× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

আন্তর্জাতিক
Ukraine closed the Russian oil pipeline to Europe
hear-news
player
google_news print-icon

ইউরোপে রুশ তেলের পাইপলাইন বন্ধ করল ইউক্রেন

ইউরোপে-রুশ-তেলের-পাইপলাইন-বন্ধ-করল-ইউক্রেন
ট্রান্সনেফ্টেরের কর্মকর্তা ইগর ডেমিন বলেন, ‘ইউরোপীয় ইউনিয়নের নিষেধাজ্ঞার কারণে ট্রানজিটের টাকা দিতে পারছে না রাশিয়া। এই অবস্থায় ইউক্রেনীয় কোম্পানি তেল পরিবহন পরিষেবার পুরো টাকা আগাম চাইছে।

রাশিয়া থেকে ইউরোপে পৌঁছানো তেলের পাইপলাইন বন্ধ করে দিয়েছে ইউক্রেন। মস্কো বলছে, ইউক্রেনের রাষ্ট্রীয় তেল পাইপলাইন অপারেটর ইউক্রট্রান্সনাফতা ড্রুজবা সিস্টেমের দক্ষিণ শাখার মাধ্যমে ইইউতে রাশিয়ান অশোধিত তেল সরবরাহ বন্ধ করে দিয়েছে।

বার্তা সংস্থা আরআইএ-এর প্রতিবেদনে বলা হয়, পাইপলাইন বন্ধ হওয়ায় হাঙ্গেরি, চেক প্রজাতন্ত্র এবং স্লোভাকিয়ায় তেল পাঠানো যাচ্ছে না। তবে বেলারুশ হয়ে পোল্যান্ড ও জার্মানির দিকে ট্রানজিট সচল বলে জানায় রাশিয়ার সরকার নিয়ন্ত্রিত পাইপলাইন ট্রান্সপোর্ট কোম্পানি ট্রান্সনেফ্টের।

কোম্পানির প্রেসিডেন্টের মুখপাত্র ইগর ডেমিন বলেন, ‘ইউরোপীয় ইউনিয়নের নিষেধাজ্ঞার কারণে ট্রানজিটের টাকা দিতে পারছে না রাশিয়া। এই অবস্থায় ইউক্রেনীয় কোম্পানি তেল পরিবহন পরিষেবার পুরো টাকা আগাম চাইছে।

‘ইউক্রেনের ভূখণ্ডের মধ্য দিয়ে ট্রানজিটের জন্য দেয়া টাকা ট্রান্সনেফ্টের অ্যাকাউন্টে ফেরত দেয়া হয়েছিল। বেসরকারি ব্যাংক গ্যাজপ্রমব্যাংক আমাদের জানিয়েছে, ইইউ প্রবিধান অনুযায়ী টাকা ফেরত পাঠিয়েছে।’

ট্রান্সনেফ্ট জানায়, ইউক্রেনের মাধ্যমে তেল ট্রানজিট পরিষেবাগুলোতে অর্থ প্রদানের বিকল্প খুঁজছে তারা। ইতোমধ্যে এ বিষয়ে একটি আবেদন পাঠানো হয়েছে গ্যাজপ্রমব্যাংকে।

ড্রুজবা বিশ্বের দীর্ঘতম পাইপলাইন নেটওয়ার্কগুলোর একটি। এটি ইউরোপীয় রাশিয়ার পূর্ব অংশ থেকে চেক প্রজাতন্ত্র, জার্মানি, হাঙ্গেরি, পোল্যান্ড এবং স্লোভাকিয়ার শোধনাগারগুলোতে প্রায় চার হাজার কিলোমিটার অপরিশোধিত তেল বহন করে।

এদিকে পাইপলাইন বন্ধের খবরে তেলের দামের পতন কমেছে। বেঞ্চমার্ক ব্রেন্ট ফিউচার ১.৬ শতাংশ বেড়ে ব্যারেল প্রতি ৯৮ ডলারের কাছাকাছি বাণিজ্য করছে। ইউএস ওয়েস্ট টেক্সাস ইন্টারমিডিয়েট (ডব্লিউটিআই) ব্যারেল প্রতি দাম নিচ্ছে ৯২ ডলার।

আরও পড়ুন:
অবশেষে ইউক্রেনের খাদ্যশস্য পাচ্ছে বিশ্ব
ড্রোন হামলায় ক্রিমিয়ায় রুশ নৌ দিবস বাতিল
ইউক্রেনের শীর্ষ শস্য ব্যবসায়ী নিহত
ইউক্রেনের কালো তালিকায় ভারতের শীর্ষ কূটনীতিক
রুশ হামলার তোয়াক্কা না করে স্বাভাবিক জীবনে

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
Amnesty calls for international intervention in Iran

ইরানে আন্তর্জাতিক হস্তক্ষেপ চায় অ্যামনেস্টি

ইরানে আন্তর্জাতিক হস্তক্ষেপ চায় অ্যামনেস্টি পুলিশি হেফাজতে মাহসা আমিনির প্রতিবাদে তেহরানে ২১ সেপ্টেম্বর বিক্ষোভ করছেন হাজারও মানুষ। ছবি: এএফপি
রয়টার্সের খবরে বলা হয়, চলমান বিক্ষোভে পুলিশসহ অন্তত ৮৩ জনের প্রাণ গেছে। এ খবরের পর পরই নিজেদের আশঙ্কার কথা জানিয়ে বিবৃতি দেয় মানবাধিকার সংস্থা- অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। তারা বলেছে, আন্তর্জাতিক হস্তক্ষেপ ছাড়া সংকট থেকে বেরোনো কঠিন।

ইরানে নারীর পোশাকের স্বাধীনতার দাবিতে চলমান প্রবল বিক্ষোভে প্রাণহানি বাড়ছে। বলা হচ্ছে, দুই সপ্তাহ ধরে চলা বিক্ষোভে অন্তত ৮৩ জন নিহত হয়েছেন। আন্তর্জাতিক হস্তক্ষেপ না এলে পরিস্থিতি আরও খারাপের দিকে যাবে বলে সতর্ক করেছে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল।

পুলিশি হেফাজতে কুর্দি তরুণী মাহসা আমিনির মৃত্যুর পর ১৬ সেপ্টেম্বর থেকে বিক্ষোভে ফেটে পড়ে ইরান। অন্তত ৮০ শহরে ছড়িয়ে পড়া বিক্ষোভ দমাতে নিরাপত্তা বাহিনী ব্যবহার করছে প্রাণঘাতী অস্ত্র।

রয়টার্সের খবরে বলা হয়, চলমান বিক্ষোভে পুলিশসহ অন্তত ৮৩ জনের প্রাণ গেছে। এ খবরের পর পরই নিজেদের আশঙ্কার কথা জানিয়ে বিবৃতি দেয় মানবাধিকার সংস্থা- অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। তারা বলেছে, আন্তর্জাতিক হস্তক্ষেপ ছাড়া সংকট থেকে বেরোনো কঠিন।

ইরানে আন্তর্জাতিক হস্তক্ষেপ চায় অ্যামনেস্টি
রাস্তায় ব্যারিকেড দিয়ে, আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করছেন হিজাববিরোধীরা

অ্যামনেস্টি বলেছে, ‘ইরানি সরকার তাদের ক্ষমতার প্রতি যেকোনো চ্যালেঞ্জ নস্যাৎ করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। দেশজুড়ে চলা বিক্ষোভকে নির্মমভাবে দমন করতে প্রয়োজনীয় সব কিছুই করছে।

‘নিন্দা জানিয়ে বিবৃতি না দিয়ে সমন্বিত সম্মিলিত পদক্ষেপ নিতে হবে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে। তা না হলে অগণিত মানুষের জন্য অপেক্ষা করছে মৃত্যু, পঙ্গুত্ব, নির্যাতন এবং বন্দিত্ব।’

বিক্ষোভে সহিংস ঘটনার ছবি এবং ভিডিও ফুটেজ বিশ্লেষণে মানবাধিকার সংস্থাটি বলছে, হতাহতের বেশির ভাগ ঘটনা নিরাপত্তা বাহিনীর সরাসরি গুলিতে ঘটেছে।

ইরানে আন্তর্জাতিক হস্তক্ষেপ চায় অ্যামনেস্টি
ইরানের অন্তত ৮০ শহরে ছড়িয়েছে বিক্ষোভ

এনজিওটি আরও জানায়, ২১ সেপ্টেম্বর ইরানের সব প্রদেশের সশস্ত্র বাহিনীর কমান্ডারদের কাছে জারি হওয়া একটি গোপন নথি হাতে পেয়েছিল তারা। এতে বিক্ষোভকারীদের ‘কঠোরভাবে মোকাবিলা করার’ নির্দেশ ছিল।

আরেকটি ফাঁস হওয়া নথিতে দেখা যায়, ২৩ সেপ্টেম্বর মাজানদারানের নিরাপত্তা বাহিনীকে নির্দয়তার সঙ্গে বিক্ষোভ মোকাবিলার নির্দেশ দিয়েছিলেন প্রদেশটির সশস্ত্র বাহিনীর কমান্ডার।

অ্যামনেস্টি বলছে, বিক্ষোভে ৫২ জনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছে তারা। তবে প্রকৃত সংখ্যা সম্ভবত বেশি। কিন্তু অসলোভিত্তিক ইরান হিউম্যান রাইটস বলছে, এ পর্যন্ত ৮৩ জন নিহত হয়েছে বলে নিশ্চিত হয়েছে তারা।

বিরোধীমত দমনে জোর অভিযান

ওয়াশিংটনভিত্তিক কমিটি টু প্রটেক্ট জার্নালিস্ট (সিপিজে) বলছে, বিক্ষোভ শুরুর পর থেকে অন্তত ২৫ সাংবাদিককে আটক করেছে ইরানি পুলিশ। এই তালিকায় আছেন মাহসা আমিনির দাফনের খবর কাভার করা সাংবাদিক ইলাহে মোহাম্মদি। বৃহস্পতিবার তাকে হেফাজতে নেয় নিরাপত্তা বাহিনী।

এর আগে শার্ঘ ডেইলির সাংবাদিক নিলুফার হামেদিকে আটক করে নিরাপত্তা বাহিনী। মাহসা কোমায় থাকা অবস্থায় হাসপাতালে গিয়েছিলেন তিনি। তার কারণেই পুরো ঘটনা বিশ্বের কাছে প্রকাশ পায়।

ইরানে আন্তর্জাতিক হস্তক্ষেপ চায় অ্যামনেস্টি
ইয়াজদ শহরে গাড়ির ওপর দাঁড়িয়ে পোশাকের স্বাধীনতার দাবিতে স্লোগান দিচ্ছেন নারীরা

আলোচিত ফটোসাংবাদিক ইয়ালদা মোয়াইরিকে ১৯ সেপ্টেম্বর বিক্ষোভ কাভার করার সময় আটক করে পুলিশ। ২০১৯ সালে ইরানে জ্বালানির দাম বাড়ানোর প্রতিবাদে হওয়া বিক্ষোভের একটি আইকনিক ছবির জন্য আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পেয়েছিলেন মোয়াইরি।

মানবাধিকার সংগঠনগুলো বলছে, সরকারের সমালোচনাকারী সাংবাদিকদের ধরতে দেশের ভেতর বড় ধরনের অভিযান চালাচ্ছে ইরানি পুলিশ। যারা মাহসা ইস্যুতে খবর সংগ্রহ করেছেন, তারা আছেন বেশি আতঙ্কে। এসব খবর যেন না ছড়াতে পারে, সে জন্য ইন্টারনেট পরিষেবা সীমিত করে দিয়েছে ইরান সরকার।

ইরানে আন্তর্জাতিক হস্তক্ষেপ চায় অ্যামনেস্টি
পূর্ব তেহরান থেকে গ্রেপ্তারের পর ইরানের সাবেক প্রেসিডেন্ট আকবর হাশেমি রাফসানজানির মেয়ে ফাইজেহ হাশেমি

আটক হয়েছেন সাবেক প্রেসিডেন্ট আকবর হাশেমি রাফসানজানির মেয়ে ফাইজেহ হাশেমিও। এই তালিকায় সর্বশেষ যুক্ত হয়েছেন ইরানের সাবেক তারকা ফুটবলার হোসেইন মানাহি। সোশ্যাল মিডিয়ায় বিক্ষোভকে সমর্থন জানানোর অপরাধে শুক্রবার তাকে আটক করা হয়।

এর আগে সংগীতশিল্পী শেরভিন হাজিপুরকে আটক করা হয়। বিক্ষোভ নিয়ে তার ‘বারায়ে’ (তোমার) গানটি ইনস্টাগ্রামে ভাইরাল হয়েছে। এখন অবশ্য গানটি তার অ্যাকাউন্ট থেকে মুছে ফেলা হয়েছে।

বিক্ষোভ যেভাবে শুরু

কুর্দি নারী মাহসা আমিনিকে গত ১৩ সেপ্টেম্বর তেহরানের ‘নৈতিকতা পুলিশ’ গ্রেপ্তার করে। ইরানের দক্ষিণাঞ্চল থেকে তেহরানে ঘুরতে আসা মাহসাকে একটি মেট্রো স্টেশন থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল, তিনি সঠিকভাবে হিজাব করেননি।

পুলিশ হেফাজতে থাকার সময়েই মাহসা অসুস্থ হয়ে পড়েন, এরপর তিনি কোমায় চলে যান। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ১৬ সেপ্টেম্বর তার মৃত্যু হয়। পুলিশ মাহসাকে হেফাজতে নির্যাতনের অভিযোগ অস্বীকার করলেও পরিবারের অভিযোগ গ্রেপ্তারের পর তাকে পেটানো হয়।

ইরানে আন্তর্জাতিক হস্তক্ষেপ চায় অ্যামনেস্টি
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ১৬ সেপ্টেম্বর মারা যান মাহসা আমিনি

মাহসার মৃত্যুর পর রাস্তায় বিক্ষোভের পাশাপাশি ফেসবুক ও টুইটারে #mahsaamini এবং #Mahsa_Amini হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে চলছে প্রতিবাদ।

ইতিহাস

ইরানে ১৯৭৯ সালের ইসলামিক বিপ্লবের পরই নারীদের জন্য হিজাব বাধ্যতামূলক করা হয়। দেশটির ধর্মীয় শাসকদের কাছে নারীদের জন্য এটি ‘অতিক্রম-অযোগ্য সীমারেখা’। বাধ্যতামূলক এই পোশাকবিধি মুসলিম নারীসহ ইরানের সব জাতিগোষ্ঠী ও ধর্মের নারীদের জন্য প্রযোজ্য।

হিজাব আইন আরও কঠোরভাবে প্রয়োগের জন্য চলতি বছরের ৫ জুলাই ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি একটি আদেশ জারি করেন। এর মাধ্যমে ‘সঠিক নিয়মে’ পোশাকবিধি অনুসরণ না করা নারীদের সরকারি সব অফিস, ব্যাংক এবং গণপরিবহনে নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

এ ঘটনায় গত জুলাইয়েও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে #no2hijab হ্যাশট্যাগ দিয়ে শুরু হয় প্রতিবাদ। দেশটির নারী অধিকারকর্মীরা ১২ জুলাই সরকার ঘোষিত জাতীয় হিজাব ও সতীত্ব দিবসে প্রকাশ্যে তাদের বোরকা ও হিজাব সরানোর ভিডিও পোস্ট করেন।

আরও পড়ুন:
ইরান বিক্ষোভে ভাইরাল সেই তরুণী কি গুলিতে নিহত?
বিক্ষোভ দমনে সীমান্ত পেরিয়েও ইরানি হামলা, ৯ কুর্দি নিহত
মাস্কের স্টারলিংক ইরানে কেন কাজ করবে না?
ইরান বিক্ষোভের পরিণতি কী?
নারী কোন পোশাক পরবে, সে সিদ্ধান্ত নারীর: মালালা

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Who is the Congress President?

কে হচ্ছেন কংগ্রেস সভাপতি

কে হচ্ছেন কংগ্রেস সভাপতি কংগ্রেসের সভাপতি পদে প্রার্থী শশী থারুর ও মল্লিকার্জুন খারগে। ছবি: সংগৃহীত
ভারতের অন্যতম বৃহত্তম রাজনৈতিক দল ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস নতুন সভাপতি পেতে যাচ্ছে। আর সভাপতি পদের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার জন্য লড়ছেন শশী থারুর ও মল্লিকার্জুন খারগে। গান্ধী পরিবারের নিরপেক্ষ ভূমিকায় থাকার কথা থাকলেও ইঙ্গিত মিলেছে মল্লিকার্জুনকেই সমর্থন করতে যাচ্ছেন তারা।

মনোনয়ন জমা দেয়ার শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে ভারতের প্রাচীনতম রাজনৈতিক দল কংগ্রেসের সভাপতি নির্বাচন। এবারে সভাপতি পদে গান্ধী পরিবারের কেউ মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেনি। ২০ বছরের ইতিহাসে এমন ঘটনা প্রথমবারের মতো ঘটলো।

এদিকে সভাপতি নির্বাচনে গান্ধী পরিবারের নিরপেক্ষ ভূমিকা পালনের কথা থাকলেও শেষ মুহুর্তে মল্লিকার্জুন খারগের প্রতি সমর্থন দেয়ার ইঙ্গিত মিলেছে।

আজই সভাপতি পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন জ্যেষ্ঠ রাজনীতিবিদ শশী থারুর। মল্লিকার্জুনেরও তিনটার আগেই কাগজপত্র জমা দেয়ার কথা।

এর আগে গতকালই মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন দিগ্বিজয়ী সিং। কিন্তু মল্লিকার্জুন খারগের সঙ্গে আলোচনার পর তিনি সভাপতি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা থেকে সরে দাঁড়ান।

গভীর রাতে হওয়া এক বৈঠকে কংগ্রেসের বর্ষীয়ান নেতা কেসি ভেনুগোপাল মল্লিকার্জুনকে জানান, নেতৃত্ব (গান্ধী পরিবার) চাইছে যে তিনি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। ভেনুগোপাল নিজেও মল্লিকার্জুনকে সমর্থন করছেন।

কংগ্রেসের ‘এক ব্যক্তি, এক পদ’ পলিসির কারণে রাজ্যসভার বিরোধী দলের নেতার পদ থেকে পদত্যাগ করতে হতে পারে মল্লিকার্জুনকে।

আরও পড়ুন:
পাঁচ রাজ্য কংগ্রেস সভাপতিকে বহিষ্কার করলেন সোনিয়া
গান্ধী পরিবারের নেতৃত্ব চান না কংগ্রেসের প্রবীণ নেতা
কংগ্রেসে নেতৃত্ব পরিবর্তনের দাবি বাড়ছে
কংগ্রেসের নেতৃত্ব হারাচ্ছে গান্ধী পরিবার?
জয়প্রকাশ যোগ দিলেন তৃণমূলে

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
19 killed in an explosion at an educational center in Kabul

কাবুলে শিক্ষা কেন্দ্রে বিস্ফোরণে নিহত ১৯

কাবুলে শিক্ষা কেন্দ্রে বিস্ফোরণে নিহত ১৯ কাবুল শহরের বিভিন্ন ভবন। ছবি: সংগৃহীত
হামলাস্থল দাশত-ই-বারচি এলাকার বাসিন্দাদের অনেকে সংখ্যালঘু হাজারা সম্প্রদায়ের। অতীতে অনেক হামলার শিকার হয়েছে এ সম্প্রদায়ের লোকজন। সর্বশেষ হামলার পর তাৎক্ষণিকভাবে দায় স্বীকার করেনি কোনো পক্ষ।

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে শুক্রবার একটি শিক্ষা কেন্দ্রে বিস্ফোরণে কমপক্ষে ১৯ জন নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছে আরও অনেকে।

শহরের পশ্চিমে দাশত-ই-বারচি এলাকায় ‘কাজ’ নামের শিক্ষা কেন্দ্রে এ হামলা হয় বলে জানিয়েছে পুলিশ।

শিক্ষা কেন্দ্রের কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে বিবিসির প্রতিবেদনে জানানো হয়, হামলার সময় সেখানে পরীক্ষা চলছিল।

দাশত-ই-বারচি এলাকার বাসিন্দাদের অনেকে সংখ্যালঘু হাজারা সম্প্রদায়ের। অতীতে অনেক হামলার শিকার হয়েছে এ সম্প্রদায়ের লোকজন।

হামলার পর তাৎক্ষণিকভাবে দায় স্বীকার করেনি কোনো পক্ষ।

আফগানিস্তানে তালেবান নেতৃত্বাধীন সরকারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আবদুল নাফি টাকোর হামলার নিন্দা জানিয়ে বলেন, ঘটনাস্থলে গেছে নিরাপত্তা দল।

তিনি বলেন, বেসামরিক লক্ষ্যবস্তুতে আঘাতের মধ্য দিয়ে শত্রুরা তাদের নিষ্ঠুরতা ও নৈতিকতাহীনতার পরিচয় দিয়েছে।

গত বছরের আগস্টে ক্ষমতায় আসে তালেবান। দলটির ভাষ্য, তারা আফগানিস্তানে স্থিতিশীলতা ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করছে, তবে দক্ষিণ এশিয়ার দেশটিতে নিয়মিত হামলা চালিয়ে যাচ্ছে জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট (আইএস)।

দাশত-ই-বারচি এলাকায় বেশ কিছু হামলা হয়েছে। এসব হামলার শিকার হয়েছে স্কুল ও হাসপাতাল।

তালেবান ক্ষমতায় ফেরার আগে গত বছর একটি গার্লস স্কুলে হামলায় কমপক্ষে ৮৫ জন নিহত হয়। এ হামলায় আহত হয় অনেকে।

আরও পড়ুন:
কাবুলে রুশ দূতাবাসের সামনে আত্মঘাতী হামলা, নিহত ৮
আফগানিস্তানে ভূমিকম্পে ৬ মৃত্যু
শততম ম্যাচে জয়ের জন্য আফগানদের লক্ষ্য ১০৬ রান
নারী বিষয়ে তালেবানকে চ্যালেঞ্জ করুক মুসলিম বিশ্ব: আমেরিকার দূত
এশিয়া কাপ: উদ্বোধনী ম্যাচে জয় চায় দুই দলই

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
23 killed in missile attack in Zaporizhia
রাশিয়া-ইউক্রেন পাল্টাপাল্টি দোষারোপ

জাপোরিজ্জায় ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় নিহত ২৩

জাপোরিজ্জায় ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় নিহত ২৩ গাড়িবহরে হামলার ঘটনায় রাশিয়া ও ইউক্রেন একে অপরকে দোষারোপ করছে। ছবি: সংগৃহীত
শুক্রবার ইউক্রেনের জাপোরিজ্জাসহ চার অঞ্চল রাশিয়ার সঙ্গে যুক্ত হওয়ার ঘোষণা দিতে যাচ্ছেন প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। এর আগে সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে জাপোরিজ্জাকে স্বীকৃতিও দিয়েছেন তিনি। এমন পরিস্থিতিতে অঞ্চলটিতে একটি গাড়িবহরে ভয়াবহ ক্ষেপণাস্ত্র হামলা হয়েছে। রাশিয়া-ইউক্রেন এই ঘটনার জন্য একে অপরকে দায়ী করেছে।

ইউক্রেনের দক্ষিণাঞ্চলীয় অঞ্চল জাপোরিজ্জায় একটি গাড়িবহরে ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় ব্যাপক হতাহতের ঘটনা ঘটেছে। ইউক্রেনের কর্মকর্তারা এই হামলার জন্য রাশিয়ার সেনাদের দায়ী করেছে।

আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, হামলায় ২৩ জন নিহত ও ২৮ জন আহত হয়েছে। হতাহতের সবাই বেসামরিক লোক।

টেলিগ্রামের এক বার্তায় ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় হতাহতের সংখ্যা নিশ্চিত করেছেন জাপোরিজ্জার আঞ্চলিক গভর্নর ওলেক্সান্দার স্টারুক।

তিনি জানিয়েছেন, গাড়িবহরে থাকা ব্যক্তিরা তাদের আত্মীয়দের রাশিয়া অধিকৃত ভূখণ্ডে নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা করেছিল।

উদ্ধারকারীরা ঘটনাস্থলেই রয়েছে।

তবে ক্রেমলিন মনোনিত জাপোরিজ্জা কর্তৃপক্ষ এই হামলার জন্য ইউক্রেনকে দায়ী করেছে।

মস্কোপন্থি কর্মকর্তা ভ্লাদিমির রোগভ টেলিগ্রামে দেয়া এক বার্তায় দাবি করেছেন, কিয়েভের শাসকেরা রাশিয়ার ওপর দায় চাপানোর চেষ্টা করছে, যা একটি জঘন্য উসকানি।

তিনি বলেন, ইউক্রেনীয় যোদ্ধারা আরও একটি সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করেছে।

এদিকে আজই রাশিয়ার মূল ভূখণ্ডের সঙ্গে যুক্ত হতে যাওয়া ইউক্রেনের চারটি অঞ্চলের মধ্যে রয়েছে জাপোরিজ্জা। গতকালই প্রেসিডেন্সিয়াল ডিক্রির মাধ্যমে জাপোরিজ্জা ও খেরসনের স্বাধীনতার স্বীকৃতি দিয়েছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

রাশিয়ার মূল ভূখণ্ডের সঙ্গে ইউক্রেনের চার অঞ্চলকে যুক্ত করার প্রাথমিক পদক্ষেপ হিসেবেই এমন ডিক্রি জারি করা হয়েছে।

তবে পশ্চিমা বিশ্ব সাফ জানিয়ে দিয়েছে, রাশিয়ার সঙ্গে ইউক্রেনীয় অঞ্চলের অন্তর্ভূক্তির স্বীকৃতি তারা দেবে না।

জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্টোনিও গুতেরেস পর্যন্ত বলেছেন, এ পদক্ষেপের কোনো আইনি ভিত্তি নেই।

আরও পড়ুন:
রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ থামান: জাতিসংঘে প্রধানমন্ত্রী
অধিকৃত ইউক্রেনের ভোট থেকে যা চায় রাশিয়া
দোনবাস রক্ষায় রুশ পরমাণু অস্ত্র, ইউএস কমান্ডারের মতে পরমাণু যুদ্ধ সম্ভব
রাশিয়াকে শাস্তি পেতেই হবে: জেলেনস্কি
রাশিয়ার বিরুদ্ধে সরাসরি যুদ্ধে ন্যাটো!  

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Anti war poem Russian poet raped by riot police

যুদ্ধবিরোধী কবিতা: রুশ কবিকে ‘ধর্ষণ করল দাঙ্গা পুলিশ’

যুদ্ধবিরোধী কবিতা: রুশ কবিকে ‘ধর্ষণ করল দাঙ্গা পুলিশ’ রুশ কবি ও মানবাধিকারকর্মী আর্টেম কামারদিন। ছবি: সংগৃহীত
কবির আইনজীবী বলেন, ‘মস্কো পুলিশ আর্টেম কামারদিনের ফ্ল্যাটে অভিযান চালিয়ে তাকে এবং তার বান্ধবীকে মারধর করে। পরে একটি ডাম্বেল দিয়ে তাকে ধর্ষণ করে।

২৭ সেপ্টেম্বর, মস্কো সময় বেলা ২টা। মস্কোর টভারসকোই জেলা অফিস থেকে বেরিয়ে আসছেন রুশ কবি ও মানবাধিকারকর্মী আর্টেম কামারদিন। তার সঙ্গে চিকিৎসক ও পুলিশ। বাইরে তার জন্য অপেক্ষা করছে অ্যাম্বুলেন্স।

কামারদিনের আইনজীবী বলেন, ‘মারধরের ফলে আহত হয়েছিলেন কামারদিন। এ জন্য পুলিশ অ্যাম্বুলেন্স ডেকেছিল। তবে চিকিৎসকরা তেমন গুরুতর আঘাত পায়নি।’

পরদিন সকালে রাশিয়ার টেলিভিশনে বলা হয়, গুরুতর আঘাত না থাকায় কামারদিনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়নি। তাকে আপাতত আটকে রেখেছে পুলিশ।

কামারদিনকে ২৬ সেপ্টেম্বর চরমপন্থা মামলায় (ফৌজদারি বিধির ২৮২ ধারার অংশ ২) সন্দেহভাজন হিসেবে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল।

এর আগে রুশ দৈনিক নভায়া গেজেটা কোনো উৎসের উদ্ধৃতি ছাড়া জানায়, গ্রেপ্তারের পর আইন প্রয়োগকারীরা কারমারদিনকে ভীষণ মারধর করে। এক পর্যায়ে তার মলদ্বারে একটি ডাম্বেল ঢুকিয়ে দিয়েছিল।

কী ঘটেছিল সেদিন

২৬ সেপ্টেম্বর সাব-মেশিনগান হাতে একদল দাঙ্গা পুলিশ কারমারদিনের অ্যাপার্টমেন্টে অভিযান চালায়। বাড়িটিতে তখন কামারদিনের সঙ্গে তার বান্ধবী আলেকজান্দ্রা পপোভা ও মানবাধিকারকর্মী আলেকজান্ডার মেনিউকভ ছিলেন। কামারদিনের গ্রেপ্তারের ফুটেজ টেলিগ্রাম চ্যানেল ‘১১২’ সম্প্রচার হয়েছিল

রুশ দৈনিক নোভায়া গেজেটা বলছে, অভিযানের সময় কারমারদিনকে তার কবিতার পাঠের জন্য ক্যামেরার সামনে ক্ষমা চাইতে বাধ্য করা হয়েছিল।

২৫ সেপ্টেম্বর মস্কোর ট্রাইমফালনায়া স্কোয়ারে ফিউচারিস্ট আন্দোলনের নেতা ও কবি ভ্লাদিমির মায়াকভস্কির স্মৃতিস্তম্ভে যুদ্ধবিরোধী কবিতা সন্ধ্যার আয়োজন হয়েছিল। সেখানে উপস্থিত হয়ে কামারদিন বলেছিলেন, ‘গ্লোরি টু কিভান রুশ, নভোরোসিয়া- সাক ইট!’ যার অর্থ, কিভান রুশের জয় হোক, চুলোয় যাক নভোরোসিয়া।

আদি রুশরা পূর্ব স্লাভীয় উপজাতি থেকে এসেছিল, তাদের সাংস্কৃতিক পূর্বপুরুষদের ভিত্তি কিভান রুশে। আর নতুন রাশিয়াকে ডাকা হয় নভোরোসিয়া।

টেলিগ্রাম চ্যানেল ‘১১২’ প্রকাশিত ভিডিওতে দেখা যায়, কামারদিন একটি অ্যাপার্টমেন্টে হাঁটু গেড়ে বসে আছেন, হাত দুটি পেছনে বাঁধা। তার মুখে মারধরের চিহ্ন ছিল।

এ সময় তাকে বলতে শোনা যায়, ‘আমার ভুল হয়েছে, ক্ষমা চাই। আমি যা করেছি তার জন্য অনুতপ্ত।

কিল মি, মিলিশিয়াম্যান!- কবিতাটি আর কখনো পড়ব না, কথা দিলাম।’

কামারদিনের বান্ধবী আলেকজান্দ্রা পপোভা বলেন, ‘অভিযানের সময় আমিও নিপীড়নের শিকার হয়েছি। আমার চুল কেটে দিয়েছিল ওরা। চেহারা, মুখ স্কচটেপ এবং সুপারগ্লু দিয়ে আটকে দিয়েছিল।

‘আমাকেও মারধর করা হয়। এক পর্যায়ে তারা আমাকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের হুমকিও দেয়। পরে কামারদিনকে মারধর করার ভিডিও আমাকে দেখায়। অ্যাপার্টমেন্ট থেকে ৬০০ ডলার খোয়া গেছে।’

গ্রেপ্তারের পর কামারদিন এবং পপোভাকে অ্যাপার্টমেন্ট থেকে হাতকড়া পরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। মানবাধিকারকর্মী আলেকজান্ডার মেনিউকভকে ছেড়ে দেয় পুলিশ।

রাশিয়ান সেনাবাহিনীকে ‘অসম্মান’ করার বিষয়ে একটি প্রশাসনিক প্রতিবেদন পপোভার বিরুদ্ধে তৈরি করা হয়েছিল। পরে অবশ্য তাকে ছেড়ে দেয়া হয়। তিনিই এখন চরমপন্থা সংক্রান্ত ফৌজদারি মামলার সাক্ষী।

চিকিৎসকরা পপোভার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন পেয়েছেন। অভিযানের সময় মারধরের শিকার আলেকজান্ডার মেনিউকভও ফৌজদারি মামলার সাক্ষী। তার ডান কান, বাম হাতের কব্জি ও পিঠে একাধিক আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে।

ওই আয়োজনে অংশ নেয়া অন্য দুইজনকেও চরমপন্থার ফৌজদারি মামলায় সন্দেহভাজন হিসেবে গ্রেপ্তার করা হয়। তারা হলেন ২৬ বছর বয়সী নিকোলাই ডেনেকো এবং ২১ বছর বয়সী ইয়েগর শেটাভবা। তারাও ক্যামেরার সামনে সেদিনের ঘটনায় ক্ষমা চেয়েছেন।

ভ্লাদিমির ভ্লাদিমিরোভিচ মায়াকভস্কি ছিলেন রুশ এবং সোভিয়েত কবি, নাট্যকার, শিল্পী এবং মঞ্চ ও চলচ্চিত্র অভিনেতা। বিশ শতকের প্রথম দিকের রুশ ফিউচারিজমের প্রতিনিধিদের একজন তিনি।

আরও পড়ুন:
রুশ সার্বভৌমত্ব রক্ষায় ৩ লাখ রিজার্ভ সেনা তলব করছেন পুতিন
পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার নিয়ে পুতিনকে হুঁশিয়ারি বাইডেনের
রাশিয়াকে নিয়ে পশ্চিমাদের বিরুদ্ধে মহাশক্তি বানাতে চায় চীন
জার্মানি চূড়ান্ত সীমা লঙ্ঘন করেছে: রাশিয়া
খারকিভ পুনরুদ্ধার, কিয়েভের বড় সাফল্য

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
BBC Bangla Radio Service is shutting down

বন্ধ হচ্ছে বিবিসি বাংলা রেডিও সার্ভিস

বন্ধ হচ্ছে বিবিসি বাংলা রেডিও সার্ভিস বাংলাসহ মোট ১০টি ভাষায় সম্প্রচার বন্ধ করতে যাচ্ছে বিবিসি। ছবি: সংগৃহীত
অর্থ বাঁচাতে ১০টি ভাষার রেডিও সার্ভিস বন্ধ করতে যাচ্ছে ব্রিটিশ ব্রডকাস্টিং করপোরেশন। এর মধ্যে রয়েছে বাংলা সার্ভিসও। এ ছাড়া বাংলা ইউনিটের কার্যক্রম লন্ডন থেকে সরিয়ে ঢাকায় নিয়ে আসার প্রস্তাবও করা হয়েছে। তবে চীন, রাশিয়া, ইউক্রেন ও আফগানিস্তানের মতো দেশের শ্রোতাদের জন্য আরও বিনিয়োগ করতে চায় সংবাদমাধ্যমটি।

বিবিসি বাংলা রেডিও সার্ভিস ৮০ বছরেরও বেশি সময় চলার পর অবশেষে বন্ধ হতে যাচ্ছে।

ইনডিপেনডেন্ট ইউকের এক প্রতিবেদনে এমনটাই বলা হয়েছে।

বিবিসি রেডিওর বাংলা সার্ভিস ছাড়াও আরও ৯টি ভাষাতেও সম্প্রচার বন্ধের পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছে যুক্তরাজ্যের রাষ্ট্রীয় অর্থায়নে চালিত সংবাদমাধ্যমটি।

এ ছাড়া খরচ কমাতে কিছু ইউনিটকে লন্ডন থেকে সরিয়ে নিজ দেশে পাঠানোর প্রস্তাবও করা হয়েছে। সে ক্ষেত্রে বিবিসি বাংলা সার্ভিসের পরিষেবা ঢাকায়, থাই পরিষেবা ব্যাংককে, কোরিয়ান পরিষেবা সিউলে এবং ফোকাস অন আফ্রিকা টিভি বুলেটিন নাইরোবি থেকে সম্প্রচার করা হবে।

রেডিওতে বাংলা ছাড়া সম্প্রচার বন্ধ করার প্রস্তাব করা হয়েছে আরবি, ফার্সি, কিরগিজ, উজবেক, হিন্দি, বাংলা, চীনা, ইন্দোনেশিয়ান, তামিল ও উর্দু রেডিওর।

ফলে এসব পরিষেবায় কর্মরত ৩৮২ জন চাকরি হারাতে যাচ্ছেন।

বিবিসির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, উচ্চ মূল্যস্ফীতি, বাড়তে থাকা খরচ ও লাইসেন্স ফির নিষ্পত্তির কারণে সংবাদমাধ্যমটিকে কিছু কঠিন সিদ্ধান্তের দিকে যেতে হচ্ছে।

বিবিসির পরিষেবাগুলোতে ব্যয় হওয়া ৫০০ মিলিয়ন পাউন্ড থেকে ২৮ দশমিক ৫ মিলিয়ন পাউন্ড বাঁচিয়ে পুনরায় অন্য খাতে বিনিয়োগ করতে চায় প্রতিষ্ঠানটি।

১০টি ভাষায় বিবিসি রেডিও বন্ধ হলেও বিশ্বের কাছে চীনের গল্প তুলে ধরতে আরও খরচ করতে চায় প্রতিষ্ঠানটি। সে জন্য নতুন চায়না গ্লোবাল ইউনিট প্রতিষ্ঠা করার জন্য অর্থ দরকার তাদের। সে ক্ষেত্রে বেঁচে যাওয়া অর্থ এই প্রকল্পে ব্যয় করা সম্ভব হবে।

এ ছাড়া রাশিয়া, ইউক্রেন ও আফগানিস্তানের শ্রোতাদের কাছে পৌঁছানোর বিষয়ে ও সংবাদ পরিবেশনে আরও নিবিড়ভাবে কাজ করতে চায় বিবিসি।

আরও পড়ুন:
ব্রিটিশ ‘নির্ভীক’ সাংবাদিক বহিষ্কার রাশিয়ার, নিন্দা বিবিসির
বিশ্বজুড়ে সংবাদমাধ্যম ও সরকারি সাইটে বিপর্যয়

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Tearshell arrests 90 in anti Iranian protests in Norway

নরওয়েতে ইরানবিরোধী বিক্ষোভে টিয়ার শেল, আটক ৯০

নরওয়েতে ইরানবিরোধী বিক্ষোভে টিয়ার শেল, আটক ৯০ ইরানবিরোধী বিক্ষুব্ধরা নরওয়ে পুলিশের ওপরও হামলা করেছে। ছবি: ডয়চে ভেলে
ইরানে পোশাকের স্বাধীনতার দাবিতে চলা আন্দোলনের প্রতি সমর্থন জানাতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশেও বিক্ষোভ হচ্ছে। নরওয়ের রাজধানী অসলোতে ইরানের বিক্ষোভকারীদের সমর্থনে ইরানি দূতাবাসের সামনে জড়ো হয় একদল মানুষ। এ সময় জড়ো হওয়া বিক্ষোভকারীরা আক্রমণাত্মক হয়ে উঠলে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ বাধে।

নৈতিকতা পুলিশের হেফাজতে কুর্দি তরুণী মাহসা আমিনির মৃত্যুর ঘটনা কেন্দ্র করে ইরানে পোশাকের স্বাধীনতার দাবিতে চলা আন্দোলনের ইস্যুতে সহিংসতা ও গ্রেপ্তারের ঘটনা ঘটেছে ইউরোপের দেশ নরওয়েতে।

দেশটির রাজধানী অসলোতে অবস্থিত ইরানি দূতাবাসের সামনে প্রবাসী কুর্দি বিক্ষোভকারীরা জড়ো হয়। এ সময় তারা মাহসাকে নিয়ে এবং ইরানের বিরুদ্ধে স্লোগান দিতে থাকে।

পুলিশ জানিয়েছে, বিক্ষোভরত বেশ কয়েকজন আক্রমণাত্মক হয়ে পড়ে এবং গেট ভেঙে দূতাবাস ভবনে প্রবেশের চেষ্টা করলে পুলিশ বাধা দেয়।

এ সময় বিক্ষুব্ধরা পুলিশের দিকে পাথর ছুড়ে মারে এবং লাঠি হাতে চড়াও হলে পরিস্থিতি সামাল দিতে এবং বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে তারা টিয়ার শেল নিক্ষেপ করে।

নরওয়েতে ইরানবিরোধী বিক্ষোভে টিয়ার শেল, আটক ৯০
বিক্ষোভকারীদের হাতে কুর্দি ভাষায় লেখা ও ইরানবিরোধী প্ল্যাকার্ড ছিল

ঘটনাস্থল থেকে ৯০ জনকে গ্রেপ্তার করা হয় এবং এ ঘটনায় দুজন সামান্য আহত হয়েছেন।

ইরানের দূতাবাস ঘিরে হওয়া এই বিক্ষোভ কোন সংগঠন আয়োজন করেছে, তা জানা যায়নি।

ইরানি দূতাবাস এই ঘটনা নিয়ে এখন পর্যন্ত কোনো আনুষ্ঠানিক মন্তব্য করেনি।

বিক্ষোভ চলাকালীন অনেকের হাতেই ইরানবিরোধী পোস্টার দেখা গেছে। বিক্ষোভকারীরা এ সময় ‘নারী, জীবন ও স্বাধীনতা’ এবং ‘কুর্দিস্তান দীর্ঘজীবী হোক’ স্লোগান দিতে থাকে।

এর আগে ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসেও ইরানবিরোধী বিক্ষোভে পুলিশ টিয়ার শেল নিক্ষেপ করে এবং সেখানেও বিক্ষোভকারীদের গ্রেপ্তারের ঘটনা ঘটে।

আরও পড়ুন:
বিক্ষোভ দমনে সীমান্ত পেরিয়েও ইরানি হামলা, ৯ কুর্দি নিহত
মাস্কের স্টারলিংক ইরানে কেন কাজ করবে না?
ইরান বিক্ষোভের পরিণতি কী?
নারী কোন পোশাক পরবে, সে সিদ্ধান্ত নারীর: মালালা
ইরানে গুলির মুখেও বিক্ষোভকারীরা অটল, নিহত বেড়ে ৭৬

মন্তব্য

p
উপরে