× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

আন্তর্জাতিক
Yogi does not want improvement in Uttar Pradesh
hear-news
player
print-icon

‘উত্তর প্রদেশের উন্নতি চান না যোগী’, পাল্টা জবাব বিজয়নের

উত্তর-প্রদেশের-উন্নতি-চান-না-যোগী-পাল্টা-জবাব-বিজয়নের
উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথকে পাল্টা জবাব দিয়েছেন কেরালার মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন। ছবি: সংগৃহীত
কেরালার মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন বলেন, ‘যোগীর ভয় হলো, উত্তরপ্রদেশ যদি কেরালার মতো হয়ে যায় তাহলে তা শিক্ষায়, স্বাস্থ্য পরিষেবায় ও জীবনযাত্রার মানে সেরা হয়ে উঠবে।’

ভারতের উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ ভোটারদের সতর্ক করেছিলেন তারা যেন রাজ্যটিকে কাশ্মীর, পশ্চিমবঙ্গ কিংবা কেরালা হতে না দেন। এবার তার জবাব দিলেন কেরালার মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন। বলেন, ‘উত্তর প্রদেশ কেরালা হলে সব কিছুতেই সেরা হবে।’

এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে উত্তর প্রদেশের বিধানসভা নির্বাচনের প্রথম ধাপের ভোট হয়েছে বৃহস্পতিবার। ভোট শুরুর কয়েক ঘণ্টা আগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে এক ভিডিও বার্তা দেন যোগী। সেখানে উত্তর প্রদেশকে কাশ্মীর, পশ্চিমবঙ্গ ও কেরালা না হতে দেয়ার জন্য ভোটারদের আহ্বান জানান তিনি।

এই ভিডিও বার্তার পরই ক্ষোভ প্রকাশ করেন কেরালার মুখ্যমন্ত্রী বিজয়ন। শুধু তিনি নন যোগীর মন্তব্যে ক্ষোভ প্রকাশ করেন প্রবীণ কংগ্রেস নেতা শশী থারুরও।

যোগী ভিডিও বার্তায় ভোটারদের উদ্দেশে বলেন, ‘আমি আপনাদের কিছু বলতে চাই। এটা আমার অন্তরের কথা। গত পাঁচ বছরে অনেক অসাধারণ ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু, আপনারা সাবধানে থাকবেন। সামান্য ভুল হলেই গত পাঁচ বছরের সমস্ত পরিশ্রম জলে চলে যাবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘বিজেপি হেরে গেলে উত্তর প্রদেশ কাশ্মীর, কেরালা কিংবা পশ্চিমবঙ্গে পরিণত হতে খুব বেশি সময় লাগবে না।

‘গত পাঁচ বছর ধরে আমি যে পরিশ্রম করেছি, আপনাদের প্রতিটি ভোট আমার সেই কাজেরই আশীর্বাদ। আপনার ভোটই আগামী পাঁচ বছরের জন্য মুক্ত জীবনের নিশ্চয়তা দেবে। একটা বড় সিদ্ধান্ত নেয়ার সময় এসেছে।’

এরপরই টুইটারে পাল্টা জবাব দেন বিজয়ন। তিনি লেখেন, ‘যোগীর ভয় হলো উত্তরপ্রদেশ যদি কেরালার মতো হয়ে যায় তাহলে তা শিক্ষায়, স্বাস্থ্য পরিষেবায় ও জীবনযাত্রার মানে সেরা হয়ে উঠবে। সেখানে এমন একটা সমাজ জীবন গড়ে উঠবে যেখানে সব মানুষ শান্তিতে সহাবস্থান করতে পারবে। ধর্মকে ব্যবহার করে কাউকে খুন করা হবে না। আসলে এমনটাই উত্তরপ্রদেশের মানুষ পেতে চান।’

যোগীর মন্তব্যে ক্ষোভ প্রকাশ করে কংগ্রেস নেতা শশী থারুর টুইটারে লিখেছেন, ‘যোগী আদিত্যনাথ ভোটারদের বলছেন, বিজেপি ক্ষমতায় না এলে উত্তর প্রদেশ নাকি কাশ্মীর, পশ্চিমবঙ্গ কিংবা কেরালা হয়ে যাবে। সেক্ষেত্রে উত্তর প্রদেশকে ভাগ্যবান বলতে হবে। কাশ্মীরের সৌন্দর্য, পশ্চিমবঙ্গের সংস্কৃতি ও কেরালার শিক্ষা অসাধারণ। উত্তর প্রদেশও খুব সুন্দর, সে তার সরকারের প্রতি অত্যন্ত দয়াশীল।’

এসব বিতর্কের মধ্যেই উত্তর প্রদেশে ভোট শেষ হয়েছে শান্তিপূর্ণভাবে। ৫৮টি আসনে বৃহস্পতিবার সকালে শুরু হওয়া ভোটগ্রহণ শেষ হয় সন্ধ্যা ৬টায়।

আরও পড়ুন:
উত্তর প্রদেশেও খেলা হবে: মমতা
বাসে ট্রাকের ধাক্কা, রাস্তায় ঘুমন্ত ১৮ শ্রমিক নিহত
হাথরাসকাণ্ড ভয়াবহ: ভারতের প্রধান বিচারপতি

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
After Mahsa in Iran now the symbol of rebellion is Hadith Najafi

ইরানে মাহসার পর এবার বিদ্রোহের প্রতীক হাদিস নাজাফি

একটি ভিডিওতে দেখা যায়, হাদিস নাজাফি তার খোলা চুল ঝুঁটি বেধে বিক্ষোভে যোগ দিতে এগিয়ে যাচ্ছেন। ওই বিক্ষোভের সময় নিরাপত্তা বাহিনীর ছয়টি গুলিতে এক নারী প্রাণ হারান। নিহত নারীকে হাদিস দাবি করে পোস্ট করা ভিডিও চলমান প্রতিবাদের মাত্রাকে আরও তীব্র করেছে।

কুর্দি তরুণী মাহসা আমিনির মৃত্যুর ঘটনা কেন্দ্র করে কঠোর পোশাকবিধি নিয়ে ইরানি নারীদের দীর্ঘদিনের ক্ষোভের বিস্ফোরণ ঘটেছে । ১৬ সেপ্টেম্বর থেকে বিক্ষোভে উত্তাল ইরানে অন্তত অর্ধশত মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। আহত হয়েছেন হাজারের বেশি।

নিরাপত্তা বাহিনীর সর্বোচ্চ শক্তি প্রয়োগ করে বিক্ষোভ দমনের চেষ্টা করলেও প্রতিবাদের ঢেউ দেশটির অন্তত ৮০টি শহরে এরইমধ্যে ছড়িয়ে পড়েছে। নারীর পোশাকের স্বাধীনতার দাবিতে প্রতিদিনই প্রাণ দিচ্ছে মানুষ। নিহতদের মধ্যে পুরুষের পাশাপাশি নারী-শিশুও রয়েছে।

ইরানে মাহসার পর এবার বিদ্রোহের প্রতীক হাদিস নাজাফি
ইরানের অন্তত ৮০ শহরে ছড়িয়ে পড়েছে বিক্ষোভ

মাহসাকে কেন্দ্র করে শুরু হওয়া বিক্ষোভে নতুন করে আরও একটি নাম প্রতিবাদের প্রতীকে পরিণত হয়েছে। তিনি ২০ বছরের তরুণী হাদিস নাজাফি।

কারাজ শহরে ২১ সেপ্টেম্বর ওই বিক্ষোভের সময় নিরাপত্তা বাহিনীর ছোড়া ছয়টি গুলিতে প্রাণ হারান এক নারী। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে ওই নারীর নাম হাদিস নাজাফি বলে দাবি করা হয়। তবে সোমবার বিবিসি ফার্সির প্রতিবেদনে বলা হয়, বিক্ষোভে নিহত নারী হাদিস নাজাফি নন।

হাদিস একটি ভিডিওবার্তা দিয়েছেন বলেও টুইটে জানায় বিবিসি ফার্সি। বার্তায় হাদিস বলেন, ‘আমি বিক্ষোভে নিহত ওই নারী নই। তবে আমি নারীদের জন্য, মাহসাদের অধিকারের জন্য লড়াই চালিয়ে যাব।’

ইরানে মাহসার পর এবার বিদ্রোহের প্রতীক হাদিস নাজাফি
মাহসা আমিনির (বাঁয়ে) পর এবার ইরানে নারীর পোশাকের স্বাধীনতা দাবির বিক্ষোভের প্রতীকে পরিণত হয়েছেন হাদিস নাজাফি

এর আগে রোববার সাংবাদিক এবং নারী অধিকারকর্মী মাসিহ আলিনেজাদ একটি ভিডিও পোস্ট করেন। এতে দেখা যায় হাদিস তার খোলা চুল ঝুঁটি বেধে বিক্ষোভে যোগ দিতে এগিয়ে যাচ্ছেন। মাসিহ আলিনেজাদের দাবি ছিল, এর পরপরই নিরাপত্তা বাহিনীর ছয়টি গুলিতে তিনি প্রাণ হারান।

ইরানের দক্ষিণাঞ্চলীয় আজারবাইজান প্রদেশের হাদিস নাজাফির ভিডিও মুহূর্তে ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। #MahsaAmini হ্যাশট্যাগের পাশাপাশি #HadisNajafi হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে ইরানের নারীদের পোশাকের স্বাধীনতার দাবিকে সমর্থন জানাচ্ছেন অসংখ্য মানুষ।

ইরানে মাহসার পর এবার বিদ্রোহের প্রতীক হাদিস নাজাফি
রাস্তায় ব্যারিকেড দিয়ে, আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করছেন হিজাববিরোধীরা

ইরানের সাংবাদিক ফারজাদ সেফিকারানকে উদ্ধৃত করে আল আরাবিয়া জানায়, বিক্ষোভে নিহত নারীর মুখ, ঘাড় এবং বুকে গুলি লেগেছিল। স্থানীয় ঘায়েম হাসপাতালে নেয়ার পরপরই তার মৃত্যু হয়। আল আরাবিয়ার প্রতিবেদনেও নিহত নারীর নাম ‘হাদিস নাজাফি’ বলে উল্লেখ করা হয়।

ইরানে মাহসার পর এবার বিদ্রোহের প্রতীক হাদিস নাজাফি
বিক্ষোভে যোগ দেয়ার আগে খোলা চুল বেঁধে নিয়েছিলেন হাদিস নাজাফি (মাঝে)

ওই নারীকে রোববার দাফন করা হয়েছে। তার কবরের পাশে স্বজনদের আহাজারির একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে টুইটারে।

কুর্দি নারী মাহসা আমিনিকে গত ১৩ সেপ্টেম্বর তেহরানের ‘নৈতিকতা পুলিশ’ গ্রেপ্তার করে। ইরানের দক্ষিণাঞ্চল থেকে তেহরানে ঘুরতে আসা মাহসাকে একটি মেট্রো স্টেশন থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল, তিনি সঠিকভাবে হিজাব করেননি।

পুলিশ হেফাজতে থাকার সময়েই মাহসা অসুস্থ হয়ে পড়েন, এরপর তিনি কোমায় চলে যান। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ১৬ সেপ্টেম্বর তার মৃত্যু হয়। পুলিশ মাহসাকে হেফাজতে নির্যাতনের অভিযোগ অস্বীকার করলেও পরিবারের অভিযোগ গ্রেপ্তারের পর তাকে পেটানো হয়।

মাহসার মৃত্যুর পর থেকেই উত্তাল ইরান। ফেসবুক ও টুইটারে #MahsaAmini এবং #Mahsa_Amini হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে চলছে প্রতিবাদ। দেশটির বিভিন্ন জায়গায় নারীর পোশাকের স্বাধীনতার পক্ষে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে সংঘর্ষ চলছে নিরাপত্তা বাহিনীর।

ইরানে মাহসার পর এবার বিদ্রোহের প্রতীক হাদিস নাজাফি
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৬ সেপ্টেম্বর মারা যান মাহসা আমিনি

বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠনের হিসেবে বিক্ষোভে এখন পর্যন্ত অর্ধশত মানুষের মৃত্যু হয়েছে, তাদের মধ্যে নিরাপত্তা বাহিনীর কয়েক জন সদস্যও আছেন। তবে ইরান সরকারের দাবি, বিক্ষোভের ১১ দিনে পুলিশ সদস্যসহ প্রাণ গেছে ৪১ জনের।

সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়া ভিডিও বিক্ষোভকে আরও উসকে দিচ্ছে। পরিস্থিতি সামাল দিতে ইন্টারনেট পরিষেবা প্রায় বিচ্ছিন্ন রেখেছে দেশটির সরকার।

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের মধ্যপ্রাচ্য এবং উত্তর আফ্রিকার পরিচালক হেবা মোরায়েফ বলেন, ‘ইন্টারনেট বন্ধ করে অন্ধকারের মধ্যে মানুয়ের ওপর কর্তৃপক্ষের আগ্রাসন কতটা নির্মম ও ক্রমবর্ধমান- সেটি মৃতের উদ্বেগজনক সংখ্যা থেকেই ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে।‘

ইরানে ১৯৭৯ সালের ইসলামিক বিপ্লবের পরই নারীদের জন্য হিজাব বাধ্যতামূলক করা হয়। দেশটির ধর্মীয় শাসকদের কাছে নারীদের জন্য এটি ‘অতিক্রম-অযোগ্য সীমারেখা’। বাধ্যতামূলক এই পোশাকবিধি মুসলিম নারীসহ ইরানের সব জাতিগোষ্ঠী ও ধর্মের নারীদের জন্য প্রযোজ্য।

হিজাব আইন আরও কঠোরভাবে প্রয়োগের জন্য চলতি বছরের ৫ জুলাই ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি একটি আদেশ জারি করেন। এর মাধ্যমে ‘সঠিক নিয়মে’ পোশাকবিধি অনুসরণ না করা নারীদের সরকারি সব অফিস, ব্যাংক এবং গণপরিবহনে নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

এ ঘটনায় গত জুলাইয়েও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে #no2hijab হ্যাশট্যাগ দিয়ে শুরু হয় প্রতিবাদ। দেশটির নারী অধিকারকর্মীরা ১২ জুলাই সরকার ঘোষিত জাতীয় হিজাব ও সতীত্ব দিবসে প্রকাশ্যে তাদের বোরকা ও হিজাব সরানোর ভিডিও পোস্ট করেন।

ইরানে মাহসার পর এবার বিদ্রোহের প্রতীক হাদিস নাজাফি
তিন বছরের মধ্যে ইরানের সবচেয়ে বড় প্রতিবাদটির নেতৃত্ব দিচ্ছেন নারীরা

সে সময় খোলা মাথায় কয়েক সেকেন্ডের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট করেন ইরানি তরুণী মেলিকা কারাগোজলু। এ কারণে সম্প্রতি কারাগোজলুকে ৩ বছর ৮ মাসের কারাদণ্ড দিয়েছে ইরানের আদালত।

আরও পড়ুন:
মাহসা আমিনির ২৩তম জন্মদিনে কবরে ফুল আর কেক
উত্তাল ইরানের এক শহর নিরাপত্তা বাহিনীর হাতছাড়া
ইরানে পোশাকের স্বাধীনতার বিক্ষোভে মৃত্যু বেড়ে ৫০
ইরানের রাস্তায় এবার হিজাবপন্থিরা
ইরানে পোশাকের স্বাধীনতার বিক্ষোভে মৃত বেড়ে ২৬

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Death of Muslim Brotherhood leader Yusuf al Qaradai

মুসলিম ব্রাদারহুডের আধ্যাত্মিক নেতা ইউসুফ আল-কারাদায়ির মৃত্যু

মুসলিম ব্রাদারহুডের আধ্যাত্মিক নেতা ইউসুফ আল-কারাদায়ির মৃত্যু মুসলিম ব্রাদারহুডের আধ্যাত্মিক নেতা ও আন্তর্জাতিক ইউনিয়ন অফ মুসলিম স্কলারের সাবেক চেয়ারম্যান ইউসুফ আল-কারাদায়ি। ছবি: রয়টার্স
সোমবার ৯৬ বছর বয়সে তার মৃত্যু হয়েছে। মৃত্যুর খবরটি তার অফিশিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে এক পোস্টে জানানো হয়।

কাতারভিত্তিক মুসলিম ব্রাদারহুডের আধ্যাত্মিক নেতা ও আন্তর্জাতিক ইউনিয়ন অফ মুসলিম স্কলারের সাবেক চেয়ারম্যান ইউসুফ আল-কারাদায়ির মৃত্যু হয়েছে

আল অ্যারাবিয়ার খবরে বলা হয়, সোমবার ৯৬ বছর বয়সে তার মৃত্যু হয়েছে। মৃত্যুর খবরটি তার অফিশিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে এক পোস্টে জানানো হয়।

তার পুত্র আবদুল রহমান ইউসুফ আল-কারাদায়ি টুইটার অ্যাকাউন্টে দেয়া খবরটি নিশ্চিত করেছেন।

মিসরীয় ইউসুফ আল-কারাদায়ি ২০১৩ সাল থেকে কাতারে নির্বাসিত ছিলেন। পরে কাতার তাকে নাগরিকত্ব দেয়।

২০১৫ সালে মিসরে তার অনুপস্থিতিতে বিচার করা হয় এবং দেশটি তখন ইউসুফের কারাদণ্ডের রায় দেয়।

২০০৪ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে ‘আন্তর্জাতিক ইউনিয়ন অফ মুসলিম স্কলার’-এর চেয়ারম্যান ছিলেন ইউসুফ আল-কারাদায়ি। এরপর টানা ১৫ বছর একই পদে ছিলেন তিনি।

মিসরে ১৯২৬ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর জন্ম হয় ইউসুফ আল-কারাদায়ির। মিসরের উত্তর নীলনদের তীরবর্তী সাফাত তোরাব গ্রামে তার বেড়ে ওঠা শুরু। দুই বছর বয়সে বাবা মারা যান। পরে চাচা তার লালন-পালন করেন। ১০ বছর বয়সে তিনি সম্পূর্ণ কোরআন হিফজ করেন।

আরও পড়ুন:
আইনজীবী ইউসুফের ‘ফি’ ১৬ কোটি টাকা
নারী ও শিশুনির্ভর কন্টেন্ট নির্মাণে মালালার সঙ্গে অ্যাপল
করোনায় বিএনপি নেতা কামাল ইবনে ইউসুফের মৃত্যু
করোনায় আক্রান্ত নাসির উদ্দীন ইউসুফ

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Secret audio of Pak Prime Minister auctioned on dark web for 36 crores

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর গোপন অডিও ফাঁস

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর গোপন অডিও ফাঁস সৌদি আরবে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ। ছবি: এপি
সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরানের দলের নেতা ফাওয়াদ জানান, ১১৫ ঘণ্টার অডিও রেকর্ড ফাঁস হয়েছে। ডার্ক ওয়েবে নিলামকারী এর দাম চাইছেন ৩৬ কোটি সাড়ে ৭ লাখ টাকার মতো।

নানা সংকটে জর্জরিত পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফের কথোপকথনের রেকর্ড ফাঁস হয়েছে, এই অডিও আবার তোলা হয়েছে নিলামেও।

সম্প্রতি ইন্টারনেট জগতে অবৈধ কর্মকাণ্ডের মার্কেটপ্লেস ডার্ক ওয়েবে ওই অডিও নিলামে তোলা হয় বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ নেতা ফাওয়াদ চৌধুরী।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরানের দলের নেতা ফাওয়াদ জানান, ১১৫ ঘণ্টার অডিও রেকর্ড ফাঁস হয়েছে। ডার্ক ওয়েবে নিলামকারী এর দাম চাইছেন ৩৬ কোটি সাড়ে ৭ লাখ টাকার মতো।

তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় যে নিরাপদ না, তা এতেই বোঝা যায়। অডিও শুনলেই তো বোঝা যায়, সব সিদ্ধান্ত আসছে লন্ডন থেকে।’

প্রধানমন্ত্রীর কথোপকথনের অডিও ফাঁসের ঘটনা দেশের নিরাপত্তা বাহিনীর ব্যর্থতার কারণে হয়েছে বলে মনে করেন এই নেতা।

জিও টিভি বলছে, ফাঁস হওয়া অডিওতে প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফের সঙ্গে পাকিস্তান মুসলিম লীগের (নওয়াজ) মরিয়ম নওয়াজ শরিফ, প্রতিরক্ষামন্ত্রী খাজা আসিফ, আইনমন্ত্রী আজম তারার ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রানা সানাউল্লাহ কয়েকজনের কণ্ঠ শোনা গেছে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও ছড়িয়ে পড়েছে ওই অডিওর খণ্ডিত অংশ। একটিতে মরিয়মের সঙ্গে ভারত থেকে পাওয়ার প্ল্যান্ট আনার ব্যাপারে কথা বলছিলেন শাহবাজ শরিফ। আরেকটি অডিওতে পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ নিয়ে মন্ত্রী ও প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলতে শোনা যায় তাকে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রানা সানাউল্লাহ বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী অডিও ফাঁসের বিষয়টি জানেন। এ ব্যাপারে তদন্ত শুরু হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘ফাঁস হওয়া অডিওর তদন্তে সব সংস্থার উচ্চপর্যায়ের কর্মকর্তারা থাকবেন। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নিরাপত্তাব্যবস্থা ঠিক ছিল কি না, তা তদন্তেই বেরিয়ে আসবে।’

মন্ত্রী রানা সানাউল্লাহ বলেন, ‘স্বাচ্ছন্দ্যে বলতে পারি, প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের সব কথোপকথন রেকর্ড করে প্রকাশ করা হলেও তাতে বিব্রতকর কিছু থাকবে না।’

বিভিন্ন নাটকীয়তার পর গত ৯ এপ্রিল মধ্যরাতের অনাস্থা ভোটে ৬৯ বছর বয়সী ইমরান খানের প্রধানমন্ত্রিত্বের অবসান ঘটে। তিনি দেশটির ২২তম প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। পরে পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ জাতীয় পরিষদে আবার ভোটাভুটিতে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজ নেতা শাহবাজ শরিফ।

দুর্নীতির দায়ে নওয়াজ শরিফ অভিশংসিত হওয়ার পর ২০১৮ সালে চার দলের সমর্থন নিয়ে ক্ষমতায় এসেছিলেন ইমরান। তার সরকারের মেয়াদ ছিল ২০২৩ সালের আগস্ট পর্যন্ত।

শাহবাজ শরিফ ক্ষমতায় এসেই রাজনীতি-অর্থনীতিসহ নানা সংকটে ইরমান খানকে দায়ী করেছেন। দলীয় কর্মসূচিতে গিয়ে বাধার মুখে পড়তে হয়েছে ইমরানকে। তিনিও সংকটে শাহবাজকে দায়ী করে তার পদত্যাগ চেয়ে আন্দোলন করছেন।

আরও পড়ুন:
ভারতের সঙ্গে অর্থপূর্ণ আলোচনা চাই: মোদিকে শাহবাজ শরিফ

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Iranian Oscar Jayeer calls on the world to stand by the protesters

বিশ্ববাসীকে বিক্ষোভকারীদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান ইরানি অস্কারজয়ীর

বিশ্ববাসীকে বিক্ষোভকারীদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান ইরানি অস্কারজয়ীর  সাইপ্রাসে ইরানি দূতাবাসের সামনে বিক্ষোভকারীরা। ছবি: সংগৃহীত
কুর্দি তরুণী মাহসা আমিনির মৃত্যুর পর পোশাকের স্বাধীনতার দাবিতে ছড়িয়ে পড়া আন্দোলনে সমর্থন জানাচ্ছেন ইরানের বিশিষ্টজনরা। এবার এই বিক্ষোভের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে বিশ্ববাসীকেও ইরানের বিক্ষোভকারীদের প্রতি সংহতি প্রকাশ করার আহ্বান জানিয়েছেন দুইবারের অস্কার জয়ী ইরানি পরিচালক আসঘার ফারহাদি।

নৈতিকতা পুলিশের হেফাজতে মাহসা আমিনির মৃত্যুর ঘটনায় সৃষ্ট আন্দোলনে বিক্ষোভকারীদের পাশে দাঁড়িয়ে সংহতি জানাতে বিশ্ববাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন দুইবারের অস্কার বিজয়ী ইরানি চলচ্চিত্র পরিচালক আসঘার ফারহাদি।

রোববার ইনস্টাগ্রামে দেয়া এক ভিডিও বার্তায় এ আহ্বান জানান তিনি।

এই সময় চলমান আন্দোলনে পুরুষদের পাশাপাশি প্রতিবাদে নেতৃত্ব দেয়া প্রগতিশীল ও সাহসী নারীদেরও প্রশংসা করেছেন তিনি।

ফারহাদি বলেন, ‘তারা এমন সাধারণ, অথচ মৌলিক অধিকার খুঁজছে যেগুলো রাষ্ট্র তাদের দিতে প্রত্যাখ্যান করেছে।

‘এই সমাজ, বিশেষ করে নারীরা, এই সময়ে এসে কঠোর ও বেদনাদায়ক পথ অতিক্রম করেছে এবং তারা স্পষ্টভাবেই একটি গন্তব্যে পৌঁছেছে।’

তিনি বলেন, ‘আমি তাদের খুব কাছ থেকে দেখেছি, তারা ১৭ থেকে ২০ বছর বয়সী তরুণ-তরুণী।

বিশ্ববাসীকে বিক্ষোভকারীদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান ইরানি অস্কারজয়ীর
দুইবারের অস্কার জয়ী ইরানি পরিচালক আসঘার ফারহাদি

‘তারা যেভাবে রাস্তায় মিছিল করেছে, আমি তাদের মুখে ক্ষোভ ও আশা দেখেছি । সব বর্বরতাকে উপেক্ষা করে তাদের নিজেদের ভাগ্য বেছে নেয়ার অধিকারের দাবিতে তাদের স্বাধীনতার সংগ্রামকে আমি গভীরভাবে সম্মান করি।’

বিশ্ববাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমি সারা বিশ্বের সব শিল্পী, চলচ্চিত্র নির্মাতা, বুদ্ধিজীবী, নাগরিক অধিকার কর্মীদের আহ্বান জানাচ্ছি, যারা মানবিক মর্যাদা ও স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে এবং তারা যাতে ইরানের শক্তিশালী ও সাহসী নারী-পুরুষের প্রতি সংহতি জানিয়ে ভিডিও প্রকাশ করে।’

মূলত জীবনঘনিষ্ঠ চলচ্চিত্র নির্মাণের জন্য পরিচিতি রয়েছে আসঘার ফারহাদির। ২০১১ সালে ‘এ সেপারেশন’ এবং ২০১৬ সালে ‘দ্য সেলসম্যান’ চলচ্চিত্রের জন্য বিদেশি ভাষা ক্যাটাগরিতে দুইবার অস্কার (অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ড) জেতেন তিনি।

আমি তাদের মুখে ক্ষোভ ও আশা দেখেছি । সব বর্বরতাকে উপেক্ষা করে তাদের নিজেদের ভাগ্য বেছে নেয়ার অধিকারের দাবিতে তাদের স্বাধীনতার সংগ্রামকে আমি গভীরভাবে সম্মান করি।

এদিকে ‘সঠিক নিয়মে’ হিজাব না পরার অভিযোগে নৈতিকতা পুলিশের হাতে গ্রেপ্তারের পর ২২ বছরের মাহসা আমিনির মৃত্যুর ঘটনায় ক্ষোভের আগুনে জ্বলছে ইরান।

তেহরানসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় গত কয়েক দিনে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে বিক্ষোভকারীদের ব্যাপক সংঘর্ষ চলছে।

নারীর পোশাকের স্বাধীনতার দাবিতে এই বিক্ষোভে নারীদের পাশাপাশি ইরানি পুরুষও যোগ দিয়েছেন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অনেক নারী নিজেদের পছন্দ অনুযায়ী পোশাক পরার ঘোষণা দিয়ে ভিডিও পোস্ট করছেন।

বিশ্ববাসীকে বিক্ষোভকারীদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান ইরানি অস্কারজয়ীর
এ সেপারেশন ও দ্য সেলসম্যান চলচ্চিত্রের জন্য অস্কার পেয়েছিলেন আসঘার ফারহাদি

কুর্দি নারী মাহসা আমিনিকে ১৩ সেপ্টেম্বর তেহরানের নৈতিকতা পুলিশ গ্রেপ্তার করে। ইরানের দক্ষিণাঞ্চল থেকে তেহরানে ঘুরতে আসা মাহসাকে একটি মেট্রো স্টেশন থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল, তিনি সঠিকভাবে হিজাব করেননি।

পুলিশ হেফাজতে থাকার সময়েই মাহসার হার্ট অ্যাটাক হয়, এরপর তিনি কোমায় চলে যান। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শুক্রবার তার মৃত্যু হয়। পুলিশ মাহসাকে হেফাজতে নির্যাতনের অভিযোগ অস্বীকার করলেও পরিবারের অভিযোগ গ্রেপ্তারের পর তাকে পেটানো হয়।

মাহসার মৃত্যুর প্রতিবাদে গত কয়েক দিন ধরেই উত্তাল ইরান। ইরানের বিভিন্ন জায়গায় নারীর পোশাকের স্বাধীনতার পক্ষে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে নিরাপত্তা বাহিনীর সংঘর্ষও চলছে।

আরও পড়ুন:
ইরানে পোশাকের স্বাধীনতার বিক্ষোভে মৃত্যু বেড়ে ৫০
ইরানের রাস্তায় এবার হিজাবপন্থিরা
ইরানে পোশাকের স্বাধীনতার বিক্ষোভে মৃত বেড়ে ২৬
হিজাবে রাজি হননি সিএনএনের আমানপোর, ইরানি প্রেসিডেন্টের সাক্ষাৎকার বাতিল
ইরানি সেনারা জনতার পক্ষ নিন: সাবেক ফুটবল তারকা

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
What is Elon Musks role in the Iran protests?

উত্তাল ইরানে ইলন মাস্কের ভূমিকা কী

উত্তাল ইরানে ইলন মাস্কের ভূমিকা কী ইরানে স্টারলিংক সক্রিয় করতে যাচ্ছেন ইলন মাস্ক। ছবি: সংগৃহীত
নৈতিকতা পুলিশের হেফাজতে কুর্দি নারী মাহসা আমিনির মৃত্যুর ঘটনায় উত্তাল ইরানে বিক্ষোভ দমনে ইন্টারনেট সেবা সীমিত করেছে দেশটির সরকার। এমন পরিস্থিতিতে আমেরিকার সরকারের সবুজ সংকেত পেয়ে বিক্ষোভকারীদের জন্য ইন্টারনেট সেবা সচল রাখতে এগিয়ে এসেছেন বিশ্বের শীর্ষ ধনী ইলন মাস্ক। তবে এবারই প্রথম নয়, এর আগে কিয়েভের আহ্বানে সারা দিয়ে ইউক্রেনেও ইন্টারনেট সেবা সরবরাহ করেছিলেন তিনি।

চলমান বিক্ষোভের মুখে ইন্টারনেট সেবা সীমিত করেছে ইরান সরকার। এমন পরিস্থিতিতে বিক্ষোভ চাঙ্গা রাখতে আমেরিকার বেসরকারি মহাকাশ গবেষণা সংস্থা স্পেসএক্সের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বিলিয়নেয়ার ইলন মাস্ক সেখানে স্টারলিংক সক্রিয় করার বিষয়টি জানিয়েছেন।

ইরানে নৈতিকতা পুলিশের হেফাজতে ২২ বছর বয়সী কুর্দি তরুণী মাহসা আমিনির মৃত্যুর পর ইরানে শুরু হয় বিক্ষোভ। এই বিক্ষোভ দমনে ইরানের কর্তৃপক্ষ দেশটিতে ইন্টারনেট সেবা সীমিত করে দিয়েছে, ব্লক করে দিয়েছে হোয়াটসঅ্যাপ ও ইনস্টাগ্রাম।

এবার আমেরিকার সরকারের পক্ষ থেকে সবুজ সংকেত পাওয়ার পর বিক্ষোভকারীদের সহযোগিতার জন্য ইরানে স্যাটেলাইট নির্ভর মহাকাশভিত্তিক ইন্টারনেট সেবা চালু করার বিষয়টি আমেরিকার পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টোনি ব্লিঙ্কেনের এক টুইটের জবাবে এমনটাই জানিয়েছেন মাস্ক।

তবে এ বিষয়ে মাস্কের আনুষ্ঠানিক কোনো মন্তব্য জানা যায়নি বা কোন পথে বিক্ষোভকারীদের হাতে রিসিভার এন্টেনা পৌঁছাবে, তাও জানা যায়নি। ইরানিদের হাতে ইন্টারনেট সেবা সরঞ্জাম সরবরাহ করার ক্ষেত্রে কোনো নিয়মতান্ত্রিক জটিলতায় পড়তে হবে না মাস্ককে।

কারণ পরমাণু ইস্যুতে ইরানে আরোপিত নিষেধাজ্ঞার পরও যুক্তরাষ্ট্রের ট্রেজারি বিভাগ ইরানি জনগণের জন্য ইন্টারনেট সেবা সম্প্রসারণের নির্দেশিকা জারি করেছে।

উত্তাল ইরানে ইলন মাস্কের ভূমিকা কী
স্পেসএক্সের রকেটে মহাকাশে স্টারলিংক স্যাটেলাইট

এর আগে বৈশ্বিক ইন্টারনেট পর্যবেক্ষণকারী সংস্থা নেটব্লক্স জানিয়েছিল, ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে পশ্চিম ইরানের কুর্দিস্তান প্রদেশের কিছু অংশে শুরুতে ইন্টারনেট সেবা প্রায় বিচ্ছিন্ন করে দেয়া হয়েছে। বিক্ষোভ শুরুর পর তেহরান ও অন্যান্য শহরেও ইন্টারনেট সেবায় বিঘ্ন ঘটছে।

তেহরান ও দক্ষিণ ইরানের বাসিন্দারা জানিয়েছেন, তারা হোয়াটসঅ্যাপে টেক্সট পাঠাতে পারলেও কোনো ছবি পাঠাতে পারছেন না। ইনস্টাগ্রাম সম্পূর্ণরূপে বন্ধ রয়েছে।

চলমান উত্তাল পরিস্থিতিতে ইরানে ইন্টারনেটের গতিও কমিয়ে দেয়ার খবর পাওয়া গেছে। একটি বড় মোবাইল ফোন অপারেটরের নেটওয়ার্ক ব্যাহত হওয়ার কারণে লাখ লাখ গ্রাহকের সংযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে।

ইন্টারনেট সেবা নিয়ে ইরানি কর্তৃপক্ষের এখনও কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি। দেশটিতে ইন্টারনেটে হস্তক্ষেপ নতুন ঘটনা নয়। এর আগে ২০১৯ সালে সরকারবিরোধী বিক্ষোভের সময়েও প্রায় সপ্তাহখানেক ইন্টারনেট বন্ধ রাখে কর্তৃপক্ষ।

তবে ইন্টারনেট সেবা ব্যাহত হওয়ার ক্ষেত্রে জরুরি ভিত্তিতে ইলন মাস্কের স্টারলিংকের ইন্টারনেট সরবরাহ নতুন কিছু নয়।

এর আগে ইলন মাস্কের প্রতিষ্ঠান স্পেসএক্স স্টারলিংকের হাজার হাজার এন্টেনা পাঠিয়েছে ইউক্রেনে, যাতে রুশ হামলার মধ্যে দেশটির বিপর্যস্ত ইন্টারনেট সেবা সচল থাকে।

ইউক্রেনে রাশিয়া হামলা শুরু করলে ইউক্রেনের পক্ষ থেকে ইলন মাস্কের কাছে সহায়তা চাওয়া হয়। ইলন মাস্ক সে আহ্বানে সাড়া দিয়ে স্টারলিংক স্যাটেলাইট ইউক্রেনের জন্য সচল করেন।

স্পেসএক্সের সহপ্রতিষ্ঠান স্টারলিংক পৃথিবীর দ্রুত বিকাশমান বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানগুলোর একটি, যাদের লক্ষ্য পৃথিবীর লো-অরবিটে থাকা স্যাটেলাইট থেকে বিশ্বব্যাপী লো লেটেন্সির ব্রডব্র্যান্ড ইন্টারনেট সেবা প্রদান করা। স্টারলিংক তার বিনিয়োগকারীদের জানিয়েছে, খুব শিগগিরই প্রতিষ্ঠানটি ১ ট্রিলিয়ন ডলারের বাজার তৈরিতে সক্ষম হবে।

আরও পড়ুন:
ইরানের রাস্তায় এবার হিজাবপন্থিরা
ইরানে পোশাকের স্বাধীনতার বিক্ষোভে মৃত বেড়ে ২৬
হিজাবে রাজি হননি সিএনএনের আমানপোর, ইরানি প্রেসিডেন্টের সাক্ষাৎকার বাতিল
ইরানি সেনারা জনতার পক্ষ নিন: সাবেক ফুটবল তারকা
নারীর পোশাকের স্বাধীনতার বিক্ষোভে ইরানে নিহত ১৭

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
India and China want talks to end Ukraine war

ইউক্রেন যুদ্ধ বন্ধে আলোচনা চায় ভারত ও চীন  

ইউক্রেন যুদ্ধ বন্ধে আলোচনা চায় ভারত ও চীন   জাতিসংঘ সফরে ইউক্রেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দিমিত্রো কুলেবার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং। ছবি: এএফপি
ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুব্রামানিয়াম জয়শঙ্কর বলেন, ‘আমরা শান্তির পক্ষে আছি এবং দৃঢ়ভাবে সেখানে থাকবে। আমরা সেই পক্ষে আছি, যে পক্ষ সংলাপ এবং কূটনীতির চায়। অন্যদিকে, চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রী ওয়াং বলেন, ‘ইউক্রেন সংকটের শান্তিপূর্ণ সমাধানের জন্য সহায়ক সব প্রচেষ্টাকে সমর্থন করে বেইজিং।’

আলোচনার মাধ্যমে ইউক্রেন যুদ্ধ শেষ করার আহ্বান জানিয়েছে ভারত ও চীন। নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৭৭তম অধিবেশনে শনিবার এ আহ্বান জানায় দিল্লি ও বেইজিং।

চলতি অধিবেশনের শুরু থেকেই চাপেই ছিলেন রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ। অবশেষে শনিবার তিনি ইউক্রেন ইস্যুতে কথা বলেন। জানান, রাশিয়ার বিরুদ্ধে ‘জঘন্য’ প্রচারণা চালাচ্ছে পশ্চিম।

তবে এদিন রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে সমর্থন দিতে দেখা যায়নি গুরুত্বপূর্ণ কোনো দেশকে। ফেব্রুরায়িতে ইউক্রেন অভিযানের কদিন আগে যে চীন রুশ প্রেসিডেন্টের কাছে ‘অটুট’ বন্ধনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল, তারাও মুখে কুলুপ আঁটেন।

সংকট যেন উন্নয়নশীল দেশগুলোকে প্রভাবিত না করে সেদিকে নজর রাখতে রাশিয়া ও ইউক্রেনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই।

ওয়াং বলেন, ‘ইউক্রেন সংকটের শান্তিপূর্ণ সমাধানের জন্য সহায়ক সব প্রচেষ্টাকে সমর্থন করে চীন। শান্তি জন্য প্রয়োজন আলোচনা।

‘মৌলিক সমাধান হলো সব পক্ষের বৈধ নিরাপত্তা উদ্বেগকে মোকাবিলা করা এবং একটি ভারসাম্যপূর্ণ, কার্যকর এবং টেকসই নিরাপত্তা ব্যবস্থা তৈরি করা।’

২৪ ফেব্রুয়ারি যুদ্ধ শুরুর পর এই প্রথম ইউক্রেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দিমিত্রো কুলেবার সঙ্গে দেখা করেন চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই।

চলতি মাসের শুরুতে রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের সঙ্গে এক বৈঠকে চীনের প্রেসিডেন্ট প্রেসিডেন্ট শি চিনপিং ইউক্রেন ইস্যুতে উদ্বেগ জানিয়েছিলেন

চীনের চেয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ঘনিষ্ঠ ভারত। তবে মস্কোর সঙ্গে দিল্লির সম্পর্কও পুরোনো। প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম আমদানিতে রাশিয়ার ওপর অনেকটায় নির্ভর করতে হয় ভারতকে।

ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুব্রামানিয়াম জয়শঙ্কর বলেন, ‘ইউক্রেনের সংঘাত ক্রমাগত উত্তপ্ত হওয়ার কারণে আমাদের এই প্রশ্নের মুখে পড়তে হয় যে আমরা আসলে কার পক্ষে আছি।

‘আমাদের উত্তর সবসময় সোজা এবং সৎ... ভারত শান্তির পক্ষে আছে এবং দৃঢ়ভাবে সেখানে থাকবে। আমরা সেই পক্ষে আছি, যে পক্ষ সংলাপ এবং কূটনীতির পক্ষে।

যুদ্ধের জন্য চীনের জোরালো সমর্থনের ঘাটতি দেখেন না আমেরিকান কর্মকর্তারা। তারা চীনের এই অবস্থানে দারুণ খুশী। জানিয়েছে, বেইজিং সামরিক সরঞ্জাম পাঠানোর অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করায় রাশিয়াকে এখন উত্তর কোরিয়া এবং ইরানের ওপর নির্ভর করতে বাধ্য করেছে।

আক্রমণাত্মক রাশিয়া

একটি সংবাদ সম্মেলনে ইউক্রেন ইস্যুতে চীনের পক্ষ থেকে কোনো চাপ এসেছে কি না এমন প্রশ্ন এড়িতে যান রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ল্যাভরভ। এসবের চেয়ে পশ্চিমের নিন্দা করতে বেশি ব্যস্ত ছিলেন তিনি।

ল্যাভরভ বলেন, ‘পশ্চিমে রুসোফোবিয়া নজিরবিহীন। তারা আমাদের দেশে কেবল সামরিক পরাজয় ঘটাতে নয়, রাশিয়াকে ধ্বংস ও ভেঙে ফেলার অভিপ্রায় ঘোষণা করতেও পিছপা হচ্ছে না।

‘স্নায়ুযুদ্ধ শেষের পর যুক্তরাষ্ট্র এমন ভান করা শুরু করে যে তারা পৃথিবীতে ঈশ্বরের পাঠানো দূত। যখন যেখানে যা করতে ইচ্ছা করে, তা করা যেন পবিত্র দায়িত্ব তাদের।’

ইউরোপীয় ইউনিয়নকে ‘স্বৈরাচারী, কঠোর, দখলদার সত্তা’ বলে বর্ণনা করেছেন। বলেছেন, সাইপ্রাসের প্রেসিডেন্ট নিকোস আনাস্তাসিয়াদেসকে মস্কোর সঙ্গে নির্ধারিত বৈঠক বাতিল করতে বাধ্য করেছে ব্লকটি।

ইউক্রেন ইস্যুতে রাশিয়ার সঙ্গে না থাকায় পশ্চিমের কড়া সমালোচনা করেন ল্যাভরভ। বলেন, ‘যোগাযোগ রক্ষার ক্ষেত্রে আমরা কখনই দূরে সরে যাইনি।’

রিজার্ভ সেনা তলব এবং পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহারের ইঙ্গিত দেয়ায় রাশিয়ার ওপর নতুন নিষেধাজ্ঞার কথা ভাবছে পশ্চিম। তারা ইতোমধ্যে পূর্ব ইউক্রেনে রাশিয়ার আয়োজিত গণভোটের ফলকে স্বীকৃতি না দেয়ার অঙ্গিকার করেছে।

আরও পড়ুন:
রাশিয়াকে শাস্তি পেতেই হবে: জেলেনস্কি
রাশিয়ার বিরুদ্ধে সরাসরি যুদ্ধে ন্যাটো!  
যুদ্ধেই ইউক্রেন সংকটের সমাধান: ক্রেমলিন
রুশ ফেডারেশনে ঢুকতে ডনবাস প্রজাতন্ত্রে গণভোট
ইউক্রেনকে ভেঙে ফেলার আহ্বান রোমানিয়ান কূটনীতিকের

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Anti Hijabs Get Appropriate Answer Iranian President

হিজাববিরোধীরা সমুচিত জবাব পাবে: ইরানি প্রেসিডেন্ট

হিজাববিরোধীরা সমুচিত জবাব পাবে: ইরানি প্রেসিডেন্ট ১৬ সেপ্টেম্বর মাহসা আমিনির মৃত্যুর পর থেকে গোটা ইরানে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। ছবি: সংগৃহীত
তিন বছরের মধ্যে ইরানের সবচেয়ে বড় প্রতিবাদটির নেতৃত্ব দিচ্ছেন নারীরা। এবারের প্রতিবাদটা রাজনৈতিক বা অর্থনৈতিক ইস্যুতে নয়, বিস্ফোরণটি ইসলামি প্রজাতন্ত্রের আরোপিত লিঙ্গভিত্তিক পোশাক কোডের প্রতিক্রিয়ায়।

ইরানে নৈতিকতা পুলিশের হেফাজতে কুর্দি তরুণী মাহসা আমিনির মৃত্যুর পর থেকে দেশটিতে যে অস্থিরতার ঢেউ ছড়িয়ে পড়েছে, তার বিরুদ্ধে সমুচিত জবাব দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি। অতি রক্ষণশীল এই প্রেসিডেন্ট হিজাববিরোধী আন্দোলনকে ‘দাঙ্গা’ বলে বর্ণনা করেছেন।

তিনি বলেছেন, যারা দেশ ও জনগণের নিরাপত্তা বিঘ্নিত করে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করছে তাদের বিরুদ্ধে ‘উপযুক্ত ব্যবস্থা’ নেয়া হবে।

বিক্ষোভে মাশহাদ শহরে নিহত নিরাপত্তা বাহিনীর এক সদস্যের পরিবারের সঙ্গে শনিবার ফোনালাপে এ কথা বলেন ইরানের প্রেসিডেন্ট।

ইরান সরকারের হিসাবে, হিজাববিরোধী আন্দোলনে এ পর্যন্ত মারা গেছেন অন্তত ৪১ জন। নিহতদের বেশির ভাগ বিক্ষোভকারী, কয়েকজন নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য। তবে মানবাধিকার সংস্থাগুলোর হিসাবে প্রকৃত সংখ্যা আরও বেশি।

১৬ সেপ্টেম্বর মাহসা আমিনির মৃত্যুর পর থেকে শুরু হওয়া প্রতিবাদে কয়েক শ বিক্ষোভকারী, সংস্কারপন্থি এবং সাংবাদিক গ্রেপ্তার হয়েছেন। বিক্ষোভ এখন ছড়িয়ে পড়েছে অন্তত ৭০টি শহর ও গ্রামে।

বিক্ষোভ দমাতে সরাসরি গুলি ছুড়ছে নিরাপত্তা বাহিনী, জেরা করা হচ্ছে মানবাধিকারকর্মীদের। অন্যদিকে, পুলিশকে লক্ষ্য করে পাথর মারছে বিক্ষোভকারীরা, সরকারি ভবন এবং গাড়িতেও আগুন দিচ্ছে তারা। ‘স্বৈরশাসকের মৃত্যু চাই’ বলে স্লোগান দিচ্ছে বিক্ষুব্ধরা।

তিন বছরের মধ্যে ইরানের সবচেয়ে বড় প্রতিবাদটির নেতৃত্ব দিচ্ছেন নারীরা। এবারের প্রতিবাদটা রাজনৈতিক বা অর্থনৈতিক ইস্যুতে নয়, বিস্ফোরণটি ইসলামি প্রজাতন্ত্রের আরোপিত লিঙ্গভিত্তিক পোশাক কোডের প্রতিক্রিয়ায়।

হিজাববিরোধীরা সমুচিত জবাব পাবে: ইরানি প্রেসিডেন্ট
তিন বছরের মধ্যে ইরানের সবচেয়ে বড় প্রতিবাদটির নেতৃত্ব দিচ্ছেন নারীরা

মাহসা আমিনিকে গত ১৩ সেপ্টেম্বর তেহরানের ‘নৈতিকতা পুলিশ’ গ্রেপ্তার করে। ইরানের দক্ষিণাঞ্চল থেকে তেহরানে ঘুরতে আসা মাহসাকে একটি মেট্রো স্টেশন থেকে ধরা হয়। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল, সঠিকভাবে হিজাব করেননি তিনি।

পুলিশ হেফাজতে মাহসা অসুস্থ হয়ে পড়েন, একসময় চলে যান কোমায়। হাসপাতালে ১৬ সেপ্টেম্বর তার মৃত্যু হয়। পুলিশ মাহসাকে হেফাজতে নির্যাতনের অভিযোগ অস্বীকার করলেও পরিবারের অভিযোগ গ্রেপ্তারের পর তাকে পেটানো হয়েছে।

মাহসার মৃত্যুর পর থেকেই উত্তাল ইরান। ফেসবুক ও টুইটারে #mahsaamini এবং #Mahsa_Amini হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে চলছে প্রতিবাদ। দেশটির বিভিন্ন জায়গায় নারীর পোশাকের স্বাধীনতার পক্ষে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে সংঘর্ষ চলছে নিরাপত্তা বাহিনীর।

কিছু ইরানি নারী বিক্ষোভকারী তখন থেকে সমাবেশে নিজেদের হিজাব খুলে ফেলছে, অনেকে নিজের চুল কেটে ফেলছেন, কেউ কেউ নারীর স্বাধীনতার দাবিতে স্লোগান দিচ্ছে।

ইরানে ১৯৭৯ সালের ৭ মার্চ নারীদের জন্য হিজাব বাধ্যতামূলক করা হয়। দেশটির ধর্মীয় শাসকদের কাছে নারীদের জন্য এটি ‘অতিক্রম-অযোগ্য সীমারেখা’। বাধ্যতামূলক এই পোশাকবিধি মুসলিম নারীসহ ইরানের সব জাতিগোষ্ঠী ও ধর্মের নারীদের জন্য প্রযোজ্য।

এই পোশাকবিধি অনুযায়ী নারীদের জনসমক্ষে চুল সম্পূর্ণভাবে ঢেকে রাখতে হয় এবং লম্বা, ঢিলেঢালা পোশাক পরা বাধ্যতামূলক। আর বিষয়টি নিশ্চিতের দায়িত্ব রয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর বিশেষ শাখা- নৈতিকতা পুলিশের ওপর।

‘ক্ষোভ এবং আশা’

মানবাধিকারের দাবিতে চলা কর্মসূচিতে নেতৃত্ব দেয়া প্রগতিশীল এবং সাহসী নারীদের সমর্থনে ইরানের অনেক পুরুষ রাস্তায় নেমেছেন। ইরানের অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ড জয়ী চলচ্চিত্র নির্মাতা আসগর ফারহাদিও নাম লিখিয়েছেন এই তালিকায়।

ইনস্টাগ্রামে একটি ভিডিও বার্তায় তিনি বলেন, ‘তারা যেভাবে রাস্তায় মিছিল করেছে, আমি তাদের মুখে ক্ষোভ ও আশা দেখেছি।

‘তাদের স্বাধীনতার জন্য সংগ্রাম এবং ভাগ্য বেছে নিতে সাহসে আমি মুগ্ধ। সম্মান জানাই তাদের।’

সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রতিবাদের ভিডিও ছড়িয়ে পড়ায় পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হয়ে উঠছে। ব্যাপকহারে শেয়ার হওয়া একটি ভিডিওতে দেখা যায়, খোলা চুলের এক তরুণীর সঙ্গে ধ্বস্তাধস্তির পর তাকে মাটিতে চেপে ধরেছে দাঙ্গা পুলিশ। পরে অন্য নারীরা তাকে সেখান থেকে উদ্ধার করে।

এমন পরিস্থিতে পুরানো নিষেধাজ্ঞা অনুসরণ করতে শুরু করেছে ফেসবুক, টুইটার, টিকটক এবং টেলিগ্রাম। তারা ওয়েব মনিটর নেটব্লকসের মাধ্যমে হোয়াটসঅ্যাপ, ইনস্টাগ্রাম এবং স্কাইপ পরিষেবা বন্ধ করে দিয়েছে। সীমিত করে দিয়েছে ইন্টারনেট সেবা।

হিজাববিরোধীরা সমুচিত জবাব পাবে: ইরানি প্রেসিডেন্ট
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৬ সেপ্টেম্বর মারা যান মাহসা আমিনি

এই অবস্থায় আরও রক্তপাতের ঝুঁকি সম্পর্কে ইরান সরকারকে সতর্ক করেছে লন্ডনভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা- অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল।

দেশের বাইরে থেকে ইরানের নারীদের প্রতি সংহতি জানিয়েও বিক্ষোভ চলছে। অ্যাথেন্স, বার্লিন, ব্রাসেলস, ইস্তাম্বুল, মাদ্রিদ, নিউ ইয়র্ক, প্যারিস, সান্তিয়াগো, স্টকহোম, দ্য হেগ, টরন্টো এবং ওয়াশিংটনসহ বিভিন্ন শহরে চলছে প্রতিবাদ।

‘বিদেশি ষড়যন্ত্র’

ইরান দেশটি চালান ৮৩ বছর বয়স্ক আয়াতুল্লাহ আলি খামেনি। মূলত পরমাণু কর্মসূচি কারণে মধ্যপ্রাচ্যের দেশটি এক প্রকার অবরুদ্ধ হয়ে আছে। আছে অর্থনৈতিক নানা নিষেধাজ্ঞা। ইরানের এই পরিস্থিতির জন্য বরাবরই ‘বিদেশি চক্রান্ত’কে দায়ী করছে দেশটির সরকার৷

হিজাব এবং রক্ষণশীল মূল্যবোধের পক্ষে বড় সমাবেশেরও আয়োজন করেছে ইরান সরকার। তেহরানের এঙ্গেলাব (বিপ্লব) স্কোয়ারে রোববার আরেকটি সরকারপন্থী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। শুক্রবার বড় সমাবেশ করেন হিজাবপন্থিরা।

বাধ্যতামূলক পোষাক কোড প্রত্যাহার এবং নৈতিকতা পুলিশের কার্যক্রম বন্ধের আহ্বান জানিয়েছে ইরানের প্রধান সংস্কারবাদী দল- ইউনিয়ন অফ ইসলামিক ইরান পিপলস পার্টি। ‘শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভের অনুমোদন’ এবং গ্রেপ্তারদের মুক্তির আহ্বান জানিয়েছেন ইরানের সাবেক প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ খাতামি।

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠনগুলো ইরানের অস্থিতিশীল পরিস্থিতির ওপর কড়া নজর রাখছে। ইরানে তাদের নিজস্ব উত্স থেকে তথ্য সংগ্রহ করছে তারা।

অসলোভিত্তিক সংগঠন ইরান হিউম্যান রাইটস নিরাপত্তা বলছে, নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য বাদেই কমপক্ষে ৫৪ জনের মৃত্যু হয়েছে বিক্ষোভে। অনেকের মরদেহ গোপনে দাফন করতে তাদের পরিবারকে জোর করা হয়েছে বলেও জানাচ্ছে মানবাধিকার সংগঠনটি।

হিজাববিরোধীরা সমুচিত জবাব পাবে: ইরানি প্রেসিডেন্ট
রাস্তায় ব্যারিকেড দিয়ে, আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করছেন হিজাববিরোধীরা

ইরানি কর্তৃপক্ষ এখনও আমিনির মৃত্যুর কারণ জানায়নি। তবে তার পরিবার বলছে, মাথায় আঘাতের কারণেই আমিনির মৃত্যু হয়েছে।

আমিনিকে মারধর করা হয়নি… এ কথা শুরু থেকেই জোর গলায় দাবি করে আছেন ইরানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আহমেদ ওয়াহিদি। তিনি বলেছেন, ‘এ ঘটনায় সিদ্ধান্তকে পৌঁছাতে অবশ্যই মেডিক্যাল পরীক্ষকের চূড়ান্ত মতামতের জন্য অপেক্ষা করতে হবে।’

আরও পড়ুন:
ইরানে পোশাকের স্বাধীনতার বিক্ষোভে মৃত বেড়ে ২৬
হিজাবে রাজি হননি সিএনএনের আমানপোর, ইরানি প্রেসিডেন্টের সাক্ষাৎকার বাতিল
ইরানি সেনারা জনতার পক্ষ নিন: সাবেক ফুটবল তারকা
নারীর পোশাকের স্বাধীনতার বিক্ষোভে ইরানে নিহত ১৭
ইরান বিক্ষোভে নিহত বেড়ে ৮, বাইডেনের সংহতি

মন্তব্য

p
উপরে