× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

আন্তর্জাতিক
Biden is an enemy of the country Trump
google_news print-icon

বাইডেন দেশের শত্রু: ট্রাম্প

বাইডেন-দেশের-শত্রু-ট্রাম্প-
ট্রাম্পের সঙ্গে বাইডেনের বিরোধ বাড়ছে। ছবি: সংগৃহীত
গত সপ্তাহে জো বাইডেন এক ভাষণে বলেছিলেন, ট্রাম্পের সমর্থকরা এক চরমপন্থার প্রতিনিধিত্ব করে, যা যুক্তরাষ্ট্রের গণতন্ত্রের জন্য হুমকি। ট্রাম্প এই বক্তব্যের জবাবে বলেন, ‘বাইডেনের বক্তৃতা আমেরিকার প্রেসিডেন্টের দেয়া বক্তব্যের মধ্যে সবচেয়ে জঘন্য, ঘৃণ্য ও বিভেদমূলক। সে দেশের শত্রু।’

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে ‘দেশের শত্রু’ বলেছেন দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প।

শনিবার পেনসিলভেনিয়ার এক শোভাযাত্রায় বক্তব্য দেয়ার সময় ব্যবসায়ী থেকে রিপাবলিকান নেতা বনে যাওয়া ট্রাম্প নিজের উত্তরসূরি সম্পর্কে এই কথা বলেন।

গত ৮ আগস্ট ফ্লোরিডার নিজ বাড়িতে কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থার (এফবিআই) অভিযানের পর এই প্রথম প্রকাশ্যে আসলেন ট্রাম্প।

তিনি এফবিআইয়ের অনুসন্ধানকে বিচারের নামে প্রতারণা আখ্যা দিয়ে বলেন, ‘এটি এমন প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করবে, যা কেউ কখনও দেখেনি।

‘কয়েক সপ্তাহ আগে যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতার মূল্যবোধের বিরুদ্ধে বাস্তব হুমকির আর কোনো জীবন্ত উদাহরণ হতে পারে না। আমরা আমেরিকার ইতিহাসে প্রশাসনিক ক্ষমতার সবচেয়ে মর্মান্তিক অপব্যবহারের সাক্ষী হয়েছি।’

ট্রাম্পের দাবি, তার বাড়িতে অভিযানের বিষয়টি বাইডেন প্রশাসনই দেখভাল করেছিল।

মেক আমেরিকা গ্রেট এগেইন (মাগা) ক্যাম্পেইনের বিষয়ে ট্রাম্প বলেন, ‘মাগা মুভমেন্ট গণতন্ত্রকে দুর্বল করছে না। আমরা আমাদের গণতন্ত্রকে বাঁচানোর চেষ্টা করছি, খুব সহজ। গণতন্ত্রের প্রতি হুমকি উগ্র বাম থেকে আসে, ডান থেকে নয়।’

এর আগে পেনসিলভেনিয়ায় ফিলাডেলফিয়া হল থেকে বৃহস্পতিবার রাতে প্রাইম টাইম ভাষণে বাইডেন বলেন, ‘মাগা বাহিনী এই দেশকে পেছনের দিকে নিয়ে যেতে বদ্ধপরিকর।’

একই সঙ্গে তিনি দাবি করেন, যেই ৭ কোটি ৪০ লাখ রিপাবলিকান সমর্থক ভোটার ২০২০ সালের নির্বাচনে ডনাল্ড ট্রাম্পকে ভোট দিয়েছেন, তারা সবাই মাগা সমর্থক নন, এমনকি সংখ্যাগরিষ্ঠ রিপাবলিকানও মাগা সমর্থন করেন না।

ডেমোক্রেট রাজনীতিবিদ থেকে প্রেসিডেন্ট হওয়া বাইডেন তার বক্তৃতায় বলেন, এতে কোনো প্রশ্ন নেই যে রিপাবলিকান পার্টি আজ ডনাল্ড ট্রাম্প ও মাগা রিপাবলিকানদের দ্বারা চালিত এবং পার্টিতে তারাই আধিপত্যশীল, যা এই দেশের জন্য হুমকি।

তিনি বলেন, ‘ট্রাম্প সমর্থকরা গত বছর ইউএস ক্যাপিটালে হামলাকারী জনতাকে বিদ্রোহবাদীর থেকে দেশপ্রেমিক হিসেবে বেশি দেখে।’

‘দীর্ঘ সময়ের জন্য আমরা নিজেদের বলেছিলাম যে আমেরিকান গণতন্ত্র নিশ্চিত। কিন্তু তা নয়। আমাদের এটিকে রক্ষা করতে হবে এবং এর জন্য আমাদের প্রত্যেককে দাঁড়াতে হবে।’

মাগা মুভমেন্ট গণতন্ত্রকে দুর্বল করছে না। আমরা আমাদের গণতন্ত্রকে বাঁচানোর চেষ্টা করছি, খুব সহজ। গণতন্ত্রের প্রতি হুমকি উগ্র বাম থেকে আসে, ডান থেকে নয়।

বাইডেনের বক্তব্যের জবাবে শীর্ষ পর্যায়ের রিপাবলিকান নেতা কেভিন ম্যাকার্থি বলেছেন, ‘আমেরিকার আত্মাকে মারাত্মকভাবে আহত করেছেন।

‘গত দুই বছরে জো বাইডেন আমেরিকার আত্মার ওপর, জনগণের ওপর, আইনের ওপর, গণতন্ত্রের ওপর আক্রমণ করছেন।

‘তার নীতিগুলো আমেরিকার আত্মাকে মারাত্মকভাবে আহত করছে, আমেরিকার চেতনাকে খর্ব করছে এবং আমেরিকার আস্থার সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করছে।’

আরও পড়ুন:
ট্রাম্পের বাসা থেকে গোপন নথি উদ্ধার, তল্লাশি ‘নির্দিষ্ট অভিযোগে’
জনসমক্ষে আসতে পারে ট্রাম্পের বাসায় তল্লাশির পরোয়ানা
ট্রাম্পকে পুড়িয়ে ছেলেসহ অবকাশে বাইডেন
তদন্তকারীদের কাছে মুখ খোলেননি ট্রাম্প
শপথ পড়িয়ে ট্রাম্পকে জিজ্ঞাসাবাদ  

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
Shahbaz Sharif is the 24th Prime Minister of Pakistan

পাকিস্তানের ২৪তম প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ

পাকিস্তানের ২৪তম প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ। ফাইল ছবি
পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রী ৭২ বছর বয়সী শাহবাজ শরিফ তিনবারের প্রধানমন্ত্রী ৭৪ বছর বয়সী নওয়াজ শরিফের ছোট ভাই। গত মাসে প্রধানমন্ত্রী পদে দলীয় মনোনয়ন পেয়ে অনেককে চমকে দিয়েছিলেন তিনি।

পাকিস্তানের ২৪তম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে রোববার নির্বাচিত হয়েছেন পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজ তথা পিএমএল-এন সভাপতি শাহবাজ শরিফ।

দি এক্সপ্রেস ট্রিবিউনের প্রতিবেদনে জানানো হয়, জাতীয় পরিষদের সংখ্যাগরিষ্ঠ আইনপ্রণেতাদের ভোটে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন জোটের প্রার্থী শাহবাজ।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের প্রধানমন্ত্রী প্রার্থী ওমর আইয়ুব খানের চেয়ে শতাধিক ভোট বেশি পেয়ে সরকারপ্রধান নির্বাচিত হন পিএমএল-এন সভাপতি।

শাহবাজ পান ২০১টি ভোট। তার প্রতিদ্বন্দ্বী ওমর ভোট পান ৯২টি।

এবিপি লাইভের খবরে বলা হয়, প্রধানমন্ত্রী পদে লড়া শাহবাজ ও ওমর জাতীয় পরিষদ সচিবালয়ে তাদের মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন, যা পরবর্তী সময়ে বৈধ ঘোষণা করেন স্পিকার আয়াজ সাদিক।

পাকিস্তানে গত ৮ ফেব্রুয়ারি সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। দেশটিতে ভোটের দিন বন্ধ রাখা হয় মোবাইল ইন্টারনেট।

এ নির্বাচনের ফল প্রকাশে অস্বাভাবিক দেরি হয়। এমন পরিস্থিতিতে বিরোধীরা ভোট কারচুপির অভিযোগ তোলে।

পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রী ৭২ বছর বয়সী শাহবাজ শরিফ তিনবারের প্রধানমন্ত্রী ৭৪ বছর বয়সী নওয়াজ শরিফের ছোট ভাই। গত মাসে প্রধানমন্ত্রী পদে দলীয় মনোনয়ন পেয়ে অনেককে চমকে দিয়েছিলেন শাহবাজ।

আরও পড়ুন:
পিপিপির সমর্থনে নওয়াজের দলই সরকার গঠন করছে!
‘আড়াই বছরের প্রধানমন্ত্রী’ নীতিতে পাকিস্তানে জোট সরকার!
‘পাকিস্তানকে বাঁচাতে’ ঐকমত্যে বিলাওয়াল-শাহবাজ
ইমরানের পিটিআই সমর্থিত স্বতন্ত্রদের সামনে বিকল্প কী?
ইমরানের স্বতন্ত্ররা ৯৭ আসনে জয়ী, পিএমএল-এন ৭৬

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Gautam Gambhir wants to quit BJP

বিজেপি ছাড়তে চান গৌতম গম্ভীর

বিজেপি ছাড়তে চান গৌতম গম্ভীর ভারতের লোকসভা সদস্য ও জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক ওপেনার ব্যাটসম্যান গৌতম গম্ভীর। ছবি: সংগৃহীত
চলতি বছরের এপ্রিল ও মে মাসে ভারতে জাতীয় নির্বাচন তথা লোকসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। তার মাত্র মাসখানেক আগে রাজনীতিতে সরে যাওয়ার এই ঘোষণা দিলেন গৌতম গম্ভীর। এই ঘোষণা তার ভক্ত তো বটেই বিশ্লেষকদেরও অবাক করেছে।

ক্রিকেটে আরও বেশি মনোনিবেশ করতে রাজনীতি থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন লোকসভা সদস্য ও ভারতের জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক ওপেনার ব্যাটসম্যান গৌতম গম্ভীর।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এক্সে এক টুইটে তিনি এই ঘোষণা দিয়েছেন। একই সঙ্গে তিনি তার দল বিজেপি থেকে অব্যাহতি চেয়েও আবেদন করেছেন।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির এক প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

চলতি বছরের এপ্রিল ও মে মাসে ভারতে জাতীয় নির্বাচন তথা লোকসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। তার মাত্র মাসখানেক আগে রাজনীতিতে সরে যাওয়ার এই ঘোষণা দিলেন গৌতম গম্ভীর। এই ঘোষণা তার ভক্ত তো বটেই বিশ্লেষকদেরও অবাক করেছে।

গম্ভীর তার এক্স স্ট্যাটাসে লিখেছেন, ‘আমি পার্টি সভাপতি জেপি নাড্ডাকে আমার রাজনৈতিক দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেছি। যাতে আমি আমার ক্রিকেটের প্রতি যে কমিটমেন্টগুলো আছে তাতে মনোনিবেশ করতে পারি। আমাকে জনগণের সেবা করার সুযোগ দেওয়ার জন্য আমি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জানাই।’

ধারণা করা হচ্ছে, খুব শিগগিরই বিজেপি আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে তাদের সম্ভাব্য প্রার্থীদের একটি প্রথম তালিকা প্রকাশ করবে। এই তালিকায় ১০০ জনেরও বেশি নেতাকে অন্তর্ভুক্ত করা হবে। যেখানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের মতো হেভিওয়েট প্রার্থীরা থাকবেন।

দলটি দিন কয়েক আগে প্রার্থী চূড়ান্ত করতে ম্যারাথন বৈঠক করেছে কয়েক দফা। এর মধ্যে একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে দিল্লিতে নরেন্দ্র মোদির সরকারি বাসভবনে। রাত ১১টায় শুরু হয়ে সেই বৈঠক শেষ হয় রাত ৪টায়। এর আগে গৌতম গম্ভীর ২০১৯ সালের মার্চে বিজেপিতে যোগ দেন।

আরও পড়ুন:
এবার মোদির সফরের নোটে ‘ভারত’ শব্দ নিয়ে বিতর্ক
ইন্ডিয়া না জিতলে পুরো দেশ হবে মণিপুর, হরিয়ানা: স্টালিন
‘জিতেগা ভারত’ স্লোগানে বিজেপি হটাতে চায় ‘ইন্ডিয়া’

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Trapped Indians fighting for Russia
বিবিসির প্রতিবেদন

ফাঁদে পড়ে রাশিয়ার হয়ে যুদ্ধে ভারতীয়রা

ফাঁদে পড়ে রাশিয়ার হয়ে যুদ্ধে ভারতীয়রা রাশিয়ার হয়ে যুদ্ধ করা ভারতীয় এক যুবক। ছবি: বিবিসি
রাশিয়ায় যাওয়া ভারতীয়দের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রতারণার শিকার হওয়া এসব যুবকের বয়স ২২ থেকে ৩১ বছর। রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর সদস্যদের সহায়তা করার জন্য তাদের রাশিয়ায় নেন এজেন্টরা। পরবর্তী সময়ে প্রশিক্ষণের অজুহাতে তাদের যুদ্ধক্ষেত্রে পাঠানো হয়।

এজেন্টদের প্রতারণার ফাঁদে পড়ে কমপক্ষে ১২ জন ভারতীয় নাগরিক রাশিয়ার হয়ে ইউক্রেনের বিপক্ষে যুদ্ধ করছেন বলে জানিয়েছে বিবিসি।

সংবাদমাধ্যমটির প্রতিবেদনে জানানো হয়, রাশিয়ার হয়ে লড়া এসব ভারতীয় নাগরিকের একজন ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় নিহত হয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম দ্য হিন্দুর বরাতে বিবিসির খবরে বলা হয়, গত সপ্তাহে ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় নিহত হন ভারতের গুজরাট রাজ্য থেকে রাশিয়ায় যাওয়া হেমল অশ্বিনভাই।

হেমলের বাবা গত ২৩ ফেব্রুয়ারি বিবিসিকে জানান, তিন দিন আগে তিনি ছেলের সঙ্গে কথা বলেছিলেন।

ওই ব্যক্তি জানান, রাশিয়া সীমান্ত থেকে ২০ থেকে ২২ কিলোমিটার দূরে ইউক্রেনের অভ্যন্তরে মোতায়েন করা হয় তার ছেলেকে। মোবাইল নেটওয়ার্ক পেলে কয়েক দিন পরপরই কল দিতেন হেমল।

এমন পরিস্থিতিতে গভীর উদ্বেগে থাকা ভারতীয় পরিবারগুলো তাদের সন্তানকে দেশে ফিরিয়ে আনতে সহযোগিতা চেয়েছে কেন্দ্রীয় সরকারের।

রাশিয়ায় যাওয়া ভারতীয়দের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রতারণার শিকার হওয়া এসব যুবকের বয়স ২২ থেকে ৩১ বছর। রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর সদস্যদের সহায়তা করার জন্য তাদের রাশিয়ায় নেন এজেন্টরা। পরবর্তী সময়ে প্রশিক্ষণের অজুহাতে তাদের যুদ্ধক্ষেত্রে পাঠানো হয়।

রাশিয়ায় থাকা ভারতীয় সূত্রগুলো জানায়, রুশ সেনাবাহিনীতে যোগ দিয়েছেন বিপুলসংখ্যক ভারতীয় নাগরিক।

রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র দ্য হিন্দুকে বলেছে, গত বছর রুশ সেনাবাহিনীতে নিয়োগকৃত ভারতীয়র প্রকৃত সংখ্যা প্রায় ১০০।

এ বিষয়ে জানতে দিল্লিতে রুশ দূতাবাসের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে বিবিসি, তবে তাদের পক্ষ থেকে কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, রাশিয়ার সেনাবাহিনীতে সহায়কের ভূমিকায় যুক্ত করা হয়েছে ভারতীয় কিছু নাগরিককে।

আরও পড়ুন:
দুর্ঘটনার ১০ দিন না যেতে সড়কেই প্রাণ গেল তেলেঙ্গানার বিধায়কের
ক্যানসারের উপাদান পাওয়ায় তামিলনাড়ুতে নিষিদ্ধ হাওয়াই মিঠাই
রাশিয়া সংশ্লিষ্ট ৫ শতাধিক লক্ষ্যবস্তুকে নিষেধাজ্ঞা দেবে যুক্তরাষ্ট্র
ভোটের প্রচারে বাড়ি বাড়ি গিয়ে গর্ভনিরোধক বিতরণ
ঐশ্বরিয়াকে নিয়ে রাহুলের মন্তব্যের নিন্দা সংগীতশিল্পীর

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
The driver went down to have tea when the train ran at a speed of 90 km

চা খেতে নেমেছিলেন চালক, ৯০ কিলোমিটার গতিতে ছুটল ট্রেন

চা খেতে নেমেছিলেন চালক, ৯০ কিলোমিটার গতিতে ছুটল ট্রেন
ইঞ্জিন চালু রেখেই চা খেতে নেমেছিলেন পাথরবোঝাই ওই ট্রেনের চালক। প্রায় ৮০ কিলোমিটার যাওয়ার পর অবশেষে এটিকে থামানো সম্ভব হয়। এতে হতাহতের কোনো ঘটনা ঘটেনি।

হলিউডি সিনেমা ‘আনস্টপএবল’-এরই যেন পুনারাবৃত্তি ঘটল ভারতে, চালক ছাড়াই চলতে শুরু করল ট্রেন। ৯০ কিলোমিটার গতি ছুটে চল পণ্যবাহী ট্রেনটিকে অবশেষে ঠেকানো সম্ভব হয়েছে।

রোববার জম্মুর কাঠুয়া থেকে পাঞ্জাবের হশিয়ারপুর যাওয়ার পথে ট্রেনটি এমন বিপত্তি ঘটিয়েছে বলে টাইমস অফ ইন্ডিয়ার সোমবারের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

প্রতিবেদন বলছে, ইঞ্জিন চালু রেখেই চা খেতে নেমেছিলেন পাথরবোঝাই ওই ট্রেনের চালক। প্রায় ৮০ কিলোমিটার যাওয়ার পর অবশেষে এটিকে থামানো সম্ভব হয়। এতে হতাহতের কোনো ঘটনা ঘটেনি।

এরই মধ্যে ট্রেনটির দুজন চালকসহ ছয়জনকে বরখাস্ত করেছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে চালকবিহীন ট্রেনের ছুটে চলার ভিডিও।

একজন কর্মকর্তা বলেছেন, চালক চা খেতে নেমেছিলেন স্টেশনে। তবে ইঞ্জিন চালু থাকায় এটি চলতে শুরু করে। থামাতে থামাতে ট্রেনটি ৮০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়েছে।

ফিরোজপুর বিভাগী রেলওয়ে ম্যানেজার সঞ্জয় শাহু বলেন, সকালে ওই ঘটনা ঘটার সময় ট্রেন লাইনে সব ট্রেন বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল। কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। ছয়জনকে বরখাস্ত করা হয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন:
বগি লাইনচ্যুত, রংপুর-পার্বতীপুরের ট্রেন বন্ধ
৪০ দিন পর ট্রেনে দগ্ধ চারজনের মরদেহ হস্তান্তর
মেট্রো ট্রেন শনিবার থেকে চলবে ৮ মিনিট পর পর

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
There is no restriction on Hindu prayers at Gnanabapi Masjid

জ্ঞানবাপী মসজিদে হিন্দুদের প্রার্থনায় বাধা নেই

জ্ঞানবাপী মসজিদে হিন্দুদের প্রার্থনায় বাধা নেই জ্ঞানবাপী মসজিদে হিন্দুদের প্রার্থনায় বাধা নেই। ছবি: পিটিআই
৩১ জানুয়ারির রায়ের পরেই চ্যালেঞ্জ জানিয়ে ২ ফেব্রুয়ারি সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয় মসজিদ কমিটি। শীর্ষ আদালত আবেদন শুনতে না চেয়ে এলাহাবাদ হাইকোর্টে যেতে বলে। তার দুই ঘণ্টার মধ্যে আবেদন জমা পড়ে হাইকোর্টে। আজ এর রায় ঘোষণা করা হলো।

ভারতের উত্তর প্রদেশে জ্ঞানবাপী মসজিদের ভেতরে হিন্দুদের প্রার্থনা করার অনুমতির বিষয়ে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে এলাহাবাদ হাইকোর্টে করা মসজিদ কমিটির আবেদনটি খারিজ করে দিয়েছে আদালত। অর্থাৎ হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা মসজিদের ভূগর্ভস্থ কক্ষটিতে প্রার্থনা চালিয়ে যেতে পারবে।

এনডিটিভির সোমবারের প্রতিবেদনে বিষয়টি জানানো হয়।

এর আগে ৩১ জানুয়ারি ভারতের উত্তর প্রদেশে জ্ঞানবাপী মসজিদের ভূগর্ভস্থ কক্ষে হিন্দুদের প্রার্থনা করার অনুমতি দিয়েছিল বারানসি জেলা আদালত। রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে হাইকোর্টে আবেদন করে মসজিদ কমিটি। সেই রায় ঘোষণার দিন ধার্য হয় সোমবার।

মসজিদটির ভূগর্ভে চারটি ‘তেখানা’ বা সেলার রয়েছে। সেখানে একজন পুরোহিতদের পরিবার বসবাস করছে।

পরিবারের দাবি, ১৯৯৩ সাল পর্যন্ত বংশগত পুরোহিত হিসেবে তাদের পূজা করার অনুমতি দেয়া হয়েছিল। এরপর সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা, অশান্তির কারণে তৎকালীন মুলায়ম সিং সরকার পূজার অনুমতি বাতিল করে দেয়।

মসজিদের বেসমেন্টে উপাসনা করার অনুমতি চেয়ে পিটিশন দায়ের করেছিলেন কয়েকজন হিন্দু ধর্মাবলম্বী। এরপর বেসমেন্টে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের পূজা করার অনুমতি দেয় সেখানকার একটি আদালত।

মসজিদ কমিটির দাবি, সেলারে কোনো মূর্তি নেই। তাই ১৯৯৩ সাল পর্যন্ত সেখানে হিন্দু প্রার্থনা করার কোনো প্রশ্ন আসে না।

৩১ জানুয়ারির রায়ের পরেই চ্যালেঞ্জ জানিয়ে ২ ফেব্রুয়ারি সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয় মসজিদ কমিটি। শীর্ষ আদালত আবেদন শুনতে না চেয়ে এলাহাবাদ হাইকোর্টে যেতে বলে। তার দুই ঘণ্টার মধ্যে আবেদন জমা পড়ে হাইকোর্টে। আজ এর রায় ঘোষণা করা হলো।

আরও পড়ুন:
ঐশ্বরিয়াকে নিয়ে রাহুলের মন্তব্যের নিন্দা সংগীতশিল্পীর
যেভাবে ভারতে পাঠানো হলো বন্য দুই হাতিকে
নিজস্ব মুদ্রায় ভারতের সঙ্গে বাণিজ্যে আগ্রহ প্রধানমন্ত্রীর
দিল্লি অভিমুখে লক্ষাধিক কৃষক, আটকাতে সড়কে কংক্রিটের দেয়াল
ভারত থেকে দেড় লাখ টন পেঁয়াজ চিনি কিনতে চায় সরকার

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Allahabad High Court verdict on Hindu prayer at Gnanabapi Masjid on Monday

জ্ঞানবাপী মসজিদে হিন্দুদের প্রার্থনা নিয়ে এলাহাবাদ হাইকোর্টের রায় সোমবার

জ্ঞানবাপী মসজিদে হিন্দুদের প্রার্থনা নিয়ে এলাহাবাদ হাইকোর্টের রায় সোমবার জ্ঞানবাপী মসজিদে হিন্দু প্রার্থনা নিয়ে এলাহাবাদ হাইকোর্ট রায় দেবে আজ। ছবি: এনডিটিভি
৩১ জানুয়ারির রায়ের পরেই চ্যালেঞ্জ জানিয়ে ২ ফেব্রুয়ারি সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয় মসজিদ কমিটি। শীর্ষ আদালত আবেদন শুনতে না চেয়ে এলাহাবাদ হাইকোর্টে যেতে বলে। তার দুই ঘণ্টার মধ্যে আবেদন জমা পড়ে হাইকোর্টে।

ভারতের উত্তর প্রদেশে একটি মসজিদের ভেতরে হিন্দুদের প্রার্থনা করার অনুমতি দিয়েছিল বারানসি জেলা আদালত। রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে হাইকোর্টে আবেদন করে মসজিদ কমিটি। আজ সেই রায় ঘোষণা করবে এলাহাবাদ হাইকোর্ট।

এনডিটিভির সোমবারের প্রতিবেদনে বলা হয়, ভারতের বারানসির জ্ঞানবাপী মসজিদের একটি সেলারে হিন্দু প্রার্থনার অনুমতি দেয়ার বারানসি জেলা আদালতের সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করে একটি পিটিশনের ওপর তার রায় দেবে এলাহাবাদ হাইকোর্ট।

মসজিদের ভূগর্ভস্থ কক্ষে হিন্দুরা পূজা-অর্চনা করতে পারবে বলে ৩১ জানুয়ারি রায় দেয় বারনসির আদালত।

মসজিদটির ভূগর্ভে চারটি ‘তেখানা’ বা সেলার রয়েছে। সেখানে একজন পুরোহিতদের পরিবার বসবাস করছে।

পরিবারের দাবি, ১৯৯৩ সাল পর্যন্ত বংশগত পুরোহিত হিসেবে তাদের পূজা করার অনুমতি দেয়া হয়েছিল। এরপর সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা, অশান্তির কারণে তৎকালীন মুলায়ম সিং সরকার পূজার অনুমতি বাতিল করে দেয়।

মসজিদের বেসমেন্টে উপাসনা করার অনুমতি চেয়ে পিটিশন দায়ের করেছিলেন কয়েকজন হিন্দু ধর্মাবলম্বী। এরপর বেসমেন্টে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের পূজা করার অনুমতি দেয় সেখানকার একটি আদালত।

মসজিদ কমিটির দাবি, সেলারে কোনো মূর্তি নেই। তাই ১৯৯৩ সাল পর্যন্ত সেখানে হিন্দু প্রার্থনা করার কোনো প্রশ্ন আসে না।

৩১ জানুয়ারির রায়ের পরেই চ্যালেঞ্জ জানিয়ে ২ ফেব্রুয়ারি সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয় মসজিদ কমিটি। শীর্ষ আদালত আবেদন শুনতে না চেয়ে এলাহাবাদ হাইকোর্টে যেতে বলে। তার দুই ঘণ্টার মধ্যে আবেদন জমা পড়ে হাইকোর্টে। আজ এর রায় ঘোষণা।

আরও পড়ুন:
যেভাবে ভারতে পাঠানো হলো বন্য দুই হাতিকে
নিজস্ব মুদ্রায় ভারতের সঙ্গে বাণিজ্যে আগ্রহ প্রধানমন্ত্রীর
দিল্লি অভিমুখে লক্ষাধিক কৃষক, আটকাতে সড়কে কংক্রিটের দেয়াল
ভারত থেকে দেড় লাখ টন পেঁয়াজ চিনি কিনতে চায় সরকার
অজিত দোভালের ঢাকা সফর নিয়ে যা বলল দিল্লি

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Assams decision to repeal the Muslim Marriage Act

মুসলিম বিয়ে ও তালাক আইন বাতিলের সিদ্ধান্ত আসামের

মুসলিম বিয়ে ও তালাক আইন বাতিলের সিদ্ধান্ত আসামের আসামের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা। ছবি: পিটিআই
পর্যটনমন্ত্রী জয়ন্ত মল্ল বড়ুয়ার দাবি, ১৯৩৫ সালের মুসলিম বিয়ে ও তালাক নিবন্ধন আইনের আওতায় আইনিভাবে নির্দিষ্ট বিয়ের বয়সের আগেই তরুণ-তরুণীদের বিয়ে দেয়া হচ্ছিল। বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে ওই আইনটি বাতিল করে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এটি বাল্যবিয়ের সংখ্যা কমিয়ে আনতে ভূমিকা রাখবে।

ইউনিফর্ম সিভিল কোড বা অভিন্ন দেওয়ানি বিধি কার্যকরের মাধ্যমে প্রায় ৯০ বছরের পুরোনো মুসলিম বিয়ে ও তালাক নিবন্ধন আইন বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারতের আসাম সরকার।

১৯৩৫ সালের এ আইন বাতিলের সিদ্ধান্তে শুক্রবার আসামের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মার নেতৃত্বাধীন মন্ত্রিসভা চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে বলে জানিয়েছে এনডিটিভি।

ভারতের স্বাধীনতার পর দেশটির প্রথম রাজ্য হিসেবে কিছুদিন আগে অভিন্ন দেওয়ানি বিধি বা ইউনিফর্ম সিভিল কোড পাস করিয়ে নেয় উত্তরাখণ্ডের বিজেপি সরকার। আসামের এ সিদ্ধান্তের মাধ্যমে অভিন্ন দেওয়ানি বিধি কার্যকরের দিকে বিজেপি সরকার আরও এক ধাপ এগিয়ে গেল বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

রাজ্য মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর শুক্রবার আসামের পর্যটনমন্ত্রী জয়ন্ত মল্ল বড়ুয়া বলেন, ‘আমাদের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা ইতোমধ্যে জানিয়ে দিয়েছেন অভিন্ন দেওয়ানি বিধি কার্যকর করবে আসাম। আর ১৯৩৫ সালের মুসলিম বিয়ে ও তালাক নিবন্ধন আইন বাতিল করে দিয়ে সেই লক্ষ্যপূরণের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেয়া হল।’

তিনি বলেন, ‘এ সিদ্ধান্তের ফলে এবার থেকে আসামে আর মুসলিমদের বিয়ে এবং ডিভোর্সের বিষয়টি এ আইনের মাধ্যমে নথিভুক্ত করা যাবে না। আমাদের ইতোমধ্যে একটি স্পেশাল ম্যারেজ অ্যাক্ট আছে; আমরা চাই যে সেই আইনের আওতায় সব বিয়ে নথিভুক্ত হোক।’

পর্যটনমন্ত্রী জয়ন্ত মল্ল বড়ুয়ার দাবি, ১৯৩৫ সালের মুসলিম বিয়ে ও তালাক নিবন্ধন আইনের আওতায় আইনিভাবে নির্দিষ্ট বিয়ের বয়সের আগেই তরুণ-তরুণীদের বিয়ে দেয়া হচ্ছিল। বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে ওই আইনটি বাতিল করে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এটি বাল্যবিয়ের সংখ্যা কমিয়ে আনতে ভূমিকা রাখবে।

অভিন্ন দেওয়ানি বিধি বা ইউনিফর্ম সিভিল কোড হচ্ছে ভারতে নাগরিকদের ব্যক্তিগত আইন প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের প্রস্তাব, যা সব নাগরিকের ক্ষেত্রে তাদের ধর্ম নির্বিশেষে সমানভাবে প্রযোজ্য হবে।

আরও পড়ুন:
নিজস্ব মুদ্রায় ভারতের সঙ্গে বাণিজ্যে আগ্রহ প্রধানমন্ত্রীর
দিল্লি অভিমুখে লক্ষাধিক কৃষক, আটকাতে সড়কে কংক্রিটের দেয়াল
ভারত থেকে দেড় লাখ টন পেঁয়াজ চিনি কিনতে চায় সরকার
অজিত দোভালের ঢাকা সফর নিয়ে যা বলল দিল্লি
ভারতে সাজাভোগ শেষে দেশে ফিরল ২৫ নারী-পুরুষ ও শিশু

মন্তব্য

p
উপরে