× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

আন্তর্জাতিক
Pictures of Melania Trumps eyes at auction
hear-news
player
google_news print-icon

মেলানিয়া ট্রাম্পের চোখের ছবি নিলামে

মেলানিয়া-ট্রাম্পের-চোখের-ছবি-নিলামে
‘মেলানিয়াস ভিশন’ এই এনএফটির নিলাম শুরু হয়েছে ১৫০ ইউএস ডলারে। ছবি: সংগৃহীত
১৬ ডিসেম্বর ‘মেলানিয়াস ভিশন’ এই এনএফটির নিলাম শুরু হয়েছে ১৫০ ইউএস ডলারে। ডিসেম্বরের ৩১ তারিখ পর্যন্ত চলবে নিলাম। সাধারণত এ ধরনের নিলামে ইথেরিয়াম চেইন ব্যবহার করা হলেও মেলানিয়া ব্যবহার করছেন সোলানা ব্লকচেইন।

আমেরিকার সাবেক ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্প এনএফটি মার্কেট প্লেসে প্রবেশ করেছেন। তিনি নিজেই একটি ভেঞ্চার শুরু করেছেন।

মেলানিয়া জানিয়েছেন, শিল্পের প্রতি ভালোবাসা এবং শিশুদের প্রতি দায়বদ্ধতা থেকে তিনি এই প্রকল্পে যুক্ত হয়েছেন। এনএফটি থেকে পাওয়া অর্থ দিয়ে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের কম্পিউটার বিজ্ঞান, প্রোগ্রামিং এবং সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্টের মতো স্কিল শেখানোর ব্যবস্থা করা হবে।

আর্টনেটের প্রতিবেদনে জানা যায়, মেলানিয়া ইতোমধ্যে একটি এনএফটি নিলামে তুলেছেন। ওয়াটার কালারে আঁকা তার চোখের ছবিটির নাম ‘মেলানিয়াস ভিশন’। এটি এঁকেছেন ফরাসি ডিজিটাল আর্টিস্ট মার্ক এন্টনি কৌলন।এই চিত্রকলার এনএফটি ভার্সনে মেলানিয়ার কণ্ঠস্বরে একটি বার্তাও দেয়া হয়েছে। এই বার্তায় মেলানিয়া বলেন, ‘আমার দর্শন হলো, অনুপ্রেরণা, শক্তি ও সাহসের সঙ্গে এগিয়ে যাও।‘

১৬ ডিসেম্বর ‘মেলানিয়াস ভিশন’ এই এনএফটির নিলাম শুরু হয় ১৫০ ইউএস ডলারে। ডিসেম্বরের ৩১ তারিখ পর্যন্ত চলবে নিলাম। সাধারণত এ ধরনের নিলামে ইথেরিয়াম চেইন ব্যবহার করা হলেও মেলানিয়া ব্যবহার করছেন সোলানা ব্লকচেইন। একমাত্র সোলানাতেই তার এনএফটি কেনা সম্ভব।

কারও সোলানা না থাকলে ডলারে সোলানা কেনার অপশনও মেলানিয়ার ওয়েব প্ল্যাটফর্মে যুক্ত করা হয়েছে। সোলানা একটি নেটিভ ক্রিপ্টোকারেন্সি প্ল্যাটফর্ম। নিলামটি শুরুর সময় সোলানার দাম ছিল ১৭৫ ডলার, তবে এখন এর দাম পৌঁছেছে ১৮৬ ডলারে।

সাম্প্রতিক সময়ে অন্যান্য ক্রিপ্টোর দাম নিম্নমুখী হলেও সোলানা ঊর্ধ্বমুখী। কয়েন মার্কেট ক্যাপের মতে, রোববার বেলা ৩টার আগের ২৪ ঘণ্টায় সোলানার দাম বেড়েছে ৭.৩৪ শতাংশ। মেলানিয়ার নিলামে সোলানার ব্যবহারই এর কারণ কি না- তা স্পষ্ট নয়। আগে দেখা গেছে, বিভিন্ন সেলিব্রেটি, ইনফ্লুয়েন্সিয়ালদের কর্মকাণ্ড ক্রিপ্টো মার্কেটে প্রভাব রাখে। ডজকয়েনের দাম বৃদ্ধিতে ইলন মাস্কের টুইটের অবদান দেখা গেছে।

সাবেক ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্প আরও এনএফটি প্রকল্প ও অন্যান্য শিল্পকর্ম জানুয়ারি থেকে নিয়মিত নিলামে তুলবেন। এ থেকে পাওয়া অর্থ শিশুদের প্রযুক্তি দক্ষতা বাড়াতে ব্যয় হবে।

এনএফটি এখনও অনেকের কাছে বেশ আশ্চর্যের বিষয়। কী করে একটি এনএফটির দাম মিলিয়ন ডলার পর্যন্ত হয়- তা অনেকের কাছেই বোধগম্য নয়। যুক্তরাষ্ট্রের ডিজিটাল আর্টিস্ট মাইক উইঙ্কল ম্যানের ‘দ্য ফার্স্ট ফাইভ থাউজেন্ড ডেজ’ নামের এনএফটি প্রকল্প ৬৯ মিলিয়ন ডলারে বিক্রি হয়েছিল।

অনেকের ধারণা, এনএফটিতে কেবল শিল্পকর্মই বিক্রি হয়। তবে এটি ঠিক নয়। টুইটার সহপ্রতিষ্ঠাতা জ্যাক ডরসি তার প্রথম টুইটটি এনএফটি হিসেবে নিলামে তোলেন। পরে যার দাম ওঠে ২ কোটি ৫০ লাখ ডলার। এমনকি উইকিপিডিয়ার সর্বপ্রথম তৈরি করা পেজও নিলামে তোলা হয়েছে।

এনএফটি কী?

এনএফটির পূর্ণরূপ ‘নন ফাঞ্জিবল টোকেন’। ব্লকচেইন প্রযুক্তির মাধ্যমে ইমিউটেবল লেজারে যুক্ত হওয়ায় এনএফটি যেকোনো ডিজিটাল অ্যাসেটের ওপর একজন ব্যক্তির নিরঙ্কুশ মালিকানা দেয়। ইমিউটেবল লেজার বলতে বোঝায় অপরিবর্তনীয় লেজার। এতে কোনো ধরনের পরিবর্তন ঘটানো প্রায় অসম্ভব। এই পদ্ধতিতে ডিজিটাল আর্টকে কপি করা অসম্ভব হয়ে যায়। আপনি অবশ্যই কোনো কিছু নকল করতে পারেন, তবে সেটি আর যাই হোক, পুরোপুরি আগেরটির মতো হবে না।

উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, লিওনার্দো দ্য ভিঞ্চির দ্য লাস্ট সাপারের হুবহু নকল একটি ছবি কেনা যেতে পারে। তবে তা আর যা-ই হোক, লিওনার্দো দ্য ভিঞ্চির আঁকা মূল ছবিটি হবে না। সত্যিকার দ্য লাস্ট সাপারের দামও নকলের সমান হবে না। ঠিক তেমনি যখন একটি ডিজিটাল আর্টকে এনএফটি করা হয়, তখন সেটি একটি টোকেনে কনভার্ট হয়ে যায়। এরপর সেই ডিজিটাল আর্টে যদি এক মেগাপিক্সেলও পরিবর্তন করা হয়ে থাকে, সেটির টোকেন বদলে যাবে। কখনোই তা আগেরটির সঙ্গে মিলবে না।

এনএফটি হচ্ছে একটি দলিলের মতো। এটি ডিজিটাল দুনিয়ার যেকোনো কনটেন্টের ওপর ব্যক্তির মালিকানা প্রতিষ্ঠিত করে। ভিঞ্চির আঁকা ছবি নিয়ে কেউ জালিয়াতি করতে পারে, কিন্তু এনএফটি নিয়ে জালিয়াতি অসম্ভব। এককথায় এনএফটি হলো এমন একটি সম্পদ, যা ডিজিটাল দুনিয়ায় একটিই আছে। এটি অন্যান্য সম্পদের মতোই কেনাবেচা করা সম্ভব।

আরও পড়ুন:
আন্তর্জাতিক ব্লকচেইন অলিম্পিয়াড শুরু

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
Rajasthani horse for Bangladesh Police

বাংলাদেশ পুলিশের জন্য রাজস্থানি ঘোড়া  

বাংলাদেশ পুলিশের জন্য রাজস্থানি ঘোড়া  
বেনাপোল স্থলবন্দরের উপপরিচালক (ট্রাফিক) মনিরুল ইসলাম জানান, ঘোড়াগুলো ৮৩ হাজার ৩৪০ মার্কিন ডলারে আমদানি করা হয়েছে; বাংলাদেশি মুদ্রায় যা প্রায় ৮৯ লাখ টাকা

ভারত থেকে ৬টি প্রশিক্ষিত ঘোড়া আমদানি করেছে বাংলাদেশ পুলিশ। বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ঘোড়াগুলো আনা হয়।

‘মাধ্যম’ নামে একটি সিএন্ডএফ এজেন্ট ঘোড়াগুলোকে ছাড় নেয়ার দায়িত্বে ছিল। রপ্তানি প্রতিষ্ঠান জে কে এন্টারপ্রাইজ কলকাতা।

এসব নিশ্চিত করেছেন সিএন্ডএফ মাধ্যম এন্টারপ্রাইজের প্রতিনিধি এবং সিএন্ডএফ স্টাফ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সাজেদুর রহমান।

বেনাপোল স্থলবন্দরের উপপরিচালক (ট্রাফিক) মনিরুল ইসলাম জানান, ঘোড়াগুলো ৮৩ হাজার ৩৪০ মার্কিন ডলারে আমদানি করা হয়েছে; বাংলাদেশি মুদ্রায় যা প্রায় ৮৯ লাখ টাকা।

‘পুলিশের জন্য আমদানি করা ঘোড়াগুলো দ্রুত খালাসের জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশ ঘোড়াগুলো রক্ষণাবেক্ষণের তদারকি করছে।’

সিএন্ডএফ এজেন্ট মেসার্স মাধ্যম এন্টারপ্রাইজের প্রতিনিধি সাজেদুর রহমান বলেন, ‘ভারতের রাজস্থান থেকে ৬টি( মাড়োয়ারি) হর্স ক্যারেজ কিনেছে বাংলাদেশ পুলিশ। ঘোড়াগুলো খালাস করার পর বেনাপোল বন্দর থেকে ঢাকার রাজারবাগ পুলিশ লাইনে নেয়া হবে।’

বেনাপোল পোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামাল হোসেন ভূঁইয়া বলেন, ‘আমদানি ঘোড়া দ্রুত খালাসের জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহযোগিতা করা হচ্ছে।’

আরও পড়ুন:
যুবদল কর্মী শাওনের দাফন
পুলিশের ক্ষমতা দেখিয়ে সাবেক সেনাসদস্যের ফ্ল্যাট দখলের চেষ্টা
সশস্ত্র মিছিল ও হামলায় ছাত্রলীগ, মামলা বিএনপির বিরুদ্ধে
‘ভুল চিকিৎসা’য় প্রসূতির মৃত্যুর জেরে সংঘর্ষ
মুন্সীগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে আহত যুবদল কর্মীর মৃত্যু

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Pre paid gas meters are sitting in Sylhet

সিলেটে গ্যাসের প্রি-পেইড মিটার, অবশেষে চুক্তি

সিলেটে গ্যাসের প্রি-পেইড মিটার, অবশেষে চুক্তি জালালাবাদ গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন সিস্টেম লিমিটেড ভবন। ছবি: নিউজবাংলা
বর্তমানে জালালাবাদ গ্যাসের ৩ লাখ আবাসিক গ্রাহক। প্রথম অবস্থায় ৫০ হাজার গ্রাহককে প্রি-পেইড মিটারের আওতায় আনা হবে। পর্যায়ক্রমে বাকিদেরও এই মিটারের আওতায় নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

সিলেটে গ্যাসের আবাসিক গ্রাহকদের প্রি-পেইড মিটারের দরপত্র আহ্বানের প্রায় এক বছর পর চীনা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি করা হয়েছে।

দি কনসোর্টিয়াম অব জেনার মিটারিং টেকনোলজি (সাংহাই) লিমিটেড ও হেক্সিং ইলেকট্রিক্যাল কোম্পানি লিমিটেড, চায়নার সঙ্গে গত সপ্তাহে চুক্তি করেছে জালালাবাদ গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন সিস্টেম লিমিটেডের (জেজিটিডিএসএল)।

এই প্রকল্পের মাধ্যমে জেজিটিডিএসএলের গৃহস্থালি পর্যায়ের ৫০ হাজার গ্রাহক প্রি-পেইড মিটারের আওতায় আসবেন। এতে গ্যাসের অপচয় রোধের পাশাপাশি গ্রাহকরা অতিরিক্ত বিল দেয়া থেকে রেহাই পাবেন বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

প্রাথমিক অবস্থায় সিলেটের ৫০ হাজার গ্রাহককে প্রি-পেইড মিটারের আওতায় আনা হবে।

প্রথম ডিপিপি অনুযায়ী চলতি বছরের নভেম্বরে এই প্রকল্পের কাজ শেষ হওয়ার কথা ছিল। মার্চের মধ্যে কাজ শুরু হওয়ার কথা। তবে ডিপিপি সংশোধন করে গত মার্চে নতুন করে দরপত্র আহ্বান করে জালালাবাদ গ্যাস। এতে প্রকল্পের মেয়াদ ২০২৩ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত করা হয়েছে। এখনও শুরু না হওয়ায় এই সময়ের মধ্যেও কাজ শেষ হওয়া নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

দেরিতে চুক্তি সম্পর্কে এই প্রকল্পের পরিচালক লিটন চন্দ্র নন্দী বলেন, ‘২০১৯ সালে এ ব্যাপারে একটি উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাবনা (ডিপিপি) মন্ত্রণালয়ে জমা দেয় জালালাবাদ গ্যাস কর্তৃপক্ষ। ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারিতে প্রকল্প অনুমেদন হয়। এরপর দরপত্র আহ্বান করা হলেও উপযুক্ত দরদাতা পাওয়া যাচ্ছিল না। এছাড়া প্রকল্পের প্রস্তাবিত ব্যয়েও কিছু অসামাঞ্জস্য ছিল। তাই ডিপিপি সংশোধন করে চলতি বছরে আবার দরপ্রত্র আহ্বান করা হয়।’

এই প্রকল্পে ১২০ কোটি টাকা ব্যয় হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘চুক্তির পর জরিপ কাজ শুরু হয়ে গেছে। চলতি বছরেই মাঠ পর্যায়ের কাজও শুরু হবে। আশা করছি, নির্ধারিত সময়েই কাজ শেষ করা যাবে।’

তিনি জানান, গ্যাসের প্রি-পেইড মিটার স্থাপনের মাধ্যমে একদিকে যেমন গ্যাসের অপচয় রোধ হবে, অন্যদিকে গ্রাহকের প্রতি মাসের খরচও কমবে। দুই চুলার গ্যাসের জন্য এখন প্রতি মাসে গ্রাহক এক হাজার টাকার ওপর বিল দিচ্ছেন। প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে ছোট পরিবারের এক হাজার টাকায় তিন মাস গ্যাস ব্যবহার করতে পারবে। মাসে তার খরচ পড়বে ৩০০ টাকার মতো। এছাড়া গৃহস্থালি পর্যায়ে প্রি-পেইড গ্যাস মিটার ব্যবহারের মাধ্যমে গ্রাহকদের মধ্যে গ্যাস ব্যবহারে সচেতনতা, কোম্পানির ব্যবস্থাপনা দক্ষতা বৃদ্ধি এবং মনিটরিং ব্যয়ও কমবে।

প্রকল্প পরিচালক জানান, মিটারের মূল্য মাসিক ভাড়া হিসেবে সমন্বয় করা হবে। কাছাকাছি রিচার্জ পয়েন্ট থেকে স্মার্ট কার্ডের মাধ্যমে ক্রেডিট কিনে প্রি-পেইড মিটার রিচার্জ করা যাবে। রিচার্জ শেষ হলেও এতে ইমার্জেন্সি ব্যালেন্সের সুবিধা থাকবে।

তিনি জানান, ঢাকা ও চট্টগ্রামে প্রি-পেইড গ্যাস মিটার থাকলেও সিলেটে প্রথমবারের মতো চালু করা হচ্ছে এ পদ্ধতি।

জেজিটিডিএসএল ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী শোয়েব আহমদ মতিন জানান, প্রথমে নগরের শাহজালাল ও হাউজিং এস্টেট আবাসিক এলাকায় পাইলট ভিত্তিতে প্রকল্পের কাজ শুরু হবে। কারণ সরকারি মালিকানাধীন এই দুই আবাসিক এলাকা পরিকল্পিতভাবে গড়ে উঠেছে। এখানে কাজ করা সহজ হবে।

তিনি বলেন, ‘২০২১ সালের শুরুতে প্রি-পেইড মিটার স্থাপনের উদ্যোগ নেয়া হয়। দীর্ঘ প্রচেষ্টার পর মিটার স্থাপনের জন্য অবশেষে চায়না কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি হল।’

তিনি আরও জানান, অনেকে ম্যাচের কাঠি বাঁচাতে অপ্রয়োজনে গ্যাসের চুলা জ্বালিয়ে রাখেন। প্রি-পেইড মিটার যুক্ত হলে তারা এ কাজ থেকে বিরত থাকবেন। অনেক গ্রাহক আছেন, সারা মাস গ্যাস ব্যবহার না করলেও মাস শেষে নির্ধারিত বিল পরিশোধ করতে হয়। তাদের আর গ্যাস না জ্বালালে বিল দিতে হবে না। যতটুকু গ্যাস ব্যবহার করবেন কেবল ততটুকুর বিল দিতে হবে।

জেজিটিডিএসএল কর্মকর্তারা জানান, এই প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে প্রতিটি আবাসিক গ্রাহকের মাসিক গড় গ্যাস ব্যবহার ৬৬ ঘনমিটার থেকে ৪০ ঘনমিটারে নেমে আসবে। ফলে গ্রাহকপ্রতি গ্যাস সাশ্রয় হবে গড়ে ২৬ ঘনমিটার। গ্যাস বিতরণ লাইন লিকেজজনিত অপচয়ও রোধ হবে।

বর্তমানে জালালাবাদ গ্যাসের ৩ লাখ আবাসিক গ্রাহক। প্রথম অবস্থায় ৫০ হাজার গ্রাহককে প্রি-পেইড মিটারের আওতায় আনা হবে। পর্যায়ক্রমে বাকিদেরও এই মিটারের আওতায় নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

এ ব্যাপারে হেক্সিং ইলেকট্রিক্যালের রিজিওনাল সিইও লিও জু বলেন, ‘বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডসহ এদেশে অনেক প্রকল্পে প্রি-পেইড মিটার স্থাপনের কাজ করার অভিজ্ঞতা রয়েছে আমাদের। আমরা ১৪ বছর ধরে এ কাজে নিয়োজিত। নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই জালালাবাদ গ্যাসের প্রি-পেইড মিটার স্থাপনের কাজ শেষ করতে পারবো বলে আশাবাদী।’

আরও পড়ুন:
গ্রিন টাউন এলপি গ্যাস ও টি কে গ্যাস সিলিন্ডারের চুক্তি
বিদ্যুৎ গ্যাস পানি এখন রাজনৈতিক পণ্য: আমীর খসরু
এবার লাটভিয়ায় গ্যাস বন্ধ রাশিয়ার
গ্যাস-বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন করার আইন বাতিল চান ব্যবসায়ীরা
ইউরোপে রুশ গ্যাস পাওয়া নিয়ে নতুন শঙ্কা

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Threatening to take off clothes of women who come to deposit money

টাকা জমা দিতে আসা নারীর কাপড় খুলে নেয়ার হুমকি

টাকা জমা দিতে আসা নারীর কাপড় খুলে নেয়ার হুমকি ডাকঘরের রানার হিসেবে কর্মরত সুমন আহমেদ। ছবি: নিউজবাংলা
অভিযোগ স্বীকার করে নিয়ে সুমন আহমেদ বলেন, ‘হাতে কাজ থাকায় সেবা নিতে আসা ওই নারীকে অপেক্ষা করতে বলেছিলাম। কিন্তু তিনি অপেক্ষা না করে আমার সঙ্গে খারাপ আচরণ করায় রেগে গিয়ে কাপড় খুলে নেয়ার কথা বলেছিলাম।…উত্তেজিত হয়ে আমি বাজে কথা বলেছি। মানুষ রাগের মাথায় অনেক কিছুই বলে। আমার এভাবে কথা বলা ঠিক হয়নি, আমার ভুল হয়েছে।’

গাজীপুর পোস্ট অফিসে ডাক জীবন বিমার টাকা জমা দিতে গিয়ে আউটসোর্সিং কর্মীর মাধ্যমে লাঞ্ছিত হয়েছেন এক নারী। এ সময় ওই নারীর কাপড় খুলে নেয়ারও হুমকি দেয়া হয়।

বৃহস্পতিবার দুপুরে শহরের প্রধান ডাকঘরে এ ঘটনা ঘটে।

অভিযুক্ত সুমন আহমেদ প্রায় আড়াই বছর ধরে ডাকঘরের আউটসোর্সিং কর্মী (রানার) হিসেবে কর্মরত। সেই নারীর অভিযোগের পর তিনি তা স্বীকারও করেছেন। বলেছেন, উত্তেজিত হয়ে এই কথা বলে ফেলেছেন।

শহরের বাসিন্দা মধ্য বয়সী এক নারী বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ডাক জীবন বিমার কিস্তির টাকা জমা দিতে শহরের রাজবাড়ি সড়কের প্রধান ডাকঘরে যান। সেখানে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করেও টাকা জমা দিতে না পেরে পোস্টাল অপারেটর আয়েশা বেগমের দ্বারস্থ হন।

আয়েশা ওই নারীকে আউট সোর্সিং কর্মী (রানার) সুমন আহমেদের কাছে পাঠান। কিন্তু সুমনও তাকে দীর্ঘক্ষণ দাঁড় করিয়ে রাখেন।

পরে ওই নারী তার কাজটি দ্রুত করে দেয়ার অনুরোধ করলে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন সুমন। এ নিয়ে দুই জনের মধ্যে তর্ক বাঁধে। এক পর্যায়ে সুমন কিস্তি জমা দিতে আসা ওই নারীকে অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ করে পরনের কাপড় খুলে নেয়ার হুমকি এবং মারার জন্য তেড়ে যান।

ওই নারীকে সেখানে বেশ কিছুক্ষণ অবরুদ্ধও করে রাখা হয়। প্রায় এক ঘণ্টা এমন অবস্থা চলাকালে বিভিন্ন সেবা নিতে ডাকঘরে আসা লোকজনের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

একাধিক সেবা প্রার্থী অভিযোগ করে বলেন, এ ডাকঘরে সেবা পেতে দুর্ব্যবহারসহ মানুষকে নানা হয়রানি পোহাতে হয়।

সুমন বলেন, ‘হাতে কাজ থাকায় সেবা নিতে আসা ওই নারীকে অপেক্ষা করতে বলেছিলাম। কিন্তু তিনি অপেক্ষা না করে আমার সঙ্গে খারাপ আচরণ করায় রেগে গিয়ে কাপড় খুলে নেয়ার কথা বলেছিলাম।’

তিনি আরও বলেন, ‘উত্তেজিত হয়ে আমি বাজে কথা বলেছি। মানুষ রাগের মাথায় অনেক কিছুই বলে। আমার এভাবে কথা বলা ঠিক হয়নি, আমার ভুল হয়েছে।’

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী সহকারী পোস্ট মাস্টার ইব্রাহিম খলিল বলেন, ‘আউটসোর্সিং কর্মী সুমন স্টাফদের সঙ্গেও খারাপ আচরণ করে। আমাদের ক্ষমতা নেই তাকে বাদ দেয়ার, তাকে ওপর মহল থেকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে।’

পোস্ট মাস্টার খন্দকার নূর কুতুবুল আলম জানান, ঘটনার সময় তিনি ব্যাংকে ছিলেন। পরে সব জেনে বলেন, ‘নারীর সঙ্গে করা আচরণ শোভন হয়নি। তার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিতে ঘটনাটি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের লিখিতভাবে জানানো হবে।’

তিনি জানান, সুমন আহমেদের নিয়োগ রানার পদে। জনবল সংকটের কারণে তাকে দিয়ে কিছু অফিসিয়াল কাজ করানো হয়।

আরও পড়ুন:
গাজীপুরে হামলায় ছাত্রলীগের ১১ জন আহত, প্রতিবাদে বিক্ষোভ অবরোধ
সবচেয়ে দূষিত বায়ু গাজীপুরে, কম মাদারীপুরে
অপহরণের ৯ ঘণ্টা পর শিশু উদ্ধার, গ্রেপ্তার ২

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Akash Alis death casts a pall over the joy of worship

পূজার আনন্দে বিষাদ ঢেলেছে আকাশ আলীর মৃত্যু

পূজার আনন্দে বিষাদ ঢেলেছে আকাশ আলীর মৃত্যু বুধবার সন্ধ্যায় জামালপুরে ব্রহ্মপুত্র নদ থেকে আকাশ আলীর মরদেহ উদ্ধারের পর স্বজনের কান্না। ছবি: নিউজবাংলা
৩৬০ বছর পুরনো শ্রীশ্রী দয়াময়ী মন্দিরের পুরোহিত নিরঞ্জন ভাদুড়ী বলেন, ‘ঘটনাটি শোনার পর থেকেই নিজের ভেতরে এক ধরনের অস্থিরতা অনুভব করছি। এত বড় একটা উৎসবে একজন মা তার আদরের ধন হারাল। একটা মায়ের বুক খালি হয়ে গেল। এই ছেলেটি আমার বা আপনারও হতে পারত। তাই আমাদের সবাইকে সচেতন হতে হবে।’

বছর ঘুরে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের জন্য আনন্দের উপলক্ষ হয়ে আসে শারদীয় দুর্গোৎসব। ব্যতিক্রম হয়নি এবারও। কিন্তু একটি মৃত্যু সেই আনন্দের আবহে বিষাদ ছড়িয়ে দিয়েছে।

জামালপুরে বুধবার বিজয়া দশমীতে প্রতিমা বিসর্জনের সময় ব্রহ্মপুত্র নদের পানিতে ডুবে মারা যান মো. আকাশ আলী। আনন্দ আয়োজন উদযাপনকালে ২২ বছর বয়সী এই তরুণের মৃত্যুর শোক ছুয়ে গেছে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবাইকে।

আকাশ জামালপুর সদর উপজেলার নান্দিনা এলাকার সোজাউর রহমান রানার ছেলে। এই অকাল মৃত্যুতে পরিবারটি শোকে বাকরুদ্ধ। একইসঙ্গে স্থানীয় মুসলিম ও হিন্দু কমিউনিটির প্রতিটি মানুষ যেন মেনে নিতে পারছেন না এই দুর্ঘটনা। তারা বলছেন- আনন্দ উৎসবে এমন মর্মান্তিক ঘটনা কখনোই কাম্য নয়।

বৃহস্পতিবার সকালে নামাজে জানাযা শেষে পারিবারিক গোরস্তানে আকাশকে দাফন করা হয়েছে। তার এমন মৃত্যুতে হিন্দু সম্প্রদায়ের মাঝেও শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

পূজার আনন্দে বিষাদ ঢেলেছে আকাশ আলীর মৃত্যু
ব্রহ্মপুত্র নদের এই স্থানটিতেই বুধবার সন্ধ্যায় প্রতিমা বিসর্জনের সময় পানিতে ডুবে মারা যান মো. আকাশ আলী। ছবি: নিউজবাংলা

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ জামালপুর জেলা শাখার সভাপতি প্রদীপ কুমার সোম বলেন, ‘গতকাল (বুধবার) সন্ধ্যায় ফায়ার সার্ভিস মুকন্দবাড়ির প্রতিমার নিচ থেকে ছেলেটির দেহ উদ্ধার করার পর আমরা সবাই অস্থির হয়ে গেলাম। ছেলেটিকে হাসপাতালে নিয়ে গেলাম। সব জায়গায় খবর লাগালাম। পরে তার পরিবারের লোকজন এল। রাত ১২টার পর আমরা হাসপাতাল থেকে এলাম।

এ ঘটনায় আমাদের হিন্দু সম্প্রদায়ের সবাই শোকাহত। এমন দুঃখজনক ঘটনা থেকে শিক্ষা নিয়ে ভবিষ্যতে আমাদেরে আরও সচেতন থেকে উৎসব উদযাপন করা উচিত।’

৩৬০ বছর পুরনো শ্রীশ্রী দয়াময়ী মন্দিরের পুরোহিত নিরঞ্জন ভাদুড়ী বলেন, ‘আমাদের বিভিন্ন উৎসবে মুসলমান ছেলেরাই বেশি থাকে। আমরা সবাই মিলে উৎসবের আনন্দ ভাগাভাগি করে নেই। একটি উৎসবে এমন মৃত্যু কারও কাম্য নয়।

‘ঘটনাটি শোনার পর থেকেই নিজের ভেতরে এক ধরনের অস্থিরতা অনুভব করছি। এত বড় একটা উৎসবে একজন মা তার আদরের ধন হারাল। একটা মায়ের বুক খালি হয়ে গেল। এই ছেলেটি আমার হতে পারত। আপনারও হতে পারত। তাই আমাদের সবাইকে সচেতন হতে হবে।’

জামালপুরের মানবাধিকার কর্মী জাহাঙ্গীর সেলিম বলেন, ‘আনন্দ উৎসবে এমন মর্মান্তিক ঘটনায় সবারই আনন্দ ম্লান করে দিয়েছে। হিন্দু-মুসলিম নির্বিশেষে সবাইকে ছুয়ে গেছে এই বিয়োগান্তক ঘটনা।’

বিশিষ্ট কবি ও সাহিত্যিক সাযযাদ আনসারী বলেন, ‘জামালপুরের সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বিভিন্ন উৎসবে মুসলমান কিশোর-যুবকরা বরাবরই দলে দলে অংশগ্রহণ করে থাকে। সবাই মিলে উৎসবের আনন্দ ভাগাভাগি করে। এটি হচ্ছে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির একটি বড় উদাহর। প্রতিমা বিসর্জনের সময় ছেলেটির এই অকাল মৃত্যুতে আমরা সবাই শোকাহত। এমন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা কারও কাম্য নয়।’

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীদের একজন জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন শাখার রেসকিউ বোট ক্রু তানজিল আহম্মেদ তন্ময়। তিনি বলেন, ‘সন্ধ্যা ৭টা থেকে সাড়ে ৭টার মধ্যে মো. আকাশ আলী নামের ছেলেটি দুইবার নদে পড়ে যায়। সঙ্গে থাকা বন্ধু-বান্ধবরা দুবারই তাকে নদের পাড়ে তুলে আনে।

‘তৃতীয় বার যখন ছেলেটি নদে পড়ে যায় তখন আর কেউ খেয়ালা করেনি। মিনিট দশেক পর তার অনুপস্থিতি দেখে সঙ্গীয় বন্ধুরা ফায়ার সার্ভিসে খবর দেয়।ক দেয় পরে ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা ছেলেটিকে নদীতে বিসর্জন দেয়া প্রতিমার নিচ থেকে তাকে উদ্ধার করে।’

জামালপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী শাহনেওয়াজ বলেন, ‘এই মৃত্যু নিয়ে আকাশের মা-বাবার কোনো অভিযোগ নেই। তাদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে ময়নাতদন্ত ছাড়াই পরিবারের কাছে মরদেহ হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় জামালপুর সদর থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
প্রতিমার সঙ্গে ডুবে মুসলিম যুবকের মৃত্যু
পূজার আলোকসজ্জার তারে জড়িয়ে যুবকের মৃত্যু

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
President and Prime Minister are going to Tungipara on Friday

রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী টুঙ্গিপাড়া যাচ্ছেন শুক্রবার

রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী টুঙ্গিপাড়া যাচ্ছেন শুক্রবার রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: সংগৃহীত
গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক জানান, রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর টুঙ্গিপাড়া সফর ঘিরে জেলাজুড়ে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। যাবতীয় প্রস্তুতি এরই মধ্যে শেষ হয়েছে।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধি সৌধে শ্রদ্ধা জানাতে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শুক্রবার টুঙ্গিপাড়া যাচ্ছেন।

টুঙ্গিপাড়ায় বিকেলে রাষ্ট্রপতিকে স্বাগত জানাবেন প্রধানমন্ত্রী।

গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর টুঙ্গিপাড়া সফর ঘিরে জেলাজুড়ে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। যাবতীয় প্রস্তুতি এরই মধ্যে শেষ হয়েছে।

টুঙ্গিপাড়ার মেয়র শেখ তোজাম্মেল হক টুটুল বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সকালে গণভবন থেকে সড়ক পথে টুঙ্গিপাড়ার উদ্দেশে রওনা হবেন। টুঙ্গিপাড়ায় পৌঁছে তিনি জাতির পিতার সমাধি সৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ, ফাতেহাপাঠ ও বিশেষ মোনাজাত করবেন। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার ছোট বোন শেখ রেহানারও আসার কথা রয়েছে।’

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বিকেলে সড়কপথে পদ্মা সেতু পাড়ি দিয়ে টুঙ্গিপাড়া যাবেন।

রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব মো. জয়নাল আবদীন বাসসকে জানান, রাষ্ট্রপতির সঙ্গে থাকবেন পারিবারিক সদস্য ও রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ের কর্মকর্তারা।

বঙ্গভবন থেকে মোটর শোভাযাত্রাসহ টুঙ্গিপাড়ার উদ্দেশে বেলা পৌনে ২টায় রাষ্ট্রপতির যাত্রা করার কথা রয়েছে।

রাষ্ট্রপ্রধান জাতির পিতার সমাধি সৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ, ফাতেহা পাঠ ও মোনাজাতে অংশ নেবেন। মোনাজাত শেষে তিনি পরিদর্শন বইয়ে সই করবেন।

পরে রাষ্ট্রপতি মোটর শোভাযাত্রাস টুঙ্গিপাড়া থেকে কালনা সেতু এলাকা পরিদর্শন করবেন। সেখান থেকে মাদারীপুরের শিবচরে ইলিয়াস আহমেদ চৌধুরীর কবর জিয়ারত এবং ইলিয়াস আহমেদ চৌধুরী কলেজ ও মসজিদ পরিদর্শনে যাবেন।

আরও পড়ুন:
টুঙ্গিপাড়ায় দারুণ আয়োজনে কাটল লোকজ মেলার দিন
বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনে সব চ্যানেলে ‘টুঙ্গিপাড়ার মিয়া ভাই’
বঙ্গবন্ধু সমাধি কমপ্লেক্সে দুই সপ্তাহ প্রবেশ নিষেধ
প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে টুঙ্গিপাড়া পরিদর্শনে সচিব
মন পড়ে আছে টুঙ্গিপাড়ায়: শেখ হাসিনা

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
No invitation to tea nothing to do if you dont vote

‘ভোটে না এলে কিছু করার নেই’

‘ভোটে না এলে কিছু করার নেই’ সংবাদ সম্মেলনে বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: বাসস
প্রধানমন্ত্রী মাঝে বলেছিলেন, বিরোধী দল চাইলে গণভবনে চায়ের আমন্ত্রণে আসতে পারে। সেই প্রসঙ্গটি তুলে ধরে একজন গণমাধ্যমকর্মী জানতে চান, নির্বাচন সামনে রেখে বিরোধী দলগুলোকে এবার চায়ের আমন্ত্রণ জানানো হবে কি না। জবাবে তিনি বলেন, ‘করোনার কারণে একটু চিন্তা করতেই হবে। অনেকে আসবেও না, আসতেও পারবে না। এটা একটা সমস্যা।’

চলমান করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে আগামী জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে বিরোধীদলগুলোর সঙ্গে সংলাপে বসার সুযোগ নেই বলেও ইঙ্গিত দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এমনকি কয়েক মাস আগে বিরোধীদেরকে গণভবনে যে চায়ের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন, সেটিও আর নেই বলে ইঙ্গিত দিলেন তিনি।

নির্বাচনে অংশ নেয়া, না নেয়া প্রতিটি রাজনৈতিক দলের নিজস্ব সিদ্ধান্ত জানিয়ে তিনি বলেছেন, সেখানে কিছু চাপিয়ে দেয়া যায় না, কিছু করারও থাকে না। আর ‘খুঁটির জোর’ ও জনসমর্থন না থাকায় বিএনপি বিদেশিদের কাছে ধরনা দিচ্ছে বলেও মন্তব্য করেছেন সরকারপ্রধান।

গণভবনে বৃহস্পতিবার বিকেলে যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্র সফর নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বিদেশ সফর করলে বরাবর সাংবাদিকদেরকে ব্রিফ করেন। সেই ব্রিফিংয়ে সফরের বিষয়ে একটি সাধারণ বিবৃতি থাকে। এরপর থাকে প্রশ্নোত্তর পর্ব। এই পর্বে আর্থ-সামাজিক বা রাজনৈতিক সবশেষ পরিস্থিতির সম্পর্কে সরকার প্রধানের বক্তব্য উঠে আসে। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি।

অন্যান্য অনেক প্রশ্নের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীকে প্রশ্ন করা হয় আগামী জাতীয় নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির অবস্থান নিয়ে, যারা নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকারের অধীনে না হলে ভোটে না আসার ঘোষণা দিয়ে রেখেছে।

১৯৯৬ থেকে তিনটি জাতীয় নির্বাচন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে হলেও গত দু্টি নির্বাচন হয়েছে আওয়ামী লীগ সরকার দায়িত্বে থাকাকালে।

২০০৯ উচ্চ আদালত তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থাকে অসাংবিধানিক ঘোষণা করলে নির্বাচিত সরকারের অধীনে ভোটের পদ্ধতি ফিরিয়ে আনে জাতীয় সংসদ।

এর প্রতিবাদে ২০১৪ সালের জাতীয় নির্বাচন বর্জন করে আন্দোলনে যায় বিএনপি ও শরিকরা। তবে নির্বাচন ঠেকানো যায়নি। ২০১৮ সালের একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগেও আন্দোলনের ঘোষণা দিলেও বিএনপি ও তার জোট শেষ পর্যন্ত ভোটে আসে এবং ইতিহাসের সবচেয়ে বাজে ফল করে।

সেই নির্বাচনে আগের রাতে ভোট হয়ে যাওয়ার অভিযোগ এনে বিএনপি নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকারের দাবিতে ফিরে গেছে। এর অংশ হিসেবে গত ২২ আগস্ট থেকে ধারাবাহিক নানা কর্মসূচি পালন করছে।

চায়ের আমন্ত্রণ কি আছে?

প্রধানমন্ত্রী মাঝে বলেছিলেন, বিরোধী দল চাইলে গণভবনে চায়ের আমন্ত্রণে আসতে পারে। সেই প্রসঙ্গটি তুলে ধরে একজন গণমাধ্যমকর্মী জানতে চান, নির্বাচনকে সামনে রেখে বিরোধী দলগুলোকে এবার ‘চায়ের আমন্ত্রণ’ দেয়া হবে কি না।

জবাবে তিনি বলেন, ‘করোনার কারণে একটু চিন্তা করতেই হবে। অনেকে আসবেও না, আসতেও পারবে না। এটা একটা সমস্যা।’

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপ করলেও তার অভিজ্ঞতা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নাখোশ, তা বোঝা গেল তার কথায়।

তিনি বলেন, ‘গতবার যে সবার সঙ্গে বৈঠক করলাম, আলোচনা করলাম একটা নির্বাচন, নির্বাচনে এসে দেখা গেল ৩০০টিতে ৭০০ নমিনেশন দিয়ে যখন নিজেরা হেরে গেল, তখন সব দোষ কার, আমাদের।’

‘নির্বাচনে আসার সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দিতে পারি না’

আগের কথার রেশ টেনে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘দ্বিতীয় কথা হচ্ছে যে, আর নির্বাচন হলে রাজনৈতিক দলের সিদ্ধান্ত কে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে, কে করবে না। সেখানে আমরা কিছু চাপিয়ে দিতে পারি না। রাজনীতি করতে হলে দলগুলো নিজের সিদ্ধান্ত নেবে।’

তবে সব দল নির্বাচনে অংশ নেবে বলে- এটাই নিজের চাওয়া বলে জানান সরকারপ্রধান। তিনি বলেন, ‘হ্যাঁ, আমরা অবশ্যই চাই যে সবদল অংশগ্রহণ করুক। কারণ এতদিন কাজ করার পর নিশ্চয়ই আমরা চাইব যে সবাই আসুক।’

দেশের জনগণের কাছে বিএনপির ভোট চাওয়ার মুখটাও নেই বলেও মন্তব্য করেন আওয়ামী লীগ প্রধান। বলেন, ‘তারা আর কোন মুখে জনগণের কাছে ভোট চাইতে যাবে? আগুন দিয়ে পোড়ানো, মানুষ খুন করা, বোমা মারা, গ্রেনেড মারা-সব জায়গাতে তো আছে। তারা যদি সামনে এসে দাঁড়ায়, ভোট চাইতে আসছেন, আমার এই অবস্থা। কী জবাব দেবে বিএনপি? এজন্যই বিদেশিদের কাছে ধরনা দিয়ে বেড়ায়। দেশের মানুষের কাছে যায় না।’

আন্দোলনে বাধা নেই

গত জুলাই থেকে বিএনপির নানা কর্মসূচিতে পুলিশের গুলিতে পাঁচ জনের মৃত্যু ও অনেক নেতা-কর্মী আহত হলেও প্রধানমন্ত্রী দাবি করেন, বিএনপির আন্দোলনে সরকার কোনো বাধা দিচ্ছে না।

তিনি বলেন, ‘আমরা তো বাধা দিচ্ছি না। আমরা তো বলছি আন্দোলন করেন, সংগ্রাম করেন, যত আন্দোলন করবে তত ভালো। করে না তো, কী করব?’

ডিসেম্বরে আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘পরবর্তী বছরই তো ইলেকশন। নির্বাচনের প্রস্তুতিও আমরা এখন থেকে নিচ্ছি। আমাদের দল বোধ হয় বাংলাদেশে একটি মাত্র দল আমরা আমাদের গঠনতন্ত্র মেনে চলি। প্রতিটি ক্ষেত্রে গঠনতন্ত্র মোতাবেক আমরা আমাদের সিদ্ধান্ত নিই।’

অপর এক প্রশ্নের জবাবে বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, ‘আমাকে নিয়ে লেখালেখির এত দরকার নেই। আমি জনগণের সেবা করতে এসেছি। আমার বাবা দেশটা স্বাধীন করে দিয়ে গেছেন, তার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করাই আমার লক্ষ্য। আমার নিজের তো চাওয়া পাওয়ার কিছু নেই। আমার দেশের মানুষের জন্য কতটুকু কী করতে পারলাম, কতটুকু দিতে পারলাম, এটাই হচ্ছে আমার সব থেকে বড় পাওয়া।’

‘ভোট চুরি করে আ.লীগ ক্ষমতায় আসেনি, আসবেও না’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘অন্তত আওয়ামী লীগ কখনও ভোট চুরি করে ক্ষমতায় আসবেও না, আসেও নি। আওয়ামী লীগ কিন্তু জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়েই ক্ষমতায় এসেছে।’

জনগণের জন্য কাজ করে, জনগণের মন জয় করে, জনগণের ভোট নিয়েই আওয়ামী লীগ বারবার ক্ষমতায় এসেছে বলে জানান তিনি। বলেন, ‘আওয়ামী লীগ কখনও কোনো মিলিটারি ডিক্টেটরের পকেট থেকে বের হয়নি। ইমার্জেন্সি দিয়ে কারও ক্ষমতা দখল করেও কিন্তু আওয়ামী লীগ কখনও ক্ষমতায় আসেনি। আওয়ামী লীগ যতবার ক্ষমতায় এসছে, ভোটের মাধ্যমেই এসেছে, নির্বাচনের মাধ্যমেই এসেছে।

‘এদেশে নির্বাচনের যতটুকু উন্নতি, যতটুকু সংস্কার এটা কিন্তু আওয়ামী লীগ ও সবাইকে নিয়ে মহাজোট করেই কিন্তু করে দিয়েছি। এরপর যদি কেউ না আসে, সেখানে আমাদের কী করণীয়? হারার ভয়ে আসব না, বা কিছু বা একেবারে লোকমা তুলে খাইয়ে দিতে হবে, তবেই আসব, এটা তো হয় না।’

‘সেনাশাসনে জন্ম হওয়া বিএনপি জনগণের কাছে যেতে ভয় পায়’

সামরিক শক্তিকে কাজে লাগিয়ে বিএনপির জন্ম জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মিলিটারি ডিক্টেটররা এভাবে করেছে। যাদের এই অভ্যাস, তারা তো জনগণের কাছে যেতেই ভয় পায়। জনগণের সামনে ভোট চাইতেই ভয় পায়, এটা বাস্তবতা। অগ্নিসন্ত্রাস করে যারা মানুষ হত্যা করেছে, তাদেরকে কী মানুষ ভোট দেবে? কখনও দিতে পারে না। সে পোড়া ঘা তো এখনও শুকায়নি। এখনও তো কষ্ট পাচ্ছে, গ্রেনেড হামলায় যারা আহত।’

খুঁটির জোর আর জনসমর্থন নেই বলেই বিএনপি জনগণের কাছে না গিয়ে বিদেশিদের কাছে দৌড়ে বেড়াচ্ছে বলে মনে করেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘বিএনপি ভুলে গেছে তাদের অতীতের কথা। বিএনপির সৃষ্টি যেভাবে, একটা মিলিটারি ডিক্টেটরের পকেট থেকে বিএনপির সৃষ্টি। আর নির্বাচনের যে প্রহসন, সেটাও তাদের সৃষ্টি, তারা তৈরি করেছে। বরং নির্বাচনটাকে আমরা জনগণের কাছে নিয়ে গেছি।’

বিভিন্ন দূতাবাসের সঙ্গে বৈঠকের বিষয়ে এক সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যদি মাটিতে জোর থাকত, নিজের দেশের মাটিতে যদি তাদের সে রকম সমর্থন থাকত, আর ওই যে বলে না খুঁটিতে যদি জোর থাকত, অর্থাৎ নিজের শেকড়ের জোরটা যদি এখানে থাকত তাহলে তো বিদেশে ধরনা দেয়ার দরকার হতো না।

‘জনসমর্থন থাকলে, জনগণের ওপর আস্থা থাকলে, বিশ্বাস থাকলে জনগণের কাছেই যেত। বিদেশের কাছে দৌড়ে বেড়াত না, এটাই হলো বাস্তবতা।’

আরও পড়ুন:
র‌্যাব তো হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের পরামর্শে, ট্রেনিংও তাদের: প্রধানমন্ত্রী
বিশ্বে দুর্ভিক্ষের শঙ্কা, দেশের অর্থনীতি শক্তিশালী: প্রধানমন্ত্রী
বিদায় নেয়ার জন্য প্রস্তুত আমি: শেখ হাসিনা
সব ধর্মকে সম্মান দেখাতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Mayor Khalek is threatening to expel the voters

‘ভোটারদের বহিষ্কারের হুমকি দিচ্ছেন মেয়র খালেক’

‘ভোটারদের বহিষ্কারের হুমকি দিচ্ছেন মেয়র খালেক’ খুলনা ক্লাবে ৩ অক্টোবর আওয়ামী লীগের সভায় বক্তব্য দেন কেসিসি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক। ছবি: নিউজবাংলা
মোর্ত্তজা বলেন, ‘জেলা পরিষদ নির্বাচনে কেসিসি মেয়র ধারাবাহিকভাবে আচারণবিধি লঙ্ঘন করছেন। চেয়ারম্যান প্রার্থী শেখ হারুন মনোনয়নপত্র দাখিলের সময় মেয়র সঙ্গে ছিলেন, সরকারি গাড়ি নিয়ে এসেছিলেন। পরে তিনি ভোটারদের দল থেকে বহিষ্কারের হুমকি দেন। তিনি প্রভাব খাটিয়ে ভোট বুঝে নিতে চেয়েছেন।

খুলনা জেলা পরিষদ নির্বাচনে আচারণ বিধি লঙ্ঘন করে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর পক্ষে প্রচার চালানোর অভিযোগ উঠেছে সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেকের বিরুদ্ধে।

মেয়রের বিরুদ্ধে রিটার্নিং অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন স্বতন্ত্রপ্রার্থী মোর্ত্তজা রশিদী দারা।

অভিযোগে বলা হয়, ‘দলীয় প্রার্থীকে ভোট দিতে প্রকাশ্যে নির্দেশ, নির্বাচনি সভায় অংশগ্রহণ, ভোট না দিলে জনপ্রতিনিধি ভোটারদের দল থেকে বহিষ্কারের হুমকি দিচ্ছেন মেয়র খালেক।’

বৃহস্পতিবার দুপুর ২টার দিকে রিটার্নিং অফিসারের পক্ষে অভিযোগ গ্রহণ করেন খুলনা জেলা প্রশাসনের স্থানীয় সরকার শাখার উপ-পরিচালক মো. ইউসুপ আলী।

অভিযোগে আরও বলা হয়, ‘৩ অক্টোবর খুলনা ক্লাবে জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে মোটরসাইকেল প্রতীকের প্রার্থী শেখ হারুনুর রশিদের সভাপতিত্বে সভা হয়। সেখানে প্রধান অতিথি ছিলেন মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক। তিনি মোটরসাইকেল প্রতীকে ভোটারদের কাছ থেকে ভোট বুঝে নেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।’

মোর্ত্তজা বলেন, ‘জেলা পরিষদ নির্বাচনে কেসিসি মেয়র ধারাবাহিকভাবে আচারণবিধি লঙ্ঘন করছেন। চেয়ারম্যান প্রার্থী শেখ হারুন মনোনয়নপত্র দাখিলের সময় মেয়র সঙ্গে ছিলেন, সরকারি গাড়ি নিয়ে এসেছিলেন। পরে তিনি ভোটারদের দল থেকে বহিষ্কারের হুমকি দেন। তিনি প্রভাব খাটিয়ে ভোট বুঝে নিতে চেয়েছেন।

‘৩ অক্টোবরের সভায় মেয়র ভোটারদের বলেন, আপনারা কখন কার সঙ্গে দেখা করেন, কথা বলেন, মোবাইল ট্রাকের মাধ্যমে সব সঙ্গে সঙ্গে পাওয়া যায়। ভোট গণনার পর আমাদের দলের কয়টা ভোট পড়েছে, আমরা সঙ্গে সঙ্গে জানতে পারবো।’

দারা বলেন, ‘মেয়রের বক্তব্যের ওই ভিডিও আমাদের কাছে আছে। আমরা তা পেনড্রাইভের মাধ্যমে রিটার্নিং অফিসারের কাছে জমা দিয়েছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘ভোটাররা ভয়ে আমার সঙ্গে দেখা করতে চাচ্ছেন না। আওয়ামী লীগের নেতারা ভোটারদের ভয়ে রেখেছেন। তারা ভোটেরদের কর্মচারী মনে করে হুমকি দিচ্ছেন।’

জেলা পরিষদ (নির্বাচন আচারণ) বিধিমালার ২২ ধারায় বলা হয়েছে, সরকারি সুবিধাভোগী অতি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি এবং কোনো সরকারি কর্মকর্তা বা কর্মচারী নির্বাচন পূর্ব সময়ে নির্বাচনি এলাকায় প্রচারণা বা নির্বাচনি কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করতে পারবেন না। তবে তিনি যদি ভোটার হন, তবে শুধু ভোট দেয়ার জন্য কেন্দ্রে যেতে পারবেন। এখানে অতি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি বলতে, প্রধানমন্ত্রী, স্পিকার, হুইপ, মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রী, মেয়র বা তাদের সমমর্যাদার ব্যক্তিদের বোঝানো হয়েছে।

ওই ধারায় আরও বলা হয়েছে, নির্বাচন-পূর্ব সময়ে কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী বা তার পক্ষে অন্য কোনো ব্যক্তি, সংস্থা বা প্রতিষ্ঠান নির্বাচনি কাজে সরকারি প্রচারযন্ত্র, অন্য কোনো সরকারি সুযোগ-সুবিধা ভোগ এবং সরকারি কর্মকর্তা বা কর্মচারীকে ব্যবহার করতে পারবেন না।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক বলেন, ‘ক্লোজড ডোরে দলের সাংগঠনিক কাজ চালিয়ে যেতে কোনো বাধা নেই। আমি মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি, সেই হিসেবে দলীয় প্রোগ্রামে অংশ নিয়েছিলাম।’

খুলনা জেলা পরিষদ নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক মো. মনিরুজ্জামান তালুকদার বলেন, ‘স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষ থেকে অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখা হচ্ছে।’

খুলনা জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের তিন নেতা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন, মোটরসাইকেল প্রতীকে খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হারুনুর রশীদ, আনারস প্রতীকে খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক ও বিএমএর সভাপতি ডা. শেখ বাহারুল আলম এবং চশমা প্রতীক খুলনা জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মোর্ত্তজা রশিদী দারা।

এর মধ্যে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন শেখ হারুনুর রশিদ।

আরও পড়ুন:
আ.লীগের ২৪ নেতাকর্মী বহিষ্কার
দলীয় নেতাকে ‘হত্যাচেষ্টা’, বিএনপির সজল বহিষ্কার
এমপির সঙ্গে বাগ্‌বিতণ্ডার জেরে আ. লীগ নেতাকে বহিষ্কারের অভিযোগ
শৃঙ্খলা ভঙ্গ: ইউনিয়ন আ.লীগ সভাপতিকে বহিষ্কার
ভাবির মামলায় জেল খাটা সেই ছাত্রলীগ নেতা বহিষ্কার

মন্তব্য

p
উপরে