× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

আন্তর্জাতিক
Construction of Chinese bases on the Afghan border
hear-news
player
print-icon

আফগান সীমান্তে চীনের ঘাঁটি নির্মাণ

আফগান-সীমান্তে-চীনের-ঘাঁটি-নির্মাণ
২০১৯ সালে তাজিকিস্তানের গরনো-বাদাখশান প্রদেশে তাজিক ও চীনা সেনাদের যৌথ সামরিক মহড়া। ছবি: শিনহুয়া
তাজিকিস্তান পার্লামেন্টের এক মুখপাত্র জানান, পর্বতময় গরনো-বাদাখশান প্রদেশের ইশকাশিম জেলায় চীনকে ঘাঁটি নির্মাণের অনুমোদন দিয়েছে দেশটির পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ।

তাজিকিস্তানে আফগান সীমান্তের কাছে একটি পুলিশ ঘাঁটি নির্মাণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে চীন। এ জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ সহায়তাও দেবে দেশটি।

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার তাজিকিস্তান সরকারের এক কর্মকর্তা এ বিষয়টি জানান বলে বার্তা সংস্থা এএফপির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

আফগানিস্তানে সক্রিয় বিভিন্ন সশস্ত্র সংগঠনের বিরুদ্ধে তালেবান সরকার কার্যকর পদক্ষেপ নিতে সক্ষম হবে কি না, এ নিয়ে চীন ও তাজিকিস্তানের উদ্বেগের মধ্যেই বেইজিং ওই ঘাঁটি নির্মাণের পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, আফগান সীমান্তে ঘাঁটি নির্মাণের মধ্য দিয়ে চীন ও দরিদ্র দেশ তাজিকিস্তানের মধ্যে নিরাপত্তা সহযোগিতা শক্তিশালী হবে।

সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে আরেকটি ঘাঁটি চীন নির্মাণ করতে যাচ্ছে বলে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়।

তাজিকিস্তান পার্লামেন্টের এক মুখপাত্র জানান, পর্বতময় গরনো-বাদাখশান প্রদেশের ইশকাশিম জেলায় চীনকে ঘাঁটি নির্মাণের অনুমোদন দিয়েছে দেশটির পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই মুখপাত্র বলেন, ‘ঘাঁটি নির্মাণ ব্যয় পুরোটাই বহন করবে চীন। ঘাঁটিটি নির্মাণের পর সেটি তাজিক পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হবে।’

ঘাঁটি নির্মাণের জন্য চীন ৮৫ লাখ ডলার দিচ্ছে বলেও জানান তিনি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এএফপিকে জানায়, ‘আমরা আপনাদের আশ্বস্ত করে বলতে চাই, মধ্য এশিয়ায় আমাদের কোনো সামরিক ঘাঁটি নেই।’

১৫ আগস্ট কাবুল পতনের মধ্য দিয়ে আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখল করে তালেবান। এর কয়েক সপ্তাহ পর নিজেদের ৩৩ নেতা নিয়ে অন্তর্বর্তীকালীন সরকার গঠন করে গোষ্ঠীটি।

তালেবানের এই নতুন সরকারের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক স্থাপনে আগ্রহী চীন। তবে সীমান্তবর্তী প্রদেশ শিনজিয়াংয়ে জাতিগত সংখ্যালঘু উইঘুর মুসলমানদের ‘বিচ্ছিন্নতাবাদী’ নেতাদের দমনে তালেবান সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে বেইজিং।

সীমান্ত চৌকি নির্মাণ ও শক্তিশালী করতে চীন ও যুক্তরাষ্ট্র উভয় দেশের কাছ থেকে সম্প্রতি আর্থিক সহায়তা পায় প্রায় এক কোটি জনসংখ্যার দেশ তাজিকিস্তান।

শিনজিয়াংয়ের সীমান্তবর্তী গরনো-বাদাখশান প্রদেশে তাজিকিস্তানের সঙ্গে যৌথভাবে একটি সামরিক ঘাঁটি চীন পরিচালনা করতে চায় বলেও বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে উঠে আসে।

আরও পড়ুন:
চীনে আকাশচুম্বী দালান নির্মাণে বিধিনিষেধ
চীনের হাইপারসনিক ক্ষেপণাস্ত্রের সঙ্গে স্পুৎনিকের তুলনা যুক্তরাষ্ট্রের
শিশুদের হোমওয়ার্কের চাপ কমাতে চীনে আইন
৯ মাসে চীন-ভারতের বাণিজ্য বেড়েছে ৪৯ শতাংশ
সন্তানের অসদাচরণে শাস্তি পাবে মা-বাবা

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
3 soldiers killed in gun attack in Jammu and Kashmir

কাশ্মীরে বন্দুকধারীর হামলায় ৩ ভারতীয় সেনা নিহত

কাশ্মীরে বন্দুকধারীর হামলায় ৩ ভারতীয় সেনা নিহত কাশ্মীরে সেনাদের গুলিতে ২ জন বন্দুকধারীও নিহত হয়েছে। ছবি: সংগৃহীত
রাজ্য পুলিশের অতিরিক্ত মহাপরিচালক মুকেশ সিং বলেন, কয়েকজন সন্ত্রাসী পারগালের আর্মি ক্যাম্পে প্রবেশের চেষ্টা করলে রক্ষীরা তাদের চ্যালেঞ্জ জানায়। এ সময় গোলাগুলি শুরু হয়।

ভারতের জম্মু-কাশ্মীরের রাজৌরি সেনাক্যাম্পে বন্দুকধারীর হামলায় ৩ সেনা নিহত ও ২ জন আহত হয়েছেন।

এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, হামলাকারীরা এ সময় সেনাক্যাম্পে প্রবেশের চেষ্টা করছিল। সেনা সদস্যের পাল্টা গুলিতে ২ বন্দুকধারীও নিহত হয়েছে।

জম্মু-কাশ্মীর পুলিশের অতিরিক্ত মহাপরিচালক মুকেশ সিং বলেন, ‘কয়েকজন সন্ত্রাসী পারগালের আর্মি ক্যাম্পে প্রবেশের চেষ্টা করলে রক্ষীরা তাদের চ্যালেঞ্জ জানায়। এ সময় গোলাগুলি শুরু হয়।’

ক্যাম্পের নিরাপত্তা বৃদ্ধি করতে আরো সেনা পাঠানো হয়েছে।

পুলিশ বলছে, এই হামলার পেছনে রয়েছে জঙ্গিগোষ্ঠী লস্কর-ই-তাইয়্যেবা।

২০১৮ সালে জম্মুর সুনজোয়ান ক্যাম্পে হামলার পর এটিই সেনা ক্যাম্পে সবচেয়ে বড় ধরনের হামলা।

২০১৬ সালে উরি ক্যাম্পে একই ধরনের হামলায় ১৮ সেনা নিহত হন।

জম্মু-কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লাহ এক টুইট বার্তায় নিহত সেনা সদস্য ও কর্মকর্তাদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন এবং আহত সেনাদের দ্রুত সুস্থতা কামনা করেছেন।

আরও পড়ুন:
পশ্চিমবঙ্গে মন্ত্রীর ঘনিষ্ঠ মডেলের ঘর থেকে ২০ কোটি রুপি জব্দ
ধর্ষণ থেকে বাঁচতে স্কুলের ছাদ থেকে লাফ, আটক ৫
কোহলিকে নিয়ে বাড়তি আলোচনা চান না রোহিত-বাটলার
কিংফিশারের মালিক মালিয়ার কারাদণ্ড
সুন্দরবনের ‘রাজার’ মৃত্যু

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
3 killed 39 damaged in US explosion

যুক্তরাষ্ট্রে বিস্ফোরণে নিহত ৩, ক্ষতিগ্রস্ত ৩৯ বাড়ি

যুক্তরাষ্ট্রে বিস্ফোরণে নিহত ৩, ক্ষতিগ্রস্ত ৩৯ বাড়ি ইন্ডিয়ানা অঙ্গরাজ্যের ইভান্সভিলের বিস্ফোরণে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৩৯টি বাড়ি। ছবি: এপি
ইভান্সভিল ফায়ার ডিপার্টমেন্টের প্রধান মাইক কনেলি জানিয়েছেন, দুপুর ১টার দিকে বিস্ফোরণে মোট ৩৯টি বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তিনি বলেন, বিস্ফোরণের সময় কতটি বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত ও বসবাসের অযোগ্য হয়ে গেছে তা বিভাগ নিশ্চিত করতে পারেনি। কারণ কিছু বাড়িতে তারা এখনও ঢুকতে পারেননি।’

যুক্তরাষ্ট্রের ইন্ডিয়ানা অঙ্গরাজ্যের ইভান্সভিল শহরে একটি বাড়িতে বিস্ফোরণে তিনজন নিহত হয়েছেন।

স্থানীয় সময় বুধবার দুপুর ১টার এই বিস্ফোরণে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে আরও ৩৯টি বাড়ি।

এ ঘটনায় ইভান্সভিল ফায়ার ডিপার্টমেন্টের প্রধান মাইক কনেলি জানিয়েছেন, দুপুর ১টার দিকে বিস্ফোরণে মোট ৩৯টি বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তিনি বলেন, বিস্ফোরণের সময় কতটি বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত ও বসবাসের অযোগ্য হয়ে গেছে তা বিভাগ নিশ্চিত করতে পারেনি। কারণ কিছু বাড়িতে তারা এখনও ঢুকতে পারেননি।’

ক্ষতিগ্রস্ত ৩৯টি বাড়ির মধ্যে কমপক্ষে ১১টি বসবাসের অযোগ্য হয়ে গেছে, কনেলি স্থানীয় ইভান্সভিল কুরিয়ার অ্যান্ড প্রেসকে এমনটি জানিয়েছেন।

বিস্ফোরণের কারণ এখনও জানা যায়নি। তবে অ্যালকোহল, তামাক, আগ্নেয়াস্ত্র এবং বিস্ফোরকবিষয়ক ব্যুরো তদন্তকাজ চালিয়ে যাচ্ছে।

বিস্ফোরণের ফলে ভবনের ধ্বংসাবশেষ ১০০ ফুট ব্যাসার্ধে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে পড়ে।

ইভান্সভিল পুলিশ বিভাগের মুখপাত্র সার্জেন্ট আনা গ্রে বলেন, অন্তত একজন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে এবং তাকে চিকিৎসার জন্য স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন:
উত্তরায় গ্যারেজে বিস্ফোরণে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৭

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Trump did not open his mouth to the investigators

তদন্তকারীদের কাছে মুখ খোলেননি ট্রাম্প

তদন্তকারীদের কাছে মুখ খোলেননি ট্রাম্প নিজের বিরুদ্ধে তদন্ত চললেও আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লড়বেন ট্রাম্প। ছবি: সংগৃহীত
ম্যানহাটনে পৌঁছানোর এক ঘণ্টা পরই অ্যাটর্নি জেনারেলের কার্যালয়ে উপস্থিত হলেও কোনো প্রশ্নের উত্তর দেননি ডনাল্ড ট্রাম্প। আইনি বিশ্লেষকরা বলছেন, ট্রাম্প বুধবার প্রশ্নগুলোর উত্তর দিতে অস্বীকার করেছেন, কারণ তার দেয়া উত্তরগুলো সেই অপরাধ তদন্তে তার বিরুদ্ধেই ব্যবহার করা হতে পারে।

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প তার পরিবারের ব্যাবসায়িক কোনো প্রশ্নের উত্তর নিউ ইয়র্ক রাজ্যের তদন্তকারীদের দিতে অস্বীকার করেছেন।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রাজ্যের কর্মকর্তারা বলছেন, লোন ও ট্যাক্সের ছাড়ের বিষয়ে এবং নিজের সম্পদের বিষয়ে ট্রাম্প কর্তৃপক্ষকে বিভ্রান্ত করেছেন।

তবে ট্রাম্প বুধবার অ্যাটর্নি জেনারেল লেটিশিয়া জেমসের কার্যালয়ে সাক্ষাৎকারটি ব্লক করার জন্য মামলা করেছিলেন এবং তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

ম্যানহাটনে পৌঁছানোর এক ঘণ্টা পরই অ্যাটর্নি জেনারেলের কার্যালয়ে উপস্থিত হলেও কোনো প্রশ্নের উত্তর দেননি তিনি।

তিনি বলেছেন, ‘আমি যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধানের অধীনে প্রতিটি নাগরিকের প্রদত্ত অধিকার এবং সুযোগ-সুবিধাগুলোর অধীনে প্রশ্নের উত্তর দিতে অস্বীকার করেছি।’

জেমসের কার্যালয় থেকে ট্রাম্পের সাক্ষাৎকারটি নেয়া হয়েছিল। কিন্তু ট্রাম্প পঞ্চম সংশোধনীর কথা বলে কোনো প্রশ্নের জবাব দেননি।

অ্যাটর্নি জেনারেলের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘অ্যাটর্নি জেনারেল সত্য ও আইনের অনুসরণ করবেন।’

একই সঙ্গে জানানো হয়েছে, ট্রাম্পের বিরুদ্ধে তদন্ত অব্যাহত থাকবে।

আইনি বিশ্লেষকরা বলছেন, ট্রাম্প বুধবার প্রশ্নগুলোর উত্তর দিতে অস্বীকার করেছেন, কারণ তার দেয়া উত্তরগুলো সেই অপরাধ তদন্তে তার বিরুদ্ধেই ব্যবহার করা হতে পারে।

তবে পঞ্চম সংশোধনী একজন নাগরিককে ফৌজদারি মামলায় নিজের বিরুদ্ধে সাক্ষী হতে বাধ্য করা থেকে রক্ষা করে।

এর আগে নিজের সোশ্যাল মিডিয়া সাইট-ট্রুথ সোশ্যালে এক পোস্টে ট্রাম্প জানিয়েছিলেন, নিউ ইয়র্কের অ্যাটর্নি জেনারেল লেটিশিয়া জেমসের সঙ্গে বুধবার দেখা করতে যাচ্ছেন তিনি।

জেমস সাবেক রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এবং তার প্রতিষ্ঠানের সম্পদের মূল্য ভুলভাবে বর্ণনা করেছে কি না, তা তদন্ত করছেন।

জেমসের কার্যালয় জানুয়ারিতেও ট্রাম্পকে এ বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডেকেছিল।

এফবিআই এজেন্টরা মঙ্গলবার ফ্লোরিডায় ট্রাম্পের মার-এ-লাগো এস্টেটে অভিযান চালায়। এরপর ট্রাম্পের অসংখ্য আইনি জটিলতাগুলো আবার লাইমলাইটে চলে আসে।

এফবিআইয়ের দাবি, ২০২১ সালে হোয়াইট হাউস ছাড়ার সময় গোপনীয় কিছু তথ্য সঙ্গে করে নিয়ে গিয়েছিলেন ট্রাম্প।

পর্যবেক্ষকরা বলছেন, যুক্তরাষ্ট্রের বিচার বিভাগ সাবেক প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে ফৌজদারি অভিযোগের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে, এমন ধারণাই এখন স্পষ্ট।

চলতি বছরের মে মাসে অ্যাটর্নি জেনারেলের তদন্ত রাজনৈতিকভাবে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত জানিয়ে তদন্ত শেষ করতে ট্রাম্পের একটি মামলা খারিজ করেছিলেন এক বিচারক।

জেমস একজন ডেমোক্র্যাট, সোচ্চার ট্রাম্প সমালোচক। আদালতের ফাইলিংয়ে তিনি জানিয়েছেন, তার অফিস ট্রাম্পের বিরুদ্ধে উল্লেখযোগ্য প্রমাণ পেয়েছে।

ট্রাম্পের কোম্পানি ‘লোন, বিমা কভারেজ এবং ট্যাক্সসহ প্রচুর অর্থনৈতিক সুবিধা পাওয়ার জন্য সম্পদের বিভ্রান্তিকর তথ্য দিয়েছেন। তাই তদন্তের মাধ্যমে জড়িত পক্ষের বিরুদ্ধে মামলাসহ আইনি ব্যবস্থা নেয়া যেতে পারে।

এর আগে ট্রাম্পের ছেলে ডনাল্ড জুনিয়র এবং ইভাঙ্কাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছিল। ট্রাম্পের সাক্ষ্য ম্যানহাটন জেলা অ্যাটর্নি অফিস ঘনিষ্ঠভাবে পর্যবেক্ষণ করবে বলে আশা করা হচ্ছে।

এই অফিসও ট্রাম্প অর্গানাইজেশনের ব্যাবসায়িক লেনদেনের বিষয়টি খতিয়ে দেখছে।

ম্যানহাটন ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নির তদন্তে ট্রাম্প অর্গানাইজেশন এবং ফিন্যান্স চিফ অ্যালেন ওয়েইসেলবার্গের বিরুদ্ধে কর জালিয়াতির অভিযোগ আছে।

আরও পড়ুন:
ভারি বৃষ্টিতে যুক্তরাষ্ট্রে বাতিল ৯১২ ফ্লাইট
নিউ মেক্সিকোতে ৪ মুসলিম হত্যায় সন্দেহের কেন্দ্রে রুপালি ভক্সওয়াগন
ফিলিপাইন চীনের ধাওয়া খেলে ‘বাঁচাবে’ যুক্তরাষ্ট্র
চীন সীমান্তে ভারতের সঙ্গে সামরিক মহড়ায় যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র
যুক্তরাষ্ট্রের ফোন ‘ধরছে না’ চীন

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Arson planned French minister

দাবানল পরিকল্পিত: ফ্রান্সের মন্ত্রী

দাবানল পরিকল্পিত: ফ্রান্সের মন্ত্রী দাবানল ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে বিমানের তৎপরতা। ছবি: সংগৃহীত
ফ্রান্সে দেশটির ইতিহাসে চলতে থাকা সবচেয়ে বড় দাবানলে এ পর্যন্ত ৬ হাজার ২০০ হেক্টর জমি আগুনে পুড়ে গেছে। ফায়ার ফাইটাররা আগুন নিয়ন্ত্রণে হিমশিম খাচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে ফ্রান্সের ইতিহাসে চলতে থাকা সবচেয়ে বড় দাবানলের পেছনে নাশকতার আশঙ্কার কথা বলছেন স্বয়ং দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জেরাল্ড দারমানিনি।

ইউরোপের বিভিন্ন দেশে চলছে দাবানল। জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য একদিকে উচ্চ তাপমাত্রায় বিপর্যস্ত জনজীবন, অন্যদিকে বিশেষজ্ঞরাও দাবানলের জন্য দায়ী করে আসছে জলবায়ু পরিবর্তনকে।

রাশিয়া টুডের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ফ্রান্সের ইতিহাসে চলতে থাকা সবচেয়ে বড় দাবানলের পেছনে নাশকতার আশঙ্কার কথা বলছেন স্বয়ং দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জেরাল্ড দারমানিনি।

মধ্য ফ্রান্সের অ্যাভেরন ভ্রমণের সময় দারমানিনি সাংবাদিকদের বুধবার বলেন, সকাল ৮টা থেকে ৯টা পর্যন্ত প্রায় ৮ জায়গায় নতুন করে আগুন লেগেছে, এটি অস্বাভাবিক।

এ ছাড়া ফায়ার সার্ভিস ও স্বেচ্ছাসেবী কর্মীদের আগুনের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের বিষয়টিও বলার সময় তিনি এটিকে হিংসাত্মক আগুন হিসেবেই অভিহিত করেন।

ফ্রান্সে দেশটির ইতিহাসে চলতে থাকা সবচেয়ে বড় দাবানলে এ পর্যন্ত ৬ হাজার ২০০ হেক্টর জমি আগুনে পুড়ে গেছে। ফায়ার ফাইটাররা আগুন নিয়ন্ত্রণে হিমশিম খাচ্ছে। বোর্দেওক্সের প্রধান মহাসড়ক এরই মধ্যে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। সেখানকার ১০ হাজার বাসিন্দাকে এরই মধ্যে সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন:
মডেল বান্ধবীকে স্ত্রী করলেন সাবেক ফরাসি প্রেসিডেন্ট
ফ্রান্সের প্রধানমন্ত্রী বর্নিকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন
৩০ বছর পর নারী প্রধানমন্ত্রী পেল ফ্রান্স
ফ্রান্সের নির্বাচন ও ভবিতব্যের ম্লান আলো
ম্যাখোঁবিরোধী বিক্ষোভে গুলি, নিহত ২

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Gotabaya Rajapakse wants to enter Thailand

থাইল্যান্ড ঢুকতে চাইছেন গোটাবায়া রাজাপাকসে

থাইল্যান্ড ঢুকতে চাইছেন গোটাবায়া রাজাপাকসে শ্রীলঙ্কার সাবেক প্রেসিডেন্ট গোটাবায়া রাজাপাকসে। ফাইল ছবি
সাত দশকের মধ্যে সবচেয়ে খারাপ অর্থনৈতিক সংকটের মুখে পড়েছে শ্রীলঙ্কা। খাদ্য, জ্বালানি ও ওষুধের তীব্র ঘাটতির কারণে হাজার হাজার বিক্ষোভকারী প্রেসিডেন্টের সরকারি বাসভবন ও অফিসে হামলা চালায়। পরদিন ১৪ জুলাই সিঙ্গাপুরে পালিয়ে যান তিনি।

শ্রীলঙ্কার সাবেক প্রেসিডেন্ট গোটাবায়া রাজাপাকসে থাইল্যান্ডে ঢোকার চেষ্টায় আছেন বলে জানিয়েছে থাই পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। তবে তিনি কখন সফর করতে চেয়েছিলেন, তা প্রকাশ করা হয়নি।

থাই পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র তানি সাংগ্রাট বলেন, ‘গোটাবায়ার একটি কূটনৈতিক পাসপোর্ট আছে, যা তাকে ৯০ দিনের জন্য যেকোনো দেশে প্রবেশের অনুমতি দেয়। তিনি ব্যাংককে অস্থায়ীভাবে বসবাস করতে চাইছেন।

‘শ্রীলঙ্কার পক্ষ থেকে আমাদের জানানো হয়েছে যে সাবেক প্রেসিডেন্টের থাইল্যান্ডে রাজনৈতিক আশ্রয় নেয়ার কোনো ইচ্ছা নেই। পরে তিনি অন্য দেশে চলে যাবেন।’

সাত দশকের মধ্যে সবচেয়ে খারাপ অর্থনৈতিক সংকটের মুখে পড়েছে শ্রীলঙ্কা। খাদ্য, জ্বালানি ও ওষুধের তীব্র ঘাটতির কারণে হাজার হাজার বিক্ষোভকারী প্রেসিডেন্টের সরকারি বাসভবন ও অফিসে হামলা চালায়। পরদিন ১৪ জুলাই সিঙ্গাপুরে পালিয়ে যান গোটাবায়া রাজাপাকসে।

সিঙ্গাপুর থেকে পদত্যাগ করেন গোটাবায়া। তিনিই শ্রীলঙ্কার প্রথম প্রেসিডেন্ট যিনি মধ্যবর্তী মেয়াদে পদত্যাগ করেছেন।

গোটাবায়া বৃহস্পতিবার সিঙ্গাপুর ছেড়ে থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককে যাবেন বলে আশা করা হচ্ছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দুই সূত্রের বরাতে রয়টার্স এ খবর ছেপেছে। শ্রীলঙ্কার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তাৎক্ষণিকভাবে এ মন্তব্যের জবাব দেয়নি। সিঙ্গাপুরে শ্রীলঙ্কার দূতাবাস থেকে কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

গোটাবায়ার এক ঘনিষ্ঠ সহযোগী কলম্বোতে বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, ‘বৃহস্পতিবার তার সিঙ্গাপুর ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ার কথা। এক্সটেনশনের জন্য আবেদন করেছিলেন তিনি। তবে বুধবার সকাল পর্যন্ত তা হয়নি।’

প্রভাবশালী রাজাপাকসে পরিবারের সদস্য গোটাবায়া। তিনি শ্রীলঙ্কার সামরিক বাহিনীর পর প্রতিরক্ষা সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

প্রতিরক্ষা সচিব থাকাকালীন সরকারি বাহিনী ২০০৯ সালে তামিল টাইগার বিদ্রোহীদের পরাজিত করে রক্তক্ষয়ী গৃহযুদ্ধের অবসান ঘটায়। কিছু অধিকার গোষ্ঠী এখন চাইছে, গোটাবায়া যে যুদ্ধাপরাধ করেছেন, তা তদন্ত করা হোক। গোটাবায়া এর আগে কঠোরভাবে এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

আইন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, গোটাবায়া যদি শ্রীলঙ্কায় ফিরে আসেন, তবে তার বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ করা হলে, আইন তাকে নাও বাঁচাতে পারে।

আরও পড়ুন:
বড় জয়ে সমতায় সিরিজ শেষ করল শ্রীলঙ্কা
শ্রীলঙ্কায় জরুরি অবস্থা আরও ১ মাস
শক্ত ভীত গড়ে তৃতীয় দিন শেষ করল শ্রীলঙ্কা
গল টেস্টে পিছিয়ে পাকিস্তান
রাজাপাকসের গ্রেপ্তার চেয়ে সিঙ্গাপুরে আবেদন

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Trump is questioned under oath

শপথ পড়িয়ে ট্রাম্পকে জিজ্ঞাসাবাদ  

শপথ পড়িয়ে ট্রাম্পকে জিজ্ঞাসাবাদ   যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প। ছবি: সংগৃহীত
ট্রাম্পের প্রতিষ্ঠানের সম্পদ মূল্যায়নে ঋণদাতা এবং কর কর্তৃপক্ষকে বিভ্রান্ত করা হয়েছে কি না তা খতিয়ে দেখছে নিউ ইয়র্কের তদন্ত দল। 

নিজের ব্যবসায়িক লেনদেনের বিষয়ে নিউ ইয়র্ক স্টেটের নাগরিক তদন্তের অংশ হিসেবে শপথ নিয়ে সাক্ষ্য দেবেন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প। তার প্রতিষ্ঠানের সম্পদ মূল্যায়নে ঋণদাতা এবং কর কর্তৃপক্ষকে বিভ্রান্ত করা হয়েছে কি না তা খতিয়ে দেখছে নিউ ইয়র্কের তদন্ত দল।

নিজের সোশ্যাল মিডিয়া সাইট-ট্রুথ সোশ্যালে এক পোস্টে ট্রাম্প জানান, নিউ ইয়র্কের অ্যাটর্নি জেনারেল লেটিশিয়া জেমসের সঙ্গে বুধবার দেখা করবেন তিনি।

জেমস সাবেক রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এবং তার প্রতিষ্ঠানের সম্পদের মূল্য ভুলভাবে বর্ণনা করেছে কি না, তা তদন্ত করছেন। জেমসের কার্যালয় জানুয়ারিতেও ট্রাম্পকে এ বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডেকেছিল।

এফবিআই এজেন্টরা মঙ্গলবার ফ্লোরিডায় ট্রাম্পের মার-এ-লাগো এস্টেটে অভিযান চালায়। এরপর ট্রাম্পের অসংখ্য আইনি জটিলতাগুলো আবার লাইমলাইটে চলে আসে। এদিন ট্রুথ সোশ্যালে প্রায় চার মিনিটের একটি ভিডিও ক্লিপে বর্তমান প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ও তার প্রশাসনকে একহাত নেন খ্যাপাটে ট্রাম্প। আভাস দেন আগাম নির্বাচনে প্রতিযোগিতার।

এফবিআইয়ের দাবি, ২০২১ সালে হোয়াইট হাউস ছাড়ার সময় গোপনীয় কিছু তথ্য সঙ্গে করে নিয়ে গিয়েছিলেন ট্রাম্প। পর্যবেক্ষকরা বলছেন, যুক্তরাষ্ট্রের বিচার বিভাগ প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে ফৌজদারি অভিযোগের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে, এমন ধারণাই এখন স্পষ্ট।

ট্রাম্প জানান, আজ রাতে নিউ ইয়র্ক সিটিতে আছি। যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসের সর্বশ্রেষ্ঠ উইচ হান্টের ধারাবাহিকতার কারণে আগামীকাল বর্ণবাদী এনওয়াইএস অ্যাটর্নি জেনারেলের সঙ্গে দেখা হচ্ছে!

‘আমার বিশাল কোম্পানি এবং আমাকে চারদিক থেকে আক্রমণ করা হচ্ছে।’

চলতি বছরের মে মাসে অ্যাটর্নি জেনারেলের তদন্ত রাজনৈতিকভাবে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত জানিয়ে তদন্ত শেষ করতে ট্রাম্পের একটি মামলা খারিজ করেছিলেন এক বিচারক।

জেমস একজন ডেমোক্র্যাট, সোচ্চার ট্রাম্প সমালোচক। আদালতের ফাইলিংয়ে তিনি জানিয়েছেন, তার অফিস ট্রাম্পের বিরুদ্ধে উল্লেখযোগ্য প্রমাণ পেয়েছে। ট্রাম্পের কোম্পানি ‘লোন, বিমা কভারেজ এবং ট্যাক্সসহ প্রচুর অর্থনৈতিক সুবিধা পাওয়ার জন্য সম্পদের বিভ্রান্তিকর তথ্য দিয়েছেন। তাই তদন্তের মাধ্যমে জড়িত পক্ষের বিরুদ্ধে মামলাসহ আইনি ব্যবস্থা নেয়া যেতে পারে।

এর আগে ট্রাম্পের ছেলে ডনাল্ড জুনিয়র এবং ইভাঙ্কাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছিল। ট্রাম্পের সাক্ষ্য ম্যানহাটন জেলা অ্যাটর্নি অফিস ঘনিষ্ঠভাবে পর্যবেক্ষণ করবে বলে আশা করা হচ্ছে। এই অফিসও ট্রাম্প অর্গানাইজেশনের ব্যবসায়িক লেনদেনের বিষয়টি খতিয়ে দেখছে।

ম্যানহাটন ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নির তদন্তে ট্রাম্প অর্গানাইজেশন এবং ফিন্যান্স চিফ অ্যালেন ওয়েইসেলবার্গের বিরুদ্ধে কর জালিয়াতির অভিযোগ আছে। তবে তিন বছর ধরে চলা তদন্তটি যখন ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিযোগের দিকে মনোযোগী বলে মনে হচ্ছিল, তখন (জানুয়ারিতে) নতুন অ্যাটর্নি অ্যালভিন ব্র্যাগ দায়িত্ব নেন। এরপর তদন্তের গতি মূলত স্থবির হয়ে পড়ে।

তদন্তের একজন সাবেক প্রসিকিউটর তখন থেকে বলে আসছেন যে ব্র্যাগের ধারণা তারা যে প্রমাণ সংগ্রহ করেছিলেন, তার ভিত্তিতে সাবেক প্রেসিডেন্টকে অভিযুক্ত করা খুবই ঝুঁকিপূর্ণ।

এফবিআই এবং নিউ ইয়র্কে তদন্তের বাইরে জর্জিয়ায় ট্রাম্পের বিরুদ্ধে তদন্ত চলছে। ২০২০ সালের নির্বাচনে হারের পর রাজ্যের অ্যাটর্নি জেনারেলকে ভোটের জন্য চাপ দেয়ার ঘটনাটি নির্বাচনি জালিয়াতি বা অন্য কোনো অপরাধে পড়েছে কি না তা তদন্ত হচ্ছে জর্জিয়ায়।

এ ছাড়া ট্রাম্প এলি ম্যাগাজিনের সাবেক লেখক ই জিন ক্যারলের করা মানহানির মামলারও মুখোমুখি হয়েছেন। ১৯৯০-এর দশকে নিউ ইয়র্ক সিটির একটি ডিপার্টমেন্ট স্টোরে ক্যারলকে ট্রাম্প ধর্ষণ করেছিলেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

শুধু যে রাজ্যে রাজ্যে তদন্ত হচ্ছে তা না, কংগ্রেসের একটি প্যানেল গত বছরের ৬ জানুয়ারি ক্যাপিটল হিলে হামলার ঘটনায় ট্রাম্পের ভূমিকা খতিয়ে দেখছে।

আরও পড়ুন:
ক্যাপিটল হিলে দাঙ্গা: ‘অভ্যুত্থানচেষ্টা করেছিলেন ট্রাম্প’
ইউক্রেনকে সহায়তার আগে নিজেদের স্কুলের নিরাপত্তা দরকার: ট্রাম্প
মেক্সিকোতে হামলা চালাতে চেয়েছিলেন ট্রাম্প
অভিমানী ট্রাম্প ফিরবেন না টুইটারে
ন্যাটো-যুক্তরাষ্ট্র বেকুব, পুতিন স্মার্ট: ট্রাম্প

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
There is an attempt to brand us as corrupt the grassroots

আমাদের দুর্নীতিগ্রস্ত বলে দাগ লাগানোর চেষ্টা চলছে: তৃণমূল

আমাদের দুর্নীতিগ্রস্ত বলে দাগ লাগানোর চেষ্টা চলছে: তৃণমূল ছবি: সংগৃহীত
পশ্চিমবঙ্গের শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু সাংবাদিকদের বলেন, ‘গত দুদিন ধরে রাজ্যে সবচেয়ে আলোচনার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে তৃণমূলের ১৯ নেতা মন্ত্রীর সম্পত্তি বৃদ্ধি এবং জনস্বার্থ মামলা। আদালতের রায় নিয়ে কিছু বলার নেই। আইন আইনের মতো চলবে।’

সম্পত্তি বৃদ্ধি মামলায় বিরোধীদের বিরুদ্ধে পাল্টা দুর্নীতিগ্রস্ত বলে অভিযোগ তুলেছেন শাসক দল তৃণমূলের নেতা ও মন্ত্রীরা।

তৃণমূল বলছে, ‘আমাদের কোন লুকোচাপা নেই। তবু দুর্নীতিগ্রস্ত বলে দাগ লাগানোর চেষ্টা করছে বিরোধীরা।’

বুধবার বিধানসভায় ডাকা তৃণমূলের সংবাদ সম্মেলনে ব্রাত্য বসু, ফিরহাদ হাকিম, মলয় ঘটক, অরূপ রায়, শিউলি সাহা, জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক ও অন্যান্য নেতৃবৃন্দ সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে বিরোধীদের বিরুদ্ধে পাল্টা অভিযোগ করেন।

এ দিন পশ্চিমবঙ্গের শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু সাংবাদিকদের বলেন, ‘গত দুদিন ধরে রাজ্যে সবচেয়ে আলোচনার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে তৃণমূলের ১৯ নেতা মন্ত্রীর সম্পত্তি বৃদ্ধি এবং জনস্বার্থ মামলা। আদালতের রায় নিয়ে কিছু বলার নেই। আইন আইনের মতো চলবে।’

এ দিন ব্রাত্য বলেন, 'সম্পত্তি বৃদ্ধি পেয়েছে অধীর রঞ্জন চৌধুরী, সূর্যকান্ত মিশ্র, অশোক ভট্টাচার্য, আবু হেনা, কান্তি গঙ্গোপাধ্যায়, নেপাল মাহাতো, ধীরেন বাগদি সহ একাধিক ব্যক্তির। তালিকায় তাদের নামও রয়েছে। সেগুলো নিয়ে কোন চর্চা হচ্ছে না কেন ? একটা ধারণা তৈরি করার চেষ্টা করা হচ্ছে, তৃণমূলই কেবল দুর্নীতিগ্রস্ত।’

অন্যদিকে ফিরহাদ হাকিম বলেন, 'নির্বাচনী হলফনামায় আয়-ব্যয়ের সমস্ত হিসাব দিয়েছি । আয়কর দপ্তর কোন পদক্ষেপ করেনি। রোজগার করা, সম্পত্তি বাড়ানো কোন অন্যায় নয়। এটা জনস্বার্থ মামলা নয়, রাজনৈতিক স্বার্থে করা মামলা।'

২০১১ সাল থেকে তৃণমূলের নেতা মন্ত্রীদের নির্বাচন কমিশনের হলফনামায় দেয়া সম্পত্তির পরিমাণ বহুগুণ বেড়েছে। ২০১৭ সালে এ বিষয়ে বিপ্লব কুমার চৌধুরী ও অনিন্দ্য সুন্দর দাস নামে দুই ব্যক্তি কলকাতা হাইকোর্টে একটি জনস্বার্থ মামলা করেন। এই মামলায় ফিরহাদ হাকিম, মলয় ঘটক, জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক, অরূপ রায়, ব্রাত্য বসু, জাভেদ খান, শিউলি সাহা ও অন্যান্য নেতা মন্ত্রীদের নাম রয়েছে।

আরও পড়ুন:
বোরোলিন নিয়ে চলি: কুনাল ঘোষ
জেল হেফাজতে পার্থ-অর্পিতা
আগামী লোকসভা নির্বাচনে ভেসে যাবে বিজেপি: মমতা
ভারতের উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচনে ভোট দেবে না তৃণমূল
ত্রিপুরায় তৃণমূলের নতুন কমিটি

মন্তব্য

p
উপরে