× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

আন্তর্জাতিক
Bad days ahead Pakistan minister
hear-news
player
print-icon

খারাপ দিন তো সামনে: পাকিস্তানের অর্থমন্ত্রী

খারাপ-দিন-তো-সামনে-পাকিস্তানের-অর্থমন্ত্রী
মন্ত্রী বলেন, সরকার আগামী তিন মাসের জন্য পণ্য আমদানি বন্ধ রাখবে। এভাবে কোনো দেশ চলতে পারে না। পরিস্থিতি না বদল হলে পাকিস্তানে আরও খারাপ দিন আসতে চলেছে।

অর্থনৈতিকসহ নানা সংকটে বিপর্যস্ত পাকিস্তানের সামনে আরও খারাপ দিন অপেক্ষা করছে বলে মনে করছেন দেশটির অর্থমন্ত্রী মিফতা ইসমাইল।

করাচিতে পাকিস্তান স্টক এক্সচেঞ্জে শুক্রবার এক অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি

মন্ত্রী বলেন, সরকার আগামী তিন মাসের জন্য পণ্য আমদানি বন্ধ রাখবে। এভাবে কোনো দেশ চলতে পারে না। পরিস্থিতি না বদল হলে পাকিস্তানে আরও খারাপ দিন আসতে চলেছে।

এই সংকটের জন্য সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ও তার দল তেহরিক-ই-ইনসাফকে দায়ী করেন মিফতা। বলেন, কোনো দেশ এত বেশি আর্থিক ঘাটতি নিয়ে উন্নতি করতে পারে না। শুধু রাজকোষ ঘাটতি নয়, ঋণের পরিমাণও ৮০ শতাংশ বেড়েছে।

পাক অর্থমন্ত্রী বলেন, পাকিস্তান মুসলিম লীগের (নওয়াজ) আমলে দেশের বাজেট ঘাটতি ছিল ১৬০০ বিলিয়ন ডলার। গত চার বছরে তা বেড়ে হয়েছে ৩৫০০ বিলিয়ন ডলার।

তিনি বলেন, এমন পরিস্থতিতে কোনো দেশই উঠে দাঁড়াতে পারে না। দেশের ঋণ যখন বাজেটের ৮০ শতাংশ হয় তখন কিছুই করার থাকে না।

মন্ত্রী বলেন, ‌আমরা সঠিক পথে আছি, কিন্তু স্পষ্টতই খারাপ দিন দেখতে পাচ্ছি। আমরা যদি তিন মাসের জন্য আমদানি নিয়ন্ত্রণ করি তবে বিভিন্ন উপায়ে আমাদের রপ্তানি বাড়াতে পারব।

অবশ্য পাকিস্তানের অর্থমন্ত্রী ঘুরে দাঁড়ানোর কথা বললেও বাস্তবে পরিস্থিতি ক্রমেই জটিল হচ্ছে। ডলারের বিপরীতে কমছে পাকিস্তানি রুপির দাম। তার ওপর আইএমএফের আর্থিক সাহায্য় পাওয়া নিয়ে দেখা দিয়েছে অনিশ্চয়তা।

অর্থনৈতিকসহ নানা সংকটে পড়েছে এশিয়ার এই দেশ। রিজার্ভ কমে এসেছে। খাবার, জ্বালানি, বিদ্যুৎ নিয়ে তৈরি হয়েছে অস্থিরতা। বিলাসদ্রব্যের আমদানিতে দেয়া হয়েছে নিষেধাজ্ঞা।

বিদ্যুৎ ব্যবস্থাপনা নিয়ে ক্ষুব্ধ পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের চাকরিচ্যুতির হুমকি দিয়েছেন। এ ছাড়া আটার দাম কমানোর পরামর্শ দিয়ে জনগণের উদ্দেশে তিনি বলেছেন, প্রয়োজনে নিজের জামা-কাপড় বিক্রি করে কম দামে আটা খাওয়াবেন।

বিভিন্ন নাটকীয়তার পর গত ৯ এপ্রিল মধ্যরাতের অনাস্থা ভোটে পাকিস্তানে ৬৯ বছর বয়সী ইমরান খানের প্রধানমন্ত্রিত্বের অবসান ঘটে। পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ নেতা ইমরান দেশটির ২২তম প্রধানমন্ত্রী ছিলেন।

পরে পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ জাতীয় পরিষদে আবার ভোটাভুটিতে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) নেতা শাহবাজ শরিফ। ক্ষমতায় এসেই নানা বিষয়ে ইমরান খানের ওপর দায় চাপিয়েছেন তিনি।

দুর্নীতির দায়ে নওয়াজ শরিফ অভিশংসিত হওয়ার পর ২০১৮ সালে চার দলের সমর্থন নিয়ে ক্ষমতায় এসেছিলেন ইমরান। তার সরকারের মেয়াদ ছিল ২০২৩ সালের আগস্ট পর্যন্ত।

আরও পড়ুন:
ইমরান খানের পিটিআই নিয়েছিল নিষিদ্ধ বিদেশি অনুদান
পাকিস্তানে বন্যায় ১৩৬ মৃত্যু, ইরানে ৬৯
পাকিস্তানে প্রথম হিন্দু নারী ডেপুটি পুলিশ সুপার

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
There is an attempt to brand us as corrupt the grassroots

আমাদের দুর্নীতিগ্রস্ত বলে দাগ লাগানোর চেষ্টা চলছে: তৃণমূল

আমাদের দুর্নীতিগ্রস্ত বলে দাগ লাগানোর চেষ্টা চলছে: তৃণমূল ছবি: সংগৃহীত
পশ্চিমবঙ্গের শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু সাংবাদিকদের বলেন, ‘গত দুদিন ধরে রাজ্যে সবচেয়ে আলোচনার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে তৃণমূলের ১৯ নেতা মন্ত্রীর সম্পত্তি বৃদ্ধি এবং জনস্বার্থ মামলা। আদালতের রায় নিয়ে কিছু বলার নেই। আইন আইনের মতো চলবে।’

সম্পত্তি বৃদ্ধি মামলায় বিরোধীদের বিরুদ্ধে পাল্টা দুর্নীতিগ্রস্ত বলে অভিযোগ তুলেছেন শাসক দল তৃণমূলের নেতা ও মন্ত্রীরা।

তৃণমূল বলছে, ‘আমাদের কোন লুকোচাপা নেই। তবু দুর্নীতিগ্রস্ত বলে দাগ লাগানোর চেষ্টা করছে বিরোধীরা।’

বুধবার বিধানসভায় ডাকা তৃণমূলের সংবাদ সম্মেলনে ব্রাত্য বসু, ফিরহাদ হাকিম, মলয় ঘটক, অরূপ রায়, শিউলি সাহা, জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক ও অন্যান্য নেতৃবৃন্দ সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে বিরোধীদের বিরুদ্ধে পাল্টা অভিযোগ করেন।

এ দিন পশ্চিমবঙ্গের শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু সাংবাদিকদের বলেন, ‘গত দুদিন ধরে রাজ্যে সবচেয়ে আলোচনার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে তৃণমূলের ১৯ নেতা মন্ত্রীর সম্পত্তি বৃদ্ধি এবং জনস্বার্থ মামলা। আদালতের রায় নিয়ে কিছু বলার নেই। আইন আইনের মতো চলবে।’

এ দিন ব্রাত্য বলেন, 'সম্পত্তি বৃদ্ধি পেয়েছে অধীর রঞ্জন চৌধুরী, সূর্যকান্ত মিশ্র, অশোক ভট্টাচার্য, আবু হেনা, কান্তি গঙ্গোপাধ্যায়, নেপাল মাহাতো, ধীরেন বাগদি সহ একাধিক ব্যক্তির। তালিকায় তাদের নামও রয়েছে। সেগুলো নিয়ে কোন চর্চা হচ্ছে না কেন ? একটা ধারণা তৈরি করার চেষ্টা করা হচ্ছে, তৃণমূলই কেবল দুর্নীতিগ্রস্ত।’

অন্যদিকে ফিরহাদ হাকিম বলেন, 'নির্বাচনী হলফনামায় আয়-ব্যয়ের সমস্ত হিসাব দিয়েছি । আয়কর দপ্তর কোন পদক্ষেপ করেনি। রোজগার করা, সম্পত্তি বাড়ানো কোন অন্যায় নয়। এটা জনস্বার্থ মামলা নয়, রাজনৈতিক স্বার্থে করা মামলা।'

২০১১ সাল থেকে তৃণমূলের নেতা মন্ত্রীদের নির্বাচন কমিশনের হলফনামায় দেয়া সম্পত্তির পরিমাণ বহুগুণ বেড়েছে। ২০১৭ সালে এ বিষয়ে বিপ্লব কুমার চৌধুরী ও অনিন্দ্য সুন্দর দাস নামে দুই ব্যক্তি কলকাতা হাইকোর্টে একটি জনস্বার্থ মামলা করেন। এই মামলায় ফিরহাদ হাকিম, মলয় ঘটক, জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক, অরূপ রায়, ব্রাত্য বসু, জাভেদ খান, শিউলি সাহা ও অন্যান্য নেতা মন্ত্রীদের নাম রয়েছে।

আরও পড়ুন:
বোরোলিন নিয়ে চলি: কুনাল ঘোষ
জেল হেফাজতে পার্থ-অর্পিতা
আগামী লোকসভা নির্বাচনে ভেসে যাবে বিজেপি: মমতা
ভারতের উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচনে ভোট দেবে না তৃণমূল
ত্রিপুরায় তৃণমূলের নতুন কমিটি

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
The Supreme Court heard the request of Nupur

নূপুরের আকুতি শুনল সুপ্রিম কোর্ট

নূপুরের আকুতি শুনল সুপ্রিম কোর্ট
বিচারকরা জানান, তারা নূপুরের হত্যার হুমকি বিবেচনা করেছেন। তাই তার বিরুদ্ধে মামলা বাতিলের জন্য দিল্লি হাইকোর্টে যাওয়ার অনুমতি দেয়া হয়েছে। এতে বিভিন্ন জায়গায় গিয়ে তাকে আর হাজিরা দিতে হবে না।

মহানবী (সা.)-কে নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্যের জেরে বিজেপি নেতা নূপুর শর্মাকে জুনে বরখাস্ত করে তার দল। ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে মামলা হয় নূপুরের নামে। নানান সময়ে তাকে ডাকা হয় বিভিন্ন থানায়। আছে প্রাণনাশের হুমকিও। এ অবস্থায় ভীষণ বিপাকে পড়েছেন নূপুর। মুক্তি পেতে তাই তিনি আকুতি জানিয়েছিলেন সুপ্রিম কোর্টের কাছে। হতাশ করেননি বিচারক

নূপুর শর্মার অনুরোধে তার বিরুদ্ধে সব মামলা একত্রিত করার নির্দেশ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট, এতে বিভিন্ন রাজ্যে তাকে আর হাজিরা দিতে হবে না।

বিচারকরা জানান, তারা নূপুরের হত্যার হুমকি বিবেচনা করেছেন। তাই তার বিরুদ্ধে এফআইআর বাতিলের জন্য দিল্লি হাইকোর্টে যাওয়ার অনুমতি দেয়া হয়েছে।

এর আগে ১ জুলাই এ ইস্যুতে শুনানি হয় সুপ্রিম কোর্টে। মহানবীকে নিয়ে মন্তব্যের জেরে ভারতজুড়ে ছড়িয়ে পড়া সহিংসতার জন্য আদালতের বিচারক সে সময় নূপুরকে এককভাবে দায়ী করেন। এদিন নূপুর তার বিরুদ্ধে মামলাগুলোকে একত্রিত করতে সুপ্রিম কোর্টকে অনুরোধ করেছিলেন। জানিয়েছিলেন, সেগুলো যেন দিল্লিতে স্থানান্তর করা হয়।

১৯ জুলাই সুপ্রিম কোর্ট জানায়, নয়টি মামলায় গ্রেপ্তার করা যাবে না নূপুরকে। এদিন নূপুর আদালতকে জানিয়েছিলেন, ১ জুলাইয়ের আদেশের পর আজমির দরগাহের এক কর্মচারী তাকে গলা কেটে হত্যার হুমকি দিয়েছেন, শিরোশ্ছেদের হুমকি পেয়েছেন উত্তর প্রদেশের আরেক বাসিন্দার কাছ থেকেও।

নূপুরের বিরুদ্ধে দিল্লি, মহারাষ্ট্র, তেলেঙ্গানা, পশ্চিমবঙ্গ, কর্ণাটক, উত্তরপ্রদেশ, কাশ্মীর এবং আসামে মামলা রয়েছে।

আরও পড়ুন:
রাজস্থানে দর্জি হত্যার পেছনে পাকিস্তানের জঙ্গিরা?
নূপুর শর্মাকে দেশবাসীর কাছে ক্ষমা চাইতে বলল আদালত
ভারতে ‘তালেবানি মানসিকতা’ চলবে না: আজমির শরিফ প্রধান
সেই নূপুরের পক্ষ নেয়ায় রাজস্থানে দর্জি খুন, ১৪৪ ধারা
জবিতে শিক্ষার্থীদের ভারতীয় পণ্য বয়কটের ডাক

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
After Corona now Langaya virus in China

করোনার পর চীনে এবার ‘ল্যাংগায়া’ ভাইরাস

করোনার পর চীনে এবার ‘ল্যাংগায়া’ ভাইরাস
২০১৯ সালে মানুষের মধ্যে প্রথম দেখা এই ‘ল্যাংগায়া’ । তবে এ বছর এই ভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ল। ‘ল্যাংগায়া’ ভাইরাস মূলত নিপাহ ভাইরাস পরিবারের সদস্য।

করোনাভাইরাসের উৎসভূমি চীনে এবার আরেক ভাইরাসের সন্ধান মিলেছে। এরই মধ্যে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন অন্তত ৩৫ জন।

দেশটির হেনান এবং শানডং প্রদেশে নভেল ল্যাংগায়া হেনিপাভাইরাস (লেভি) নামের এ ভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম বিবিসি

জ্বর, ক্লান্তি ও কাশির মতো উপসর্গ দেখা দেয় এই ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর শরীরে। প্রাণী থেকে মানুষের শরীরে আসা লেভি মানুষ থেকে মানুষে ছড়িয়ে পড়তে পারে কি না তা অবশ্য এখনও নিশ্চিত নয়।

চলতি মাসে নিউ ইংল্যান্ড জার্নালে চীন, সিঙ্গাপুর এবং অস্ট্রেলিয়ার গবেষকদের লেখা চিঠিতে এই ভাইরাস নিয়ে তথ্য দেয়া হয়েছে।

২০১৯ সালে মানুষের মধ্যে প্রথম দেখা এই ‘ল্যাংগায়া’ । তবে এ বছর এই ভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ল। ‘ল্যাংগায়া’ ভাইরাস মূলত নিপাহ ভাইরাস পরিবারের সদস্য।

গবেষণায় অংশ নেয়া সিঙ্গাপুরের ডিউক-এনইউএস মেডিকেল স্কুলের ইমার্জিং ইনফেকসাস ডিজিজ প্রোগ্রামের অধ্যাপক ওয়াং লিনফা বলেন, এখন পর্যন্ত এ ভাইরাস মারাত্মক বা খুব গুরুতর কিছু নয়। তাই আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই।

তবে ভাইরাসের ব্যাপারে সতর্ক হতে পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

আরও পড়ুন:
দ্বিতীয় ডোজ আর পাওয়া যাবে না, দ্রুত নিয়ে নিন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
করোনায় ২ মৃত্যু, শনাক্ত ২৫৩
সেপ্টেম্বরে দুয়ার খুলবে যুক্তরাষ্ট্র

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
University teacher went to work wearing a bikini

বিকিনি পরায় চাকরি খোয়ালেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষিকা

বিকিনি পরায় চাকরি খোয়ালেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষিকা ছবি: সংগৃহীত
বিকিনি পরা বেশ কিছু ছবি সেই শিক্ষিকা তার ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করেছিলেন এবং সেই ছবি স্নাতক প্রথম বর্ষের এক ছাত্রের চোখে পড়ে। পরে সেই ছাত্রের বাবার অভিযোগের ভিত্তিতে সেই শিক্ষিকাকে চাকরি ছাড়তে বাধ্য করা হয়।

বিকিনি পরার কারণে প্রতিষ্ঠানের ঐতিহ্যে আঘাত লেগেছে- এমন অভিযোগ এনে এক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষিকাকে চাকরি ছাড়তে বাধ্য করেছে কর্তৃপক্ষ।

ভারতের কলকাতার সেন্ট জেভিয়ার্স ইউনিভার্সিটির এক সাবেক সহকারী অধ্যাপক কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে এমনই অভিযোগ আনলেন।

বিকিনি পরা বেশ কিছু ছবি সেই শিক্ষিকা তার ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করেছিলেন এবং সেই ছবি স্নাতক প্রথম বর্ষের এক ছাত্রের চোখে পড়ে। পরে সেই ছাত্রের বাবার অভিযোগের ভিত্তিতে সেই শিক্ষিকাকে চাকরি ছাড়তে বাধ্য করা হয়।

কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ জানানো এক চিঠিতে সেই ছাত্রের বাবা লেখেন, ‘শিক্ষিকার অন্তর্বাস পরা ছবি দেখছে আমার ছেলে, বাবা হিসেবে তা আমার জন্য লজ্জার।’

পরে সেই চিঠি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

২০২১ সালের ২৪ অক্টোবরের সেই ঘটনায় ইউরোপীয় ইউনিভার্সিটি থেকে পিএইচডি করা সেই শিক্ষিকা যাদবপুর থানায় প্রোফাইল হ্যাকের অভিযোগ জানান।

সেন্ট জেভিয়ার্স ইউনিভার্সিটি কর্তৃপক্ষ এই বিষয়টি আমলে নেয়নি বলে দাবি করেন সেই শিক্ষিকা।

তবে ইউনিভার্সিটি কর্তৃপক্ষ তাকে চাকরি ছাড়তে বাধ্য করার বিষয়টি অস্বীকার করেছে এবং তারা বলছে, শিক্ষিকাই স্বেচ্ছায় চাকরি ছেড়েছেন।

আরও পড়ুন:
সেই অর্পিতার আরেক ফ্ল্যাটে ২৯ কোটি রুপি
কে এই অর্পিতা
পশ্চিমবঙ্গে মন্ত্রীর ঘনিষ্ঠ মডেলের ঘর থেকে ২০ কোটি রুপি জব্দ
ধর্ষণ থেকে বাঁচতে স্কুলের ছাদ থেকে লাফ, আটক ৫
পশ্চিমবঙ্গের নতুন রাজ্যপাল হিসেবে গণেশনের শপথ

মন্তব্য

आज ही के दिन भारत छोड़ो आंदोलन की हुंकार के साथ एकजुट होकर भारतीयों ने क्रूर अंग्रेजी हुकूमत के खिलाफ आर-पार का संघर्ष शुरू किया था। एकजुटता हमारी सबसे बड़ी ताकत है।

आइए विविधता में एकता के झंडे को बुलंद करते हुए 'भारत जोड़ो' व भारत में विकास के नए आयाम जोड़ने का संकल्प लें। pic.twitter.com/HPcFN0lhrC

— Priyanka Gandhi Vadra (@priyankagandhi) August 9, 2022 " data-image_src="https://www.newsbangla24.com/assets/news_images/2022/08/10/prianka-gandhi.jpg" data-nid="202400" data-amp-href="https://www.newsbangla24.com/amp/international/202400/Congress-Bharat-Joro-Yatra-from-September-7" data-keywords="ভারত">
আন্তর্জাতিক
Congress Bharat Joro Yatra from September 7

কংগ্রেসের ‘ভারত জোড়ো যাত্রা’ ৭ সেপ্টেম্বর থেকে

কংগ্রেসের ‘ভারত জোড়ো যাত্রা’ ৭ সেপ্টেম্বর থেকে ভারত জোড়ো যাত্রায় উপস্থিত থাকবেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধী ও রাহুল গান্ধী। ছবি: সংগৃহীত

ভারতের আসন্ন ২০২৪ সালের লোকসভা নির্বাচনের আগে সংগঠনকে মজবুত করতে ‘ভারত ছাড়ো আন্দোলনের’ ৮০ বছর পূর্তি উপলক্ষে কংগ্রেসের ‘ভারত জোড়ো আন্দোলন’ শুরুর ঘোষণা দিয়েছে।

আন্দোলনের অন্যতম কর্মসূচি হিসেবে ভারতের জাতীয় কংগ্রেস ‘কাশ্মীর থেকে কনাকুমারী পর্যন্ত ভারত জোড়ো যাত্রা’ বের করতে চলেছে।

আগামী ৭ সেপ্টেম্বর থেকে এই যাত্রা শুরু হবে। কংগ্রেসের উদ্দেশ্য, এই ধরনের কর্মসূচির মাধ্যমে তারা সাধারণ ভারতীয়দের কাছে পৌঁছানোর চেষ্টা করবে।

এই যাত্রা দলের নেতারা ১৫০ দিনে ৩ হাজার ৫০০ কিলোমিটার দূরত্ব অতিক্রম করবে এবং ভারতের ১২টি রাজ্য ও দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের মধ্য দিয়ে যাবে ভারত জোড়ো যাত্রা।

এই যাত্রায় দলের শীর্ষ নেতা ও সাবেক সভাপতি রাহুল গান্ধী যোগ দেবেন।

সর্বভারতীয় কংগ্রেস কমিটির সাধারণ সম্পাদক জয়রাম রমেশ বলেছেন, ‘কংগ্রেস ৮০ বছর আগে শুরু হওয়া ভারত ছাড়ো আন্দোলনের সঙ্গে দলের যাত্রাকে সংযুক্ত করেছে।’

১৯৪২ সালের ৯ আগস্ট মহাত্মা গান্ধীর নেতৃত্বে ‘ব্রিটিশ ভারত ছাড়ো’ আন্দোলন শুরু হয়। এর ঠিক পাঁচ বছর ব্রিটিশরা ভারত ছেড়ে চলে যাওয়ার ফলে স্বাধীন ভারতের জন্ম হয়।

জয়রাম বলেন, ‘ভয়, ধর্মান্ধতা, কুসংস্কারের রাজনীতি, জীবিকা ধ্বংসের রাজনীতি, বাড়তে থাকা বেকারত্ব এবং বৈষম্যের রাজনীতির বিকল্প প্রদানের জন্য ভারত জোড়ো যাত্রায় অংশ নেয়ার জন্য সবার কাছে আবেদন করেছে কংগ্রেস।’

এই কর্মসূচি নিয়ে কংগ্রেসের অন্যতম সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াঙ্কা গান্ধী এক টুইট বার্তায় বলেছেন, ‘আজকের দিনেই ভারত ছাড়ো আন্দোলনের হুঙ্কারের সঙ্গে একজোট হয়ে ভারতবাসী নিষ্ঠুর ব্রিটিশ শাসনের বিরুদ্ধে আন্দোলন শুরু করেছিল। এই এক জোট হওয়ার ক্ষমতাই আমাদের বড় শক্তি। বিভেদের মধ্যে একতার পতাকা তুলে ধরে ভারত জোড়ো নতুন উন্নয়নের সংকল্প তৈরি করবে।’

কংগ্রেসের দলীয় সূত্রে জানা গেছে, এই যাত্রা ৬৮টি সংসদীয় কেন্দ্র ও ২০৩টি বিধানসভা কেন্দ্রতে যাবে। যে রাজ্যগুলোতে এই যাত্রা যাবে, তার মধ্যে রয়েছে তামিলনাড়ু, কেরালা, কর্ণাটক, তেলেঙ্গানা, অন্ধ্রপ্রদেশ্ম মহারাষ্ট্র, রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ, উত্তর প্রদেশ, হরিয়ানা, দিল্লি, পাঞ্জাব, চণ্ডীগড় ও জম্মু-কাশ্মীর।

গুজরাট ও হিমাচল প্রদেশে চলতি বছর নির্বাচনের কথা থাকলেও ভারত জোড়ো যাত্রার আওতায় এই দুই প্রদেশ নেই।

কংগ্রেসের এই ভারত জোড়ো যাত্রা শেষ হবে ৩০ জানুয়ারি।

৩০ জানুয়ারিতেই নাথুরাম গডসের হাতে ১৯৪৮ সালে নিহত হন মহাত্মা গান্ধী।

আরও পড়ুন:
জেলে চপ-বেগুনি খাচ্ছেন পার্থ, শুয়ে-বসে কাটছে অর্পিতার
তামিলনাড়ুর ‘পার্বতীর’ সন্ধান সুদূর নিউ ইয়র্কে
ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক রক্তের, প্রভাব পড়বে না: তথ্যমন্ত্রী

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Together with PSC exam mother and son in government jobs

একসঙ্গে পিএসসি পরীক্ষা দিয়ে সরকারি চাকরিতে মা-ছেলে

একসঙ্গে পিএসসি পরীক্ষা দিয়ে সরকারি চাকরিতে মা-ছেলে একসঙ্গে পিএসসি পরীক্ষায় পাস করেছেন মা-ছেলে। ছবি: এনডিটিভি
সরকারি চাকরি পেতে মা-ছেলের পাবলিক সার্ভিস কমিশনের পরীক্ষায় পাস করার এক গল্প এটি। ভারতের কেরালার মালাপ্পুরম শহরে ঘটেছে অনুপ্রেরণা জোগানোর মতো এই ঘটনা।

ইচ্ছা থাকলে শুধু বয়স নয়, কোনো বাধাই যে কাউকে দমাতে পারে না তার প্রমাণ মিলে গেল আরও একবার। সহজেই যেমন বলা হয়ে গেল, ব্যাপারটা কিন্তু মোটেও তেমন সহজ ছিল না।

সরকারি চাকরি পেতে মা-ছেলের একসঙ্গে পাবলিক সার্ভিস কমিশনের (পিএসসি) পরীক্ষায় পাস করার এক গল্প এটি। ভারতের কেরালার মালাপ্পুরম শহরে ঘটেছে অনুপ্রেরণা জোগানোর মতো এই ঘটনা।

৪২ বছর বয়সী মা আর ২৪ বছরের ছেলে একসঙ্গে এ পরীক্ষায় পাস করে এখন সরকারি চাকরিতে যোগ দিতে যাচ্ছেন বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি

মায়ের নাম বিন্দু আর ছেলের নাম বিবেক। দুজনই জানিয়েছেন সেই দীর্ঘ পথ পাড়ি দেয়ার গল্প।

বিবেক বলেন, ‘আমরা মা-ছেলে একসঙ্গে কোচিংয়ে যেতাম। বাবাই সব ব্যবস্থা করে দিতেন। শিক্ষকদের কাছে খুব প্রেরণা পেয়েছি।

‘একসঙ্গে পড়ালেখা করেছি, কিন্তু দুজনে যে একসঙ্গেই পাস করব তা কখনই ভাবিনি। আমরা অনেক খুশি।’

ছেলে যখন দশম শ্রেণির ছাত্র, তখন তাকে উৎসাহ দিতে চাকরির পড়ালেখা শুরু করেন মা। এই পড়ালেখাই তাকে কেরালার পিএসসি পরীক্ষায় অংশ নিতে আগ্রহী করে তোলে। এর পর ৯ বছর ধরে মা-ছেলে একসঙ্গে নেন চাকরির প্রস্তুতি।

পিএসসির ৩৮তম র‌্যাংকের লোয়ার ডিভিশনাল ক্লার্ক (এলডিসি) পরীক্ষায় চূড়ান্তভাবে উত্তীর্ণ হয়েছেন বিন্দু, আর ৯২তম র‌্যাংক নিয়ে লাস্ট গ্রেড সার্ভেন্টস (এলজিএস) পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন বিবেক।

এর মধ্যে তিনবারের চেষ্টায় চূড়ান্তভাবে চাকরির জন্য মনোনীত হয়েছেন মা বিন্দু। ১০ বছর ধরে একটি অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রে শিক্ষকতা করেছেন তিনি।

বিন্দু জানান, তার বন্ধুরা, ছেলে এবং তার কোচিং সেন্টারের প্রশিক্ষকরা সব সময় অনুপ্রেরণা এবং সমর্থন দিয়েছেন।

তিনি বলেন, একজন পিএসসি পরীক্ষার্থীর কী করা উচিত এবং কী করা উচিত নয়, তার নিখুঁত উদাহরণ মনে হয় নিজেকে।

বিন্দুর ভাষ্য, চেষ্টা সব সময়ই ছিল। কিন্তু আমি যে আসলে একটানা পড়ালেখা করেছি তা নয়। পরীক্ষার ছয় মাস আগে থেকে পড়তে শুরু করি। এরপর টানা পড়লেখা করেছি।

বিন্দু পিএসসির যে পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে সরকারি চাকরিতে যোগ দিতে যাচ্ছেন, তার বয়সসীমা ৪০ বছর। তবে কিছু ক্ষেত্রে এই বয়সসীমার ব্যতিক্রমও রয়েছে।

আরও পড়ুন:
৪৩তম বিসিএস: সময় নিয়ে হলে যেতে পিএসসির নির্দেশ
সরকারি নিয়োগ দ্রুত শেষ করতে রাষ্ট্রপতির নির্দেশ

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Sri Lanka increased electricity prices by 75 percent within a week

শ্রীলঙ্কায় বিদ্যুতের দাম ৭৫ শতাংশ বাড়ল

শ্রীলঙ্কায় বিদ্যুতের দাম ৭৫ শতাংশ বাড়ল ছবি: সংগৃহীত
পিইউসিএসএল চেয়ারম্যান বলেন, ‘৯ বছরে সব পণ্য এবং পরিষেবার দাম উল্লেখযোগ্যভাবে বেড়েছে। বিশেষ করে বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য আমদানি করা তিন ধরনের জীবাশ্ম জ্বালানির খরচ বেড়েছে আড়াইশ শতাংশের বেশি।’

শ্রীলঙ্কা বিদ্যুৎ নিয়ন্ত্রক সংস্থা ‘পাবলিক ইউটিলিটি কমিশন অব শ্রীলঙ্কা’ (পিইউসিএসএল) বিদ্যুতের দাম ৭৫ শতাংশ বৃদ্ধির অনুমোদন দিয়েছে।

পিইউসিএসএল চেয়ারম্যান জনকা রথনায়েক এক বিবৃতিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, ‘৯ বছরে সব পণ্য এবং পরিষেবার দাম উল্লেখযোগ্যভাবে বেড়েছে। বিশেষ করে বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য আমদানি করা তিন ধরনের জীবাশ্ম জ্বালানির খরচ বেড়েছে আড়াইশ শতাংশের বেশি।

‘আমরা বিদ্যুতের হার স্থিতিশীল রাখতে পেরেছি। ৯ বছরে এক মেট্রিক টন কয়লার দাম ১৪৩ ডলার থেকে বেড়ে ৩২১ ডলার হয়েছে। লঙ্কান মুদ্রায় তা বেড়েছে ৫৫০ শতাংশ। এক লিটার ডিজেলের দাম ১২১ থেকে ৪৩০ রুপি (শ্রীলঙ্কান মুদ্রা) হয়েছে। এই বৃদ্ধির পরিমাণ ২৫৫ শতাংশ। এক লিটার ফার্নেস অয়েলের দাম ২০১৩ সালে ছিল ৯০ রুপি। যা এখন মিলছে ৪১০ রুপিতে।

রথনায়েক বলেন, ‘নতুন শুল্ক সংশোধনের পরও ভর্তুকি দেয়া হচ্ছে। এই সিদ্ধান্তের মাধ্যমে নবায়নযোগ্য বিদ্যুৎ উৎপাদনে উৎসাহিত করা হচ্ছে। যদিও সৌর বিদ্যুৎ ব্যবহারকারীদের দাবি, সামগ্রিক খরচের ওপর মাসিক ফি নেয়া অন্যায্য।

‘তাই পিইউসিএসএল সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তাদের মোট খরচ থেকে উৎপাদিত বিদ্যুতের পরিমাণ বাদ দিয়ে নেট খরচের ভিত্তিতে নির্দিষ্ট চার্জ নির্ধারণ করা হবে।

‘এসব বিবেচনায় নিয়ে বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির প্রস্তাবে অনুমোদন দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিশন।’

এর আগে গত ৪ আগস্ট ডিজেল ও গৃহস্থালি কাজে ব্যবহারযোগ্য এলপি গ্যাসের দাম কমায় শ্রীলঙ্কা সরকার। তার এক সপ্তাহের মাথায়ই বিদ্যুতের দাম ৭৫ শতাংশ বাড়াল রনিল বিক্রমাসিংহ নেতৃত্বাধীন সরকার।

আরও পড়ুন:
‘শ্রীলঙ্কার সংকট এড়াতে সম্ভাব্য সব করেছি’
শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্টকে ‘মহামান্য’ ডাকা নিষিদ্ধ
শ্রীলঙ্কায় নতুন প্রেসিডেন্ট ৭ দিনের মধ্যে
গোতাবায়ার পদত্যাগপত্র গ্রহণ
দেশ ছাড়ার পর গোতাবায়ার পদত্যাগ

মন্তব্য

p
উপরে