× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট

আন্তর্জাতিক
Orders issued to cover the faces of Afghan women presenters
hear-news
player
print-icon

আফগান নারীদের মুখ ঢাকার আদেশ কার্যকর

আফগান-নারীদের-মুখ-ঢাকার-আদেশ-কার্যকর
মুখ ঢেকে সংবাদ উপস্থাপনা করছেন আফগান নারী। ছবি : সংগৃহীত
আফগানিস্তানে নতুন আদেশ জারি করে তালেবানরা বলছে, দেশের সব নারী টেলিভিশন সংবাদ উপস্থাপক তাদের মুখ ঢেকে রাখবে। আফগান পার্লামেন্টের প্রাক্তন ডেপুটি স্পিকার ফওজিয়া কুফি আল জাজিরাকে বলেছেন, ‘তালেবানের মধ্যে কিছু ব্যক্তি ধর্মের নামে তাদের নিজস্ব নীতি চাপিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছে। এই আদেশটির কোন যুক্তি নেই।’

আফগানিস্তানে নতুন আদেশ কার্যকর করেছে তালেবান সরকার। যাতে বলা হয়েছে দেশের সব নারী টেলিভিশন সংবাদ উপস্থাপক তাদের মুখ ঢেকে রাখবে।

গত বৃহস্পতিবার আদেশটি ঘোষণা করে তারা। আদেশের পরপরই কয়েকটি সংবাদমাধ্যম নতুন নির্দেশনা মেনে চলা শুরু করে।

তবে রোববার তালেবানের 'পূণ্যের প্রচার ও পাপ প্রতিরোধ মন্ত্রণালয়' এই ডিক্রি জারি করার পর বেশিরভাগ নারী উপস্থাপকদের মুখ ঢেকে উপস্থাপনা করতে দেখা যায়।

এর আগে দেশটির তথ্য ও সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় ঘোষণা করে যে, এই নীতিই চূড়ান্ত থাকবে এবং আর কোনো আলোচনা হবে না।

এর প্রতিবাদে আফগানিস্তানের টোলোনিউজের একজন টিভি উপস্থাপক সোনিয়া নিয়াজি বলেছেন, ‘এটি আমাদের ওপর চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে। মুখ ঢাকতে বাধ্য করা আমাদের সংস্কৃতি নয়। কোনো অনুষ্ঠান উপস্থাপনার সময় আমাদের জন্য এটা একটা অস্বস্তির কারণ।’

নিয়াজি আল জাজিরাকে বলেন, প্রথমবারের এভাবে উপস্থাপনা করতে বেশ অসুবিধায় পরতে হয়েছে আমাকে।

তিনি আরও বলেন, ‘এই আদেশটি সব নারী উপস্থাপকদের জন্য প্রত্যাশিত নয়। কারণ ইসলাম আমাদের মুখ ঢেকে রাখার নির্দেশ দেয়নি। এ ছাড়া প্রত্যেক ইসলামিক ও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব এই আদেশের বিরোধিতা করেছেন।’

তালেবানরা আরও বলেছে, নারী উপস্থাপকরা এর পরিবর্তে মেডিকেল মাস্কও পরতে পারেন। বিপরীতে নিয়াজি বলেন, মুখ ঢেকে রাখার আদেশটি তার কাছে নিজেকে আবদ্ধ রাখা বলে মনে হচ্ছে। এই ধরনের আদেশ নারীদের ওপর প্রয়োগ করা আফগানিস্তান জুড়ে নারীদের নির্মূল করার একটি পদক্ষেপ মনে হচ্ছে।

নারী সহকর্মীদের পাশে থাকার জন্য টোলো নিউজের পুরুষ সংবাদ পাঠকরা তাদের মুখ ঢেকে সংবাদ পাঠ করেন।

একজন স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মকর্তা তার নাম ও স্টেশনের নাম গোপন রাখার শর্তে আল জাজিরাকে নিশ্চিত করেছেন, গত সপ্তাহে তার স্টেশনটি তালেবানের পক্ষ থেকে এই আদেশ পায়। তবে রোববার জানতে পারেন এই আদেশই চূড়ান্ত থাকবে।

এর আগে ১৯৯৬-২০০১ সাল থেকে আফগানিস্তানে তালেবানদের ক্ষমতার শেষ সময়ে আপাদমস্তক ঢাকা বোরকা পরতে বাধ্য করে নারীদের ওপর অতিরিক্ত বিধিনিষেধ আরোপ করেছিল। এ ছাড়া তাদের সাধারণ জীবনযাপন ও শিক্ষার ক্ষেত্রেও বাধা সৃষ্টি করেছিল।

গত বছর আগস্টে তারা আবার ক্ষমতা দখল করার পর প্রাথমিকভাবে বিধিনিষেধের ক্ষেত্রে আগের মত কট্টর পদক্ষেপ নেয়নি। এমনকি নারীদের জন্য কোন পোশাকের সুনির্দিষ্ট কোনো বিধিনিষেধও তারা শুরুতে দেয়নি।

কিন্তু সম্প্রতি তাদের এই জারিকৃত আদেশ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সঙ্গে তালেবানের সম্পর্ক আরও জটিল করে তুলবে।

আফগান পার্লামেন্টের প্রাক্তন ডেপুটি স্পিকার ফওজিয়া কুফি আল জাজিরাকে বলেছেন যে ‘এই আদেশটির কোন যুক্তি নেই।’

তিনি বলেন, ‘তালেবানের মধ্যে কিছু ব্যক্তি ধর্মের নামে তাদের নিজস্ব নীতি চাপিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছে। ইসলামে এর কোনো ভিত্তি নেই।’

আরও পড়ুন:
কাবুলে মসজিদে বিস্ফোরণ: নিহত কমপক্ষে ৫০
আফগানিস্তানে মসজিদে বিস্ফোরণে নিহত ৩৩
কাবুলের শিয়া স্কুলে বোমা হামলায় নিহত ৬
পাকিস্তানের হামলায় নিহত ৪৭: আফগানিস্তান
বেশি টেস্ট খেলতে না পারার আক্ষেপ রাশিদের

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
Mamata protested the arrest of Zubair and Teesta

জুবায়ের ও তিস্তাকে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদ মমতার

জুবায়ের ও তিস্তাকে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদ মমতার সাংবাদিক মোহাম্মদ জুবায়ের ও সমাজকর্মী তিস্তা শেতলবাদ। ছবি: সংগৃহীত
বিজেপি নেতৃত্বকে আক্রমণ করে মমতা বলেন, ‘যখন আপনাদের নেতারা ধর্ম নিয়ে মিথ্যা বলেন, ঘৃণা ছড়ান, তাদের গ্রেপ্তার করেন না। জুবায়ের ও তিস্তাকে কেন গ্রেপ্তার করলেন? ওরা কী করেছেন? গোটা দুনিয়া এর নিন্দা করছে।’

ভারতের জনপ্রিয় ফ্যাক্ট-চেকিং ওয়েবসাইট AltNews-এর প্রতিষ্ঠাতা সাংবাদিক মোহাম্মদ জুবায়ের ও সমাজকর্মী তিস্তা শেতলবাদকে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদ জানিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

কেন্দ্রীয় সরকারের সমালোচনা করে তিনি বলেছেন, ‘বিজেপি একটি অপদার্থ দল।’

আসানসোলে মঙ্গলবার এক কর্মিসভায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এ কথা বলেন।

বিজেপি নেতৃত্বকে আক্রমণ করে মমতা বলেন, ‘যখন আপনাদের নেতারা ধর্ম নিয়ে মিথ্যা বলেন, ঘৃণা ছড়ান, তখন আপনারা তাদের গ্রেপ্তার করেন না। আর আমরা কথা বললে খুনি বানিয়ে দেন। জুবায়েরকে কেন গ্রেপ্তার করলেন? তিস্তাকে কেন গ্রেপ্তার করা হয়েছে? ওরা কী করেছেন? গোটা দুনিয়া এর নিন্দা করছে।’

AltNews-এর প্রতিষ্ঠাতা মোহাম্মদ জুবায়েরকে সোমবার গ্রেপ্তার করে দিল্লি পুলিশ। সংবাদমাধ্যমে ও সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচারিত বিভিন্ন খবরকে ভুল প্রমাণ করে দিয়েছেন এই জুবায়ের। দিল্লি পুলিশের তরফে বলা হয়, দিল্লি পুলিশের স্পেশাল সেলে জুবায়েরের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের হয়েছে। তার ভিত্তিতে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এর আগে শনিবার গ্রেপ্তার করা হয় সমাজকর্মী তিস্তা শেতলবাদকে। গুজরাট দাঙ্গা নিয়ে মিথ্যা তথ্য দেয়ার অভিযোগে গুজরাট এটিএস মুম্বাইয়ের বাসভবন থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে।

মহানবীকে (সা.) নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করা বিজেপি নেত্রী নূপুর শর্মার নাম উল্লেখ না করে তৃণমূল নেত্রী বলেন, ‘আমি নাম নেব না। আমরা নাম নিতে চাই না। কিন্তু যারা ধর্ম তুলে গালাগালি করেন, তাদের আপনারা গ্রেপ্তার করেন না কেন? তবে আমাদের সরকার তাকে সমন পাঠিয়েছে। আমরা ছাড়ব না।’

আরও পড়ুন:
জি-৭ বিবৃতি ও টুইটারের তথ্যে মোদি সরকারের দ্বিচারিতা
নোবেল শান্তি পুরস্কারের সম্ভাব্য তালিকায় AltNews-এর জুবায়ের
শুভেন্দুর গ্রেপ্তার দাবি
ভারতে AltNews-এর প্রতিষ্ঠাতা গ্রেপ্তার
চলন্ত গাড়িতে মা-মেয়েকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Tailor murder in Rajasthan Section 144 for taking the side of that anklet

সেই নূপুরের পক্ষ নেয়ায় রাজস্থানে দর্জি খুন, ১৪৪ ধারা

সেই নূপুরের পক্ষ নেয়ায় রাজস্থানে দর্জি খুন, ১৪৪ ধারা   নূপুর ইস্যুতে রাজস্থানে এক দর্জিকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। ছবি: সংগৃহীত
পুলিশ জানিয়েছে, অভিযুক্ত দুজন কানহাইয়ালাল নামে পরিচিত এক দর্জির সঙ্গে কাপড়ের মাপ দেয়ার কথা বলে দেখা করেছিলেন। তাদের একজনের করা একটি ভিডিওতে দেখা যায়, দর্জি এক ব্যক্তির মাপ নিচ্ছেন। কিছুক্ষণ পর ব্যক্তিটি একটি ক্লেভার বের করে দর্জির ঘাড়ে আঘাত করেন। এমন সময় দর্জিকে বলতে শোনা যায়, ‘কেয়া হুয়া বাতাও তো সাহি (কী হয়েছে? আমাকে বলুন!)’

ভারতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মহানবীকে নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্যের জেরে ক্ষমতাসীন বিজেপির বহিষ্কৃত মুখপাত্র নূপুর শর্মার পক্ষে স্ট্যাটাস দিয়ে খুন হয়েছেন এক ব্যক্তি। এ ঘটনায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে দুজনকে। তাদের রাজসমন্দ জেলা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

রাজস্থানের উদয়পুরে মঙ্গলবার এ ঘটনা ঘটে। নিহত ব্যক্তি পেশায় দর্জি। তার শিরোশ্ছেদ করা হয়।

এক টেলিভিশন বিতর্কে গত মাসের শেষ দিকে মহানবীকে নিয়ে নূপুর শর্মা এমন এক মন্তব্য করেন, যা ভারতের মুসলিমদের পাশাপাশি গোটা মুসলিম বিশ্বকে চরম ক্ষুব্ধ করে। বাধ্য হয়ে তাকে মুখপাত্রের পদ থেকে বহিষ্কার করে বিজেপি। জোরদার করা হয় তার নিরাপত্তা।

মঙ্গলবারের ঘটনায় শহরজুড়ে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। রাজস্থানজুড়ে ২৪ ঘণ্টার জন্য ইন্টারনেট পরিষেবা স্থগিত রাখা হয়েছে। রাজ্যজুড়ে জারি হয়েছে এক মাসের ১৪৪ ধারা।

এডিজি ’ল অ্যান্ড অর্ডার হাওয়া সিং ঝুমারিয়া বলেছেন, ‘জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাদের সঙ্গে ৬০০ পুলিশ সদস্যকে উদয়পুরে পাঠানো হচ্ছে। রাজস্থান সতর্ক অবস্থায় রয়েছে।’

পুলিশ জানিয়েছে, অভিযুক্ত দুজন কানহাইয়ালাল নামে পরিচিত এক দর্জির সঙ্গে কাপড়ের মাপ দেয়ার কথা বলে দেখা করেছিলেন। তাদের একজনের করা একটি ভিডিওতে দেখা যায়, দর্জি এক ব্যক্তির মাপ নিচ্ছেন। কিছুক্ষণ পর ব্যক্তিটি একটি ক্লেভার বের করে দর্জির ঘাড়ে আঘাত করেন। এমন সময় দর্জিকে বলতে শোনা যায়, ‘কেয়া হুয়া বাতাও তো সাহি (কী হয়েছে? আমাকে বলুন!)’

দ্বিতীয় ভিডিওতে দেখা যায়, একজন নিজেকে মোহাম্মদ রিয়াজ বলে পরিচয় দেন, অন্যজন তার বন্ধু। এই ‘শিরোশ্ছেদ’ নিয়ে গর্ব করতে দেখা যায়। পরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির প্রতি ‘একটি সতর্কবাণী’ দেন তারা।

সেই নূপুরের পক্ষ নেয়ায় রাজস্থানে দর্জি খুন, ১৪৪ ধারা
নূপুর শর্মা ২০১৫ সালে দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন। ছবি: সংগৃহীত

এক টুইটে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলট বলেন, ‘আমি উদয়পুরে এক যুবকের জঘন্য হত্যার নিন্দা জানাচ্ছি। এ ঘটনায় জড়িত সব অপরাধীর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। পুলিশ অপরাধের তলানিতে যাবে।

‘আমি সব পক্ষকে শান্তি বজায় রাখার আহ্বান জানাই। এ ধরনের জঘন্য অপরাধের সঙ্গে জড়িত প্রত্যেককে কঠোরতম শাস্তি দেয়া হবে। এই পরিস্থিতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেয়া উচিত।’

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এই ঘটনার ভিডিও ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে গেহলট বলেন, ‘এসব ভিডিও শেয়ার না করার আহ্বান জানাচ্ছি। শেয়ার করলে অপরাধীদের সমাজে ঘৃণা ছড়ানোর উদ্দেশ্য সফল হবে।’

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
19 killed in building collapse in Mumbai

মুম্বাইয়ে চারতলা ভবনধসে ১৯ জনের মৃত্যু

মুম্বাইয়ে চারতলা ভবনধসে ১৯ জনের মৃত্যু  মুম্বাইয়ের কুর্লার নায়েকনগর সোসাইটির একটি আবাসিক ভবন সোমবার রাতে ধসে পড়ে। ছবি: সংগৃহীত
বৃহন্মুম্বাই মিউনিসিপ্যাল ​​করপোরেশন (বিএমসি) জানায়, ধ্বংসাবশেষ থেকে বেশ কয়েকজনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়া হয়। ঘাটকোপারের রাজাওয়াদি হাসপাতালে আনাদের মধ্যে ২৮ ও ৩০ বছর বয়সী দুজন পুরুষকে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

ভারতের বাণিজ্যিক নগরী মুম্বাইয়ে ভবনধসে মৃত বেড়ে হয়েছে ১৯। আহত আছেন ছয়জন। স্থানীয় সময় সোমবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে কুর্লার নায়েকনগর সোসাইটির একটি আবাসিক ভবনে এ দুর্ঘটনা ঘটে

ধ্বংসস্তূপের নিচে আটকা পড়াদের উদ্ধারে জোর তৎপরতা চালাচ্ছে ফায়ার সার্ভিস ও জাতীয় দুর্যোগ প্রতিক্রিয়া তহবিল দল।

বৃহন্মুম্বাই মিউনিসিপ্যাল ​​করপোরেশন (বিএমসি) জানায়, ধ্বংসাবশেষ থেকে বেশ কয়েকজনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়া হয়। ঘাটকোপারের রাজাওয়াদি হাসপাতালে আনাদের মধ্যে ২৮ ও ৩০ বছর বয়সী দুজন পুরুষকে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

শিবসেনা নেতা আদিত্য ঠাকরে সোমবার রাতেই ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধার অভিযানের দেখভাল করেন।

মহারাষ্ট্রের মন্ত্রী সুভাষ দেশাই জানিয়েছেন, নিহতদের পরিবারকে প্রত্যেককে ৫ লাখ রুপি এবং আহতদের বিনা মূল্যে চিকিৎসা দেয়া হবে।

তিনি বলেন, ‘মৃতদের পরিবারকে ৫ লাখ রুপি এবং আহতদের বিনা মূল্যে চিকিৎসা দেয়া হবে। ঘটনার তদন্ত করে দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ ধরনের ঘটনা যেন আর না ঘটে, সে জন্য বৈঠক ডাকা হয়েছে।’

সাবেক স্থানীয় করপোরেটর প্রবীনা মোরাজকার বলেন, ‘ভবনের বাসিন্দাদের এবং এলাকার অন্য তিনজনকে ভবনটি খালি করার জন্য নোটিশ দেয়া হয়েছিল। তবে যারা ভাড়ায় থাকছিলেন তারা চলে যাননি।’

ভবনের মালিক কে এখনও তা জানা যায়নি বলে জানান তিনি।

মুম্বাইয়ে চারতলা ভবনধসে ১৯ জনের মৃত্যু
ধ্বংসস্তূপের নিচে আটকা পড়াদের উদ্ধারে জোর তৎপরতা চালাচ্ছে ফায়ার সার্ভিস ও জাতীয় দুর্যোগ প্রতিক্রিয়া তহবিল দল। ছবি: সংগৃহীত

বিএমসির অতিরিক্ত কমিশনার অশ্বিনী ভিদে বলেন, ‘ধসে পড়া ভবনটি জরাজীর্ণ ছিল। ২০১৩ সাল থেকে প্রথমে মেরামত, পরে ভবনটি ভেঙে ফেলার নোটিশ দেয়া হয়েছিল।’

এএনআইয়ের সঙ্গে কথা বলার সময় ঠাকরে বলেছিলেন, ‘যখনই বিএমসি নোটিশ জারি করে, তখনই (বিল্ডিংগুলো) নিজেদের খালি করে দেয়া উচিত। অন্যথায় এ ধরনের ঘটনা ঘটে, যা দুর্ভাগ্যজনক। এখন এই বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়া গুরুত্বপূর্ণ।

‘সবাইকে উদ্ধার করাই ছিল অগ্রাধিকার। এরপর এই ভবনগুলো সরিয়ে নেয়া বা ভেঙে ফেলার দিকে নজর দেব। এতে আশপাশের মানুষ সমস্যায় পড়বে না।’

ঘটনাস্থলে ধারণ করা ভিডিওগুলোতে দেখা যায়, উদ্ধারকর্মীরা ভবনের অবশিষ্টাংশগুলোতে ছাপিয়ে বেড়াচ্ছেন। ধ্বংসাবশেষের নিচে অন্তত চারজনের চাপা পড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এনসিপি নেতা সুপ্রিয়া সুলে বলেন, “ভবনধসের কারণে ‘জীবনের ক্ষতিতে অত্যন্ত দুঃখিত।”

প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে, ওই সময় ভবনটিতে অন্তত ২১ জন ছিলেন।

চলতি মাসে মুম্বাইয়ে এটি তৃতীয় বড় ভবনধসের ঘটনা।

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Private vehicles shut down in Sri Lanka

শ্রীলঙ্কায় ব্যক্তিগত যানবাহনে জ্বালানি বন্ধ

শ্রীলঙ্কায় ব্যক্তিগত যানবাহনে জ্বালানি বন্ধ নিরাপত্তা বাহিনীর একজন সদস্য কলম্বোর একটি জ্বালানি স্টেশনের বাইরে পাহারা দিচ্ছেন। ছবি: এএফপি
চরম অর্থনৈতিক মন্দায় ধুঁকতে থাকা ভারত মহাসাগরের দ্বীপরাষ্ট্রটির শহুরে অঞ্চলের স্কুলগুলো বন্ধ হয়ে গেছে। দেশের দুই কোটি ২০ লাখ নাগরিককে ঘর থেকে কাজ করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

কয়েক দশকের মধ্যে সবচেয়ে খারাপ অর্থনৈতিক সংকটের মুখোমুখি হওয়ায় অ-প্রয়োজনীয় যানবাহনের জন্য জ্বালানি বিক্রি স্থগিত করেছে শ্রীলঙ্কা। আগামী দুই সপ্তাহের জন্য কেবল বাস, ট্রেন, চিকিৎসা পরিষেবা এবং খাদ্য পরিবহনের জন্য ব্যবহৃত যানবাহনগুলো জ্বালানি নিতে পারবে

চরম অর্থনৈতিক মন্দায় ধুঁকতে থাকা ভারত মহাসাগরের দ্বীপরাষ্ট্রটির শহুরে অঞ্চলের স্কুলগুলো বন্ধ হয়ে গেছে। দেশের ২ কোটি ২০ লাখ নাগরিককে ঘর থেকে কাজ করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

দক্ষিণ এশিয়ার দেশটি একটি বেলআউট চুক্তি নিয়ে আলোচনায় রয়েছে। এটি জ্বালানি এবং খাদ্যের মতো আমদানির জন্য অর্থ প্রদানের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

গ্যাস ও তেল প্রতিষ্ঠান ইনভেস্টেকের প্রধান গবেষক নাথান পাইপার বলেন, ‘শ্রীলঙ্কা হলো প্রথম দেশ, যারা ১৯৭০-এর দশকের তেল সংকটের পর এই প্রথম সাধারণ মানুষের কাছে জ্বালানি বিক্রি বন্ধ করার কঠোর পদক্ষেপ নিয়েছে।

‘শ্রীলঙ্কার তেলের মূল্য বৃদ্ধি এবং সীমিত বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভকে টার্গেট করেই এই নিষেধাজ্ঞা।’

দ্বীপরাষ্ট্রটির অনেক বাসিন্দাই জানেন না, কীভাবে জ্বালানি সংকট মোকাবিলা করবে তারা। সাম্প্রতিক মাসগুলোতে শ্রীলঙ্কাজুড়ে ফিলিং স্টেশনগুলোতে দীর্ঘ সারি দেখা গেছে।

কলম্বোর ২৯ বছরের ট্যাক্সিচালক চিনথাকা কুমারা বলেন, ‘এ পদক্ষেপ জনগণের জন্য আরও সমস্যা তৈরি করবে।

‘আমি একজন দৈনিক মজুরি উপার্জনকারী। আমি তিন দিন ধরে এই সারিতে রয়েছি। কখন পেট্রোল পাব, জানি না।’

দুষ্প্রাপ্য জ্বালানি মজুত রেশন করার লক্ষ্যে টোকেন বিতরণ করে চালকদের এখন বাড়ি যেতে বলা হয়েছে। অনেককেই ফিরতে হয়েছে টোকেন ছাড়া।

শ্রীলঙ্কায় ব্যক্তিগত যানবাহনে জ্বালানি বন্ধ

৫২ বছরের বেসরকারি খাতের নির্বাহী এস উইজেতুঙ্গা বলেন, ‘আমি দুই দিন লাইনে ছিলাম। একটা টোকেন পেয়েছি, ১১ নম্বর। তবে কখন জ্বালানি পাব তা আমি জানি না।

‘আমাকে এখন অফিসে যেতে হবে। তাই আমার গাড়িটি এখানে রেখে থ্রি-হুইলারে যাওয়া ছাড়া আমার আর কোনো উপায় নেই।’

অর্থনৈতিক সংকট তীব্র

মহামারি, ক্রমবর্ধমান জ্বালানির দাম এবং জনতাবাদী করের ঘাটতির কারণে শ্রীলঙ্কায় প্রয়োজনীয় পণ্য আমদানির জন্য পর্যাপ্ত বৈদেশিক মুদ্রার অভাব দেখা দিয়েছে।

জ্বালানি, খাদ্য, ওষুধের তীব্র ঘাটতি জীবনযাত্রার ব্যয়কে রেকর্ড উচ্চতায় ঠেলে দিয়েছে। পর্যটননির্ভর অর্থনীতির দেশটির অনেক মানুষ জীবিকার জন্য মোটরগাড়ির ওপর নির্ভর করে।

গত সোমবার দেশটির সরকার জানায়, ১০ ​​জুলাই পর্যন্ত পেট্রোল এবং ডিজেল কেনা থেকে ব্যক্তিগত যানবাহন নিষিদ্ধ থাকবে।

মন্ত্রিপরিষদের মুখপাত্র বন্দুলা গুনেবর্দেনা বলেন, ‘শ্রীলঙ্কার ইতিহাসে এত বড় অর্থনৈতিক সংকটের সম্মুখীন আগে হয়নি।’

নগদ অর্থের সংকটে থাকা দেশটি সস্তায় তেল সরবরাহ নিশ্চিতের লক্ষ্যে রাশিয়া এবং কাতারের সঙ্গে আলোচনা চালানোর চেষ্টায় আছে।

সপ্তাহান্তে সরকার বলেছিল, আগামী দিনে প্রয়োজনীয় পরিষেবাগুলোতে জ্বালানি দেয়ার জন্য মাত্র ৯ হাজার টন ডিজেল এবং ৬ হাজার টন পেট্রোল রয়েছে।

বিদ্যুৎ ও জ্বালানিমন্ত্রী কাঞ্চনা উইজেসেকেরা বলেন, ‘আমরা নতুন স্টক পাওয়ার জন্য যা যা করতে পারি তা করছি। তবে আমরা জানি না তা কখন হবে।’

অক্সফোর্ড ইকোনমিক্সের জ্যেষ্ঠ অর্থনীতিবিদ অ্যালেক্স হোমস বলেন, “জ্বালানি নিষেধাজ্ঞাগুলো একটি ক্রমবর্ধমান সংকটের আরেকটি ছোট লক্ষণ।”

“গতিশীলতা ইতোমধ্যেই গুরুতরভাবে সীমিত বলে মনে হচ্ছে। কারণ লোকজনকে জ্বালানির জন্য দীর্ঘ লাইনে অপেক্ষা করতে হচ্ছে। তবে ব্যক্তিগত যানবাহনের জন্য সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞা অর্থনৈতিক যন্ত্রণা আরও বাড়িয়ে তুলবে।”

গত মে মাসে দেশটি ইতিহাসে প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক ঋণদাতাদের কাছে খেলাপি হয়েছে। এই অবস্থায় প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসের সরকারের বিরুদ্ধে চলছে বিক্ষোভ। তার ভাই মাহিন্দা প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগ করলেও, এখন সেই চাপে আছেন প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া।

শ্রীলঙ্কায় ব্যক্তিগত যানবাহনে জ্বালানি বন্ধ

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের একটি দল ৩ বিলিয়ন ডলারের বেলআউট চুক্তি নিয়ে আলোচনার জন্য গত সপ্তাহে শ্রীলঙ্কায় পৌঁছেছে।

সরকার নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য আমদানিতে ভারত ও চীনের সহায়তাও চাইছে। নতুন প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহে চলতি মাসের শুরুতে বলেছিলেন, ‘খাদ্য, জ্বালানি এবং সারের মতো প্রয়োজনীয় পণ্যগুলোর জন্য আগামী ছয় মাসে শ্রীলঙ্কার কমপক্ষে ৫ বিলিয়ন ডলার প্রয়োজন।’

মন্ত্রীরাও সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে কৃষকদের আরও ধান চাষ করার আহ্বান জানিয়েছেন। ঘাটতির আশঙ্কার মধ্যে সরকারি কর্মকর্তাদের খাদ্য উৎপাদন বাড়াতে সপ্তাহে অতিরিক্ত এক দিন ছুটি দিয়েছে সরকার

সরকার সংকটের জন্য কোভিড মহামারিকে দায়ী করছে। শ্রীলঙ্কার পর্যটন বাণিজ্যকে ব্যাপক প্রভাবিত করেছে করোনা। এটি দেশটির অন্যতম বৃহত্তম বৈদেশিক মুদ্রা উপার্জনকারী খাত। তবে অনেক বিশেষজ্ঞ বলছেন, অব্যবস্থাপনাই অর্থনৈতিক পতনের প্রধান কারণ।

রপ্তানির চেয়ে অনেক বেশি আমদানি করেছে শ্রীলঙ্কা। বিতর্কিত অবকাঠামো প্রকল্পের জন্য চীনের সঙ্গে বড় অঙ্কের ঋণও তুলেছে। আর এসব কারণে শ্রীলঙ্কার বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ তলানিতে পৌঁছায়।

২০২১ সালের প্রথম দিকে যখন শ্রীলঙ্কার বৈদেশিক মুদ্রার ঘাটতি একটি গুরুতর সমস্যা হয়ে ওঠে, তখন সরকার রাসায়নিক সারের আমদানি নিষিদ্ধ করে বহিঃপ্রবাহকে সীমিত করার চেষ্টা করেছিল। কৃষকদের স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত জৈব সার ব্যবহার করতে বলা হয় সরকারের পক্ষ থেকে।

এতে ব্যাপক ফসল নষ্ট হয়। শ্রীলঙ্কাকে বিদেশ থেকে খাদ্য মজুত সম্পূরক করতে হয়েছিল, যা বৈদেশিক মুদ্রার ঘাটতিকে আরও খারাপ করে তুলেছিল।

আরও পড়ুন:
দ্বিতীয় টেস্টে লঙ্কা দলে চামিকা ও সান্দাকান
শানাকার জায়গায় লঙ্কার অধিনায়ক ম্যাথিউস
শ্রীলঙ্কার নতুন টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক শানাকা
স্পিনাররা জেতালেন ইংল্যান্ডকে
টেস্ট ইতিহাসে প্রথম!

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Modi governments duplicity in G 7 statement and Twitter information

জি-৭ বিবৃতি ও টুইটারের তথ্যে মোদি সরকারের দ্বিচারিতা

জি-৭ বিবৃতি ও টুইটারের তথ্যে মোদি সরকারের দ্বিচারিতা জার্মানির এলমাউতে জি-৭ গোষ্ঠীভুক্ত দেশগুলো এবং পাঁচটি অংশীদার দেশের রাষ্ট্রনেতারা। ছবি: সংগৃহীত
জি-৭ ও ভারতসহ পাঁচটি অংশীদার দেশের বিবৃতিতে সুশীল সমাজের স্বাধীনতা ও বৈচিত্র্য রক্ষা এবং মতপ্রকাশের স্বাধীনতা রক্ষায় প্রতিশ্রুতির ঘোষণা রয়েছে। অথচ ওই বিবৃতিতে স্বাক্ষর করা মোদি সরকার টুইটারকে একাধিক অ্যাকাউন্ট ও সরকারবিরোধী টুইট ব্লক করতে অনুরোধ জানিয়েছে।

জার্মানির এলমাউতে জি-৭ গোষ্ঠীভুক্ত দেশগুলো এবং ভারতসহ এর পাঁচটি অংশীদার দেশ সোমবার ‘২০২২ রেজিলিয়েন্স (সহনশীলতা) ডেমোক্রেসি স্টেটমেন্ট’-এ স্বাক্ষর করেছে। এতে ‘সুশীল সমাজের স্বাধীনতা ও বৈচিত্র্য রক্ষা’ এবং ‘অনলাইন ও অফলাইনে মতপ্রকাশের স্বাধীনতা রক্ষায় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ’ থাকার কথা ঘোষণা রয়েছে।

ওই ঘোষণার কয়েক ঘণ্টা পরই প্রকাশিত এক সংবাদে জানা যায়, সোশ্যাল মিডিয়া নেটওয়ার্ক টুইটারকে ভারত সরকারের পক্ষ থেকে একাধিক অ্যাকাউন্ট ও আন্তর্জাতিক অ্যাডভোকেসি গ্রুপ ফ্রিডম হাউস, সাংবাদিক, রাজনীতিবিদ এবং কৃষকদের বিক্ষোভের সমর্থকদের কিছু টুইট ব্লক করতে বলা হয়েছিল।

২৬ জুন টুইটারের প্রকাশ করা এক নথিতে এ তথ্য পাওয়া গেছে। লুমেন ডাটাবেজে দাখিল করা নথি অনুসারে, ভারত সরকারের পক্ষ থেকে ২০২১ সালের ৫ জানুয়ারি ও ২৯ ডিসেম্বর এসব অনুরোধ জানানো হয়েছিল।

খবরটি প্রথম ‘এনট্র্যাকার’ নামে একটি আন্তর্জাতিক সংস্থার রিপোর্টে খবরটি প্রথম প্রকাশ পায়। তাতে দাবি করা হয়েছে, বিষয়বস্তু অপসারণে ভারত সরকারের পক্ষ থেকে অনুরোধগুলো ২৪ ব্যাচে এসেছিলো। কিন্তু রোববার টুইটারে তা প্রকাশ করা হয়েছে (দৃশ্যত প্রয়োগ করা হয়েছে)।

অনলাইন তথ্য বা পোস্ট অপসারণের অনুরোধগুলো ট্র্যাক করে লুমেন ডাটাবেজ৷ এই ডাটাবেজে গুগল, ফেসবুক ও টুইটারের মতো নেতৃস্থানীয় ইন্টারনেট কোম্পানিগুলোর ওয়েব লিঙ্ক বা অ্যাকাউন্ট সম্পর্কে তথ্য পাওয়া যায়।

টুইটারে প্রকাশ করা নথি অনুসারে, সামাজিক নেটওয়ার্কটিকে সরকার আন্তর্জাতিক অ্যাডভোকেসি গ্রুপ ফ্রিডম হাউসের টুইটগুলোকে ব্লক করতে বলেছিল- যা বিশ্বজুড়ে গণতন্ত্র, রাজনৈতিক স্বাধীনতা এবং ইন্টারনেটে বাক ও মত প্রকাশের স্বাধীনতাসহ মানবাধিকার নিয়ে গবেষণা এবং সমর্থন করে। নথি অনুসারে, সরকার টুইটারকে বিধায়ক জার্নাইল সিংসহ ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস এবং আম আদমি পার্টির সদস্যদের টুইটগুলো ব্লক করার অনুরোধ করেছিল।

কিষাণ একতা মোর্চার অ্যাকাউন্ট ব্লক করতে সরকার টুইটারকে অনুরোধ করেছিল। সোমবার প্রকাশিত এক বিবৃতিতে, কৃষক ইউনিয়নগুলোর যৌথ মঞ্চ সম্মিলিত কিষাণ মোর্চা (এসকেএম) তাদের টুইটগুলো ব্লক করতে সরকারের অনুরোধের তীব্র সমালোচনা ও আপত্তি জানিয়েছে।

এক বিবৃতিতে কিষাণ মোর্চা বলেছে, ‘সংযুক্ত কিষাণ মোর্চা কোনো সতর্কবাণী ছাড়াই কেন্দ্রীয় সরকারের নির্দেশে কৃষক আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত টুইটার অ্যাকাউন্টগুলো বন্ধ করার তীব্র বিরোধিতা করছে৷ টুইটার ভারতে প্রায় এক ডজন টুইটার অ্যাকাউন্ট আটকে রেখেছে, যার মধ্যে @kisanektamorcha খামার আন্দোলনে যুক্ত টুইটার হ্যান্ডেল রয়েছে।’

সাংবাদিকদের সুরক্ষার জন্য আন্তর্জাতিক সংস্থা ‘কমিটি ফর প্রটেকশন অফ জার্নালিস্ট’ সাংবাদিক রানা আইয়ুব ও সিজে ওয়ারলেম্যানের টুইট ব্লক করার ভারত সরকারের পদক্ষেপের নিন্দা করেছে।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি জার্মানিতে জি-৭ সম্মেলনে অংশ নেয়ার পর এক বিবৃতিতে প্রকাশ করা হয়েছে। তাতে বলা হয়েছে, ‘জার্মানি, আর্জেন্টিনা, কানাডা, ফ্রান্স, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, ইতালি, জাপান, সেনেগাল, দক্ষিণ আফ্রিকা, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন আমাদের গণতন্ত্রের স্থিতিস্থাপকতা শক্তিশালী করার প্রতিশ্রুতি নিশ্চিত করে।

‘উন্মুক্ত গণ বিতর্ক, স্বাধীন ও বহুত্ববাদী মিডিয়া এবং অনলাইন ও অফলাইনে তথ্যের অবাধ প্রবাহ সক্ষম করে, যা নাগরিক এবং নির্বাচিত প্রতিনিধিদের জন্য বৈধতা, স্বচ্ছতা, দায়িত্ব ও জবাবদিহিতা বৃদ্ধি করে।

দুটি খবরে মোদি সরকারের দ্বিচারিতা প্রকাশ্যে চলে এসেছে।

আরও পড়ুন:
নোবেল শান্তি পুরস্কারের সম্ভাব্য তালিকায় AltNews-এর জুবায়ের
শুভেন্দুর গ্রেপ্তার দাবি
ভারতে AltNews-এর প্রতিষ্ঠাতা গ্রেপ্তার
চলন্ত গাড়িতে মা-মেয়েকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ
রোহিত শর্মার করোনা

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Zubairs name on AltNews list of possible Nobel Peace Prizes

নোবেল শান্তি পুরস্কারের সম্ভাব্য তালিকায় AltNews-এর জুবায়ের

নোবেল শান্তি পুরস্কারের সম্ভাব্য তালিকায় AltNews-এর জুবায়ের ভারতের ফ্যাক্ট-চেকিং ওয়েবসাইট AltNews-এর প্রতিষ্ঠাতা সাংবাদিক মোহাম্মদ জুবায়ের। ছবি: সংগৃহীত
ভারতে সাংবাদিক জুবায়েরকে গ্রেপ্তারের নিন্দা করে এডিটরস গিল্ড অফ ইন্ডিয়া বলেছে, ‘AltNews-এর সতর্ক নজরদারি সমাজে মেরুকরণের হাতিয়ার হিসেবে বিভ্রান্তিকর তথ্য ব্যবহারকারী ও উগ্র জাতীয়তাবাদী মনোভাব জাগিয়ে তোলার কাজে সংশ্লিষ্টদের ক্ষুব্ধ করে তুলেছিল।’

ভারতের জনপ্রিয় ফ্যাক্ট-চেকিং ওয়েবসাইট AltNews-এর অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সাংবাদিক মোহাম্মদ জুবায়েরকে গ্রেপ্তারের নিন্দা করেছে এডিটরস গিল্ড অফ ইন্ডিয়া। ভারতের প্রেস ক্লাবও জুবায়েরকে গ্রেপ্তারের নিন্দা জানিয়েছে।

এডিটরস গিল্ড মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘AltNews-এর সতর্ক নজরদারি সমাজে মেরুকরণের হাতিয়ার হিসেবে বিভ্রান্তিকর তথ্য ব্যবহারকারী ও উগ্র জাতীয়তাবাদী মনোভাব জাগিয়ে তোলার কাজে সংশ্লিষ্টদের ক্ষুব্ধ করে তুলেছিল।

‘২০২০ সালের এক মামলায় জুবায়েরকে দিল্লি পুলিশের বিশেষ শাখায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকা হয়েছিল। এই মামলায় গ্রেপ্তারের বিরুদ্ধে ইতোমধ্যে দিল্লি হাইকোর্ট থেকে সুরক্ষা পেয়েছিলেন তিনি। জুবায়ের যখন সমনের জবাব দিয়েছিলেন, তখন চলতি জুন মাসের শুরুতে শুরু হওয়া একটি অপরাধমূলক তদন্তের ক্ষেত্রে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। জুবায়েরের ২০১৮ সালের একটি পোস্ট ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করেছে- এমন একটি বেনামি টুইটার হ্যান্ডেল-এর অভিযোগের ভিত্তিতে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।’

গিল্ড দাবি করেছে, দিল্লি পুলিশ অবিলম্বে জুবায়েরকে মুক্তি দিক। কারণ জার্মানিতে জি-৭ বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দেয়া প্রতিশ্রুতিগুলো জোরদার করতে অনলাইন ও অফলাইন মতপ্রকাশের স্বাধীনতা রক্ষা করে একটি স্থিতিস্থাপক গণতন্ত্র নিশ্চিত করার জন্য এটি প্রয়োজন।’

বিবৃতিতে স্বাক্ষর করেছেন গিল্ডের সভাপতি সীমা মুস্তাফা, সাধারণ সম্পাদক সঞ্জয় কাপুর ও কোষাধ্যক্ষ অনন্ত নাথ।

সংবাদের নিরপেক্ষতা, সংবাদমাধ্যমের ঋজু অবস্থান, সাংবাদিকতার মৌলিক দর্শন যখন প্রশ্নের মুখে তখন বিকল্প সংবাদের ধারণা তৈরিতে কাজ করছিল AltNews। ফ্যাক্ট চেকিং জার্নালিজমকে এক অন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছে এই প্রতিষ্ঠান। তা নিয়ে যখন জাতীয় রাজনীতি নতুন করে আন্দোলিত হচ্ছে তখন জুবায়ের সম্পর্কে আরও একটি বিষয় সামনে এসেছে।

পুলিশি হেফাজতে থাকা এই সাংবাদিকের নাম রয়েছে নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য সম্ভাব্যদের তালিকায়। নরওয়ের রাজধানী অসলোর পিস রিসার্চ ইনস্টিটিউট চলতি বছরের মে মাসে এ বছরের নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য সম্ভাব্যদের নিয়ে যে তালিকা করেছে তাতে জুবায়েরের নাম রয়েছে। AltNews-এর আরেক প্রতিষ্ঠাতা প্রতীক সিনহার নামও রয়েছে ওই তালিকায়। সে সঙ্গে ভারত থেকে নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য পিআরআইও-এর সংক্ষিপ্ত তালিকায় নাম রয়েছে বিশিষ্ট সমাজকর্মী হর্ষ মন্দারের।

ভারতের রাজনৈতিক মহলেও জুবায়েরকে গ্রেপ্তারের বিরোধিতায় একাধিক নেতা সরব হয়েছেন। সোমবার তাকে গ্রেপ্তারের পর থেকেই একটি অংশ কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে সরব।

কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী এই গ্রেপ্তারের বিরুদ্ধে টুইট করে বিজেপি সরকারের সমালোচনা করেছেন। তিনি বলেছেন, ‘সত্যের একটি কণ্ঠকে গ্রেপ্তার করলেও আরও হাজার হাজার কণ্ঠের জন্ম হবে।’

কংগ্রেস এমপি শশী থারুর জুবায়েরের গ্রেপ্তারকে ‘সত্যের ওপর আক্রমণ’ বলে অভিহিত করেছেন এবং তার মুক্তি দাবি করেছেন। তিনি বলেছেন, ‘AltNews একটি গুরুত্বপূর্ণ পরিষেবা দিয়ে আসছে।’

কংগ্রেসের আরেক এমপি জয়রাম রমেশ বলেন, ‘সাংবাদিক জুবায়েরকে গ্রেপ্তার করে দিল্লি পুলিশ প্রতিহিংসামূলক কাজ করেছে। কারণ AltNews সরকারের বানোয়াট দাবিগুলোকে তুলে এনেছে।’

আইনজীবী-কর্মী প্রশান্ত ভূষণও ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। তিনি বলেন, ‘যারা ঘৃণাত্মক বক্তব্য প্রকাশ করছে, এই সরকার তাদের অনুসরণ করছে। জুবায়েরকে গ্রেপ্তার সত্যের ওপর আক্রমণ। অবিলম্বে তাকে মুক্তি দিতে হবে।’

জুবায়েরকে গ্রেপ্তারের পর সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকেই নোবেল শান্তি পুরস্কারের সংক্ষিপ্ত তালিকার প্রসঙ্গ টানছেন। কেউ কেউ বলছেন, এটাই ভারত। যেখানে নোবেল শান্তি পুরস্কারের মনোনয়ন তালিকায় নাম থাকা ব্যক্তিকে জেলে ঢোকানো হয়।

এখানে বলে রাখা ভালও, পিস রিসার্চ ইনস্টিটিউট অসলোর সঙ্গে নোবেল কমিটির কোনো সম্পর্ক নেই। তারা কেবল সুপারিশ করে।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালে একটি অলাভজনক প্রতিষ্ঠান হিসেবে AltNews-এর যাত্রা শুরু হয়। এটি বিশ্বের প্রথম সারির ফ্যাক্ট-চেকিং আউটলেটগুলোর একটি। এর প্রতিষ্ঠাতারা বছরের পর বছর ধরে অনলাইন ট্রোলিং ও পুলিশি মামলার মুখোমুখি হচ্ছেন। বিশেষ করে ডানপন্থি গোষ্ঠীগুলোর আক্রমণের লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হচ্ছেন তারা।

আরও পড়ুন:
নাটোরে আইসিটি মামলায় সাংবাদিক কারাগারে
‘আত্মরক্ষার’ ছুরিসহ সাংবাদিক গ্রেপ্তার
মা ‘অঙ্গনওয়াড়ি’ কর্মী, ছেলের দুই কোটি টাকার চাকরি
গরু পাচার মামলায় নায়ক দেবকে জিজ্ঞাসাবাদ ইডির
গুজরাট দাঙ্গায় মোদির দায়মুক্তি বহাল

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Shuvendu demanded arrest

শুভেন্দুর গ্রেপ্তার দাবি

শুভেন্দুর গ্রেপ্তার দাবি ফাইল ছবি
শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসুর নেতৃত্বে তৃণমূলের ৮ সদস্যের প্রতিনিধি দলটি মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার পর রাজভবনে যায়।

সারদা চিটফান্ড কেলেঙ্কারি ও নারদা মামলায় অভিযুক্ত ভারতের পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভার বিরোধী দলনেতা বিজেপির শুভেন্দু অধিকারীর গ্রেপ্তারের দাবিতে রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়ের কাছে গেছে তৃণমূল কংগ্রেসের একটি প্রতিনিধি দল।

শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসুর নেতৃত্বে তৃণমূলের ৮ সদস্যের প্রতিনিধি দলটি মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার পর রাজভবনে যায়।

ব্রাত্য বসু ছাড়া প্রতিনিধি দলে ছিলেন, তৃণমূল কংগ্রেসের রাজ্য সম্পাদক কুনাল ঘোষ, মন্ত্রী শশী পাঁজা, ফিরোজা বিবি, অর্জুন সিং, সায়নী ঘোষ ও অন্যরা।

কয়েকদিন আগে কয়েক হাজার কোটি টাকার সারদা চিটফান্ড কেলেঙ্কারির মূল হোতা সুদীপ্ত সেন সংবাদমাধ্যমের কাছে অভিযোগ তোলেন, বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী ব্ল্যাকমেইল করে তার কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। এ বিষয়ে তিনি চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট এবং হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতিকে চিঠি লিখে বিস্তারিত জানিয়েছেন।

আর সুদীপ্ত সেনের এই অভিযোগকে হাতিয়ার করে তৃণমূলের প্রশ্ন, সুদীপ্ত সেন নিজে যখন শুভেন্দুর বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলছেন, তখন তাকে গ্রেপ্তার করা হবে না কেন ? বিজেপিতে আছেন বলেই কি সিবিআই গ্রেপ্তারি থেকে ছাড়া পেয়ে চলেছেন শুভেন্দু?

এমন প্রেক্ষাপটে শুভেন্দু অধিকারীর গ্রেপ্তারের দাবিতে রাজ্যজুড়ে বিভিন্ন কর্মসূচি নিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। সোমবার কলকাতা, মেদিনীপুরসহ রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় বিক্ষোভ মিছিল ও ধরনা, পথসভা করে তৃণমূল। তাদের একটাই দাবি, বিজেপিতে আশ্রয় নেয়া সব অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করতে হবে। পক্ষপাতিত্ব করা চলবে না।

তৃণমূল কংগ্রেসের রাজ্য সম্পাদক কুণাল ঘোষ বলেন, ‘সিবিআই অফিসাররা খারাপ নয়। আমি সিবিআইয়ের বিরুদ্ধে নই। কিন্তু সিবিআইকে যেভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে, যেভাবে বেছে বেছে তৃণমূল নেতাদের বিরুদ্ধে নিশানা করা হচ্ছে, আমি তার বিরুদ্ধে।’

তৃণমূলের বালিগঞ্জের বিধায়ক বাবুল সুপ্রিয় বিজেপির বিরুদ্ধে তোপ দেগে বলেন, ‘বিজেপি সিবিআইকে পরিচালিত করছে। রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় সিবিআইকে ব্যবহার করা হচ্ছে। বিজেপির অভিসন্ধি সব জেনেছি কেন্দ্রীয় মন্ত্রী থাকাকালীন। সিবিআই যখন সারদায় সবাইকে ডেকেছে, তাহলে কেন শুভেন্দু অধিকারীকে ডাকবে না? ’

আরও পড়ুন:
চলন্ত গাড়িতে মা-মেয়েকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ
রোহিত শর্মার করোনা

মন্তব্য

p
উপরে