× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

আন্তর্জাতিক
In the UK Hanal Younis was killed
hear-news
player
google_news print-icon

যুক্তরাজ্যে ‘ইউনিসের’ আঘাত, ৩ প্রাণহানি

যুক্তরাজ্যে-ইউনিসের-আঘাত-৩-প্রাণহানি-
লন্ডনের একটি এলাকায় ঝড়ে উল্টে গেছে গাছ। ছবি: সংগৃহীত
ঝড়ের আভাস পেয়ে আগেই শত শত স্কুল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। ওয়েলসের সব ট্রেনের শিডিউল বাতিল করা হয়েছে। যুক্তরাজ্যের সেনাবাহিনীকেও পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

শক্তিশালী ঝড় ‘ইউনিস’ আঘাত হেনেছে যুক্তরাজ্যে; এতে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে।

স্থানীয় সময় শুক্রবার সকালে কয়েক দশকের সবচেয়ে বড় এ ঝড় আঘাত হানার পর এই তিনজনের প্রাণহানির ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছে বিবিসি

উত্তর লন্ডনে গাছ উল্টে গাড়ির ওপর পড়ে মারা গেছেন ৩০ বছর বয়সী এক নারী। এছাড়া ৫০ বছর বয়সী আরেকজনের মৃত্যু হয়েছে শরীরে ধ্বংসাবশেষের আঘাতে। আর একজন মারা গেছেন আয়ারল্যান্ডে।

আরও কিছু এলাকায় ঝড়ের তাণ্ডবের খবর পাওয়া গেছে। ঝড়ের মধ্যে অনেক এলাকায় বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে বিদ্যুৎ সংযোগ। রাস্তায় পানি উঠে পড়েছে। ভীতিকর অবস্থা বিরাজ করছে।

ঝড়ের আভাস পেয়ে আগেই শত শত স্কুল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। ওয়েলসের সব ট্রেনের শিডিউল বাতিল করা হয়েছে। যুক্তরাজ্যের সেনাবাহিনীকেও পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

বিবিসি বলছে, লাখ লাখ মানুষকে তাদের ঘরে অবস্থান করতে বলা হয়েছে। লন্ডনের হিথ্রো বিমানবন্দরে কমপক্ষে ৬৫টি ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে। সবমিলিয়ে ইউনিসের আঘাতে আয়ারল্যান্ডে ৫৫ হাজারেরও বেশি বাড়িতে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে।

অনেক এলাকাতেই এখন বাতাসের গতি ঘণ্টায় ১০০ মাইল। ঝড়ের এমন তীব্র গতিতে কিছু এলাকায় সর্বোচ্চ সতর্কতা বা রেড অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে।

আবহাওয়া অফিস বলছে, ইংল্যান্ডের দক্ষিণ ও পূর্বাঞ্চল এবং ওয়েলসে এই রেড অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে। ইংল্যান্ডে গত এক দশকে চারবার এসরকম রেড অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে।

দক্ষিণ ইংল্যান্ডের একটি দ্বীপ আইল অফ ওয়াইটের একটি স্থানে বাতাসের গতি ইতোমধ্যে ঘণ্টায় ১২২ মাইল রেকর্ড করা হয়েছে। উত্তর আয়ারল্যান্ড এবং স্কটল্যান্ডের কোথাও কোথাও তুষারপাতের ব্যাপারেও সতর্ক করা হয়েছে।

যুক্তরাজ্যে এক সপ্তাহের মধ্যে এটি দ্বিতীয় ঝড়। এর আগে ডাডলি ঝড়ের আঘাতে স্কটল্যান্ড, উত্তর ইংল্যান্ড এবং উত্তর আয়ারল্যান্ডে বহু বাড়ি ঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। উপড়ে গেছে বহু গাছপালা।

আবহাওয়া অফিস বলছে, ঝড় ইউনিস ডাডলির তীব্রতাকেও ছাড়িয়ে যাবে এবং এটি হবে গত তিন দশকের মধ্যে সবচেয়ে শক্তিশালী ঝড়।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ১৯৯০ সালের জানুয়ারির ঝড়ে যে রকম ক্ষয়ক্ষতি হয়েছিল এবারেও সে রকম হতে পারে। ৩২ বছর আগের ওই ঝড়ে ৪৭ জনের প্রাণহানিসহ ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছিল।

আরও পড়ুন:
কয়েক দশকের শক্তিশালী ঝড়ের মুখোমুখি যুক্তরাজ্য
কেএফসির বক্সে মুরগির অপরিষ্কার মাথা
করোনা ইস্যুতে জনগণকে সতর্ক করলেন বরিস জনসন

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
Attack on Pakistan Embassy in Kabul

কাবুলে পাকিস্তান দূতাবাসে হামলা

কাবুলে পাকিস্তান দূতাবাসে হামলা উবাইদুর রহমান নিজামানি। ছবি: সংগৃহীত
পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, দূতাবাসের কম্পাউন্ডে হামলা হয়েছে। মিশন প্রধান নিজামানি অক্ষত আছেন। তাকে রক্ষায় করতে গিয়ে নিরাপত্তারক্ষী ইসরার মোহাম্মদ ‘গুরুতর আহত’ হয়েছেন।

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে পাকিস্তান দূতাবাস হামলার শিকার হয়েছে। চার্জ ডি অ্যাফেয়ার্স উবাইদুর রহমান নিজামানিকে লক্ষ্য করে শুক্রবার এ হামলা হয়েছে বলে জানিয়েছে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

এফও সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, দূতাবাসের কম্পাউন্ডে হামলা হয়েছে। মিশন প্রধান নিজামানি অক্ষত আছেন। তাকে রক্ষায় করতে গিয়ে নিরাপত্তারক্ষী ইসরার মোহাম্মদ ‘গুরুতর আহত’ হয়েছেন।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে নিজামানিকে হত্যাচেষ্টা এবং দূতাবাস কম্পাউন্ডে হামলার ‘কঠোর নিন্দা’ জানিয়েছে পাকিস্তান।

দূতাবাদে হামলায় ক্ষেপেছে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। তারা বলেছে, আফগানিস্তানের অন্তর্বর্তী সরকারকে অবিলম্বে এই হামলার পুঙ্খানুপুঙ্খ তদন্ত করে দোষীদের গ্রেপ্তার করতে হবে। পাশাপাশি আফগানিস্তানে পাকিস্তানি কূটনৈতিক এবং নাগরিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে জরুরি ব্যবস্থা নিতে হবে।

গত ৪ নভেম্বর মিশন প্রধানের দায়িত্ব নেন নিজামানি।

দূতাবাসের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘হামলাকারী একজন ছিলেন। একটি ভবনের আড়াল থেকে বেরিয়ে গুলি চালাতে শুরু করে সে।

‘রাষ্ট্রদূত এবং অন্য কর্মীরা নিরাপদে আছেন। তারপরও সতর্কতার কারণে আমরা দূতাবাস ভবনের বাইরে যাচ্ছি না।’

কাবুল পুলিশের মুখপাত্র খালিদ জাদরান বলেন, ‘দূতাবাসে হামলার ঘটনায় এক সন্দেহভাজনকে আটক করা হয়েছে। একটি অস্ত্র জব্দ হয়েছে। ক্লিয়ারেন্স অপারেশনের বিস্তারিত পর জানানো হবে।’

আফগান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ ঘটনার নিন্দা জানিয়েছে। তালেবানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আব্দুল কাহার বালখি বিবৃতিতে বলেন, ‘নিরাপত্তা সংস্থাগুলো ঘটনাটি গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করবে এবং অপরাধীদের চিহ্নিত করে শাস্তি দেবে।

আরও পড়ুন:
আফগানিস্তানের স্কুলে বিস্ফোরণ, নিহত ১০  
ইমরানের আমলে বরখাস্ত আসিম হলেন সেনাপ্রধান
রাজনৈতিক ব্যর্থতায় পাকিস্তান ভেঙেছে: সেনাপ্রধান বাজওয়া
‘সেনাপ্রধান নিয়োগের পর ইমরানকে দেখে নেব’
পাকিস্তানে পুলিশ টহল দলের ওপর গুলিতে নিহত ৬

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Divorce your wife if your favorite team loses in the World Cup

বিশ্বকাপে পছন্দের দল হারলে ডিভোর্স!

বিশ্বকাপে পছন্দের দল হারলে ডিভোর্স! গত ৩০ নভেম্বর সৌদি-মেক্সিকো ফুটবল ম্যাচের একটি দৃশ্য। ছবি: সংগৃহীত
৩০ নভেম্বর সৌদি আরবের বিপক্ষে মেক্সিকোর ম্যাচের কয়েক ঘণ্টা আগে অনলাইনে এসে শপথ নিতে দেখা যায় এক ব্যক্তিকে। তাকে বলতে শোনা যায়, মেক্সিকোর বিপক্ষে ম্যাচে যদি সৌদি আরব হেরে যায়, তবে স্ত্রীকে ছেড়ে দেবেন তিনি। 

কাতার বিশ্বকাপের উত্তেজনায় কাঁপছে বিশ্ব। পছন্দের দল নিয়ে মাতামাতিও চলছে সেই তালে। তবে এই উন্মাদনায় ওমানের এক সৌদিভক্ত যে কাণ্ড করেছেন সেটাতে সমর্থন দেয়া কঠিন। তিনি বলেছেন, বিশ্বকাপে পছন্দের দল হেরে বসলে স্ত্রীকে ডিভোর্স দিয়ে দেবেন!

ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। গালফ নিউজের খবরে বলা হয়, ৩০ নভেম্বর সৌদি আরবের বিপক্ষে মেক্সিকোর ম্যাচের কয়েক ঘণ্টা আগে অনলাইনে এসে শপথ নিতে দেখা যায় ওই ব্যক্তিকে। তাকে বলতে শোনা যায়, মেক্সিকোর বিপক্ষে ম্যাচে যদি সৌদি আরব হেরে যায়, তবে স্ত্রীকে ছেড়ে দেবেন তিনি।

ম্যাচে মেক্সিকোর কাছে ২-১ গোলে হেরে যায় সৌদি আরব। শুধু তাই নয়, এই ম্যাচের সঙ্গে সৌদিদের নকআউট পর্বে খেলার আশাও শেষ হয়ে যায়।

ম্যাচ শেষে স্ত্রীকে তালাক দিয়েছিলেন কী না, তা অবশ্য জানা যায়নি। তারপরও পুরো বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তোলপাড় সৃষ্টি করেছে। অনেকেই ফুটবল অনুরাগীদের সচেতন হতে, আবার অনেকে ব্যক্তিগত জীবন থেকে খেলাকে আলাদা রাখার পরামর্শ দিয়েছেন।

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Ladens body in America is believed to be that of Omars son

লাদেনের মরদেহ আমেরিকায়, ধারণা ছেলে ওমরের

লাদেনের মরদেহ আমেরিকায়, ধারণা ছেলে ওমরের জঙ্গিগোষ্ঠী আল-কায়েদার প্রতিষ্ঠাতা ওসামা বিন লাদেন। ছবি: সংগৃহীত
যুক্তরাষ্ট্রে নাইন-ইলেভেন হামলার প্রধান পরিকল্পনাকারী হিসেবে অভিযুক্ত ছিলেন ওসামা বিন লাদেন। পাকিস্তানের অ্যাবোটাবাদে ২০১১ সালে আমেরিকান সেনাদের অভিযানে নিহত হন তিনি। এরপর লাদেনের মরদেহ সাগরে ফেলে দেয় আমেরিকান সেনারা। হোয়াইট হাউজের ওই ঘোষণা নিয়ে ধোঁয়াশায় আছেন লাদেনের ছেলে ওমর।

আল-কায়েদার প্রতিষ্ঠাতা ওসামা বিন লাদেনকে হত্যার পর তার মরদেহ সাগরে ফেলে দেয়া হয়েছিল বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। তবে তার ছেলে ওমর বিন লাদেনের ধারণা, লাদেনের মরদেহ যুক্তরাষ্ট্রেই আছে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য সানকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে ওসামা বিন লাদেনের চতুর্থ ছেলে ওমর এমন ধারণা পোষণ করেছেন।

যুক্তরাষ্ট্রে নাইন-ইলেভেন হামলার প্রধান পরিকল্পনাকারী হিসেবে অভিযুক্ত ছিলেন ওসামা বিন লাদেন। পাকিস্তানের অ্যাবোটাবাদে ২০১১ সালে আমেরিকান সেনাদের অভিযানে নিহত হন তিনি। এরপর লাদেনের মরদেহ সাগরে ফেলে দেয় আমেরিকান সেনারা। হোয়াইট হাউজের ওই ঘোষণা নিয়ে ধোঁয়াশায় আছেন ওমর।

তিনি বলেন, ‘ভালো হতো যদি আমার বাবাকে দাফন করা হতো। তবে তারা আমাদের সেই সুযোগ দেয়নি। আমি জানি না বাবার সঙ্গে কি করেছে। তারা বলেছে, মরদেহ সাগরে ফেলে দেয়া হয়েছে। তবে আমার মনে হয় মানুষকে দেখানোর জন্য বাবার মরদেহ আমেরিকাতেই রাখা হয়েছে।’

ওমর বলেন, ‘ছোটবেলায় আফগানিস্তানে থাকার সময় বিন লাদেনই তাকে আগ্নেয়াস্ত্র চালানোর প্রশিক্ষণ দিয়েছিলেন। আমাকে উনার মতোই বানাতে চাইতেন বাবা।’

স্ত্রীকে নিয়ে ওমর ফ্রান্সের নরম্যান্ডিতে থাকেন। বিশ্বকাপ উপলক্ষে এখন তিনি কাতারে অবস্থান করছেন। সেখানেই সানকে এই সাক্ষাৎকার দেন ওমর।

ওমর বলেন, ‘বাবা (লাদেন) একজন ভুক্তভোগী। অতীতের সেই দুঃসময় ভুলে যাওয়ার চেষ্টায় আছি।’

৪১ বছর বয়সী ওমর জানান, নিউইয়র্কে টুইন টাওয়ারের সন্ত্রাসী হামলার কয়েক মাস আগে আফগানিস্তান ছেড়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন তিনি।

লাদেনের কাছ থেকে বিদায় নেয়ার কথা জানাতে গিয়ে ওমর বলেন, ‘আমি বিদায় বলেছিলাম এবং তিনিও বিদায় জানান। আমি চলে যাচ্ছি জেনে তিনি খুশি ছিলেন না।’

নিজের কুকুরের ওপর রাসায়নিক অস্ত্র পরীক্ষার বর্ণনা দিতে গিয়ে ওমর বলেন, ‘আমি দেখেছিলাম। তার এক সহযোগী আমার কুকুগুলোর ওপর এটির পরীক্ষা চালিয়েছিল। আমি খুশি ছিলাম না। এটা কঠিন সময় ছিল।’

ওমর একজন চিত্রশিল্পী। পাহাড় পছন্দ করেন ভীষণ। আফগানিস্তানে পাঁচ বছর থাকার সময়েই পাহাড়ারের প্রতি তার আগ্রহের জন্ম। ওমরের হাতে আঁকা এক একটি ছবি সাড়ে আট হাজার পাউন্ডেও বিক্রি হয়েছে।

সৌদি আরবে ১৯৮১ সালের মার্চে লাদেনের প্রথম স্ত্রী নাজওয়ার ঘরে জন্ম ওমরের।

তিনি বলেন, ‘বাবা আমাকে কখনোই আল-কায়েদায় যোগ দিতে বলেননি, তবে তিনি আমাকে তার উত্তরসূরি ভাবতেন। আমি সেই জীবনের জন্য উপযুক্ত নই জানালে বাবা হতাশ হয়েছিলেন।’

বিন লাদেন কেন তাকে উত্তরসূরি হিসেবে বেছে নিতে চেয়েছিলেন এমন প্রশ্নের জবাবে ওমর বলেন, ‘আমি জানি না... হয়তো আমি বেশি বুদ্ধিমান ছিলাম। এ কারণেই আজ বেঁচে আছি।’

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Biden is ready to meet with Putin to stop the war

পুতিনের সঙ্গে সাক্ষাতে প্রস্তুত বাইডেন

পুতিনের সঙ্গে সাক্ষাতে প্রস্তুত বাইডেন
ইউক্রেন ইস্যুতে বাইডেনের সঙ্গে আলোচনা করেছেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল মাখোঁ। ছবি: সংগৃহীত
হোয়াইট হাউসে বৈঠকের পর যুক্তরাষ্ট্র ও ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইউক্রেনের সার্বভৌমত্ব এবং আঞ্চলিক অখণ্ডতার প্রতি অব্যাহত সমর্থনের প্রতিশ্রুতি দিয়ে একটি যৌথ বিবৃতি দেন। এতে কিয়েভের জন্য বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার সরবরাহ বৃদ্ধি এবং প্যারিসে ইউক্রেন ইস্যুতে একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনের পরিকল্পনার কথা বলা হয়েছে। সম্মেলনটি ১৩ ডিসেম্বর হওয়ার কথা রয়েছে।

ইউক্রেনের সঙ্গে চলমান যুদ্ধ বন্ধে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে সাক্ষাতের জন্য প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। হোয়াইট হাউসে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল মাখোঁর সঙ্গে বৈঠক শেষে এ কথা বাইডেন। এ সময় দুই শক্তিধর দেশের রাষ্ট্রপ্রধানই রাশিয়ার যুদ্ধের বিরুদ্ধে নিজেদের অবস্থান জানান।

বাইডেন বলেন, ‘আমি পুতিনের সঙ্গে কথা বলতে প্রস্তুত... যদি সত্যিই তিনি যুদ্ধ শেষ করতে চান।’

পুতিনের সঙ্গে বাইডেনের বৈঠক নিয়ে ক্রেমলিনের পক্ষ থেকে বলা হয়, ‘আমাদের স্বার্থ নিশ্চিত করার লক্ষ্যে রুশ প্রেসিডেন্ট বৈঠকে রাজি।’

যদিও ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকোভ সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘নিশ্চিতভাবে আমেরিকার শর্ত মানতে প্রস্তুত নয় মস্কো। প্রেসিডেন্ট বাইডেন আসলে কী বলেছেন? তিনি বলেছেন যে পুতিন ইউক্রেন ছেড়ে যাওয়ার পরই আলোচনা সম্ভব। ’

যুক্তরাষ্ট্রের শর্ত আলোচনার ক্ষেত্রকে জটিল করে তুলেছে উল্লেখ করে পেসকোভ বলেন, ‘ইউক্রেন থেকে নেয়া নতুন রুশ অঞ্চলকে স্বীকৃতি দেয়নি যুক্তরাষ্ট্র।’

এদিকে বাইডেনের সঙ্গে বৈঠকের পর ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল মাখোঁ জানান, যেসব বিষয় ইউক্রেনীয়দের গ্রহণযোগ্য নয়, সেসব বিষয়ে দেশটির নাগরিকদের আপসের অনুরোধ তিনি করবেন না।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরু হয়। ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টের উপদেষ্টা মাইখাইলো পোডোলিয়াক জানিয়েছেন, যুদ্ধে তাদের ১০ থেকে ১৩ হাজার সেনা নিহত হয়েছেন। তবে এ বিষয়ে ইউক্রেন সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে কোনো মন্তব্য আসেনি।

গত মাসে আমেরিকান জেনারেল মার্ক মিলি বলেছিলেন, ‘যুদ্ধ শুরুর থেকে ইউক্রেনের ১ লাখ এবং রাশিয়ার ১ লাখ সেনা হতাহত হয়েছেন।’

এক ভিডিও বার্তায় বুধবার ইউরোপীয় কমিশনের প্রধান উরসুলা ভন ডের লেইন বলেন, ‘রুশ হামলায় এক লাখ ইউক্রেনীয় সেনা নিহত হয়েছেন। পরে অবশ্য ইউরোপীয় কমিশনের একজন মুখপাত্র জানান, হতাহতার এই সংখ্যা ভুল ছিল।

ইউরোপীয় কমিশনের প্রধান আরও জানান, ইউক্রেন যুদ্ধে প্রায় ২০ হাজার বেসামরিক নাগরিকও প্রাণ হারিয়েছেন।’

হোয়াইট হাউসে বৈঠকের পর যুক্তরাষ্ট্র ও ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইউক্রেনের সার্বভৌমত্ব এবং আঞ্চলিক অখণ্ডতার প্রতি অব্যাহত সমর্থনের প্রতিশ্রুতি দিয়ে একটি যৌথ বিবৃতি দেন। এতে কিয়েভের জন্য বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার সরবরাহ বৃদ্ধি এবং প্যারিসে ইউক্রেন ইস্যুতে একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনের পরিকল্পনার কথা বলা হয়েছে। সম্মেলনটি ১৩ ডিসেম্বর হওয়ার কথা রয়েছে।

আরও পড়ুন:
যুদ্ধে সর্বোচ্চ ১৩ হাজার সেনা নিহত: ইউক্রেন
শান্তি আলোচনার শর্ত জানাল রাশিয়া
কিয়েভে তুষারপাত, বিদ্যুতের অভাবে শীতে জবুথবু মানুষ
খেরসন ছাড়ার পর রাশিয়ার ছোড়া গোলায় নিহত ৩২: ইউক্রেন
মিসাইল ভান্ডার ফুরিয়েছে রাশিয়ার, দাবি ব্রিটিশ গোয়েন্দাদের

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Indias media freedom is under question

ভারতে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা হুমকিতে!

ভারতে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা হুমকিতে! এনডিটিভির ২৯ দশমিক ১৮ শতাংশ শেয়ার কিনে নিয়েছেন গৌতম আদানি। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
ইউটিউবে প্রচারিত একটি ভিডিও বার্তায় কুমার বলেন, ‘যারা সাংবাদিক হওয়ার জন্য লেখাপড়ার পেছনে লাখ লাখ টাকা খরচ করছেন, তারা দালালের কাজ করতে বাধ্য হবে। আর যারা বর্তমানে কাজ করছেন, তাদের ভুগতে হবে। কেউ কেউ এই পেশায় ক্লান্ত বোধ করছেন। আবার অনেকেই পেশা ছেড়ে দিচ্ছেন।’

এশিয়ার সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি গৌতম আদানির আদানি গ্রুপের নিয়ন্ত্রণে দেশটির শীর্ষ বেসরকারি গণমাধ্যম নিউ দিল্লি টেলিভিশন (এনডিটিভি)। আর এরপরই ‘ব়্যামন ম্যাগসাইসাই’ পুরস্কারজয়ী ভারতীয় সাংবাদিক রবীশ কুমার এনডিটিভি থেকে পদত্যাগ করেন। এর আগে, বুধবার এনডিটিভির প্রতিষ্ঠাতা অর্থনীতিবিদ প্রণয় রায় ও তার স্ত্রী রাধিকা রায় পরিচালক বোর্ড থেকে পদত্যাগ করেন।

আদানির লোকজন এখন বোর্ডের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে। সুদীপ্ত ভট্টাচার্য, সঞ্জয় পুগলিয়া এবং সন্থিল সিন্নাইয়া চেঙ্গালভারায়ণকে এনডিটিভির পরিচালন বোর্ডে নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

এনডিটিভির ২৯ দশমিক ১৮ শতাংশ শেয়ারের মালিক আদানির মিডিয়া নেটওয়ার্ক- এএমএনএল। এতদিন এই শেয়ারের মালিকানা ছিল প্রণয় রায় ও তার স্ত্রী রাধিকা রায়ের।

ধারণা করা হচ্ছে, শিগগিরই এনডিটিভির আরও ২৬ শতাংশ শেয়ার বাজার থেকে কিনে নেবেন আদানি। এতে চ্যানেলটির পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ চলে আসবে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদি ‘ঘনিষ্ঠ’ আদানি।

রবীশ কুমার গত কয়েক দশক ধরে এনডিটিভির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। কি রিপোর্ট, প্রাইম টাইম, হাম লোগ, দেশ কি বাতের মতো জনপ্রিয় অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেছেন তিনি।

ভারতে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা হুমকিতে!
এনডিটিভির সাবেক সাংবাদিক রবীশ কুমার


কুমার তার শো চলাকালীন প্রায়ই হিন্দু-মুসলিম বিদ্বেষ ছড়ানোর অভিযোগে ক্ষমতাসীন বিজেপিকে অভিযুক্ত করতেন।

ইউটিউবে প্রচারিত একটি ভিডিও বার্তায় কুমার বলেন, ‘যারা সাংবাদিক হওয়ার জন্য লেখাপড়ার পেছনে লাখ লাখ টাকা খরচ করছেন, তারা দালালের কাজ করতে বাধ্য হবে। আর যারা বর্তমানে কাজ করছেন, তাদের ভুগতে হবে। কেউ কেউ এই পেশায় ক্লান্ত বোধ করছেন। আবার অনেকেই পেশা ছেড়ে দিচ্ছেন।’

রবীশ কুমারের পদত্যাগের পর টুইটারে লিখেছেন #RIPNDTV

১২ বছর এনডিটিভির সঙ্গে কাজ করেছেন রিভাতি লৌল। ২০০৯ সালে পদত্যাগ করেন তিনি। সম্প্রতি রিভাতি বলেন, ‘নির্বাচন বিশ্লেষণ, বাজেট বিশ্লেষণ এনডিটিভির মাধ্যমেই শুরু হয়েছিল।’

এনডিটিভির মতো আরেকটি সম্প্রচারমাধ্যম আর হবে না জানিয়ে লৌল আরও বলেন, ‘আমরা টেলিভিশন নিউজ রিপোর্টিংয়ের যুগ পেরিয়ে এসেছি। এখন সেখানে কেবল প্রোপাগান্ডা ছড়ায়।’

গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিয়ে কাজ করা সংস্থা-দ্য ফ্রি স্পিচের সহপ্রতিষ্ঠাতা গীতা সেশু বলেন, ‘কুমার এবং রায়দের পদত্যাগগুলো ইঙ্গিত দেয় যে কীভাবে ভারতের স্বাধীন মতামতের জায়গা আরও সঙ্কুচিত হচ্ছে। গণতান্ত্রিক একটি দেশের জন্য একটি উদ্বেগের।’

প্যারসভিত্তিক পর্যবেক্ষণকারী সংস্থা রিপোর্টার্স উইথআউট বর্ডারের প্রতিবেদনে বলা হয়, মুক্তগণমাধ্যম সূচকে বিশ্বের ১৮০টি দেশের মধ্যে ভারতের অবস্থান ১৫০।

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Maximum 13 thousand soldiers killed in the war Ukraine

যুদ্ধে সর্বোচ্চ ১৩ হাজার সেনা নিহত: ইউক্রেন

যুদ্ধে সর্বোচ্চ ১৩ হাজার সেনা নিহত: ইউক্রেন ইউক্রেনের ত্রস্তিয়ানেৎস শহরে যুদ্ধের পর রাশিয়ার সামরিক সরঞ্জামের পাশে ইউক্রেনীয় সেনা। ছবি: এএফপি
ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলদিমির জেলেনস্কির উপদেষ্টা মিখাইলো পোদোলিয়াক বলেছেন, যুদ্ধে দেশটির নিহত সেনার সংখ্যা ১০ থেকে ১৩ হাজার।

চলতি বছরের ২৪ ফেব্রুয়ারি রাশিয়ার সঙ্গে শুরু হওয়া যুদ্ধে সর্বোচ্চ ১৩ হাজার ইউক্রেনীয় সেনা নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন দেশটির জ্যেষ্ঠ এক কর্মকর্তা।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলদিমির জেলেনস্কির উপদেষ্টা মিখাইলো পোদোলিয়াক বলেছেন, নিহত সেনার সংখ্যা ১০ থেকে ১৩ হাজার।

বিবিসির প্রতিবেদনে জানানো হয়, ইউক্রেনের পক্ষ থেকে যুদ্ধে প্রাণ হারানো সেনাদের সংখ্যা প্রকাশের ঘটনা বিরল। যদিও পোদোলিয়াকের দেয়া তথ্যটি নিশ্চিত করেনি দেশটির সেনাবাহিনী।

এর আগে জুনে ইউক্রেন প্রেসিডেন্টের এই উপদেষ্টা বলেছিলেন, রাশিয়ার সঙ্গে লড়াইয়ে দৈনিক প্রাণ হারাচ্ছেন ১০০ থেকে ২০০ ইউক্রেনীয় সেনা।

গত মাসে যুক্তরাষ্ট্রের জয়েন্ট চিফস অফ স্টাফ চেয়ারম্যান মার্ক মিলি জানান, যুদ্ধের শুরু থেকে প্রায় ১ লাখ রুশ এবং সমসংখ্যক ইউক্রেনীয় সেনা হতাহত হয়েছেন।

গত বুধবার এক ভিডিও বার্তায় ইউরোপিয়ান কমিশনের প্রধান উরসুলা ফন দার লিয়েন বলেন, যুদ্ধে নিহত ইউক্রেনীয় সেনার সংখ্যা ১ লাখ।

ওই বক্তব্যের পর ইউরোপীয় কমিশনের এক মুখপাত্র জানান, উরসুলার বক্তব্যটি ভুল ছিল। ওই ১ লাখের মধ্যে নিহত ও আহত রয়েছেন।

ইউক্রেনের সংবাদমাধ্যম চ্যানেল টোয়েন্টিফোরকে পোদোলিয়াক বলেন, নিহতের সংখ্যা নিয়ে খোলাখুলি কথা বলছে কিয়েভ।

তার ভাষ্য, বিভিন্ন উৎস থেকে পাওয়া দাপ্তরিক তথ্য অনুযায়ী, যুদ্ধে প্রাণ হারিয়েছেন ১০ হাজার থেকে সাড়ে ১২ কিংবা ১৩ হাজার সেনা।

আরও পড়ুন:
ইউক্রেনের পাশাপাশি মলদোভায়ও ব্ল্যাকআউট
সেনা হত্যায় কড়া প্রতিশোধের হুঁশিয়ারি রাশিয়ার
জেলেনস্কির সঙ্গে দেখা করলেন ঋষি সুনাক
এবার ইউক্রেনের গ্যাস প্ল্যান্টে রুশ হামলা  
রুশ ক্ষেপণাস্ত্রে পোল্যান্ডে প্রাণহানি: বসছেন ন্যাটো নেতারা

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Letter bombs target Prime Minister and US Embassy in Spain

স্পেনে ‘লেটার বম্ব’ আতঙ্ক

স্পেনে ‘লেটার বম্ব’ আতঙ্ক ‘লেটার বোম্ব’ আতঙ্কে স্পেনে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। ছবি: সংগৃহীত
তদন্ত সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র বলেছে, ডিভাইসগুলো বাড়িতে তৈরি হলেও, এর জন্য দক্ষ লোক দরকার। তদন্তকারীরা এখন এগুলোর প্রকৃত উৎস খুঁজে বের করার চেষ্টা করছে।

স্পেনের প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সানচেজ এবং রাজধানী মাদ্রিদে আমেরিকান দূতাবাসে ‘লেটার বম্ব’ দেয়ার পর ইউরোপের দেশটিতে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। এ নিয়ে স্পেনে ছয়টি ‘লেটার বম্ব’ শনাক্তের ঘটনা ঘটল।

‘লেটার বম্ব’ হলো এমন একটি বোমা যা চিঠি বা পার্সেল আকারে পাঠানো হয় এবং খোলার সময় এটি বিস্ফোরিত হয়।

তদন্ত সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র বলেছে, ডিভাইসগুলো বাড়িতে তৈরি হলেও, এর জন্য দক্ষ লোক দরকার। তদন্তকারীরা এখন এগুলোর প্রকৃত উৎস খুঁজে বের করার চেষ্টা করছে।

স্পেনে আমেরিকান দূতাবাসে বৃহস্পতিবার ষষ্ঠ ‘লেটার বম্বটি’ শনাক্ত করা হয়।

এর আগে একটি ‘লেটার বম্ব’ মাদ্রিদের কাছে একটি বিমানবাহিনী ঘাঁটিতে পাঠানো হয়েছিল। সেটি বৃহস্পতিবার ভোরের আগেই শনাক্ত করা হয়। এ ছাড়া বুধবার স্পেনের ইউক্রেন দূতাবাসে পাঠানো ‘লেটার বম্বের’ বিস্ফোরণ ঘটে। এতে একজন আহত হন। আরেকটি অস্ত্র প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানে পাঠানো ‘লেটার বম্বটি’ নিষ্ক্রিয় করা হয়েছে।

এদিকে গত ২৪ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সানচেজের অফিস মনক্লোয়া কম্পাউন্ডে ‘লেটার বম্ব’ পাঠানো হয়। সেটি নিষ্ক্রিয় করা হয়েছে বলে জানিয়েছে স্পেনের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

স্পেনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়েও একটি ‘লেটার বম্ব’ পাঠানো হয়েছে বলে জানায় স্পেনের নিরাপত্তা বিষয়ক জুনিয়র মন্ত্রী রাফায়েল পেরেজ।

আরও পড়ুন:
জাপানকে হারিয়ে প্রথমবার বিশ্বকাপ জিতল স্পেন
ঘেরের পাশে বাঘের হাঁটাহাঁটি, গোলাখালী গ্রামে আতঙ্ক
সম্পর্কের ৫০: প্রধানমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা স্পেনের প্রেসিডেন্টের
যৌনবৃত্তি বন্ধের অঙ্গীকার স্পেনের প্রধানমন্ত্রীর
ইউরোপে বিশ্বকাপ বাছাইয়ে গোলবন্যা

মন্তব্য

p
উপরে