বিয়ে বাড়িগামী বাস নদীতে, নিহত ২৩

player
বিয়ে বাড়িগামী বাস নদীতে, নিহত ২৩

এনজিউ নদীর ওপর বন্যায় ডুবে যাওয়া সেতু পার হতে গিয়ে দুর্ঘটনার কবলে পড়ে বাসটি। ছবি: সংগৃহীত

কেনিয়ার রাজধানী নাইরোবি থেকে ২০০ কিলোমিটার দূরের এনজিউ নদীর ওপর বন্যায় হালকা ডুবে থাকা সেতু পার হতে গিয়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে। বাসটিতে কতজন যাত্রী ছিল তা জানা যায়নি।

কেনিয়ায় বিয়ে বাড়ি যাওয়ার পথে নদীতে ডুবে একটি বাসের অন্তত ২৩ যাত্রী নিহত হয়েছেন। তাদের বেশির ভাগই ক্যাথলিক চার্চের গায়ক দলের সদস্য।

স্থানীয় সময় শনিবার দেশটির রাজধানী নাইরোবি থেকে ২০০ কিলোমিটার দূরের এনজিউ নদীর ওপর বন্যায় ডুবে যাওয়া সেতু পার হতে গিয়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

কিতুই শহরের গভর্নর চ্যারিটি এনগিলু জানিয়েছেন, কেনিয়ার পূর্বাঞ্চলের বন্যায় এনজিউ নদীর ওপর থাকা সেতুটি ডুবে যায়। সেই সেতু পার হতে গিয়ে দুর্ঘটনার শিকার হয় বাসটি।

কর্তৃপক্ষের বরাতে আল জাজিরা জানিয়েছে, বাসটি থেকে এ পর্যন্ত ২৩ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ধারণা করা হয়েছে, ভেতরে আরও মরদেহ আছে। ডুবে যাওয়া বাসটি থেকে চারজন শিশুসহ ১৭ জনকে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে।

বাসটিতে করে কিতুই শহরের মুইঙ্গি ক্যাথলিক চার্চের গায়ক দলের সদস্যরা তাদের এক সহকর্মীর বিয়েতে যাচ্ছিলেন।

বাসটিতে যাত্রীর সংখ্যা এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি। রেডক্রস ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যরা উদ্ধারকাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

দেশটির ডেপুটি প্রেসিডেন্ট উইলিয়াম রুতো এ ঘটনায় নিহতদের প্রতি শোক জানিয়েছেন। কেনিয়ার বেশির ভাগ অঞ্চলে ভারি বৃষ্টিপাতের কারণে রাস্তায় অতিরিক্ত সতর্কতা অবলম্বনের জন্য গাড়িচালকদের আহ্বান জানানো হয়েছে।

আরও পড়ুন:
ওবুইয়া ভাইদের হাত ধরে জেগে উঠছে কেনিয়ার ক্রিকেট
কোল থেকে কেড়ে নিয়ে শিশু বিক্রি
পুরুষ সংখ্যাগরিষ্ঠ সংসদ ভেঙে দেওয়ার পরামর্শ কেনিয়ার বিচারপতির

শেয়ার করুন

মন্তব্য

থাইল্যান্ডে বাড়িতেও করা যাবে গাঁজার চাষ

থাইল্যান্ডে বাড়িতেও করা যাবে গাঁজার চাষ

স্থানীয় কর্তৃপক্ষকে না জানিয়ে বাড়িতে গাঁজা উৎপাদন করলে স্থানীয় মুদ্রায় ২০ হাজার বাথ (৬০৫ ডলার) জরিমানা করা হবে।

থাইল্যান্ডের নাগরিকরা স্থানীয় কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে বাড়িতেই গাঁজার চাষ করতে পারবেন। উৎপাদিত গাঁজায় নিজের প্রয়োজন মেটানো যাবে, বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে বাড়িতে উৎপাদিত গাঁজা ব্যবহার করা যাবে না।

থাইল্যান্ডের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ বোর্ড গাঁজাকে মাদকের তালিকা থেকে বাদ দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এখন থেকে দেশটির নাগরিকরা বাড়িতেও গাঁজার চাষ করতে পারবেন। থাইল্যান্ডই দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার প্রথম দেশ হিসেবে ২০১৮ সালে ওষুধ হিসেবে ব্যবহারের জন্য গাঁজার বৈধতা দেয়।

সিএনএনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এবার থাইল্যান্ডের নাগরিকরা স্থানীয় কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে বাড়িতেই গাঁজার চাষ করতে পারবেন। উৎপাদিত গাঁজায় নিজের প্রয়োজন মেটানো যাবে, বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে বাড়িতে উৎপাদিত গাঁজা ব্যবহার করা যাবে না।

তবে স্থানীয় কর্তৃপক্ষকে না জানিয়ে বাড়িতে গাঁজা উৎপাদন করলে স্থানীয় মুদ্রায় ২০ হাজার বাথ (৬০৫ ডলার) জরিমানা করা হবে।

দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রী আনুতিন চার্নভিরাকুল জানিয়েছেন, বাণিজ্যিকভাবে গাঁজা চাষ করতে অবশ্যই লাইসেন্স নিতে হবে।

এর আগে দেশটির পার্লামেন্টে গাঁজার বৈধ ব্যবহার, উৎপাদন ও বাণিজ্যিক নীতিমালাসংক্রান্ত বিল উত্থাপন করে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

আরও পড়ুন:
ওবুইয়া ভাইদের হাত ধরে জেগে উঠছে কেনিয়ার ক্রিকেট
কোল থেকে কেড়ে নিয়ে শিশু বিক্রি
পুরুষ সংখ্যাগরিষ্ঠ সংসদ ভেঙে দেওয়ার পরামর্শ কেনিয়ার বিচারপতির

শেয়ার করুন

চীনের আগেই বিমান উদ্ধার করতে চায় যুক্তরাষ্ট্র

চীনের আগেই বিমান উদ্ধার করতে চায় যুক্তরাষ্ট্র

দুর্ঘটনা ঘটার সময় এফ-৩৫সি লাইটিং টু যুদ্ধবিমানটি রুটিন ফ্লাইট পরিচালনা করছিল। ছবি: এএফপি

বিধ্বস্ত বিমানটি যুক্তরাষ্ট্রের লকহিড মার্টিনের তৈরি পঞ্চম প্রজন্মের যুদ্ধবিমান এফ-থ্রি ফাইভ সি লাইটিং টু। এই বিমানের প্রযুক্তি অত্যন্ত স্পর্শকাতর। যুক্তরাষ্ট্র চায় না এ ধরনের প্রযুক্তি চীনের হস্তগত হোক।

যুক্তরাষ্ট্রের প্যাসিফিক কমান্ডের অধীন পারমাণু শক্তিচালিত ইউএসএস কার্ল ভিনসনে অবতরণ করতে গিয়ে বিধ্বস্ত হয় যুক্তরাষ্ট্রের পঞ্চম প্রজন্মের যুদ্ধবিমান। এ ঘটনায় পাইলট সফলতার সঙ্গে বিমান থেকে বের হয়ে গেলেও বিমানটি সমুদ্রে পতিত হয়।

এবার সিএনএনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দক্ষিণ চীন সাগরে পতিত হওয়া বিধ্বস্ত বিমানটি চীনের হস্তগত হওয়ার আগেই উদ্ধার করতে চায় যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনী।

বিধ্বস্ত বিমানটি যুক্তরাষ্ট্রের লকহিড মার্টিনের তৈরি পঞ্চম প্রজন্মের যুদ্ধবিমান এফ-থ্রি ফাইভ সি লাইটিং টু। এই বিমানের প্রযুক্তি অত্যন্ত স্পর্শকাতর। যুক্তরাষ্ট্র চায় না এ ধরনের প্রযুক্তি চীনের হস্তগত হোক।

যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনীর সপ্তম নৌবহরের মুখপাত্র নিকোলাস লিংগো বলেছেন, কার্ল ভিনসনে দুর্ঘটনার শিকার হওয়া এফ-থ্রি ফাইভ সি উদ্ধার অভিযানের কার্যক্রম শুরু করতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনী।

দক্ষিণ চীন সাগরের ঠিক কোথায় বিমানটি বিধ্বস্ত হয়েছে তা জানায়নি যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনী। তবে চীনের নৌবাহিনী ও কোস্ট গার্ড সব সময়ই দক্ষিণ চীন সাগরে অবস্থান করে।

ইউএস প্যাসিফিক কমান্ডের অধীন পারমাণবিক শক্তিচালিত বিমানবাহী রণতরি ইউএসএস কার্ল ভিনসন দক্ষিণ চীন সাগরে মোতায়েন রয়েছে।

২৫ জানুয়ারি দুর্ঘটনা ঘটার সময় এফ-থ্রি ফাইভ সি লাইটিং টু যুদ্ধবিমানটি রুটিন ফ্লাইট পরিচালনা করছিল।

এ ঘটনায় ৭ জন নাবিক আহত হয়। তাদের মধ্যে ৩ জনকে ম্যানিলার মেডিক্যাল ফ্যাসিলিটিজে সরিয়ে নেয়া হয়। তবে ঠিক কী কারণে তাদের ম্যানিলায় সরানো হলো তা জানানো হয়নি। তাদের অবস্থা স্থিতিশীল বলে জানানো হয়েছে।

বাকি ৪ জন ইউএসএস কার্ল ভিনসনেই চিকিৎসা নিয়েছেন। এর মধ্যে ৩ জনকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। তবে যিনি চিকিৎসাধীন আছেন, বিবৃতিতে তার অবস্থা জানানো হয়নি।

আরও পড়ুন:
ওবুইয়া ভাইদের হাত ধরে জেগে উঠছে কেনিয়ার ক্রিকেট
কোল থেকে কেড়ে নিয়ে শিশু বিক্রি
পুরুষ সংখ্যাগরিষ্ঠ সংসদ ভেঙে দেওয়ার পরামর্শ কেনিয়ার বিচারপতির

শেয়ার করুন

প্রজাতন্ত্র দিবসে ৭১-এর সমরাস্ত্র দেখালো ভারত

প্রজাতন্ত্র দিবসে ৭১-এর সমরাস্ত্র দেখালো ভারত

মাইগভ নামের পোর্টালে রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে ভারতীয়রা সরাসরি প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠান দেখতে পারবেন। ছবি: সংগৃহীত

শুধু পূর্ণ ডোজ দেয়া প্রাপ্তবয়স্ক ও ১৫ বছরের নিচে একটি ডোজ দেয়ারা প্যারেড অনুষ্ঠান উপভোগ করতে পারবে। প্যান্ডেমিকের কারণে এবার বাইরের দেশের কোনো কন্টিনজেন্ট প্যারেডে অংশগ্রহণ করবে না।

আজ ভারতের ৭৩তম প্রজাতন্ত্র দিবস। সেই উপলক্ষে রামনাথ কোবিন্দ ২১টি তোপধ্বনির মধ্যে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেছেন। রাজধানী দিল্লির রাজপথে হয়েছে বর্ণাঢ্য কুচকাওয়াজ।

এবারের প্রজাতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজে অংশগ্রহণ করছে ভারতীয় বিমানবাহিনীর ৭৫টি বিমান ও হেলিকপ্টার, দেশটির সেনাবাহিনীর রাজপূত রেজিমেন্ট, আসাম রেজিমেন্ট, জম্মু-কাশ্মীর লাইট রেজিমেন্ট, শিখ লাইট রেজিমেন্ট, আর্মি অর্ডন্যান্স কর্পস এবং প্যারাশুট রেজিমেন্ট ও নৌবাহিনীর চৌকস দল।

এছাড়াও এবারের কুচকাওয়াজে ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে ব্যবহার করা সেঞ্চুরিয়ান ট্যাঙ্ক, পিটি-৭৬ ট্যাঙ্ক, ৭৫/২৪ প্যাক হুইটজার এবং ওটি-৬২ টোপাজ সাঁজোয়া যান প্রদর্শন করেছে ভারতীয় সেনাবাহিনী।

বর্তমানে বিশ্বের একমাত্র সক্রিয় অশ্বারোহী ইউনিট ভারতীয় সেনাবাহিনীর ৬১ অশ্বারোহী রেজিমেন্ট আজকের প্যারেডে প্রথম মার্চ করা দল।

এবার, করোনা মহামারী মোকাবেলার ফ্রন্টলাইনের কর্মী, অটোরিকশা চালক, নির্মাণ শ্রমিকরা এ কুচকাওয়াজের বিশেষ অতিথি ছিলেন।

এবারের প্রজাতন্ত্র দিবসের অনেক কিছুই ছিল নতুন। প্রথমবারের মত ফ্লাইপাস্টে অংশ নেয় বিমানবাহিনীর ৭৫ টি যুদ্ধবিমান। এদিন আকাশে ওড়ে রাফালে যুদ্ধবিমানও।

রাফালে যুদ্ধবিমানের নারী পাইলট শিবাঙ্গী সিং প্রজাতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজে ভারতীয় বিমান বাহিনীর ট্যাবলোতে অংশ নিয়েছেন। তিনি ইতিহাসে দ্বিতীয় নারী যুদ্ধবিমানের পাইলট হিসেবে ভারতীয় বিমানবাহিনীর ট্যাবলোতে অংশ নিয়েছেন।

‘বন্দে ভারতম’ নৃত্য প্রতিযোগিতার মাধ্যমে নির্বাচিত ৪৮০ নৃত্যশিল্পীও নৃত্য পরিবেশন করবেন, এলইডি স্ক্রিনের মাধ্যমে দেখানো হয়েছে। ন্যাশনাল ক্যাডেট ক্রপসের অনুষ্ঠান ‘শহীদও কো সাত সাত সালাম’ উপভোগ করতে পারবে প্রজাতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজ দেখতে আসা দর্শক।

শুধু পূর্ণ ডোজ দেয়া প্রাপ্তবয়স্করাই কেবল অনুষ্ঠান উপভোগ করতে পেরেছে। করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে এবার বাইরের দেশের কোনো কন্টিনজেন্ট প্যারেডে অংশগ্রহণ করেনি এবং দেশের বাইরের কোনো বিশিষ্ট ব্যক্তিও এবার উপস্থিত হননি।

এ ছাড়া মাইগভ নামের পোর্টালে রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমেও ভারতীয়রা সরাসরি প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠান দেখতে পেরেছে।

সাড়ে সাতটায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি নিজের টুইটার হ্যান্ডেল থেকে দেশবাসীকে ৭৩ তম প্রজাতন্ত্র দিবসের শুভেচ্ছা জানিয়ে টুইট করেন।

আরও পড়ুন:
ওবুইয়া ভাইদের হাত ধরে জেগে উঠছে কেনিয়ার ক্রিকেট
কোল থেকে কেড়ে নিয়ে শিশু বিক্রি
পুরুষ সংখ্যাগরিষ্ঠ সংসদ ভেঙে দেওয়ার পরামর্শ কেনিয়ার বিচারপতির

শেয়ার করুন

আরও কবর খুঁজে পেলেন কানাডার আদিবাসীরা

আরও কবর খুঁজে পেলেন কানাডার আদিবাসীরা

ক্যাথলিক স্কুলপ্রাঙ্গণে খুঁজে পাওয়া কবরের মাঝে ৩ বছরের শিশুর কবরও রয়েছে। ছবি: সংগৃহীত

কানাডা ১ লাখ ৫০ হাজার আদিবাসী শিশুকে ১৮০০ থেকে ১৯৯০ সাল পর্যন্ত জোরপূর্বক আবাসিক স্কুলে যোগদানে বাধ্য করেছিল। সেখানে শিশুদের থেকে তাদের ভাষা ও সংস্কৃতি ছিনিয়ে নেয়া হয়েছিল, ভাই-বোন থেকেও আলাদা করা হয়েছিল এবং এসব শিশু মানসিক, শারীরিক ও যৌন নির্যাতনের শিকারও হয়েছিল।

অনেক উন্নত দেশেরই ঝলমলে বর্তমানের পেছনে রয়েছে গাঢ় অন্ধকার। অনেক দেশই অতীতে এলাকার দখল নিতে সেখানকার আদিবাসীদের উচ্ছেদ করেছে কিংবা আফ্রিকা থেকে নিয়ে এসেছে ক্রীতদাস। কানাডাও এর বাইরে নয়। দেশটি একসময় সেখানকার আদিবাসী যারা প্রায় ৬ হাজার ৫০০ বছর আগে থেকে বসবাস করছিল, তাদের শিশুদের সভ্য করার নামে আবাসিক স্কুলে নিয়ে আসতো। জোরপূর্বক কেড়ে নেয়া হতো ভাষা ও সংস্কৃতি।

এই আবাসিক স্কুলের চাপ সহ্য করতে না পেরেই প্রাণ হারিয়েছে হাজার হাজার শিশু। গত বছরেও নামবিহীন প্রায় ২১৫টি কবরের সন্ধান পাওয়া গিয়েছিল।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আবার নতুন করে নাম-পরিচয়হীন আরও অনেকগুলো কবরের সন্ধান পেয়েছে কানাডার আদিবাসী সম্প্রদায়।

উইলিয়াম লেক ফার্স্ট নেশন সোমবার জানিয়েছে, ভূতাত্ত্বিক অনুসন্ধানে এখন পর্যন্ত ৯৩টি কবরের সন্ধান পাওয়া গেছে।

কানাডার পশ্চিমাঞ্চলের রাজ্য ব্রিটিশ কলম্বিয়ার প্রাক্তন কামলপস ইন্ডিয়ান আবাসিক স্কুল বা সেন্ট জোসেফ আবাসিক স্কুলের এলাকায় এই কবরগুলো পাওয়া যায়। ধারণা করা হচ্ছে, এই কবরগুলো সেন্ট জোসেফ আবাসিক স্কুলের ছাত্রদেরই।

প্রায় হাজার হাজার উইলিয়াম লেক ফার্স্ট নেশন ও অন্যান্য আদিবাসী শিশুদের জোরপূর্বক সেন্ট জোসেফ স্কুলে রাখা হয়েছিল। এই স্কুলটি ১৮৮১-১৯৮১ সাল পর্যন্ত চালু ছিল।

গত বছর মে মাসেও এই আবাসিক স্কুলের আশপাশে প্রায় ২১৫টি নামবিহীন কবরের সন্ধান পাওয়া গেছে।

কানাডা ১ লাখ ৫০ হাজার আদিবাসী শিশুকে ১৮০০ থেকে ১৯৯০ সাল পর্যন্ত জোরপূর্বক আবাসিক স্কুলে যোগদানে বাধ্য করেছিল।

সেখানে শিশুদের থেকে তাদের ভাষা ও সংস্কৃতি ছিনিয়ে নেয়া হয়েছিল, ভাই-বোন থেকেও আলাদা করা হয়েছিল এবং এসব শিশু মানসিক, শারীরিক ও যৌন নির্যাতনের শিকারও হয়েছিল।

হাজার হাজার শিশু মারা গিয়েছিল এমন পরিস্থিতি সহ্য করতে না পেরে।

বিভিন্ন গীর্জা বিশেষ করে রোমান ক্যাথলিক চার্চ এই স্কুলগুলো পরিচালনা করতেন।

২০১৫ সালে দেশটির ফেডারেল কমিশনও তদন্তের পর এ ঘটনার সত্যতা পায়। তারা কানাডার আবাসিক স্কুল পদ্ধতিকে ‘সাংস্কৃতিক গণহত্যা’ চালানোর দায়ে অভিযুক্ত করেছে।

এই মাসের শুরুর দিকে কানাডার ফেডারেল সরকার উইলিয়াম লেক ফার্স্ট নেশনের জন্য ১.৯ মিলিয়ন কানাডিয়ান ডলার তহবিল ঘোষণা করে, যাতে তারা প্রাক্তন আবাসিক স্কুলগুলোর সঙ্গে যুক্ত সমাধিগুলো নিয়ে তদন্ত করতে পারে।

সর্বোপরি নতুন এই কবরগুলো খুঁজে পাওয়ায়, জোরপূর্বক-আত্মীকরণ প্রতিষ্ঠানের শিকার হওয়া এবং বেঁচে যাওয়া ব্যক্তিদের জন্য ন্যায়বিচার দাবি আরও জোরালো হয়েছে।

আরও পড়ুন:
ওবুইয়া ভাইদের হাত ধরে জেগে উঠছে কেনিয়ার ক্রিকেট
কোল থেকে কেড়ে নিয়ে শিশু বিক্রি
পুরুষ সংখ্যাগরিষ্ঠ সংসদ ভেঙে দেওয়ার পরামর্শ কেনিয়ার বিচারপতির

শেয়ার করুন

মানব মস্তিষ্কে চিপ লাগানোর দ্বারপ্রান্তে নিউরালিংক

মানব মস্তিষ্কে চিপ লাগানোর দ্বারপ্রান্তে নিউরালিংক

ব্রেইন কম্পিউটার ইন্টারফেস প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করছেন ইলন মাস্ক। ছবি: সংগৃহীত

গত বছরের ডিসেম্বরে ওয়ালস্ট্রিট জার্নালকে ইলন মাস্ক জানিয়েছিলেন, ২০২২ সালের কোনো একসময়ে নিউরালিংক মানবদেহে চিপ স্থাপন করবে।

মানব মস্তিষ্কে চিপ বসানোর জন্য অনেক দিন ধরেই কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের শীর্ষ ধনী ইলন মাস্কের প্রতিষ্ঠান নিউরালিংক।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের জন্য পরিচালক নিয়োগ দিচ্ছে নিউরালিংক।

যুক্তরাষ্ট্রের বড় প্রতিষ্ঠানগুলো নতুন ডিভাইস ট্রায়ালের আগে সাধারণত ট্রায়াল ডিরেক্টর নিয়োগ করে থাকে।

ধারণা করা হচ্ছে, নিউরালিংক মানব মস্তিষ্কে চিপ স্থাপনের খুব কাছাকাছি চলে গেছে।

ডিরেক্টরের দায়িত্ব সম্পর্কে বলা হয়েছে, নিয়োগ পাওয়া ব্যক্তিকে খুবই আন্তরিকতার সঙ্গে সৃজনশীল একদল ডাক্তার ও উচ্চমানের ইঞ্জিনিয়ারদের সঙ্গে কাজ করতে হবে।

এর আগে গত বছরের ডিসেম্বরে ওয়ালস্ট্রিট জার্নালকে ইলন মাস্ক জানিয়েছিলেন, ২০২২ সালের কোনো একসময়ে নিউরালিংক মানবদেহে চিপ স্থাপন করবে।

যদিও ২০১৯ সাল থেকে প্রতি বছরই ইলন মাস্ক বলে আসছেন মানবদেহে চিপ স্থাপনের কথা। সম্ভবত এ বছরই বাস্তবে রূপ পাচ্ছে মাস্কের স্বপ্নের।

ইতিমধ্যে শূকর ও বানরের মস্তিষ্কে নিউরালিংক ডিভাইস সফলতার সঙ্গে স্থাপন করা হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি দাবি করছে, ডিভাইসটি স্থাপন ও অপসারণ সম্পূর্ণ নিরাপদ।

গত বছরের এপ্রিলে নিউরালিংক পেইজা নামের এক বানরের ভিডিও প্রকাশ করে। যেখানে দেখা যায়, কোনো ধরনের স্পর্শ ছাড়াই মস্তিষ্ককে ব্যবহার করে পেইজা কম্পিউটারে পিংপং গেম খেলছে।

ভিডিওটিতে দেয়া ভয়েসওভারে বলা হয়, ‘নিউরালিংক তার ব্রেইন চিপের মাধ্যমে বানরের মোটর কর্টেক্স অঞ্চলে প্রতিস্থাপন করা দুই হাজারের বেশি সূক্ষ্ম তারের ইলেকট্রোড ব্যবহার করে মস্তিষ্ক থেকে বৈদ্যুতিক সংকেত রেকর্ড ও ডিকোডের কাজ করে, যা সরাসরি কম্পিউটার ডিভাইসে প্রেরণ করে।’

প্রতিষ্ঠানটির দাবি, ডিভাইসটি ভবিষ্যতে মানুষের মস্তিষ্কসংক্রান্ত বহু সমস্যার সমাধান করবে। স্মৃতিশক্তি হারিয়ে ফেলা, ব্রেইন ড্যামেজ, হতাশা, উদ্বেগ ও আসক্তির মতো সমস্যার সমাধান ছাড়াও বিভিন্ন নিউরোসংক্রান্ত সমস্যার সমাধান করতে পারবে।

এ ছাড়া প্যারালাইসিসে আক্রান্ত ব্যক্তিও স্পর্শ ছাড়াই মোবাইল, কম্পিউটারের মতো ডিভাইস ব্যবহার করতে পারবে।

তবে ইলন মাস্কের দাবি আরও বিস্তৃত। ভবিষ্যতে নতুন কোনো ভাষা শেখার ক্ষেত্রে কিংবা কোনো দক্ষতা অর্জনের ক্ষেত্রে নিউরালিংক ডিভাইস মুহূর্তে তা মস্তিষ্কে আপলোড করে দেবে। এমনকি ব্রেইনকে কপি করা সম্ভব হবে বলেও আশাবাদী মাস্ক।

নিউরালিংক ব্রেইন মেশিন ইন্টারফেস (বিএমআই) বা ব্রেইন কম্পিউটার ইন্টারফেস (বিসিআই) প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করে। এ ধরনের প্রযুক্তিতে মানব মস্তিষ্কের সঙ্গে সরাসরি কম্পিউটারের সংযোগ করে দেয়া হয়। ফলে শুধু মস্তিষ্ককে কাজে লাগিয়ে কম্পিউটার ব্যবহার করা সম্ভব।

ইতিমধ্যে বানর ও শূকরের মধ্যে ডিভাইসটি স্থাপন করে সফলতা পাওয়া গেছে। পেইজা নামের বানরটি নিউরালিংক ডিভাইসের মাধ্যমে নিজের মনকে কাজে লাগিয়ে পিংপং বল নামের গেম খেলতে সক্ষম হয়।

নিউরালিংক ডিভাইস মূলত ব্রেইন কম্পিউটার ইন্টারফেস প্রযুক্তি। এই প্রযুক্তি মানব মস্তিষ্ককে সরাসরি কম্পিউটারের সঙ্গে সংযোগ করিয়ে দিতে পারে। ফলে কোনো শারীরিক কর্মকাণ্ড ছাড়াই শুধু চিন্তা করে কম্পিউটারের মতো ডিভাইসকে নিয়ন্ত্রণ করা যায়।

আরও পড়ুন:
ওবুইয়া ভাইদের হাত ধরে জেগে উঠছে কেনিয়ার ক্রিকেট
কোল থেকে কেড়ে নিয়ে শিশু বিক্রি
পুরুষ সংখ্যাগরিষ্ঠ সংসদ ভেঙে দেওয়ার পরামর্শ কেনিয়ার বিচারপতির

শেয়ার করুন

পুতিনের ওপর ব্যক্তিগত অবরোধের হুমকি বাইডেনের

পুতিনের ওপর ব্যক্তিগত অবরোধের হুমকি বাইডেনের

রাশিয়াকে সাংঘাতিক পরিনতির বিষয়েও সতর্ক করেছেন বাইডেন। ছবি: সংগৃহীত

এর আগে ন্যাটোর সেক্রেটারি জেনারেল জেন্স স্টোলেনবার্গ সোমবার বলেছেন, ন্যাটো সব ধরনের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে। এমনকি ইউরোপের দক্ষিণ-পশ্চিমেও যুদ্ধসেনা মোতায়েন করার বিষয়টি বিবেচনা করা হচ্ছে।

ইউক্রেন সীমান্তে রাশিয়া প্রায় ১ লাখ সেনা মোতায়েন করেছে। আগ্রাসনের আশঙ্কা করছে ন্যাটোর দেশগুলো। যে কোনো সামরিক আগ্রাসনের পরিণতির বিষয়ে রাশিয়াকে সতর্ক করেছে যুক্তরাষ্ট্র।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে প্রেসিডেন্ট বাইডেন বলেছেন, ‘হ্যাঁ’ রাশিয়া কোনো আগ্রাসন চালালে পুতিনের ওপর ব্যক্তিগত অবরোধ আরোপ করা হবে।

এ ছাড়া রাশিয়াকে সাংঘাতিক পরিণতির বিষয়েও সতর্ক করেছেন বাইডেন।

তার এই মন্তব্য এমন সময় এলো যখন পশ্চিমা নেতারা রাশিয়ার যে কোনো আগ্রাসনমূলক কর্মকাণ্ডের ব্যাপারে বারবার সতর্ক করছে।

তিনি বলেন, এমন পরিস্থিতিতে পূর্ব ইউরোপে ন্যাটোর উপস্থিতি বাড়াতে উদ্যোগ নেবে যুক্তরাষ্ট্র।

বাইডেন আরও বলেন, ‘আমরা স্পষ্ট করতে চাই, কোনো সদস্যের চিন্তা করার কিছু নেই। ন্যাটো তাদের প্রতিরক্ষায় থাকবে।’

তবে একই সঙ্গে তিনি জানিয়েছেন, ইউক্রেনে সেনা মোতায়েনের কোনো পরিকল্পনা যুক্তরাষ্ট্রের নেই।

এর আগে ন্যাটোর সেক্রেটারি জেনারেল জেন্স স্টোলেনবার্গ সোমবার বলেছেন, ন্যাটো সব ধরনের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে। এমনকি ইউরোপের দক্ষিণ-পশ্চিমেও যুদ্ধসেনা মোতায়েন করার বিষয়টি বিবেচনা করা হচ্ছে।

রাশিয়ার বিরুদ্ধে অবরোধের বিষয়ে এর আগে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন জানিয়েছেন, দেশটি নিষেধাজ্ঞার খসড়া চূড়ান্ত করছে।

তবে রাশিয়া ইউক্রেনে আক্রমণ করার বিষয়টি বরাবরই অস্বীকার করে আসছে। উত্তেজনা সৃষ্টির জন্য ন্যাটোকে দায়ী করছে দেশটি।

এর আগে ২০১৪ সালে ইউক্রেনের ক্রিমিয়া উপত্যকা দখলে নেয় রাশিয়া। শুরু হয় ইউক্রেন সেনাবাহিনীর সঙ্গে মস্কো মদদপুষ্ট বিদ্রোহীদের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ। এতে কমপক্ষে ১৪ হাজার মানুষ নিহত হন। দেশ ছেড়ে পালিয়ে যান অন্তত ২০ লাখ নাগরিক।

আরও পড়ুন:
ওবুইয়া ভাইদের হাত ধরে জেগে উঠছে কেনিয়ার ক্রিকেট
কোল থেকে কেড়ে নিয়ে শিশু বিক্রি
পুরুষ সংখ্যাগরিষ্ঠ সংসদ ভেঙে দেওয়ার পরামর্শ কেনিয়ার বিচারপতির

শেয়ার করুন

সাংবাদিকের প্রশ্নে মেজাজ হারালেন বাইডেন

সাংবাদিকের প্রশ্নে মেজাজ হারালেন বাইডেন

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। ছবি: সংগৃহীত

স্থানীয় সময় সোমবার সন্ধ্যায় হোয়াইট হাউজের ইস্ট রুম কম্পিটিশন কাউন্সিলে আয়োজিত বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন বাইডেন। এসময়ই সাংবাদিকের প্রশ্নের উত্তরে ধৈর্য্য হারান তিনি।

উচ্চ মুদ্রাস্ফীতি নিয়ে ফক্স নিউজের এক সাংবাদিক প্রশ্ন করায় মেজাজ হারিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে স্থানীয় সময় সোমবার সন্ধ্যায় হোয়াইট হাউজের ইস্ট রুম কম্পিটিশন কাউন্সিলে আয়োজিত বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন বাইডেন। এসময়ই সাংবাদিকের প্রশ্নের উত্তরে ধৈর্য্য হারান তিনি।

ফক্স নিউজের হোয়াইট হাউজের ওই প্রতিনিধির নাম পিটার ডুসি।

তিনি মুদ্রাস্ফীতি নিয়ে বাইডেনকে প্রশ্ন করেন, ‘মুদ্রাস্ফীতি নিয়ে কিছু জিজ্ঞেস করাটা ঠিক হবে? নাকি মধ্যবর্তী নির্বাচনের আগে তিনি (বাইডেন) মুদ্রাস্ফীতির বিষয়টিকে রাজনৈতিক দায়বদ্ধতা বলে মনে করেন?’

তখন বাইডেন তার পাশের জনকে নিচুস্বরে বলতে থাকেন, ‘না, অধিক মুদ্রাস্ফীতি...সেটা তো মহাসম্পদ। কুত্তার বাচ্চা কী বোকা!’

বাইডেন নিচুস্বরে গালি দিলেও তার মাইক্রোফোনটি চালু ছিল।

প্রতিবেদনে বলা হয়, দেখে মনে হচ্ছিল, তিনি হয়তো বিড় বিড় করে নিজের সঙ্গেই কথা বলছেন, নয়তো মাইকটি যে চালু, তা তিনি বোঝেননি।

ডিসেম্বর থেকে যুক্তরাষ্ট্রে নিত্যপণ্যের দামে উলম্ফন দেখা দিয়েছে। ফলে গত চার দশকের মধ্যে দেশটিতে সর্বোচ্চ মুদ্রাস্ফীতি দেখা দিয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনের পর বাইডেনের ফোন পেয়েছেন বলে ফক্স নিউজকে জানান সাংবাদিক ডুসি। তিনি বলেন, ‘ফোনে বাইডেন বলেছেন, ‘যা ঘটেছে তা ব্যক্তিগত কিছু না।’

ডুসি বলেন, ‘তিনি সবকিছু পরিষ্কার করেছেন। আমি এটার প্রশংসা করি।’

আরও পড়ুন:
ওবুইয়া ভাইদের হাত ধরে জেগে উঠছে কেনিয়ার ক্রিকেট
কোল থেকে কেড়ে নিয়ে শিশু বিক্রি
পুরুষ সংখ্যাগরিষ্ঠ সংসদ ভেঙে দেওয়ার পরামর্শ কেনিয়ার বিচারপতির

শেয়ার করুন