× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

আন্তর্জাতিক
Putin silent on nuclear holocaust question
google_news print-icon

পারমাণবিক ধ্বংসযজ্ঞ প্রশ্নে নীরব পুতিন

পুতিন
ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
চার বছর আগে পুতিন বলেছিলেন, পরমাণু অস্ত্রের কারণে যদি পৃথিবী ধ্বংস হয়ে যায় তবে রাশিয়ান ভুক্তভোগীরা সবাই স্বর্গে যাবে। বৃহস্পতিবার ওই মন্তব্যের বিষয়ে জানতে চাইলে অন্যমনস্ক হয়ে যান রুশ প্রেসিডেন্ট।

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের আট মাস চলছে। রুশ বাহিনীর তীব্র হামলায় একের পর এক ইউক্রেনীয় শহর ধ্বংসস্তুপে পরিণত হচ্ছে। পশ্চিমের সহায়তায় কিয়েভও বিভিন্ন জায়গায় শক্ত প্রতিরোধ গড়ে তুলছে। এসবের মধ্যেই পূর্ব ইউক্রেনের চারটি বিদ্রোহী অধ্যুষিত অঞ্চল ‘গণভোটের’ মাধ্যমে নিজেদের মানচিত্রে অন্তর্ভূক্ত করে নিয়েছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

২৪ ফেব্রুয়ারি যুদ্ধ শুরুর পর থেকেই পরমাণু অস্ত্রের ব্যবহার নিয়ে উদ্বেগ জানিয়েছিলেন অনেক রাজনৈতিক বিশ্লেষক। ইউক্রেনে অভিযান শুরুর কদিন বাদেই কৌশলগত পারমাণবিক শক্তির মাত্রা বাড়ানোর আদেশ দিয়ে পুতিন সেই আশঙ্কাকে আরও উসকে দেন।

পশ্চিমা গোয়ান্দারা সম্প্রতি দাবি করছে, ইউক্রেনে কৌশলগত পরমাণু অস্ত্র ব্যবহার করতে পারে মস্কো। এমন প্রেক্ষাপটে গত বুধবার পরমাণু অস্ত্রের মহড়া চালায় রাশিয়া। আর এই মহড়া তদারকি করেন খোদ ভ্লাদিমির পুতিন।

রুশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগু জানান, শত্রুর পারমাণবিক হামলার প্রতিক্রিয়া জানাতে রুশ বাহিনীর প্রস্তুতির এই মহড়া।

যুদ্ধের এই সময়ে রাশিয়ার পরমাণু অস্ত্রের মহড়া বিশ্বকে নতুন ভাবনায় ফেলে দিয়েছে। অনেকেই আশঙ্কা করছেন, এবার বুঝি ইউক্রেনে পরমাণু অস্ত্র ফেলবেন পুতিন। বিষয়টি নিয়ে রুশ মিডিয়ায়ও গুঞ্জন চলছে।

রাশিয়ার রাজধানীতে বৃহস্পতিবার মস্কোভিত্তিক থিঙ্কট্যাঙ্ক ভালদাই ডিসকাশন ক্লাবের একটি আয়োজনে উপস্থিত ছিলেন পুতিন। প্রেসিডেন্টকে কাছে পেয়ে চার বছর আগে তার করা একটি মন্তব্য নিয়ে ‘রসিকতা’ করেন ক্লাবের মডারেটর ফিওদর লুকিয়ানভ।

পুতিনকে তিনি বলেন, পরমাণু ইস্যুতে ২০১৮ সালে আপনার করা একটি মন্তব্য মনে পড়ায় আমরা সবাই দুশ্চিন্তায় পড়ে গেছি।

চার বছর আগে পুতিন বলেছিলেন, পরমাণু অস্ত্রের কারণে যদি পৃথিবী ধ্বংস হয়ে যায় তবে রাশিয়ান ভুক্তভোগীরা সবাই স্বর্গে যাবে।

মডারেটর ফিওদর বলেন, ‘আমরা সেখানে পৌঁছানোর জন্য তাড়াহুড়ো করছি না, করছি কি?

এমন প্রশ্নের জন্য হয়ত প্রস্তুত ছিলেন না পুতিন। শুরুতে তাই খানিকটা অন্যমনস্কের ভান ধরেন তিনি।

কয়েক সেকেন্ড চুপ ছিলেন পুতিন। এ সময় উপস্থিত কয়েকজন হেসে উঠেন। মডারেটর নীরবতা ভেঙে বলেন, ‘আপনি চিন্তায় মগ্ন হওয়ায় বিষয়টি এখন আরও উদ্বেগজনক হয়ে উঠছে।’

প্রেসিডেন্ট পুতিন তখন হেসে বলেন, ‘আপনাকে সতর্ক করতে ইচ্ছা করেই চিন্তায় হারিয়ে গিয়েছিলাম। এতে মনে হয় কাজ হয়েছে।’

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পুতিনকে ২০১৮ সালে পারমাণবিক যুদ্ধের সম্ভাবনা সম্পর্কে প্রশ্ন করা হয়েছিল। জবাবে তিনি বলেছিলেন, মস্কো কখনই আগে থেকে পারমাণবিক হামলা চালাবে না। আক্রান্ত হলেই কেবল হামলা চালাব।

‘আমরা তখনই পারমাণবিক ওয়ারহেডগুলোকে প্রস্তুত করব, যখন কোনো আগ্রাসী রাষ্ট্র আমাদের ভূখণ্ড লক্ষ্য করে মিসাইল উৎক্ষেপণ করবে।

‘হামলাকারীদের এটা জানা জরুরি যে প্রতিশোধ অনিবার্য এবং আমরা আগ্রাসী হলে তারা ধ্বংস হয়ে যাবে। অন্যদিকে আগ্রাসনের শিকার হলে শহীদ হিসেবে স্বর্গে যাবে রাশিয়ানরা; যখন অন্যরা কেবল মারা পড়বে। তারা অনুতাপ করার সুযোগও পাবে না।’

আরও পড়ুন:
রাষ্ট্রদ্রোহের দায়ে ‘হিরো অফ ইউক্রেন’ আটক
বিশ্বকে রাশিয়ার ওপর হামলার আহ্বান জেলেনস্কির
যুক্তরাষ্ট্র ও রুশ প্রতিরক্ষামন্ত্রীর ফের ফোনালাপ
‘ইউক্রেনে রুশ অভিযানে ইরানি সেনা’
রুশ মিসাইলে ব্রিটেনের গোয়েন্দা টহল বন্ধ

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
15 killed in Russia synagogue shooting

রাশিয়ায় সিনাগগ গির্জায় বন্দুক হামলা, নিহত ১৫

রাশিয়ায় সিনাগগ গির্জায় বন্দুক হামলা, নিহত ১৫ রাশিয়ার দাগেস্তানে রোববার হামলার শিকার একটি অঞ্চল সিলগালা করে দেয় পুলিশ। ছবি: এএফপি
সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে আল জাজিরার প্রতিবেদনে জানানো হয়, হামলায় নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে পুলিশ সদস্য ও ন্যাশনাল গার্ড কর্মকর্তা, কয়েকজন বেসামরিক নাগরিক এবং একজন অর্থোডক্স পাদ্রী রয়েছেন।

রাশিয়ার উত্তর ককেশাস অঞ্চলের দাগেস্তানে রোববার কয়েকটি গির্জা, একটি সিনাগগ (ইহুদিদের প্রার্থনাস্থল) ও এক পুলিশ চেকপয়েন্টে বন্দুকধারীদের হামলায় কমপক্ষে ১৫ জন নিহত হয়েছেন।

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে আল জাজিরার প্রতিবেদনে জানানো হয়, হামলায় নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে পুলিশ সদস্য ও ন্যাশনাল গার্ড কর্মকর্তা, কয়েকজন বেসামরিক নাগরিক এবং একজন অর্থোডক্স পাদ্রী রয়েছেন।

সংবাদমাধ্যমটি আরও জানায়, দাগেস্তানের দেরবেন্ত ও মাখাচকালা শহরে চালানো এসব হামলায় আহত হন কমপক্ষে ১২ জন।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিও ও টেলিভিশনের ফুটেজে দেখা যায়, মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেরবেন্তে হামলার পর আগুন ধরে যাওয়া সিনাগগ থেকে উড়ছে ধোঁয়া। এ অঞ্চলে বসবাস প্রাচীন ইহুদি সম্প্রদায়ের।

দাগেস্তানের রাজধানী ও বৃহত্তম শহর মাখাচকালাতে উপাসনালয়ে হামলা হয়েছে, যেখানে পুলিশ চৌকিতেও আক্রমণ হয়।

রাশিয়ার তদন্ত কমিটি বলেছে, দাগেস্তানে ‘সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের’ বিষয়ে অপরাধবিষয়ক তদন্ত শুরু হয়েছে। চেচনিয়া সীমান্তবর্তী দাগেস্তান রাশিয়ার অন্যতম দরিদ্রতম অঞ্চল।

দেশটির জাতীয় সন্ত্রাসবিরোধী কমিটির পক্ষ থেকে বলা হয়, রোববার সন্ধ্যায় দেরবেন্ত ও মাখাচকালায় দুটি অর্থোডক্স গির্জা, একটি সিনাগগ ও একটি ‍পুলিশ চেকপয়েন্টে সশস্ত্র হামলা হয়েছে। প্রাথমিক তথ্য অনুযায়ী, হামলায় রুশ অর্থোডক্স গির্জার একজন পাদ্রী ও কয়েকজন পুলিশ কর্মকর্তা নিহত হয়েছেন।

রুশ অর্থোডক্স গির্জার দাবি, তাদের আর্চপ্রিস্ট নিকোলাই কোতেলনিকভকে বর্বরোচিতভাবে হত্যা করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
নিরাপত্তা উদ্বেগ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আলোচনায় রাজি রাশিয়া: ক্রেমলিন
পাবনায় সংবাদ সংগ্রহের পথে সাংবাদিকের ওপর হামলা
প্রতিরক্ষা সম্পর্ক জোরদার করতে উত্তর কোরিয়ায় পুতিন
যুদ্ধে রাশিয়াকে সহায়তার ফল ভোগ করতে হবে চীনকে: নেটো প্রধান
রাশিয়ার জব্দকৃত সম্পত্তিকেন্দ্রিক জি৭ চুক্তি, ‘চুরি’ বললেন পুতিন

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Putin said the G7 agreement centered on Russias seized assets was stolen

রাশিয়ার জব্দকৃত সম্পত্তিকেন্দ্রিক জি৭ চুক্তি, ‘চুরি’ বললেন পুতিন

রাশিয়ার জব্দকৃত সম্পত্তিকেন্দ্রিক জি৭ চুক্তি, ‘চুরি’ বললেন পুতিন রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে স্থানীয় সময় শুক্রবার বৈঠকের সময় বক্তব্য দেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। ছবি: ম্যাক্সিম শেমেতভ/রয়টার্স
পুতিন বলেন, জব্দকৃত সম্পত্তি কাজে লাগানোর জন্য আইনি ভিত্তি দাঁড় করাতে চাইছেন পশ্চিমা দেশগুলোর নেতারা, কিন্তু সব ধরনের চাতুরির পরও চুরি চুরিই এবং সে জন্য তাদের শাস্তি পেতেই হবে।

রাশিয়ার জব্দকৃত সম্পত্তি থেকে ইউক্রেনকে ঋণ সহায়তা দিতে পশ্চিমা দেশগুলো যে চুক্তি করেছে, তার নিন্দা জানিয়ে বদলা নেয়ার অঙ্গীকার করেছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

স্থানীয় সময় শুক্রবার রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে পুতিন এ অভিব্যক্তি প্রকাশ করেন বলে জানায় আল জাজিরা।

পুতিন বলেন, জব্দকৃত সম্পত্তি কাজে লাগানোর জন্য আইনি ভিত্তি দাঁড় করাতে চাইছেন পশ্চিমা দেশগুলোর নেতারা, কিন্তু সব ধরনের চাতুরির পরও চুরি চুরিই এবং সে জন্য তাদের শাস্তি পেতেই হবে।

তিনি বলেন, পশ্চিমারা মস্কোর সঙ্গে যে আচরণ করেছে, তা থেকে বোঝা যাচ্ছে, যে কেউ পরবর্তী লক্ষ্যবস্তু হতে পারে।

পুতিনের ওই বক্তব্যের আগে ইতালিতে গ্রুপ অফ সেভেনের (জি৭) সম্মেলনে বিদেশে থাকা রাশিয়ার জব্দকৃত সম্পত্তি থেকে ইউক্রেনের জন্য ৫০ বিলিয়ন ডলারের ঋণ সহায়তা চুক্তিতে সম্মত হয় জোটের সদস্য দেশগুলো।

এ ঋণের মাধ্যমে ইউক্রেনকে অস্ত্র কেনা ও ধ্বংস হওয়া অবকাঠামো পুনর্নির্মাণে সহায়তা করতে চায় পশ্চিমা দেশগুলো।

কানাডা, ফ্রান্স, জার্মানি, ইতালি, জাপান, যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্রকে গঠিত জোট জি৭। এ জোটের সব আলোচনায় অংশ নেয় ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)।

ইতালির আপুলিয়াতে জি৭ বার্ষিক সম্মেলনে ঋণচুক্তির ঘোষণার পর যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেন, জব্দকৃত সম্পত্তির ওপর ভিত্তি করে চুক্তিটি গুরুত্বপূর্ণ ফলাফল এবং এটি পুতিনকে আরেকবার স্মরণ করিয়ে দিল যে, ইউক্রেনের মিত্ররা নতি স্বীকার করছে না।

ওই চুক্তির বিস্তারিত আসন্ন সপ্তাহগুলোতে চূড়ান্ত হবে বলে আশা করা হচ্ছে। চলতি বছরের শেষ নাগাদ ঋণের অর্থ ইউক্রেন পেতে শুরু করবে বলে আশা করা হচ্ছে।

এদিকে রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মারিয়া জাখারোভা শুক্রবার চুক্তিকে নাকচ করে বলেন, এটি কয়েক টুকরা কাগজ মাত্র।

আরও পড়ুন:
ইউক্রেনকে ৫ হাজার কোটি ডলার দেবে জি-৭
সফরের দ্বিতীয় দিনে চীনের ‘লিটল মস্কোতে’ পুতিন
চীন-রাশিয়ার ‘কষ্টার্জিত’ সম্পর্কের লালনপালন চান শি
ইউক্রেন সংকট নিরসনে চীনের পরিকল্পনায় সমর্থন পুতিনের
অর্থনীতিবিদ বেলাউসভকে প্রতিরক্ষামন্ত্রী বানাচ্ছেন পুতিন

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
The Prime Minister of Denmark was hit hard while walking on the road

সড়কে হাঁটার সময় ডেনমার্কের প্রধানমন্ত্রীকে সজোরে ধাক্কা

সড়কে হাঁটার সময় ডেনমার্কের প্রধানমন্ত্রীকে সজোরে ধাক্কা মেটে ফ্রেডেরিকসেন। ছবি: রয়টার্স
দুইজন প্রত্যক্ষদর্শী মারি আদ্রিয়ান এবং আনা রাভন স্থানীয় সংবাদপত্র বিটি-তে হামলার বর্ণনা দিয়ে বলেছেন, ‘এক ব্যক্তি বিপরীত দিক দিয়ে এসে ফ্রেডেরিকসেনের কাঁধে জোরে একটি ধাক্কা দেন, যার ফলে তিনি পাশে পড়ে যান।’

ডেনমার্কের প্রধানমন্ত্রী মেটে ফ্রেডেরিকসেনের ওপর হামলা হয়েছে।

রাজধানী কোপেনহেগেনের কেন্দ্রে সড়কে হাঁটার সময় স্থানীয় সময় শুক্রবার এক ব্যক্তির তাকে আঘাত করে বলে জানায় ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

বিবিসির শনিবারের প্রতিবেদনে বলা হয়, হামলাকারীকে দ্রুত গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ, তবে তার সম্পর্কে বিস্তারিত কোনো তথ্য পাওয়ায় যায়নি।

দুইজন প্রত্যক্ষদর্শী মারি আদ্রিয়ান এবং আনা রাভন স্থানীয় সংবাদপত্র বিটি-তে হামলার বর্ণনা দিয়ে বলেছেন, ‘এক ব্যক্তি বিপরীত দিক দিয়ে এসে ফ্রেডেরিকসেনের কাঁধে সজোরে একটি ধাক্কা দেন, যার ফলে তিনি পাশে পড়ে যান।’

তারা জানান, ধাক্কাটি বেশ জোরালো হলেও তিনি মাটিতে পড়ে যাননি, কিন্তু কিছুটা অসুস্থবোধ করায় কাছাকাছি একটি ক্যাফেতে বসেছিলেন।

বন্দুকধারীর হামলায় স্লোভাকিয়ার প্রধানমন্ত্রী রবার্ট ফিকো গুলিবিদ্ধ হওয়ার এক মাসের মধ্যে এ হামলা হলো।

ডেনমার্কের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় সূত্র জানায়, হামলার পর ফ্রেডেরিকসেনকে নিরাপত্তার মাধ্যমে সরিয়ে নিয়ে হয়। ঘটনাটি প্রধানমন্ত্রীকে মর্মাহত করেছে।

ইইউ নির্বাচনে ডেনমার্কের ভোটের দুই দিন আগে এ হামলার ঘটনা ঘটে।

৪৬ বছর বয়সী মিস ফ্রেডেরিকসেন মধ্য-বামপন্থি সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটদের নেতা হিসাবে দায়িত্ব নেয়ার পরে ২০১৯ সালে প্রধানমন্ত্রী হন। তিনি ড্যানিশের ইতিহাসে সর্বকনিষ্ঠ প্রধানমন্ত্রী।

আরও পড়ুন:
কক্সবাজারে ডেনমার্কের রাজকুমারী
বাংলাদেশ-ডেনমার্ক গ্রিন ফ্রেমওয়ার্ক চুক্তি
ডেনমার্কের রাজকুমারী ঢাকায়
রাজকুমারী যাবেন সুন্দরবন, সাধারণের প্রবেশ নিষেধ
যে কারণে সাতক্ষীরা যাচ্ছেন ডেনমার্কের রাজকুমারী

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Xi wants to nurture the hard earned relationship between China and Russia

চীন-রাশিয়ার ‘কষ্টার্জিত’ সম্পর্কের লালনপালন চান শি

চীন-রাশিয়ার ‘কষ্টার্জিত’ সম্পর্কের লালনপালন চান শি চীনের বেইজিংয়ে বৃহস্পতিবার দুই দিনের সফরে আসা রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন পূর্ব এশিয়ার দেশটির প্রেসিডেন্ট শি চিনপিং। ছবি: রয়টার্স
‘চীন-রাশিয়ার বর্তমান সম্পর্ক কষ্টার্জিত এবং দুই পক্ষেরই দরকার এর যত্ন ও লালনপালন’, পুতিনকে বলেন শি।

চীন ও রাশিয়ার সম্পর্ক কষ্টে অর্জিত উল্লেখ করে পূর্ব এশিয়ার দেশটির প্রেসিডেন্ট শি চিনপিং বৃহস্পতিবার বলেছেন, উভয় পক্ষেরই উচিত সম্পর্কের লালনপালন করা।

দুই দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে আজ চীনে আসা রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের উদ্দেশে এ কথা বলেন তিনি।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, সফরে ইউক্রেন সংকট, এশিয়া, জ্বালানি ও বাণিজ্যের মতো বিষয় নিয়ে শির সঙ্গে বিশদ আলোচনার কথা আছে পুতিনের। প্রথম দিনের শুরুতে দুই নেতা মিলিত হন বেইজিংয়ের গ্রেট হল অফ দ্য পিপলে।

‘চীন-রাশিয়ার বর্তমান সম্পর্ক কষ্টার্জিত এবং দুই পক্ষেরই দরকার এর যত্ন ও লালনপালন’, পুতিনকে বলেন শি।

‘যৌথভাবে দুই দেশের উন্নয়ন ও পুনরুজ্জীবনের পাশাপাশি বিশ্বে ন্যায্যতা ও সুবিচার সমুন্নত রাখতে একসঙ্গে কাজ করতে ইচ্ছুক চীন’, যোগ করেন তিনি।

ইউক্রেনে ২০২২ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি বিশেষ সামরিক অভিযান শুরুর কয়েক দিন আগে বেইজিংয়ে সফরে যান পুতিন। ওই সময় চীন ও রাশিয়া ‘সীমাহীন’ অংশীদারত্বের ঘোষণা দেয়।

সম্প্রতি ছয় বছরের জন্য প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর প্রথম বিদেশ সফরে চীনে এলেন পুতিন। এর মধ্য দিয়ে নিজের অগ্রাধিকার ও শির সঙ্গে জোরালো সম্পর্কের বিষয়ে বিশ্বকে বার্তা দিলেন রুশ প্রেসিডেন্ট।

আরও পড়ুন:
ইউক্রেন সংকট নিরসনে চীনের পরিকল্পনায় সমর্থন পুতিনের
অর্থনীতিবিদ বেলাউসভকে প্রতিরক্ষামন্ত্রী বানাচ্ছেন পুতিন
মহাকাশে পরমাণু অস্ত্র নিষিদ্ধের প্রস্তাবে রাশিয়ার ভেটো
নিরাপত্তা সহযোগিতা জোরদারে ইরান-রাশিয়া সমঝোতা
ইউক্রেন যুদ্ধে ৫০ হাজারের বেশি রুশ সেনা নিহত

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
There is no fear of loss of life of the injured Slovak Prime Minister
মন্ত্রীর ভাষ্য

জীবনঝুঁকি নেই গুলিতে আহত স্লোভাকিয়ার প্রধানমন্ত্রীর

জীবনঝুঁকি নেই গুলিতে আহত স্লোভাকিয়ার প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বৈঠকের পর বুধবার গুলিতে আহত হওয়া স্লোভাকিয়ার প্রধানমন্ত্রী রবার্ট ফিকোকে একটি গাড়িতে করে নিরাপদে সরিয়ে নেন নিরাপত্তা কর্মকর্তারা। ছবি: রয়টার্স
‘আমি খুবই মর্মাহত…সৌভাগ্যবশত আমি যতদূর জেনেছি, অস্ত্রোপচার সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে এবং আমার ধারণা শেষ পর্যন্ত তিনি বেঁচে যাবেন…এ মুহূর্তে জীবনঝুঁকি নেই তার’, বিবিসির নিউজআওয়ারকে বলেন স্লোভাকিয়ার উপপ্রধানমন্ত্রী ও পরিবেশমন্ত্রী টমাস তারাবা।

বন্দুকধারীর গুলিতে আহত স্লোভাকিয়ার প্রধানমন্ত্রী রবার্ট ফিকোর জীবনঝুঁকি নেই বলে দাবি করেছেন দেশটির এক মন্ত্রী।

স্থানীয় সময় বুধবার সরকারি এক বৈঠকের পর গুলিতে গুরুতর আহত হন ফিকো, যেটি ছিল গুপ্তহত্যার চেষ্টা।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে জানানো হয়, ৫৯ বছর বয়সী ফিকোকে পাঁচবার গুলি করে গুরুতর আহত করেন বন্দুকধারী। বুধবার সন্ধ্যায় অস্ত্রোপচার হয় স্লোভাকিয়ার প্রধানমন্ত্রীর।

‘আমি খুবই মর্মাহত…সৌভাগ্যবশত আমি যতদূর জেনেছি, অস্ত্রোপচার সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে এবং আমার ধারণা শেষ পর্যন্ত তিনি বেঁচে যাবেন…এ মুহূর্তে জীবনঝুঁকি নেই তার’, বিবিসির নিউজআওয়ারকে বলেন স্লোভাকিয়ার উপপ্রধানমন্ত্রী ও পরিবেশমন্ত্রী টমাস তারাবা।

তিনি জানান, বন্দুকধারীর একটি গুলি ফিকোর পাকস্থলি ভেদ করে। আরেকটি গুলি তার গ্রন্থিতে আঘাত হানে।

অ্যাকচুয়ালিটি ডট এসকে নামের একটি সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়, ফিকোর অস্ত্রোপচার সম্পন্ন হয়েছে এবং তার অবস্থা স্থিতিশীল।

এর আগে স্লোভাকিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রী রবার্ট কালিনাক এক ব্রিফিংয়ে বলেন, কয়েকটি গুলির আঘাতে মারাত্মক আহত হন ফিকো।

তারও আগে দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মাতুস সুতাজ এস্তক জানান, প্রাণহানির শঙ্কায় আছেন ফিকো, যিনি অপারেশন থিয়েটারে রয়েছেন।

আরও পড়ুন:
স্লোভাকিয়ার প্রধানমন্ত্রী গুলিবিদ্ধ, অবস্থা আশঙ্কাজনক

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Putin supports Chinas plan to resolve the Ukraine crisis

ইউক্রেন সংকট নিরসনে চীনের পরিকল্পনায় সমর্থন পুতিনের

ইউক্রেন সংকট নিরসনে চীনের পরিকল্পনায় সমর্থন পুতিনের চীনের বেইজিংয়ে ২০২৩ সালের ১৭ অক্টোবর বেইজিং ফোরামে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকে স্বাগত জানান চীনা প্রেসিডেন্ট শি চিনপিং। ছবি: স্পুৎনিক
চীনের পরিকল্পনায় রাশিয়ার সমর্থনের বিষয়ে দেশটির প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘ইউক্রেন সংকট নিরসনে চীনের দৃষ্টিভঙ্গির বিষয়ে আমাদের মূল্যায়ন ইতিবাচক।’

ইউক্রেন সংকটের শান্তিপূর্ণ সমাধানে চীনের পরিকল্পনায় রাশিয়ার সমর্থন আছে জানিয়ে দেশটির প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন, সমস্যার নেপথ্যের কারণ নিয়ে পরিপূর্ণ বোঝাপড়া আছে বেইজিংয়ের।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, এক সাক্ষাৎকারে পুতিন তার এ অবস্থানের কথা জানান, যেটি প্রকাশ হয় বুধবারের প্রথম প্রহরে।

এ সপ্তাহেই রাষ্ট্রীয় সফরে বেইজিংয়ে যাচ্ছেন পুতিন। এর আগে চীনের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা শিনহুয়াকে দেয়া ওই সাক্ষাৎকারে রুশ প্রেসিডেন্ট বলেন, ইউক্রেনে দুই বছরের বেশি সময় ধরে চলা যুদ্ধ বন্ধে সংলাপ ও আলোচনার বিষয়ে উন্মুক্ত অবস্থানে আছে রাশিয়া।

তিনি বলেন, গত মাসে চীনের প্রেসিডেন্ট শি চিনপিং প্রকাশিত চীনা পরিকল্পনা ও পরবর্তী নীতিমালাগুলোতে সংঘাতের পেছনের বিষয়গুলোকে আমলে নেয়া হয়েছে।

চীনের পরিকল্পনায় রাশিয়ার সমর্থনের বিষয়ে দেশটির প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘ইউক্রেন সংকট নিরসনে চীনের দৃষ্টিভঙ্গির বিষয়ে আমাদের মূল্যায়ন ইতিবাচক।

‘বেইজিংয়ে তারা প্রকৃত অর্থে এর (সংঘাত) মূল কারণ এবং বৈশ্বিক ভূরাজনৈতিক অর্থ বোঝেন।’

রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের নির্দেশে ২০২২ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে বিশেষ সামরিক অভিযান শুরু করে রাশিয়া। সেই থেকে দুই বছর পেরিয়ে গেলেও যুদ্ধ বন্ধে কোনো মতৈক্যে পৌঁছাতে পারেনি দুই পক্ষ।

আরও পড়ুন:
রাশিয়ায় বন্যা, জরুরি অবস্থা জারি
ন্যাটো দেশে হামলা নয়, ইউক্রেনকে যুদ্ধবিমান দিলে ধ্বংস করা হবে
মস্কোতে আইএসের হামলার সামর্থ্যে বিশ্বাস নেই রাশিয়ার
স্বাধীনতা দিবসে রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা
রাশিয়ায় কনসার্ট হলে বন্দুক হামলায় চারজন অভিযুক্ত

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Putin replaces Shoigu with economist Belousov as defense minister

অর্থনীতিবিদ বেলাউসভকে প্রতিরক্ষামন্ত্রী বানাচ্ছেন পুতিন

অর্থনীতিবিদ বেলাউসভকে প্রতিরক্ষামন্ত্রী বানাচ্ছেন পুতিন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগু। ছবি: এপি
প্রতিরক্ষামন্ত্রী পদে দায়িত্ব গ্রহণ করতে হলে রাশিয়ার পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ ফেডারেশন কাউন্সিলের অনুমোদন পেতে হবে বেলাউসভকে।

মন্ত্রিসভায় রদবদলের অংশ হিসেবে দীর্ঘদিনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগুকে সরিয়ে তার জায়গায় অর্থনীতিবিদ আন্দ্রেই বেলাউসভকে নিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

আল জাজিরার প্রতিবেদনে জানানো হয়, প্রতিরক্ষামন্ত্রীর পদ থেকে সরে গিয়ে শোইগু নিরাপত্তা পরিষদের সেক্রেটারি হবেন বলে রোববার জানায় ক্রেমলিন।

পঞ্চম মেয়াদে পুতিনের ক্ষমতা গ্রহণের পর মন্ত্রিসভায় এ রদবদলের সিদ্ধান্ত হলো।

রাশিয়ার আইনের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে ক্রেমলিনে পুতিনের দায়িত্বভার গ্রহণের পর পুরো মন্ত্রিসভা গত মঙ্গলবার পদত্যাগ করে।

প্রতিরক্ষামন্ত্রী পদে দায়িত্ব গ্রহণ করতে হলে রাশিয়ার পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ ফেডারেশন কাউন্সিলের অনুমোদন পেতে হবে বেলাউসভকে।

ইউক্রেনের ক্রিমিয়া উপদ্বীপে রাশিয়ার হামলা ও সম্প্রসারণের দুই বছর আগে ২০১২ সালে রুশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেন শোইগু।

গত মাসে ঘুষ নেয়ার অভিযোগে শোইগুর অন্যতম সহকারী তিমুর ইভানভকে গ্রেপ্তার করে কারাগারে রাখার নির্দেশ দেয়া হয়। এ গ্রেপ্তারকে ব্যাপকভাবে শোইগুর ওপর আক্রমণ হিসেবে ব্যাখ্যা করা হয়েছে।

পুতিনের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক থাকার পরও প্রতিরক্ষামন্ত্রীর পদ থেকে শোইগুকে সরিয়ে দেয়ার আগের ঘটনা হিসেবেও দেখা হচ্ছে ইভানভের গ্রেপ্তারের বিষয়টিকে।

আরও পড়ুন:
ইউক্রেন যুদ্ধে ৫০ হাজারের বেশি রুশ সেনা নিহত
রাশিয়ায় বন্যা, জরুরি অবস্থা জারি
ন্যাটো দেশে হামলা নয়, ইউক্রেনকে যুদ্ধবিমান দিলে ধ্বংস করা হবে
মস্কোতে আইএসের হামলার সামর্থ্যে বিশ্বাস নেই রাশিয়ার
মস্কোতে হামলায় উগ্র ইসলামপন্থিদের হাত রয়েছে: পুতিন

মন্তব্য

p
উপরে