলে ক্ষমতাসীন ডেমোক্র্যাট এবং বিরোধী রিপাবলিকান পার্টি এ নিয়ে দেশব্যাপী নতুন আইন তৈরি করবে বলে প্রস্তাব করেছে।

ডেমোক্র্যাটরা নারীদের গর্ভপাতের অধিকার বজায় রাখার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। অন্যদিকে রিপাবলিকানরা নারীর ১৫ সপ্তাহের গর্ভাবস্থার পর গর্ভপাতের বিরুদ্ধে জাতীয় নিষেধাজ্ঞার প্রস্তাব দিয়েছে। এ ছাড়া অর্থনীতি, অভিবাসন এবং গণতন্ত্র মধ্যবর্তী নির্বাচনের আগে যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতির মাঠে প্রধান গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

অর্থনীতি নিয়ে ভোটারদের ভাবনা

ইউক্রেন যুদ্ধের মতো বৈশ্বিক সংকটের কারণে কয়েক মাস ধরে যুক্তরাষ্ট্রের মুদ্রাস্ফীতি আকাশচুম্বী।

যুক্তরাষ্ট্রের মনমাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি জরিপে দেখা গেছে, ৮২ শতাংশ আমেরিকান মনে করেন যে মধ্যবর্তী নির্বাচনের আগে মুদ্রাস্ফীতির বিষয়টি সরকারের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ ।

অভিবাসন সম্পর্কে কী বলা হচ্ছে?

অনেক রিপাবলিকান মধ্যবর্তী নির্বাচনের প্রচারাভিযানজুড়ে দৃঢ় অভিবাসনবিরোধী অবস্থান তুলে ধরেছে। মেক্সিকোর সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ সীমান্তে বিপুলসংখ্যক অভিবাসী প্রত্যাশী আসার জন্য ডেমোক্র্যাটদের দোষারোপ করতে চাইছে তারা।

যুক্তরাষ্ট্রের বাইরে এর প্রভাব কতটুকু

যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী নির্বাচনের বিষয়টি পুরোপুরি আমেরিকার অভ্যন্তরীণ বিষয়গুলোর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট। তবে এর ফল বাইডেনের প্রথম প্রেসিডেন্ট মেয়াদের বাকি সময়কে প্রভাবিত করবে। ইউক্রেনের মতো গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু নিয়ে প্রেসিডেন্টের পররাষ্ট্রনীতি পরিবর্তন করে দিতে পারে এই নির্বাচন।

ভোটারদের নজর বেশি কোন দিকে

মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী নির্বাচনে ৩৫ জন সিনেটর নির্বাচিত হবেন। এদিকেই ভোটারদের নজর বেশি থাকবে। কারণ রিপাবলিকানরা কংগ্রেসের উচ্চকক্ষে নিয়ন্ত্রণ পুনরুদ্ধারের জন্য মুখিয়ে আছে। যদিও এই আসনগুলোর মধ্যে অনেকগুলোতে রিপাবলিকান বা ডেমোক্র্যাটদের শক্ত ঘাঁটি রয়েছে। যেখানে প্রতিটি দলের নিজ নিজ প্রার্থীদের জয়ের অনেকটা নিশ্চয়তাও রয়েছে। এতে কিছু আসনে তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে বলে আশা করা হচ্ছে। বিশেষ করে সুইং স্টেটগুলোতে।

কারা জিততে পারে?

ইতিহাস সাক্ষ্য দেয়, সাধারণত যে দল হোয়াইট হাউসে থাকে, তারা মধ্যবর্তী নির্বাচনে খারাপ ফল করে। কাজেই রিপাবলিকানরা তাদের আসন সংখ্যা বাড়াতে পারে এ রকম ইঙ্গিত রয়েছে।

তা ছাড়া এই মুহূর্তে প্রেসিডেন্ট বাইডেনের জনপ্রিয়তা কম, তার প্রতি সমর্থন গত আগস্ট মাস থেকেই ৫০ শতাংশের নিচে আটকে আছে। ফলে ডেমোক্র্যাট প্রার্থীদের সমর্থনে ভাটা পড়তে পারে।

বাইডেনের জন্য কেন এটি গুরুত্বপূর্ণ?

যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসে বাইডেনের দল ডেমোক্র্যাটদের সামান্য সংখ্যাগরিষ্ঠতা রয়েছে। এ সময়ের মধ্যে বাইডেন এই সংখ্যাগরিষ্ঠতার মাধ্যমে জলবায়ু পরিবর্তন, আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ন্ত্রণ, অবকাঠামো খাতে বিনিয়োগ এবং দরিদ্র শিশুদের জন্য নতুন আইন চালু করতে পেরেছেন।

পার্লামেন্টের দুটি কক্ষের মধ্যে কোনো একটি যদি রিপাবলিকানদের হাতে চলে যায়, তাহলে ডেমোক্র্যাটদের আনা বিলগুলো তারা কংগ্রেসে পাস হওয়া ঠেকিয়ে দিতে পারবে। ফলে জটিলতা তৈরি হবে।

ট্রাম্পের জন্যও কি গুরুত্বপূর্ণ?

এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে হারার পর পরাজিত প্রেসিডেন্টদের রাজনীতি ছেড়ে দিতে দেখা গেছে। তবে ট্রাম্প তেমনটি করেননি।

তিনি এখনও ২০২৪ সালের নির্বাচনের মাধ্যমে হোয়াইট হাউসে ফিরে আসার ব্যাপারে আগ্রহী বলে মনে হচ্ছে। ফলে সংসদের এই মধ্যমেয়াদি নির্বাচন তার হাতকে হয় শক্তিশালী করবে বা নয়তো তার সব আশা গুঁড়িয়ে দিতে পারে। যদিও এই নির্বাচনে তার ওপর কোনো ভোট হচ্ছে না, কিন্তু তার নির্বাচিত কয়েক ডজন প্রার্থী যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে গুরুত্বপূর্ণ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

জ্যেষ্ঠ রিপাবলিকান নেতাদের আপত্তি সত্ত্বেও প্রথাগত রিপাবলিকান রাজনীতিবিদদের বাদ দিয়ে ট্রাম্প জর্জিয়ার প্রাক্তন রাগবি খেলোয়াড় হার্শেল ওয়াকার, পেনসিলভেনিয়ায় টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব ডা. মেহমেত ওজ এবং ওহাইওর জনপ্রিয় লেখক জেডি ভ্যান্সের মতো কিছু সিনেট পদপ্রার্থীর প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন।

নির্বাচনে এরা জয়লাভ করলে তাতে ট্রাম্পের রাজনৈতিক দূরদর্শিতা প্রমাণ হবে। তবে কংগ্রেসে রিপাবলিকানদের সংখ্যা কমে গেলে সেই দায়ভারও তার ওপরই চাপবে।

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
The pressure has eased as Argentinas president returns to work

চাপ কমেছে আর্জেন্টাইন প্রেসিডেন্টের, ফিরেছেন কাজে

চাপ কমেছে আর্জেন্টাইন প্রেসিডেন্টের, ফিরেছেন কাজে আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট আলবার্তো ফার্নান্দেজ। ছবি: সংগৃহীত
আগের চেয়ে ভালো আছেন আলবার্তো ফার্নান্দেজ। মানসিক ও শারীরিক চাপ না নেয়ার ব্যাপারে তার ওপর যে নির্দেশনা ছিল তা-ও কিছুটা শিথিল হয়েছে। কদিন বিশ্রামের পর কাজে ফিরেছেন তিনি।

কয়েক ঘণ্টা পরই বিশ্বকাপ ফুটবলে মেক্সিকোর মুখোমুখি হচ্ছে আর্জেন্টিনার ফুটবল দল। শঙ্কা বুকে নিয়েও জয়ের আশা করছেন সমর্থকরা। মেসিদের ভবিষ্যৎ নিয়ে যখন এমন দ্বিধা; তখন দেশের জন্য কিছুটা হলেও এলো সুসংবাদ। না, ফুটবল দলের জন্য না। এই সুসংবাদ আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্টের স্বাস্থ্য নিয়ে।

আগের চেয়ে ভালো আছেন আলবার্তো ফার্নান্দেজ। মানসিক ও শারীরিক চাপ না নেয়ার ব্যাপারে তার ওপর যে নির্দেশনা ছিল তা-ও কিছুটা শিথিল হয়েছে। কদিন বিশ্রামের পর কাজে ফিরেছেন তিনি।

আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্সির মুখপাত্র গ্যাব্রিয়েলা সেরুতি বলেছেন, প্রেসিডেন্ট আলবার্তো ফার্নান্দেজ ভালো আছেন এবং দাপ্তরিক কাজে ফিরেছেন।

১৫ নভেম্বর ইন্দোনেশিয়ার বালিতে জি-২০ সম্মেলনে যোগ দেন আলবার্তো ফার্নান্দেজ। সম্মেলনে শারীরিকভাবে অসুস্থ বোধ করার পর তিনি সেখানে আর কোনো বৈঠকে যোগ দেননি।

এ পরিস্থিতিতে চিকিৎসকরা তখন আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট চাপ নিতে নিষেধ করেন। একই সঙ্গে পূর্ণ বিশ্রামে থাকতে বলা হয় তাকে।

প্রেসিডেন্ট আলবার্তোকে এমন এক সময় চাপ নিতে নিষেধ করা হয়, যার দুদিন পরই কাতারে হওয়া বিশ্বকাপে সৌদি আরবের বিপক্ষে তার দেশ পরাজিত হয়। সে সময় অনেকেই প্রশ্ন তোলেন, খেলা নিয়ে মানসিক চাপে থেকে তিনি অসুস্থ হয়েছেন কি না। তবে খেলার সঙ্গে তার অসুস্থ হওয়া নিয়ে কোনো যোগসূত্র মেলেনি।

প্রেসিডেন্টের স্বাস্থ্যের দায়িত্বে থাকা মেডিক্যাল ইউনিট এক বিবৃতিতে জানায়, ফার্নান্দেজের এন্ডোস্কোপিক পরীক্ষা করা হয়। তবে শরীরে কোনো ক্ষত পাওয়া যায়নি।

প্রেসিডেন্ট ফার্নান্দেজ গ্যাস্ট্রাইটিসে ভুগছিলেন। এই রোগ সংক্রামক ডায়রিয়া নামেও পরিচিত। চিকিৎসাবিজ্ঞানের মতে, এতে পাকস্থলী এবং ক্ষুদ্রান্ত্রের প্রদাহ হয়। বমি, পেটে ব্যথা জ্বর, শক্তির অভাব এবং পানিশূন্যতা ঘটতে পারে এই রোগে।

পেনাল্টির গোলে লিওনেল মেসি শুরুটা ভালো করলেও সৌদি আরবের বিপক্ষে মাঠে নেমে শেষ পর্যন্ত শুরুটা ভালো করতে পারেনি আর্জেন্টিনা। ২-১ গোলে মাঠ ছাড়তে হয়েছে তাদের। শনিবার রাত ১টায় মেক্সিকোর বিপক্ষে আবার মাঠে নামছে তারা।

আরও পড়ুন:
বাঁচা-মরার লড়াইয়ে আর্জেন্টিনা
মেসিই সেই জাদুকর: ওচোয়া
আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্টের চাপ নেয়া নিষেধ

মন্তব্য

ফের ধর্ষণ মামলা খেলেন ট্রাম্প

ফের ধর্ষণ মামলা খেলেন ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প (বাঁয়ে) এবং আমেরিকান লেখক ই. জিন ক্যারল। ছবি: সংগৃহীত
মামলাটি করেছেন আমেরিকান লেখক ই জিন ক্যারল। ক্যারলের অভিযোগ, নব্বই দশকে নিউ ইয়র্কের একটি বিলাসবহুল ডিপার্টমেন্টাল স্টোরের ড্রেসিং রুমে তাকে ধর্ষণ করেছিলেন ট্রাম্প।

কিছুদিন আগেই যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার ঘোষণা দেন ডনাল্ড ট্রাম্প। জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটারে নিজের অ্যাকাউন্টও ফিরে পেয়েছেন তিনি। আমেরিকার মধ্যবর্তী নির্বাচনে কংগ্রেসের উচ্চকক্ষ সিনেটে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায় ট্রাম্পের দল রিপাবলিকান পার্টি। সব মিলিয়ে সময়টা বেশ ভালোই কাটছিল যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্টের।

আজীবন বিতর্ক যার সঙ্গী সেই ট্রাম্পের জীবন ঝামেলামুক্ত কাটবে, তা কী করে হয়। বৃহস্পতিবার ফের ধর্ষণ মামলা খেলেন ট্রাম্প।

মামলাটি করেছেন আমেরিকান লেখক ই জিন ক্যারল। ক্যারলের অভিযোগ, নব্বইয়ের দশকে নিউ ইয়র্কের একটি বিলাসবহুল ডিপার্টমেন্টাল স্টোরের ড্রেসিং রুমে তাকে ধর্ষণ করেছিলেন ট্রাম্প।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, বৃহস্পতিবার থেকে কার্যকর হওয়া অ্যাডাল্ট সারভাইভার্স অ্যাক্ট নামে নতুন একটি আইনের আওতায় নিউ ইয়র্কে মামলাটি করেন ৭৮ বছরের ক্যারল। ট্রাম্প অবশ্য তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

নিউ ইয়র্কে সাধারণত ধর্ষণের শিকার ভুক্তভোগীরা এক বছরের মধ্যে যৌন নিপীড়নের মামলা করতে পারে। তবে অ্যাডাল্ট সারভাইভার্স অ্যাক্ট আইনে ঘটনার সময় ভুক্তভোগীর বয়স ১৮-এর বেশি হলে যেকোনো সময় তিনি মামলা করতে পারবেন।

এক বিবৃতিতে ক্যারলের আইনজীবী রবার্টা কাপলান বলেন, ‘ট্রাম্পকে তার অপরাধের সাজা দেয়ার জন্যই মামলাটি করা হয়েছে।’

ট্রাম্পের আইনজীবী আলিনা হাব্বা বলেন, ‘দুর্ভাগ্যবশত মামলাটি আইনের অপব্যবহারের উদ্দেশে করা হয়েছে।’

মামলাটির বিচার প্রক্রিয়া শুরু হবে ৬ ফেব্রুয়ারি থেকে।

ট্রাম্পের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ আগে উঠেছিল। অভিযোগগুলো করেন পর্নস্টার ও মডেলরা।

২০১৬ সালের নির্বাচনের আগে প্রেসিডেন্ট ট্রামের বিরুদ্ধে সরব হয়েছিলেন পর্নস্টার স্টর্মি ড্যানিয়েলস। পরে অবশ্য বিপুল অর্থে বিষয়টি রফাদফা করেন ট্রাম্প।

২০২০ সালের নির্বাচনের কয়েক মাস আগে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ তুলেছিলেন আমেরিকার মডেল অ্যামি ডরিস।

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
4 dead bodies arrested in ganja farm 1

গাঁজার খামারে ৪ মরদেহ; গ্রেপ্তার ১

গাঁজার খামারে ৪ মরদেহ; গ্রেপ্তার ১ যুক্তরাষ্ট্রের ওকলাহোমা রাজ্যে ১০ একর জমির ওপর নির্মিত হয় গাঁজা খামারটি। ছবি: সংগৃহীত
চিকিৎসার জন্য ওকলাহোমা রাজ্যে গাঁজার বৈধতা রয়েছে। তবে ১০ একর জমির এই খামারটির লাইসেন্স আছে কি না, তা স্পষ্ট নয়।

যুক্তরাষ্ট্রের ওকলাহোমা রাজ্যের একটি গ্রামীণ গাঁজার খামারে চার চীনা নাগরিককে হত্যার ঘটনায় সন্দেহভাজন একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

আইন প্রয়োগকারী কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ৪৫ বছরের উ চেনকে মঙ্গলবার ২ হাজার ৪০০ কিলোমিটার দূরের ফ্লোরিডা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। তিনি কোন দেশের নাগরিক তা অবশ্য প্রকাশ হয়নি।

ওকলাহোমা সিটি থেকে ৫৫ মাইল উত্তরে হেনেসি শহরের কাছে রোববার পুলিশ একটি জিম্মি পরিস্থিতির কল পায়। সেদিন ঘটনাস্থলে পৌঁছে তারা চার চীনা নাগরিকের মরদেহ উদ্ধার করে। তাদের মধ্যে তিনজন পুরুষ ও একজন নারী। আহত অবস্থায় আরেক চীনা নাগরিককেও উদ্ধার করা হয়।

চিকিৎসার জন্য ওকলাহোমা রাজ্যে গাঁজার বৈধতা রয়েছে। তবে ১০ একর জমির এই খামারটির লাইসেন্স আছে কি না, তা স্পষ্ট নয়।

পুলিশ বলছে, সন্দেহভাজন ব্যক্তি রোববার স্থানীয় সময় বিকেল ৫টা ৪৫ মিনিটের দিকে গাঁজা খামারের একটি ভবনে প্রবেশ করেছিলেন। তখন ভেতরে ‘বেশ কয়েকজন কর্মচারী’ ছিল।

ওকলাহোমা স্টেট ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন বলেছে, অনেক সময় ওই ব্যক্তি ভবনের ভেতর ছিলেন।

পুলিশ জানিয়েছে, ভাষাগত জটিলতার কারণে এখন পর্যন্ত নিহতদের পরিবারকে বিষয়টি জানানো হয়নি। গাড়ি ট্র্যাক করে সন্দেহভাজনকে মঙ্গলবার মায়ামি বিচ এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার বিরুদ্ধে হত্যা ও হত্যার উদ্দেশ্যে গুলো চালানোসহ বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে।

‘বন্দুকধারী সম্ভবত নিহতদের পরিচিত ছিল।’

ওকলাহোমার বাসিন্দারা ২০১৮ সালে ভোটের মাধ্যমে চিকিৎসায় গাঁজাকে বৈধ করে। আগামী মার্চে ভোটাররা চিত্তবিনোদনের উদ্দেশ্যে গাঁজাকে বৈধতা দেয়ার সিদ্ধান্ত নেবেন।

যুক্তরাষ্ট্রের ২১ রাজ্য গাঁজার বিনোদনমূলক ব্যবহারের অনুমতি রয়েছে; ৩৭ রাজ্য চিকিৎসা উদ্দেশ্যে এটির অনুমতি দেয়।

আরও পড়ুন:
রিপাবলিকানদের সঙ্গে কাজ করার প্রতিশ্রুতি বাইডেনের
নিম্নকক্ষে জয়ের পথে রিপাবলিকানরা, সিনেটে হাড্ডাহাড্ডি
হাউসে এগিয়ে রিপাবলিকানরা, সিনেটে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই
বাইডেন-ট্রাম্পের ভবিষ্যৎ নির্ধারণী নির্বাচন শুরু
যুক্তরাষ্ট্রে বাড়ছে নির্বাচনী সহিংসতার ভয়

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
The attack on Walmart in the United States killed several people including the gunman

যুক্তরাষ্ট্রে ওয়ালমার্টে হামলা, বন্দুকধারীসহ কয়েকজন নিহত

যুক্তরাষ্ট্রে ওয়ালমার্টে হামলা, বন্দুকধারীসহ কয়েকজন নিহত যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়ার চেসাপিক শহরে স্থানীয় সময় মঙ্গলবার রাতে ওয়ালমার্টে বন্দুক হামলার খবর পেয়ে ছুটে যায় পুলিশ। ছবি: টুইটার
ওয়ালমার্টে হামলাকারীর পরিচয় শনাক্ত করা যায়নি। তিনি নিজস্ব আঘাতে নিহত হয়েছেন কি না, তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়া অঙ্গরাজ্যের চেসাপিক শহরে সুপারশপ ওয়ালমার্টের একটি স্টোরে বন্দুক হামলায় কয়েকজন হতাহত হয়েছেন।

স্থানীয় সময় মঙ্গলবার রাতে এ হামলা হয়।

চেসাপিক পুলিশ জানিয়েছে, ওয়ালমার্ট স্টোরে হামলাকারীও নিহত হয়েছেন।

শহরের পাবলিক ইনফরমেশন অফিসার লিও কসিনস্কির ব্রিফিংয়ের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে জানানো হয়, ওয়ালমার্টের ভেতর বন্দুক হামলার খবর পেয়ে মঙ্গলবার রাত ১০টা ১২ মিনিটে ঘটনাস্থলে ছুটে যান পুলিশ সদস্যরা।

গুলিতে প্রাণহানির প্রকৃত সংখ্যা না জানিয়ে কসিনস্কি বলেন, এ ঘটনায় ১০ জনের কম নিহত হয়েছে।

ওয়ালমার্টে হামলাকারীর পরিচয় শনাক্ত করা যায়নি। তিনি নিজের ছোড়া গুলির আঘাতে নিহত হয়েছেন কি না, তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

কসিনস্কি বলেন, তার জানা মতে, পুলিশকে লক্ষ্য করে কোনো গুলি ছোড়া হয়নি।

চেসাপিক সিটির পক্ষ থেকে বলা হয়, ‘স্যাম’স চত্বরে ওয়ালমার্টে বন্দুক হামলার একটি ঘটনা নিশ্চিত করেছে চেসাপিক পুলিশ যাতে প্রাণহানি হয়েছে। বন্দুকধারী মারা গেছে।’

ওয়ালমার্টের পক্ষ থেকে মঙ্গলবার গভীর রাতে বিবৃতিতে বলা হয়, চেসাপিক স্টোরে বন্দুক হামলার ঘটনায় প্রতিষ্ঠানটি শোকাহত।

প্রতিষ্ঠানটি আরও জানায়, তারা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে নিবিড়ভাবে কাজ করছে।

আরও পড়ুন:
নিম্নকক্ষে জয়ের পথে রিপাবলিকানরা, সিনেটে হাড্ডাহাড্ডি
হাউসে এগিয়ে রিপাবলিকানরা, সিনেটে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই
বাইডেন-ট্রাম্পের ভবিষ্যৎ নির্ধারণী নির্বাচন শুরু
যুক্তরাষ্ট্রে বাড়ছে নির্বাচনী সহিংসতার ভয়
যুক্তরাষ্ট্রে মধ্যবর্তী নির্বাচনের গুরুত্ব যেখানে

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
The president of Argentina was forbidden to take pressure and went to full rest

আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্টের চাপ নেয়া নিষেধ

আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্টের চাপ নেয়া নিষেধ আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট আলবার্তো ফার্নান্দেজ। ছবি: সংগৃহীত
বিবৃতিতে বলা হয়, তাকে চাপ নিতে নিষেধ করা হয়েছে। থাকতে বলা হয়েছে পূর্ণ বিশ্রামে। এখনই না করে বরং ধীরে ধীরে দাপ্তরিক কাজ শুরু করতে বলা হয়েছে।

আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট আলবার্তো ফার্নান্দেজকে চাপ নিতে নিষেধ করা হয়েছে, একই সঙ্গে পূর্ণ বিশ্রামে থাকতে বলা হয়েছে তাকে।

অবশ্য এ ঘটনার সঙ্গে মঙ্গলবার কাতারে হওয়া ফিফা বিশ্বকাপে সৌদি আরবের বিপক্ষে তার দেশের পরাজয়ের কোনো সম্পর্ক নেই। স্বাস্থ্যগত কারণেই চিকিৎসক তাকে ওই সব পরামর্শ দিয়েছেন।

ইন্দোনেশিয়ার বালিতে সম্প্রতি জি-২০ সম্মেলনে যোগ দেন প্রেসিডেন্ট ফার্নান্দেজ। ওই সময়ই শারীরিকভাবে অসুস্থ বোধ করেন তিনি। অসুস্থ হওয়ার পর তিনি আর কোনো বৈঠকে যোগ দেননি।

প্রেসিডেন্টের স্বাস্থ্যের দায়িত্বে থাকা মেডিক্যাল ইউনিট এক বিবৃতিতে বলেছে, ফার্নান্দেজের এন্ডোস্কোপিক পরীক্ষা করা হয়েছে। শরীরে কোনো ক্ষত পাওয়া যায়নি।

রোববারের ওই বিবৃতিতে আরও বলা হয়, তাকে চাপ নিতে নিষেধ করা হয়েছে। থাকতে বলা হয়েছে পূর্ণ বিশ্রামে। এখনই না করে বরং ধীরে ধীরে দাপ্তরিক কাজ শুরু করতে বলা হয়েছে।

এমন একসময় ফার্নান্দেজকে চিকিৎসক ‘শান্ত’ থাকতে পরামর্শ দেন, যখন বেশ ‘অশান্ত’ হওয়ার কারণ সামনে ছিল তার। কারণ এর এক দিন পরই এবারের বিশ্বকাপে প্রথমবারের মতো মাঠে নামে আর্জেন্টিনা।

প্রেসিডেন্ট ফার্নান্দেজ ভুগছেন গ্যাস্ট্রাইটিসে। এই রোগ সংক্রামক ডায়রিয়া নামেও পরিচিত। চিকিৎসাবিজ্ঞানের মতে, এতে পাকস্থলী এবং ক্ষুদ্রান্ত্রের প্রদাহ হয়। বমি, পেটে ব্যথা জ্বর, শক্তির অভাব এবং পানিশূন্যতা ঘটতে পারে এই রোগে।

পেনাল্টির গোলে লিওনেল মেসি শুরুটা ভালো করলেও কাতারের মাঠে শেষ পর্যন্ত জয়ী হতে পারেনি আর্জেন্টিনা। ২-১ গোলে মাঠ ছাড়তে হয়েছে তাদের।

এ অবস্থায় প্রেসিডেন্টের মনোবেদনা নিয়ে অনুমান করা যায় সহজেই। তবে শরীরের সর্বশেষ অবস্থা নিয়ে অবশ্য এরপর আর কোনো আপডেট দেয়নি দেশটির সংবাদমাধ্যমগুলো।

আরও পড়ুন:
আর্জেন্টিনাকে সমর্থন করা রিস্ক: মাশরাফি
ফুটবল জ্বরে কাঁপছে সৌদি, বুধবার সরকারি ছুটি
হারের অজুহাত দিতে চান না মেসি

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Trump has to submit tax returns

ট্যাক্স রিটার্ন জমা দিতে হচ্ছে ট্রাম্পকে

ট্যাক্স রিটার্ন জমা দিতে হচ্ছে ট্রাম্পকে যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প। ফাইল ছবি
স্থানীয় সময় মঙ্গলবার সর্বোচ্চ আদালতের রায়ের মধ্য দিয়ে ডনাল্ড ট্রাম্পের ট্যাক্স রিটার্ন সংক্রান্ত নথি পাওয়ার বাধা কাটল। একে রিপাবলিকান পার্টি থেকে নির্বাচিত সাবেক প্রেসিডেন্টের পরাজয় হিসেবে দেখা হচ্ছে, যিনি ডেমোক্রেটিক পার্টির নেতৃত্বাধীন কমিটির ট্যাক্স রিটার্ন জমার অনুরোধকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত আখ্যা দিয়েছিলেন।

যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভসের কমিটির কাছে ট্যাক্স রিটার্ন জমা দিতে দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পকে দেয়া বিচারিক আদালতের আদেশ বহাল রেখেছে আমেরিকার সুপ্রিম কোর্ট।

স্থানীয় সময় মঙ্গলবার সর্বোচ্চ আদালতের এ রায়ের মধ্য দিয়ে ট্রাম্পের ট্যাক্স রিটার্ন সংক্রান্ত নথি পাওয়ার বাধা কাটল।

একে রিপাবলিকান পার্টি থেকে নির্বাচিত সাবেক প্রেসিডেন্টের পরাজয় হিসেবে দেখা হচ্ছে, যিনি ডেমোক্রেটিক পার্টির নেতৃত্বাধীন কমিটির ট্যাক্স রিটার্ন জমার অনুরোধকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত আখ্যা দিয়েছিলেন।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে বলা হয়, ট্রাম্পের ট্যাক্স রিটার্ন সংক্রান্ত নথি প্রকাশের অনুরোধ করেছিল কংগ্রেসের নিম্নকক্ষের করসংক্রান্ত ওয়েস অ্যান্ড মিন্স কমিটি। এর পরিপ্রেক্ষিতে বিচারিক আদালত নথি জমার নির্দেশ দিয়েছিল।

ওই নির্দেশের বিরুদ্ধে গত ৩১ অক্টোবর জরুরি আবেদন করেন ট্রাম্প। সে আবেদন নাকচ করে বিচারিক আদালতের রায় বহাল রাখে সুপ্রিম কোর্ট।

ওয়েস অ্যান্ড মিন্স কমিটি ২০১৫ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত ছয় বছরে ট্রাম্পের ট্যাক্স রিটার্নের তথ্য চেয়েছে। মধ্যবর্তী নির্বাচনে জয়ী হয়ে কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ রিপাবলিকানদের নিয়ন্ত্রণে যাওয়ার আগে ট্যাক্স রিটার্ন সংক্রান্ত কাজ সম্পন্নে খুবই অল্প সময় পাবে ডেমোক্র্যাটদের এ কমিটি।

গত ৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিত মধ্যবর্তী নির্বাচনে সামান্য ব্যবধানে এগিয়ে কংগ্রেসের নিম্নকক্ষে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায় রিপাবলিকানরা। দলটি জানুয়ারিতে নিম্নকক্ষ ও কমিটির নিয়ন্ত্রণ হাতে পাবে।

আরও পড়ুন:
প্লে স্টোরে ট্রাম্পের ট্রুথ সোশ্যাল
সিএনএনের বিরুদ্ধে আবারও মামলা ঠুকলেন ট্রাম্প
মোদি দুর্দান্ত ও ভালো মানুষ: ট্রাম্প
বাইডেন দেশের শত্রু: ট্রাম্প
ট্রাম্প সমর্থকরা গণতন্ত্রের জন্য হুমকি: বাইডেন

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
5 killed in gay nightclub shooting in America

আমেরিকায় সমকামী নাইট ক্লাবে গুলি, নিহত ৫

আমেরিকায় সমকামী নাইট ক্লাবে গুলি, নিহত ৫ কলোরাডো স্প্রিংস শহরের একটি সমকামী নাইট ক্লাবে বন্দুক হামলা হয়। ছবি: সংগৃহীত
গুলিতে ১৮ জন আহত হয়েছে বলে জানিয়েছে কলোরাডো রাজ্য পুলিশ। তবে তারা হামলার উদ্দেশ্য সম্পর্কে কোনো তথ্য দেয়নি।

যুক্তরাষ্ট্রের কলোরাডো রাজ্যের কলোরাডো স্প্রিংস শহরের একটি সমকামী নাইট ক্লাবে বন্দুক হামলা হয়েছে। এতে অন্তত ৫ জন নিহত এবং ১৮ জন আহত হয়েছেন।

কলোরাডো স্প্রিংসের পুলিশ কর্মকর্তা পামেলা কাস্ত্রো এ খবর নিশ্চিত করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘শনিবার রাত ১২টার দিকে ফোনকলে হামলার বিষয়ে জানতে পারি। আমাদের বলা হয়, ক্লাব কিউতে ভয়াবহ গোলাগুলি হয়েছে।

‘সন্দেহভাজন এক ব্যক্তিকে হেফাজতে নিয়েছে পুলিশ। তার চিকিৎসা চলছে।’

আমেরিকায় সমকামী নাইট ক্লাবে গুলি, নিহত ৫

ক্লাব কিউ তাদের ফেসবুকে পেজে বিবৃতি জানায়, ‍"আমাদের সম্প্রদায়ের (সমকামী) ওপর বেপরোয়া হামলা হয়েছে।

"ভুক্তভোগী এবং তাদের পরিবার সঙ্গে আমাদের প্রার্থনা এবং চিন্তাভাবনা রয়েছে। দ্রুত প্রতিক্রিয়ার জন্য বীর গ্রাহকদের ধন্যবাদ জানাই। তারাই বন্দুকধারীকে আটকে ‘ঘৃণামূলক’ হামলার অবসান ঘটিয়েছেন।"

হামলার উদ্দেশ্য সম্পর্কে পুলিশ এখনও তথ্য দিতে পারেনি। পরে এ বিষয়ে তারা বিস্তারিত জানাবেন।

যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় একটি সমকামী নাইট ক্লাবে ২০১৬ সালে ভয়াবহ হামলা হয়েছিল। এতে আততায়ীসহ ৫০ জন নিহত হয়েছিলেন, আহত হন কমপক্ষে ৫৩ জন। এই হামলাকে আমেরিকার ইতিহাসে সবচেয়ে ভয়াবহ ‘গণ-গুলিবর্ষণ’ বলে অ্যাখ্যা দেয় দেশটির সরকার।

আরও পড়ুন:
কিউবায় বৈধতা পেল সমলিঙ্গের বিয়ে
লাগেজবোঝাই খাবার, আমেরিকার বিমানবন্দরে ধরা বাংলাদেশি দম্পতি
আমেরিকায় খাদ্য-জ্বালানির জন্য বাড়তি কাজে ঝুঁকছেন শ্রমজীবীরা
বিশ্বকাপ খেলা নিয়ে সংশয় নেই দে পলের
রাশিয়ার কৃষি ও চিকিৎসাপণ্যে নিষেধাজ্ঞা নেই: যুক্তরাষ্ট্র

মন্তব্য

p
উপরে