× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য

আন্তর্জাতিক
22 killed in Cuban hotel blast
hear-news
player

কিউবার হোটেলে বিস্ফোরণে মৃত বেড়ে ২২

কিউবার-হোটেলে-বিস্ফোরণে-মৃত-বেড়ে-২২ সারাতোগা হোটেলে উদ্ধার অভিযান চলছে। ছবি: সংগৃহীত
মহামারির কারণে দীর্ঘদিন বন্ধ ছিল ঐতিহ্যবাহী হোটেলটি। কয়েক দিনের মধ্যে এটি পুনরায় চালুর প্রস্তুতি নিচ্ছিল কর্তৃপক্ষ। বিস্ফোরণে এটি এখন অনেকটা ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে। বাইরের দেয়ালে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে।

কিউবার সবচেয়ে বিলাসবহুল পাঁচতারা হোটেলে বিস্ফোরণে মৃত বেড়ে হয়েছে ২২ জন। ৬০ জনেরও বেশি হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

ওল্ড হাভানার সারাতোগা হোটেলের বাইরে পার্ক করা একটি গ্যাস ট্যাংকার থেকে বিস্ফোরণটি হয় বলে ধারণা করা হচ্ছে। বিস্ফোরণে ভবনটির বেশ কয়েকটি তলা ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

মহামারির কারণে দীর্ঘদিন বন্ধ ছিল ঐতিহ্যবাহী হোটেলটি। কয়েক দিনের মধ্যে এটি পুনরায় চালুর প্রস্তুতি নিচ্ছিল কর্তৃপক্ষ। বিস্ফোরণে এটি এখন অনেকটা ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে। বাইরের দেয়ালে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে।

কিউবার প্রেসিডেন্সি জানিয়েছে, নিহতদের মধ্যে একজন গর্ভবতী নারী ও একটি শিশু রয়েছে। আহতদের নিকটস্থ হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। ধ্বংসস্তূপের নিচে আটকে পড়াদের খুঁজে বের করতে তল্লাশি ও উদ্ধার অভিযান চলছে।

হোটেলের এক ব্লকে বাসকারী ইয়াজিরা দে লা কারিদাদ সিবিএস নিউজকে বলেন, ‘ভেবেছিলেন (বিস্ফোরণটি) এটি ভূমিকম্প।’

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলছেন, বিস্ফোরণের পর আকাশে কালো ধোঁয়া ও ধুলোর মেঘ উড়তে দেখেছেন তারা।

হোটেলটির ঠিক পেছনেই একটি স্কুল রয়েছে। বিস্ফোরণে প্রতিষ্ঠান বা শিক্ষার্থীদের কোনো ক্ষতি হয়নি বলে নিশ্চিত করেছে স্থানীয় কর্মকর্তারা। তারা জানিয়েছেন, সব শিশুকে নিরাপদে সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

হোটেলটি সরকারের পুরোনো কংগ্রেস ভবনের বিপরীতে অবস্থিত। কিউবার প্রেসিডেন্ট মিগুয়েল দিয়াজ-ক্যানেল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

তিনি বলেন, ‘এটি বোমা বা হামলা ছিল না। এটি একটি দুর্ভাগ্যজনক দুর্ঘটনা।’

করোনার ক্ষয়ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে যখন পর্যটকনির্ভর দেশটি প্রস্তুত হচ্ছে, ঠিক তখনই ঘটল এমন দুর্ঘটনা। সারাতোগা হোটেলটি করোনার সময়ের বেশির ভাগ সময় সংস্কারের জন্য বন্ধ ছিল।

মতাদর্শের কারণে হাভানা-ওয়াশিংটনের বৈরী সম্পর্ক দীর্ঘদিনের। যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার হস্তক্ষেপে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কে কিছুটা উষ্ণতা পায়। সে সময়ে ম্যাডোনা, বেয়ন্স এবং মিক জ্যাগারের মতো তারকারা এই হোটেলটির আথিতিয়তা নিয়েছিলেন।

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
Indias sanctions Wheat prices rise in world markets

ভারতের নিষেধাজ্ঞা: বিশ্ববাজারে বাড়ল গমের দাম

ভারতের নিষেধাজ্ঞা: বিশ্ববাজারে বাড়ল গমের দাম গম রপ্তানিতে ভারতের নিষেধাজ্ঞার পর বিশ্ববাজারে বেড়ে গেছে খাদ্যশস্যটির দাম। ছবি: বিবিসি
যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগোয় বেঞ্চমার্ক ইনডেক্সে বিশ্বে গমের মূল্যসূচক বেড়ে গেছে ৫ দশমিক ৯ শতাংশ, যা গত দুই মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ। গত বছরের তুলনায় চলতি বছর বিশ্ববাজারে গমের দাম প্রায় ৬০ শতাংশ বেড়েছে। এতে করে গম থেকে উৎপাদিত রুটি, নুডুলসসহ বিভিন্ন খাদ্যপণ্যের দাম বেড়ে যায়।

গম রপ্তানির ওপর ভারত নিষেধাজ্ঞা দেয়ার পর বিশ্ববাজারে বেড়ে গেছে খাদ্যশস্যটির দাম।

যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগোয় বেঞ্চমার্ক ইনডেক্সে বিশ্বে গমের মূল্যসূচক বেড়ে গেছে ৫ দশমিক ৯ শতাংশ, যা গত দুই মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ।

ইউক্রেনে রাশিয়ার হামলা শুরুর পরের মাস মার্চে প্রচণ্ড গরম আর তাপদাহে ভারতে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয় গমের ফলন। এতে দেশটির অভ্যন্তরে প্রধান খাদ্যশস্যটির দাম বেড়ে যায় রেকর্ড পরিমাণ। এমন বাস্তবতায় গম রপ্তানি বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয় নয়াদিল্লি।

গত বছরের তুলনায় চলতি বছর বিশ্ববাজারে গমের দাম প্রায় ৬০ শতাংশ বেড়েছে। এতে গম থেকে উৎপাদিত রুটি, নুডুলসসহ বিভিন্ন খাদ্যপণ্যের দাম বেড়ে যায়।

গত শুক্রবার অভ্যন্তরীণ মূল্যবৃদ্ধি ঠেকাতে গম রপ্তানির ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয় ভারত।

দেশটির বৈদেশিক বাণিজ্যসংক্রান্ত সংস্থা (ডিজিএফটি) স্থানীয় সময় শুক্রবার এ ঘোষণা দেয়।

শুক্রবারের ঘোষণার আগে লেটার অফ ক্রেডিট (এলওসি) ইস্যু হয়েছে এমন সব রপ্তানির চালান সংশ্লিষ্ট দেশে পাঠানো হবে। এর বাইরেও কোনো দেশের অনুরোধে গম রপ্তানি করা যাবে।

ডিজিএফটির ঘোষণায় আরও বলা হয়, দেশের সার্বিক খাদ্যসংকট নিয়ন্ত্রণে নয়াদিল্লি গম রপ্তানি বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয়। প্রতিবেশী ও অন্য ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোকে প্রয়োজনে খাদ্য সহায়তা অব্যাহত রাখবে ভারত।

চীনের পর গমের দ্বিতীয় বৃহত্তম উৎপাদনকারী দেশ ভারত। তবে উৎপাদিত গমের অধিকাংশই ভারতকে ব্যবহার করতে হয় অভ্যন্তরীণ চাহিদা মেটাতে।

চলতি বছরের ২৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্বে গমের অন্যতম রপ্তানিকারক দেশ ইউক্রেনে রাশিয়ার সামরিক অভিযান শুরুর পর ভারতের দ্বারস্থ হন ক্রেতারা।

ভারত সরকার জানিয়েছে, নিষেধাজ্ঞার আগে ইস্যু করা রপ্তানির আদেশ অনুযায়ী বিভিন্ন দেশকে গম পাঠানো অব্যাহত রাখবে নয়াদিল্লি। আর যে সব দেশ তাদের খাদ্যনিরাপত্তার চাহিদা মেটাতে ভয়াবহ সংকটের মুখে রয়েছে, তারাও ভারতের গম পাওয়া থেকে বঞ্চিত হবে না।

ভারতীয় সরকারি কর্মকর্তারাও বলেন, এই নিষেধাজ্ঞা স্থায়ী নয় এবং এটি সংশোধন করা যেতে পারে।

তবে জার্মানিতে অনুষ্ঠিত গ্রুপ অফ সেভেন-জি৭ভুক্ত দেশগুলোর বৈঠকে কৃষিমন্ত্রীরা এই সিদ্ধান্তের তীব্র সমালোচনা করেছেন৷

জার্মান খাদ্য ও কৃষিমন্ত্রী সেম ওজদেমির বলেন, ‘ভারতের মতো অন্য দেশগুলো যদি রপ্তানি নিষেধাজ্ঞা আরোপ বা বাজার বন্ধ করতে শুরু করে, তবে এই সংকট আরও তীব্রতর হয়ে দেখা দেবে।’

জি৭ হলো বিশ্বের সাতটি বৃহত্তম ও উন্নত অর্থনীতির একটি সংগঠন, যার আধিপত্য রয়েছে বিশ্ব বাণিজ্য এবং আন্তর্জাতিক আর্থিক ব্যবস্থায়। জি৭ভুক্ত দেশগুলো হলো কানাডা, ফ্রান্স, জার্মানি, ইতালি, জাপান, যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্র।

যদিও ভারত বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম গম উৎপাদক দেশ, তবে এটি প্রধান রপ্তানিকারক দেশ নয়। কারণ এর বেশির ভাগ উৎপাদিত শস্য অভ্যন্তরীণ বাজারের চাহিদা মেটাতে ব্যবহৃত হয়।

এদিকে রাশিয়ার হামলার পর ইউক্রেনের গম রপ্তানিতে ধস নামে। খরা ও বন্যার হুমকিতে থাকা দেশগুলো নিজেদের খাদ্য ঘাটতি মেটাতে ভারতের ওপর নির্ভরশীল হয়ে আছে।

নিষেধাজ্ঞা দেয়ার এক সপ্তাহ আগে, ভারত চলতি বছর রেকর্ড ১০ মিলিয়ন টন গম রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছিল।

দেশটির বাণিজ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ইউক্রেন যুদ্ধে বিশ্বে গমের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় ভারত একাই তা মেটাবে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বক্তব্যের সঙ্গে মিল রেখে মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, গোটা বিশ্ববাসীকে খাবার সরবরাহ করার জন্য প্রস্তুত রয়েছে ভারত।

তবে এক সপ্তাহের ব্যবধানে নিষেধাজ্ঞা দেয়ার মাধ্যমে নিজের অবস্থান থেকে পুরোপুরি সরে যায় নয়াদিল্লি, এমন মন্তব্য করেছেন সংবাদমাধ্যম বিবিসির ভারতবিষয়ক সম্পাদক ভিকাস পান্ডে।

আরও পড়ুন:
ভারতের গম রপ্তানি বন্ধে দেশে প্রভাব পড়বে
ভারত গম রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা দেয়নি: খাদ্যমন্ত্রী
মূল্যবৃদ্ধি ঠেকাতে গম রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা ভারতের

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
The United States is up in arms over the right to abortion

গর্ভপাতের অধিকার দাবিতে উত্তাল যুক্তরাষ্ট্র

গর্ভপাতের অধিকার দাবিতে উত্তাল যুক্তরাষ্ট্র গর্ভপাতের অধিকার দাবিতে সবচেয়ে বড় বিক্ষোভ-সমাবেশ হয়েছে ওয়াশিংটন মনুমেন্টের সামনে। অধিকারকর্মী গ্রেস লিলি এতে যোগ দেন। তারা সুপ্রিম কোর্ট ঘেরাও করতে এগিয়ে যান। ছবি: রয়টার্স
উইমেন্স মার্চ-এর প্রধান নির্বাহী রাচেল কারমোনা বলেন, ‘নিজের শরীরের ওপর অধিকার আদায়ের এই সংগ্রাম তারা সাদরে গ্রহণ করেছেন। অধিকার রক্ষার এই সংগ্রামে তারা জয়ী হবেন। নারীর শরীরের ওপর চাপিয়ে দেয়া যেকোনো ধরনের শর্ত ও আঘাতকে হটিয়ে দিতে চাই আমরা। আমরা চাই নারীর শরীর হবে সব ধরনের নিয়ন্ত্রণের ঊর্ধ্বে। আমরা চাই এই ডেমোক্রেটিক সরকার আমাদের অধিকার আদায়ের পক্ষে থাকবে।’

যুক্তরাষ্ট্রে গর্ভপাত বন্ধে সুপ্রিম কোর্টের সম্ভাব্য রায়ের বিরুদ্ধে দেশজুড়ে বিক্ষোভ করছেন হাজারও নারী।

আয়োজকরা জানিয়েছেন, ওয়াশিংটন ডিসি, নিউ ইয়র্ক, লস অ্যাঞ্জেলেস এবং শিকাগো শহরসহ কমপক্ষে ৩৮০টি স্থানে বিক্ষোভ সমাবেশে যোগ দিয়েছেন হাজারও নারী।

১৯৭৩ সালে যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্টের ‘রো বনাম ওয়েড’ নামের ঐতিহাসিক রায়ে আমেরিকান নারীদের গর্ভপাতে বৈধতা দেয়া হয়। সেই সঙ্গে গর্ভপাতের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়ার অধিকারকে স্বীকৃতি দেয়া হয় এই রায়ে।

সমাবেশে গর্ভপাতের পক্ষে অধিকারকর্মীরা জানিয়েছেন, ডানপন্থি বিচারকদের প্রাধান্য থাকা উচ্চ আদালতের এখতিয়ার নেই নারীর গর্ভপাতের অধিকার হরণ করার।

গর্ভপাতের অধিকার দাবিতে উত্তাল যুক্তরাষ্ট্র

স্থানীয় সময় শনিবার গর্ভপাতের অধিকার দাবিতে সবচেয়ে বড় বিক্ষোভ-সমাবেশ হয়েছে ওয়াশিংটন মনুমেন্টের সামনে। এরপর তারা সুপ্রিম কোর্ট ঘেরাও করতে এগিয়ে যান। তবে পুলিশি বাধায় থেমে যায় তাদের পদযাত্রা।

উইমেন্স মার্চ-এর প্রধান নির্বাহী রাচেল কারমোনা বলেন, ‘নিজের শরীরের ওপর অধিকার আদায়ের এই সংগ্রাম তারা সাদরে গ্রহণ করেছেন। অধিকার রক্ষার এই সংগ্রামে তারা জয়ী হবেন।’

এই বিক্ষোভ-সমাবেশ আয়োজনে আরও ছিল প্লানড পেরেন্টহুড, আল্ট্রাভায়োলেট ও মুভঅনসহ বিভিন্ন অধিকারবিষয়ক সংগঠন।

এ সময় ড্রাম বাজিয়ে বিভিন্ন স্লোগানে তারা উত্তাল করে তোলেন সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণ। তাদের স্লোগানের অন্যতম ছিল, ‘আমার শরীর, আমার পছন্দ।’ ব্যানারগুলোতে লেখা ছিল প্রতিবাদী নানা স্লোগান- ‘নিজের জরায়ুর প্রতি মনোযোগ দিন’, ‘গর্ভপাত ব্যক্তিগত পছন্দ, আইনি বিতর্ক নয়’।

গর্ভপাতের অধিকার দাবিতে উত্তাল যুক্তরাষ্ট্র

তিনি আরও বলেন, ‘নারীর শরীরের ওপর চাপিয়ে দেয়া যেকোনো ধরনের শর্ত ও আঘাতকে হটিয়ে দিতে চাই আমরা। আমরা চাই নারীর শরীর হবে সব ধরনের নিয়ন্ত্রণের ঊর্ধ্বে। আমরা চাই এই ডেমোক্রেটিক সরকার আমাদের অধিকার আদায়ের পক্ষে থাকবে।’

গর্ভপাতের অধিকার বন্ধে সুপ্রিম কোর্ট যদি মিসিসিপি অঙ্গরাজ্যের আদালতের দেয়া পর্যবেক্ষণের প্রতি মিল রেখে রায় দেয়, তবে দেশটির দক্ষিণ ও মধ্য-পশ্চিমের অন্তত ২৬ রাজ্যে নিষিদ্ধ হবে গর্ভপাত।

গর্ভপাতের অধিকার দাবিতে উত্তাল যুক্তরাষ্ট্র

তখন নারীদের অনাকাঙ্ক্ষিত গর্ভপাত করাতে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা বিভিন্ন বেসরকারি ক্লিনিকে মুনাফালোভী চিকিৎসকের দারস্থ হতে হবে। এতে করে যেমন ওই নারী শারীরিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন, তেমনি গর্ভপাত করানোর অভিযোগে চিকিৎসক ও সেবিকারাও বিচারের আওতায় চলে আসবেন।

এর আগে, গত বছর ২ অক্টোবর, গর্ভপাতের ওপর বিধিনিষেধ বাড়ানোর প্রতিবাদে যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন শহরে বিক্ষোভ করেন হাজারও নারী।

স্থানীয় সময় শনিবার যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে গর্ভপাতের অধিকারের দাবিতে ৬৬০টি বিক্ষোভ হয়। এর মধ্যে ওয়াশিংটন ডিসিতে সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণের বিক্ষোভটি ছিল অন্যতম।

নারীদের এই বিক্ষোভ শুরু সম্প্রতি টেক্সাস অঙ্গরাজ্যে গর্ভপাতবিষয়ক পাস হওয়া একটি আইন ঘিরে। এই আইনে কারও গর্ভধারণের সময় ছয় সপ্তাহের মতো হয়ে গেলে তাদের গর্ভপাত নিষিদ্ধ করা হয়।

পরের মাস থেকে কার্যকর হয় এই আইন। এটি যুক্তরাষ্ট্রে গর্ভপাতবিষয়ক সবচেয়ে কঠিন আইন।

ওয়াশিংটন ডিসিতে বিক্ষোভটি ছিল বিশাল। সুপ্রিম কোর্টের আশপাশের সড়কগুলো ছিল পূর্ণ। গর্ভপাতবিরোধী আইনের সমালোচনামূলক বিভিন্ন ব্যানার ছিল নারীদের হাতে।

অনেককে পরতে দেখা যায় ‘১৯৭৩’ লেখা টি-শার্ট, যা মনে করিয়ে দেয় ১৯৭৩ সালে যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্টের ‘রো বনাম ওয়েড’ নামের ঐতিহাসিক রায়ের বিষয়টি। যাতে আমেরিকান নারীদের গর্ভপাতে বৈধতা দেয়া হয়েছিল।

আরও পড়ুন:
নিউ ইয়র্কে ‘বর্ণবিদ্বেষী’ হামলায় নিহত ১০, শ্বেতাঙ্গ আটক

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
At least 10 white people have been arrested in connection with a racist attack in New York

নিউ ইয়র্কে ‘বর্ণবিদ্বেষী’ হামলায় নিহত ১০, শ্বেতাঙ্গ আটক

নিউ ইয়র্কে ‘বর্ণবিদ্বেষী’ হামলায় নিহত ১০, শ্বেতাঙ্গ আটক বন্দুকহামলার পর টপস ফ্রেন্ডলি মার্কেটের ভেতর থেকে আধা-সামরিক পোশাক পরা এক শ্বেতাঙ্গ যুবককে রাইফেলসহ আটক করে পুলিশ। ছবি: রয়টার্স
ঘটনাস্থল থেকে ১৮ বছর বয়সী এক শ্বেতাঙ্গ যুবককে রাইফেলসহ আটক করা হয়েছে। হতাহতের অধিকাংশই কৃষ্ণাঙ্গ। স্থানীয় প্রশাসন এই হামলার পেছনে বর্ণবিদ্বেষী মনোভাবকে দুষছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কের একটি সুপার মার্কেটে এক শ্বেতাঙ্গ যুবকের বন্দুক হামলায় নিহত হয়েছেন ১০ জন। স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র দিয়ে চালানো ওই হামলায় আহত হয়েছেন আরও তিনজন। হতাহতের অধিকাংশই কৃষ্ণাঙ্গ।

স্থানীয় সময় শনিবার সন্ধ্যায় নিউ ইয়র্কে কৃষ্ণাঙ্গ অধ্যুষিত বাফেলো শহরের একটি সুপার মার্কেটে এই ঘটনা ঘটে।

ঘটনাস্থল থেকে আধা-সামরিক পোশাক পরা ১৮ বছর বয়সী এক শ্বেতাঙ্গ যুবককে স্বয়ংক্রিয় রাইফেলসহ আটক করা হয়েছে।

হতাহতদের মধ্যে রয়েছেন ১১ কৃষ্ণাঙ্গ ও দুই শ্বেতাঙ্গ। টপস ফ্রেন্ডলি মার্কেটের এই হামলার পেছনে বর্ণবিদ্বেষী ও সহিংস চরমপন্থী মনোভাবকে দুষছেন স্থানীয় প্রশাসন।

নিউ ইয়র্কে ‘বর্ণবিদ্বেষী’ হামলায় নিহত ১০, শ্বেতাঙ্গ আটক

বন্দুকহামলায় ১০ জন নিহতের ঘটনায় টপস ফ্রেন্ডলি মার্কেটের সামনে জড়ো হয় স্থানীয় বাসিন্দারা। ছবি: এপি

দেশটির গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআইয়ের বাফেলো ফিল্ড অফিসে দায়িত্বপ্রাপ্ত স্পেশাল এজেন্ট স্টিফেন বেলঙ্গিয়া সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, “এই গুলির ঘটনাকে ‘ঘৃণাজনিত অপরাধ এবং জাতিগতভাবে সহিংস চরমপন্থী মামলা’ হিসেবে তদন্ত করা হচ্ছে।’’

বাফেলোর পুলিশ কমিশনার জোসেফ গ্রামাগলিয়া বলেন, ‘ওই সন্দেহভাজনের হামলায় ৯ ক্রেতা এবং সুপার মার্কেটে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা একজন অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা নিহত হয়েছেন।

‘সশস্ত্র নিরাপত্তারক্ষী ওই পুলিশকর্তা বন্দুকধারীকে লক্ষ্য করে একাধিক গুলি চালিয়েছিলেন। তবে বন্দুকধারীর গুলিতে তিনি নিহত হন।’

একটি দোকানের ভেতরে ওই নিরাপত্তারক্ষীর মুখোমুখি অবস্থানে এলে সন্দেহভাজন ব্যক্তি নিজের গলায় বন্দুক তাক করেন। এ সময় পুলিশ তাকে অস্ত্র ফেলে আত্মসমর্পণ করতে বলেছিলেন, পুলিশ কমিশনার যোগ করেন।

সন্দেহভাজন ওই ব্যক্তিকে বাফেলোর প্রায় ২০০ মাইল দক্ষিণ-পূর্বে কনক্লিন অঞ্চলের বাসিন্দা পেটন গেনড্রন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। আইন প্রয়োগকারী সংস্থার দুই কর্মকর্তা সংবাদ সংস্থা এপিকে বিষয়টি জানিয়েছেন।

নিউ ইয়র্কে ‘বর্ণবিদ্বেষী’ হামলায় নিহত ১০, শ্বেতাঙ্গ আটক

নিউ ইয়র্কের একটি সুপার মার্কেটে শ্বেতাঙ্গ যুবকের বন্দুকহামলায় হতাহতদের মধ্যে রয়েছেন ১১ কৃষ্ণাঙ্গ ও দুই শ্বেতাঙ্গ। ছবি: এপি

কর্মকর্তাদের এই বিষয়ে প্রকাশ্যে কথা বলার অনুমতি দেয়া হয়নি এবং নাম প্রকাশ না করার শর্তে তারা তা করেন।

হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি কারিন জ্যঁ পিয়েরে বলেন, ‘প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এই ঘটনা ও এর তদন্তের বিষয়ে নিয়মিত খবর নিচ্ছেন। এই ঘটনায় জো বাইডেন ফার্স্ট লেডিকে সঙ্গে নিয়ে নিহতদের আত্মার শান্তি কামনা ও তাদের প্রিয়জনদের জন্য প্রার্থনা করেছেন।’

আরও পড়ুন:
সাউথ ক্যারোলাইনায় শপিং সেন্টারে গুলি, আহত অন্তত ১৪

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Lawyer killed in honeymoon mafia shootings

মধুচন্দ্রিমায় ‘মাফিয়া’র গুলিতে আইনজীবী খুন

মধুচন্দ্রিমায় ‘মাফিয়া’র গুলিতে আইনজীবী খুন ডেকামেরন হোটেলেটি কলম্বিয়ার অন্যতম জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্র। ছবি: সংগৃহীত
মার্সেলোর স্ত্রী সাংবাদিক ক্লডিয়া আগুইলেরা বলেন, ‘গুলি করার আগে সৈকতে দুজন লোকের সঙ্গে আমাদের দেখা হয়। তারা কোনো হুমকি হতে পারে, এমনটা ভাবিনি। আততায়ীদের মধ্যে একজন কোনো কথা ছাড়াই দুবার গুলি করে; একটি মুখে, অন্যটি তার পিঠে লাগে। মনে হয়, ছোট নৌকা বা জেট স্কিতে করে ওরা এসেছিল।’

কলম্বিয়ায় মধুচন্দ্রিমায় গিয়ে খুন হয়েছেন প্যারাগুয়ের শীর্ষ আইনজীবী মার্সেলো পেচি। বারু শহরে একটি পর্যটন দ্বীপের সমুদ্রসৈকতে আততায়ী তাকে গুলি করে। মাদকের বিরুদ্ধে আইনি লড়াইয়ের জন্য আলোচিত ছিলেন মার্সেলো।

এই ঘটনার মাত্র ২ ঘণ্টা আগে মার্সেলোর স্ত্রী তার ইনস্টাগ্রাম পোস্টে জানিয়েছিলেন, তিনি অন্তঃসত্ত্বা।

মার্সেলোর স্ত্রী সাংবাদিক ক্লডিয়া আগুইলেরা বলেন, ‘গুলি করার আগে সৈকতে দুজন লোকের সঙ্গে আমাদের দেখা হয়। তারা কোনো হুমকি হতে পারে, এমনটা ভাবিনি।’

‘সেখানে তারা মার্সেলোর ওপর হামলা চালায়। আততায়ীদের মধ্যে একজন কোনো কথা ছাড়াই দুবার গুলি করে; একটি মুখে, অন্যটি তার পিঠে লাগে। মনে হয়, ছোট নৌকা বা জেট স্কিতে করে ওরা এসেছিল।’

ডেকামেরন হোটেলে অবস্থান করছিলেন মার্সেলো দম্পতি। হোটেল কর্তৃপক্ষ বিবৃতিতে জানায়, খুনিরা সমুদ্রসৈকতে এসেছিল। আমাদের একজন অতিথির ওপর হামলা চালিয়ে তাকে হত্যা করে।

মার্সেলোর সহকর্মী অগাস্টো সালাস বলেন, ‘হামলাটি মাফিয়ারা চালিয়েছে বলে মনে হচ্ছে। সত্য উদ্ঘাটন না হওয়া পর্যন্ত আমি এটাই বিশ্বাস করব।’

মধুচন্দ্রিমায় ‘মাফিয়া’র গুলিতে আইনজীবী খুন
প্যারাগুয়ের শীর্ষ প্রসিকিউটর মার্সেলো পেচি। ছবি: সংগৃহীত

কলম্বিয়া পুলিশের প্রধান এবং প্যারাগুয়ের তদন্তকারীরা হত্যাকাণ্ডের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। যুক্তরাষ্ট্র এ ঘটনা তদন্তে সহায়তা করবে বলে জানিয়েছেন কলম্বিয়ার পুলিশপ্রধান জেনারেল জর্জ লুইস ভার্গাস।

মার্সেলো সংঘটিত অপরাধ, মাদক পাচার, মানি লন্ডারিং এবং সন্ত্রাসে অর্থায়নে একজন বিশেষজ্ঞ। তারকা ফুটবলার রোনালদিনহোর বিরুদ্ধে একটি মামলায় ২০২০ সালে কাজ করেছিলেন তিনি। জাল পাসপোর্ট নিয়ে প্যারাগুয়েতে আসায় সে সময় গ্রেপ্তার হয়েছিলেন সাবেক ব্রাজিলিয়ান ফুটবলার রোনালদিনহো।

প্যারাগুয়ের প্রেসিডেন্ট মারিও আবদো বেনিতেজ এ ঘটনাকে ‘কাপুরুষোচিত হত্যা’ বলে বর্ণনা করেছেন। টুইটে তিনি লেখেন, ‘কলম্বিয়ায় প্রসিকিউটর মার্সেলো পেচির কাপুরুষোচিত হত্যাকাণ্ড প্যারাগুয়েবাসীকে শোকাহত করেছে।

‘আমরা এই মর্মান্তিক ঘটনার নিন্দা জানাই। সংঘটিত অপরাধের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে আমাদের প্রতিশ্রুতি দ্বিগুণ করি।’

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
The United States is giving 4 billion dollars to Ukraine

ইউক্রেনকে ৪ হাজার কোটি ডলার দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

ইউক্রেনকে ৪ হাজার কোটি ডলার দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভে রুশ সেনাদের সঙ্গে সংঘর্ষে থাকা ইউক্রেনীয় এক সেনা। ছবি: এএফপি
দুই সপ্তাহ আগে ইউক্রেনে ৩ হাজার ৩০০ কোটি ডলার সহায়তা পাঠানোর প্রস্তাব করেছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। প্রতিনিধি পরিষদে পাস হওয়া প্রস্তাবে সে অর্থের পরিমাণ আরও ৭০০ কোটি ডলার বেড়েছে।

রাশিয়ার সঙ্গে ফেব্রুয়ারি থেকে যুদ্ধরত ইউক্রেনকে ৪ হাজার কোটি ডলার (৩ লাখ ৪৬ হাজার ৯০০ কোটি টাকা) অর্থ সহায়তা প্যাকেজের অনুমোদন দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদ।

আল জাজিরার বুধবারের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, সহায়তার প্রস্তাবটি প্রতিনিধি পরিষদে পাস হয়েছে ৩৬৮-৫৭ ভোটে। এর পক্ষে ভোট দেন ‍ডেমোক্রেটিক পার্টির সব আইনপ্রণেতা। অন্যদিকে বিরোধী রিপাবলিকান পার্টির প্রতি চারজনের তিনজন প্রস্তাবের পক্ষে ছিলেন।

দুই সপ্তাহ আগে ইউক্রেনে ৩ হাজার ৩০০ কোটি ডলার সহায়তা পাঠানোর প্রস্তাব করেছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। প্রতিনিধি পরিষদে পাস হওয়া প্রস্তাবে সে অর্থের পরিমাণ আরও ৭০০ কোটি ডলার বেড়েছে।

এ অর্থের মাধ্যমে ইউক্রেনকে সামরিক ও অর্থনৈতিক সহায়তা দেয়া হবে। পাশাপাশি দেশটির আঞ্চলিক মিত্রগুলোকে সহায়তা, অস্ত্রের ঘাটতি পূরণ এবং খাদ্য সংকট মোকাবিলায় কাজে লাগানো হবে এ অর্থ।

প্রস্তাবটি পাসের মধ্য দিয়ে ইউক্রেনে যুক্তরাষ্ট্রের সাহায্যের পরিমাণ দাঁড়াল ৫ হাজার ৪০০ কোটি ডলারে। এর মধ্যে মার্চে দেয়া ১ হাজার ৩৬০ কোটি ডলারের সহায়তাও রয়েছে।

প্রস্তাবটি যুক্তরাষ্ট্রের পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ সিনেটে সহজেই পাস হয়ে যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে, তবে এটি কখন পাস হবে, তা নিশ্চিত নয়। আইন হওয়ার আগে এতে কিছু পরিবর্তনও আসতে পারে।

আরও পড়ুন:
ইউক্রেনে দীর্ঘ যুদ্ধের প্রস্তুতি পুতিনের: যুক্তরাষ্ট্র
ইইউতে যোগ দিতে ইউক্রেনের লাগবে ‘কয়েক দশক’
পোল্যান্ডে রুশ দূতকে হেনস্তা
স্কুলে রুশ হামলা পরিকল্পিত: জেলেনস্কি
ইউক্রেনের স্কুলে রুশ হামলা, ৬০ জন নিহতের শঙ্কা

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Pulitzer won the New York Times Ukrainian Journalist Award

পুলিৎজার পেল নিউ ইয়র্ক টাইমস, ইউক্রেনীয় সাংবাদিকদের সম্মাননা

পুলিৎজার পেল নিউ ইয়র্ক টাইমস, ইউক্রেনীয় সাংবাদিকদের সম্মাননা পুলিৎজার পুরস্কারের কমিটি জানিয়েছে, ইউক্রেনীয় সাংবাদিকরা রুশ বোমাবর্ষণ, অপহরণ ও দখলদারির মধ্যে নিশ্চিত মৃত্যু জেনেও তাদের পেশাগত দায়িত্ব পালন করে গেছেন। ছবি: রয়টার্স
ইউক্রেন যুদ্ধের খবর সংগ্রহ করতে গিয়ে নিহত তিন ইউক্রেনীয় সাংবাদিকসহ ৭ সাংবাদিকের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছে পুলিৎজার বোর্ড। পুলিৎজার পুরস্কারের কমিটি জানিয়েছে, রুশ বাহিনীর বোমাবর্ষণ, অপহরণ ও দখলদারির মধ্যে সংবাদ সংগ্রহের সময় অনেক ক্ষেত্রে নিশ্চিত মৃত্যু জেনেও পেশাগত দায়িত্ব পালন করে গেছেন ইউক্রেনীয় সাংবাদিকরা।

এ বছর সাংবাদিকতায় অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ পুরস্কার পুলিৎজার পেয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের সংবাদমাধ্যম নিউ ইয়র্ক টাইমস ও ওয়াশিংটন পোস্ট। ফিচার ফটোগ্রাফি বিভাগে পুরস্কৃত হয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

পুলিৎজারে বিশেষ বিভাগে সম্মাননা পেয়েছেন ইউক্রেনের সাংবাদিকরা। ইউক্রেনে রুশ হামলার খবর সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে সংগ্রহ ও পরিবেশনের জন্য তাদের বিশেষ বিভাগে এ সম্মাননা দেয়া হয়েছে।

ইউক্রেন যুদ্ধের খবর সংগ্রহ করতে গিয়ে নিহত তিন ইউক্রেনীয় সাংবাদিকসহ ৭ সাংবাদিকের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছে পুলিৎজার বোর্ড। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা এক প্রতিবেদনে এমনটি জানায়। পুলিৎজার পুরস্কারের কমিটি জানিয়েছে, রুশ বাহিনীর বোমাবর্ষণ, অপহরণ ও দখলদারির মধ্যে সংবাদ সংগ্রহের সময় অনেক ক্ষেত্রে নিশ্চিত মৃত্যু জেনেও পেশাগত দায়িত্ব পালন করে গেছেন ইউক্রেনীয় সাংবাদিকরা।

স্থানীয় সময় সোমবার নিউ ইয়র্কের কলাম্বিয়া ইউনিভার্সিটিতে পুলিৎজার পাওয়া ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের নাম ঘোষণা করা হয় বলে রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

এবার তিন ক্যাটাগরিতে পুলিৎজার পেয়েছে নিউ ইয়র্ক টাইমস। ১৯১৭ সালে এই পুলিৎজার চালু হবার পর থেকে এখন পর্যন্ত নিউ ইয়র্ক টাইমস বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে জিতেছে ১৩৫টি পুলিৎজার।

মধ্যপ্রাচ্যে যুক্তরাষ্ট্রের ব্যর্থ বিমান হামলার ওপর প্রতিবেদন প্রকাশের জন্য আন্তর্জাতিক বিভাগে এই পুরস্কার জিতে সংবাদমাধ্যমটি। এ ছাড়া জাতীয় বিভাগে যানবাহন চলাচলের সময় পুলিশে ভয়াবহ হস্তক্ষেপের ঘটনাটি রয়েছে। এ ছাড়া জাতিগোষ্ঠীর ওপর লেখা সালামিসাহ টিলেটের সমালোচনা করে জিতেছে আরও একটি পুলিৎজার।

এ ছাড়া আফগানিস্তানের পতনের সংবাদ ও হাইতির প্রেসিডেন্টের হত্যাকাণ্ডের প্রতিবেদনের জন্য বিশেষভাবে পুরস্কৃত হয়েছে সংবাদমাধ্যমটি।

যুক্তরাষ্ট্রের ক্যাপিটল হিলের কংগ্রেস ভবনে তখনকার প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের সমর্থকদের হামলার খবর পরিবেশন করায় এ বছরের পুলিৎজার পুরস্কার পেয়েছে ওয়াশিংটন পোস্ট।

ভারতে করোনাভাইরাস মহামারির ভয়াবহ চিত্র তুলে ধরে ফিচার ফটোগ্রাফি বিভাগে পুরস্কৃত হয়েছে রয়টার্স। আফগানিস্তান যুদ্ধে সংবাদ সংগ্রহের সময় তালেবানের গুলিতে নিহত রয়টার্সের সাংবাদিক দানিশ সিদ্দিকসহ তার নেতৃত্বাধীন ফিচার ফটোগ্রাফি বিভাগকে এই পুরস্কার দেয়া হয়।

রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, স্থানীয় সময় সোমবার যুক্তরাষ্ট্রের কলাম্বিয়া ইউনিভার্সিটিতে আয়োজিত অনুষ্ঠানে পুলিৎজার জেতা ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের নাম ঘোষণা করা হয়। অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ এ পুরস্কারকে সাংবাদিকতার ‘নোবেল’ হিসেবে মূল্যায়ন করা হয়।

পুলিৎজার ১৯১৭ সাল থেকে দেয়া শুরু হয়েছে। সাংবাদিকতা ছাড়াও সাহিত্য, সংগীত, নাটকে বিশেষ অবদানের জন্য এই পুরস্কার দেয়া হয়। নিউ ইয়র্কের কলাম্বিয়া ইউনিভার্সিটির একটি কমিটি প্রতিবছর পুরস্কার জয়ী প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিদের নাম ঘোষণা করে।

আরও পড়ুন:
সাংবাদিক নান্টু পুরস্কৃত নিউজবাংলায়

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Trump wanted to attack Mexico

মেক্সিকোতে হামলা চালাতে চেয়েছিলেন ট্রাম্প

মেক্সিকোতে হামলা চালাতে চেয়েছিলেন ট্রাম্প ডনাল্ড ট্রাম্প ও তার প্রতিরক্ষা সচিব মার্ক টি এসপার। ছবি: নিউ ইয়র্ক টাইমস
ট্রাম্পের প্রসঙ্গে ক্ষুব্ধ এসপা বলেন, ট্রাম্প একজন নীতিহীন ব্যক্তি। নিজের স্বার্থই দেখেছেন সব সময়। তার কোনো জনসেবামূলক পদে থাকা উচিত নয়।

প্রতিবেশী দেশ মেক্সিকোতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পরিকল্পনা করেছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প।

২০২০ সালে ট্রাম্প ওই পরিকল্পনা করছিলেন বলে আত্মজীবনীতে লিখেছেন তারই সাবেক প্রতিরক্ষা সচিব মার্ক টি এসপার।

নিউ ইয়র্ক টাইমস বলছে, মেক্সিকোর মাদক তৈরির আস্তানা ধ্বংসের জন্য চিন্তা-ভাবনা করছিলেন এই ট্রাম্প। এরই অংশ হিসেবে সেখানে হামলা চালাতে চেয়েছিলেন তিনি।

‘একটি পবিত্র শপথ’ নামে বই লিখেছেন এসপার। এতে আরও মেক্সিকোতে হামলার পরিকল্পনাসহ নানা বিষয়ে কথা বলেছেন তিনি।

নির্বাচনে ট্রাম্প কীভাবে তার প্রভাব খাটাতে পারতেন এবং সেনাবাহিনীকে তার ইচ্ছা অনুযায়ী ব্যবহার করার পরিকল্পনা করছিলেন তা নিয়েও বিভিন্ন তথ্য দিয়েছেন সাবেক এই প্রতিরক্ষা সচিব।

আগামী মঙ্গলবার প্রকাশিত হতে যাচ্ছে এসপারের এই আত্মজীবনী। এ উপলক্ষে তিনি বলেন, ‌'যুক্তরাষ্ট্রের জনগণের জন্য ও ইতিহাসের জন্য লিখছি বলে আমার মনে হয়েছে।'

ট্রাম্পের প্রসঙ্গে ক্ষুব্ধ এসপা বলেন, ট্রাম্প একজন নীতিহীন ব্যক্তি। নিজের স্বার্থই দেখেছেন সবসময়। তার কোনো জনসেবামূলক পদে থাকা উচিত নয়।

প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে পরাজয়ের পর প্রতিরক্ষা সচিব মার্ক এসপারকে বরখাস্ত করেন ডনাল্ড ট্রাম্প। এর আগে আরও তিনজন সচিবকে পরিবর্তন করে এসপারকে সচিব রেখেছিলেন তিনি।

প্রায় ১৬ মাস যাবৎ ট্রাম্প প্রশাসনের প্রতিরক্ষা সচিব হিসেবে কাজ করে আসছিলেন এসপার। শেষ দিকে অবশ্য ট্রাম্পের সঙ্গে এসপারের সম্পর্ক তলানিতে ঠেকেছিল।

বর্ণবাদী ঘটনার পর বিক্ষোভ থামাতে সামরিক বাহিনী মোতায়েন নিয়ে ট্রাম্প ও এসপারের মধ্যে বিরোধ চরমে ওঠে। কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যুর পর সেনা পাঠিয়ে বিক্ষোভ দমন করার কথা বলেছিলেন ট্রাম্প। এসপার জানিয়েছিলেন, এটি উচিত নয়।

এ ছাড়া আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহারে ট্রাম্পের সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে ট্রাম্পের রোষের মুখে পড়তে হয়েছিল তাকে।

আরও পড়ুন:
অভিমানী ট্রাম্প ফিরবেন না টুইটারে
ন্যাটো-যুক্তরাষ্ট্র বেকুব, পুতিন স্মার্ট: ট্রাম্প
ফেসবুক-টুইটারকে দমাতে এলো ট্রাম্পের ‘ট্রুথ সোশ্যাল’

মন্তব্য

উপরে