× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

আন্তর্জাতিক
Drone attack cancels Russian Navy Day in Crimea
hear-news
player
print-icon

ড্রোন হামলায় ক্রিমিয়ায় রুশ নৌ দিবস বাতিল

ড্রোন-হামলায়-ক্রিমিয়ায়-রুশ-নৌ-দিবস-বাতিল
প্রেসিডেন্ট পুতিন এবং প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগু (ডানে) সেন্ট পিটার্সবার্গে যুদ্ধজাহাজ পর্যালোচনা করেছেন। ছবি: সংগৃহীত
সেভাস্তোপল গভর্নর বলেন, ‘অজ্ঞাত একটি বস্তু (ব্ল্যাক সি) ফ্লিট সদর দপ্তরের আঙিনায় উড়ছিল। প্রাথমিক তথ্য অনুসারে এটি ড্রোন ছিল। ইউক্রেনের এ হামলায় ছয়জন আহত হয়েছেন।’

অধিকৃত ক্রিমিয়ায় নৌবাহিনী দিবস উদযাপন বাতিল করেছে রাশিয়া। সেভাস্তোপলের গভর্নর মিখাইল রাজভোজায়েভের বরাতে রাশিয়ার স্থানীয় সংবাদমাধ্যমে বলা হচ্ছে, ব্ল্যাক সি ফ্লিট সদর দপ্তরে ইউক্রেনীয় ড্রোন হামলার কারণে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। নৌবহরটি দীর্ঘদিন ধরে সেভাস্তোপলে অবস্থান করছিল।

তবে ইউক্রেনের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা সেরহি ব্রাচুক রাশিয়ার এ প্রতিবেদনকে ‘উসকানি’ বলে উড়িয়ে দিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘ক্রিমিয়ার মুক্তি অন্যরকমভাবে দক্ষতার সঙ্গে ঘটবে।’

রাশিয়ান বাহিনী ২০১৪ সালে ক্রিমিয়াকে অধিভুক্ত করে। এ ঘটনায় আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছিল রাশিয়া। অনেক দেশ রাশিয়ার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দেয়।

নৌবাহিনী দিবস রাশিয়ায় বার্ষিক ছুটির একটি। রোববার রাশিয়াজুড়ে দিবসটি উদযাপন করা হচ্ছে। রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন তার নিজ শহর সেন্ট পিটার্সবার্গে অনুষ্ঠানের তদারক করছেন।

এক টেলিগ্রাম পোস্টে সেভাস্তোপল গভর্নর বলেন, ‘অজ্ঞাত একটি বস্তু (ব্ল্যাক সি) ফ্লিট সদর দপ্তরের আঙিনায় উড়ছিল। প্রাথমিক তথ্য অনুসারে এটি ড্রোন ছিল। ইউক্রেনীয়দের এ হামলায় ছয়জন আহত হয়েছেন।’

ইউক্রেনে অভিযানকে বৈধ করার জন্য রাশিয়া প্রায়ই ইউক্রেনীয় কর্তৃপক্ষকে ‘নাৎসি’ বলে অভিযুক্ত করেছে।

এপ্রিলে ব্ল্যাক সি ফ্লিটে হামলা হয়। কিয়েব দাবি করছে, নেপচুন মিসাইল দিয়ে বহরের ফ্ল্যাগশিপ মস্কভাকে ডুবিয়ে দেয়া হয়েছিল।

রাশিয়া অবশ্য এ দাবি উড়িয়ে দিয়েছে। মস্কো বলছে, গোলাবারুদ বিস্ফোরণের কারণে বোর্ডে বড় আগুন লেগেছিল। ইউক্রেনীয় সেনারা এ ঘটনায় জড়িত না। ঝড়ের কবলে পড়ে এটি ডুবে গিয়েছিল।

জাহাজের মৃত্যুতে কতজন রাশিয়ান নাবিক নিহত বা আহত হয়েছে, তা এখনও স্পষ্ট নয়।

আরও পড়ুন:
বন্দি ইউক্রেনীয় সেনাদের মারল কে
দখলকৃত ক্রিমিয়া থেকে মিসাইল ছুড়ছে রাশিয়া
ইউরোপে গ্যাসের দাম মার্চের পর সর্বোচ্চ
ইউক্রেনের গম রপ্তানি ‘কয়েক দিনের মধ্যে’
ওডেসার শস্যে নয়, সামরিক স্থাপনায় হামলা: রাশিয়া

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
Raid on Ukrainian city to catch Razakars

‘রাজাকার’ ধরতে ইউক্রেনীয় শহরে অভিযান

‘রাজাকার’ ধরতে ইউক্রেনীয় শহরে অভিযান
নিকোলায়েভ শহরে শুক্রবার দুই দিনের লকডাউন ঘোষণা করা হয়। এই সময়ের মধ্যে শহরের বাসিন্দারা বিশেষ অনুমতি ছাড়া বাইরে যেতে বা সমাগম স্থানে যেতে পারবেন না। বিশেষ প্রয়োজনে নিতে হবে স্থানীয় পুলিশের অনুমতি।

ইউক্রেনে বাসরত রুশপন্থিদের বিরুদ্ধে শক্ত পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছে কিয়েভ শাসকরা। যারা রুশ বাহিনী বা বিচ্ছিন্নতাবাদীদের প্রতি সহানুভূতি বা সাহায্য করছে তাদের আনা হবে শাস্তির আওতায়। ইউক্রেনের দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর নিকোলায়েভ কর্তৃপক্ষ এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে

রাশিয়া ফেব্রুয়ারিতে ইউক্রেনে অভিযান শুরুর আগে নিকোলায়েভে প্রায় ৫ লাখ মানুষের বাস ছিল। স্থানীয় সামরিক প্রশাসনের প্রধান ভিটালি কিম শুক্রবার পুরো শহরে দুই দিনের লকডাউন ঘোষণা করেন। শুক্রবার সন্ধ্যায় কার্যকর হওয়া এই অবস্থা সোমবার পর্যন্ত চলবে বলে আশা করা হচ্ছে।

ইউক্রেনীয় সংবাদ সংস্থা ইউএনআইএএন বলছে, এই সময়ের মধ্যে নিকোলায়েভের বাসিন্দারা বিশেষ অনুমতি ছাড়া বাইরে বা সমাগম স্থানে যেতে পারবেন না। বিশেষ প্রয়োজনে নিতে হবে স্থানীয় পুলিশের অনুমতি।

নিকোলায়েভ আঞ্চলিক পরিষদের প্রধান আনা জামাজিভা বলেন, ‘আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলো এই সময়কে ‘সহযোগী’ এবং ‘বিচ্ছিন্নতাবাদীদের’ খুঁজে বের করবে।

অভিযানটি ইতোমধ্যেই পুরোদমে চলছে। সোমবারের মধ্যে ফলাফল প্রকাশ করবে পুলিশ। জামাজিভা বলেন, ‘সব বাসিন্দাকে এখন তল্লাশি করা হচ্ছে। যারা শহর ছেড়ে যাওয়ার পরিকল্পনা করেছিল বা ট্রেন, বাসের আগাম টিকিট কিনেছিল, তাদের চলে যাওয়ার অনুমতি দেয়া হয়েছে। শহর ছাড়ার আগে নিরাপত্তা ফাঁড়িগুলোতে তাদের তল্লাশি করা হয়েছিল।’

এর আগে বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সম্পর্কে তথ্যের বিনিময়ে ১০০ ডলার পুরস্কার ঘোষণা করে শহর কর্তৃপক্ষ। তারা জানিয়েছে, এসব অভিযোগে অন্তত চারজনকে আটক করা হয়েছে।

গত মঙ্গলবার উচ্চ-নির্ভুল অস্ত্র ব্যবহার করে নিকোলাইভ শহরের কাছে ইউক্রেনীয় সেনাবাহিনীর একটি অস্থায়ী ঘাঁটিতে হামলা চালায় রুশ বাহিনী। এতে ২৫০ জন বিদেশি ভাড়াটে সেনা নিহত হয় বলে দাবি করেছে কিয়েভ।

মিনস্ক চুক্তি বাস্তবায়নে কিয়েভের ব্যর্থতার উল্লেখ করে ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে সেনা পাঠায় রাশিয়া।

আরও পড়ুন:
ইউক্রেনের শীর্ষ শস্য ব্যবসায়ী নিহত
ইউক্রেনের কালো তালিকায় ভারতের শীর্ষ কূটনীতিক
রুশ হামলার তোয়াক্কা না করে স্বাভাবিক জীবনে
ইউক্রেন ছাড়ার অপেক্ষায় খাদ্যশস্য বোঝাই ১৬ জাহাজ
সবুজ সংকেতের অপেক্ষায় জেলেনস্কি

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Gasoline Diesel is cheaper than water in Venezuela

পানির চেয়ে কম দাম পেট্রল-ডিজেলের  

পানির চেয়ে কম দাম পেট্রল-ডিজেলের  
দারিদ্র্যপীড়িত কমিউনিস্টশাসিত দেশ ভেনেজুয়েলায় অবিশ্বাস্য কম দাম জ্বালানি তেল ও গ্যাসের। প্রতি লিটার পেট্রল-ডিজেলের দাম মাত্র ২ টাকা। দেশটির সরকার বিপুল ভর্তুকি দিচ্ছে জ্বালানি খাতে। তবে দারিদ্র্যের প্রায় সব সূচকে তলানিতে দেশটির অবস্থান।

বিশ্বের সবচেয়ে কম দামে পেট্রল মেলে ভেনেজুয়েলায়। লিটার বিক্রি হচ্ছে মাত্র ২ পেন্সে (বাংলাদেশি মুদ্রায় ২ টাকা ৯ পয়সা)। এর কারণ বিশ্বের সবচেয়ে বড় তেলের রিজার্ভ রয়েছে কমিউনিস্টশাসিত দেশটিতে। পাশাপাশি জ্বালানি খাতে বিপুল ভর্তুকি দিচ্ছে দেশটির সরকার

আক্ষরিক অর্থেই ভেনেজুয়েলায় জ্বালানি তেলের দাম পানির চেয়ে কম। দেশটিতে জ্বালানি খাতে প্রচুর ভর্তুকি দেয়া হয়। তবে তেলের এই পানির দাম দেশটির অর্থনীতিতে তেমন প্রভাব রাখছে না। মাত্রাতিরিক্ত মুদ্রাস্ফীতি দেশটির মুদ্রা বলিভারকে প্রায় মূল্যহীন করে দিয়েছে।

ডলারে ভেনেজুয়েলায় এক লিটার গ্যাসোলিনের দাম লিটারপ্রতি যেখানে ০.০২২ সেন্ট, সেখানে ৩৫৫ মিলিলিটার পানির একটি বোতল কিনতে খরচ হয় ০.০৮৮ সেন্ট, বাংলাদেশি মুদ্রায় ৮৩.৭৪ টাকা।

অন্যদিকে দুধের দাম লিটারপ্রতি ১৫৪ টাকা। আর এক পাউন্ডের একটি রুটির জন্য গুনতে হয় ১৭০ টাকা।

ভেনেজুয়ালার চেয়েও কম দামে ডিজেল মেলে ইরানে। মধ্যপ্রাচ্যের দেশটিতে প্রতি লিটার ডিজেলের দাম ১ টাকা ৫ পয়সা। আর গ্যাসোলিন লিটারপ্রতি ৫ টাকা ৪ পয়সা।

ভেনেজুয়েলার নাগরিকরা প্রেসিডেন্ট হুগো শ্যাভেজের উদার ভর্তুকি বেশ উপভোগ করেন। তবে এ সুবিধা পান কেবল ভেনেজুয়েলার নাগরিকরা। ইরান ও সৌদি আরবের মতো তেলসমৃদ্ধ ভেনেজুয়েলাও নিজেদের নাগরিকদের জন্য জ্বালানিকে সহজলভ্য করছে।

তবে প্রাকৃতিক সম্পদে ভরপুর ভেনেজুয়েলাকে গরিব রাষ্ট্র হিসেবেই চেনে বিশ্ব। শ্যাভেজ এবং মাদুরোর সমর্থকরা বলছেন, ভেনেজুয়েলার ওপর যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞার পাশাপাশি তেলের দাম পড়ে যাওয়ায় ধুঁকতে হচ্ছে তাদের। তবে সমালোচকদের দাবি, এ জন্য দীর্ঘদিনের অর্থনৈতিক অব্যবস্থাপনা এবং দুর্নীতিই দায়ী।

ভেনেজুয়েলা ফাইন্যান্স অবজারভেটরির তথ্য অনুযায়ী, তিন শতাধিক কোম্পানির ওপর সাম্প্রতিক জরিপে দেখা গেছে, কর্মীদের গড় বেতন ৫ হাজার ৪৩ টাকা! পেশাদার এবং প্রযুক্তিবিদদের গড় বেতন ৯ হাজার ৫১৬ টাকা। আর একটি কোম্পানি পরিচালনার গড় ব্যয় ২০ হাজার ৫৫৫ টাকা।

তাত্ত্বিকভাবে ভেনেজুয়েলায় ১ ডলারে প্রায় ৫ বিলিয়ন গ্যালন পেট্রল কিনতে পারবেন যা দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের মিশিগান রাজ্য এক বছর চলতে পারবে। আর আপনি ভাগ্যবান হলে আরও বেশি পাবেন।

আন্দ্রেস বেলো ক্যাথলিক ইউনিভার্সিটির (ইউসিএবি) গবেষকরা ২০২০-২০২১ সালে একটি জরিপ চালায়। এতে দেখা গেছে, দেশের ২৮ মিলিয়ন বাসিন্দার মধ্যে ৭৬.৬ শতাংশ বাস করে চরম দারিদ্র্যের মধ্যে। গত বছরে তা বেড়েছে ৬৭.৭ শতাংশ।

আরও পড়ুন:
বাস ভাড়ায় স্বল্প দূরত্বে স্বস্তি দিল বিআরটিএ
সুদিনের অপেক্ষায় জ্বালানির সাময়িক মূল্যবৃদ্ধি মেনে নিন: বাণিজ্যমন্ত্রী
যুক্তরাষ্ট্রে তেলের দাম ৭৮ শতাংশ কমার তথ্য দিলেন ফখরুল
লঞ্চ ভাড়া কতটা বাড়বে, সিদ্ধান্ত বিকেলে
রিকশা-অটোরিকশায়ও বাড়তি ভাড়া

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Indias rocket cancels satellites in different orbits

ভারতের রকেট ভুল ঠিকানায়

ভারতের রকেট ভুল ঠিকানায় অন্ধ্র প্রদেশের শ্রীহরিকোটায় সতীশ ধাওয়ান মহাকাশ কেন্দ্রের লঞ্চ প্যাড থেকে রোববার সকালে রকেটটি উৎক্ষেপণ করা হয়। ছবি: সংগৃহীত
অন্ধ্র প্রদেশের শ্রীহরিকোটায় সতীশ ধাওয়ান মহাকাশ কেন্দ্রের লঞ্চ প্যাড থেকে রোববার সকালে রকেটটি উৎক্ষেপণ করা হয়। এর ৬ ঘণ্টা পরই কর্তৃপক্ষ ঘোষণা করে যে রকেটটি বৃত্তাকার কক্ষপথের পরিবর্তে উপবৃত্তাকার কক্ষপথে উপগ্রহগুলো স্থাপন করায় সেগুলো আর ব্যবহারযোগ্য নয়।

ইন্ডিয়ান স্পেস রিসার্চ অর্গানাইজেশন (ইসরো) একটি নতুন রকেট (এসএসএলভি) উৎক্ষেপণ করেছে। অন্ধ্র প্রদেশের শ্রীহরিকোটায় সতীশ ধাওয়ান মহাকাশ কেন্দ্রের লঞ্চ প্যাড থেকে রোববার সকালে এটি উৎক্ষেপণ করা হয়। তবে অভিযানটি সফল হয়নি।

উৎক্ষেপণের ৬ ঘণ্টা পরই ইসরো কর্তৃপক্ষ ঘোষণা করে যে ‘এসএসএলভি-ডি ১’ তাদের বৃত্তাকার কক্ষপথের পরিবর্তে উপবৃত্তাকার কক্ষপথে স্থাপন করায় উপগ্রহগুলো আর ব্যবহারযোগ্য নয়।

‘ইওএস ০২’ এবং ‘আজাদীস্যাট’ স্যাটেলাইটগুলোও এই ছোট স্যাটেলাইট লঞ্চ ভেহিকেলে পাঠানো হয়েছিল। সফল উৎক্ষেপণ শেষে উভয় উপগ্রহকে তাদের নির্ধারিত কক্ষপথে আনার পর রকেটটি আলাদা হয়ে যায়। এরপর মিশন নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্রগুলোতে উপগ্রহ থেকে তথ্য পাওয়া বন্ধ হয়ে যায়। এজন্য প্রকল্পটি হুমকির মুখে পড়েছে।

প্রাথমিক পর্বে ইসরো প্রধান এস. সোমনাথ বলেন, ‘মিশন কন্ট্রোল সেন্টার ইসরো ক্রমাগত ডেটা লিঙ্ক পাওয়ার চেষ্টা করছে। লিংক স্থাপিত হলেই আমরা জানাব।’

স্বাধীনতার ৭৫তম বার্ষিকী উপলক্ষে ৭৫০ জন স্কুল ছাত্র-ছাত্রী দ্বারা ‘আজাদিস্যাট’ তৈরি করা হয়েছে। শ্রীহরিকোটার মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্রে ‘এসএসএলভি ডি ১’ উৎক্ষেপণের সময় স্যাটেলাইটটির নকশা করা শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

রোববার বিকেল ৩টার দিকে ইসরো এক টুইট বার্তায় জানিয়েছে, এই মিশনের যে লক্ষ্য ছিল তা আর পূরণ করা সম্ভব হবে না। একাধিক টুইট করে এ বিষয়ে বার্তা দিয়েছে ভারতের এই মহাকাশ গবেষণা সংস্থা।

‘এসএসএলভি-ডি ১’ রকেটটি ৩৫৬ কিলোমিটার সার্কুলার কক্ষপথের পরিবর্তে ৩৫৬ কিলোমিটার x ৭৬ কিলোমিটার এলিপ্টিক্যাল কক্ষপথে পৌঁছে দিয়েছে স্যাটেলাইটগুলোকে। সেগুলো আর ব্যবহার করা যাবে না। সেন্সরের ব্যর্থতা ধরতে না পেরে উদ্ধার অভিযান চালানোর জন্যই এই কক্ষচ্যুতি ঘটেছে।

ইসরোর এই ক্ষুদ্রতম রকেট বা স্মল স্যাটেলাইট লঞ্চ ভেহিকেলটি লম্বায় (এসএসএলভি) ৩৪ মিটার। এর ভেহিকেল ডায়ামিটারের দৈর্ঘ্য ২ মিটারের বেশি নয়।

ইসরোর সাবেক প্রধান ড. মাধবন নায়ার মিশনটিকে বেশ জটিল বলেই দাবি করেছিলেন। খুব অল্প সময়ে রকেটটি বানানো হয়েছিল বলে জানিয়েছিলেন তিনি। উৎক্ষেপণের তৃতীয় পর্যায় পর্যন্ত সবকিছু ঠিকঠাকই চলছিল। কিন্তু শেষ পর্যায়ে গিয়ে সবকিছু ভণ্ডুল হয়ে যায়।

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Will leave India to cook in Dubai but stuck in Pakistan for 20 years

রাঁধতে ভারত থেকে যাবেন দুবাইয়ে, অথচ ২০ বছর আটকা পাকিস্তানে

রাঁধতে ভারত থেকে যাবেন দুবাইয়ে, অথচ ২০ বছর আটকা পাকিস্তানে হামিদা বানু
মেয়ে ইয়াসমিন বলছেন, ‘দেশ-সীমা সে যতই আলাদা হোক, আবেগটা আসলে একই। ২০ বছর ধরে অপেক্ষা করছি। অদ্ভুত এক অনুভূতি হচ্ছে।’

এক-দু বছর নয়, দীর্ঘ ২০ বছর ধরে পাকিস্তানে আটকে আছেন এক নারী। অথচ রান্নার চাকরি নিয়ে দুবাইয়ে যাওয়ার কথা ছিল তার। ভারতের এই অধিবাসীর ভাগ্যের পরিহাস রীতিমতো সিনেমার কাহিনিকেও হার মানিয়েছে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়ে প্রকাশ্যে এসেছে হামিদা বানুর বয়ে বেড়ানো জীবনের নির্মম গল্প। এখন দেশে ফেরার অপেক্ষায় আছেন তিনি। তবে স্বজনদের কাছে যেতে উদগ্রীব হলেও কাগজপত্রের জটিলতায় দ্রুতই হয়তো তার ফেরা হচ্ছে না।

সংবাদমাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদনে রোববার এ নিয়ে জানানো হয়েছে বিস্তারিত তথ্য।

২০০২ সালে রিক্রুটিং এজেন্সির মাধ্যমে ভারত থেকে দুবাইয়ে যাওয়ার কথা ছিল হামিদার। চুক্তি অনুযায়ী সে দেশে রান্নার চাকরি করতে যাচ্ছিলেন তিনি। তবে অবৈধভাবে পাকিস্তানে নিয়ে যাওয়া হয় তাকে।

হামিদার পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন, দুই দশক ধরে তাকে খুঁজছিলেন তারা। তবে কোনোভাবেই সন্ধান মিলছিল না। একপর্যায়ে তার সন্ধান মিলেছে। এর পেছনে আছেন ভারতের একজন ও পাকিস্তানের একজন।

সীমান্ত নিয়ে ভারত-পাকিস্তানের সংকট দীর্ঘদিনের। হুমকি-ধমকি আর উত্তেজনা ছড়ায় প্রায়ই। এই সংকট ছুঁয়েছে হামিদাকেও। সীমান্তের দ্বন্দ্ব তার দেশে ফেরার পথে বেশ জটিলতাও তৈরি করে।

রাঁধতে ভারত থেকে যাবেন দুবাইয়ে, অথচ ২০ বছর আটকা পাকিস্তানে
ওয়ালিউল্লাহর সঙ্গে হামিদা বানু

তবে এই ভারতীয় নারীর জীবন একটা বাঁক নেয় গত জুলাইতে। ওয়ালিউল্লাহ মারুফ নামের পাকিস্তানের এক ব্যক্তি তার সাক্ষাৎকার নিয়ে তা আপলোড করেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে।

ওই ভিডিও শেয়ার করেন মুম্বাইয়ে বাস করা ভারতের সাংবাদিক খালফান শেখ। এরপর খবর ছড়িয়ে পড়ে চারদিকে। অনেকেই শেয়ার করতে থাকেন। শেষ পর্যন্ত এর মাধ্যমেই হামিদার পরিবারের সন্ধান পাওয়া যায়।

ভারতের খালফান আর পাকিস্তানের ওয়ালিউল্লাহ মিলে আয়োজন করেন ভিডিও কলের। অবশেষে এর মাধ্যমেই ২০ বছর পর আবারও মেয়ে ইয়াসমিন শেখের সঙ্গে কথার বলার সুযোগ পান হামিদা বানু। ভার্চুয়াল এই মাধ্যমে একে অপরের সঙ্গে দেখাও হয় তাদের।

আবেগঘন ভিডিও কলে ইয়াসমিনকে বলতে শোনা যায়, ‘কেমন আছ? তুমি কি আমাকে চিনতে পারছ? এত বছর কোথায় ছিলে?’

হামিদা বানু তখন এর উত্তরে শুধু এটুকুই বলছিলেন, ‘জানতে চেয়ো না, কোথায় ছিলাম, কোথায় আছি। তোমাদের খুব মনে পড়ে। ইচ্ছা করে আমি এখানে আসিনি। আমার কোনো বিকল্প ছিল না।’

পাকিস্তানে ওয়ালিউল্লাকে দেয়া যে ভিডিওতে হাসিনা বানুর পরিচয় মিলেছে, তাতে তিনি জানান, স্বামীর মৃত্যুর পর ভারতে তার চার সন্তানকে আর্থিকভাবে সহায়তা করছিলেন হামিদা। দোহা, কাতার, দুবাই এবং সৌদি আরবে কোনো ঝামেলা ছাড়াই রান্নার কাজ করেছেন তিনি।

২০০২ সালে রাঁধুনির চাকরি নিয়ে দুবাইয়ে যেতে একটি রিক্রুটিং এজেন্সির সঙ্গে যোগাযোগ করেন হামিদা। এ জন্য ২০ হাজার রুপি দিতে হয় তাকে।

ভিডিওতে হতভাগ্য এই নারী জানান, দুবাইয়ে নেয়ার কথা বলে পাকিস্তানের হায়দরাবাদে নেয়া হয় তাকে। এরপর একটি ঘরে তিন মাস ধরে আটকে রাখা হয়।

এর ক বছরের মাথায় করাচির এক ব্যক্তির সঙ্গে বিয়ে হয় হামিদার। তবে করোনাভাইরাসের সংক্রমণে স্বামীর মৃত্যু হয়। এখন তার সৎ ছেলের সঙ্গে বসবাস করছেন তিনি।

ইয়াসমিন জানান, আগে যখন তার মা অন্য দেশে ছিলেন, তখন মাঝেমধ্যেই ফোন করতেন। তবে শেষবার দেশ ছাড়ার পর আর ফোন করেননি। খবর না পেয়ে একপর্যায়ে তারা রিক্রুটিং এজেন্সির সঙ্গে যোগাযোগ করেন। তাতেও কাজ হয়নি।

তিনি বলেন, ‘আমরা যখন যোগাযোগ করেছি, তখন বলা হয়েছে মা ভালো আছেন। তবে আমাদের সঙ্গে কথা বলতে চান না। একদিন দেখি সেই এজেন্সিও আর নেই।’

রাঁধতে ভারত থেকে যাবেন দুবাইয়ে, অথচ ২০ বছর আটকা পাকিস্তানে
হামিদা বানু

হামিদার ভিডিও সাক্ষাৎকার নেয়া পাকিস্তানি ওয়ালিউল্লাহ বলেন, ‘১৫ বছর আগে প্রতিবেশীর বাড়িতে যাওয়ার সময় প্রথম হামিদা বানুর সঙ্গে দেখা হয় আমার। ছোটবেলা থেকে তাকে দেখছি। তাকে সব সময়ই দুশ্চিন্তাগ্রস্ত মনে হয়।’

বাংলাদেশ থেকে পাচার হয়ে পাকিস্তানে আছেন, এমন নারীদের সাহায্যের জন্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বহু বছর ধরে চেষ্টা করেন ওয়ালিউল্লাহ। এ তথ্য জেনে স্বামীর মৃত্যুর পর হামিদা বানু ওয়ালিউল্লাহর মায়ের কাছে তার ফেরার ব্যাপারে সহায়তা করতে তাকে অনুরোধ করেন।

হামিদার কথা শুনে তার প্রতি সহানুভূতি আসে ওয়ালিউল্লাহর। তবে দমে যান ভারতের সঙ্গে পাকিস্তানের উষ্ণ সম্পর্কের কথা চিন্তা করে।

ওয়ালিউল্লাহ বলেন, ‘ভারত থেকে দূরে থাকতে উপদেশ দিয়েছিল আমার এক বন্ধু। সে বলল, এটা ঝামেলা বাধাবে। তার জন্য খারাপই লাগতে লাগল।’

সাক্ষাৎকারে হামিদা তার মুম্বাইয়ের ঠিকানা এবং সন্তানের নাম বলেন। এতে তার স্বজনদের খুঁজে পাওয়াটা একটু সহজ হয়। ভিডিওটি একপর্যায়ে হামিদার নাতি অর্থাৎ ইয়াসমিনের ছেলে আমানের চোখে পড়ে।

ওয়ালিউল্লাহ জানিয়েছেন, ভিডিও দেখে পাকিস্তানে ভারতীয় হাইকমিশনের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করে হামিদা বানুর বিস্তারিত জানিয়ে আবেদন করতে বলা হয়েছে। তবে কবে এ বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত আসবে তা এখনও অজানা।

সন্তানদের সঙ্গে আর কখনও দেখা হবে, দেশে ফিরতে পারবেন, এটা ভুলেই গিয়েছিলেন হামিদা। এখন অবশ্য কিছুটা আশা ফিরছে তার বুকে।

মেয়ে ইয়াসমিন বলছেন, ‘দেশ-সীমা সে যতই আলাদা হোক, আবেগটা আসলে একই। ২০ বছর ধরে অপেক্ষা করছি। অদ্ভুত এক অনুভূতি হচ্ছে।’

আরও পড়ুন:
খারাপ দিন তো সামনে: পাকিস্তানের অর্থমন্ত্রী
গণতন্ত্রের মৃত্যু দেখছে ভারত: রাহুল গান্ধী

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
The United States will save the Philippines by chasing

ফিলিপাইন চীনের ধাওয়া খেলে ‘বাঁচাবে’ যুক্তরাষ্ট্র

ফিলিপাইন চীনের ধাওয়া খেলে ‘বাঁচাবে’ যুক্তরাষ্ট্র ফিলিপাইনে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন। ছবি: সিএনএন
অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন বলেন, ফিলিপাইন যুক্তরাষ্ট্রের অকৃত্রিম এক বন্ধু, অংশীদার ও মিত্র। ফিলিপাইনের সশস্ত্র বাহিনী, জাহাজ এবং বিমানের ওপর সশস্ত্র আক্রমণ হলে চুক্তির অধীনেই আমরা তাদের রক্ষায় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

চীনের সঙ্গে টানটান উত্তেজনার সম্পর্কের মধ্যে ফিলিপাইনের ব্যাপারে নিজেদের অবস্থান স্পষ্ট করল যুক্তরাষ্ট্র। বিরোধপূর্ণ দক্ষিণ চীন সাগরে কখনও হামলার শিকার হলে তখন দেশটির পাশে থাকবে বলে আশ্বস্ত করেছে তারা।

ফিলিপাইনের ম্যানিলায় নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ফার্দিনান্দ মার্কোস জুনিয়র এবং অন্য শীর্ষ কর্মকর্তাদের সঙ্গে সাক্ষাতের পর অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন এ কথা জানিয়েছেন বলে সিএনএনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন বলেন, ফিলিপাইন যুক্তরাষ্ট্রের অকৃত্রিম এক বন্ধু, অংশীদার এবং মিত্র। ফিলিপাইনের সশস্ত্র বাহিনী, জাহাজ এবং বিমানের ওপর সশস্ত্র আক্রমণ হলে চুক্তির অধীনেই আমরা তাদের রক্ষায় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

যুক্তরাষ্ট্রের হাউস স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির স্বশাসিত দ্বীপ তাইওয়ান সফর নিয়ে চীনের সঙ্গে সম্পর্কে যে উষ্ণতা দেখা দিয়েছে তা নিয়েও কথা বলেন এই মন্ত্রী। তিনি বলেন, ফিলিপাইনের সঙ্গে ৭০ বছরের প্রতিরক্ষা চুক্তি একটি ‘লৌহ পোশাক’।

দক্ষিণ চীন সাগর অবস্থানগত কারণেই বিশ্ব বাণিজ্য বা অর্থনৈতিক পরিমণ্ডলে খুব গুরুত্বপূর্ণ একটি অঞ্চল হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিশ্বের ব্যবসা-বাণিজ্যের অর্ধেকেরও বেশি এ সাগর পথেই হয়ে থাকে। এই সাগরের ব্যাপ্তি সিঙ্গাপুর ও মালাক্কা প্রণালী থেকে তাইওয়ান প্রণালী পর্যন্ত প্রায় ৩৫ লাখ বর্গকিলোমিটারের এক বিরাট এলাকা নিয়ে।

বৈঠকে যুক্তরাষ্ট্র যেমন ফিলিপাইনের পাশে থাকার ব্যাপারে আশ্বস্ত করেছে, তেমনি ফিলিপাইনও জো বাইডেন প্রশাসনের প্রতি সমর্থনের কথা জানিয়েছেন। প্রেসিডেন্ট ফার্দিনান্দ মার্কোস বলেন, পরিস্থিতি আগে থেকেই বরং অস্থির ছিল। আমার বিশ্বাস পেলোসির সফর এমন পরিস্থিতির তীব্রতা বাড়ায়নি।

টানটান উত্তেজনার মধ্যে সম্প্রতি তাইওয়ানে সফরে যান ন্যান্সি পেলোসি। গত ২৫ বছরের মধ্যে এই প্রথমবার সেখানে সফরে গেলেন যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ কর্মকর্তাদের কেউ।

এ নিয়ে অবশ্য আগে থেকেই উদ্বেগ দেখাচ্ছিল চীন। হুঁশিয়ারিও দেয়া হয়েছিল। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র তাতে কান দেয়নি। এমন পরিস্থিতিতে সামরিক অভিযানের ঘোষণা দেয় তাইওয়ানকে নিজের অঞ্চল হিসেবে দাবি করা চীন।

বেইজিংয়ের কঠোর প্রতিক্রিয়া ও হুঁশিয়ারি উপেক্ষা করে স্বশাসিত দ্বীপটিতে পূর্বঘোষিত সফরে গিয়ে ন্যান্সি পেলোসি দেখা করেন তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট সাই ইং-ওয়েন ও দ্বীপটির পার্লামেন্টের স্পিকারের সঙ্গে।

পেলোসির তাইওয়ান সফরকে কেন্দ্র করে তাইওয়ান ঘিরে সামরিক মহড়া চালায় চীন। ওই মহড়ার সময় বেইজিং তাইওয়ানের জলসীমায় ব্যালিস্টিক মিসাইল ছুড়েছে বলে অভিযোগ করেছে তাইপে প্রশাসন।

এসব নিয়ে প্রতিক্রিয়া না দেখিয়ে বরং তাইওয়ান ছাড়ার সময় পেলোসি দ্বীপটির পাশে থাকার ঘোষণা দিয়ে যান। সর্বশেষ চীনকে দেখাতে আগামী অক্টোবরে ভারতের সঙ্গে সীমান্তে সামরিক মহড়ায় যাওয়ার ঘোষণা এসেছে যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষে।

আরও পড়ুন:
চীন সীমান্তে ভারতের সঙ্গে সামরিক মহড়ায় যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র
যুক্তরাষ্ট্রের ফোন ‘ধরছে না’ চীন
আগুন নেভাতে গিয়ে দেখলেন মৃতদের সবাই পরিবারের

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Myanmar generals allowed to go to ASEAN meeting

মিয়ানমার জেনারেলদের আসিয়ানের বৈঠকে যেতে মানা

মিয়ানমার জেনারেলদের আসিয়ানের বৈঠকে যেতে মানা মিয়ানমার সেনাবাহিনীর প্রধান মিন অং হ্লাইং। ফাইল ছবি
আসিয়ানের এবারের আঞ্চলিক বৈঠকগুলো হয়েছে কম্বোডিয়ার রাজধানী নম পেনে। সেসব বৈঠকে ১০ দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মিয়ানমার জেনারেলদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞায় একমত হন।

শান্তি পরিকল্পনা বাস্তবায়নের আগ পর্যন্ত দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার ১০ দেশের জোট অ্যাসোসিয়েশন অফ সাউথইস্ট এশিয়ান নেশনসের (আসিয়ান) বৈঠকে অংশ নিতে পারছেন না মিয়ানমার সেনাবাহিনীর শীর্ষ কর্মকর্তারা।

আসিয়ানের সিরিজ আঞ্চলিক বৈঠক শেষে স্থানীয় সময় শনিবার সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন কম্বোডিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রাক সখন।

আসিয়ানের এবারের আঞ্চলিক বৈঠকগুলো হয়েছে কম্বোডিয়ার রাজধানী নম পেনে। সেসব বৈঠকে ১০ দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মিয়ানমার জেনারেলদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞায় একমত হন।

সংবাদ সম্মেলনে কম্বোডিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, জেনারেলদের এমনভাবে কাজ করতে হবে, যাতে বোঝা যায় শান্তি পরিকল্পনায় অগ্রগতি হয়েছে।

২০২১ সালের এপ্রিলে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর প্রধান মিন অং হ্লাইংয়ের সঙ্গে তথাকথিত পাঁচ দফা ঐকমত্যে পৌঁছেছিল আসিয়ান। ১৫ মাসেও সেটি বাস্তবায়ন হয়নি।

আসিয়ানের বৈঠক চলাকালে শুক্রবার ১০ দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী গত বছরের পরিকল্পনার বাস্তবায়ন না হওয়ার নিন্দা জানান। চলতি বছরের নভেম্বরে অনুষ্ঠেয় আসিয়ানের আঞ্চলিক সম্মেলনের আগে মিয়ানমারের সেনা নেতৃত্বাধীন স্টেট অ্যাডমিনিস্ট্রেশন কাউন্সিলকে (এসএসি) ওই পরিকল্পনা বাস্তবায়নে উদ্যোগ নেয়ার তাগিদ দেন তারা।

গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে নির্বাচিত নেতা ও শান্তিতে নোবেলজয়ী অং সান সু চিকে আটক করে সামরিক বাহিনী ক্ষমতা দখলের পর থেকে অস্থিরতা চলছে মিয়ানমারে।

সামরিক অভ্যুত্থানের পর থেকে অসহযোগ আন্দোলন, দেশব্যাপী বিক্ষোভ ও অভ্যুত্থানবিরোধী সশস্ত্র সংগঠনগুলোর প্রতিরোধ দেখে মিয়ানমার।

নৃশংস কায়দায় বিরোধীদের সে প্রতিবাদ-প্রতিরোধ দমন করে সামরিক জান্তা। অভ্যুত্থানের পর থেকে সেনাদের হাতে প্রাণ হারান ২ হাজার ১৫৮ জনের মতো মানুষ।

আরও পড়ুন:
মিয়ানমারে জরুরি অবস্থা আরও ৬ মাস
মিয়ানমারকে চাপ দিতে চীনের প্রতি আহ্বান যুক্তরাষ্ট্রের
সু চির দলের এমপিকে ফাঁসিতে ঝুলাল জান্তা
মস্কোর দুয়ারে মিয়ানমারের জান্তাপ্রধান
গৃহবন্দি সু চি এখন জেলে

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
The US is going to conduct military exercises with India on the Chinese border

চীন সীমান্তে ভারতের সঙ্গে সামরিক মহড়ায় যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

চীন সীমান্তে ভারতের সঙ্গে সামরিক মহড়ায় যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র
চীনের অন্যতম ‘শত্রুরাষ্ট্র’ ভারতের সঙ্গে সামরিক মহড়ায় অংশ নিতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। সীমান্তবর্তী হিমালয় পর্বতমালায় ওই মহড়া হতে পারে। এলাকাটির প্রায় ১০০ কিলোমিটারেরও কম দূরত্বে অবস্থিত ভারত-চীনের বিরোধপূর্ণ সীমান্ত।

বহুদিন ধরেই ‘উদ্বেগময়’ সম্পর্ক যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র আর চীনের। এবার তা আরও স্পষ্ট। যুক্তরাষ্ট্রের হাউস স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি স্বশাসিত দ্বীপ তাইওয়ান সফরের সময় চীন যে প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে, তারই প্রতিক্রিয়ায় বেশ উত্তেজনাকর সিদ্ধান্ত নিয়েছে জো বাইডেন প্রশাসন।

চীনের অন্যতম ‘শত্রুরাষ্ট্র’ ভারতের সঙ্গে সামরিক মহড়ায় অংশ নিতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। সীমান্তবর্তী হিমালয় পর্বতমালায় ওই মহড়া হতে পারে। এলাকাটির প্রায় ১০০ কিলোমিটারেরও কম দূরত্বে অবস্থিত ভারত-চীনের বিরোধপূর্ণ সীমান্ত।

স্থানীয় সময় শনিবার ভারতীয় এক সেনা কর্মকর্তার বরাত দিয়ে সংবাদমাধ্যম সিএনএন এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

এতে বলা হয়, আগামী অক্টোবরের মাঝামাঝি ভারতের উত্তরখণ্ডের অলি এলাকায় এই মহড়া হতে যাচ্ছে। এর পাশেই চীনের সঙ্গে দেশটির নিয়ন্ত্রণ রেখা। ১৯৬২ সাল থেকে দুই দেশই এই এলাকার মালিকানা দাবি করে আসছে।

২০২০ সালে একবার এই সীমান্ত নিয়ে দ্বন্দ্বে জড়িয়েছিল ভারত আর চীনের সেনাবাহিনী। ওই সময় ভারত দাবি করে, তাদের ২০ সেনা নিহত হয়েছে। চীন বলেছিল, চার সেনা নিহত হয়েছিল তাদের।

টানটান উত্তেজনার মধ্যে সম্প্রতি তাইওয়ানে সফরে যান ন্যান্সি পেলোসি। গত ২৫ বছরের মধ্যে এই প্রথমবার সেখানে সফরে গেলেন যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ কর্মকর্তাদের কেউ।

এ নিয়ে অবশ্য আগে থেকেই উদ্বেগ দেখাচ্ছিল চীন। হুঁশিয়ারিও দেয়া হয়েছিল। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র তাতে কান দেয়নি। এমন পরিস্থিতিতে সামরিক অভিযানের ঘোষণা দেয় তাইওয়ানকে নিজের অঞ্চল হিসেবে দাবি করা চীন।

বেইজিংয়ের কঠোর প্রতিক্রিয়া ও হুঁশিয়ারি উপেক্ষা করে স্বশাসিত দ্বীপটিতে পূর্বঘোষিত সফরে গিয়ে ন্যান্সি পেলোসি দেখা করেন তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট সাই ইং-ওয়েন ও দ্বীপটির পার্লামেন্টের স্পিকারের সঙ্গে।

পেলোসির তাইওয়ান সফরকে কেন্দ্র করে তাইওয়ান ঘিরে সামরিক মহড়া চালায় চীন। ওই মহড়ার সময় বেইজিং তাইওয়ানের জলসীমায় ব্যালিস্টিক মিসাইল ছুড়েছে বলে অভিযোগ করেছে তাইপে প্রশাসন।

এসব নিয়ে প্রতিক্রিয়া না দেখিয়ে বরং তাইওয়ান ছাড়ার সময় পেলোসি দ্বীপটির পাশে থাকার ঘোষণা দিয়ে যান। তবে এবার তাদের সামরিক মহড়ার খবর কিছুটা হলেও উত্তেজনা বাড়াচ্ছে নতুন করে।

আরও পড়ুন:
যুক্তরাষ্ট্রের ফোন ‘ধরছে না’ চীন
উত্তেজনা বাড়িয়ে তাইওয়ানে শান্তি চাইলেন পেলোসি

মন্তব্য

p
উপরে