× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

google_news print-icon

দেউলিয়া লেবাননের নাগরিকরা ছুটছেন ইরাকে

দেউলিয়া-লেবাননের-নাগরিকরা-ছুটছেন-ইরাকে-
লেবাননের ৮০ শতাংশ মানুষ এখন দারিদ্র্যসীমার নিচে। ছবি: সংগৃহীত
ইরাকে দুই দশক ধরে চলা সংঘাতের পর দেশটি নতুন করে সবকিছু শুরু করতে চাইছে। বিশেষ করে ২০১৭ সালে আইএসের সঙ্গে যুদ্ধে বিজয়ের পর তেলসমৃদ্ধ দেশটি ধীরে ধীরে স্থিতিশীলতা অর্জন করছে।

এই তো কিছুদিন আগেই মধ্যপ্রাচ্যের দেশ লেবানন ছিল চিকিৎসা ও পর্যটনের জন্য বিখ্যাত। ইরাকসহ বিভিন্ন দেশ থেকে চিকিৎসা ও অন্যান্য কারণে লোকজন লেবাননে আসত। পরিস্থিতি এখন বদলে গেছে। লেবানিজরাই তাদের দেশ ছেড়ে বিভিন্ন দেশে আশ্রয় নিচ্ছেন।

ফ্রান্স টোয়েন্টি ফোরের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নিকট অতীতে মধ্যপ্রাচ্যের মধ্যে ইরাক ছিল সংঘাত ও গণ্ডগোলের এক দেশ। এখন সেই দেশই হয়ে গেছে অর্থনৈতিক সংকটে থাকা লেবাননের চাকরিপ্রত্যাশীদের জন্য অবারিত সুযোগ।

আকরাম জোহারি, ৪২ বছর বয়সী একজন লেবানিজ আরব। অর্থনৈতিক সংকট ও ক্রমবর্ধমান দারিদ্র্য বাড়ার ফলে তিনি লেবানন ছেড়ে বের হয়ে এসেছেন।

দেউলিয়া লেবাননের নাগরিকরা ছুটছেন ইরাকে
ইরাকে কাজ করছেন লেবানিজ আকরাম (ডানে)

গত বছর আকরাম তার ব্যাগপত্র গুছিয়ে বৈরুত থেকে বাগদাদে চলে আসেন। পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে কাজের সন্ধান করতে থাকেন। যদিও তার হাতে চাকরি খোঁজার মতো পর্যাপ্ত সময় ছিল না। তার পরও তার কাছে মনে হয়েছিল, লেবানন থেকে ইরাকে তার জন্য সুযোগ বেশি।

লেবানিজদের জন্য ইরাকে ভিসামুক্ত প্রবেশাধিকার থাকায় সহজেই তিনি বাগদাদে আসতে পেরেছেন। ফলে বাগদাদকে তার জন্য চাকরি খোঁজার ক্ষেত্রে ভালো বিকল্প মনে হয়েছিল।

ফ্রান্স টোয়েন্টি ফোরকে তিনি বলেন, ‘আমাকে দ্রুত পদক্ষেপ নিতে হয়েছিল এবং বাগদাদে এসেই আমি ইনস্টাগ্রামে কাজের সন্ধান করতে থাকি।’ পরে একটি রেস্তোরাঁয় তিনি এক মাস কাজ করেন।

লেবানন একটি বড় ধরনের অর্থনৈতিক বিপর্যয়ে পড়েছে। বিশ্বব্যাংক বলছে এ ধরনের বিপর্যয় একমাত্র যুদ্ধের সময় দেখা যায়। এর মধ্যে দেশটির মুদ্রার মান ৯০ শতাংশ হারিয়েছে। জাতিসংঘের মতে, লেবাননের জনসংখ্যার প্রায় ৮০ শতাংশ এখন দারিদ্র্যসীমার নিচে বসবাস করে।

আকরাম জানিয়েছেন, এখন বাগদাদে কাজ করে তিনি প্রতি সপ্তাহে ১০০ ডলার রোজগার করছেন। তিনি আশা করেন, লেবাননে ফিরে গিয়ে তিনি তার পরিবারকে আর্থিকভাবে সাহায্য করার মতো যথেষ্ট উপার্জন করতে পারবেন।

এদিকে ইরাকি কর্তৃপক্ষ বলছে, শিয়াদের পবিত্র শহর নাজাফ ও কারবালা পরিদর্শনকারী তীর্থযাত্রীদের বাদ দিয়ে ২০ হাজারেরও বেশি লেবানিজ নাগরিক ২০২১-এর জুন থেকে ২০২২ সালের মধ্যে ইরাকে এসেছেন।

বাগদাদে লেবাননের রাষ্ট্রদূত আলি হাবহাব জানিয়েছেন, লেবানন থেকে ইরাকে আসার সংখ্যা বহুগুণ বেড়েছে।

ইরাকে দুই দশক ধরে চলা সংঘাতের পর দেশটি নতুন করে সবকিছু শুরু করতে চাইছে। বিশেষ করে ২০১৭ সালে আইএসের সঙ্গে যুদ্ধে বিজয়ের পর তেলসমৃদ্ধ দেশটি ধীরে ধীরে স্থিতিশীলতা অর্জন করছে।

যে বাগদাদের রাস্তাগুলো একসময় নৃশংসতার সাক্ষী ছিল, তার দুপাশে এখন ব্যস্ত রেস্তোরাঁ, ক্যাফে। প্রায় ৯০০ লেবানিজ প্রতিষ্ঠান এরই মধ্যে ইরাকে কাজ করছে।

আমাকে দ্রুত পদক্ষেপ নিতে হয়েছিল এবং বাগদাদে এসেই আমি ইনস্টাগ্রামে কাজের সন্ধান করতে থাকি।

ইরাকের আয়ের ৯০ শতাংশ তেল থেকে এলেও বিশ্বব্যাংকের মতে দেশটির এক-তৃতীয়াংশ মানুষ এখনও দারিদ্র্যসীমার নিচে বসবাস করছে। তবে দেশটির বর্তমান স্থিতিশীলতা ভবিষ্যতের বিষয়ে আশাবাদী করে।

ইরাকি অর্থনৈতিক বিশেষজ্ঞ আলি আল-রাউইর মতে, অনেক লেবানিজ কোম্পানি ইরাকে এসেছে, কারণ তারা বিনিয়োগের পরিবেশ ভালোভাবে জানে, অন্যদিকে অন্যান্য দেশের অনেক বিদেশি কোম্পানি তার সহিংস অতীতের কারণে বিনিয়োগ করতে ভয় পায়।

তিনি বলেন, ‘ইরাকি অর্থনীতিতে লেবাননের জন্য অনেক জায়গা রয়েছে।’

আরও পড়ুন:
ইরাকে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার দায় নিল ইরান
বাংলাদেশের সঙ্গে বাণিজ্য বাড়াতে চায় ইরাক
ধর্ষকের সঙ্গে ১২ বছরের মেয়ের বিয়ে নিয়ে তোলপাড় ইরাক
অল্পের জন্য প্রাণে বাঁচলেন ইরাকের প্রধানমন্ত্রী
ইরাকের নির্বাচনে এগিয়ে শিয়া নেতা আল-সদর

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
29 thousand 410 killed in the Israeli attack in Gaza

ইসরায়েলি হামলায় গাজায় নিহত বেড়ে ২৯ হাজার ৪১০

ইসরায়েলি হামলায় গাজায় নিহত বেড়ে ২৯ হাজার ৪১০ গাজার রাফাহতে ইসরায়েলি হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত স্থাপনা। ছবি: রয়টার্স
গাজায় ফিলিস্তিনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়, গাজায় গত সাড়ে চার মাসে ইসরায়েলি হামলায় আহত হয় কমপক্ষে ৬৯ হাজার ৪৬৫ জন।

ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকায় গত বছরের ৭ অক্টোবর থেকে ইসরায়েলের হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২৯ হাজার ছাড়িয়েছে।

গাজায় ফিলিস্তিনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিবৃতির বরাত দিয়ে বৃহস্পতিবার এ তথ্য জানায় আল জাজিরা।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যমটির প্রতিবেদনে জানানো হয়, গাজায় ইসরায়েলের হামলায় নিহত ফিলিস্তিনির সংখ্যা ২৯ হাজার ৪১০।

মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়, গাজায় গত সাড়ে চার মাসে ইসরায়েলি হামলায় আহত হয় কমপক্ষে ৬৯ হাজার ৪৬৫ জন।

গত বছরের ৭ অক্টোবর ইসরায়েলে ঢুকে হামলা চালায় গাজার শাসক দল হামাস, যাতে প্রাণ হারায় ১ হাজার ১৩৯ ইসরায়েলি। এর জবাবে গাজায় ওই দিন থেকেই বিমান হামলা শুরু করে ইসরায়েল, যার সঙ্গে পরবর্তী সময়ে যোগ হয় স্থল অভিযানও।

ইসরায়েলের এসব হামলায় গাজা মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) প্রধান টেডরোস আধানম গেব্রিয়েসুস।

তার ভাষ্য, উপত্যকায় স্বাস্থ্য ও মানবিক পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে।

অন্যদিকে ফিলিস্তিন রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি গাজার খান ইউনিসের আল-আমল হাসপাতালে ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে পারে বলে সতর্ক করে দিয়েছে। হাসপাতালটি ৩০ দিন ধরে অবরুদ্ধ করে রেখেছে ইসরায়েলি বাহিনী।

আরও পড়ুন:
ইসরায়েলি হামলা থেকে বাঁচতে চাওয়া শিশুর মরদেহ উদ্ধার
গাজায় ইসরায়েলি হামলায় নিহত ২৮ হাজার ছুঁইছুঁই
যুদ্ধবিরতি নয়, গাজায় ‘জয়’ চান নেতানিয়াহু
গাজায় ১৩৫ দিনের যুদ্ধবিরতি, ইসরায়েলি সেনা প্রত্যাহারের প্রস্তাব হামাসের
গাজায় যুদ্ধবিরতির প্রস্তাবে সাড়া হামাসের: কাতার

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Musician condemns Rahuls comments on Aishwarya

ঐশ্বরিয়াকে নিয়ে রাহুলের মন্তব্যের নিন্দা সংগীতশিল্পীর

ঐশ্বরিয়াকে নিয়ে রাহুলের মন্তব্যের নিন্দা সংগীতশিল্পীর কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীর মন্তব্যের নিন্দা জানিয়েছেন সংগীতশিল্পী সোনা মহাপাত্র। ছবি: এনডিটিভি
সম্প্রতি একটি সভায় রাহুল গান্ধী বলেন, ‘আপনারা কি রাম মন্দিরের ‘প্রাণ প্রতিষ্ঠা’ অনুষ্ঠান দেখেছেন? সেখানে আপনি কি কোনো তপসিলি, উপজাতি কিংবা ওবিসি মানুষজনের মুখ দেখেছেন? সেখানে অমিতাভ বচ্চন, ঐশ্বরিয়া রায় বচ্চন ও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী উপস্থিত ছিলেন, তবে সত্যিই দেশ চালান এমন কাউকে সেই অনুষ্ঠানে দেখা যায়নি।’

গত মাসে ভারতের অযোধ্যায় রাম মন্দিরের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও বলিউড অভিনেত্রী ঐশ্বরিয়া রায়কে নিয়ে ‘অপমানজনক’ মন্তব্য করায় কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীর প্রতি নিন্দা জানিয়েছেন সংগীতশিল্পী সোনা মহাপাত্র।

এ বিষয়ে সোনা তার নিজের এক্সে (আগের টুইটার) রাহুল গান্ধীকে ট্যাগ করে পোস্ট করেছেন বলে এনডিটিভির বৃহস্পতিবারের প্রতিবেদনে জানানো হয়।

তিনি বলেন, রাজনীতিবিদরা রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য নারীদের শোষণ করছে।

সোনা মহাপাত্র এক্সে লিখেন, ‘রাজনীতিবিদরা নিজেদের বক্তৃতায় নারীদের অবমাননা করেন, এতে কি তারা নিজেদের পুরুষ প্রমাণ করতে চাইছেন? প্রিয় রাহুল গান্ধী, নিশ্চয়ই কেউ অতীতে একইভাবে আপনার নিজের মা (সোনিয়া গান্ধী), বোনকে (প্রিয়াঙ্কা গান্ধী) অবজ্ঞা করেছেন।’

এর আগে সম্প্রতি একটি সভায় রাহুল গান্ধী বলেছিলেন, ‘আপনারা কি রাম মন্দিরের ‘প্রাণ প্রতিষ্ঠা’ অনুষ্ঠান দেখেছেন? সেখানে আপনি কি কোনো তপসিলি, উপজাতি কিংবা ওবিসি মানুষজনের মুখ দেখেছেন? সেখানে অমিতাভ বচ্চন, ঐশ্বরিয়া রায় বচ্চন ও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি উপস্থিত ছিলেন, তবে সত্যিই দেশ চালান এমন কাউকে সেই অনুষ্ঠানে দেখা যায়নি।’

তিনি বলেন, ‘টেলিভিশন চ্যানেলগুলো শুধু ঐশ্বরিয়া রায়ের নাচ দেখায়। তারা দরিদ্র মানুষ সম্পর্কে কিছুই দেখায় না।’

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারকারীদের একাংশ ভালো চোখে দেখেননি রাহুলের এ মন্তব্য। ঐশ্বর্য, অমিতাভকে টেনে আনা অনেকেরই পছন্দ হয়নি।

রাহুল গান্ধী আরও বলেছিলেন, ‘আমি সেখানে একজন কৃষককে দেখিনি। একজন শ্রমিককে দেখা যায়নি এবং একজন ছোট দোকানদারকেও দেখা যায়নি। কিন্তু সব বিলিয়নিয়ারকে দেখা গেছে, যারা মিডিয়ার সামনে দীর্ঘ বক্তৃতা দিয়েছেন।’

ওড়িশার সংগীতশিল্পী সোনা মহাপাত্রকে প্রায়ই সমাজ, নারী, লিঙ্গবৈষম্য, রাজনীতির পাশাপাশি বিনোদন জগতসহ নানান বিষয়ে মতামত তুলে ধরতে দেখা যায়।

আরও পড়ুন:
ভারতে সাজাভোগ শেষে দেশে ফিরল ২৫ নারী-পুরুষ ও শিশু
পররাষ্ট্রমন্ত্রী নয়াদিল্লিতে, জয়শঙ্করের সঙ্গে বৈঠক বুধবার
ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রীর পদ ছাড়ার পরই গ্রেপ্তার হেমন্ত
জরুরি আমদানিতে ভারতকে নিত্যপণ্যের তালিকা দেবে বাংলাদেশ
ভারতের বিপক্ষে বোলিংয়ে বাংলাদেশ

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Bishop Saunders of Australia accused of rape

ধর্ষণে অভিযুক্ত অস্ট্রেলিয়ার বিশপ সন্ডার্স

ধর্ষণে অভিযুক্ত অস্ট্রেলিয়ার বিশপ সন্ডার্স অস্ট্রেলিয়ার বিশপ ক্রিস্টোফার সন্ডার্স। ছবি: এবিসি কিমবার্লি
অভিযোগপত্রে বলা হয়েছে, অস্ট্রেলিয়ার পশ্চিমাঞ্চলীয় প্রত্যন্ত শহর ব্রুম, কুনুনুরায় থাকার সময় এবং আদিবাসী জনগোষ্ঠী কালুমবুরুর লোকজনের সঙ্গে ২০০৮ থেকে ২০১৪ সময়ের মধ্যে সন্ডার্স যৌন অপরাধগুলো করেন।

ধর্ষণসহ বেশ কিছু যৌন অপরাধে (এর মধ্যে কিছু কিছু শিশুদের সঙ্গে) অভিযুক্ত করা হয়েছে অস্ট্রেলিয়ার বিশপ ক্রিস্টোফার সন্ডার্সকে।

বিবিসির প্রতিবেদনে জানানো হয়, যৌন অপরাধের বিষয়ে ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়া পুলিশ ও ক্যাথলিক চার্চের প্রধান পোপ ফ্রান্সিসের তদন্তের আদেশের পর ব্রুম এলাকা থেকে বুধবার গ্রেপ্তার করা হয় ধর্মযাজক সন্ডার্সকে।

ধর্ষণসহ বিভিন্ন ধরনের যৌন অপরাধের অভিযোগ অতীতে অস্বীকার করা ৭৪ বছর বয়সী সন্ডার্সের জামিন নাকচ করা হয়েছে। তাকে বৃহস্পতিবার আদালতে উপস্থাপন করা হবে।

সন্ডার্সই সর্বজ্যেষ্ঠ ক্যাথলিক যাজক, যার বিরুদ্ধে উল্লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে।

সন্ডার্সের বিরুদ্ধে ধর্ষণের দুটি, অবৈধ ও অশালীন আক্রমণের ১৪টি এবং দায়িত্বশীল ব্যক্তি হিসেবে শিশুর সঙ্গে অশালীন আচরণের তিনটি অভিযোগ আনা হয়েছে।

অভিযোগপত্রে বলা হয়েছে, অস্ট্রেলিয়ার পশ্চিমাঞ্চলীয় প্রত্যন্ত শহর ব্রুম, কুনুনুরায় থাকার সময় এবং আদিবাসী জনগোষ্ঠী কালুমবুরুর লোকজনের সঙ্গে ২০০৮ থেকে ২০১৪ সময়ের মধ্যে সন্ডার্স যৌন অপরাধগুলো করেন।

সন্ডার্সের আগে শিশুদের সঙ্গে যৌন অপরাধের ঘটনায় দোষী সাব্যস্ত হয়ে কারাবন্দি হন কার্ডিনাল জর্জ পেল, যিনি পরবর্তী সময়ে ‍খালাস পান।

এদিকে অস্ট্রেলিয়ার ক্যাথলিক বিশপস কনফারেন্স বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে ‍পুলিশের সঙ্গে সহযোগিতার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, সন্ডার্সের বিরুদ্ধে অভিযোগ ‘খুবই মারাত্মক’ এবং ‘গভীর পীড়াদায়ক’, বিশেষত তাদের জন্য, যারা অভিযোগগুলো করেছেন।

আরও পড়ুন:
তীরে এসে তরি ডুবল ভারতের, অস্ট্রেলিয়া বিশ্বচ্যাম্পিয়ন
হেডের সেঞ্চুরি, জয়ের সুবাস পাচ্ছে অস্ট্রেলিয়া
বিশ্বকাপ জিততে ২৪১ দরকার অস্ট্রেলিয়ার
আত্মবিশ্বাসের প্রদীপে যারা বেশি জ্বালানি ঢালতে পারবে, তারাই জিতবে
বিষাদের আখ্যান দীর্ঘায়িত করে বিদায় দক্ষিণ আফ্রিকার

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Government Formation Pakistan Internal Affairs United States

সরকার গঠন পাকিস্তানের অভ্যন্তরীণ বিষয়: যুক্তরাষ্ট্র

সরকার গঠন পাকিস্তানের অভ্যন্তরীণ বিষয়: যুক্তরাষ্ট্র ওয়াশিংটন ডিসিতে নিয়মিত ব্রিফিংয়ে স্টেট ডিপার্টমেন্টের মুখপাত্র ম্যাথু মিলার। ফাইল ছবি
মিলার বলেন, যেকোনো দেশে জোটভিত্তিক রাজনীতি ওই দেশের নিজস্ব বিষয়। এ সংক্রান্ত আলোচনায় জড়াতে চায় না যুক্তরাষ্ট্র।

পাকিস্তানে সরকার গঠন নিয়ে হস্তক্ষেপ না করার বিষয়ে অটল রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের নেতৃত্বাধীন প্রশাসন।

দক্ষিণ এশিয়ার দেশটিতে গত ৮ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত নির্বাচনের ফলকে স্বীকৃতি না দিতে আইনপ্রণেতাসহ বিভিন্ন মহলের দাবিকে নাকচ করেছে যুক্তরাষ্ট্র।

পাকিস্তানভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ডনের প্রতিবেদনে জানানো হয়, ওয়াশিংটন ডিসিতে স্থানীয় সময় বুধবার অনুষ্ঠিত ব্রিফিংয়ে যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট ডিপার্টমেন্টের মুখপাত্র ম্যাথু মিলার পাকিস্তানে সরকার গঠন নিয়ে আমেরিকার অবস্থান ব্যক্ত করেন।

পাকিস্তানে জোট সরকার প্রতিনিধিত্বমূলক কি না, এমন এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘গঠন হওয়ার আগে আমি সরকার নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে চাই না।’

মিলার আরও বলেন, যেকোনো দেশে জোটভিত্তিক রাজনীতি ওই দেশের নিজস্ব বিষয়। এ সংক্রান্ত আলোচনায় জড়াতে চায় না যুক্তরাষ্ট্র।

এর আগে মঙ্গলবার ব্রিফিংয়ে স্টেট ডিপার্টমেন্টের মুখপাত্র পাকিস্তানে জোট সরকার গঠনের চেষ্টাকে অভ্যন্তরীণ বিষয় হিসেবে আখ্যা দেন।

ওই দিন তিনি বলেন, ‘আমি পাকিস্তানের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে জড়াতে চাই না।’

পাকিস্তানে সরকার গঠন নিয়ে কথা না বললেও দেশটিতে সম্প্রতি অনুষ্ঠিত নির্বাচনে হস্তক্ষেপ, অনিয়ম কিংবা ভোটারদের ভয়ভীতি দেখানোর বিষয়ে পুঙ্খানুপুঙ্খ তদন্ত করতে যুক্তরাষ্ট্রের সমর্থনের কথা বিভিন্ন ব্রিফিংয়ে তুলে ধরেন মিলার।

আরও পড়ুন:
পাকিস্তানে সরকার গঠনে ঐকমত্য, প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ-প্রেসিডেন্ট জারদারি
ক্ষমতায় এলে রাজনৈতিক প্রতিশোধ নেব না: ইমরান
প্রতারণা মামলায় ট্রাম্পকে সাড়ে ৩৫ কোটি ডলার জরিমানা
ইসলামাবাদ হাইকোর্টে তিন মামলায় আপিল করবেন ইমরান
কানসাস সিটিতে বন্দুক হামলায় একজন নিহত, আহত ২১

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Consensus to form the government in Pakistan Prime Minister Shahbaz President Zardari

পাকিস্তানে সরকার গঠনে ঐকমত্য, প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ-প্রেসিডেন্ট জারদারি

পাকিস্তানে সরকার গঠনে ঐকমত্য, প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ-প্রেসিডেন্ট জারদারি শাহবাজ শরিফ (বাঁয়ে) ও আসিফ আলী জারদারি। ছবি: সংগৃহীত
উভয় দলের শীর্ষ নেতারা জানিয়েছেন, তারা ‘জাতির স্বার্থে’ আবারও জোট সরকার গঠন করছেন।

পাকিস্তানে অবশেষে জোট সরকার গঠনে ঐকমত্যে পৌঁছেছে নওয়াজ-শাহবাজের পিএমএল-এন এবং বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারির পিপিপি। দীর্ঘ আলোচনার পরে মঙ্গলবার গভীর রাতে এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিয়েছেন তারা। উভয় দলের শীর্ষ নেতারা জানিয়েছেন, তারা ‘জাতির স্বার্থে’ আবারও জোট সরকার গঠন করছেন।

পিপিপি চেয়ারম্যান বিলাওয়াল ভুট্টো-জারদারি উভয় দলের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে ইসলামাবাদে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) এবং পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজের (পিএমএল-এন) এখন সম্পূর্ণ সংখ্যাগরিষ্ঠতা রয়েছে এবং আমরা পরবর্তী সরকার গঠনের অবস্থানে রয়েছি।

কে পাচ্ছেন কোন পদ

বিলাওয়াল জানিয়েছেন, জোট সরকারের প্রধানমন্ত্রী হবেন শাহবাজ শরিফ এবং উভয় দলের পক্ষ থেকে প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হবেন তার বাবা আসিফ আলী জারদারি। সিনেটের চেয়ারম্যান হিসেবে পিএমএল-এন নেতা ইসহাক দারের মনোনয়ন সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে বিলাওয়াল বলেন, এ বিষয়ে বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে প্রতিটি দল আলাদাভাবে এর ঘোষণা দেবে।

তিনি বলেন, যদি অতীতের দিকে তাকাই, তাহলে আমরা আগের মেয়াদের তুলনায় অনেক দ্রুত ঐকমত্যে পৌঁছেছি এবং জোটের ঘোষণা দিয়েছি।

একই সংবাদ সম্মেলনে পিএমএল-এন নেতা শাহবাজ শরিফ জানান, তিনি পিটিআই সমর্থিত প্রার্থীদের সংখ্যাগরিষ্ঠতার প্রমাণ দিয়ে সরকার গঠন করতে আহ্বান জানিয়েছিলেন। কিন্তু তারা যথেষ্ট আসন দেখাতে পারেনি। তিনি বলেন, পরবর্তী সরকার গঠনের জন্য আমাদের কাছে পর্যাপ্ত সংখ্যাগরিষ্ঠতা রয়েছে।

এ সময় বিলাওয়াল এবং আসিফ আলী জারদারিকে তাদের সহযোগিতার জন্য ধন্যবাদ জানান পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী। শাহবাজ বলেন, উভয় দল সিদ্ধান্ত নিয়েছে, প্রেসিডেন্ট পদে জারদারিকে যৌথ প্রার্থী হিসেবে মাঠে নামানো হবে।

পিপিপি মন্ত্রিসভায় যোগ দেবে কি না এমন এক প্রশ্নের জবাবে পিএমএল-এন নেতা বলেন, প্রথম দিন থেকেই মন্ত্রিত্ব চায়নি বিলাওয়ালের দল।
তিনি বলেন, দুই পক্ষের মধ্যে আলোচনা হয় এবং পারস্পরিক পরামর্শের মাধ্যমে সমস্যাগুলোর সমাধান করা হয়। তবে এর মানে এই নয়, আমরা তাদের দাবি মেনে নিচ্ছি বা তারা আমাদের দাবি মেনে নিচ্ছে। তাদের নিজস্ব মতামত রয়েছে; কিন্তু মধ্যবিন্দুতে পৌঁছানোই আসল রাজনৈতিক সাফল্য।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, পিএমএল-এন সুপ্রিমো নওয়াজ শরিফ এবং পিপিপির শীর্ষ নেতৃত্বের নির্দেশনার ভিত্তিতে পরে মন্ত্রিত্ব সম্পর্কিত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

এ সময় নতুন জোট সরকারের অংশীদার হওয়ায় মুত্তাহিদা কওমি মুভমেন্ট-পাকিস্তান, ইস্তেহকাম-ই-পাকিস্তান পার্টি এবং পাকিস্তান মুসলিম লীগ-কায়েদকেও ধন্যবাদ জানান শাহবাজ শরিফ।

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Mother demands Putins intervention to get Navalnys body

নাভালনির মরদেহ পেতে পুতিনের হস্তক্ষেপ দাবি মায়ের

নাভালনির মরদেহ পেতে পুতিনের হস্তক্ষেপ দাবি মায়ের ছেলের মরদেহ চান অ্যালেক্সেই নাভালনির মা। ভিডিও থেকে নেয়া
গত ১৬ ফ্রেব্রুয়ারি ৪৭ বয়সী নাভালনির মৃত্যুর খবর দেয় কারাগার কর্তৃপক্ষ, তবে এখনও মরদেহ দেখার সুযোগ পায়নি তার পরিবার। মরদেহ কোথায় আছে জানানো হয়নি সে তথ্যও।

কারাগারে বন্দি অবস্থায় মারা যাওয়া রাশিয়ার বিরোধীদলীয় নেতা অ্যালেক্সেই নাভালনির মরদেহ ফিরে দেশটির প্রেসিডন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের হস্তক্ষেপ চেয়েছেন তার মা।

যে কারাগারে পুতের ‘কট্টরতম সমালোচক’ হিসেবে পরিচিত নাভালনির মৃত্যু হয়েছে সেই কারাগারের সামনে দাঁড়িয়ে এক ভিডিওতে তিনি এই দাবি জানান বলে বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

গত ১৬ ফ্রেব্রুয়ারি ৪৭ বয়সী নাভালনির মৃত্যুর খবর দেয় কারাগার কর্তৃপক্ষ, তবে এখনও মরদেহ দেখার সুযোগ পায়নি তার পরিবার। মরদেহ কোথায় আছে জানানো হয়নি সে তথ্যও।

বিবিসি বলছে, নাভালনির মাকে বলা হয়েছে, মরদেহ ‘রাসায়নিক বিশ্লেষণের’ জন্য রাখা হয়েছে। দু সপ্তাহ এভাবেই তা থাকবে। এরপর সিদ্ধান্ত হবে। আর তার স্ত্রীর দাবি, মরদেহ লুকিয়ে রেখেছে কারাগার কর্তৃপক্ষ।

সোমবার একটি ভিডিওতে ‘মুক্ত রাশিয়া’ এর জন্য লড়াই করতে তার কাজ চালিয়ে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ইউলিয়া নাভালনায়া সরাসরি পুতিনকে তার স্বামীকে হত্যা করার জন্য অভিযুক্ত করেছেন।

তিনি আরও অভিযোগ করেছেন, নার্ভ এজেন্ট নভিচক দিয়ে যে বিষক্রিয়া ঘটানো হয়েছে নাভালনির শরীরে সেই চিহ্ন অদৃশ্য না হওয়া পর্যন্ত তার মরদেহ রাখা হবে কর্তৃপক্ষের কাছে।

মঙ্গলবার নাভালনির মা ভিডিওতে বলেন, ‘আমি তাকে পাঁচ দিন ধরে দেখতে পাচ্ছি না, তারা তার দেহ আমাকে দিতে অস্বীকার করছে এবং তারা বলছে না সে কোথায় আছে।’

তিনি বলেন, ‘আমি আপনাকে জিজ্ঞাসা করছি, ভ্লাদিমির পুতিন- সব আপনার একার ওপর নির্ভর করছে। আমাকে আমার ছেলেকে দেখতে দিন। তার মরদেহ অবিলম্বে ছেড়ে দেয়া হোক।’

প্রতিবেদন বলছে, নাভালনিকে গতবছরের শেষ দিকে রাশিয়ার স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল ইয়ামালো-নেনেতের আর্কটিক পেনাল কলোনিতে নিয়ে যাওয়া হয়। এই কারাগারেই ছিলেন তিনি।

কারাকর্তৃপক্ষ বলেছে, হাঁটার পর মাটিতে লুটিয়ে পড়েন তিনি। এরপর আর তার চেতনা ফেরেনি।

নাভালনির মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়ার সাথে সাথে তার মা এবং আইনজীবী প্রত্যন্ত ওই কলোনিতে যান। তবে মরদেহ শনাক্ত করার চেষ্টা বারবার ঠেকিয়ে দেয় কারাগারের মর্গ ও স্থানীয় কর্তৃপক্ষ।

ক্রেমলিন বলেছে, নাভালনির মৃত্যুর তদন্ত চলছে এবং এখনও পর্যন্ত কোন ফলাফল পাওয়া যায়নি।

নাভালনির মুখপাত্র কিরা ইয়ারমিশ বলেন, তদন্তকারীরা নাভালনির মা লিউডমিলাকে বলেছেন, তারা রাসায়নিক বিশ্লেষণ করার সময় নিয়েছেন, তারা দুই সপ্তাহের জন্য মরদেহ হস্তান্তর করবেন না।

পশ্চিমা নেতারা নাভালনির মৃত্যুর জন্য প্রেসিডেন্ট পুতিনের ওপর দায় চাপিয়েছেন। সোমবার সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেন, বিষয়টির সত্যতা হলো; পুতিন দায়ী। তিনি আদেশ দিয়েছিলেন কি না বা তিনি সেই ব্যক্তিকে যে পরিস্থিতিতে রেখেছেন তার জন্য তিনি দায়ী।

নাভালনির বিরুদ্ধে জালিয়াতি ও অন্যান্য অভিযোগে হওয়া মামলয় গত বছরের আগস্টে তাকে ১৯ বছরের কারাদণ্ড দেয় রাশিয়ার আদালত। তিনি বন্দি ছিলেন ২০২১ সাল থেকে।

নাভালনি ও তার সমর্থকরা তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ ভুয়া বলে দাবি করে আসছেন। তার রাজনৈতিক আন্দোলনকে চরমপন্থি হিসেবে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

রাশিয়ার প্রধান বিরোধী দল রাশিয়া অফ দ্য ফিউচারের নেতা অ্যালেক্সেই নাভালনিকে ২০২০ সালের আগস্টে বিষ প্রয়োগে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ ওঠে।

নির্বাচনি প্রচার শেষে অভ্যন্তরীণ একটি ফ্লাইটে সাইবেরিয়ার টমস্ক থেকে মস্কো ফিরছিলেন নাভালনি। মাঝ আকাশে আচমকাই অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। ওমস্ক শহরে বিমানের জরুরি অবতরণ করিয়ে শুরু হয় চিকিৎসা। কোমায় চলে যাওয়া নাভালনিকে রাখা হয় আইসিইউতে।

তবে সেখানে সঠিক চিকিৎসা পাবেন না এমন আশঙ্কায় আন্তর্জাতিক হস্তক্ষেপে জার্মানিতে চিকিৎসা নেন নাভালনি। কয়েকটি মামলা থাকায় ক্রেমলিনের অনুমতি নিয়ে বার্লিনে চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হয়ে দেশে ফেরেন তিনি।

জার্মান চিকিৎসকেরা জানান, নাভালনির ওপরে নভিচক নামে স্নায়ু বিকল করার বিষাক্ত এক রাসায়নিক প্রয়োগ করা হয়েছিল। এ ঘটনায় পুতিন সরকার জড়িত বলে দাবি করে আসছে নাভালনির দল ও পরিবার।

আরও পড়ুন:
নাভালনির মরদেহ কোথায়, বলছে না রাশিয়া
পুতিন দানব: ট্রুডো
কারাবন্দি রাশিয়ার বিরোধী নেতা নাভালনি মারা গেছেন

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Putin gave Kim a car

কিমকে গাড়ি উপহার দিলেন পুতিন

কিমকে গাড়ি উপহার দিলেন পুতিন কিম জং উনকে একটি বিলাসবহুল গাড়ি উপহার দিয়েছেন ভ্লাদিমির পুতিন। ছবি: আল জাজিরা
যেহেতু উত্তর কোরিয়ায় জাতিসংঘের রপ্তানি নিষেধাজ্ঞা রয়েছে, তাই এ উপহারটি উত্তর কোরিয়ায় অটোমোবাইলসহ বিলাসবহুল পণ্য সরবরাহ নিষিদ্ধ করার জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাবগুলোর লঙ্ঘন হতে পারে।

উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনকে রাশিয়ার তৈরি একটি বিলাসবহুল গাড়ি উপহার দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

ইয়োনহাপ নিউজ এজেন্সি রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমের বরাত দিয়ে সোমবার এ কথা জানিয়েছে।

কোরিয়ান সেন্ট্রাল নিউজ এজেন্সির (কেসিএনএ) উদ্ধৃতি দিয়ে ইয়োনহাপ জানায়, উপহারটি দুই নেতার মধ্যকার বিশেষ ব্যক্তিগত সম্পর্ককে আরও দৃঢ় করবে।

কোরিয়ার ক্ষমতাসীন ওয়ার্কার্স পার্টির সেক্রেটারি ও উত্তর কোরিয়ার নেতার বোন কিম ইয়ো-জংকে গাড়িটি দেয়ার কথা জানিয়েছে রাশিয়া। কিম জং উনকে দেয়া পুতিনের এ উপহারের জন্য রাশিয়াকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন কিমের বোন কিম ইয়ো-জং।

গত বছরের সেপ্টেম্বরে শীর্ষ সম্মেলনের জন্য কিমের রাশিয়া সফরের সময় পুতিন তার অরাস সেনেট লিমোজিন দেখিয়েছিলেন কিম জংকে। পুতিন তাকে রাশিয়ার তৈরি বিলাসবহুল গাড়িতে বসার সুযোগ দেন।

তবে কিমকে পুতিনের দেয়া উপহারটি লিমোজিন কি না তা জানা যায়নি।

যেহেতু উত্তর কোরিয়ায় জাতিসংঘের রপ্তানি নিষেধাজ্ঞা রয়েছে, তাই এ উপহারটি উত্তর কোরিয়ায় অটোমোবাইলসহ বিলাসবহুল পণ্য সরবরাহ নিষিদ্ধ করার জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাবগুলোর লঙ্ঘন হতে পারে।

আরও পড়ুন:
গাজায় দ্রুত যুদ্ধবিরতি চান পুতিন
সিকিমে ৬ সেনাসহ ১৯ জনের মৃত্যু, নিখোঁজ ১০৩
রূপপুর পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্র দৃঢ় সম্পর্কের প্রতীক: পুতিন
সিকিমে আকস্মিক বন্যায় ১৪ মৃত্যু, সেনাসহ নিখোঁজ ১০২
সিকিমে আকস্মিক বন্যা, নিখোঁজ ২৩ সেনা

মন্তব্য

p
উপরে