× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

আন্তর্জাতিক
After Islamophobia in the west this time it is Russophobia
hear-news
player
print-icon

পশ্চিমে ইসলামফোবিয়ার পর এবার ‘রুশোফোবিয়া’

পশ্চিমে-ইসলামফোবিয়ার-পর-এবার-রুশোফোবিয়া
নিউ ইয়র্কে রাস্তায় ফেলে দেয়া হচ্ছে রাশিয়ান ভদকা। ছবি: টুইটার
ইউক্রেনে রাশিয়ার সামরিক অভিযানের বিরুদ্ধে পশ্চিমা অবস্থানের মাত্রা রাষ্ট্রীয় পরিসর ছাড়িয়ে সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডলেও ছড়িয়ে পড়েছে। সাধারণ মানুষ রাশিয়ার নীতির বিরোধিতার উপায় হিসেবে রুশ প্রতিষ্ঠান ভাঙচুর, পণ্য বয়কটের মতো ঘটনা ঘটাচ্ছেন। রাশিয়ার নাগরিকদের প্রতিও দেখানো হচ্ছে তীব্র ঘৃণা ও বিদ্বেষমূলক মনোভাব।

ইউক্রেনে রাশিয়ার সামরিক অভিযান শুরুর পর পশ্চিমা দেশগুলোয় তীব্র হয়েছে ‘রুশোফোবিয়া’। ব্যাপক রুশবিদ্বেষের খবর প্রকাশিত হচ্ছে পশ্চিমা সংবাদমাধ্যমেই।

এমএসএনবিসিতে সম্প্রতি প্রকাশিত এক নিবন্ধে লাগামহীন রুশোফোবিয়া নিয়ে উদ্বেগ জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়, ‘রাশিয়ান সরকার এবং রুশ জনগণের মধ্যে পার্থক্য করতে না পারার ঘটনা আমাদের অন্ধকার পথে নিয়ে যেতে পারে।’

সাম্প্রতিক রুশোফোবিয়ার উল্লেখ করে নিবন্ধে বলা হয়, রুশ মালিকানার রেস্তোরাঁ ভাঙচুর করা হচ্ছে, সেগুলো সম্পর্কে বাজে রিভিউ দেয়া হচ্ছে। রুশ সংগীতশিল্পী এবং প্রয়াত রুশ সুরকারদের গানের কনসার্ট বাতিল করা হচ্ছে। রাতের খাবারের তালিকা থেকে কানাডিয়ান সুস্বাদু পাউটিন নামের খাবার সরিয়ে দেয়া হয়েছে, কারণ ফরাসি ভাষায় এ নামটির সঙ্গে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের নামের বেশ মিল রয়েছে। চলচ্চিত্র উৎসব থেকে বাদ দেয়া হচ্ছে রাশিয়ান সিনেমা। যুক্তরাষ্ট্রের কিছু শহরে রাশিয়ান ভদকা ড্রেনে ফেলে দিয়ে তার ছবি তুলে প্রচার করছেন সরকারি কর্মকর্তারা।

নাইন-ইলেভেন হামলার পর যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশে মুসলিমবিদ্বেষ বা ইসলামফোবিয়া ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ে। এতে মুসলিমদের নাগরিক অধিকার ব্যাপকভাবে খর্ব হওয়ার অভিযোগ রয়েছে। ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর পর পশ্চিমা দেশগুলোয় রুশদের প্রতি বিদ্বেষ ও ঘৃণাও একইভাবে ছড়িয়ে পড়েছে।

কলিন্স ডিকশনারিতে ‘রুশোফোবিয়া’র অর্থ হিসেবে বলা হয়েছে, রাশিয়া বা বিশেষত সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন ও এর রাজনৈতিক ব্যবস্থা ইত্যাদির প্রতি তীব্র এবং প্রায় ক্ষেত্রেই অযৌক্তিক ঘৃণা।

পশ্চিমে ইসলামফোবিয়ার পর এবার ‘রুশোফোবিয়া’

উনিশ শতকে জারের শাসনামলে রাশিয়া পশ্চিমা শক্তিকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে পূর্ব ইউরোপ এবং মধ্য এশিয়ায় শক্তি বিস্তার ঘটানোর সময় দেশটির প্রতি বিদ্বেষমূলক শব্দ হিসেবে ‘রুশোফোবিয়া’র উদ্ভব হয়

পরবর্তী সময়ে হিটলারের সময়কার জার্মানিতে রুশোফোবিয়ার ব্যাপক বিস্তার ঘটে। নাৎসি শাসিত জার্মানিতে রুশ ও অন্যান্য স্লাভ জাতিগোষ্ঠীর সদস্যদের ‘নিকৃষ্ট’ এবং ‘উপমানব’ মনে করা হতো। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়ে এই বিদ্বেষ থেকে লক্ষাধিক রুশ বেসামরিক নাগরিককে হত্যা করা হয়।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরও ইউরোপ ও আমেরিকায় রুশোফোবিয়া ব্যাপকভাবে বহাল থাকে, তবে ১৯৯১ সালে সোভিয়েত ইউনিয়ন পতনের পর কমে আসে এর মাত্রা। সম্প্রতি ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর পর ইউরোপ-আমেরিকায় রুশোফোবিয়া আবার মাথাচাড়া দিয়েছে

ইউক্রেনে রাশিয়ার অভিযানের বিরুদ্ধে পশ্চিমা অবস্থানের মাত্রা রাষ্ট্রীয় পরিসর ছাড়িয়ে সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডলেও ছড়িয়ে পড়েছে। সাধারণ মানুষ রাশিয়ার নীতির বিরোধিতার উপায় হিসেবে রুশ প্রতিষ্ঠান ভাঙচুর, পণ্য বয়কটের মতো ঘটনা ঘটাচ্ছেন। রাশিয়ার নাগরিকদের প্রতিও দেখানো হচ্ছে বিদ্বেষমূলক মনোভাব।

যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা এবং ইউরোপের অনেক নাগরিক বিতর্ক এড়ানোর কৌশল হিসেবেও রাশিয়াসংশ্লিষ্ট পণ্য বয়কট করছেন। যেমন রাশিয়ার খাবার খেলে ‘মস্কোপন্থি’ হিসেবে পরিচিত হবেন, এমন আশঙ্কায় সেগুলো এড়িয়ে যাচ্ছেন। এমএসএনবিসির নিবন্ধে বলা হয়, বড় একটি অংশের ক্ষেত্রে এসব আচরণ রাশিয়ার বৈদেশিক নীতির প্রতিবাদের চেয়ে উন্মাদনার পর্যায়ে পৌঁছেছে। এটি সামগ্রিকভাবে একটি অমানবিক বৈশ্বিক দৃষ্টিভঙ্গির জন্ম দিচ্ছে।

সাধারণ মানুষের মধ্যে রুশসংশ্লিষ্টতা বর্জনের প্রবণতার সঙ্গে রাষ্ট্রীয় পর্যায়ের সুসংগঠিত বয়কটের খুব বেশি সংযোগ নেই। পুতিন সরকারকে চাপে ফেলতে পশ্চিমা দেশগুলো নজিরবিহীন কঠোর নিষেধাজ্ঞা দিলেও রাশিয়া সেটি অনেকটাই সামলে নিয়েছে। এর আগে ইরান ও উত্তর কোরিয়া এ ধরনের কিছু নিষেধাজ্ঞায় কাবু হলেও মস্কোর অনমনীয় অবস্থানে কোনো পরিবর্তন দেখা যাচ্ছে না। আর এমন অবস্থায় প্রকট হয়ে উঠছে রুশোফোবিয়া।

পশ্চিমে ইসলামফোবিয়ার পর এবার ‘রুশোফোবিয়া’
ওয়াশিংটনে রুশ মালিকানাধীন ভবনে ভাঙচুরের পর ঢেকে রাখা জানালা

এমএসএনবিসির নিবন্ধে বলা হয়েছে, ‘আমরা যেটি দেখছি তা হলো, এসব বয়কটের উদ্দেশ্য হলো, সাময়িক প্রচেষ্টার মাধ্যমে একটি দেশ হিসেবে রাশিয়াকে আরও বড় পরিসরে কলঙ্কিত করা। এ ধরনের কর্মকাণ্ডের আরও জঙ্গি রূপ হলো, রাশিয়ান রেস্তোরাঁর জানালা ভাঙা। অথবা এমন বার্তা দেয়া যে, রাশিয়ান রেস্তোরাঁর মালিকেরা দেশে ফিরে যান। এগুলো মোটেই রুশ সরকারের ওপর অর্থপূর্ণ চাপ প্রয়োগের উপায় নয়, এগুলো স্রেফ জেনোফোবিক (বিদেশিবিদ্বেষ) উৎপীড়ন।

‘রুশ সরকার এবং রাশিয়ার জনগণের মধ্যে পার্থক্য না করার প্রচেষ্টা ন্যায্য বা নৈতিক নয়। কারণ রাশিয়ার মতো একটি কর্তৃত্ববাদী দেশে নীতিগত বিষয়ে জনগণের সরাসরি মতামত দেয়ার কোনো সুযোগ নেই এবং সেখানে নাগরিক সমাজ ব্যাপকভাবে নজরদারি ও দমন-পীড়নের মধ্যে থাকে। ইউক্রেনে অভিযান শুরুর নির্দেশ পুতিন দিয়েছেন, রাশিয়ার জনগণ নয়। উল্টো তাদের অনেকেই ব্যক্তিগত ঝুঁকি নিয়ে এর প্রতিবাদ করেছেন এবং পুতিনের আগ্রাসী আচরণে বিশ্বের বাকিদের মতো তারাও অবাক হয়েছেন।’

নিবন্ধে বলা হয়, পশ্চিমে রুশোফোবিয়ার শিকার ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে অনেকেই আছে, যারা রুশ সরকারের সমালোচক। শো বাতিল করা রুশ পিয়ানোবাদক আলেকজান্ডার মালোফিভ যুদ্ধ শুরু হওয়ার পরেই লিখেছিলেন, ‘বাস্তবতা হলো রাশিয়ার এই ভয়ংকর ও রক্তাক্ত সিদ্ধান্ত আমরা প্রতিহত করতে পারিনি ভেবে প্রতিটি রাশিয়ান কয়েক দশক ধরে নিজেদের অপরাধী ভাববেন।’

পশ্চিমে ইসলামফোবিয়ার পর এবার ‘রুশোফোবিয়া’
রুশ পিয়ানোবাদক আলেকজান্ডার মালোফিভের শো বাতিল হয়েছে আমেরিকায়

নিউ ইয়র্ক টাইমসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নিউ ইয়র্কের বেশির ভাগ রাশিয়ান রেস্তোরাঁ মালিক যুদ্ধবিরোধী। এর পরও তাদের পুতিন সমর্থক ধরে নিয়ে সমালোচনার মুখে ফেলা হচ্ছে। যেসব রুশ পরিচালকের চলচ্চিত্র একটি উৎসব থেকে বাদ দেয়া হয়েছে, তারা রাষ্ট্রীয় হুমকির ঝুঁকি নিয়েও প্রকাশ্যে যুদ্ধের বিরোধিতা করেছেন। একটি সংগীত আয়োজন থেকে রুশ সুরকার চাইকোভস্কিকে বাদ দেয়া হয়েছে। চাইকোভস্কি অবশ্য পুতিনের সমালোচক ছিলেন না, কারণ তিনি এক শতাব্দী আগে মারা গেছেন।

শুধু রাশিয়ার নাগরিকরাই যে রুশোফোবিয়ার শিকার, তাও কিন্তু নয়। লোকজনের জানা-বোঝার অভাবে ইউক্রেন ও ওই অঞ্চলের অন্য দেশের নাগরিকও পশ্চিমে বিদ্বেষের মুখোমুখি হচ্ছেন। রাশিয়ান ভদকা দাবি করে এমন ভদকাও ফেলে দেয়া হচ্ছে, যার মালিকানা আসলে ইউক্রেনের। কেবল রুশ চেহারার সঙ্গে মিল থাকার কারণেই বিদ্বেষের শিকার হচ্ছেন অনেকে।

যুক্তরাষ্ট্রে উন্মাদনার মাত্রা নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করে এমএসএনবিসির নিবন্ধে বলা হয়, ‘এই প্রবণতা একটি সমগ্র জাতিকে অমানবিক করে তুলছে। এটি একটি কঠোর নীতির প্রভাব সম্পর্কে আমাদের অন্ধ করে তুলতে পারে। একইভাবে সীমাহীন কঠোর নিষেধাজ্ঞা শেষ পর্যন্ত রাশিয়ার রাজনৈতিক শ্রেণির ওপর সীমিত প্রভাব রেখে সাধারণ রুশদের ব্যাপক ভোগান্তির মুখোমুখি করতে পারে। আরও উদ্বেগজনক বিষয় হলো, রাশিয়ার ভিন্নমতের মানুষকে উপেক্ষা এবং তাদের সঙ্গে সাংস্কৃতিক যোগাযোগের পথ বন্ধ করায় আমরা আরও অমানবিক রুশ জাতি গড়ার পথ সুগম করছি।’

নিষেধাজ্ঞা বা ঘৃণার প্রবণতা থেকে বেরিয়ে এসে কার্যকর কৌশল নেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে নিবন্ধে। এতে বলা হয়, ইউক্রেনীয়দের সঙ্গে একাত্মতা এবং রাশিয়ার সাম্রাজ্যবাদী যুদ্ধের বিরোধিতা করার নানা উপায় রয়েছে। যেমন ইউক্রেনে সাহায্য পাঠানো, দেশটির শরণার্থীদের আশ্রয়দান এবং যুদ্ধের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়া রুশ ভিন্নমতাবলম্বীদের সমর্থন করার উপায় খুঁজে বের করা।

নিবন্ধে বলা হয়, পশ্চিমে অবস্থান করা রাশিয়ানদের মধ্যে যারা যুদ্ধের বিরোধিতা করছেন তারা গুরুত্বপূর্ণ মিত্র। তাদের ঘৃণার মুখোমুখি করার প্রবণতা বন্ধ করে পশ্চিমের উচিত আলিঙ্গনের পথ বেছে নেয়া।

আরও পড়ুন:
ইউক্রেনে দেড় হাজার বিমান বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র পাঠাল জার্মানি
বাজছে বিশ্বায়নের ‘মৃত্যুঘণ্টা’
ইউরোপে গ্যাসে রাশিয়ার বিকল্প অসম্ভব: কাতার
ইউক্রেনের সামরিক গবেষণায় ‘অর্থ ঢেলেছেন’ বাইডেনের ছেলে
রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের আপডেট

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
Trying to survive by cutting costs

খরচ কমিয়ে টিকে থাকার আপ্রাণ চেষ্টা

খরচ কমিয়ে টিকে থাকার আপ্রাণ চেষ্টা জ্বালানি তেলের দাম বাড়ার কারণে সবজি, মাছসহ অন্যান্য খাদ্যপণের দাম বৃদ্ধির বিষয়টিও ভাবিয়ে তুলেছে চাকরিজীবী সজিব খান ও তার পরিবারকে। অলংকরণ: মামুন হোসাইন/নিউজবাংলা
আয়ের সঙ্গে ব্যয়ের সামঞ্জস্যতা নেই। সংসারে ৫ জন মানুষ। এখন খাওয়া কমিয়ে দেয়া ছাড়া উপায় কী? আগে সপ্তাহে তিন দিন মাছ খেতাম এখন সেটা এক দিন করতে হবে। ন্যূনতম পোশাক দিয়ে চলতে হবে। সামাজিক আচার-অনুষ্ঠান বাদ দিতে হবে। এ ছাড়া উপায় নেই: জ্বালানি তেলের দাম বাড়ায় পরিবহন ও পণ্যমূল্য বৃদ্ধির প্রতিক্রিয়ায় বেসরকারি কোম্পানির চাকরিজীবী রফিকুল ইসলাম।

নারায়ণগঞ্জ থেকে প্রতিদিন ঢাকার বাংলামোটরে এসে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন সজিব খান। জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির আগে গুলিস্তান থেকে নারায়ণগঞ্জ পর্যন্ত বাসভাড়া দিতেন ৪০ টাকা। তেলের দাম বৃদ্ধির পর ২০ টাকা বেড়ে সেই ভাড়া হয়েছে ৬০ টাকা।

অর্থাৎ আসা-যাওয়ার ক্ষেত্রে ব্যয় বেড়েছে ৪০ টাকা। তবে ব্যয় বৃদ্ধির এই হিসাবই শেষ নয়।

গুলিস্তান থেকে বাংলামোটরে আসা-যাওয়া করেন তিনি। আগে এই পথে ভাড়া নিত ১০ টাকা করে। চার কিলোমিটার পথের ভাড়া এখনও ১০ টাকাই হয়। কিন্তু বাসগুলো আদায় করছে ১৫ টাকা করে ৩০ টাকা।

অর্থাৎ এই পথেও ১০ টাকা মিলিয়ে প্রতি দিন সজিবের বাসভাড়া বেড়েছে ৫০ টাকা। মাসে ২৬ দিন অফিস করলে বাড়তি ব্যয় করতে হবে ১ হাজার ৩০০ টাকা।

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ার কারণে সবজি, মাছসহ অন্যান্য খাদ্যপণের দাম বৃদ্ধির বিষয়টিও ভাবিয়ে তুলেছে সজিবকে।

তিনি বলেন, ‘মাসে বেতন ২৫ হাজার টাকা। এই বেতন নিয়ে এমনিতেই সংসারে টানাটানি অবস্থা। তার মধ্যে হঠাৎ করেই যদি বাসভাড়াই ১ হাজার ৩০০ টাকা ব্যয় বাড়ে, তাহলে জীবন ধারণ করাই কঠিন হবে।’

খরচ কমিয়ে টিকে থাকার আপ্রাণ চেষ্টা
জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির পর বেড়েছে বাসভাড়া। ছবি: নিউজবাংলা

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর পর বেড়েছে মানুষের জীবনযাত্রার ব্যয়। স্কুল, বাজার, কর্মক্ষেত্রে যাতায়াতের ক্ষেত্রে বাড়তি অর্থ গুনতে হচ্ছে। মোটরসাইকেল, প্রাইভেট কার, বাস, নৌযান অর্থাৎ জ্বালানি তেলনির্ভর সব যানবাহনে বেড়েছে ভাড়া। তেলের দাম বৃদ্ধির প্রভাব পড়ছে অন্যান্য নিত্যপণ্যে।

করোনা-পরবর্তী বিশ্বে যখন নিত্যপণ্য ও জ্বালানির দামে ঊর্ধ্বগতি, এর মধ্যে ইউক্রেন যুদ্ধ গোটা পৃথিবীকেই ফেলে দিয়েছে বিরাট অনিশ্চয়তার মধ্যে। অর্থনৈতিক মন্দার আশঙ্কা, দেশে দেশে মুদ্রার দরপতনে মানুষের প্রকৃত আয় কমে যাওয়া, তার সঙ্গে বেড়ে যাওয়া খরচের সঙ্গে যখন নাভিশ্বাস, সে সময় জ্বালানি তেলের দামে দিল লাফ।

ডিজেলের দাম লিটারে ৩৪ টাকা আর অকটেন-পেট্রলের দাম ৪৪ ও ৪৬ টাকা করে বাড়ানোর পর দেশে বাসভাড়া বেড়েছে নগর পরিবহনে কিলোমিটারপ্রতি ৩৫ পয়সা, দূরপাল্লায় ৪০ পয়সা।

কিন্তু ভাড়া আসলে যতটা হওয়ার কথা, আদায় চলছে তার চেয়ে বেশি। আবার ট্রাকভাড়া বেড়ে যাওয়ায় নিত্যপণ্যের দামের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে বাড়তি দর। আবার কিলোমিটারপ্রতি ব্যয় এক টাকা বাড়লে ছোট নোটের অভাবে আদায় হচ্ছে ৫ থেকে ১০ টাকা। সব মিলিয়ে নির্দিষ্ট আয়ের মানুষের নাভিশ্বাস উঠেছে।

কেউ শক আহ্লাদের পেছনে ব্যয় কমাচ্ছে, কেউ সন্তানদের পেছনে ব্যয় কমাচ্ছে, কেউ ঘুরাঘুরি বাদ দিচ্ছে, কেউ আড্ডায় কম যাচ্ছে, কেউ বা কম খাচ্ছে।

খরচ কমিয়ে টিকে থাকার আপ্রাণ চেষ্টা
জ্বালানি তেলের দাম বাড়ার কারণে নিত্যপণ্যের পাশাপাশি সবজি, মাছসহ অন্যান্য খাদ্যপণের দাম বেড়ে গেছে। ফাইল ছবি

পরিবহন ব্যয়ে লাফ

মিরপুর-১ নম্বর থেকে নিজের মোটরসাইকেলে করে ফার্মগেটে বেসরকারি ব্যাংকে অফিস করেন বিল্লাল হোসেন। বাইকে ৫০০ টাকার তেল নিলে আগে ৬ থেকে ৮ দিন চলাচল করা যেত। এখন সেই পরিমাণ তেল কিনতেই ব্যয় হবে ৬৫০ টাকার বেশি। অর্থাৎ মাসে ব্যয় বাড়বে অন্তত ৬০০ টাকার বেশি।

বিল্লাল হোসেন বলেন, ‘মাসের এই ব্যয় সমন্বয় করতে হবে অন্য কোনো চাহিদা বাদ দিয়ে। বেতন যেহেতু এক টাকাও বাড়েনি, তাই এই ব্যয় সমন্বয় করতে ইচ্ছার মৃত্যু ঘটাতে হবে।’

নিজের বাইক আছে বলে বিল্লালের খরচ তাও কিছুটা কম বেড়েছে। শেওড়াপাড়া বাসস্ট্যান্ড থেকে প্রতিদিন ধানমন্ডির সায়েন্সল্যাব মোড়ের অফিসে যাওয়া আলিম উদ্দিনের বেড়েছে আরও বেশি।

মাঝবয়সী এই ব্যক্তি জানান, বাসেই যাতায়াতের চেষ্টা করেন তিনি। কিন্তু যেখান থেকে তিনি বাসে চাপেন, সেখান থেকে উঠাই কঠিন। মাসের অন্তত ২০ দিনই ব্যর্থ হন। এরপর উপায়ান্ত না দেখে বাইকে করে যান।

তিনি বলেন, ‘আগে বাইকে সর্বোচ্চ ২০০ টাকায় যাওয়া যেত। কিন্তু এখন আড়াই শ থেকে তিন শ টাকা চায়।’

আক্ষেপ করে আলিম উদ্দিন বলেন, ‘সর্বসাকুল্যে বেতন পাই ৪২ হাজার টাকা। পথেই চলে যায় বড় অঙ্কের অর্থ। এর সঙ্গে দুই বাচ্চার স্কুলের ব্যয়, সংসারের অন্যান্য চাহিদা পূরণ করতে চোখেমুখে অন্ধকার অবস্থা। বলেন, মাসের ২০ দিন রাইড শেয়ারে যেতে যদি ৫০ টাকা করে বেশি দিতে হয় তাহলে মাস শেষে বাড়তি ব্যয় দাঁড়াবে ১ হাজার ৩০০ টাকা। এই টাকার সংস্থান কোথা থেকে আসবে?’

ফার্মগেট থেকে মিরপুর ৬০ ফিট রোডের একটি স্কুলে এসে শিক্ষকতা করেন তৌহিদা আহমেদ। ফার্মগেট থেকে টেম্পোতে এত দিন ভাড়া ছিল ২০ টাকা। সেই ভাড়া ৬ টাকা বাড়িয়ে করা হয়েছে ২৬ টাকা।

তিনি বলেন, ‘এমনিতেই করোনার কারণে স্কুলের বেতন কমিয়ে দিয়েছে, তার পরও আসা-যাওয়ায় এভাবে ব্যয় বাড়লে চাকরি করে লাভ কী?’

মিরপুর-৬০ ফিট রোডের পাকা মসজিদ থেকে মিরপুর-২ নম্বরের মণিপুর স্কুলের মূল শাখায় ছেলেকে টেম্পোতে নিয়ে এবং ফিরতে এত দিন শায়লা ইসলামের ব্যয় হতো ৪০ টাকা। জনপ্রতি ভাড়া ছিল ১০ টাকা। তেলের দাম বৃদ্ধির পর ভাড়া বেড়ে এখন হয়েছে ৬০ টাকা। জনপ্রতি ৫ টাকা বেড়ে এখন ভাড়া হয়েছে ১৫ টাকা। অর্থাৎ সামান্য এই পথ যাতায়াতেই দিনে ব্যয় বেড়েছে ২০ টাকা। তাহলে মাসের ২৫ দিন স্কুলে যাওয়া আসায় ব্যয় বাড়ছে ৫০০ টাকা।

ব্যয় সামাল দিতে চাহিদায় কাটছাঁট

রাজধানীর নিকুঞ্জ নিবাসী পার্থ রায় বলেন, ‘মাসে দুই দিন মাংস খাবার রেওয়াজ ছিল পরিবারে। কিন্তু এখন এক দিন খাওয়া যাবে কি না সন্দেহ।’

তিনি বলেন, ‘নিকুঞ্জ থেকে মৌচাক পর্যন্ত যেতে বাসভাড়া বেড়েছে। বাসে যাওয়া কঠিন হওয়ায় রাইড শেয়ারে যেতে হয়। সেখানেও বাড়তি ব্যয় করতে হবে।’

সংসারে ব্যয়ের খতিয়ান তুলে ধরে বেসরকারি কোম্পানির চাকরিজীবী রফিকুল ইসলাম জানিয়েছেন, তিনি খাবারের ব্যয় কমিয়ে দেয়া ছাড়া কোনো উপায় দেখছেন না।

তিনি বলেন, ‘জানুয়ারি মাসে বাসাভাড়া ৫০০ টাকা বেড়েছে। মে মাসে পানির বিল ৫০০ থেকে এক হাজার করেছে বাসার মালিক। সন্তানের স্কুলে যাওয়া-আসার জন্য দিনে আগে ভাড়া লাগত ৩০ টাকা করে ৪০ টাকা। এখন লাগে ৬০-৭০ টাকা। নিত্যপ্রয়োজনীয় সব পণ্যের দামই বাড়তি। অফিসে যাওয়া-আসা করতেও বাসভাড়া বেশি দিতে হচ্ছে। কিন্তু আয় দুই বছর আগে যা ছিল, এখনও তা-ই আছে। সংসার চালাতে এখন প্রতি মাসেই ধারকর্জ করে চলতে হচ্ছে।’

পরিত্রাণ কীভাবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আয়ের সঙ্গে ব্যয়ের সামঞ্জস্যতা নেই। সংসারে ৫ জন মানুষ। এখন খাওয়া কমিয়ে দেয়া ছাড়া উপায় কী? আগে সপ্তাহে তিন দিন মাছ খেতাম এখন সেটা এক দিন করতে হবে। ন্যূনতম পোশাক দিয়ে চলতে হবে। সামাজিক আচার-অনুষ্ঠান বাদ দিতে হবে। এ ছাড়া উপায় নেই।’

‘অনেক ব্যয় কাটছাঁট করে টিকে থাকতে হবে’

ভোক্তা অধিকার নিয়ে কাজ করা সংগঠন কনজ্যুমার ফোরামের সাধারণ সম্পাদক এমদাদ হোসেন মালেক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এমনিতেই মানুষ ব্যয়ে চাপে আছে, তার ওপর জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি মড়ার ওপর খাঁড়ার ঘা হিসেবে সামনে এসেছে। আয় না বাড়লেও ব্যয় বৃদ্ধিতে স্বল্প ও নির্দিষ্ট আয়ের মানুষের দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে।’

কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশনের সহসভাপতি এস এম নাজের হোসেন বলেন, ‘সীমিত আয়ের মানুষ, যাদের আয় নির্দিষ্ট তাদের কঠিন বাস্তবতার মুখোমুখি হতে হবে। করোনা-পরবর্তী সময়ে এত কঠিন বাস্তবতার মুখোমুখি কেউ হয়নি। এ থেকে উত্তরণ কীভাবে, সেটাও জানা নেই।

‘করোনার সময়ে অনেকের আয় কমে যায়। ধারদেনা করে চলার চেষ্টা করেছে সবাই। অনেকে গ্রামে গিয়ে বিকল্পভাবে চলার চেষ্টা করছে। মানুষ যখন একটু ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেছে, তখন জ্বালানি তেলের দাম বাড়া নতুন করে বড় ধাক্কা দিচ্ছে। মানুষ তো কোনো না কোনোভাবে বেঁচে থাকবে। পারিপার্শ্বিক অনেক ব্যয় কাটছাঁট করে জীবনযাত্রায় টিকে থাকতে হবে।’

আরও পড়ুন:
ছোট নোটের অভাবে বড় ক্ষতি

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
The government will measure the impact of the increase in oil prices

তেলের দাম বাড়ার প্রভাব মাপবে সরকার

তেলের দাম বাড়ার প্রভাব মাপবে সরকার জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রভাব খতিয়ে দেখবে সরকার। অলংকরণ: মামুন হোসাইন
তেলের দাম বাড়ানোর ফলে মূল্যস্ফীতি অর্থনীতিকে কতটা পর্যুদস্ত করছে, তা খতিয়ে দেখবে অর্থ মন্ত্রণালয়। দুর্বলতাগুলো চিহ্নিত করে সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। নিম্ন আয়ের মানুষকে কীভাবে আরও স্বস্তি দেয়া যায়, সে বিষয়েও সুপারিশ থাকবে মূল্যায়ন প্রতিবেদনে।

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ার প্রভাব পড়তে শুরু করেছে সার্বিক অর্থনীতির ওপর। দাম বাড়ার সঙ্গে বেড়েছে পরিবহন ভাড়া। বাড়তে শুরু করেছে কৃষি, শিল্প ও সেবার খরচ। এতে শঙ্কায় রপ্তানিকারকরা। মহাদুশ্চিন্তায় আছেন ভোক্তা। স্থির আয়ের সঙ্গে বাড়তি অস্বাভাবিক ব্যয়ের হিসাব মেলাতে প্রতিনিয়ত অসহনীয় হয়ে উঠছে জনজীবন।

তেলের দাম বাড়ানোর ফলে মূল্যস্ফীতি অর্থনীতিকে কতটা পর্যুদস্ত করছে, তা খতিয়ে দেখবে অর্থ মন্ত্রণালয়।

মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এ কথা জানিয়েছেন।

বিষয়টির সত্যতা জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল নিউজবাংলাকে জানান, জ্বালানি তেলের দাম বাড়ার কারণে মূল্যস্ফীতির চাপ বাড়বে। এটি সার্বিক অর্থনীতিতে কেমন প্রভাব ফেলবে, তার মূল্যায়ন করতে যাচ্ছে অর্থ মন্ত্রণালয়। খুব শিগগিরই এ মূল্যায়নের কাজ শুরু হবে।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান, এ মূল্যায়নের মাধ্যমে যে দুর্বলতাগুলো চিহ্নিত হবে, অর্থনীতিকে স্থিতিশীলতায় ফেরাতে সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ ছাড়া মূল্যস্ফীতির চাপে থাকা নিম্ন আয়ের মানুষকে কীভাবে আরও স্বস্তি দেয়া যায়, সে বিষয়েও সুপারিশ থাকবে এই অর্থনৈতিক প্রভাব মূল্যায়ন প্রতিবেদনে।

উদ্যোক্তা-ব্যবসায়ীরা দাবি করেছেন, এ পর্যালোচনাটি দাম বাড়ার আগে হওয়া উচিত ছিল।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ রিভার ট্রান্সপোর্ট এজেন্ট ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মো. রাকিবুল আলম দীপু জানান, মার্কেট সার্ভে না করে একটা পণ্যের দাম বৃদ্ধির কারণে সারা দেশের সমস্ত কর্মকাণ্ডে কী পরিমাণ প্রভাব পড়বে, সেটি পর্যালোচনা করা হয়নি। সেটি সহনীয় ও পরিকল্পিতভাবে না হওয়ায় এখন তার বোঝা দেশের সব জনগণ, তথা অর্থনীতির ওপর পড়ছে। সরকারকেও সমালোচনার মুখে পড়তে হচ্ছে।

নিট পোশাক শিল্প মালিকদের সংগঠন বিকেএমইএর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম মনে করেন, অর্থ মন্ত্রণালয়ের উচিত যত দ্রুত সম্ভব এ বিষয়ে একটি বিশদ মূল্যায়ন করা এবং সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া। না হলে মূল্য দিতে হবে অর্থনীতিকে।

এ প্রসঙ্গে বেসরকারি গবেষণা সংস্থা পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর নিউজবাংলাকে বলেন, ‘জ্বালানি তেলের দাম বাড়ার সম্ভাব্য নেতিবাচক প্রভাব মূল্যায়নের উদ্যোগটি ইতিবাচক, তবে সেটি খাতভিত্তিক সুনির্দিষ্ট হতে হবে। আবার শুধু প্রভাব বের করলেই হবে না; কীভাবে দুর্বলতাগুলো কাটিয়ে ওঠা যায়, তার কার্যকর পদক্ষেপ নিতে প্রয়োজনীয় ব্যয়ও করতে হবে। তা না হলে অর্থনীতি দ্রুত রুগ্ন হয়ে পড়বে এবং তার অস্থির আচরণ আরও বাড়তে থাকবে।’

আহসান মনসুর কৃষকদের হাতে সরাসরি ভর্তুকি পৌঁছে দেয়া, নিম্ন আয়ের মানুষদের সুরক্ষামূলক কার্যক্রমের তালিকায় পণ্য বাড়ানো এবং জনজীবনে সরাসরি প্রভাব ফেলে এমন খাতগুলোতে ভর্তুকি বাড়ানোর পরামর্শ দেন।

করোনা পরবর্তী বৈশ্বিক ও অভ্যন্তরীণ নানামুখী সংকটেও এতদিন দেশের অর্থনীতির স্থিতিশীলতা বজায় ছিল। আমদানি নিয়ন্ত্রণ ও ব্যয় সংকোচনমূলক পদক্ষেপের কারণে কমে আসছিল ঊর্ধ্বগতির মূল্যস্ফীতিও, কিন্তু গত ৫ আগস্ট মধ্যরাতে হঠাৎ জ্বালানি তেলের দাম ৪২ দশমিক ৫ শতাংশ থেকে ৫১ দশমিক ৬৮ শতাংশ পর্যন্ত বৃদ্ধির ঘটনা পাল্টে দেয় গোটা অর্থনীতির হিসাব-নিকাশ। এটি নতুন করে ভাবনায় ফেলেছে সব শ্রেণির ভোক্তা ও ব্যবহারকারীকে। জীবনযাত্রার ব্যয় আগামী দিনে কোথায় গিয়ে ঠেকবে, তা নিয়ে উদ্বেগ সবার।

যদিও দাম বাড়ানোর আগে আগে অর্থনীতিতে এর ক্ষতিকর প্রভাব কতভাবে পড়তে পারে সে বিষয়ে বিশদ কোনো পর্যালোচনা করেনি বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়। তারা দেখেছে শুধু নিজেদের লাভ-ক্ষতি। তাদের হিসেবে দেখানো হয়, এই মূল্যবৃদ্ধির ফলে সরকারের ভর্তুকি বাঁচবে প্রায় ৯ হাজার কোটি টাকা।

এক লাফে ডিজেল ও কেরোসিনের দাম বাড়িয়ে করা হয়েছে ১১৪ টাকা। আগে এর দাম ছিল ৮০ টাকা। এতে মূল্যবৃদ্ধি ঘটেছে ৪২ দশমিক ৫ শতাংশ। ৫১ দশমিক ১৬ শতাংশ বাড়িয়ে ৮৬ টাকা লিটারের পেট্রলের নতুন দাম নির্ধারণ করা হয় ১৩০ টাকা। অন্যদিকে ৫১ দশমিক ৬৮ শতাংশ বাড়িয়ে ৮৯ টাকার অকটেনের নতুন দাম করা হয় ১৩৫ টাকা।

এ পরিমাণ ভর্তুকি বাঁচাতে গিয়ে অর্থনীতির সব খাতে সৃষ্ট নেতিবাচক প্রভাবের কারণে কত হাজার কোটি টাকার ক্ষতি হবে, সেটি ভেবে দেখা হয়নি। জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির বিদ্যমান বাস্তবতায় চাপে থাকা অর্থনীতির সুরক্ষা দিতে অর্থ মন্ত্রণালয় এখন সেদিকেই গুরুত্ব দিতে যাচ্ছে।

আরও পড়ুন:
ঢাকা-ব‌রিশাল রু‌টে লঞ্চের খরচ বেড়ে দ্বিগুণ
পাম্পে পাম্পে হানা, কম তেলে জরিমানা
তেলের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে ছাত্র সমাবেশে পুলিশের লাঠিপেটা
জ্বালানির দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে শাহবাগে গণঅবস্থান
ট্যাংকলরির ধর্মঘট স্থগিত

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Air Astra is going to Sylhet or Chittagong without going to Shahjalal

শাহজালালে না পেরে সিলেট বা চট্টগ্রাম যাচ্ছে এয়ার অ্যাস্ট্রা

শাহজালালে না পেরে সিলেট বা চট্টগ্রাম যাচ্ছে এয়ার অ্যাস্ট্রা ফ্লাইটের অপেক্ষায় থাকা বেসরকারি এয়ারলাইনস এয়ার অ্যাস্ট্রা। ছবি: নিউজবাংলা
এয়ার অ্যাস্ট্রার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ইমরান আসিফ বলেন, ‘বেবিচক আমাদের বলেছে, এই মুহূর্তে শাহজালালে ওভারনাইট পার্কিংয়ের সুযোগ নেই। আমাদের অন্য কোনো বিমানবন্দরে রাতে পার্কিং করতে বলেছে। আমরা সে অনুযায়ী সিলেটের ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ও চট্টগ্রামের শাহ আমানত বিমানবন্দরে রাতে পার্কিংয়ের সব ব্যবস্থা করেছি।’

ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বেস স্থাপনের অনুমতি পাচ্ছে না ফ্লাইটের অপেক্ষায় থাকা বেসরকারি এয়ারলাইনস এয়ার অ্যাস্ট্রা। বিকল্প হিসেবে সিলেট বা চট্টগ্রাম থেকে ফ্লাইট পরিচালনা করার পরিকল্পনা নিয়েছে তারা। এ নিয়ে চূড়ান্ত প্রস্তুতিও শুরু করেছে এয়ারলাইনস কর্তৃপক্ষ।

বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক) বলছে, হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের তৃতীয় টার্মিনালের নির্মাণ কাজ চলমান থাকায় এই মুহূর্তে এই বিমানবন্দরে নতুন করে কোনো এয়ারলাইনসকে জায়গা দেয়ার সুযোগ নেই। টার্মিনালের নির্মাণ কাজ শেষ হলে এ সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করা হবে।

এদিকে এয়ার অ্যাস্ট্রা বলছে, আগামী সেপ্টেম্বরের প্রথমার্ধে তাদের প্রথম উড়োজাহাজটি দেশে পৌঁছাতে পারে। এটিআর সেভেনটি টু মডেলের এই উড়োজাহাজটি বেবিচকের এয়ারওর্দিনেস সার্টিফিকেট (এওসি) পাওয়ার পর এটি দিয়েই যাত্রা শুরু করবে এয়ারলাইনসটি।

এয়ার অ্যাস্ট্রার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ইমরান আসিফ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমাদের প্রথম উড়োজাহাজটি যুক্তরাজ্যে পেইন্টিংয়ের কাজ শেষে বুলগেরিয়ায় এসেছে। আমরা সেখান থেকেই উড়োজাহাজটি ডেলিভারি নেব। বুলগেরিয়া থেকে আমরা আশা করছি সেপ্টেম্বরের প্রথমার্থের কোনো এক সময়ে এটি ঢাকায় এসে পৌঁছাবে। এরপর এটি এয়ারওর্দিনেস সার্টিফিকেট (এওসি) পাবে। এরপর থেকেই আমরা অভ্যন্তরীণ গন্তব্যে ফ্লাইট শুরু করব।

‘বেবিচক আমাদের বলেছে, এই মুহূর্তে শাহজালালে ওভারনাইট পার্কিংয়ের সুযোগ নেই। আমাদের অন্য কোনো বিমানবন্দরে রাতে পার্কিং করতে বলেছে। আমরা সে অনুযায়ী সিলেটের ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ও চট্টগ্রামের শাহ আমানত বিমানবন্দরে রাতে পার্কিংয়ের সব ব্যবস্থা করেছি।’

তিনি বলেন, ‘আমরা অপারেশন শুরুর পর সকালে সিলেট বা চট্টগ্রাম থেকে ফ্লাইট ঢাকায় নিয়ে আসব এবং সারাদিন এখান থেকে অপারেট করে রাতে আবার সিলেট বা চট্টগ্রামে ফ্লাইট নিয়ে গিয়ে সেখানে রাত্রিকালীন পার্কিং করব।’

এয়ার অ্যাস্ট্রার যাত্রা শুরু করলে দেশে ফ্লাইট পরিচালনায় থাকা বেসরকারি এয়ারলাইনসের সংখ্যা হবে তিন। এর ফলে এভিয়েশন খাতে অপারেটরদের মধ্যে প্রতিযোগিতা আরও বাড়বে বলে আশা করছেন বিশেষজ্ঞরা।

বেবিচকের নিয়ম অনুযায়ী, কোনো এয়ারলাইনস ফ্লাইট শুরুর পর প্রথম এক বছর আবশ্যিকভাবে তাদের অভ্যন্তরীণ রুটে ফ্লাইট পরিচালনার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। এক বছর পর আন্তর্জাতিক গন্তব্যে উড়ালের অনুমতি চাইতে পারে এয়ারলাইনস।

গত ২৫ বছরে দেশে ১০টি বেসরকারি এয়ারলাইনস যাত্রা শুরু করলেও এখন টিকে আছে মাত্র দুটি। এ সময়ের মধ্যে একে একে পাখা গুটিয়েছে অ্যারো বেঙ্গল, এয়ার পারাবত, রয়্যাল বেঙ্গল, এয়ার বাংলাদেশ, জিএমজি এয়ারলাইনস, বেস্ট এয়ার, ইউনাইটেড এয়ার ও রিজেন্ট এয়ার।

সর্বশেষ করোনার মধ্যে গত বছরের মার্চ থেকে ফ্লাইট বন্ধ রেখেছে আরেকটি এয়ারলাইনস রিজেন্ট এয়ার। কয়েক দফা চালুর কথা বললেও আর ফ্লাইটে ফেরেনি এয়ারলাইনসটি। বন্ধ হয়ে যাওয়া এয়ারলাইনসগুলোর মধ্যে জিএমজি, রিজেন্ট ও ইউনাইটেড আন্তর্জাতিক ফ্লাইটও চালাত।

দেশে বর্তমানে রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী প্রতিষ্ঠান বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস ছাড়া ফ্লাইটে রয়েছে বেসরকারি এয়ারলাইনস ইউএস বাংলা ও নভোএয়ার।

বেবিচক চেয়ারম্যান এম মফিদুর রহমান বলেন, ‘নতুন দুটি এয়ারলাইনসকে ঢাকার বাইরে থেকে অপারেশন শুরু করতে বলা হয়েছে। ঢাকায় আমাদের স্থান খুব লিমিটেড। এজন্য আমরা বলে দিয়েছি যদি চালু করতে হয় তাহলে ঢাকার বাইরে থেকে আপনারা অপারেশন শুরু করেন। তারা সেভাবেই তাদের প্রস্তুতি নিচ্ছে।

‘থার্ড টার্মিনাল হওয়ার পর নতুন পার্কিং হবে, তখন তারা ঢাকা থেকে অপারেট করতে পারবে। এখনও প্রক্রিয়া চলছে।’

শাহজালালের তৃতীয় টার্মিনাল নির্মাণ প্রকল্পটি একনেকে অনুমোদন পায় ২০১৭ সালের ২৪ অক্টোবর। সে সময় এর নির্মাণব্যয় ধরা হয়েছিল ১৩ হাজার ৬১০ কোটি টাকা। পরে আরও ৭ হাজার ৭৮৮ কোটি ৫৯ লাখ টাকা বাড়িয়ে প্রকল্পের আকার দাঁড়ায় প্রায় ২১ হাজার ৩৯৮ কোটি টাকা। ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে প্রকল্পটির নির্মাণ শুরু হয়। বেসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রণালয়ের প্রাক্কলন অনুযায়ী ২০২৩ সালের জুনের আগেই চালু করা যাবে এই টার্মিনাল।

এ হিসাবে এয়ার অ্যাস্ট্রা যদি ঢাকায় বেস স্থাপন করে ফ্লাইট পরিচালনা করতে চায় তাদের অপেক্ষা করতে হবে অন্তত ১০ মাস।

আরও পড়ুন:
আসছে আরও দুই বেসরকারি এয়ারলাইনস
শর্তে তালা খোলা হলো ইউনাইটেড এয়ার কার্যালয়ের

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Rajuks bus in Hatirjheel due to rent fraud
বাসভাড়ায় নৈরাজ্য-৫

ভাড়ার প্রতারণায় হাতিরঝিলে রাজউকের বাসও

ভাড়ার প্রতারণায় হাতিরঝিলে রাজউকের বাসও বিআরটিএ সর্বনিম্ন যে ভাড়া ঠিক করে দিয়েছে, হাতিরঝিলে চক্রাকার বাসের ইজারাদার রাজউকের কোম্পানি আদায় করে তার দ্বিগুণ। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
এফডিসি কাউন্টার থেকে রামপুরা পর্যন্ত ৪ দশমিক ২ কিলোমিটার দূরত্বে এখানে ভাড়া নেয়া হচ্ছে ২৫ টাকা। প্রতি কিলোমিটার ভাড়া পড়ছে ৫ টাকা ৯৫ পয়সা। এত দিন আদায় হতো ২০ টাকা। তখন কিলোমিটার পড়ত ৪ টাকা ৭৬ পয়সা। তাতেও পোষেনি ইজারাদারের। ৩ দশমিক ১ কিলোমিটার দূরত্বে এফডিসি থেকে পুলিশ প্লাজা পর্যন্ত ভাড়া নেয়া হচ্ছে ২০ টাকা। প্রতি কিলোমিটারে পড়ছে ৬ টাকা ৪৫ পয়সা।

বাসভাড়া নিয়ে রাজধানীতে যে নিত্য প্রতারণা চলছে, তার বাইরে নয় সরকারি সংস্থা রাজউক পরিচালিত বাসও।

রাজধানীর হাতিরঝিলে চক্রাকার যে বাস পরিচালনা করা হয়, তাতে সড়ক পরিবহন নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিআরটিএর নির্ধারণ করে দেয়া হারের আড়াই গুণের বেশিও ভাড়া আদায় করা হয়। বিআরটিএ সর্বনিম্ন যে ভাড়া ঠিক করে দিয়েছে, রাজউকের কোম্পানি আদায় করে তার দ্বিগুণ।

রাজউক নিজে অবশ্য এই বাস পরিচালনা করে না। অর্থের বিনিময়ে ইজারা নিয়েছে কোম্পানি। আর ইজারাদারের স্বার্থ দেখতে গিয়ে ‍উপেক্ষা করছে জনগণের স্বার্থ।

বিআরটিএর হারের দ্বিগুণের বেশি ভাড়া আদায়ের পেছনে এক রাজউক কর্মকর্তার দাবি, তাদের বাসযাত্রী পরিবহনের সাধারণ বাহন নয়, এটি পর্যটন সংশ্লিষ্ট। ফলে বেশি ভাড়া আদায় করা যায়। অথচ এই বাসে ঢাকার লোকাল যেকোনো বাসের মতোই দাঁড়িয়ে যাত্রী বহন করা হয়। আর পর্যটন নয়, হাতিরঝিলের এক পাশ থেকে অপর পাশে যাতায়াতের জন্যই যাত্রীরা বাসটি ব্যবহার করে।

ভাড়ার প্রতারণায় হাতিরঝিলে রাজউকের বাসও

রাজধানীর হাতিরঝিলে চক্রাকার যে বাস পরিচালনা করা হয়, তাতে সড়ক পরিবহন নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিআরটিএর নির্ধারণ করে দেয়া হারের আড়াই গুণের বেশিও ভাড়া আদায় করা হয়। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস/নিউজবাংলা

২০১৬ সালে এই সড়কে যাত্রী পরিবহনে ১০টি মিনিবাস চালু হয়। বর্তমানে চলছে ২০টি। ৭টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত চলে সেগুলো।

এইচআর ট্রান্সপোর্ট নামের একটি প্রতিষ্ঠান রাজউকের কাছ থেকে ইজারা নিয়ে চালাচ্ছে এগুলো।

গত নভেম্বর এবং চলতি আগস্টে তেলের দাম দুই দফা বাড়ানোর পর বাসের ভাড়া দুই দফা বাড়িয়ে দ্বিগুণ করে ফেলা হয়েছে। অথচ দুইবার বাড়ানোর পর যে বাসভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে, তার চেয়ে বেশি ভাড়া আগেই আদায় করা হতো।

ভাড়ার প্রতারণায় হাতিরঝিলে রাজউকের বাসও

২০১৬ সালে রাজধানীর হাতিরঝিলে যাত্রী পরিবহনে ১০টি মিনিবাস চালু হয়। বর্তমানে চলছে ২০টি। সকাল ৭টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত চলে সেগুলো। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস/নিউজবাংলা

দূরত্ব, বিআরটিএ নির্ধারিত ভাড়া- কোনো কিছুই খাটে না এখানে

গত শুক্রবার লিটারে ৩৪ টাকা করে ডিজেলের দাম বাড়ানোর পরদিন বিআরটিএ রাজধানীতে প্রতি কিলোমিটারে বাসভাড়া আড়াই টাকা নির্ধারণ করে জানায়, সর্বনিম্ন ভাড়া হবে ১০ টাকা। অর্থাৎ চার কিলোমিটার যাওয়া যাবে এই ভাড়ায়। এরপর প্রতি কিলোমিটার হিসেবে যোগ হবে আরও আড়াই টাকা করে।

কিন্তু নিউজবাংলা হিসাব করে দেখেছে, হাতিরঝিলে ভাড়া আদায় করা হচ্ছে কিলোমিটার প্রতি ৬ টাকারও বেশি হারে।

এফডিসি কাউন্টার থেকে রামপুরা পর্যন্ত ৪ দশমিক ২ কিলোমিটার দূরত্বে এখানে ভাড়া নেয়া হচ্ছে ২৫ টাকা। প্রতি কিলোমিটার ভাড়া পড়ছে ৫ টাকা ৯৫ পয়সা।

ভাড়ার প্রতারণায় হাতিরঝিলে রাজউকের বাসও
চক্রাকার বাসের টিকিটে সিল মেরে বাড়ানো হয় ভাড়া। ছবি: নিউজবাংলা

এত দিন আদায় করা হতো ২০ টাকা। তখন কিলোমিটার পড়ত ৪ টাকা ৭৬ পয়সা। তাতেও পোষেনি ইজারাদারের।

অথচ বিআরটিএর বেঁধে দেয়া হিসেবে ভাড়া আসে ১০ টাকা ৫০ পয়সা। এই হারের চেয়ে বেশি নেয়া সম্ভব নয় বিধায় যাত্রীদের আসলে ১০ টাকায় চলাচল করার কথা ছিল।

কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে ১০ টাকায় বাসে ওঠারই জো নেই। প্রথম যখন বাস চালু করা হয়, সে সময়ই এই পথের ভাড়া ঠিক করা হয় ১৫ টাকা আর সর্বনিম্ন ভাড়া ছিল ১০ টাকা।

এরপর নভেম্বরে সর্বনিম্ন ভাড়া ঠিক করা হয় ১৫ টাকা, এবার ঠিক করা হয়েছে ২০ টাকা।

এই ২০ টাকায় কত দূর যাওয়া যায়?

এফডিসি বাসস্টপ থেকে পুলিশ প্লাজা পর্যন্ত ৩ দশমিক ১ কিলোমিটার আর পুলিশ প্লাজা থেকে রামপুরা পর্যন্ত আরও ১ দশমিক ১ কিলোমিটারের জন্যও এই ভাড়া ঠিক করা হয়েছে।

বিআরটিএ সর্বনিম্ন ভাড়া ১০ টাকা ঠিক করে না দিলে প্রথম গন্তব্যে সর্বোচ্চ ভাড়া হওয়া উচিত ছিল ৭ টাকা ৭৫ পয়সা এবং দ্বিতীয় গন্তব্যে হওয়া উচিত ছিল ২ টাকা ৭৫ পয়সা।

কিন্তু এখন এফডিসি থেকে পুলিশ প্লাজা পর্যন্ত ভাড়া পড়ছে ৬ টাকা ৪৫ পয়সা হারে, আর পুলিশ প্লাজা থেকে রামপুরা পর্যন্ত ১৮ টাকা ১৮ পয়সা হারে।

রামপুরা থেকে মধুবাগ পর্যন্ত ৩ দশমিক ৬ কিলোমিটারের জন্যও আদায় করা হচ্ছে ২০ টাকা, যা আগে ছিল ১৫ টাকা।

আগে ভাড়ার হার ছিল ৪ টাকা ১৬ পয়সা, এখন হয়েছে ৫ টাকা ৫৫ পয়সা।

শুরু থেকেই হাতিরঝিলের চক্রাকার পুরো পথ যাওয়ার সুযোগ ছিল। একেবারে শুরুতে ঠিক করা হয় ৩০ টাকায় যাওয়া যাবে ৭ দশমিক ৪ কিলোমিটারের এই পথ। দুই বার ৫ টাকা করে বাড়িয়ে এখন তা করা হয়েছে ৪০ টাকা।

প্রতি কিলোমিটার ভাড়া পড়ছে ৫ টাকা ৪০ পয়সা হারে।

ভাড়ার প্রতারণায় হাতিরঝিলে রাজউকের বাসও
হাতিরঝিল চক্রাকার বাসে এভাবে অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহন করা হয়। ছবি: নিউজবাংলা

ভাড়া বাড়িয়েছে কর্তৃপক্ষ, নেই কারও সই

গত মঙ্গলবার থেকে বাড়তি ভাড়া কার্যকর করা হয়েছে। কাউন্টারের সামনে একটি তালিকা টানানো হয়েছে ভাড়া বাড়ানোর। নিচে লেখা আছে ‘কর্তৃপক্ষ’। তবে এই কর্তৃত্ব কার তা জানা যায়নি, কারণ, কোনো কর্মকর্তার সই নেই।

এফডিসি বাস স্টপেজের টিকিট বিক্রেতা মাসুদ করিমকে ১৫ টাকা দিয়ে পুলিশ প্লাজার টিকিট দিতে বলা হলে তিনি বলেন, ‘১৫ টাকার কোনো টিকিট নেই, ২০ টাকা।’

এরপর তিনি ভাড়া বাড়ানোর বিজ্ঞপ্তি দেখতে বলেন। বিজ্ঞপ্তিতে কারও সই না থাকার বিষয়টি জানালে তিনি বলেন, ‘এইটাই। গেলে ২০ টাকা দেন।’

যাত্রীরা রাগে গজ গজ করতে করতে টিকিট কাটছিলেন আর একজন আরেকজনের কাছে অসহায়ত্ব প্রকাশ করতে থাকেন, বলতে থাকেন, কোন যুক্তিতে এইটুকু পথের জন্য এত ভাড়া হয়।

আবার বাড়তি ভাড়া নেয়া হলেও টিকিট দেয়া হচ্ছে আগের হারের। সেই টিকিটে একটা সিল দেয়া হয়েছে কেবল। এ নিয়ে টিকিট বিক্রেতার মন্তব্য দায়সারা গোছের।

ভাড়ার প্রতারণায় হাতিরঝিলে রাজউকের বাসও
চক্রাকার বাস কাউন্টারের সামনে একটি তালিকা টানানো হয়েছে ভাড়া বাড়ানোর। নিচে লেখা আছে ‘কর্তৃপক্ষ’। তবে এই কর্তৃত্ব কার তা জানা যায়নি, কারণ, কোনো কর্মকর্তার সই নেই।

কখনও চলেনি বিআরটিএর অভিযান

জ্বালানি তেলের দাম লিটারে ১৫ টাকা বাড়ানোর পর গত নভেম্বরে বাস ভাড়া নির্ধারণ করে দেয়ার পর বাড়তি ভাড়া আদায় ঠেকাতে বিআরটিএ রাজধানীতে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে যে অভিযান চালায়, তখন বাদ পড়ে হাতিরঝিলের চক্রাবাস বাস।

এবার যখন বাড়তির ওপর আরও বাড়তি ভাড়া আদায় করা হচ্ছে, তখনও বিআরটিএ এই পথের বিষয়ে মাথা ঘামাচ্ছে না।

গতবার বাসভাড়া নিয়ে নৈরাজ্যের বিষয়ে বিআরটিএ কর্মকর্তাদের ফোন দিলে তারা কথা বলতেন। এবার কোনো ফোনই তারা রিসিভ করছেন না। একবার বিআরটিএ চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ মজুমদার কল রিসিভ করার পর তিনি এসএমএস করতে বলেন। বাসভাড়ায় নৈরাজ্য এবং বিআরটিএর কার্যত ঘুমিয়ে থাকার বিষয়ে প্রশ্ন লিখে পাঠানো হলে তিন দিনেও তার জবাব দেয়ার প্রয়োজন বোধ করেননি তিনি।

সুপারভাইজারের দাবি, এই জগত ভিন্ন

নির্ধারিত হারের দ্বিগুণের বেশি ভাড়া আদায়ের বিষয়ে লাইন সুপারভাইজার শওকত হোসেনের বক্তব্য বিবেচনায় নিলে বলতেই হয়, হাতিরঝিল একটি ভিন্ন জগৎ। এখানে সরকারের করা নিয়মকানুন খাটে না। তারা যা বলবে, সেটিই বিধান।

তিনি বলেন, ‘বাইরের ভাড়ার সঙ্গে এখানের ভাড়া কমপেয়ার করলে হবে না। এই গাড়িগুলো সম্পূর্ণ আলাদা। এটা হাতিরঝিল প্রজেক্টের গাড়ি। এটা টুরিস্ট বাস হিসেবে চলে।’

বাইরের বাসের সঙ্গে এই বাসের সার্ভিসের কী পার্থক্য- জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘হাতিরঝিলে টুরিস্ট বাস হিসেবে বরাদ্দ।’

যাত্রীরা তো দাঁড়িয়ে যায় আপনাদের বাসে। তাহলে বেশি ভাড়া কেন নিচ্ছেন- উত্তরে তিনি বলেন, ‘সরকারের সঙ্গে প্রজেক্ট এইভাবেই চুক্তিবদ্ধ।’

ভাড়ার চার্টে বিআরটিএ বা রাজউকের কোন স্বাক্ষর নাই। কীভাবে বুঝব আপনারা প্রতারণা করছেন না- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘আপনার তো অপশন আছে। আপনি রাজউকের কাছে যান।’

এইচআর ট্রান্সপোর্টের ফিল্ড অফিসার মাসুদ করিমও বলেন, ‘আপনি রাজউকের সঙ্গে যোগাযোগ করেন।’

বিআরটিএ বা রাজউকের সই ছাড়া এই চার্ট কেন ভিত্তিহীন ধরা হবে না- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘রাজউক স্বাক্ষরিত যে চার্ট, সেটা অফিসে আছে।’

তবে রাজউকের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ভাড়া বাড়ানোর বিষয়টি চূড়ান্ত হয়নি। ফলে তারা কোনো নতুন চার্ট তৈরি করে দেননি।

এই বিষয়টি জানালে মাসুদ করিম বলেন, ‘তাহলে আমি জানি না। আপনি রাজউকে যোগাযোগ করেন।’

রাজউকের প্রধান প্রকৌশলী (প্রজেক্ট অ্যান্ড ডিজাইন) এ এস এম রায়হানুল ফেরদৌস নিউজবাংলাকে বলেন, ‘তারা বাড়তি ভাড়ার বিষয়ে রাজউকের কাছে আবেদন করেছে। কিন্তু রাজউক তো অনুমোদন দেয় নাই এখনও।’

রাজউকের অনুমোদন ছাড়া কি বাড়তি ভাড়া নিতে পারে?- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘রাজউক অনুমোদন দেবে না দেবে না, সে জন্য তো তেলের দাম বাড়া বসে থাকে না। আমরা স্বাক্ষর দিয়ে দেব।’

তাহলে আপনাদের কথাতেই তারা ভাড়া বাড়িয়েছে? উত্তরে তিনি বলেন, ‘আমরা বলতে যাব কেন। তারা তাদের হিসেবে বাড়িয়েছে।’

সরকারের নির্ধারিত ভাড়ার দুই গুণের বেশি ভাড়া নিচ্ছে তারা। আপনাদের হিসাব কীভাবে হয়- এমন প্রশ্নে রায়হানুল ফেরদৌস বলেন, ‘এখানে কিলোমিটার ধরে ভাড়া নিচ্ছে না তো। এখানে কিলোমিটারের হিসেব চলে না।’

‘সরকারি প্রতিষ্ঠানে এমন নৈরাজ্য হলে অন্যরা করবেই’

যাত্রী অধিকার নিয়ে সোচ্চার সংগঠন বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মোজাম্মেল হক চৌধুরী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘যখন সরকারের বিধিবদ্ধ প্রতিষ্ঠানে ভাড়ার নৈরাজ্য হয় তখন নগরীর অন্য বাসগুলো আরও সুযোগ নিতে চায়। আমি মনে করি রাজউকের এখানে দায়বদ্ধতা আছে, বিআরটিএ এর দায়বদ্ধতা আছে, ঢাকা সিটি করপোরেশনের দায়বদ্ধতা আছে।’

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Who will return the sumati of Basumati?
বাস ভাড়ায় নৈরাজ্য-৪

বসুমতির সুমতি ফেরাবে কে?

বসুমতির সুমতি ফেরাবে কে?
বসুমতি পরিবহনের ভাড়ার নৈরাজ্য নতুন নয়। গত নভেম্বরে ডিজেলের দাম লিটারে ১৫ টাকা বাড়ানোর পর বাস ভাড়া কিলোমিটার প্রতি ২ টাকা ১৫ পয়সা নির্ধারণের পর বসুমতি এর চেয়ে বেশি হারে ভাড়া নেয়ার ১৬টি ঘটনার প্রমাণ পেয়ে অন্য ২৪টি কোম্পানির মতো এই কোম্পানির রুট পারমিট বাতিলেরও সুপারিশ করে বিআরটিএ। কিন্তু আর বাড়তি ভাড়া আদায় করা হবে না-এই মুচলেকা দেয়ার পর এই চূড়ান্ত ব্যবস্থা আর নেয়া হয়নি। এবার যে ভাড়া ঠিক করা হয়েছে, তা তারা আগেই নিত। এবার বাড়তির ওপর নিচ্ছে আরও বেশি।

মিরপুর-১ নম্বরে বসুমতি পরিবহনের বাসে যাত্রীদের তোলার সময় চালকের সহকারী আগেই বলে নিচ্ছেন, ‘ওই এয়ারপোর্ট ৫০, এয়ারপোর্ট ৫০, এয়ারপোর্ট ৫০।’ যাত্রীরা ভাড়া নিয়ে আপত্তি করলে তিনি তেজ দেখিয়ে বলছেন, ‘উঠলে উঠেন। না হয় নামেন মিয়া।’

কিলোমিটারপ্রতি আড়াই টাকা হারে ভাড়া ঠিক করার পর নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিআরটিএ থেকে যে চার্ট দেয়া হয়েছে, তাতে এই পথের দূরত্ব দেখানো হয়েছে ১৬ কিলোমিটার। এই পথে ভাড়া হয় ৪০ টাকা, যা আদায় করা হতো আগে থেকেই। এখন বাড়তি আরও ১০ টাকা নেয়া হচ্ছে। অর্থাৎ এই পথের কিলোমিটার প্রতি ভাড়া আসে ৩ টাকা ১৬ পয়সা।

মিরপুর-১ থেকে কিলোমিটার চারেক দূরত্ব পেরিয়ে মিরপুর সাড়ে ১১ থেকে বিমানবন্দর পর্যন্ত ১২ কিলোমিটারের জন্যও ভাড়া সেই ৫০ টাকাই ভাড়া আদায় হচ্ছে। এই হিসাবে এই পথের জন্য ভাড়া হচ্ছে ৪ টাকা ১৬ পয়সা হারে।

বসুমতি পরিবহনের ভাড়ার নৈরাজ্য নতুন নয়। গত নভেম্বরে ডিজেলের দাম লিটারে ১৫ টাকা বাড়ানোর পর বাস ভাড়া কিলোমিটারপ্রতি ২ টাকা ১৫ পয়সা নির্ধারণের পর বসুমতি এর চেয়ে বেশি হারে ভাড়া নেয়ার ১৬টি ঘটনার প্রমাণ পেয়ে অন্য ২৪টি কোম্পানির মতো এই কোম্পানির রুট পারমিট বাতিলেরও সুপারিশ করে বিআরটিএ। কিন্তু আর বাড়তি ভাড়া আদায় করা হবে না- এই মুচলেকা দেয়ার পর এই চূড়ান্ত ব্যবস্থা আর নেয়া হয়নি।

গত নভেম্বরের পর বাস ভাড়া বেশি নেয়ার বিষয়ে ফোন করলে বিআরটিএর কর্মকর্তারা গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে কথা বলতেন। কিন্তু এবার ফোনের পর ফোন করেও তাদের নাগাল পাওয়া যাচ্ছে না।

বাস ভাড়ার নৈরাজ্য এতটাই বেড়েছে যে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী পর্ষদ সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজী জাফরউল্লাহ একটি বাসে চেপে পরিস্থিতি দেখতে বের হন।

তিনি মিরপুর-১১-এর পূরবী সিনেমা হল থেকে বনানীর কাকলী পর্যন্ত গিয়ে ভাড়া দিতে বাধ্য হয়েছেন ৩০ টাকা। কিন্তু এই পথের সরকার নির্ধারিত ভাড়া হয় ১৭ টাকা।

বাড়তি ১৩ টাকা দেয়ার পর তার উপলব্ধি হচ্ছে সাধারণ মানুষের খুব কষ্ট হচ্ছে। এরপর তিনি সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেছেন।

মন্ত্রী মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলন করে পরিবহন মালিকদের সুমতির ওপর ভরসা করার কথা জানিয়েছেন। বলেছেন, তিনি আশা করেন, সরকারের সঙ্গে বৈঠকে যে কথা তারা দিয়েছেন, সেটি মেনে চলবেন। নইলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি।

এমন হুঁশিয়ারি মন্ত্রী গত নভেম্বরেও অবশ্য দিয়েছেন। কিন্তু বাসযাত্রীর নিত্য ঠকে যাওয়ার পেছনে প্রধান কারণ ওয়েবিল বন্ধে কোনো পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। বিআরটিএ চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ মজুমদার জানেনই না যে ওয়েবিল এখনও আছে।

এবার বাস ভাড়া বাড়ানোর বিষয়ে গণমাধ্যমের সামনে ঘোষণার পর সাংবাদিকরা যখন তার কাছে বিষয়টি নিয়ে জানতে চান, তখন তিনি বলেন, তাদের ম্যাজিস্ট্রেটরা মাঠে আছেন, তারা যদি অভিযোগ পান, ব্যবস্থা নেবেন।

বসুমতির সুমতি ফেরাবে কে?

ওয়েবিলের নামে কত টাকা বেশি নেয় বসুমতি

জ্বালানি তেলের দাম এবার লিটারে ৩৪ টাকা বাড়ানোর পরও দেখা যাচ্ছে বসুমতির সুমতি আসলে ফেরেনি। বরং বর্তমানে নির্ধারণ করে দেয়া হারের চেয়ে বেশি হারে তারা আগেই আদায় করত। এবার তা আরও বেড়েছে।

কালশী মোড় থেকে কেউ উঠলে তাকে কমপক্ষে বিমানবন্দর সড়কের জোয়ারসাহারা পর্যন্ত ভাড়া দিতে হবে। এই পথের দূরত্ব ৬ দশমিক ২০ কিলোমিটার। ভাড়া হয় ১৫ টাকা ৭৫ পয়সা, কিন্তু আদায় করা হচ্ছে ২৫ টাকা। কিলোমিটারপ্রতি ভাড়া হয় ৪ টাকার বেশি।

এই রুটের যাত্রীরা অভিযোগ করে বলছেন, আগেও বসুমতি বেশি ভাড়া নিত। এখনও বেশি ভাড়া নেয়।

যাত্রীদের একজন মো. সুমন জানান, আনসার ক্যাম্প থেকে পল্লবী পর্যন্ত তার কাছ থেকে ভাড়া নিয়েছে ২০ টাকা।

এই পথের দূরত্ব হয় ৫.৯ কিলোমিটার। এই হিসেবে ভাড়া আসে ১৪ টাকা ৭৫ পয়সা। অর্থাৎ এখানে প্রতি কিলোমিটারের জন্য আদায় করা হচ্ছে ৩ টাকা ৩৯ পয়সা।

আরেক যাত্রী ফয়েজ আহমেদ জানান, ‘মিরপুর ১২ নম্বর থেকে মিরপুর-১ নম্বরের ভাড়া ১০ টাকা। ওরা ১৫ থেকে ২০ টাকা নেয়। যার কাছ থেকে যা নিতে পারে। সব স্পটেই ভাড়া বেশি নেয় বসুমতি।’

‘আমারে না কইয়া কোম্পানির লোকেরে ধরেন’

চার্টে ৪০ টাকা উল্লেখ থাকলেও মিরপুর-১ থেকে বিমানবন্দর পর্যন্ত ৫০ টাকা নেয়ার কারণ জানতে চাইলে বসুমতির একটি বাসে ভাড়া কাটার দায়িত্বে থাকা মো. রাসেল নিউজবাংলাকে বলেন, ‘চার্ডে ৪০ টাকা। কোম্পানির হিসাবে ৫০। এহন ১০ ট্যাকা আমি কইততে দিব? আমারে না কইয়া কোম্পানির লোকেরে ধরেন। কোম্পানি ওয়েবিলে ভাড়া নেয়। আর যাত্রীরা চার্ড ধইরা ভাড়া দিলে আমরা তো বিপদে পইড়া যামু।’

একই কোম্পানির অন্য একটি বাসের ভাড়া কাটার দায়িত্বে থাকা মো. সুমনের বক্তব্যও একই রকম। তিনি বললেন, ‘কোম্পানি যেইডা কইছে, আমরা তাই করছি। আমাগো কিছু করার আছে?’

অন্য একটি বাসের ভাড়া কাটার দায়িত্বে থাকা যুবক নিজের নাম আকাশ উল্লেখ করে বলেন, ‘আগেই মিরপুর একেত্তে এয়ারপোর্ডের ভাড়া ৪০ ট্যাকা আছিল।’

৪০ টাকা তো বাড়তি ছিল- এই মন্তব্যের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমরা এক ট্যাকাও বেশি নেই না। কোম্পানি যে ভাড়া ঠিক কইরা দিছে, সেইটাই নেই।

‘মিরপুর একেত্তে এয়ারপোর্ড তিনডা চেক পড়ে। এক চেকের ভাড়া ২৫, আরেকটার ১৫ টাকা একটার ১০ ট্যাকা। তিন মিইল্যা ৫০ টাকা।’

কিলোমিটার হিসেবে ভাড়া না নিয়ে চেকের হিসাব দেয়ার কারণ কী- এমন প্রশ্নেও সেই আগের জবাব, ‘কোম্পানিরে জিজ্ঞাস করেন।’

দায় চালক-সহকারীর: কোম্পানি কর্মকর্তা

শ্রমিকরা কোম্পানির দিকে আঙুল তুললেও একজন কর্মকর্তা দাবি করেছেন, তারা নির্ধারিত ভাড়া আদায় করতে বলেছেন। বাড়তি আদায় করছেন শ্রমিকরা। তারা নিজেরাও কয়েকটি অভিযোগ পেয়েছেন।

মিরপুর-১ থেকে বিমানবন্দর পর্যন্ত ১০ টাকা বেশি নেয়ার কথা বিষয়টি জানালে বসুমতির গাজীপুর রেঞ্জের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. দুলাল নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ড্রাইভার-স্টাফরা তাহলে এগুলো করতেছে। আজকে আমিও কিছু অভিযোগ পেয়েছি। গাবতলী থেকে গাজীপুরের ৮৫ টাকার ভাড়া ৯০ টাকা নিচ্ছে। কালশী থেকে ৭৫ টাকার ভাড়া ৮০ টাকা নিচ্ছে। আমি কয়েকটা গাড়িকে খুঁজে পেয়েছি। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থাও নিয়েছি। তারা যে এয়ারপোর্ট পর্যন্ত ৫০ টাকা বলে ডেকে ডেকে যাত্রী তুলেছে এটা সম্পূর্ণ অনৈতিক।’

কিলোমিটারের হিসাবের বদলে অবৈধ ওয়েবিলে যাত্রী তোলার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘মালিকের হিসাব রাখার কারণে ওয়েবিল চালু আছে।’

আরও পড়ুন:
বাস ভাড়ার প্রতারণা কাদেরকে জানালেন জাফরউল্লাহ
বিআরটিএ ঘুমিয়ে, ফায়দা নিয়েই যাচ্ছে রাইদা
স্বাধীন পরিবহন ভাড়া কাটে ‘স্বাধীনভাবে’
কার কাছে বিচার দেবেন বাসযাত্রীরা

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
So much interest in the debt scandal shares of the company

ঋণ কেলেঙ্কারিতে ডোবা কোম্পানির শেয়ারে এত আগ্রহ!

ঋণ কেলেঙ্কারিতে ডোবা কোম্পানির শেয়ারে এত আগ্রহ! ঋণ কেলেঙ্কারিতে ডুবে যাওয়া আর্থিক প্রতিষ্ঠানের শেয়ার এখন ছুটছে পাগলা ঘোড়ার মতো।
পুঁজিবাজার বিশ্লেষকরা বলছেন, এসব কোম্পানির দর বাড়ার পেছনে কোনো যৌক্তিক কারণ খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। এগুলোর দর বাড়ে জুয়াড়িদের কারণে। আর গুজবে কান দিয়ে কিছুটা দাম বাড়ান সাধারণ বিনিয়োগকারী।

ঋণ কেলেঙ্কারিতে ডুবে যাওয়া আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিআইএফসি ২০১৭ সালে ১০ টাকার শেয়ারপ্রতি ৬৯ টাকা ৫৫ পয়সা লোকসান দেয়ার পর বিনিয়োগকারীরা শেয়ার বিক্রি করে দিতে পারলেই বাঁচে। একপর্যায়ে দর নেমে আসে দুই টাকার ঘরে। সেই কোম্পানির শেয়ার এখন ছুটছে পাগলা ঘোড়ার মতো।

ওই বছর শেষে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি কোনো সম্পদ ছিলই না, ছিল ৬৬ টাকা ৪০ পয়সার দায়।

গত ১৪ জুলাই কোম্পানির শেয়ারদর ছিল ৬ টাকা ২০ পয়সা। সেদিন ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের সার্বিক সূচক ডিএসইএক্সের অবস্থান ছিল ৬ হাজার ৩২৪ পয়েন্ট। সেখান থেকে ধস নেমে ফ্লোর প্রাইস ঘোষণার দিন ২৮ জুলাই সূচকের অবস্থান নামে ৫ হাজার ৯৮০ পয়েন্ট। অর্থাৎ ১০ কর্মদিবসে কমে ৩৪৪ পয়েন্ট বা ৫ দশমিক ৪৩ পয়েন্ট।

তবে বাজারের গতির বিপরীতে গিয়ে এই সময়ে বিআইএফসির শেয়ারদর এই সময়ে বাড়ে ৫১ শতাংশের বেশি। সেদিন শেয়ারদর দাঁড়ায় ৯ টাকা ৪০ পয়সা। ১০ দিনে বাড়ে ৩ টাকা ২০ পয়সা।

ফ্লোর প্রাইস দেয়ার পাশাপাশি ব্যাংকের এক্সপোজার লিমিট ক্রয়মূল্যে গণনার বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্কুলার আসার পর পাঁচ দিনে ৩৩১ পয়েন্ট সূচক বাড়ার পর বিআইএফসির শেয়ারদর বাড়ে আরও বেশি।

একপর্যায়ে তা ১৩ টাকা ৬০ পয়সায় উঠে যায়। অবশ্য এখন সেখান থেকে কিছুটা কমে ১২ টাকা ২০ পয়সায় নেমেছে।
২০১৭ সালের হিসাব দেয়ার পর বিআইএফসি ২০১৯ সালের আর্থিক হিসাব প্রকাশ করেছে। এই বছরে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে ১২ টাকা ২০ পয়সা।

২০১৭ সালের তুলনায় লোকসান কমলেও শেয়ারপ্রতি দায়ের দিক থেকে আরও অবনতি হয়েছে। ২০১৯ সাল শেষে শেয়ারপ্রতি দায় দাঁড়ায় ৯৪ টাকা ২৭ পয়সায়।

এমন একটি কোম্পানির শেয়ারদর ১৮ কর্মদিবসে শতভাগের বেশি বেড়ে যাওয়া কোনো স্বাভাবিকতার মধ্যে পড়ে না- এটা বলাই যায়।
বিস্ময়ের বিষয় হচ্ছে, বিআইএফসির মতো ঋণ কেলেঙ্কারিতে ডুবে যাওয়া আর্থিক প্রতিষ্ঠানের প্রায় সব শেয়ারদরই একইভাবে ঊর্ধ্বগামী।

সুনির্দিষ্ট কারণ ছাড়াই বাড়ছে ইন্টার‌ন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স, ফারইস্ট ফাইন্যান্স, ফার্স্ট ফাইন্যান্স, ফাস ফাইন্যান্স, প্রিমিয়ার লিজিং ইউনিয়ন ক্যাপিটালের দর।

ঋণ কেলেঙ্কারিতে ডুবে যাওয়া এসব কোম্পানির শেয়ারদর অস্বাভাবিকভাবে বাড়লেও দেশসেরা কোম্পানিগুলোর শেয়ারদর বাড়েনি সে রকম।

পুঁজিবাজার বিশ্লেষকরা বলছেন, এসব কোম্পানির দর বাড়ার পেছনে কোনো যৌক্তিক কারণ খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। এগুলোর দর বাড়ে জুয়াড়িদের কারণে। আর গুজবে কান দিয়ে কিছুটা দাম বাড়ায় সাধারণ বিনিয়োগকারী।

ইন্টার‌ন্যাশনাল লিজিং

২০১৯ সালে কোম্পানিটি ১০ টাকার শেয়ারের বিপরীতে লোকসান দিয়েছে ১২৬ টাকা ৩৬ পয়সা। পরের বছর লোকসান দাঁড়ায় ৩১ টাকা ৩০ পয়সা। ২০২১ সালের আর্থিক হিসাব এখনও প্রকাশ হয়নি। সম্প্রতি প্রকাশ পাওয়া ওই বছরের তৃতীয় প্রান্তিকের হিসাব শেষে জানানো হয়, তিন প্রান্তিক মিলে শেয়ারপ্রতি লোকসান ৭ টাকা ৭১ পয়সা। আর শেয়ারপ্রতি দায় ১৫২ টাকা ৬৪ পয়সা।

গত ২০ জুলাই কোম্পানিটির শেয়ারদর ছিল ৫ টাকা। গত দুই কর্মদিবস কিছুটা কমার পরও এখন ৬ টাকা ৭০ পয়সা। বেড়েছে ১ টাকা ৭০ পয়সা বা ৩৪ শতাংশ। দুই দিন আগে তা ছিল আরও বেশি, ৭ টাকা ১০ পয়সা।

গত বছর কোম্পানিটির সাবেক এমডি পিকে হালদারের যোগসাজশে ১ হাজার ১০০ কোটি টাকা আত্মসাতের ঘটনায় আলোচনায় আসে প্রতিষ্ঠানটি।

ইউনিয়ন ক্যাপিটাল

২০১৮ সালে শেয়ারপ্রতি ৫৬ পয়সা লাভের পর ২০১৯ সালে ৬ টাকা ১৩ পয়সা লোকসান হয়। ২০২০ সালে ৩ টাকা ৮ পয়সা এবং ২০২১ সালে সর্বশেষ ৮ টাকা ৩ পয়সা লোকসান গুনেছে কোম্পানিটি।

গত ২ নভেম্বর বিভিন্ন অনিয়মের কারণে এক কোটি টাকার বেশি ঋণ প্রদানে নিষেধাজ্ঞা দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। এর কারণ হিসেবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক জানায়, আমানতকারীদের অর্থ ফেরত দিতে পারছে না ইউনিয়ন ক্যাপিটাল লিমিটেড।

স্বার্থসংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের ঋণের অর্থ আদায় না করেই অবলোপন বা রাইট অফ করছে। এভাবে নানা অনিয়মের মাধ্যমে সম্পদ শেষ করে দায় পরিশোধের সক্ষমতা হারাচ্ছে আর্থিক খাতের প্রতিষ্ঠানটি। শত কোটি টাকা আটকে রেখে ঋণ দিয়ে যাচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি।

গত ২০ জুলাই এই কোম্পানিটির শেয়ারদর ছিল ৬ টাকা ৯০ পয়সা। এক পর্যায়ে গত রোববার উঠে যায় ৯ টাকা ৪০ পয়সায়। পরদিন কিছুটা কমে দাঁড়িয়েছে ৯ টাকায়। এই কয়দিনে বেড়েছে ২ টাকা ১০ পয়সা বা ৩০ দশমিক ৪৩ শতাংশ।

এই কোম্পানির শেয়ারদরে অস্বাভাবিকতা আগেও দেখা গেছে। ২০২১ সালের ৫ সেপ্টেম্বর এর শেয়ারদর ১৫ টাকা ৫০ পয়সায় উঠে গিয়েছিল। পরে আবার ৬ টাকা ৬০ পয়সায় নেমেও যায়।

ফাস ফাইন্যান্স

পি কে হালদারের ঋণে কেলেঙ্কারিতে ডুবে যাওয়া কোম্পানি এটিও।

২০২০ সালে শেয়ারপ্রতি ১৪ টাকা ৬১ পয়সা লোকসান দেয়া কোম্পানিটি পরের বছরের আর্থিক প্রতিবেদন এখনও প্রকাশ করেনি। ওই বছরের তৃতীয় প্রান্তিক পর্যন্ত আয় ব্যয়ের হিসাব প্রকাশ হয়েছে প্রায় এক বছর পর।

২০২১ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত প্রকাশিত ওই প্রতিবেদন অনুযায়ী ওই বছরের তিন প্রান্তিকে ফাস ফাইন্যান্সের শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ৭ টাকা ২০ পয়সা। এর এই সময় পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি দায় আছে ২০ টাকা ৫৯ পয়সা।

গত ১৯ জুলাই এই কোম্পানির শেয়ারদর ছিল ৪ টাকা ৯০ পয়সা। বর্তমান দর ৬ টাকা ৩০ পয়সা। বেড়েছে ১ টাকা ৪০ পয়সা বা ২৮ দশমিক ৬০ শতাংশ।

তবে দর আরও বেড়ে হয়েছিল ৬ টাকা ৭০ পয়সা।

গত বছর সেপ্টেম্বরেও কোম্পানিটির শেয়ারদর অস্বাভাবিকবাবে বাড়তে দেখা যায়। নানা গুজব-গুঞ্জনে এক পর্যায়ে তা ১১ টাকা ৭০ পয়সায় উঠে যায়।

ফারইস্ট ফাইন্যান্স

এই কোম্পানিটি চলতি অর্থবছরের কোনো প্রান্তিকের হিসাব প্রকাশ করেনি এখনও। ২০২১ সালের চূড়ান্ত হিসাবও দেয়নি। ওই বছরের ১ নভেম্বর প্রকাশ করে সেপ্টেম্বর পর‌্যন্ত তৃতীয় প্রান্তিক পর্যন্ত হিসাব দিয়েছে।

এতে দেখা যায় গত বছরের জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ১ টাকা ৭০ পয়সা। শেয়ার প্রতি সম্পদমূল্য কেবল ১ টাকা ১৫ পয়সার।

গত ১৯ জুলাই কোম্পানিটির শেয়ারদর ছিল ৫ টাকা ২০ পয়সা। বর্তমান দর ৬ টাকা ৩০ পয়সা। বেড়েছে ১ টাকা ১০ পয়সা বা ২১ দশমিক ১৫ শতাংশ।

তবে দর বেড়েছিল আরও বেশি, ৬ টাকা ৮০ পয়সা পর্যন্ত।

গত বছরের মাঝামাঝি থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্তও কোম্পাটির দর অস্বাভাবিকহারে বাড়তে দেখা যায়। সে সময় দর উঠে ১০ টাকা ৭০ পয়সা পর্যন্ত। গত ২২ মে নেমে আসে ৪ টাকা ৭০ পয়সায়।

ফার্স্ট ফাইন্যান্স লিমিটেড

২০২১ সালের আর্থিক হিসাব ও চলতি অর্থবছরের দুই প্রান্তিকের হিসাব একসঙ্গে প্রকাশ করেছে কোম্পানিটি। এতে দেখা যায় গত ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত অর্থবছরের এর শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে ১৮ টাকা ৪৭ পয়সা। আর গত জুন শেষে দুই প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ৪ টাকা ১২ পয়সা।

কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি কোনো সম্পদ নেই, উল্টো দায় আছে ১৮ টাকা ৪৪ পয়সার।

এই কোম্পানির শেয়ারদর গত ২০ জুলাই ছিল ৫ টাকা। বর্তমান দর ৬ টাকা। অর্থাৎ এক মাসেরও কম সময়ে বেড়েছে এক টাকা বা ২০ শতাংশ।

গত বছরের সেপ্টেম্বরেও একবার শেয়ারদর অস্বাভাবিক হারে বাড়তে থাকে। এক পর্যায়ে তা উঠে যায় ৯ টাকা ৯০ পয়সায়।

প্রিমিয়ার লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স

এই কোম্পানিটি ২০২০ সালে শেয়ার প্রতি ৯৩ টাকা লোকসান দেয়ার পর ২০২১ সালের আর্থিক হিসাব এখনও প্রকাশ করেনি।

গত বছরের ২৩ ডিসেম্বর প্রকাশিত তৃতীয় প্রান্তিকের হিসাব অনুযায়ী কোম্পানিটি ওই বছরের জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত শেয়ার প্রতি ৬ টাকা ৩৩ পয়সা লোকসান দিয়েছে। তখন প্রতি শেয়ারের বিপরীতে সম্পদ ছিল ৯ টাকা ৮১ পয়সার।

গত ১৯ জুলাই এই কোম্পানির শেয়ারদর ছিল ৬ টাকা ৪০ পয়সা। বর্তমান দর ৭ টাকা ৭০ পয়সা। এই কয়দিনে বেড়েছে ১ টাকা ২০ পয়সা বা ১৮ দশমিক ৭৫ শতাংশ।

সোমবার দর ৮ টাকা ১০ পয়সাতেও উঠেছিল, পরে সেখান থেকে কমে ৪০ পয়সা।

এই কোম্পানির দর বাড়া শুরু হয় গত ২২ মে। সেদিন হাতবদল হয় ৬ টাকা ১০ পয়সা দরে।

গত বছরের এপ্রিল থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত পাঁচ মাসে এই কোম্পানিটির শেয়ারদরে এবারের চেয়ে বেশি উল্লম্ফন দেখা যায়। সে সময় দর ৫ টাকা ৪০ পয়সা থেকে বেড়ে হয়ে যায় ১৪ টাকা ৬০ পয়সায়। সেখান থেকে পরে নেমে আসে ৬ টাকায়।

‘এর কারণ জুয়া’

যেসব কোম্পানির অদূর ভবিষ্যতে মুনাফায় ফেরা বা লভ্যাংশ দেয়ার ন্যূনতম সম্ভাবনা নেই, সেসব কোম্পানির শেয়ারদরে এভাবে লাফ দেয়ার পেছনে জুয়াড়িয়াদের প্রত্যক্ষ হাত রয়েছে বলে মনে করেন পুঁজিবাজার বিশ্লেষক আবু আহমেদ।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত এই অধ্যাপক বলেন, ‘এসব কোম্পানি তো আর রাতারাতি ভালো হয়ে যায় না। কিন্তু তারপরও এগুলোর দাম বাড়ে, এর কারণ হলো জুয়া খেলা। জুয়াড়িরা এসব শেয়ারের দাম টেনে তোলে। আর গুজবে কান দিয়ে অনেকেই এই শেয়ার কেনেন।’

তিনি বলেন, ‘দেশে যদি ২০ লাখ বিনিয়োগকারী থাকেন, এর মধ্যে ৫০ থেকে ৭০ হাজার হবে যারা প্রকৃত বিনিয়োগকারী। তারা দীর্ঘমেয়াদে বিনিয়োগ করেন। বাকিরা ওমুক ভাই, তমুক ভাইকে ফলো করে শেয়ার কেনেন।

‘এসব গুজব এবং জুয়াড়িদের সঙ্গে তাল মিলিয়ে হয়তো তিন বারের মধ্যে একবার উইন করেছে, তাই বেশি টাকা বানানোর আশায় সেই পথই বারবার অনুসরণ করে। এতে জুয়াড়িরা লাভবান হয়, কিন্তু তারা কোনো আয় করতে পারেন না।’

আরও পড়ুন:
বিনিয়োগে যাচ্ছে স্টক ডিলাররা
ফ্লোর প্রাইসে প্রথম ‘বড় পতন’
তেলের মূল্যবৃদ্ধির চাপ সামলে নিল পুঁজিবাজার

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Big losses due to lack of small notes

ছোট নোটের অভাবে বড় ক্ষতি

ছোট নোটের অভাবে বড় ক্ষতি এক ও ২ টাকার নোটের অভাবে এখন কার্যত নোটের সবচেয়ে ছোট একক হয়ে গেছে ৫ টাকা। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
প্রতিদিন রিকশা বা বাসের ভাড়া, বিস্কুট, চানাচুর বা চিপসের মতো ছোটোখাটো কেনাকাটা, সবজি বা মাছ বা দুধ বা অন্য কোনো নিত্যপণ্য কেনার ক্ষেত্রে এভাবে কত এক বা দুই টাকা চলে যাচ্ছে, দিন শেষে বা মাস শেষে অঙ্কটা কত বড়, সেই হিসাব কষারও সুযোগ নেই। তবে ছোট ছোট অঙ্কগুলো জীবনে বড় চাপ ফেলছে এটা নিশ্চিতভাবেই বলা যায়।

১০ টাকায় যে বিস্কুটের প্যাকেট পাওয়া যেত, সেটির দাম এখন ১৫। বেড়েছে ৫০ শতাংশ। কিন্তু উপকরণের মূল্য আর বাজারজাতকরণের খরচ কি ৫০ শতাংশ বেড়েছে?

তাহলে ৫ টাকা বা ৫০ শতাংশ কেন বাড়ল দাম?

কোমলপানীয়র সবচেয়ে ছোট বোতলের দামও ২০ টাকার জায়গায় হয়েছে ২৫ টাকা। এখানেও বেড়েছে ৫ টাকা।

দুই ক্ষেত্রেই পাঁচ টাকা বাড়ার পেছনে একই কারণ থাকতে পারে, সেটি হলো এক ও ২ টাকার নোটের অভাবে এখন কার্যত নোটের সবচেয়ে ছোট একক হয়ে গেছে ৫ টাকা।

বাংলাদেশে ব্যাংক নোটের সবচেয়ে ক্ষুদ্র একক এক টাকা ও দুই টাকার নোটের অভাবের কারণে দেশবাসী কী পরিমাণ ঠকল সেটির একটি উদাহরণ হতে পারে বাস ভাড়া। কিলোমিটার হিসেবে ভাড়ার এখন হিসাব নেই। ভাড়ার হিসাব কমপক্ষে ৫ টাকা দিয়ে হয়।

ছোট নোটের অভাবে বড় ক্ষতি
১১ টাকা বা ১২ টাকা বা ১৭ টাকা বা ২১ টাকার হিসাব নেই। গুনতে হয় ১৫ না হয় ২০ না হয় ২৫ না হয় ৩০ টাকা-এভাবে। ছবি: নিউজবাংলা

অর্থাৎ ১০ টাকা থেকে বেড়ে ভাড়া ১২ টাকা হয় না, হয়েছে ১৫ টাকা। ১৭ টাকা না হয়ে হয়েছে ২০ টাকা।

কাঁচাবাজারের চিত্রটাও একই রকম। ১১ টাকা বা ১২ টাকা বা ১৭ টাকা বা ২১ টাকার হিসাব নেই। গুনতে হয় ১৫ না হয় ২০ না হয় ২৫ না হয় ৩০ টাকা-এভাবে।

এককালে রিকশা ভাড়াও ৮ টাকা বা ৯ টাকা বা ১০ টাকা বা ১১ টাকা বা এভাবে নির্ধারণ হতো। সেখানেও এখন ১৫ বা ২০-এভাবে ঠিক হয়।

প্রতিদিন রিকশা বা বাসের ভাড়া, বিস্কুট, চানাচুর বা চিপসের মতো ছোটখাট কেনাকাটা, সবজি বা মাছ বা দুধ বা অন্য কোনো নিত্যপণ্য কেনার ক্ষেত্রে এভাবে কত এক বা দুই টাকা চলে যাচ্ছে, দিন শেষে বা মাস শেষে অঙ্কটা কত বড়, সেই হিসাব কষারও সুযোগ নেই। তবে ছোট ছোট অঙ্কগুলো জীবনে বড় চাপ ফেলছে এটা নিশ্চিতভাবেই বলা যায়।

ছোট নোটের অভাবে বড় ক্ষতি

দিন শেষে এই এক দুই টাকা করে অঙ্কটা যদি ২০ টাকা হয়, তাহলে মাসে বাড়তি বেরিয়ে যাচ্ছে ৬০০ টাকা। পরিবারের একাধিক সদস্যের যদি এই ক্ষতি হয়, তাহলে অঙ্কটা আরও বড় হয়।

মধুবাগ থেকে লেগুনা করে মগবাজার ওয়্যারলেস স্টপেজে নামেন আমেনা খাতুন। ভাড়া ৮ টাকা। ১০ টাকা দিতেই ভাংতি নেই বলে জানান হেলপার। দাবি করেও লাভ হয়নি। টেম্পু ছেড়ে চলে যায়।

লেগুনার অন্য যাত্রীদের ক্ষেত্রেও একই অবস্থা। ১০ টাকা দেয়ার পর ২ টাকা ফেরত পাচ্ছেন না। দুই টাকার নোট এবং কয়েন সংকটে টেম্পু যাত্রী এবং হেলপারের মধ্যে কথা কাটাকাটি যেন নিত্য ব্যাপার হয়ে গেছে।

শেওড়াপাড়া কাঁচাবাজার থেকে সবজি কেনার পর দোকানি পাবেন ১৮৪ টাকা। রেহানা বেগম ২০০ টাকার নোট দেয়ার পর দোকানি তাকে ফেরত দেন ১৪ টাকা। বাকি দুই টাকা খুচরা নেই বলে জানান তিনি।

ছোট নোটের অভাবে বড় ক্ষতি

শুরু হয় বাকবিতণ্ডা। রেহানা বলেন, প্রায় প্রতিদিন যাতায়াতে এ সমস্যা দেখা দিয়েছে। বাসায় অন্যদেরও ক্ষেত্রেও এমন সমস্যা হচ্ছে। হিসেব করে তিনি বলেন, ‘খুচরার অভাবে প্রতিদিন যদি ১০ টাকা এভাবে চলে যায় তাহলে মাসে প্রায় ৩০০ টাকা।’

একই চিত্র মুদিখানার দোকানেও। সব কেনাকাটার পর দোকানি রফিকুল ইসলামকে জানায়, ‘বিল ২২৪ টাকা। দোকানিকে ২২৫ টাকা দেয়া হলে এক টাকা ফেরত দেয়ার বদলে অনেক ক্ষেত্রে ধরিয়ে দেয়া হয় চকলেট। কেউ আবার বলে, ভাংতি নাই। তখন চলে আসতে হয়।’

ছোট নোটের অভাবের কারণ, ব্যাংকগুলো থেকে পর্যাপ্ত পরিমাণ সরবরাহ করা হচ্ছে না। অনেক ব্যাংকও ছোট নোটের চাহিদা না দেয়ায় সংকট বাড়ছে।

প্রতিদিন চলছে বিতণ্ডা

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ যে ভাড়া নির্ধারণ করেছে, তাতে ভাংতি টাকার প্রয়োজনীয়তা বেড়েছে। বিশেষ করে ১, ২ ও ৫ টাকার প্রয়োজন বেশি।

৬ কিলোমিটারের বাস ভাড়া হওয়ার কথা ১২ টাকা। ছোট নোটের চল থাকলে নেয়া হতে পারত ১২ টাকা। কিন্তু দিতে হচ্ছে ১৫ টাকা। আবার কখনও কখনও ৫ টাকার নোট না থাকার কথা জানিয়ে আরও বেশি আদায় হচ্ছে।

মিরপুরের শেওড়াপাড়ায় শিকড় বাসের যাত্রী শিপন আলী বলেন, ‘দুই-এক টাকা করে বাড়তি দিতে হচ্ছে। ভাংতি না থাকার অজুহাতে বেশি টাকা নিয়ে নিচ্ছে বাসওয়ালা।’

আলিফ বাসের যাত্রী রোকেয়া বলেন, ‘এক টাকার কয়েন ছিল এতদিন, কিন্তু এখন তাও পাওয়া যায় না। দুই টাকার নোট খুবই নোংরা।’

বাসের কন্ডাক্টররা বলেন, ‘খুচরা নোট কোথাও পাওয়া যায় না। ভাড়া দিতে ১ টাকা এবং ২ টাকার নোট বেশি দামে কিনে আনতে হয়। তাও পাওয়া যায় না। সরকারও নোট ছাড়ে না। আমরা না পাইলে কেমনে দিমু?দৈনিক এ নিয়ে ক্যাচাল হয়।’

শেওড়াপাড়া বাজার করতে আসা সুমনা ইয়ামমিন বলেন, ‘প্রতিদিন বিভিন্ন জিনিসপত্রের দাম বাড়ছে। যেভাবে নির্ধারণ করা হয়েছে, তাতে ১ ও ২ টাকার নোট দরকার। কিন্তু এই নোটগুলো পাওয়া যায় না। দোকানিরাও দিতে পারে না।’

সাধারণের মানুষের অভিযোগ, ৫ টাকার নোটও এখন বিরল হয়ে গেছে। যাও পাওয়া যায়, তাও জরাজীর্ণ। কয়েন কিছু পাওয়া যায়, কিন্তু তা পকেটে রাখা কঠিন।

তারা বলছেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের উচিত বাজারে ১ টাকার কাগুজে নোটের সরবরাহ বাড়ানো। এতে বিক্রেতারাও অজুহাত দিতে পারবে না, আবার ক্রেতারাও ঠকবে না।

কেন নেই খুচরা নোট

কয়েন সংকটের পেছনে ব্যাংকের গাফিলতিকেই দায়ী করছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। বারবার বলেও ব্যাংকগুলোকে এ কাজে উৎসাহিত করতে পারছে না নিয়ন্ত্রক এই সংস্থা।

দেশ স্বাধীন হওয়ার পর ১৯৭২ সালের ৪ মার্চ বাংলাদেশে প্রথম ১ টাকার কাগুজে মুদ্রার প্রচলন হয়। আর ১৯৭৯ সালের ৩ সেপ্টেম্বর সবশেষ ১ টাকার নতুন নোট ছাড়া হয়েছিল। বর্তমানে ১ টাকার যে নোটটি বাজারে পাওয়া যায়, সেটি হলো ১৯৭৯ সালের ছাড়া নোট। এর পাশাপাশি রয়েছে ১ টাকার ধাতব মুদ্রা।

১৯৮৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর বাজারে আসে ২ টাকার নোট। এরপর আরও কয়েক দফা বিভিন্ন ডিজাইনের ২ টাকার নোট বাজারে আনা হয়। সবশেষ ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে ১২ তারিখ নতুন ডিজাইনের ২ টাকার নোট বাজার আসে, যেটি এখনও বিদ্যমান। এর পাশাপাশি রয়েছে ২ টাকার ধাতব মুদ্রা।

১৯৭২ সালের ২ জুন বাজারে প্রথম ৫ টাকার কাগুজে মুদ্রা ছাড়া হয়। এরপর বেশ কয়েকবার এ নোটের ডিজাইন পরিবর্তন হয়। ২০১৮ সালের ১২ ডিসেম্বর সবশেষ নতুন ডিজাইনের ৫ টাকার নোট বাজারে ছাড়া হয়। এখন সেই নোট বাজারে চলমান।

১৯৯৫ সালের ১০ অক্টোবর বাজারে আসে ৫ টাকার ধাতব মুদ্রা। ২০১০ সালের ১২ অক্টোবর বাজারে আসে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি সম্বলিত ৫ টাকার মুদ্রা। বর্তমানে ১ টাকা, ২ টাকা ও ৫ টাকা সরকারি মুদ্রা। বাকিগুলো বাংলাদেশ ব্যাংকের নোট বা মুদ্রা।

সংকট নেই, বলছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘টাকা ছাপানোর আগে কী পরিমাণ টাকার দরকার হবে সেটা আগে পর্যালোচনা করা হয়। হঠাৎ করে ছাপানো হয় না। কারণ, টাকা ছাপানোর একটি প্রক্রিয়া আছে। সেভাবেই ছাপানো হয়। পরে বাজারের চাহিদার ভিত্তিতে তা বাজারে ছাড়া হয়।’

তবে বাংলাদেশ ব্যাংকের এক কর্মকর্তা জানান ব্যাংকগুলোর গাফিলতির কথা। বলেন, ‘নোট বা কয়েনের সংকট নেই। চাহিদার ভিত্তিতে নোট সরবরাহ করা হয়। তবে ব্যাংকগুলো থেকে চাহিদা পাওয়া যায় না। এ ক্ষেত্রে ব্যবস্থাপনাগত জটিলতার কারণে এই নোটগুলো নেবার ক্ষেত্রে আগ্রহ দেখানো হয় না।’

আরও পড়ুন:
আরও ৩০ পয়সা দর হারাল টাকা
খোলাবাজারে ডলারের দাম রেকর্ড ১১৫ টাকা
টাকা সাদা করেছেন ২ হাজার ৩১১ জন
বিদেশি বিনিয়োগের পালেও জোর হাওয়া
মূলধনি যন্ত্রপাতি আমদানির আড়ালে অর্থপাচার!

মন্তব্য

p
উপরে