× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য

আন্তর্জাতিক
EU pledges 27 million euros in aid to Afghanistan
hear-news
player
print-icon

আফগানিস্তানে ইইউ’র ২৬৮ মিলিয়ন ইউরোর সহায়তা প্রতিশ্রুতি

আফগানিস্তানে-ইইউর-২৬৮-মিলিয়ন-ইউরোর-সহায়তা-প্রতিশ্রুতি আফগানিস্তানে চলমান অর্থনৈতিক সংকটে সৃষ্ট অতিরিক্ত মুদ্রাস্ফীতির ফলে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্যও বৃদ্ধি পেয়েছে। ছবি: সংগৃহীত
ইউরোপীয় ইউনিয়ন আরও জানিয়েছে, শিক্ষা, চিকিৎসা ও জীবনযাত্রার মানকেন্দ্রিক বিষয়গুলোতে এই অর্থ ব্যয় হবে।

গত বছর আগস্টে তালেবান গোষ্ঠী ক্ষমতায় আসার পর দেশটির উন্নয়ন সহযোগী ও দাতা সংস্থাগুলো নতুন সরকার থেকে মুখ ফিরিয়ে নেয়। এমনকি যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক আফগানিস্তানের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ৯ বিলিয়ন ডলার আটকে দেয়। ফলে আফগানিস্তানের অর্থনৈতিক পরিস্থিতির অবনতি হতে থাকে।

এবার দেশটির ক্রম অবনতিশীল অর্থনৈতিক পরিস্থিতি ঠেকাতে ইউরোপীয় ইউনিয়ন বেশ কয়েকটি প্রকল্প শুরু করতে যাচ্ছে।

টোলো নিউজের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইইউ জানিয়েছে, এ প্রকল্পগুলো আফগান জনগণকে বর্তমান পরিস্থিতিতে মানিয়ে নিতে সাহায্য করবে।

বৈশ্বিক কর্মকাণ্ডে ইইউর অংশগ্রহণের কারণ হলো আমরা কাউকেই পেছনে ফেলে এগিয়ে যেতে চাই না। আমরা বহুবার বলেছি, আফগান জনগণকে আমরা কখনোই পরিত্যাগ করব না।

মঙ্গলবার ইউরোপীয় কমিশন জানিয়েছে, নতুন প্রকল্পগুলোর ব্যয় ২৬৮.৩ মিলিয়ন ইউরো এবং আফগানিস্তানে কাজ করে যাওয়া জাতিসংঘের সংস্থা ইউনিসেফ, ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রাম, ইউএনডিপি, ইউএনএইচসিআর ও আইওমের মাধ্যমে প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন করা হবে।

ইউরোপীয় ইউনিয়ন আরও জানিয়েছে, শিক্ষা, চিকিৎসা ও জীবনযাত্রার মানকেন্দ্রিক বিষয়গুলোতে এই অর্থ ব্যয় হবে।

ইউরোপীয় ইউনিয়ন কমিশনার জুত্তা ইউরপিলাইনেন বলেন, ‘বৈশ্বিক কর্মকাণ্ডে ইইউর অংশগ্রহণের কারণ হলো আমরা কাউকেই পেছনে ফেলে এগিয়ে যেতে চাই না। আমরা বহুবার বলেছি, আফগান জনগণকে আমরা কখনোই পরিত্যাগ করব না।‘

এর আগে যুক্তরাষ্ট্রও আফগানিস্তানকে সর্বমোট ৭০৮ মিলিয়ন ডলারের সহায়তা প্রদানের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

গত সপ্তাহে হোয়াইট হাউসের মুখপাত্র এমিলি হর্ন জানিয়েছিলেন, মানবিক সহায়তা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান যারা আফগানিস্তানে ও আফগান শরণার্থীদের জন্য বাসস্থান, চিকিৎসা ও দরকারি খাদ্য সহায়তা প্রদান করে থাকে। সেসব প্রতিষ্ঠানকে ইউএস এজেন্সি ফর ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্টের (ইউএসএআইডি) মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্র প্রতিশ্রুত ৭০৮ মিলিয়ন ডলার সহায়তা প্রদান করবে।

ইতিমধ্যে আফগানিস্তানে চলমান অর্থনৈতিক সংকটে সৃষ্ট অতিরিক্ত মুদ্রাস্ফীতির ফলে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্যও বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে খাদ্যাভাব ও মানবিক সংকটে পড়েছে দেশটি।

জাতিসংঘের তথ্য মতে, দেশটির অর্ধেক মানুষ খাদ্যসংকটে পড়বে। এ ছাড়া লাখ লাখ মানুষ যারা পার্শ্ববর্তী দেশে পালিয়ে গেছে, তাদের সহায়তার জন্যও ব্যাপক অর্থের প্রয়োজন হবে।

আরও পড়ুন:
অজ্ঞাতের গুলিতে ছেলেসহ তালেবান কমান্ডার নিহত
আফগানিস্তানে ভূমিকম্পে নিহত অন্তত ২৬
যুক্তরাষ্ট্রের সিনাগগে জিম্মি ঘটনা, আফিয়ার মুক্তি দাবি
আফগানিস্তানকে যুক্তরাষ্ট্রের ৩০৮ মিলিয়ন ডলারের বাড়তি সহায়তা
বেতন না পাওয়ায় আফগান রাষ্ট্রদূতের পদত্যাগ

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
Surma excavation In 10 years not a single project has seen the light of day

সুরমা খনন: ১০ বছরে চার প্রকল্প, দেখেনি আলোর মুখ

সুরমা খনন: ১০ বছরে চার প্রকল্প, দেখেনি আলোর মুখ বন্যার আগে সুরমায় চরে চরছে গবাদিপশু। ফাইল ছবি/নিউজবাংলা
সিলেটে চলমান বন্যা ও গত মাসে হাওরে অকাল বন্যায় ফসলহানির পর ফের আলোচনায় এসেছে এই অঞ্চলের প্রধান নদী সুরমা খননের বিষয়টি। এই দুই বন্যার জন্যই সুরমার নদীর তলদেশ ভরাট হয়ে যাওয়াকে দায়ী করছেন সংশ্লিষ্টরা। সিলেটের দুঃখ হয়ে উঠেছে ভরাট ও দখল হয়ে যাওয়া নদীটি।

১৮ বছর পর সবচেয়ে ভয়াবহ বন্যার কবলে পড়েছে সিলেট। উজার থেকে নেমে আসা ঢল সুরমার দুই তীর ছাপিয়ে ডুবিয়ে দিয়েছে সিলেট শহর। দীর্ঘদিন নদী খনন না করায় বেশি ভুগতে হচ্ছে শহর ও সে অঞ্চলের সুরমা তীরবর্তী মানুষকে। অথচ ১০ বছরে সিলেটের সুরমা নদী খননে চারটি প্রকল্প নেয়া হয়েছে। উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাবনাগুলো (ডিপিপি) মন্ত্রাণলয়ে পাঠানো হয়। এরপর তিনবার সমীক্ষাও হয়েছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত সুরমা খননে নেয়া কোনো প্রকল্পই আলোর মুখ দেখেনি।

সবশেষ ২০২০ সালে আভ্যন্তরীন নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষের ড্রেজিং বিভাগ সুরমা খননে ৩ হাজার কোটি টাকার একটি প্রকল্প পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে পাঠায়। সেটিও এখন পর্যন্ত পাস হয়নি।

তারও আগে পানি উন্নয়ন বোর্ড থেকে সুরমা খননে তিনটি ডিপিপি মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছিল।

সিলেটে চলমান বন্যা ও গত মাসে হাওরে অকাল বন্যায় ফসলহানির পর ফের আলোচনায় এসেছে এই অঞ্চলের প্রধান নদী সুরমা খননের বিষয়টি। এই দুই বন্যার জন্যই সুরমার নদীর তলদেশ ভরাট হয়ে যাওয়াকে দায়ী করছেন সংশ্লিষ্টরা। সিলেটের দুঃখ হয়ে উঠেছে ভরাট ও দখল হয়ে যাওয়া নদীটি।

দীর্ঘদিনই ধরেই স্থানীয়রা নদী খননের দাবি জানিয়ে আসছেন। এবার উপর্যোপুরি বন্যার পর সরকারের কর্তাব্যক্তিরা বলছেন, সুরমা নদী খনন করা হবে।

সুরমা খনন: ১০ বছরে চার প্রকল্প, দেখেনি আলোর মুখ
দখলে-দূষণে, বর্জ্যের স্তুপে সুরমা নদী পরিণত হয়েছে খালে। ফাইল ছবি/নিউজবাংলা

গত ১৮ মে সিলেটে বন্যাদুর্গত এলাকা পরিদর্শনে গিয়ে সিলেট-১ আসনের সংসদ সদস্য ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবুল মোমেনও বলেন, ‘সুরমা নদীর তলদেশ ভরাট হয়ে যাওয়ায় পানি আটকে থাকছে। এই নদী খনন করতে হবে।’

আগামী বর্ষার আগেই নদী খনন করা হবে উল্লেখ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘সিলেটের নদীগুলো খননের ব্যাপারে আমাদের সরকার ও প্রধানমন্ত্রী খুবই আন্তরিক। আমরা নদী খননের পরিকল্পনা নিয়েছি। আগামী বর্ষার আগেই নদীগুলো খনন করতে হবে।’

তবে এখন পর্যন্ত নদী খনন প্রকল্প মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন না পাওয়ায় বর্ষার আগে আদৌ নদী খনন সম্ভব হবে কী না এ নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

এই সময়ের মধ্যে নদী খনন নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সিলেটের সভাপতি ফারুক মাহমুদ চৌধুরী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সুরমা নদী একদিনে ভরাট হয়নি। দীর্ঘদিন ধরে পলি জমে এটি এখন মরা খালে পরিণত হয়েছে। আরও আগেই এ নদী খননের উদ্যোগ নেয়ার প্রয়োজন ছিল। কিন্তু এখন পর্যন্ত মন্ত্রণালয় থেকে নদী খননের প্রকল্পই পাস হয়নি।’

তিনি বলেন, ‘সরকারি প্রকল্পে যে জটিল আমলাতান্ত্রিক প্রক্রিয়া, তাতে প্রকল্প পাস হয়ে কাজ শুরু হতেই বছর পেরিয়ে যায়। ফলে আগামী বর্ষার আগে খনন কাজ শেষ হওয়া কোনভাবেই সম্ভব নয়। তবু আমরা চাই, দ্রুততম সময়ের মধ্যে যেন খনন কাজটা শুরু হয়।’

১০ বছরে চার প্রকল্প

২০১২ সালে সুরমা নদী খননে সর্বপ্রথম একটি প্রকল্প নেয় পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)। পাউবোর সিলেট সিলেট কার্যালয় থেকে এই প্রকল্প প্রস্তাবনা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। প্রস্তাবের পর নদী খননে সমীক্ষা চালানো হয়। সমীক্ষার পর নদী খননে উদ্যোগ নেয়ার কথা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল। তবে এরপর এ ব্যাপারে আর উদ্যোগ নেয়া হয়নি।

২০১৭ সালে ৩০০ কোটি টাকার আরেকটি প্রকল্প পাঠায় পাউবো। আর ২০১৯ সালে সুরমা ও কুশিয়ারা নদী খনন, বাঁধ নির্মাণ ও নদী তীর প্রতিরক্ষার জন্য ২ হাজার ২০০ কোটি টাকার একটি ডিপিপি পাঠায় পাউবো। সেবারও সমীক্ষা চালানো হয়। তবে সমীক্ষাতেই আটকে যায় কার্যক্রম।

এরপর ২০২০ সালে আভ্যন্তরীন নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) সুরমা খননে ৩ হাজার কোটি টাকার একটি প্রকল্প প্রস্তাব মন্ত্রণালয়ে পাঠায়। ওই বছর তারা সমীক্ষাও চালায়। তবে এই প্রকল্পও এখন পর্যন্ত মন্ত্রণালয়ে আটকে আছে।

সুরমা খনন: ১০ বছরে চার প্রকল্প, দেখেনি আলোর মুখ
দীর্ঘদিন ধরে খনন না করায় নাব্য হারিয়েছে সুরমা নদী, ফলে নদীতে জেগে আছে চর। ফাইল ছবি/নিউজবাংলা

পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) সিলেট কার্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী আসিফ আহমদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘নদী খননে আমরা তিনটি ডিপিপি মন্ত্রণালয়ে দিয়েছিলাম। কিন্তু প্রকল্পগুলো পাস হয়নি।’

আর বাংলাদেশ আভ্যন্তরীন নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষের ড্রেজিং বিভাগের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী (পুর) ছাইদুর রহমান বলেন, ‘আমরা ৩ হাজারের কিছু বেশি টাকার একটা প্রকল্প জমা দিয়েছিলাম। অনেকদিন আগেই এটি পরিকল্পনা কমিশনে জমা হয়েছিল। তবে এখনো পাস হয়নি।’

পাউবোর এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘সুরমা ও কুশিয়ারা ভারত থেকে উৎপত্তি হয়েছে। সুরমার প্রথম ২৫ কিলোমিটার ভারত-বাংলাদেশের সীমান্ত লাইন দিয়ে গেছে। ফলে উৎসমুখ থেকে খননের জন্য যৌথ নদী কমিশন থেকে উদ্যোগ নিতে হবে।

‘যৌথ নদী খনন করতে হলে দুই দেশের যৌথ সম্মতি ও চুক্তির প্রয়োজন হয়। ভারতের সাথে চুক্তি না হওয়ায় এতোদিন আটকে ছিল এ নদী খনন। তবে সম্প্রতি যৌথ নদী প্রটেশনের আওতায় ভারতের সাথে চুক্তি হয়েছে।’

পাউবো না বিআইডব্লিউটিএ- কারা খনন করবে

২০১৯ সালে পাউবোর সিলেট কার্যালয় থেকে সুরমা ও কুশিয়ারা নদী খনন, বাঁধ নির্মাণ ও নদী তীর প্রতিরক্ষার জন্য ২ হাজার ২০০ কোটি টাকার একটি ডিপিপি পাঠানো হয়। এরপর ২০২০ সালে বিআইডব্লিউটিএ সুরমা ও কুশিয়ারা নদীতে সমীক্ষা চালায়।

পাউবোর সিলেট কার্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী আসিফ আহমদ বলেন, ‘সমীক্ষা করার পর বিআইডব্লিউটিএ থেকে আমাদের জানানো হয়, আমাদের ডিপিপি থেকে খননের বিষয়টি বাদ দেয়ার জন্য। এরপর তারা ড্রেজিংয়ের জন্য আলাদা একটি প্রকল্প প্রস্তবনা পরিকল্পনা কমিশনে জমা দিয়েছে। তারাই সুরমা ও কুশিয়ারা খনন করবে।’

সুরমা খনন: ১০ বছরে চার প্রকল্প, দেখেনি আলোর মুখ
১৮ বছর পর সবচেয়ে বড় বন্যা দেখছে সিলেট শহরের মানুষ। তারা দুষছেন সুরমা খনন না করাকে। ছবি: নিউজবাংলা

আসিফ আহমদ বলেন, ‘পরে ২০২১ সালে আমরা নদী খননের বিষয়টি বাঁধ দিয়ে ৪ হাজার কোটি টাকার আরেকটি ডিপিপি প্রেরণ করেছি। এটিও এখন সমীক্ষার পর্যায়ে আছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি কিছুদিন আগেও বিআইডব্লিউটিএ’র কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলেছিলাম। তারা জানিয়েছেন, তারাই ড্রেজিং করবে।’

এ প্রসঙ্গে বিআইডব্লিউটিএ’র ড্রেজিং বিভাগের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী (পুর) ছাইদুর রহমান বলেন, ‘আমরা যেহেতু প্রকল্প জমা দিয়েছি তাহলে আমরাই কাজ করব। কিন্তু আগের বাজেট এখন পুণর্মূল্যায়ন করা লাগতে পারে।’

সুনামগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য ও পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বর্তমানে যুক্তরাজ্য সফরে থাকায় এ ব্যাপারে তার বক্তব্য জানা যায়নি।

তবে গত ২ মে নিজ নির্বাচনি এলাকায় বন্যায় ফসলহানি পরিদর্শনে এসে তিনি বলেন, ‘অকাল বন্য ও ঢল মোকাবিলায় আগামীতে এই অঞ্চলের নদনদী খনন করা হবে।’

উৎসমুখই ভরাট

প্রায় ২৪৯ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যে সুরমা দেশের দীর্ঘতম নদী। ভারতের বরাক নদী সিলেটের জকিগঞ্জের অমলসীদ এসে সুরমা ও কুশিয়ারা নামে দুই ভাগে বিভক্ত হয়েছে। বাংলাদেশে প্রবেশ করে সুরমা সিলেট, সুনামগঞ্জ, নেত্রকোনা ও কিশোরগঞ্জের ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে মেঘনায় মিলিত হয়েছে।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের (বাপা) তথ্য মতে, সুরমার উৎসমুখই ভরাট হয়ে গেছে। এ নদীর উৎসমুখের ৩২ কিলোমিটারে জেগেছে ৩৫টি চর।

সুরমা খনন: ১০ বছরে চার প্রকল্প, দেখেনি আলোর মুখ
উজানের ঢলে দুকূল ছাপিয়ে সিলেট শহর ভাসিয়ে নিয়েছে সুরমার পানি। ছবি: নিউজবাংলা

বাপা সিলেটের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল করিম কীম বলেন, ‘উজান থেকে ঢলের সাথে বালু ও পলি নামে। তাই নিচের দিক খননের চেয়ে উজানে খনন করা বেশি জরুরি।’

কেবল উৎসমুখই নয়, ঢলের সাথে আসা বালিও পলিতে ভরাট হয়ে গেছে প্রায় পুরো সুরমা নদী। শুষ্ক মৌসুমে জকিগঞ্জ থেকে সিলেট পর্যন্ত নদীতে শতাধিক স্থানে জেগে ওঠে চর। দক্ষিণ সুরমা, গোলাপগঞ্জ, কানাইঘাট, টুকেরবাজারসহ কয়েকটি স্থানে নদীর জেগে ওঠা চরে শুষ্ক মৌসুমে সবজি চাষও করেন স্থানীয় বাসিন্দারা। এ সময় বন্ধ হয়ে যায় নৌ যান চলাচল।

প্রায় পুরো নদী ভরাট হয়ে যাওয়ায় ২০১৮ সালে সুনামগঞ্জের কিছু অংশ খনন করা হলেও তাতে কোন সুফল পাওয়া যায়নি।

পুরো নদী খননের দাবি জানিয়ে সুজন সিলেটের সভাপতি ফারুক মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘কেবল নগরের অংশ নয়, পুরো নদী খনন করতে হবে। না হলে কোন উপকার হবে না।’

আরও পড়ুন:
স্থগিত হওয়া সিলেট জেলা বিএনপির কাউন্সিল ২৯ মার্চ
সিলেট জেলা বিএনপির সভাপতি হচ্ছেন কে
সিলেট বিএনপির শীর্ষ পদে চোখ মেয়র আরিফের
সিলেট মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে অবৈধ নিয়োগের প্রমাণ পেল ইউজিসি
সিলেট চেম্বারের নেতৃত্ব প্রশ্নে বিরোধ গড়াল আদালতে

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Accused of gang raping his wife by tying up a friend

বন্ধুকে বেঁধে তার স্ত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ

বন্ধুকে বেঁধে তার স্ত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ
বদরগঞ্জ থানার ওসি বলেন, ‘বিষয়টি আমরা জানার পরই ঘটনাস্থলে যাই। প্রাথমিক তদন্তে ঘটনার সত্যতাও মিলেছে। ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে মিলন হোসেন নামে এক তরুণকে আটক করা হয়েছে।’

রংপুরের বদরগঞ্জের দামুদারপুর হাটখোলা বাজারে এক পরিবারের সবাইকে অচেতন করে এবং স্বামীর হাত-পা বেঁধে স্ত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে।

ঘটনাটি শুক্রবার গভীর রাতে ঘটলেও শনিবার সন্ধ্যার পর তা জানাজানি হয়।

এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে মিলন হোসেন নামে এক তরুণকে শনিবার রাত ৮টার দিকে আটক করেছে পুলিশ।

গৃহবধূর স্বামীর বরাত দিয়ে বদরগঞ্জ থানার ওসি হাবিবুর রহমান বিষয়টি নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেছেন।

ওসি জানান, নির্যাতনের শিকার গৃহবধূর স্বামী আর ঘটনার সঙ্গে জড়িতরা একে অপরের বন্ধু। শুক্রবার দিনের বেলায় সারাদিন তারা একসঙ্গে ঘোরাঘুরি করেন। রাতে ওই গৃহবধূর শাশুড়ি তাদের রান্না করে খাওয়ান। কিন্তু কৌশলে ওই গৃহবধূ, তার শ্বশুর-শাশুড়ি আর স্বামীর খাবারে চেতনানাশক ওষুধ মিশিয়ে দেয় ধর্ষণে অভিযুক্তরা।

ভাত খাওয়ার পর তারা তন্দ্রাচ্ছন্ন হয়ে ঢুলতে থাকেন এবং নিজেদের কক্ষে ঘুমাতে যান। রাত ১টার দিকে ওই গৃহবধূর কক্ষে প্রবেশ করে অভিযুক্ত তিনজন। এ সময় তারা তাদের বন্ধুর হাত-পা রশি দিয়ে বেঁধে মুখে টেপ লাগিয়ে তার প্রায় অচেতন স্ত্রীকে ধর্ষণ করে।

এক পর্যায়ে জ্ঞান ফিরে আসলে ওই গৃহবধূ ও তার স্বামী চিৎকার শুরু করেন। চিৎকার শুনে প্রতিবেশীরা ছুটে এলে অভিযুক্তরা পালিয়ে যায়।

শনিবার সকালে ভুক্তভোগী গৃহবধূসহ তার স্বামী ও শ্বশুর-শাশুড়িকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরে ধর্ষণের শিকার গৃহবধুকে দিনাজপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

এক প্রতিবেশী বলেন, ‘মধ্যরাতে ওই বাড়িতে কেমন যেন শব্দ হচ্ছিল। কান খাড়া করি শুনি, মানুষের গোঙানি। একটু পর চিৎকার করোছে। যায়া দেখি, বউটা খাটের ওপরে পড়ি আছে। স্বামীটার হাত-পা দড়ি দিয়ে বান্ধা। স্বামী ও স্ত্রী দুইজনই পাগলার মতো কেমন যেন করোছে। তখনও পাশের ঘরোত শাশুড়ি অজ্ঞান হয়া আছে।’

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক হাবিবুর রহমান বলেন, ‘ওই পরিবারের সদস্যরা বিষাক্ত কিছু খেয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তাদের মধ্যে ওই গৃহবধূকে তার বাবা উন্নত চিকিৎসার কথা বলে নিয়ে গেছেন।’

নির্যাতনের শিকার ওই গৃহবধুর বাবা নিউজবাংলাকে বলেন, ‘যারা আমার মেয়ের ক্ষতি করছে, তাদের বিচার চাই।’

বদরগঞ্জ থানার ওসি বলেন, ‘বিষয়টি আমরা জানার পরই ঘটনাস্থলে যাই। প্রাথমিক তদন্তে ঘটনার সত্যতাও মিলেছে। ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে মিলন হোসেন নামে এক তরুণকে আটক করা হয়েছে। জড়িত অন্য ব্যক্তিদের ধরতে পুলিশ মাঠে আছে।’

তিনি জানান, এ ঘটনায় ওই গৃহবধূর স্বামী মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

আরও পড়ুন:
পাঁচবিবিতে শিশু ‘ধর্ষণচেষ্টা’ মামলায় গ্রেপ্তার
ডাকাতি করতে গিয়ে ‘ধর্ষণ’
শিশু ধর্ষণ মামলায় বাসচালক গ্রেপ্তার
এক যুগ পর শিশু ধর্ষণের রায়ে ৩ বছরের কারাদণ্ড
গ্রামপুলিশের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Worker dies after falling from roof for fear of lightning

বজ্রপাতের ভয়ে ছাদ থেকে পড়ে শ্রমিকের মৃত্যু

বজ্রপাতের ভয়ে ছাদ থেকে পড়ে শ্রমিকের মৃত্যু প্রতীকী ছবি।
ডুমুরিয়া থানার ওসি কনি মিঞা জানান, ঘটনাটি জানার পর সেখানে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

খুলনার ডুমুরিয়ায় বজ্রপাতের বিকট শব্দে ভয় পেয়ে একটি একতলা ভবনের ছাদ থেকে পড়ে এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে।

শনিবার বিকেল সাড়ে ৫ টার দিকে উপজেলার শোভনা ইউনিয়নের বারুইকাটি এলাকায় অনিমেষ মণ্ডলের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

২৫ বছর বয়সী নিহত শ্রমিকের নাম সাগর মণ্ডল। তার বাড়ি খুলনা জেলার পাইকগাছা উপজেলার কপিলমুনি ইউনিয়নের কাশিমনগরে। তিনি পেশায় একজন রাজমিস্ত্রী।

বাড়ির মালিক অনিমেষ মণ্ডল বলেন, ‘বিকেলে আমার একতলা ভবনের ছাদে ওই শ্রমিক কাজ করছিলেন। এ সময় বৃষ্টি আর ঝড়ো বাতাস হচ্ছিল। তখন ভবনের পাশে থাকা একটি তালগাছের ওপর বজ্রপাত হয়। এতে ওই শ্রমিক ভয় পেয়ে দ্রুত নিচে নামার চেষ্টা করেন এবং সিঁড়ির কাছ থেকে পা পিছলে নিচে পড়ে যান। এতে মাথায় প্রচণ্ড আঘাত পেয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান সাগর।’

ডুমুরিয়া থানার ওসি কনি মিঞা জানান, ঘটনাটি জানার পর সেখানে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

এর আগে শনিবার সকালে খুলনা মহানগরীর মিস্ত্রিপাড়া বাজার এলাকায় এক ভবনের ছাদ থেকে পড়ে মো. রেজাউল নামে আরেক শ্রমিক নিহত হন।

আরও পড়ুন:
নির্মাণাধীন ভবনের ছাদ ধসে আহত ৮ শ্রমিক
ঝালকাঠির ডিসি অফিসে উন্মুক্ত হলো ছাদবাগান
ছাদবাগানে আরও সবুজ রাজশাহী
মায়ের জন্য শুরু যে ছাদবাগান
ছাদ থেকে পড়ে রংমিস্ত্রির মৃত্যু

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
The young man was stabbed to death in front of his shop

নিজ দোকানের সামনে ছুরিকাঘাতে তরুণ নিহত

নিজ দোকানের সামনে ছুরিকাঘাতে তরুণ নিহত হত্যায় জড়িত সন্দেহে তিনজন আটক করেছে পুলিশ। ছবি: নিউজবাংলা
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আরও জানান, ঘটনার পরপরই তিন ঘাতক পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে পাঁচ কিলোমিটার দূরে একটি জায়গা থেকে তাদের আটক করে। হত্যায় ব্যবহৃত ছুরি জব্দ করা হয়।

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার চৌমুহনী বাজারে সন্ত্রাসীদের ছুরিকাঘাতে এক তরুণ নিহত হয়েছেন।

শনিবার সন্ধ্যা পৌনে সাতটার দিকে চৌমুহনী বাজারের মেইন রোডে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে তিন যুবককে আটক করেছে বেগমগঞ্জ মডেল থানা পুলিশ।

নিহত ১৮ বছরের আয়মন পৌরসভার গণিপুর গ্রামের নুরনবীর ছেলে। আয়মন তার বাবার সঙ্গে চৌমুহনী বাজারে ওষুধের দোকানে ব্যবসা করতেন।

আটক তরুণরা হলেন ২১ বছরের পাভেল, ২০ বছরের রাকিব ও নীরব। তারা চৌমুহনী পৌরসভার পৌর করিমপুর গ্রামের বাসিন্দা।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাতে বেগমগঞ্জ মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘গ্রেপ্তার তিন তরুণ সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের অভিযোগে একাধিক মামলার আসামি। ইতিপূর্বে একটি মামলায় পাভেলকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এই ঘটনায় ওই তিন তরুণ আয়মনকে দায়ী করেন।

‘আজ সন্ধ্যায় তারা আয়মনদের ওষুধের দোকানে সামনে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে তার বুকে ছুরিকাঘাত করে। পরে স্থানীয়রা তাকে একটি প্রাইভেট হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।’

পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘এ ঘটনায় তাৎক্ষণিক অভিযান চালিয়ে ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে তিন তরুণকে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে মামলার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন।’

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বেগমগঞ্জ সার্কেল) নাজমুল হাসান রাজিব জানান, আটক রাকিব তার সহযোগীদের নিয়ে তিন মাস আগে আয়মনের কাছে চাঁদা দাবি করেন। তখন তিনি থানায় লিখিত অভিযোগ দেন। পরে পুলিশ আয়মনের অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে রাকিবকে ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠায়।

‘এরপর তিন মাস জেল খেটে রাকিব গত ১৯ মে বৃহস্পতিবার জামিনে বের হন। বের হয়ে প্রতিশোধ নেয়ার জন্য রাকিব ও তার সহযোগী পাভেল এবং রিমন শনিবার রাত পৌনে সাতটার দিকে আয়মনকে ছুরিকাঘাত করেন। পরে স্থানীয়রা তাকে লাইফ কেয়ার হাসপাতালে নেয়ার পথে আয়মন মারা যান।’

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আরও জানান, ঘটনার পরপরই তিন ঘাতক পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে পাঁচ কিলোমিটার দূরে একটি জায়গা থেকে তাদের আটক করে। হত্যায় ব্যবহৃত ছুরি জব্দ করা হয়।

আরও পড়ুন:
‘পুকুরপাড়ে বসা’ নিয়ে ছুরিকাঘাত, একজন গ্রেপ্তার
‘পুকুরপাড়ে বসা’ নিয়ে তর্ক, যুবককে ছুরিকাঘাত
ছুরিকাঘাতে আহত মেরিনা মারা গেছেন
শ্যালককে ‘কুপিয়ে হত্যা’, দুলাভাই গ্রেপ্তার
‘চাচাতো ভাইয়ের’ ছুরিকাঘাতে যুবক খুন

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Millions of Bangladeshis have access to legitimacy in the Maldives

মালদ্বীপে লক্ষাধিক বাংলাদেশির বৈধতার সুযোগ

মালদ্বীপে লক্ষাধিক বাংলাদেশির বৈধতার সুযোগ
এ বিষয়ে কোন তথ্য প্রয়োজন হলে অফিস সময়ে ইকনোমিক ডেভেলপমেন্ট মিনিস্ট্রি (ফোন ১৫০০) (ইমেইল [email protected]) বা বাংলাদেশ হাইকমিশনে (ফোন ৩৩২০৮৫৯) (Viber ৭৬১৬৬৩৬) যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ করেছে দূতাবাস।

মালদ্বীপে বসবাসরত ‘আনডকুমেন্টেড’ বাংলাদেশিদের বৈধ হওয়ার সুযোগ দিয়েছে দেশটির সরকার।

বাংলাদেশের অনুরোধে প্রায় লক্ষাধিক বাংলাদেশি এই সুযোগ পাবেন। সুযোগটি নেয়ার জন্য আনডকুমেন্টেড বাংলাদেশিদের অনুরোধ করেছে মালের বাংলাদেশ দূতাবাস।

শনিবার এক বিজ্ঞপ্তিতে এই অনুরোধ জানায় দূতাবাস।

এতে বলা হয়, ‘মালদ্বীপে বসবাসরত আনডকুমেন্টেড প্রবাসী বাংলাদেশি নাগরিকদের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে, ইকনোমিক ডেভেলপমেন্ট মিনিস্ট্রির আওতায় বৈধকরণ প্রক্রিয়া বর্তমানে চালু রয়েছে।’

‘যাদের বৈধ ভিসা ও ওয়ার্ক পারমিট নাই তাদেরকে দ্রুত ভিসা/ওয়ার্ক পারমিট সংগ্রহ করে মালদ্বীপে বৈধভাবে কাজ করার জন্য অনুরোধ করা যাচ্ছে। বৈধকরণ প্রক্রিয়ার সুযোগে যদি কেউ বৈধ ভিসা বা ওয়ার্ক পারমিট সংগ্রহ না করেন, তবে তার বিরুদ্ধে মালদ্বীপের আইন অনুযায়ী কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানা গেছে।’

দূতাবাস সে কারণে শাস্তি এড়াতে আনডকুমেন্টেড প্রবাসী বাংলাদেশি নাগরিকদের জরুরি ভিত্তিতে বৈধকরণ প্রক্রিয়ায় ভিসা ও ওয়ার্ক পারমিট সংগ্রহ করার জন্য অনুরোধ করেছে।

বৈধকরণের জন্য যে শ্রমিক যেখানে কাজ করছেন সে মালিককে ইকনোমিক ডেভেলপমেন্ট মিনিস্ট্রিতে আবেদন করতে হবে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়।

এ বিষয়ে কোন তথ্য প্রয়োজন হলে অফিস সময়ে ইকনোমিক ডেভেলপমেন্ট মিনিস্ট্রি (ফোন ১৫০০) (ইমেইল [email protected]) বা বাংলাদেশ হাইকমিশনে (ফোন ৩৩২০৮৫৯) (Viber ৭৬১৬৬৩৬) যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ করেছে দূতাবাস।

আরও পড়ুন:
বাংলাদেশ থেকে চিকিৎসক নিতে চায় মালদ্বীপ
৩ দিনের সফরে ঢাকায় মালদ্বীপের ভাইস প্রেসিডেন্ট
নাশিদের ওপর হামলা: ‘মূল সন্দেহভাজন’ গ্রেপ্তার
হামলায় আহত নাশিদের অবস্থা সংকটাপন্ন
বোমা হামলায় আহত মালদ্বীপের সাবেক প্রেসিডেন্ট নাশিদ

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Extremism is a foreign culture IGP

উগ্রবাদ একটি বিজাতীয় সংস্কৃতি : আইজিপি

উগ্রবাদ একটি বিজাতীয় সংস্কৃতি : আইজিপি শরীয়তপুরের মতবিনিময় সভায় আইজিপি বেনজীর আহমেদ। ছবি: নিউজবাংলা
আইজিপি বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘উগ্রবাদ একটি বিজাতীয় সংস্কৃতি। বিদেশিরা এই সংস্কৃতির বিস্তার ঘটাতে চেয়েছিল এ দেশে। ৯০ শতাংশ মুসলিমের দেশকে জঙ্গিবাদের মোড়কে যদি সন্ত্রাসী রাষ্ট্র বানানো যায়, তাহলে অস্ত্র ব্যবসা করতে ও আঞ্চলিক রাজনীতিতে তাদের সুবিধা হয়।’

বাংলাদেশে কোনো জঙ্গি নেই। এ দেশের নাগরিকদের সঙ্গে উগ্রবাদের সম্পর্ক নেই বলে মনে করেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদ।

শনিবার শরীয়তপুরে এক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।
শরীয়তপুর পুলিশ লাইন্স মিলনায়তনে শনিবার দুপুরে এক মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়।

সভায় আইজিপি বলেন, ‘উগ্রবাদ একটি বিজাতীয় সংস্কৃতি। বিদেশিরা এই সংস্কৃতির বিস্তার ঘটাতে চেয়েছিল এ দেশে। ৯০ শতাংশ মুসলিমের দেশকে জঙ্গিবাদের মোড়কে যদি সন্ত্রাসী রাষ্ট্র বানানো যায়, তাহলে অস্ত্র ব্যবসা করতে ও আঞ্চলিক রাজনীতিতে তাদের সুবিধা হয়।

‘বঙ্গবন্ধুর রেখে যাওয়া দেশ পরিচালনা করছেন তার সুযোগ্য কন্যা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পরামর্শ ও দূরদর্শিতায় আমরা জঙ্গিবাদকে নিশ্চিহ্ন করতে পেরেছি। যদি আমরা উগ্রবাদ ও সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে ব্যর্থ হতাম, তাহলে উন্নয়নের মহাসড়কে যেতে পারতাম না।’

বিদেশি চক্রান্তের কথা জানিয়ে বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘বাংলাদেশকে জঙ্গিদের আস্তানা হিসেবে প্রচার করতে চেয়েছিল পশ্চিমা বিশ্ব। এ দেশে আইএসএস ঘাঁটি গাড়ছে এমন তথ্য প্রতিষ্ঠার চেষ্টা চালায় তারা। অনেক দেশ বাংলাদেশকে অনিরাপদ বলে ঘোষণা দিয়ে তাদের লোকজনকে সরিয়ে নিচ্ছিল। কিন্তু সরকারের কঠোর পদক্ষেপের কারণে সব চেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে। এ দেশে বর্তমানে জঙ্গিবাদের অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যাবে না।’

শরীয়তপুরের জেলা প্রশাসক মো. পারভেজ হাসানের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. আখতার হোসেন, র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) মহাপরিচালক চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন, ঢাকার বিভাগীয় কমিশনার মো. হেলাল মাহমুদ শরীফ, ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি হাবিবুর রহমান ও শরীয়তপুরের পুলিশ সুপার এস এম আশরাফুজ্জামান।

উগ্রবাদ প্রতিরোধে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিসহ অন্যান্য অংশীজনের করণীয় শীর্ষক এ মতবিনিময় সভায় স্বাগত বক্তব্য দেন কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) বিভাগের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মো. আসাদুজ্জামান।

সভায় মাদারীপুর, গোপালগঞ্জ, ফরিদপুর, রাজবাড়ীর জেলা প্রশাসকসহ জনপ্রতিনিধি এবং প্রশাসনিক কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
কোনো ব্যক্তির জন্য দেশের স্বার্থ জলাঞ্জলি দেব না: আইজিপি
‘উই আর দ্য ফাদার অফ ইউ’
আপনারা কারা, হু আর ইউ: আইজিপি
একজন বঙ্গবন্ধু থাকলে দেশ আরও আগে স্বাধীন হতো: আইজিপি

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Rally in Shahbag demanding punishment for those who harassed the girl

তরুণীকে হেনস্তাকারীদের শাস্তির দাবিতে শাহবাগে সমাবেশ

তরুণীকে হেনস্তাকারীদের শাস্তির দাবিতে শাহবাগে সমাবেশ নরসিংদী রেলস্টেশনে তরুণীকে হেনস্তাকারীদের বিচার দাবিতে শাহবাগে সমাবেশ। ছবি: নিউজবাংলা
মুশফিকা লাইজু বলেন, ‘যখন কোনো নারী হিজাব পরে, তখন আমরা বলি এটা তাদের চয়েজ। কিন্তু তারা আমাদের পছন্দ দেখেন না। আমরা রাষ্ট্রকে ও প্রশাসনকে বলব, আপনার এই ধরনের বিষয়গুলোর শাস্তি নিশ্চিত করুন। এতে হয়তো তারা সম্পূর্ণ শুধরে যাবে না, তবে ভয় পাবে।’

নরসিংদী রেলওয়ে স্টেশনে ‘অশালীন পোশাক’ পরার অভিযোগ তুলে তরুণীকে হেনস্তাকারীদের গ্রেপ্তার করে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে সমাবেশ করেছে ‘নিপীড়নের বিরুদ্ধে শাহবাগ’ নামের একটি প্লাটফর্ম।

শনিবার বিকেলে রাজধানীর শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরের সামনে এই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশ বক্তারা এই ঘটনার পেছনে রাজনৈতিক এজেন্ডা রয়েছে বলে দাবি করেন। এসব রুখে দিতে প্রগতিশীল জাতি তৈরিতে তারা পাড়া-মহল্লায় সাংস্কৃতিক কেন্দ্র স্থাপনেরও দাবি জানান।

সমাবেশে জীবন জয়ন্ত বলেন, ‘কোনো ব্যক্তি বা গোষ্ঠি শালীনতা বা অশালীনতা নির্ধারণ করে দিতে পারে না। এমনকি রাষ্ট্রও এটি নির্ধারণ করে দিতে পারে না। এই ধরনের ঘটনায় নিরব থেকে হয়তো নির্বাচনি বৈতরণী পার হওয়া যেতে পারে, কিন্তু বাংলাদেশের অর্থনৈতিক, সাংস্কৃতিক এবং সামাজিক মুক্তির জন্য যে কার্যক্রম পরিচালনা করা দরকার সেটি করা যাবে না।’

এই আইনজীবী আরও বলেন, ‘নারীর রক্ত ও সম্ভ্রমের বিনিময়ে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে, সে বাংলাদেশে নারীকে ঘরে আটকে দেয়ার যে চেষ্টা, তা কোনো দিনও সফল হবে না।’

উন্নয়নকর্মী ও কলামিস্ট মুশফিকা লাইজু বলেন, ‘এই ঘটনা একটি সাংস্কৃতিক আগ্রাসনের মতো। একটা ধর্মান্ধগোষ্ঠী নারীদেরকে প্রশিক্ষণ দিয়ে নারীদের বিরুদ্ধে লাগিয়ে দিয়ে বুঝাতে চাইছে, শুধু তারা না, নারীরাও নারীদের বিপক্ষে। মনে করা হচ্ছে, নারীরা নারীদের বিরুদ্ধে। আসলে নারীরা নারীদের বিরুদ্ধে না, পুরুষতন্ত্রই নারীদের বিরুদ্ধে। প্রতিবাদ আমরা অনেক করেছি, এখন থেকে প্রতিহত করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘যখন কোনো নারী হিজাব পরে, তখন আমরা বলি এটা তাদের চয়েজ। কিন্তু তারা আমাদের পছন্দ দেখেন না। আমরা রাষ্ট্রকে ও প্রশাসনকে বলব, আপনার এই ধরনের বিষয়গুলোর শাস্তি নিশ্চিত করুন। এতে হয়তো তারা সম্পূর্ণ শুধরে যাবে না, তবে ভয় পাবে।’

যুব ইউনিয়নের সাবেক সাধারণ সম্পাদক খান আসাদুজ্জামান মাসুম বলেন, ‘প্রতিদিন কোনো না কোনো নারী নিপীড়নের শিকার হচ্ছেন। এভাবে দাঁড়াতে আমাদের ইচ্ছে করে না। আমরা বিশ্বাস হারিয়ে ফেলেছি।

‘রাষ্ট্রীয় বাহিনী কর্তৃক নারীরা যখন নির্যাতিত হয়, তখন রাষ্ট্রীয় বাহিনীর বাইরে যারা, তারা আরও আস্ফালন পায়। তারই ধারাবাহিকতায় নরসিংদীর এই ঘটনা। হিজাব পরিহিত ওই নারীর সাথে ওই কুলাঙ্গার পুরুষদের একটি যোগসূত্র আছে। এটি কোনো বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়।’

সমাবেশে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন নারী আন্দোলনের নেত্রী শাশ্বতী বিপ্লব, ডা. মুজাহিদুল ইসলাম রিপনসহ অন্যরা।

সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি ভিডিও ভাইরাল হয়। সে ভিডিওতে দেখা যায়, নরসিংদী রেলস্টেশনে এক নারীকে ‘অশ্লীল পোশাক’ পরার অভিযোগ তুলে অন্য নারীসহ কয়েকজন মিলে হেনস্তা করেন।

ঘটনাটির ভিডিও ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয় প্রশাসন গতকাল শুক্রবার রেলস্টেশন এলাকা পরিদর্শন করে স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলেন। পরে রাতেই একজনকে আটকের তথ্য জানায় জেরা ডিবি পুলিশ।

ইসমাইল হোসেন নামের ওই ব্যক্তিকে শনিবার আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুন:
পিস্তল হাতে ভাইরাল সেই ছাত্রলীগ নেতা গ্রেপ্তার
গ্রামপুলিশকে মারধরের অভিযোগে এসআই প্রত্যাহার
আরিয়ানের শাক বেচে চাল কেনার দাবি কতটা সত্যি?
বিবস্ত্র আ.লীগ নেতাকে জুতাপেটা: মামলায় আসামি ৪
মন খারাপের স্ট্যাটাসে শাস্তির কথা কোথাও নেই

মন্তব্য

p
উপরে