মেঘালয় কংগ্রেসের ১১ বিধায়ক নিয়ে তৃণমূলে মুকুল সাংমা

player
মেঘালয় কংগ্রেসের ১১ বিধায়ক নিয়ে তৃণমূলে মুকুল সাংমা

তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও মেঘালয়ের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মুকুল সাংমা। ছবি: জি নিউজ

তৃণমূলে যোগদানের বিষয়টি নিশ্চিত করে পূর্ব গারো পাহাড়ের প্রভাবশালী নেতা মুকুল সাংমা বলেন, ‘বিরোধীদের মধ্যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই পারেন বিজেপিকে পর্যুদস্ত করতে। দেশের গণতন্ত্র ভূলুন্ঠিত হচ্ছে। কিন্তু কংগ্রেস মানুষের প্রত্যাশা পূরণ করে বিজেপিকে ক্ষমতাচ্যুত করতে পারছে না। তাই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে আমরা কাজ করব।’

ভারতের মেঘালয় কংগ্রেস ছেড়ে ১১ জন বিধায়ক নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে পশ্চিমবঙ্গ তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন রাজ্যের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মুকুল সাংমা।

বৃহস্পতিবার রাতের এই ঘটনার মধ্য দিয়ে মেঘালয়ের বিধানসভায় প্রধান বিরোধী দল হতে যাচ্ছে তৃণমূল।

কংগ্রেস নয় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করতে পারবে বলে মনে করছেন দল ত্যাগ করা নেতারা।

তাদের তৃণমূলে যোগদানের বিষয়টি নিশ্চিত করে পূর্ব গারো পাহাড়ের প্রভাবশালী নেতা মুকুল সাংমা বলেন, ‘বিরোধীদের মধ্যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই পারেন বিজেপিকে পর্যুদস্ত করতে।

‘দেশের গণতন্ত্র ভূলুন্ঠিত হচ্ছে। কিন্তু কংগ্রেস মানুষের প্রত্যাশা পূরণ করে বিজেপিকে ক্ষমতাচ্যুত করতে পারছে না। তাই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে আমরা কাজ করব।’

২০১০ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত মেঘালয়ের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন মুকুল সাংমা। বর্তমানে তিনি কংগ্রেসের বিরোধী দলনেতা। কংগ্রেস মেঘালয়ে বিরোধী দলের ভূমিকা পালনে ব্যর্থ বলে মনে করেন এই নেতা। বলেন, ‘দিল্লিকে জানিয়েও কোনো লাভ হয়নি। যোগ্য নেতৃত্ব খুঁজছিলাম, তাই তৃণমূলে যোগ দিলাম।’

মুকুল সাংমা বলেন, ‘একমাত্র তৃণমূলই বিজেপির বিরুদ্ধে লড়াইয়ের ক্ষমতা রাখে। তাই এ পরিবারের সদস্য হতে পেরে আমি আপ্লুত।’

৬০ আসন বিশিষ্ট ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য মেঘালয়ের বিধানসভায় ৪০ জন বিধায়ক নিয়ে জাতীয় গণতান্ত্রিক জোট (এনডিএ)। আর কংগ্রেস ১৮ জন বিধায়ক নিয়ে মেঘালয় বিধানসভার বিরোধী দলের ভূমিকায় ছিল।

মুকুল সাংমাসহ ১২ জন বিধায়ক তৃণমূলে যোগ দেয়ায় কংগ্রেসের বিধায়ক সংখ্যা কমে দাঁড়িয়েছে ৬ জনে। অন্যদিকে তৃণমূল নতুন করে পেয়েছে ১২ জন বিধায়ক। আসন সংখ্যার ভিত্তিতে এখন মেঘালয় বিধানসভায় বিরোধীদল তৃণমূল।

২০১৮ সালে মেঘালয় বিধানসভা নির্বাচনে লড়াইটা ছিল ন্যাশনাল পিপলস্ পার্টি ও কংগ্রেসের মধ্যে। কিন্তু ৬০ আসন বিশিষ্ট মেঘালয় বিধানসভায় ২১ টি আসনে জয়লাভ করে একক বৃহত্তম দল হয়েও সরকার গঠন করতে পারেনি কংগ্রেস।

এনপিপি (ন্যাশনাল পিপলস্ পার্টি) বিজেপির ২টি আসন আর আঞ্চলিক দলের সমর্থন নিয়ে সরকার গঠন করে এনডিএ। আর বিরোধী দলের আসনে বসে কংগ্রেস। পরে তিনজন কংগ্রেস বিধায়ক শাসক শিবিরে যোগ দিলে কংগ্রেসের বিধায়ক কমে দাড়ায় ১৮ জনে।

এদিকে সর্ব ভারতে ক্রমশ শক্তি বৃদ্ধি করে চলছে তৃণমূল। কংগ্রেসের অন্দরে ফাটল ধরিয়ে ত্রিপুরা, আসাম, গোয়া, হরিয়ানার পর মেঘালয় থেকে বিধায়করা কংগ্রেস ছেড়ে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দিচ্ছে।

এ সম্পর্কে বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতা মল্লিকার্জুন খাগড়ে সাংবাদিকদের জানান, সোনিয়া গান্ধীর নেতৃত্বে কংগ্রেসের বৈঠকে ঠিক করা হয়, পেট্রোল-ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধি, কৃষকদের স্বার্থ রক্ষায় কৃষিজাত সামগ্রী বিক্রির বিষয়ে সংসদে প্রশ্ন তোলা হবে।

একই সঙ্গে, বিজেপি বিরোধিতায় তৃণমূলসহ সব বিরোধীদলের সঙ্গে জোট বাঁধার সিদ্ধান্তও নেয়া হয়।

শেয়ার করুন

মন্তব্য

যুক্তরাষ্ট্রের সেনাদের ফেলে যাওয়া অস্ত্র এখন কাশ্মীরে

যুক্তরাষ্ট্রের সেনাদের ফেলে যাওয়া অস্ত্র এখন কাশ্মীরে

কাশ্মীরে পিপলস অ্যান্টি-ফ্যাসিস্ট ফ্রন্টের হাতে যুক্তরাষ্ট্রের নির্মিত অস্ত্র। ছবি: সংগৃহীত

পিপলস অ্যান্টি-ফ্যাসিস্ট ফ্রন্ট (পিএএফএফ) নামের একটি সশস্ত্র গোষ্ঠীর প্রকাশিত ভিডিওতে কয়েকজন সন্ত্রাসীকে এম ২৪৯ স্বয়ংক্রিয় রাইফেল, ৫০৯ ট্যাকটিক্যাল বন্দুক, এম ১৯১১ পিস্তল এবং এম৪ কারবাইন রাইফেল ব্যবহার করতে দেখা যায়।

আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীর রেখে যাওয়া অস্ত্র ও গোলাবারুদ এখন কাশ্মীর উপত্যকার সশস্ত্র গোষ্ঠীগুলোর কাছে।

একটি সশস্ত্র সংগঠনের প্রকাশিত সাম্প্রতিক ভিডিওতে তাদের যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি রাইফেল এবং পিস্তল সন্ত্রাসীরা ব্যবহার করতে দেখা গেছে।

পিপলস অ্যান্টি-ফ্যাসিস্ট ফ্রন্ট (পিএএফএফ) নামের একটি সশস্ত্র গোষ্ঠীর প্রকাশিত ভিডিওতে কয়েকজন সন্ত্রাসীকে এম ২৪৯ স্বয়ংক্রিয় রাইফেল, ৫০৯ ট্যাকটিক্যাল বন্দুক, এম ১৯১১ পিস্তল এবং এম৪ কারবাইন রাইফেল ব্যবহার করতে দেখা যায়।

সম্প্রতি জম্মু ও কাশ্মীরের নিরাপত্তা বাহিনী কয়েকটি অভিযানে ৬ জন অস্ত্রধারীকে হত্যা করেছে। কর্তৃপক্ষের দাবি, তারা বিদেশি নাগরিক। তাদের সবার কাছেই যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি এম৪১৬ কার্বাইন পাওয়া গেছে। উল্লেখ্য, এম৪১৬ কার্বাইন যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীর স্ট্যান্ডার্ড অ্যাসল্ট রাইফেল।

ভারতীয় গোয়েন্দাদের ধারণা, যুক্তরাষ্ট্রের ফেলে যাওয়া অস্ত্র ও গোলাবারুদের একটা অংশ আফগানিস্তানে তালেবানরা প্রকাশ্যে বিক্রি করছে।

পাকিস্তানের সশস্ত্র গোষ্ঠীগুলো তালেবানদের কাছ থেকে এই অস্ত্র ও গোলাবারুদ কিনে সীমান্ত পেরিয়ে কাশ্মীর উপত্যকায় পাঠাচ্ছে।

ভারতের প্রতিরক্ষা বিশ্লেষকরা আগেই ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন যে যুক্তরাষ্ট্রের ফেলে যাওয়া অস্ত্র ও গোলাবারুদ কাশ্মীরের সশস্ত্র গোষ্ঠীর হাতে পড়বে। নিরাপত্তা বাহিনীর মতে, কাশ্মীর উপত্যকায় প্রায় ৮৫ জন বিদেশি রয়েছেন। এই বিদেশি অস্ত্রধারীরা যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাসল্ট রাইফেল বহন করছেন।

ড্রোনের সাহায্যে সীমান্তের ওপার থেকে এই রাইফেল, পিস্তল, গ্রেনেড ইত্যাদি পাঠানো হচ্ছে বলেও মনে করেন নিরাপত্তা বাহিনী। তবে কয়েকবার সীমান্তে নিরাপত্তা বাহিনী এভাবে অস্ত্র পাচারের অনেক ঘটনা নস্যাৎও করেছে।

কাশ্মীর উপত্যকায় নিরাপত্তা বাহিনীর জন্য সশস্ত্র সংগঠনগুলোর হাতে আসা এসব অত্যাধুনিক অস্ত্র একটি নতুন এবং বড় চ্যালেঞ্জ। তাই ভারতীয় সরকারও জম্মু ও কাশ্মীর পুলিশকে দেশের প্রথম পুলিশ বাহিনী হিসেবে তাদের মার্কিন তৈরি সিগ সাউয়ার ৭১৬ রাইফেলস এবং সিগ সাউয়ার এমপিএক্স ৯ এমএম পিস্তল দেবে।

শেয়ার করুন

ভারতে এক দিনে শনাক্ত ৩ লাখ ৩৭ হাজার

ভারতে এক দিনে শনাক্ত ৩ লাখ ৩৭ হাজার

দেশটিতে গতকালের চেয়ে আজ শনাক্ত কিছুটা কমেছে। প্রায় ২০ লাখ পরীক্ষার বিপরীতে এ দিন করোনা সংক্রমণের হার দাঁড়িয়েছে ১৭ দশমিক ২২ শতাংশে। আগের দিন সংক্রমণের হার ছিল ১৭ দশমিক ৯৪ শতাংশ। আর আক্রান্ত হয়েছিল ৩ লাখ ৮৯ হাজারের বেশি। 

করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি অব্যাহত রয়েছে প্রতিবেশী দেশ ভারতে। শনিবার দেশটিতে ৩ লাখ ৩৭ হাজার জনের দেহে ভাইরাসটির অস্তিত্ব পাওয়া গেছে। এর মধ্যে ১০ হাজার ৫০ জন ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত।

ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানায়, এই শনাক্ত নিয়ে ভারতে এখন করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৩ কোটি ৮৯ লাখ ছাড়াল।

এনডিটিভির খবরে বলা হয়, দেশটিতে গতকালের চেয়ে আজ শনাক্ত কিছুটা কমেছে। প্রায় ২০ লাখ পরীক্ষার বিপরীতে এ দিন করোনা সংক্রমণের হার দাঁড়িয়েছে ১৭ দশমিক ২২ শতাংশে। আগের দিন সংক্রমণের হার ছিল ১৭ দশমিক ৯৪ শতাংশ। আর আক্রান্ত হয়েছিল ৩ লাখ ৮৯ হাজারের বেশি।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে মৃত্যু হয়েছে ৪৮৮ জনের। এ নিয়ে দেশটিতে করোনায় সরকারি হিসেবে মৃত্যু হয়েছে ৪ লাখ ৮৮ হাজার ৮৮৪ জনের।

ভারত এখন যুক্তরাষ্ট্রের পর সবচেয়ে বেশি করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত দেশ।

করোনার প্রথম ও দ্বিতীয় ঢেউয়ে ভারতে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত রাজ্য ছিল মহারাষ্ট্র। তৃতীয় ঢেউ শুরুর পরও সবচেয়ে খারাপ অবস্থা মহারাষ্ট্রেই, রাজ্যটিতে শনিবারও সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ধরা পড়েছে। এ দিন ৪৮ হাজার ২৭০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে রাজ্যটিতে।

বাংলাদেশের প্রতিবেশী রাজ্য পশ্চিমবঙ্গে সংক্রমণ কিছুটা কমে দাঁড়িয়েছে ৯ হাজার ১৫৪ জনে।

শেয়ার করুন

মুম্বাইয়ে বহুতল ভবনে আগুন, মৃত ৭

মুম্বাইয়ে বহুতল ভবনে আগুন, মৃত ৭

ফায়ার সার্ভিসের প্রায় ১৩টি গাড়ি ও ৭টি ওয়াটার জেটি আগুন নেভানোর কাজে অংশ নিয়েছিল। ছবি: সংগৃহীত

মুম্বাই শহরের মেয়র কিশোরি পেডনেকার দেশটির রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা এএনআইকে জানিয়েছেন, আহত ১৫ জনের মধ্যে ৬ জন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের অক্সিজেন প্রয়োজন। তাদের হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

ভারতের মুম্বাইয়ে গান্ধী হাসপাতালের বিপরীতে অবস্থিত বহুতল ভবনে ভয়াবহ আগুনে ৭ জন প্রাণ হারিয়েছেন। আহত হয়েছেন কমপক্ষে ১৫ জন।

এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, স্থানীয় সময় সকাল ৭টায় ২০ তলা ভবনের ১৮ তলায় এ আগুনের সূত্রপাত।

মুম্বাই শহরের মেয়র কিশোরি পেডনেকার দেশটির রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা এএনআইকে জানিয়েছেন, আহত ১৫ জনের মধ্যে ৬ জন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের অক্সিজেন প্রয়োজন। তাদের হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

তিনি আরও জানিয়েছেন, আগুন ইতিমধ্যে নিয়ন্ত্রণে এসেছে। তবে ছড়িয়ে পড়া ধোঁয়ার পরিমাণ ব্যাপক। সবাইকে উদ্ধার করা হয়েছে।

ফায়ার সার্ভিসের প্রায় ১৩টি গাড়ি ও ৭টি ওয়াটার জেটি আগুন নেভানোর কাজে অংশ নিয়েছিল।

কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, মৃত ৭ জনের ৫ জন নায়ের হাসপাতালে, ১ জন কাসটুরবা হাসপাতালে এবং ১ জন মারা গেছেন ভাটিয়া হাসপাতালে।

শেয়ার করুন

দিল্লিতে গায়ে আগুন দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা

দিল্লিতে গায়ে আগুন দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা

ঘটনার পর পুরো এলাকা ঘিরে ফেলে পুলিশ। ছবি: ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস

ওই ব্যক্তির নাম রাজভর গুপ্তা। তার বয়স ৫০। তিনি উত্তর প্রদেশের নয়দা শহরের বাসিন্দা। আত্মহত্যার চেষ্টার কারণ জানা যায়নি।

দিল্লিতে সুপ্রিম কোর্টের সামনে গায়ে আগুন ধরিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন এক ব্যক্তি। স্থানীয় সময় শুক্রবার বেলা ২টার দিকে আদালতের নতুন ভবনের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

টাইমস অফ ইন্ডিয়ার খবরে বলা হয়েছে, ওই ব্যক্তির নাম রাজভর গুপ্তা। তার বয়স ৫০। তিনি উত্তর প্রদেশের নয়দা শহরের বাসিন্দা। আত্মহত্যার চেষ্টার কারণ জানা যায়নি।

এ সময় সেখানে উপস্থিত পুলিশ সদস্যরা তাকে উদ্ধার করেন। লোক নায়েক জয় প্রকাশ নারায়ণ হাসপাতালে তিনি ভর্তি আছেন।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, তার অবস্থা স্থিতিশীল। কেবল চুল এবং কাপড় পুড়েছে। তাকে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।

ঘটনাস্থল থেকে আলামত জব্দ করে বিষয়টি খতিয়ে দেখছে দিল্লি পুলিশ।

শেয়ার করুন

ভারতীয় কিশোরকে নিয়ে গেছে চীন

ভারতীয় কিশোরকে নিয়ে গেছে চীন

অপহরণের শিকার মিরাম তারান। ছবি: সংগৃহী

তাপির গাওয়ের অভিযোগ পাওয়ার পর পরই ভারতীয় সেনাবাহিনী চীনা সেনাদের আঞ্চলিক কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে।

ভারতের অরুণাচল প্রদেশে সীমান্ত থেকে চীনের সেনারা এক কিশোরকে আটক করে নিয়ে গেছেন বলে অভিযোগ করেছেন বিজেপির সংসদ সদস্য তাপির গাও।

প্রদেশটির আপার সিয়াং জেলার লুংটা যোর এলাকা থেকে মঙ্গলবার ১৭ বছর বয়সী ওই কিশোরকে অপহরণ করা হয়।

টুইটারে পোস্ট দিয়ে ও স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে সংসদ সদস্য তাপির গাও জানান, অপহৃত মিরাম তারানের বন্ধু জনি ইয়ায়িং কোনোভাবে চীনা বাহিনীর হাত থেকে পালিয়ে আসতে সক্ষম হন। বন্ধুর অপহৃত হওয়ার বিষয়টি তিনিই জানান স্থানীয় প্রশাসনকে।

তাপির গাওয়ের অভিযোগ পাওয়ার পর পরই ভারতীয় সেনাবাহিনী চীনা সেনাদের আঞ্চলিক কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে।

প্রতিরক্ষা সংস্থার সূত্র জানিয়েছে, পিপলস লিবারেশন আর্মির সঙ্গে হটলাইনে মাধ্যমে যোগাযোগ করা হয়েছিল। একজন ভারতীয় পথ হারিয়ে ফেলেছেন বলে তাদের জানানো হয়েছে। প্রটোকল অনুযায়ী তাকে খুঁজে বের করতে এবং ফিরিয়ে দিতে চীনের সহায়তা চাওয়া হয়েছে।

অরুণাচলের (পূর্ব) লোকসভা সংসদ সদস্য তাপির গাও বলেন, ‘তারান ও তার বন্ধু জনি শিকার করতে গিয়ে পথ হারিয়ে চীনা সৈন্যদের কবলে পড়েন। তবে ইয়াইয়িং পালিয়ে এসে স্থানীয় কর্তৃপক্ষকে সতর্ক করেন।’

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং এবং ভারতীয় সেনাবাহিনীকে উদ্দেশ করে টুইটারে তাপির গাও বলেছেন, ‘ভারত সরকারের সব সংস্থাকে ওই কিশোরের দ্রুত মুক্তির জন্য পদক্ষেপ নিতে অনুরোধ করা হচ্ছে।’

শেয়ার করুন

ধর্ম অবমাননা: বন্ধুর মামলায় নারীর মৃত্যুদণ্ড

ধর্ম অবমাননা: বন্ধুর মামলায় নারীর মৃত্যুদণ্ড

ছবি: এএফপি

২০১৯ সালে একটি গেমিং সাইটের মাধ্যমে আনিকার সঙ্গে পরিচয় হয় ফারুকের। পরে তারা হোয়াটসঅ্যাপে যোগাযোগ শুরু করেন। একপর্যায়ে দুজনের মধ্যে বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে। সে সময়ে ফারুককে হোয়াটসঅ্যাপে বিশ্বনবীর ব্যঙ্গচিত্র পাঠাতেন আনিকা। ফেসবুকেও এই বিষয়ে তৎপর ছিলেন তিনি। সতর্কের পরও অনড় থাকায় ২০২০ সালে আনিকার বিরুদ্ধে মামলা করেন ফারুক।

ধর্ম অবমাননার দায়ে পাকিস্তানে এক নারীকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে। রাওয়ালপিন্ডির আদালত বুধবার এ রায় দেয়।

দণ্ডপ্রাপ্ত নারীর নাম আনিকা আতিক। ২০২০ সালে ২৬ বছরের আনিকার বিরুদ্ধে ইসলাম অবমাননার অভিযোগে মামলা হয়েছিল।

ভারতের সংবাদভিত্তিক ওয়েবসাইট ফার্স্টপোস্টের খবরে বলা হয়েছে, আনিকার বিরুদ্ধে মামলা করেন ফারুক হাসনাত নামে এক ব্যক্তি। তারা একসময় বন্ধু ছিলেন।

বুধবার রায় ঘোষণার সময় আদালত জানায়, ইসলাম ধর্ম ও মহানবী (সা.)-কে নিয়ে কটূক্তির অভিযোগ এবং সাইবার আইন লঙ্ঘন করার অপরাধ প্রমাণিত হয়েছে।

ফার্স্টপোস্ট বলছে, ২০১৯ সালে একটি গেমিং সাইটের মাধ্যমে আনিকার সঙ্গে পরিচয় হয় ফারুকের। পরে তারা হোয়াটসঅ্যাপে যোগাযোগ শুরু করেন। একপর্যায়ে দুজনের মধ্যে বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে।

সে সময়ে ফারুককে হোয়াটসঅ্যাপে বিশ্বনবীর ব্যঙ্গচিত্র পাঠাতেন আনিকা। ফেসবুকেও এ বিষয়ে তৎপর ছিলেন তিনি।

এসবে হতাশ হন ফারুক। তিনি আতিকাকে এসব বার্তা মুছে ক্ষমা চাওয়ার পরামর্শ দেন। তবে তা প্রত্যাখ্যান করেন আতিকা। বাধ্য হয়ে ফেডারেল ইনভেস্টিগেশন এজেন্সির (এফআইএ) সাইবার ইউনিটের কাছে অভিযোগ করেন ফারুক।

এতে বলা হয়, ইচ্ছাকৃত ধর্মীয় গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিকে অপমানিত করেছেন আতিকা। এটি মুসলমানদের ধর্মীয় বিশ্বাসে আঘাত হেনেছে।

পাকিস্তানে ইসলাম অবমাননার আইন কঠোর। সামরিক স্বৈরশাসক জেনারেল জিয়া-উল-হক আশির দশকে এই আইন বাস্তবায়ন করেন।

গত ডিসেম্বরে একই ধরনের অভিযোগে শ্রীলঙ্কার এক নাগরিককে বেদম পেটানোর পর পুড়িয়ে হত্যা করা হয়েছিল।

শেয়ার করুন

পাকিস্তানে ব্যস্ত মার্কেটে বিস্ফোরণে নিহত ২

পাকিস্তানে ব্যস্ত মার্কেটে বিস্ফোরণে নিহত ২

লাহোরে বৃহস্পতিবার দুপুরে বিস্ফোরণ ঘটে। ছবি: এএফপি

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান সরকারের সঙ্গে তেহরিক-ই তালেবান পাকিস্তান- টিটিপি (পাকিস্তানি তালেবান) আলোচনা ভেস্তে যাওয়ার পর পুলিশ, নিরাপত্তা বাহিনী, এমনকি বেসামরিক নাগরিকদের ওপর ধারাবাহিক হামলা বেড়েছে।

পাকিস্তানের লাহোরের একটি ব্যস্ত মার্কেট এলাকায় বিস্ফোরণে দুজন নিহত হয়েছেন। আহত অন্তত ২৬ জন হাসপাতালে ভর্তি।

লাহোরি গেট এলাকায় বৃহস্পতিবার দুপুরে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে।

আল জাজিরাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন লাহোর পুলিশের মুখপাত্র নায়াব হাইদার।

তিনি বলেন, ‘এখন পর্যন্ত দুজন নিহত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে। আহতদের মধ্যে চারজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

‘প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে বোমাটি আগে থেকে পোঁতা ছিল। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।’

লাহোরের মায়ো হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে, বিস্ফোরণে দুজন মারা গেছেন। আহত ২৬ জন চিকিৎসাধীন।

পাকিস্তানের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর লাহোরের এই হামলার দায় স্বীকার করেনি কেউ।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান সরকারের সঙ্গে তেহরিক-ই তালেবান পাকিস্তান- টিটিপি (পাকিস্তানি তালেবান) আলোচনা ভেস্তে যাওয়ার পর পুলিশ, নিরাপত্তা বাহিনী, এমনকি বেসামরিক নাগরিকদের ওপর ধারাবাহিক হামলা বেড়েছে।

ইসলামাবাদে গত সোমবার একটি তল্লাশি চৌকিতে গুলি করে পুলিশ সদস্যকে হত্যা করে এক বন্দুকধারী। পরদিন এর দায় স্বীকার করে টিটিপি। ওই হামলার পর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে সতর্ক করে বলা হয়েছিল, এটা কেবল শুরু।

পাকিস্তান সরকারের সঙ্গে আফগানিস্তানের তালেবানদের মধ্যস্থতায় শান্তি আলোচনা চলছিল টিটিপির। এ সময় দুপক্ষের মধ্যে যুদ্ধবিরতি কার্যকর হয়েছিল। কিন্তু ডিসেম্বরে যুদ্ধবিরতি থেকে সরে আসে টিটিপি।

শেয়ার করুন