× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

আন্তর্জাতিক
Israeli Prime Minister is keen on two state solution
google_news print-icon

ফিলিস্তিনি ইস্যুতে দুই রাষ্ট্র সমাধানে আগ্রহী ইসরায়েল

ফিলিস্তিনি-ইস্যুতে-দুই-রাষ্ট্র-সমাধানে-আগ্রহী-ইসরায়েল
জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে বক্তব্য দিয়েছেন ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী ইয়ার লাপিদ। ছবি: সংগৃহীত
ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনিদের মধ্যে দীর্ঘদিনের চলমান বিরোধ অবসানে দুই রাষ্ট্রভিত্তিক সমাধানের প্রতি আস্থার কথা জানালেন ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী ইয়ার লাপিদ। আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনও দুই রাষ্ট্রভিত্তিক সমাধানে আগ্রহী। তবে এ বছরই ইসরায়েলে পার্লামেন্ট নির্বাচন, যেখানে জয়ের সম্ভাবনা রয়েছে নেতানিয়াহুর। দুই রাষ্ট্রভিত্তিক সমাধানের ঘোরতর বিরোধী এই উগ্র ডানপন্থি নেতা।

ফিলিস্তিনিদের সঙ্গে চলমান বিরোধের বিষয়ে দুই রাষ্ট্রভিত্তিক সমাধান সমর্থনের বিষয়ে প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছেন ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী ইয়ার লাপিদ।

জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে দেয়া ভাষণে এমনটাই বলেছেন তিনি।

পাশাপাশি তিনি ইরানকে পারমাণবিক বোমা তৈরি করা থেকে বিরত রাখার ব্যাপারে তেল আবিবের সংকল্পের কথা পুনরাবৃত্তি করেছেন।

দুই রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় বিদ্যমান কিছু প্রতিবন্ধকতা থাকার পরেও তিনি বলেন, ‘দুই জনগণের জন্য দুইটি রাষ্ট্রের ভিত্তিতে ফিলিস্তিনিদের সঙ্গে একটি চুক্তি, ইসরায়েলের নিরাপত্তা, অর্থনীতি ও আমাদের শিশুদের ভবিষ্যতের জন্য সঠিক জিনিষ।’

তিনি বলেন, এমন এক চুক্তি (দুই রাষ্ট্র বাস্তবায়নে সম্ভাব্য চুক্তি) যা শান্তিপূর্ণ ফিলিস্তিনি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করবে, যে রাষ্ট্র ইসরায়েলকে হুমকি দেবে না।

আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনও মনে করেন, একমাত্র দুই রাষ্ট্রভিত্তিক সমাধানই ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনিদের মধ্যে শান্তি আনতে পারে।

ফিলিস্তিনি ইস্যুতে দুই রাষ্ট্র সমাধানে আগ্রহী ইসরায়েল
ডানপন্থি নেতানিয়াহু দুই রাষ্ট্রভিত্তিক সমাধানের ঘোরতর বিরোধী

যদিও ইয়ার লাপিদ এমন সময় এ কথাটি বললেন যখন ইসরায়েলে নির্বাচনের ৬ সপ্তাহেরও কম সময় বাকি।

আসন্ন ১ নভেম্বরে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া নির্বাচনে জয়ের সম্ভাবনা রয়েছে সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু।

নেতানিয়াহু দুই রাষ্ট্রভিত্তিক সমাধানের একজন ঘোরতর বিরোধী।

দুই রাষ্ট্রভিত্তিক সমাধানে ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনিদের মধ্যে অনেক বিষয়ে বিরোধ রয়েছে। পুরো জেরুজালেমকে ইসরায়েল নিজেদের রাজধানী হিসেবে দাবি করে, সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্র সহ কয়েকটি দেশ এর স্মীকৃতিও দিয়েছে।

দুই জনগণের জন্য দুইটি রাষ্ট্রের ভিত্তিতে ফিলিস্তিনিদের সঙ্গে একটি চুক্তি, ইসরায়েলের নিরাপত্তা, অর্থনীতি ও আমাদের শিশুদের ভবিষ্যতের জন্য সঠিক জিনিষ।

অপর দিকে পূর্ব জেরুজালেমকে ভবিষ্যৎ ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রের রাজধানী হিসেবে চায় ফিলিস্তিনিরা।

এদিকে সাধারণ পরিষদে দেয়া বক্তব্যে ইরানের পরমাণু ইস্যুতে আলোচনার টেবিলে সামরিক শক্তির বিষয়টি রাখার দাবি জানিয়েছেন ইয়ার লাপিদ। তিনি চান আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ইরানকে বার্তা দিক যে, পরমাণু বোমা তৈরির যে কোনো চেষ্টা সামরিক উপায়ে প্রতিহত করা হবে।

আরও পড়ুন:
সাংবাদিক শিরিনকে জেনেবুঝেই খুন করা হয়: তদন্ত
ইরানের পরমাণু চুক্তিতে ‘অভিযান’ বন্ধ হবে না: মোসাদ
ইসরায়েলি বিমানবন্দর ব্যবহার না করতে ফিলিস্তিনিদের তাগিদ
আরও কাছাকাছি তুরস্ক-ইসরায়েল

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
Shahbaz Sharif is the 24th Prime Minister of Pakistan

পাকিস্তানের ২৪তম প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ

পাকিস্তানের ২৪তম প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ। ফাইল ছবি
পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রী ৭২ বছর বয়সী শাহবাজ শরিফ তিনবারের প্রধানমন্ত্রী ৭৪ বছর বয়সী নওয়াজ শরিফের ছোট ভাই। গত মাসে প্রধানমন্ত্রী পদে দলীয় মনোনয়ন পেয়ে অনেককে চমকে দিয়েছিলেন তিনি।

পাকিস্তানের ২৪তম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে রোববার নির্বাচিত হয়েছেন পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজ তথা পিএমএল-এন সভাপতি শাহবাজ শরিফ।

দি এক্সপ্রেস ট্রিবিউনের প্রতিবেদনে জানানো হয়, জাতীয় পরিষদের সংখ্যাগরিষ্ঠ আইনপ্রণেতাদের ভোটে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন জোটের প্রার্থী শাহবাজ।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের প্রধানমন্ত্রী প্রার্থী ওমর আইয়ুব খানের চেয়ে শতাধিক ভোট বেশি পেয়ে সরকারপ্রধান নির্বাচিত হন পিএমএল-এন সভাপতি।

শাহবাজ পান ২০১টি ভোট। তার প্রতিদ্বন্দ্বী ওমর ভোট পান ৯২টি।

এবিপি লাইভের খবরে বলা হয়, প্রধানমন্ত্রী পদে লড়া শাহবাজ ও ওমর জাতীয় পরিষদ সচিবালয়ে তাদের মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন, যা পরবর্তী সময়ে বৈধ ঘোষণা করেন স্পিকার আয়াজ সাদিক।

পাকিস্তানে গত ৮ ফেব্রুয়ারি সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। দেশটিতে ভোটের দিন বন্ধ রাখা হয় মোবাইল ইন্টারনেট।

এ নির্বাচনের ফল প্রকাশে অস্বাভাবিক দেরি হয়। এমন পরিস্থিতিতে বিরোধীরা ভোট কারচুপির অভিযোগ তোলে।

পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রী ৭২ বছর বয়সী শাহবাজ শরিফ তিনবারের প্রধানমন্ত্রী ৭৪ বছর বয়সী নওয়াজ শরিফের ছোট ভাই। গত মাসে প্রধানমন্ত্রী পদে দলীয় মনোনয়ন পেয়ে অনেককে চমকে দিয়েছিলেন শাহবাজ।

আরও পড়ুন:
পিপিপির সমর্থনে নওয়াজের দলই সরকার গঠন করছে!
‘আড়াই বছরের প্রধানমন্ত্রী’ নীতিতে পাকিস্তানে জোট সরকার!
‘পাকিস্তানকে বাঁচাতে’ ঐকমত্যে বিলাওয়াল-শাহবাজ
ইমরানের পিটিআই সমর্থিত স্বতন্ত্রদের সামনে বিকল্প কী?
ইমরানের স্বতন্ত্ররা ৯৭ আসনে জয়ী, পিএমএল-এন ৭৬

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Predominance and victory of conservatives in Irans parliamentary and assembly elections

ইরানের নির্বাচনে এগিয়ে রক্ষণশীলরা

ইরানের নির্বাচনে এগিয়ে রক্ষণশীলরা ইরানে গত শুক্রবার অনুষ্ঠিত নির্বাচনে তেহরানের একটি কেন্দ্রে ভোট দেন প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি। ছবি: রয়টার্স
এবারের নির্বাচনে অল্প কিছু সংস্কারপন্থি বা মধ্যমপন্থি পার্লামেন্টে যাওয়া নিশ্চিত করেছেন। ইরানে এটি দ্বিতীয় নির্বাচন, যেখানে বড় পরিসরে উপস্থিতি নেই সংস্কারপন্থি বা মধ্যমপন্থিদের।

রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জের মধ্যে অনুষ্ঠিত ইরানের পার্লামেন্ট ও ধর্মীয় পরিষদ নির্বাচনে এগিয়ে রয়েছেন রক্ষণশীল প্রার্থীরা।

আল জাজিরার প্রতিবেদনে জানানো হয়, পার্লামেন্টের ২৯০ জন আইনপ্রণেতা ও বিশেষজ্ঞদের পরিষদের (সর্বোচ্চ নেতা নির্বাচনের জন্য ইসলামি বিশেষজ্ঞদের সমন্বয়ে গঠিত পর্ষদ) ৮৮ সদস্য নির্বাচনে গত শুক্রবার ভোট হয় ইরানজুড়ে। সে নির্বাচনে পড়া লাখ লাখ ভোট গণনা শেষ পর্যায়ে রয়েছে।

ইরানের রাজধানী তেহরানে শনিবার প্রকাশিত আনুষ্ঠানিক প্রাথমিক ফল অনুযায়ী, ৩০ প্রতিনিধির তালিকায় শীর্ষে রয়েছেন অতি রক্ষণশীল মাহমুদ নবভিয়ান ও হামিদ রেজায়ি। তাদের পরের অবস্থানে আছেন রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের উপস্থাপক থেকে প্রথমবারের মতো আইনপ্রণেতা হওয়া ৩৫ বছর বয়সী আমির হোসেইন সাবেতি।

নির্বাচনের ইরানের পার্লামেন্টের স্পিকার মোহাম্মদ বাঘের গালিবাফ চতুর্থবারের মতো নির্বাচিত হয়েছেন। তার সমর্থিত অল্প কয়েকজন প্রার্থী জয়ী হতে পেরেছেন।

অন্যদিকে শিয়াদের পবিত্র শহর কোমের একটি আসন পেয়েছেন দীর্ঘদিনের আইনপ্রণেতা মোজতাবা জোন্নুর।

এবারের নির্বাচনে অল্প কিছু সংস্কারপন্থি বা মধ্যমপন্থি পার্লামেন্টে যাওয়া নিশ্চিত করেছেন। ইরানে এটি দ্বিতীয় নির্বাচন, যেখানে বড় পরিসরে উপস্থিতি নেই সংস্কারপন্থি বা মধ্যমপন্থিদের।

স্বল্পসংখ্যক মধ্যমপন্থির মধ্যে রয়েছেন বর্ষীয়ান আইনপ্রণেতা মাসুদ পেজেশকিয়ান, যিনি সাংবিধানিক নিয়ন্ত্রক সংস্থা অভিভাবক পরিষদের সমর্থন পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। ইরানের ১২তম পার্লামেন্টে তাবরিজের প্রতিনিধিত্ব করবেন তিনি।

আরও পড়ুন:
ইরানে পাকিস্তানের পাল্টা হামলা, চার শিশুসহ নিহত ৯
ইরানের হামলার জবাবে কূটনীতিক বহিষ্কার করল পাকিস্তান
ইরানে জোড়া বোমা হামলায় আইএস-এর দায় স্বীকার
ইরানে নিহত বেড়ে ১০৩, মধ্যপ্রাচ্যে ঘনাচ্ছে আশঙ্কার মেঘ
ইরানে সোলাইমানির মৃত্যুবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে জোড়া বোমা হামলা, নিহত ৭৩

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
US aircraft drop food supplies into Gaza for the first time

যুক্তরাষ্ট্রের বিমান থেকে প্রথমবারের মতো খাদ্যসামগ্রী ছোড়া হলো গাজায়

যুক্তরাষ্ট্রের বিমান থেকে প্রথমবারের মতো খাদ্যসামগ্রী ছোড়া হলো গাজায় গাজায় প্রথমবারের মতো উড়োজাহাজ থেকে খাদ্যসামগ্রী ফেলেছে যুক্তরাষ্ট্র। ছবি: বিবিস
ইসরায়েল কর্তৃক গাজার প্রবেশমুখগুলো অবরোধ করে রাখা ও নির্বিচার বোমা হামলার কারণে উপত্যকায় মানবিক সহায়তা পাঠানোর কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। এর মধ্যে গাজা উপত্যকায় প্রায় পাঁচ মাস ধরে ইসরায়েলের হামলায় নিহত ফিলিস্তিনির সংখ্যা দাঁড়িয়েছে প্রায় ৩০ হাজারে।

ইসরায়েলের অব্যাহত হামলার মধ্যে অবরুদ্ধ ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকার বাসিন্দাদের জন্য প্রথমবারের মতো উড়োজাহাজ থেকে খাদ্যসামগ্রী ফেলেছে যুক্তরাষ্ট্র।

যুক্তরাষ্ট্রের সেন্ট্রাল কমান্ড এক বিবৃতে জানায়, শনিবার গাজার উপকূলীয় এলাকায় পণ্যবাহী সি-১৩০ উড়োজাহাজ থেকে ৩৮ হাজার খাবারের প্যাকেট ফেলা হয়েছে। প্রায় পাঁচ মাস ধরে চলা যুদ্ধে গাজা উপত্যকা মানবিক সংকটের মুখোমুখি হয়েছে।

যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, মিশর এবং জর্ডানসহ অন্য দেশ ইতোমধ্যে উড়োজাহাজের মাধ্যমে খাদ্য ও প্রয়োজনীয় অন্যান্য সামগ্রী ফেলে গাজায় ত্রাণ পাঠিয়েছে, তবে যুক্তরাষ্ট্র থেকে এটি প্রথম বলে জানিয়েছে বিবিসি।

এর আগে গাজা উপত্যকায় যুক্তরাষ্ট্র বিমান থেকে খাদ্য ও প্রয়োজনীয় অন্যান্য সামগ্রী ছুড়বে বলে জানান দেশটির প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। ত্রাণসামগ্রীর জন্য অপেক্ষমাণ ফিলিস্তিনিদের ওপর ইসরায়েলের প্রাণঘাতী হামলার এক দিন পর শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের এ পরিকল্পনার কথা জানান প্রেসিডেন্ট।

হোয়াইট হাউসের জাতীয় নিরাপত্তা যোগাযোগ উপদেষ্টা জন কিরবি জোর দিয়ে বলেন, আকাশ থেকে প্রয়োজনীয় সামগ্রী ছোড়ার বিষয়টি হবে টেকসই প্রচেষ্টা। এ প্রচেষ্টার প্রথম ধাপে ছোড়া হবে প্রস্তুতকৃত খাবার, যা কোনো প্রক্রিয়া ছাড়াই খাওয়া যাবে।

গাজায় স্থানীয় সময় শনিবার দুপুরে যুক্তরাষ্ট্রের তিনটি বিমান থেকে ৬৬টি প্যাকেজে ৩০ হাজারেরও বেশি খাবারের প্যাকেট ফেলা হয়।

ইসরায়েল কর্তৃক গাজার প্রবেশমুখগুলো অবরোধ করে রাখা ও নির্বিচার বোমা হামলার কারণে উপত্যকায় মানবিক সহায়তা পাঠানোর কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। এর মধ্যে গাজা উপত্যকায় প্রায় পাঁচ মাস ধরে ইসরায়েলের হামলায় নিহত ফিলিস্তিনির সংখ্যা দাঁড়িয়েছে প্রায় ৩০ হাজারে।

এ সময়ে ইসরায়েলি বাহিনীর হাতে আহত হয়েছেন কমপক্ষে ৭০ হাজার ৩২৫ ফিলিস্তিনি।

গাজায় ফিলিস্তিনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে আল জাজিরা বৃহস্পতিবার জানায়, গাজায় ইসরায়েলি হামলায় নিহতের সংখ্যা কমপক্ষে ২৯ হাজার ৯৫৪।

ইসরায়েলের হামলায় গুঁড়িয়ে গেছে গাজার বিপুলসংখ্যক স্থাপনা। দীর্ঘ সময় ধরে যুদ্ধ চলায় উপত্যকায় সৃষ্টি হয়েছে ভয়াবহ মানবিক বিপর্যয়।

আরও পড়ুন:
ঢাকার বাতাস ‘খুবই অস্বাস্থ্যকর’, নিম্ন মানে শীর্ষে
মস্কোতে ঐক্যের ঘোষণা হামাসসহ ফিলিস্তিনের সব গোষ্ঠীর
গাজায় বিমান থেকে খাদ্যসামগ্রী ছুড়বে যুক্তরাষ্ট্র
গাজার প্রতি ৭৫ জনে একজন নিহত
গাজায় ইসরায়েলি হামলায় নিহত ৩০ হাজার ছুঁইছুঁই

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Trump won the Republican caucuses in three states

তিন অঙ্গরাজ্যে রিপাবলিকান ককাসে জয় ট্রাম্পের

তিন অঙ্গরাজ্যে রিপাবলিকান ককাসে জয় ট্রাম্পের সুপার টিউসডের আগে তিন অঙ্গরাজ্যে জয় পেয়েছেন ডনাল্ড ট্রাম্প। ছবি: রয়টার্স
বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে জানানো হয়, রিপাবলিকানদের অন্তর্কোন্দলের মধ্যে মিশিগান অঙ্গরাজ্যে সহজ জয় পেয়েছেন চলতি বছরের নভেম্বরে অনুষ্ঠেয় নির্বাচনে চোখ রাখা সাবেক প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। গবেষণা প্রতিষ্ঠান এডিসন রিসার্চ জানায়, মিজৌরি ও আইডাহো অঙ্গরাজ্যের রিপাবলিকান ককাসেও জয়ী হন ট্রাম্প।

যুক্তরাষ্ট্রের তিনটি অঙ্গরাজ্যে শনিবার রিপাবলিকান ককাসে (দলের মনোনীত ঠিক করতে ভোট) জয় পেয়েছেন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে মনোনয়নের দৌড়ে এগিয়ে থাকা ডনাল্ড ট্রাম্প।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে জানানো হয়, রিপাবলিকানদের অন্তর্কোন্দলের মধ্যে মিশিগান অঙ্গরাজ্যে সহজ জয় পেয়েছেন চলতি বছরের নভেম্বরে অনুষ্ঠেয় নির্বাচনে চোখ রাখা সাবেক প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প।

গবেষণা প্রতিষ্ঠান এডিসন রিসার্চ জানায়, মিজৌরি ও আইডাহো অঙ্গরাজ্যের রিপাবলিকান ককাসেও জয়ী হন ট্রাম্প।

তিনটি অঙ্গরাজ্যেই একমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বী নিকি হ্যালিকে বিশাল ব্যবধানে পরাজিত করেন ট্রাম্প। এ জয়ের মধ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থী হওয়ার আরও কাছে চলে গেলেন সাবেক রাষ্ট্রপ্রধান।

মিশিগান রিপাবলিকান পার্টি সূত্রে জানা যায়, অঙ্গরাজ্যটিতে ককাসে অংশ নেয়া ১৩ জেলার সবগুলোতে হ্যালিকে হারান ট্রাম্প। অঙ্গরাজ্যটিতে প্রায় ৯৮ শতাংশ সমর্থন পান সাবেক প্রেসিডেন্ট। সেখানে ট্রাম্পের পক্ষে ১ হাজার ৫৭৫ ভোটের বিপরীতে হ্যালির পক্ষে পড়ে ৩৬টি ভোট।

আগামী ৫ মার্চ সুপার টিউসডেতে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থী ঠিক করতে ভোটে অংশ নেবে ১৫টি রাজ্য ও একটি অঞ্চল। এর আগে তিন অঙ্গরাজ্যের ভোটে জিতে ব্যাপকভাবে এগিয়ে গেলেন ট্রাম্প।

আরও পড়ুন:
রাশিয়া সংশ্লিষ্ট ৫ শতাধিক লক্ষ্যবস্তুকে নিষেধাজ্ঞা দেবে যুক্তরাষ্ট্র
সরকার গঠন পাকিস্তানের অভ্যন্তরীণ বিষয়: যুক্তরাষ্ট্র
প্রতারণা মামলায় ট্রাম্পকে সাড়ে ৩৫ কোটি ডলার জরিমানা
কানসাস সিটিতে বন্দুক হামলায় একজন নিহত, আহত ২১
ভিসা নীতির পরিবর্তন হয়নি, ড. ইউনূসকে ভয় দেখানো হচ্ছে: যুক্তরাষ্ট্র

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Where royalty also means loss
আম্বানির ছেলের বিয়ে-পূর্ব আয়োজন

রাজসিকতাও হার মানে যেখানে

রাজসিকতাও হার মানে যেখানে যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের মেয়ে ইভানকাও উড়ে এসেছেন মুকেশ আম্বানির আমন্ত্রণে। ছবি: সংগৃহীত
ভারতের পশ্চিমাঞ্চলীয় ছোট শহর জামনগরে এক হাজার ২০০ জনেরও বেশি অতিথিকে নিমন্ত্রণ জানানো হয়েছে তিন দিনব্যাপী প্রাক-বিয়ে আয়োজনে। তাদের মধ্যে রয়েছেন পপতারকা রিয়ান্না, বিল গেটস, মার্ক জাকারবার্গ, সুন্দর পিচাই, ইভাঙ্কা ট্রাম্প এবং বলিউড তারকা শাহরুখ খানও।

এশিয়ার সবচেয়ে ধনী ব্যক্তির ছেলের বিয়ে বলে কথা। বিয়ের প্রধান অনুষ্ঠান শুরুর চার মাস আগেই বরের বাবা মুকেশ আম্বানি প্রাক-বিবাহ আনন্দ উদযাপনে রেকর্ড গড়া রাজসিক সব আয়োজন করে চলেছেন। রাজসিক অভিধায়ও এসব আয়োজনের ব্যাপকতা ও ঔজ্জ্বল্য ধারণ করা কঠিন।

ভারতের পশ্চিমাঞ্চলীয় ছোট শহর জামনগরে শুক্রবার রাষ্ট্রের প্রভাবশালী ব্যক্তিত্ব, হলিউড ও বলিউডের তারকাদের মেলা বসে। বিলিয়নিয়ার শিল্পপতি মুকেশ আম্বানির ছোট ছেলের বিয়ে উপলক্ষে বিশাল এক আয়োজন উপলক্ষে জড়ো হন তারা।

এক হাজার ২০০ জনেরও বেশি অতিথিকে নিমন্ত্রণ জানানো হয়েছে এই আয়োজনে। তাদের মধ্যে রয়েছেন পপতারকা রিয়ান্না, বিল গেটস, মার্ক জাকারবার্গ, সুন্দর পিচাই, ইভাঙ্কা ট্রাম্প এবং বলিউড তারকা শাহরুখ খানও।

সবার চোখ এখন ২৮ বছর বয়সী অনন্ত আম্বানি ও তার দীর্ঘ সময়ের বান্ধবী রাধিকা মার্চেন্টের ওপর। আগামী জুলাইয়ে গাঁটছড়া বাঁধতে চলেছেন তারা। এনকোর হেলথকেয়ার প্রাইভেট লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী বীরেন মার্চেন্ট ও উদ্যোক্তা শায়লা মার্চেন্টের মেয়ে রাধিকা।

এই উৎসব আম্বানি পরিবারের জমকালো ও আভিজাত্যপূর্ণ অনুষ্ঠানের ঐতিহ্য তুলে ধরার পাশাপাশি অর্থনীতি ও রাজনীতিতে এই ভারতীয় বিলিয়নিয়ারের যে প্রভাব সেটিও প্রদর্শন করে।

আয়োজনে সীমা ছাড়িয়ে যাওয়াটাই যেন আম্বানির বিশেষত্ব। ২০১৮ সালে মেয়ের বিয়ের সময় পশ্চিম ভারতের শহর উদয়পুরে বিবাহ-পূর্ব জমকালো উৎসবে পপ সেনসেশন বিয়ন্সেকে নিয়ে এসে সংবাদের শিরোনাম হয়েছিলেন আম্বানি। সে সময় ভারতীয় সেলিব্রিটি ও বলিউড তারকাদের সঙ্গে কাঁধ মিলিয়েছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটন ও জন কেরি।

সে বছরই ইশা আম্বানি ও আনন্দ পিরামল ইতালির লেক কোমোতে আনুষ্ঠানিকভাবে তাদের বাগদান সম্পন্ন করেন। ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে মুম্বাইতে আম্বানির বাসভবনে বিয়ে করেন তারা।

বিয়ে-পূর্ব আয়োজনে বিশেষ যা রয়েছে

আগামী জুলাইতে বিয়ের সময় কেমন জমকালো আয়োজন হতে চলেছে তারই আভাস দিচ্ছে তিন দিনব্যাপী এই প্রাক-বিয়ে আয়োজন।

গুজরাটের কাছেই মরুভূমিতে অবস্থিত ৬ লাখ জনসংখ্যার শহর জামনগরে আম্বানিরা এই উৎসবের আসর বসিয়েছে। যেখানে তাদের পারিবারিক নিবাস এবং তাদের ব্যবসার প্রধান তেল শোধনাগারও রয়েছে।

সেখানে জঙ্গল থিমের পোশাক পরে হবু বর অনন্ত পরিচালিত একটি প্রাণী উদ্ধার কেন্দ্র পরিদর্শনে যাবেন অতিথিরা। নির্যাতিত, আহত ও বিপন্ন প্রাণীদের বিশেষ করে হাতিদের আশ্রয়ের জন্য ৩ হাজার একর জমির ওপর এই কেন্দ্র নির্মিত হয়েছে, যা ‘ভানতারা’ বা ‘বনের তারকা’ নামে পরিচিত।

আমন্ত্রণপত্র সূত্রে জানা যায়, অতিথিদের জন্য প্রতিদিন ভিন্ন ও নতুন এক ড্রেস কোড থাকবে। এজন্য তাদের সাহায্য করতে হোটেলে মুড বোর্ড, হেয়ার স্টাইলিস্ট, মেকআপ আর্টিস্ট ও পোশাক ডিজাইনাররা থাকবেন।

একটি মন্দির প্রাঙ্গণে ঐতিহ্যবাহী হিন্দু সম্প্রদায়ের অনুষ্ঠানও হবে।

অতিথিদের অনেকেই চার্টার্ড প্লেনে আসবেন। এই আয়োজনে প্রায় ১০০ শেফের তৈরি ৫০০ ধরনের খাবার পরিবেশন করা হবে।

অতিথিদের তালিকায় আরও রয়েছেন কাতারের প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মদ বিন জসিম আল থানি; কানাডার সাবেক প্রধানমন্ত্রী স্টিফেন হারপার; ভুটানের রাজা জিগমে খেসার নামগিয়াল ওয়াংচুক এবং রানী জেটসুন পেমা।

বুধবার আশপাশের গ্রামে বসবাসকারী ৫১ হাজার লোকের জন্য খাবারের আয়োজন করেছে আম্বানি পরিবার।

কে এই মুকেশ আম্বানি?

১১৫ বিলিয়ন ডলারের মালিক ৬৬ বছর বয়সী মুকেশ আম্বানি ফোর্বস-এর তালিকা অনুযায়ী বিশ্বের দশম এবং এশিয়ার মধ্যে সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি।

তার মালিকানাধীন রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ এক বিশাল সাম্রাজ্য, যার বার্ষিক আয় ১০০ বিলিয়ন ডলারের বেশি। পেট্রোকেমিক্যাল, তেল-গ্যাস থেকে শুরু করে টেলিকমসহ রিটেইল ব্যবসার সঙ্গে জড়িত রয়েছে এই প্রতিষ্ঠান।

১৯৬৬ সালে তার বাবার প্রতিষ্ঠিত রিলায়েন্স আম্বানির নেতৃত্বে ২০১৬ সালে ৪জি ফোন ও ব্রডব্যান্ড পরিষেবা জিও চালু করার সঙ্গে সঙ্গে টেলিকম মূল্য যুদ্ধের সূত্রপাত করেছিল। বর্তমানে এটি ফাইভ জি পরিষেবা দিচ্ছে এবং গ্রাহক সংখ্যা ৪২০ মিলিয়ন ছাড়িয়ে গেছে।

ভারতে নিজেদের ব্যবসা আম্বানির রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজের সঙ্গে একীভূত করতে ডিজনি এ সপ্তাহের শুরুতে ৮ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলারের একটি চুক্তি করেছে। আর এর মাধ্যমে নতুন একটি মিডিয়া জায়ান্টের জন্ম হতে চলেছে।

আম্বানি পরিবারের অন্যান্য সম্পদের মধ্যে রয়েছে মুম্বাইতে ১ বিলিয়ন ডলার মূল্যের অ্যান্টিলা নামে একটি ২৭ তলাবিশিষ্ট ব্যক্তিগত অ্যাপার্টমেন্ট বিল্ডিং। এটিতে তিনটি হেলিপ্যাড, একসঙ্গে ১৬০টি গাড়ির ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন গ্যারেজ, ব্যক্তিগত সিনেমা থিয়েটার, সুইমিং পুল ও ফিটনেস সেন্টার রয়েছে।

মুকেশ আম্বানি বর্তমানে দুই ছেলে ও মেয়েকে দায়িত্ব হস্তান্তর করতে শুরু করেছেন। বড় ছেলে আকাশ আম্বানি রিলায়েন্স জিওর চেয়ারপারসন হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। আর মেয়ে ইশা রিটেইল সেক্টর এবং সর্বকনিষ্ঠ অনন্ত নতুন জ্বালানি শক্তির ব্যবসায় যুক্ত হয়েছেন।

সমালোচকরা বলছেন, সত্তর-আশির দশকে কংগ্রেস সরকার এবং ২০১৪ সালের পর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির শাসনামলে রাজনৈতিক সম্পর্কের জোরে আম্বানির প্রতিষ্ঠান বিকাশ লাভ করে। ভারতে এই ব্যবসায়ী নেতা ও সরকারি কর্মকর্তাদের মধ্যে পারস্পরিক সুবিধাজনক সম্পর্ক আম্বানির মতো প্রতিষ্ঠানগুলোকে উন্নতি লাভ করতে সাহায্য করেছে।

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
All Palestinian groups including Hamas declared unity in Moscow

মস্কোতে ঐক্যের ঘোষণা হামাসসহ ফিলিস্তিনের সব গোষ্ঠীর

মস্কোতে ঐক্যের ঘোষণা হামাসসহ ফিলিস্তিনের সব গোষ্ঠীর হামাসের সাবেক সেনাপ্রধান সালেহ আল-আরুরি (বাঁয়ে) এবং ফাতাহ নেতা ও ফিলিস্তিন আইন পরিষদের সদস্য আজম আল-আহমাদ করমর্দন করছেন। পুরনো ছবি/সংগৃহীত
রাশিয়ায় আয়োজিত এক আলোচনা সভায় হাত মেলানোর ঘোষণা দেয় উপত্যকার প্রধান দুই রাজনৈতিক গোষ্ঠী হামাস ও ফাতাহ। এরপর ছোট দলগুলোও তাদের ঐক্যের প্রতি সমর্থন জানিয়ে ইসরায়েলকে মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করে।

ইসরায়েলি হামলা মোকাবিলা করতে নিজেদের মধ্যে বিদ্যমান সকল বৈরিতা ভুলে এক পতাকার নিচে আসার ঘোষণা দিয়েছে ফিলিস্তিনের ছোটবড় সব রাজনৈতিক দল। রাশিয়ায় আয়োজিত এক সম্মেলনে হাত মেলানোর ঘোষণা দেয় উপত্যকার প্রধান দুই রাজনৈতিক গোষ্ঠী হামাস ও ফাতাহ। এরপর ছোট দলগুলোও তাদের ঐক্যের প্রতি সমর্থন জানিয়ে ইসরায়েলকে মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করে।

বৃহস্পতিবার রাশিয়ার রাজধানী মস্কোতে ওই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনে নিজেদের মধ্যেকার বিভেদ ভুলে এক হওয়ার প্রস্তাবে রাজি হয় হামাস, ইসলামিক জিহাদ, ফাতাহ ও অন্য ফিলিস্তিনি গোষ্ঠীগুলো।

আরব নিউজের খবরে বলা হয়েছে, ঐক্যের সিদ্ধান্তের পর চলমান যুদ্ধে ইসরাইলকে কীভাবে মোকাবিলা করা যায় এবং যুদ্ধের পর তাদের কর্মপরিকল্পনা কী হবে- তা নিয়ে বিস্তর আলোচনা করে গোষ্ঠীগুলো।

ফিলিস্তিনের বিদায়ী প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগের পর মোহাম্মদ শাতায়েহর দেশের সব গোষ্ঠীর উদ্দেশে ঐক্যের ডাক দেন। এরপরই মস্কোতে মিলিত হয় সব দলের নেতা ও তাদের প্রতিনিধিরা।

মস্কোতে ঐক্যের ঘোষণা হামাসসহ ফিলিস্তিনের সব গোষ্ঠীর
রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভের সঙ্গে আলোচনা সভায় হামাস, ফাতাহসহ ফিলিস্তিনি গোষ্ঠীগুলোর নেতারা। ছবি: রয়টার্স

ঐক্যের পর মস্কো থেকে দেয়া এক বার্তায় তারা বলে, প্যালেস্টাইন লিবারেশন অর্গানাইজেশনের (পিএলও) অধীনে আবারও একই ব্যানারের নিচে আসছে সবাই। সবগুলো পক্ষই এবার ফিলিস্তিনি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার বিষয়ে ঐক্যমত্য প্রকাশ করেছে।

হামাস ও ইসলামিক জিহাদকে সন্ত্রাসী বাহিনী হিসেবে ঘোষণা করেছে যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্র পশ্চিমা দেশগুলো। তবে পিএলও সরকারকে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতি দেয় তারা।

এর আগেও হামাস ও পিএলওকে একসঙ্গে আনার নানা চেষ্টা পূর্ণতার মুখ দেখেনি। অবশেষে রাশিয়ার উদ্যোগে এই চেষ্টা সফল হলো।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ফাতাহ ও হামাসসহ ইসরাইল-ফিলিস্তিন সংঘাতের সবগুলো পক্ষের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রেখেছে রাশিয়া। অন্যদিকে ইসরাইলের সঙ্গে তাদের সম্পর্ক এখন তলানিতে গিয়ে ঠেকেছে।

প্রথম থেকেই গাজায় ইসরাইলের বর্বর হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়ে আসছে মস্কো। একইসঙ্গে ফিলিস্তিনিদের স্বাধীন রাষ্ট্রের পক্ষে অবস্থান নিয়েছে তারা।

ইসরাইলের হামলা থামাতে জাতিসংঘে প্রস্তাবও উত্থাপন করেছিল রাশিয়া।

আরও পড়ুন:
ইউক্রেনে পশ্চিমা সেনা এলেই পারমাণবিক যুদ্ধ: পুতিন
উত্তর গাজায় দুর্ভিক্ষ আসন্ন: জাতিসংঘ
ফাঁদে পড়ে রাশিয়ার হয়ে যুদ্ধে ভারতীয়রা

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
US to airdrop food supplies to Gaza

গাজায় বিমান থেকে খাদ্যসামগ্রী ছুড়বে যুক্তরাষ্ট্র

গাজায় বিমান থেকে খাদ্যসামগ্রী ছুড়বে যুক্তরাষ্ট্র গাজার দক্ষিণাঞ্চলীয় রাফাহতে গত ২৬ ফেব্রুয়ারি ত্রাণসামগ্রী ফেলে জর্ডানের বিমান। ছবি: রয়টার্স
বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে বলা হয়, আগামী দিনগুলোতে যুক্তরাষ্ট্র বিমান থেকে ত্রাণসামগ্রী ছুড়বে বলে জানান বাইডেন, তবে ঠিক কবে থেকে সেটি শুরু হবে, তা জানাননি তিনি।

ইসরায়েলের অব্যাহত বিমান ও স্থল হামলার মধ্যে অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকায় যুক্তরাষ্ট্র বিমান থেকে খাদ্য ও প্রয়োজনীয় অন্যান্য সামগ্রী ছুড়বে বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

ত্রাণসামগ্রীর জন্য অপেক্ষমাণ ফিলিস্তিনিদের ওপর ইসরায়েলের প্রাণঘাতী হামলার এক দিন পর শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের এ পরিকল্পনার কথা জানান প্রেসিডেন্ট।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে বলা হয়, আগামী দিনগুলোতে যুক্তরাষ্ট্র বিমান থেকে ত্রাণসামগ্রী ছুড়বে বলে জানান বাইডেন, তবে ঠিক কবে থেকে সেটি শুরু হবে, তা জানাননি তিনি।

গাজায় বিভিন্ন সময়ে বিমান থেকে সহায়তার সামগ্রী ছুড়েছে জর্ডান, ফ্রান্সসহ বিভিন্ন দেশ।

‘আমাদের আরও বেশি কিছু করা দরকার এবং যুক্তরাষ্ট্র বেশি কিছু করবে’, প্রতিবেদকদের বলেন বাইডেন।

তিনি আরও বলেন, ‘গাজায় যে পরিমাণ সহায়তা যাচ্ছে, তা যথেষ্ট নয়।’

এদিকে হোয়াইট হাউসের জাতীয় নিরাপত্তা যোগাযোগ উপদেষ্টা জন কিরবি জোর দিয়ে বলেন, আকাশ থেকে প্রয়োজনীয় সামগ্রী ছোড়ার বিষয়টি হবে টেকসই প্রচেষ্টা।

তিনি বলেন, এ প্রচেষ্টার প্রথম ধাপে ছোড়া হবে প্রস্তুতকৃত খাবার, যা কোনো প্রক্রিয়া ছাড়াই খাওয়া যাবে।

এ প্রক্রিয়া অব্যাহত রাখার ইঙ্গিত দিয়ে কিরবি বলেন, এটা শুধু একবারের জন্যই করা হবে না।

আরও পড়ুন:
গাজায় শিগগিরই যুদ্ধবিরতির আশা বাইডেনের
গাজায় ‘গণহত্যার’ ঘটনায় পদত্যাগ ফিলিস্তিনের প্রধানমন্ত্রীর
ইসরায়েলি দূতাবাসের সামনে গায়ে ‍আগুন যুক্তরাষ্ট্রের বিমান বাহিনী সদস্যের
গাজায় মানবিক সহায়তা পৌঁছে দেয়ার মিশরকে ধন্যবাদ জানাল বাংলাদেশ
ইসরায়েলি হামলায় গাজায় নিহত বেড়ে ২৯ হাজার ৪১০

মন্তব্য

p
উপরে