× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য

আন্তর্জাতিক
Walmart is bringing in currency like Bitcoin
hear-news
player
print-icon

বিটকয়েনের মতো কারেন্সি আনছে ওয়ালমার্ট

বিটকয়েনের-মতো-কারেন্সি-আনছে-ওয়ালমার্ট বিটকয়েন ও ইথারিয়ামের মতো নিজস্ব ব্লকচেইনের ক্রিপ্টোকারেন্সি আনছে ওয়ালমার্ট। ছবি: সংগৃহীত
প্রতিষ্ঠানটি যেহেতু নিজেরাই ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ে আসছে, তার মানে এটি খুব সম্ভব যে ওয়ালমার্ট তার স্টোরগুলোতে কেনাবেচার ক্ষেত্রে বিটকয়েন অনুমোদন দিতে পারে।

বিশ্বের সবচেয়ে বড় খুচরা পণ্য বেচাকেনার প্রতিষ্ঠান ওয়ালমার্ট সম্ভবত ক্রিপ্টোকারেন্সি ও ননফাঞ্জিবল টোকেনে (এনএফটি) প্রবেশ করতে যাচ্ছে।

এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০২১ সালের ডিসেম্বরে কিছু ট্রেডমার্ক ডকুমেন্ট থেকে প্রাপ্ত তথ্যে এমনটাই ধারণা করা হচ্ছে।

প্রতিষ্ঠানটি ইতিমধ্যে ব্লকচেইনের প্রাথমিক কাজ সম্পন্ন করছে। ধারণা করা হচ্ছে, এটি কোনো টোকেন নিয়ে আসবে না। সরাসরি বিটকয়েন ও ইথারিয়ামের মতো নিজস্ব ব্লকচেইনের ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ে আসবে।

যদি সত্যিই ওয়ালমার্ট ক্রিপ্টোকারেন্সি প্রচলন শুরু করে, তাহলে মূলধারার কোম্পানিগুলোতে ক্রিপ্টো এডোপটেশন অনেকটা চূড়া থেকেই শুরু হবে।

সিএনবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ওয়ালমার্ট মোট ৭টি ট্রেডমার্ক নিয়েছে। এ ট্রেডমার্ক আবেদনপত্রগুলো দেখে বোঝা যাচ্ছে ক্রিপ্টোর পাশাপাশি খুব শিগগিরই প্রতিষ্ঠানটি ভার্চুয়াল পণ্য হিসেবে অনলাইনে ননফাঞ্জিবল টোকেন বেচাকেনা শুরু করবে। যা তাদের নিজস্ব ক্রিপ্টোকারেন্সিতে কিনতে হবে। এ ছাড়া ওয়ালমার্ট বিশ্বব্যাপী ক্রিপ্টোনির্ভর ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসও চালু করতে যাচ্ছে। যেখানে ক্রিপ্টোকারেন্সি ও ডিজিটাল টোকেন লেনদেন করা যাবে।

শুধু ক্রিপ্টো নয়, মেটাভার্সের জগতেও প্রবেশ করতে যাচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি। তারা অগমেন্টেড রিয়েলিটি ও ভার্চুয়াল রিয়েলিটির জন্য ফিটনেস অ্যাপ্লিকেশন নিয়ে আসছে।

যদিও এসব পরিকল্পনার বিস্তারিত কিছুই প্রকাশ করেনি ওয়ালমার্ট।

প্রতিষ্ঠানটি সব সময় নতুনত্বকে গ্রহণ করে আসছে। তাই বিকাশমান প্রযুক্তি হিসেবে ব্লকচেইনকে ব্যবহার করতে চায় প্রতিষ্ঠানটি। প্রতিষ্ঠানটি যেহেতু নিজেরাই ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ে আসছে, তার মানে এটি খুব সম্ভব যে ওয়ালমার্ট তার স্টোরগুলোতে কেনাবেচার ক্ষেত্রে বিটকয়েন অনুমোদন দিতে পারে।

শুধু ক্রিপ্টো নয়, কোম্পানিটি মেটাভার্সের জগতেও প্রবেশ করছে। তারা অগমেন্টেড রিয়েলিটি ও ভার্চুয়াল রিয়েলিটির জন্য একটি ফিটনেস অ্যাপ নিয়ে আসছে।

আরও পড়ুন:
৯৬ বিলিয়ন ডলারের মালিক বিন্যান্স সিইও চাংপেং
নতুন বছরে ইলন মাস্কের ডজকয়েনে ভাটা
ক্রিপ্টোকারেন্সি ও এনএফটির আলোচিত যত ঘটনা
ডিজিটাল মুদ্রা আনছে মেক্সিকো
বিটকয়েন হারাচ্ছে এল সালভাদরের নাগরিকরা

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
Vivo is bringing the flagship X60 smartphone for photography

ফটোগ্রাফির জন্য ফ্ল্যাগশিপ এক্স৮০ স্মার্টফোন আনছে ভিভো

ফটোগ্রাফির জন্য ফ্ল্যাগশিপ এক্স৮০ স্মার্টফোন আনছে ভিভো
ভিভো এক্স৮০ ফাইভজি ফোনে রয়েছে পেশাদার সিনেমাটোগ্রাফির ক্যামেরা। ফোনটিতে রয়েছে ৫০ মেগাপিক্সেলের ট্রিপল ক্যামেরা, ৩২ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা। যা দিয়ে রেকর্ড করা যাবে ফোর-কে ভিডিও।

ভিভো এক্স৬০ প্রো ও এক্স৭০ প্রো অনেকটাই জনপ্রিয় হয়েছে দেশে। এবার ক্যামেরা প্রযুক্তিকে জোর দিয়ে এক্স সিরিজের আরেকটি স্মার্টফোন আনছে চীনা প্রতিষ্ঠান ভিভো।

নতুন স্মার্টফোন হবে ভিভো এক্স৮০ ফাইভজি।

৬.৭৮ ইঞ্চির অ্যামোলেড ডিসপ্লের ভিভো এক্স৮০ ফাইভজি ফোনটিতে দেয়া হয়েছে ১২০ হার্জের রিফ্রেশ রেট। ফোনটির ডিসপ্লে রেজ্যুলেশন ১০৮০*২৪০০ পিক্সেল, রেশিও ২০:৯।

৪ ন্যানোমিটার প্রযুক্তির মিডিয়াটেক অক্টা-কোর ৯০০০ ডাইমেনসিটির প্রসেসর, অ্যান্ড্রয়েড ১২ অপারেটিং সিস্টেমের সঙ্গে ফানটাচ ১২ ইউআই।

ভিভোর ক্যামেরা প্রযুক্তি বাংলাদেশের তরুণদের কাছে ব্যাপক জনপ্রিয় হয়েছে। এই জনপ্রিয়তা আরও বাড়াতে ক্যামেরা লেন্স নির্মাতা প্রতিষ্ঠান কার্ল জেইসের সঙ্গে পার্টনারশিপে যুক্ত হয়েছে ভিভো। লেন্স তৈরিতে জেইসের ১৭৫ বছরের ইতিহাস রয়েছে। এক্স৮০ ফাইভজি স্মার্টফোন বাজারে চলে আসলে, জেইসের ক্যামেরা লেন্সযুক্ত ভিভোর তৃতীয় স্মার্টফোন হবে এটি।

ভিভো এক্স৮০ ফাইভজি ফোনে রয়েছে পেশাদার সিনেমাটোগ্রাফির ক্যামেরা। ফোনটিতে রয়েছে ৫০ মেগাপিক্সেলের ট্রিপল ক্যামেরা, ৩২ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা। যা দিয়ে রেকর্ড করা যাবে ফোর-কে ভিডিও।

৮ ও ১২ জিবি র‍্যামের সঙ্গে এতে থাকছে কয়েকটি রম ভ্যারিয়েন্ট, যার মধ্যে ১২৮, ২৫৬ জিবি রম।

ফোনটিতে দেয়া হয়েছে দীর্ঘস্থায়ী ও ৮০ ওয়াট ফার্স্ট চার্জিংয়ের ৪৫০০ এমএএইচের ব্যাটারি। যা ৫০ শতাংশ চার্জ হবে ১১ মিনিটে।

ফ্ল্যাগশিপটির দাম বাংলাদেশের বাজারে কত হবে সে বিষয়ে কিছু বলেনি ভিভো।

আরও পড়ুন:
দেশে ৫০ মেগাপিক্সেল ক্যামেরার ভিভো ওয়াই৩৩এস
৫০ মেগাপিক্সেল ক্যামেরার ভিভো ওয়াই৩৩এস ফোনের প্রিবুক শুরু
ভিভো ওয়াই৩৩এস: মিডরেঞ্জের ফোনে ৫০ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা
ভিভো ভি২৩ সিরিজ: স্মার্টফোন ক্যামেরায় বেঞ্চমার্ক
নতুন ভিভো ওয়াই২১টি স্মার্টফোনে যা আছে

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
YouTubers 26 million dollars is now 1 thousand

ইউটিউবারের ২৮ লাখ ডলার এখন ১ হাজার

ইউটিউবারের ২৮ লাখ ডলার এখন ১ হাজার লুনা ধসে আর্থিক ক্ষতি হয়েছে ব্রিটিশ র‍্যাপার কেএসআইয়ের। ছবি: সংগৃহীত
ভবিষ্যতে দাম বাড়বে- এই আশায় যারা লুনা আঁকড়ে ধরেছিলেন, তারা ব্যাপক মাত্রায় আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছেন। বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ায় লুনা হোল্ডারদের হতাশা ব্যক্ত করতে দেখা যায়। এ তালিকায় রয়েছেন ব্রিটিশ র‍্যাপার কেএসআই। তিনি প্রায় ২৮ লাখ ডলার হারিয়েছেন।

ব্রিটিশ ইউটিউবার ও র‍্যাপার জেজে ওলাটুনজি, অনলাইনে যিনি কেএসআই নামে পরিচিত। দুটি ইউটিউব চ্যানেলে তার মোট ৪০ মিলিয়ন সাবস্ক্রাইবার রয়েছে। যেসব সেলিব্রেটি ক্রিপ্টোকারেন্সি টেরা (লুনা) হোল্ড করতেন, তার মধ্যে তিনিও একজন।

টুইটার পোস্টে গত ১২ মে কেএসআই নিজেই জানিয়েছিলেন, তার ২৮ লাখ ডলার সমমূল্যের লুনা এক দিনের মধ্যেই ১ হাজার ডলার হয়ে গেছে। তার টুইটার অনুসারীদের কয়েকজন বিষয়টি নিয়ে মজা করলেও দুঃখ প্রকাশ করেছেন অনেকেই। তবে তিনি নিজেও টুইটের মধ্যে হাসির ইমোজি যুক্ত করে দিয়েছেন।

এদিকে বিটকয়েনের দাম কমে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ক্রিপ্টোকারেন্সির অন্যান্য মুদ্রাতেও এর ব্যাপক প্রভাব পড়েছে। এরই মধ্যে দেউলিয়া হওয়ার আশঙ্কায় রয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ও আমেরিকার ওয়ালস্ট্রিটের তালিকাভুক্ত ক্রিপ্টো মুদ্রার কেনাবেচার অনলাইন প্ল্যাটফর্ম কয়েনবেজ।

বিটকয়েন, ইথারিয়ামের মতো দাম হারিয়েছে অন্যান্য অল্টা কয়েনেরও। তবে সবচেয়ে বেশি দাম হারিয়েছে ক্রিপ্টো মুদ্রা টেরা (লুনা)। প্রতিশ্রুত মুদ্রা হিসেবে পরিচিতি পাওয়া লুনা ৯৯ শতাংশ দাম হারিয়েছে মুহূর্তেই। গত মাসে ক্রিপ্টোকারেন্সির তালিকায় শীর্ষ ১০-এ থাকা ১২০ ডলার দামের লুনা গত ১২ মে এক দিনের মধ্যেই ১ ডলারের নিচে নেমে আসে।

ভবিষ্যতে দাম বাড়বে এই আশায় যারা লুনা আঁকড়ে ধরেছিলেন, তারা ব্যাপক মাত্রায় আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছেন। বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ায় লুনা হোল্ডারদের হতাশা ব্যক্ত করতে দেখা যায়। এর মধ্যে একজন ব্রিটিশ ইউটিউবার কেএসআই।

কেএসআই বলছেন, তিনি লুনা ধরে রাখবেন। যদিও বিশেষজ্ঞদের মতে, সহসা লুনার দাম বাড়ার সম্ভাবনা নেই।

ইউক্রেনে রাশিয়ার সামরিক অভিযান প্রভাব ফেলেছে ক্রিপ্টোমুদ্রাতেও। ভার্চুয়াল সম্পদে আস্থা হারাচ্ছে মানুষ, এর বদলে দৃশ্যমান সম্পদ কিনতে চাইছে সবাই। ফলে দাম বাড়ছে সোনা ও ডলারের মতো মুদ্রার।

আরও পড়ুন:
ভিয়েতনাম কোম্পানির ইথারিয়াম চুরিতে দায়ী উত্তর কোরিয়া: যুক্তরাষ্ট্র
ক্রিপ্টোগেম এক্সি ইনফিনিটির ৬০০ মিলিয়ন ডলার চুরি
ক্রিপ্টো বিধিবিধান হালনাগাদ করছে রোমানিয়া-লাটভিয়া
ডিজিটাল মুদ্রা আনছে মেক্সিকো
ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ে মোদির উদ্বেগ

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
160 crore views on Tiktaks Ramadan campaign

টিকটকের রমজান ক্যাম্পেইনে ১৭০ কোটি ভিউ

টিকটকের রমজান ক্যাম্পেইনে ১৭০ কোটি ভিউ
ক্যাম্পেইনটিতে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় দলের ক্রিকেটার মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, প্রখ্যাত মেকআপ শিল্পী সুমাইয়া মীম, জনপ্রিয় টিকটক কনটেন্ট নির্মাতা শাহাত বিন সেলিম এবং সুনেহরা তাসনিম।

ছোট ভিডিও-শেয়ারিংয়ের জনপ্রিয় প্ল্যাটফর্ম টিকটক সম্প্রতি বাংলাদেশে তাদের #StitchKindness শীর্ষক রমজান ক্যাম্পেইন শেষ ঘোষণা দিয়েছে।

ক্যাম্পেইনটি রমজানের চেতনাকে ধারণ এবং ব্যবহারকারীদের মধ্যে দয়া ও দানের বার্তা ছড়িয়ে দিয়েছে। রোজা ও ঈদ উদযাপন উপলক্ষ্যে প্রচারিত পাঁচটি হ্যাসট্যাগের ক্যাম্পেইনটি এরইমধ্যে ১৭০ কোটির বেশিবার দেখা হয়েছে।

ক্যাম্পেইনটিতে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় দলের ক্রিকেটার মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, প্রখ্যাত মেকআপ শিল্পী সুমাইয়া মীম, জনপ্রিয় টিকটক কনটেন্ট নির্মাতা শাহাত বিন সেলিম এবং সুনেহরা তাসনিম।

টিকটকের বিজ্ঞাপনটি প্রতীকী হলেও ব্যাপকভাবে প্রসংশিত হয়। বিনোদনের একটি মাধ্যম হলেও এর মাধ্যমে টিকটকের কমিউনিটির উন্নতি এবং বাংলাদেশিদের একত্রিত করার মনোভাব ফুটে উঠেছিল।

#StitchKindness হ্যাশট্যাগটি প্রায় ১০০ কোটিবার দেখা হয়েছে। ভিডিওগুলোতে তুলে ধরা হয়েছে নিঃস্বার্থ ও পরিশ্রমী মানুষদের, যারা রোজার সময় অন্যদের সাহায্য করেছেন এবং কঠিন পরিস্থিতিতেও তাদের দায়িত্ব পালন করে গেছেন।

সারা দেশের কনটেন্ট নির্মাতারা এই ক্যাম্পেইন উপলক্ষ্যে টিকটক বিজ্ঞাপনের সাথে তাদের ভিডিওগুলো স্টিচ করে একটি চেইন অব কাইন্ডনেস তৈরি করেছেন। ক্যাম্পেইনটি রমজান মাসে ‘আনসান হিরোদের’ প্রচেষ্টাকে সম্মানিত করেছে।

আরেকটি হ্যাশট্যাগ, #MaheRamadan যা ৩ কোটি ১৯ লাখের বেশিবার দেখা হয়েছে। টিকটক কমিউনিটির মধ্যে রজমান মাসের সারমর্ম ও চেতনা ছড়িয়ে দিতে ক্যাম্পেইনটি কাজ করেছে। এ ছাড়া #RojarDin উদ্যোগ টিকটক ব্যবহারকারীদের সেহরি এবং ইফতারের সময় স্বাস্থ্য সচেতনতা ও নিজের যত্ন সম্পর্কে জানান দিয়েছে। প্ল্যাটফর্মটিতে এটি ৩১৯.৯ মিলিয়নবার দেখা হয়েছে। ব্যবহারকারীরা #RamadanRecipe হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে রমজানের প্রিয় খাবারের ভিডিওগুলোও শেয়ার করেছেন, যা ৮৫.৮ মিলিয়নেরও বেশি দেখা হয়েছে।

ক্যাম্পেইনটি শেষ হয়েছে দেশের অন্যতম বড় উৎসব- ঈদ-উল-ফিতর উদযাপনের মধ্য দিয়ে। আনন্দময় এই উৎসবকে উদযাপন করতে টিকটক কমিউনিটি #KhushirEid হ্যাসট্যাগটি ব্যবহার করে সবার মধ্যে ছড়িয়ে দিয়েছে। হ্যাসট্যাগটি ও প্রায় ১৮৭.৩ মিলিয়নবার দেখা হয়েছে। এ ছাড়া ঈদ উপলক্ষ্যে এক্সক্লুসিভ কিছু ফিল্টার ও ইন অ্যাপ ইফেক্ট চালু করেছিল টিকটক।

রমজান মাস সবসময়ই আত্মিক উন্নয়ন, উদযাপন ও জমায়েতের মাস হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছে, তা অনলাইনে হোক বা অফলাইনে। এই ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে টিকটক পবিত্র রমজান মাসের চেতনা সারাবিশ্বের সকল কমিউনিটির সাথে উদযাপন করেছে। এ ছাড়া এর লক্ষ্য ছিল সৃজনশীলতাকে অনুপ্রাণিত করা এবং বিশ্বব্যাপী টিকটকের ক্রমবর্ধমান কমিউনিটির জন্য আনন্দ বয়ে আনা।

আরও পড়ুন:
ইউক্রেনের ভিডিও টিকটকে, রাতারাতি তারকা তরুণী
কমিউনিটি গাইডলাইনস লঙ্ঘন: ৯ কোটির বেশি ভিডিও সরিয়েছে টিকটক
টিকটক বানাতে গিয়ে ‘ধর্ষণ’: ৩ কিশোর গ্রেপ্তার
নিরাপদ ইন্টারনেট ব্যবহার উৎসাহিত করতে টিকটকের উদ্যোগ
গুগলকেও ছাড়িয়ে গেল টিকটক

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
In three years the revenue of Bangabandhu Satellite is 300 crore rupees

তিন বছরে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের আয় ৩০০ কোটি টাকা

তিন বছরে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের আয় ৩০০ কোটি টাকা বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণ করা হয় যুক্তরাষ্ট্রের কেডেনি স্পেস সেন্টার থেকে। ছবি: সংগৃহীত
কোম্পানি জানায়, বিএসসিএলের এখন পর্যন্ত আয় ৩০০ কোটি টাকা অতিক্রম করেছে। বর্তমানে কোম্পানির মাসিক আয় প্রায় ১০ কোটি টাকা, যার প্রায় পুরোটাই দেশীয় বাজার থেকে হচ্ছে। ক্রমান্বয়ে এই আয় আরও বৃদ্ধি পাবে বলেও জানায় প্রতিষ্ঠানটি।

উৎক্ষেপণের চার বছর অতিক্রম করেছে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১। উৎক্ষেপণের পর তিন বছরে দেশের প্রথম স্যাটেলাইট থেকে ৩০০ কোটি টাকার বেশি আয় হয়েছে। এখন দেশের বাজার থেকেই প্রতি মাসে আয় ১০ কোটি টাকার বেশি হচ্ছে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেড।

দেশের কয়েকটি গণমাধ্যমে ‘বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট: তিন বছর আয় করতে পারেনি, খরচ উঠবে কবে’ শিরোনামে যে সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে সেটি সঠিক তথ্যভিত্তিক নয় বলেও অভিযোগ তুলেছে বিএসসিএল।

বিএসসিএল এক বিজ্ঞপ্তিতে সোমবার দাবি করেছে, ‘প্রতিবেদনটিতে কোম্পানির প্রকৃত ব্যবসায়িক চিত্র প্রতিফলিত হয়নি, ফলে জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে।’

২০১৮ সালের ১২ মে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার কেনেডি স্পেস সেন্টার থেকে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণ করা হয়। ফ্রান্সের প্রতিষ্ঠান থ্যালাস অ্যালেনিয়া স্পেস স্যাটেলাইটটি তৈরি ও উৎক্ষেপণের দায়িত্বে ছিল। সব মিলিয়ে স্যাটেলাইটটি মহাকাশে পাঠাতে বাংলাদেশের খরচ হয় ২ হাজার ৭৬৫ কোটি টাকা।

বিজ্ঞপ্তিতে বিএসসিএল জানায়, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট তিন বছরে কোনো আয় করতে পারেনি কথাটি সঠিক নয়, বরং তিন বছর ধরেই আয়ের ধারায় রয়েছে কোম্পানি।

কোম্পানি জানায়, বিএসসিএলের এখন পর্যন্ত আয় ৩০০ কোটি টাকা অতিক্রম করেছে। বর্তমানে কোম্পানির মাসিক আয় প্রায় ১০ কোটি টাকা, যার প্রায় পুরোটাই দেশীয় বাজার থেকে হচ্ছে। ক্রমান্বয়ে এই আয় আরও বৃদ্ধি পাবে বলেও জানায় প্রতিষ্ঠানটি।

অবশ্য বিএসসিএল কোম্পানি গঠনের আগে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ থেকে সাত বছরে এর খরচ উঠে আসবে। সাধারণত এমন স্যাটেলাইটের আয়ু ধরা হয় ১৫ বছর। তবে এখনকার আয়ের ধারা অব্যাহত থাকলে তা সম্ভব হবে না।

বিএসসিএলের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বর্তমানে, রাষ্ট্রীয় সম্প্রচার সংস্থা, বাংলাদেশ টেলিভিশন, বাংলাদেশ বেতার এবং দেশের সব বেসরকারি টিভি চ্যানেলসহ ৩৯টি টিভি চ্যানেল এবং দেশের একমাত্র ডিটিএইচ অপারেটর আকাশ বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের মাধ্যমে সম্প্রচার করছে।

দেশের দুটি স্বনামধন্য ব্যাংক এরই মধ্যে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ ব্যবহার করে তাদের এটিএম সেবা দেয়া শুরু করেছে। আরও অনেকগুলো সরকারি-বেসরকারি ব্যাংকের সঙ্গে আলোচনা চলমান আছে, যারা অদূর ভবিষ্যতে চুক্তি স্বাক্ষর করে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১-এর সেবার আওতায় আসবে বলে জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সম্প্রতি সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ (আর্মড ফোর্সেস ডিভিশন) বিএসসিএলের সঙ্গে একটি সমঝোতা স্মারক সই করেছে। এর আওতায় বাংলাদেশে সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী ও বিমান বাহিনী এবং ডিজিএফআই বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১-এর সেবার আওতায় আসবে। বাহিনীগুলো সম্মিলিতভাবে তিনটি ট্রান্সপন্ডারের মাধ্যমে সেবা নেবে।

বাংলাদেশ সরকারের ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ প্রতিশ্রুতি পূরণের অংশ হিসেবে বিএসসিএল ৩১টি দুর্গম ও প্রত্যন্ত দ্বীপাঞ্চলের ১১২টি স্থানে টেলিযোগাযোগ সেবা দিচ্ছে। অদূর ভবিষ্যতে আরও বেশিসংখ্যক দুর্গম ও প্রত্যন্ত এলাকার সুবিধাবঞ্চিত জনগণকে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১-এর সেবার আওতায় আনা হবে বলে জানানো হয়।

জনগুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন রাষ্ট্রীয় ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের সেবা নেয়ার ব্যাপারে আগ্রহ দেখিয়েছে এবং অনেকের সঙ্গেই আলোচনা চলছে। পর্যায়ক্রমে এই ব্যবসায়িক আলোচনা সফল হলে দেশীয় বাজারেই বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১-এর বৃহৎ গ্রাহক তৈরি হবে এবং এর থেকে বিপুল পরিমাণ রাজস্ব আয়ও সম্ভব হবে বলে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়।

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটটির সেবা নিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছিল নেপাল ও ফিলিপাইন। অবশ্য বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে সে উদ্যোগে অনেকটাই ভাটা পড়ে।

চাহিদার তুলনায় বৈশ্বিক বাজারে স্যাটেলাইট ব্যান্ডউইথের সরবরাহ বেশি থাকায় এবং করোনার কারণে বিদেশের বাজারে বিপণন কার্যক্রম ব্যাহত হয়। এখন সে উদ্যোগ পুরোদমে শুরু হয়েছে বলে জানায় বিএসসিএল।

এখন দেশের বাজারে এর বিপণন বাড়াতেও কাজ করা হচ্ছে বলে জানায় প্রতিষ্ঠানটি।

সম্প্রতি বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ ব্যবহার করে যুক্তরাজ্যভিত্তিক একটি স্যাটেলাইট টিভি চ্যানেলের সম্প্রচার শুরুর মাধ্যমে বিএসসিএল বিদেশের বাজারেও ব্যবসায়িক যাত্রা শুরু করেছে। সামনে এটি আরও বাড়বে বলে প্রত্যাশা কোম্পানির।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ গুরুত্বপূর্ণ রাষ্ট্রীয় সম্পদ, জাতির উন্নয়ন ও গর্বের প্রতীক। এর ওপরে জাতির অগাধ বিশ্বাস রয়েছে। তাই বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ নিয়ে যেকোনো নেতিবাচক সংবাদ জনগণকে বিভ্রান্ত ও মর্মাহত করে।

সরকারি মালিকানাধীন হলেও বিএসসিএল একটি ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান এবং প্রচলিত নিয়মকানুন মেনেই এটিকে সামনের দিকে এগোতে হবে। এটি বিবেচনায় রেখে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ বা বিএসসিএলের অর্জনগুলোকে ইতিবাচকভাবে জনসমক্ষে তুলে ধরার জন্য সংবাদমাধ্যমগুলোকে অনুরোধ জানিয়েছে স্যাটেলাইট কর্তৃপক্ষ।

আরও পড়ুন:
মার্চে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের সম্প্রচারে ৮ দিন বিঘ্ন
বঙ্গবন্ধুর নামে আরেক স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণে সমঝোতা স্মারক
বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটে সম্প্রচার বিঘ্ন ৮ দিন

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
The Changemakers team exchanged views with e cab members in Chittagong

চট্টগ্রামের ই-ক্যাব সদস্যদের সঙ্গে দ্য চেঞ্জমেকার্সের মতবিনিময়

চট্টগ্রামের ই-ক্যাব সদস্যদের সঙ্গে দ্য চেঞ্জমেকার্সের মতবিনিময় চট্টগ্রামে ই-ক্যাব সদস্যদের সঙ্গে মতবিনিময়ে দ্য চেঞ্জমেকার্স টিম।
টিমের সদস্য জিসান কিংশুক হক বলেন, 'চট্টগ্রামে আমরা ই-ক্যাবের একটি বিভাগীয় অফিস করতে চাই। সদস্য বান্ধব বিভিন্ন কার্যক্রমের মাধ্যমে এই শিল্প নগরীতে ই-ক্যাবকে আরও বিকশিত করাই আমাদের মূল লক্ষ্য।'

ইকমার্স অ্যাসোসিয়েশন অফ বাংলাদেশ (ই-ক্যাব) এর চট্টগ্রাম বিভাগের সদস্যদের সঙ্গে মতবিনিময় করেছে কমার্স ইন্ডাস্ট্রিতে ইতিবাচক পরিবর্তনের ডাক দিয়ে যাত্রা শুরু দ্য চেঞ্জমেকার্স টিম।

ই-ক্যাবের স্থানীয় সদস্য রাফসান কমিউনিকেশনের স্বত্ত্বাধিকারী জহিরুল আলম, ব্যাচেলর ডটকমের সঞ্জয় চৌধুরীসহ চট্টগ্রামের ই-ক্যাব সদস্যরা এই মতবিনিময় সভার আয়োজন করে।

দ্য চেঞ্জমেকার্স টিমের সদস্য ওয়াসিম আলিম (বাংলামেডস), জিয়া আশরাফ (চালডাল), তাসদীখ হাবীব (ক্লিন ফোর্স লিমিটেড), জিসান কিংশুক হক (আরটিএস এন্টারপ্রাইজ), ফাতিমা বেগম (আদি বিডি), মোজাম্মেল হক মৃধা (কিনলে ডট কম), আবু সুফিয়ান নিলাভ (নিজল ক্রিয়েটিভ), বিপ্লব ঘোষ রাহুল (ই-কুরিয়ার) প্রমুখ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

টিমের সদস্য জিসান কিংশুক হক বলেন, 'চট্টগ্রামে আমরা ই-ক্যাবের একটি বিভাগীয় অফিস করতে চাই। সদস্য বান্ধব বিভিন্ন কার্যক্রমের মাধ্যমে এই শিল্প নগরীতে ই-ক্যাবকে আরও বিকশিত করাই আমাদের মূল লক্ষ্য।'

তিনি বলেন, 'আমাদের পরকিল্পনা আছে পর্যায়ক্রমে সারা দেশের ইক্যাব সদস্যদের সাথে মতবিনিময় করার।'

এসব মতবিনিময় সভা থেকে উঠে আসা বিভিন্ন সুপারিশ ভবিষ্যতে তারা সদস্যদের কল্যাণে বাস্তবায়ন করতে চান বলেও জানান।

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Realmy is bringing two new smartphones

নতুন দুটি স্মার্টফোন আনছে রিয়েলমি

নতুন দুটি স্মার্টফোন আনছে রিয়েলমি
রিয়েলমি সি৩৫ ফোনের ক্ষেত্রে ডিজাইন ও ফিচার দুটি বিষয়ের ওপরই গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। এতে রয়েছে ফ্লোটিং গ্লোয়িং ডিজাইন, যা এন্ট্রি লেভেলের ডিভাইসে নতুন মাত্রা যোগ করেছে।

দেশের বাজারে নতুন দুটি স্মার্টফোন উন্মোচন করতে যাচ্ছে রিয়েলমি। আগামী ২২ মে ব্র্যান্ডটি দেশে ১০৮ মেগাপিক্সেল ক্যামেরার ফ্ল্যাগশিপ রিয়েলমি ৯ ফোরজি এবং রিয়েলমি সি৩৫ উন্মোচন করবে।

এক বিজ্ঞপ্তিতে প্রতিষ্ঠানটি জানায়, উদ্ভাবনী ডিজাইনের এন্ট্রি-লেভেলের রিয়েলমি সি৩৫ ডিভাইসটির ডিজাইন নজরকাড়া। অধিকাংশ এন্ট্রি-লেভেলের ডিভাইসে ফিচারে দেয়া হয়েছে গুরুত্ব।

রিয়েলমি সি৩৫ ফোনের ক্ষেত্রে ডিজাইন ও ফিচার দুটি বিষয়ের ওপরই গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। এতে রয়েছে ফ্লোটিং গ্লোয়িং ডিজাইন, যা এন্ট্রি লেভেলের ডিভাইসে নতুন মাত্রা যোগ করেছে।

চমৎকার ফটোগ্রাফি অভিজ্ঞতা পেতে এ ডিভাইসটিতে রয়েছে ৫০ মেগাপিক্সেল এআই ট্রিপল ক্যামেরা, ৬.৬ ইঞ্চি ফুল এইচডি প্লাসের ডিসপ্লে।

অন্যদিকে, ফ্ল্যাগশিপ ১০৮ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা সেটআপ নিয়ে আসছে রিয়েলমি ৯ ফোরজি; যাতে থাকছে আইসোসেল এইচএম সিক্স সেন্সর। ফলে লো-লাইটেও চমৎকার ও ঝকঝকে ছবি তোলা যাবে ফোনটি দিয়ে।

ডিভাইসটিতে ৯০ হার্টজ সুপার অ্যামোলেড ডিসপ্লেসহ পাওয়ার অ্যাফিশিয়েন্ট অত্যাধুনিক ৬ ন্যানোমিটারের স্ন্যাপড্রাগন ৬৮০ প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে।

চমৎকার অভিজ্ঞতা দিতে এতে রিয়েলমি ইউআই ৩.০ ও অ্যান্ড্রয়েড ১২ ফিচার রয়েছে। এই ডিভাইটি খুবই স্লিম মাত্র ৭.৯ মিলিমিটার এবং এতে রয়েছে দেশের প্রথম দুর্দান্ত রিপল হলোগ্রাফিক ডিজাইন।

আরও পড়ুন:
বাজারে আসছে ১০৮ মেগাপিক্সেলের রিয়েলমি নাইন
রিয়েলমির জিটি মাস্টার এডিশনে অফার
নাম্বার ও সি সিরিজের ফোন আনছে রিয়েলমি
সারা দেশে পাওয়া যাচ্ছে রিয়েলমি নারজো ৫০ ও সি৩১
ঈদে রিয়েলমি ফোন কিনে বালি ভ্রমণ, বাইক জেতার সুযোগ

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Elon Musks Starlink orders started from Bangladesh

বাংলাদেশ থেকে ইলন মাস্কের স্টারলিংকের অর্ডার নেয়া শুরু

বাংলাদেশ থেকে ইলন মাস্কের স্টারলিংকের অর্ডার নেয়া শুরু স্পেসএক্সের রকেটে মহাকাশে স্টারলিংক স্যাটেলাইট। ছবি: সংগৃহীত
মহাকাশ থেকে লো লেটেন্সির ইন্টারনেট সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান ইলন মাস্কের স্টারলিংক। প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশকে তার সেবার আওতায় আনতে যাচ্ছে। এরই মধ্যে বাংলাদেশ থেকে এন্টেনাযুক্ত রাউটারের প্রি-অর্ডার নেয়া শুরু করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

মহাকাশ থেকে ইন্টারনেট সেবা সরবরাহের প্রতিষ্ঠান ইলন মাস্কের স্টারলিংক। বিশ্বের অনেক দেশের গ্রাহক এরই মধ্যে স্টারলিংকের রাউটারের ব্যবহার শুরু করেছে। গ্রাহকসংখ্যা এরই মধ্যে ১ লাখ ছাড়িয়েছে।

এবার স্টারলিংকের রাউটার কেনার জন্য আগাম অর্ডার করা যাবে বাংলাদেশ থেকেও। সম্প্রতি স্টারলিংকের ওয়েবসাইটে বাংলাদেশ থেকে ডিভাইসের অর্ডার নেয়া হচ্ছে। ৯৯ ডলার ডিপোজিট করে যে কেউ অর্ডার করতে পারবে।

বাংলাদেশ থেকে ইলন মাস্কের স্টারলিংকের অর্ডার নেয়া শুরু
বাংলাদেশ থেকেই অর্ডার করা যাচ্ছে স্টারলিংক রাউটার

বাংলাদেশে সার্ভিস দেয়ার ক্ষেত্রে স্টারলিংক আশা করছে ২০২৩ সালেই এখানে তারা সেবা চালু করতে পারবে। তবে যেহেতু বাংলাদেশে অনুমোদনের কিছু বিষয় আছে, সে ক্ষেত্রে তারা যদি সেবা চালু করতে না পরে তবে স্টারলিংকের ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে ডিপোজিটের পুরো অর্থই গ্রাহক ফেরত পাবেন।

স্পেসএক্সের সহপ্রতিষ্ঠান স্টারলিংক পৃথিবীর দ্রুত বিকাশমান বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানগুলোর একটি, যাদের লক্ষ্য পৃথিবীর লো-অরবিটে থাকা স্যাটেলাইট থেকে বিশ্বব্যাপী লো লেটেন্সির ব্রডব্র্যান্ড ইন্টারনেট সেবা প্রদান করা। স্টারলিংক তার বিনিয়োগকারীদের জানিয়েছে, খুব শিগগিরই প্রতিষ্ঠানটি ১ ট্রিলিয়ন ডলারের বাজার তৈরিতে সক্ষম হবে।

ইউক্রেনে চলমান রুশ অভিযানে দেশটির ইন্টারনেট ব্যবস্থা মুখ থুবড়ে পড়লে দেশটির উপপ্রধানমন্ত্রী মাইখাইলো ফ্রেডরক ইলন মাস্কের কাছে সাহায্য চান। তার এই আহ্বানে সাড়া দিয়ে ইউক্রেনের ইন্টারনেট সেবাকে নিরবচ্ছিন্ন রাখতে তিনি স্টারলিংক স্যাটেলাইট সক্রিয় করেন।

আরও পড়ুন:
টাইম ‘বর্ষসেরা’ হলেন ইলন মাস্ক
প্রথম ট্রিলিয়নিয়ার হবেন ইলন মাস্ক
মস্তিষ্কে চিপ: ভিডিও গেম খেলছে বানর
ইলন মাস্কের বিরুদ্ধে টেসলার শেয়ারহোল্ডারের মামলা
কার্বন ক্যাপচার উদ্ভাবনে ১০ কোটি ডলার দেবেন ইলন মাস্ক

মন্তব্য

উপরে