আফগানিস্তানকে ১০০ কোটি ইউরোর ত্রাণ দেবে ইইউ

আফগানিস্তানকে ১০০ কোটি ইউরোর ত্রাণ দেবে ইইউ

কাবুলে ত্রাণের খাবার গ্রহণের সময় আফগান শরণার্থীদের ভিড়। ফাইল ছবি

এই সহায়তা সরাসরি বেসামরিক আফগানদের কাছে পৌঁছানো হবে। শাসকদল তালেবানের মাধ্যমে নয়, বরং সহায়তা পৌঁছাতে আফগানিস্তানে মাঠপর্যায়ে কাজ করবে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংগঠন।

আফগানিস্তানের জন্য সহায়তা হিসেবে ১০০ কোটি ইউরোর ত্রাণ তহবিল ঘোষণা করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)।

জোটের প্রধান উরসুলা ভন ডার লিয়েন মঙ্গলবার বলেন, ‘আফগানিস্তানে আর্থ-সামাজিক ও মানবিক বিপর্যয় এড়াতে এ পদক্ষেপ নিয়েছে ইইউ।’

আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়, এর আগেও আফগানিস্তানকে জরুরি সহায়তার জন্য ৩০ কোটি ইউরো দেয়ার আশ্বাস দিয়েছিল ইইউ। নতুন ঘোষণার ফলে ওই অর্থের সঙ্গে যোগ হবে আরও ১০০ কোটি ইউরো।

জি-টোয়েন্টি জোটের ভার্চুয়াল শীর্ষ সম্মেলনে এসব কথা জানান ইইউ-প্রধান। ইতালি আয়োজন করে এ সম্মেলনের। জোটের সদস্য দেশগুলোর মধ্যে আছে যুক্তরাষ্ট্র, ইইউ, চীন, তুরস্ক, রাশিয়া, ভারত ও সৌদি আরবসহ বিভিন্ন দেশ। এর আগে আগস্টে ইতালির প্রধানমন্ত্রী মারিও দ্রাঘির চাপে আফগানিস্তান ইস্যুতে বৈঠক করে জি-সেভেন জোট।

ইইউ-প্রধান জানিয়েছেন, এই সহায়তা সরাসরি বেসামরিক আফগানদের কাছে পৌঁছানো হবে। শাসকদল তালেবানের মাধ্যমে নয়, বরং সহায়তা পৌঁছাতে আফগানিস্তানে মাঠপর্যায়ে কাজ করবে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংগঠন। আফগানিস্তানের সরকার হিসেবে ইইউ বা পশ্চিমা দেশগুলোর স্বীকৃতি পায়নি তালেবান।

আফগানিস্তানের জন্য সরকারিভাবে এত দিন ইইউ যে উন্নয়নমূলক সহায়তা দিত, তার পুরোটাই এখনও স্থগিত আছে।

জোটে আফগান আশ্রয়প্রার্থীর আবেদন বাড়তে থাকায় ২০১৫ সালের মতো শরণার্থী সংকট দেখা দিতে পারে বলে উদ্বিগ্ন ইইউভুক্ত দেশগুলো।

আরও পড়ুন:
আফগানিস্তান ছাড়লেন বাইডেনকে বাঁচানো দোভাষী
জি ২০ সম্মেলনে প্রাধান্য পাবে আফগানিস্তান ইস্যু
নারীদের নিয়ে তালেবানের অঙ্গীকার ভঙ্গে ক্ষুব্ধ জাতিসংঘ
এবার ইইউর সঙ্গে বৈঠক তালেবানের
বিশ্বকাপ খেলতে বাধা নেই আফগানিস্তানের

শেয়ার করুন

মন্তব্য

ধর্ষণের পর হত্যা মামলায় ‘ধর্মগুরু’ রাম রহিমের যাবজ্জীবন

ধর্ষণের পর হত্যা মামলায় ‘ধর্মগুরু’ রাম রহিমের যাবজ্জীবন

ভারতের কথিত ধর্মগুরু গুরমিত রাম রহিম সিংয়ের বিরুদ্ধে হত্যা-ধর্ষণসহ বিভিন্ন অভিযোগ প্রমাণিত। ছবি: ডেরা সাচ্চা সওদা

প্রায় ২০ বছর আগে রঞ্জিত সিংকে গুলি করে হত্যা করা হয়। ২০০২ সালে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত রাম রহিমের আশ্রমের ব্যবস্থাপক ও তার অনুসারী ছিলেন রঞ্জিত। রাম রহিম নিজের যৌন লালসা চরিতার্থ করতে কীভাবে নারীদের অসহায়ত্বের সুযোগ নেন, সে বর্ণনা সম্বলিত একটি বেনামী চিঠি ছড়িয়েছিল সে সময়। সিবিআইয়ের অভিযোগপত্রে বলা হয়, চিঠিটি রঞ্জিত লিখেছেন বলে সন্দেহের বশবর্তী হয়ে তাকে হত্যার পরিকল্পনা করেন ও নির্দেশ দিয়েছিলেন রাম রহিম নিজেই।

হত্যা মামলায় ভারতের কথিত ধর্মগুরু গুরমিত রাম রহিম সিংসহ পাঁচজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে হরিয়ানার একটি আদালত।

এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়, রাম রহিমের আশ্রম ডেরা সাচ্চা সওদার ব্যবস্থাপক রঞ্জিত সিং হত্যার মামলায় সোমবার রায় দেয় আদালত। রায়ে সাজা দেয়া হয় ডেরার প্রধান রাম রহিম ও তার আরও চার সহযোগীকে।

দণ্ডপ্রাপ্ত বাকিরা হলেন কৃষাণ লাল, জসবীর সিং, অবতার সিং ও সাবদিল।

রাম রহিমকে ভারতীয় মুদ্রায় ৩১ লাখ রুপি জরিমানাও করেছে আদালত। সাজাপ্রাপ্ত বাকিদের মধ্যে সাবদিলকে দেড় লাখ, কৃষাণ ও জসবীরের প্রত্যেককে সোয়া এক লাখ করে এবং অবতারকে ৭৫ হাজার রুপি অর্থদণ্ড দেয়া হয়েছে।

জরিমানা বাবদ আদায়কৃত অর্থের অর্ধেক পাবে নিহত রঞ্জিত সিংয়ের পরিবার।

প্রায় ২০ বছর আগে রঞ্জিত সিংকে গুলি করে হত্যা করা হয়। ২০০২ সালে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত রাম রহিমের আশ্রমের ব্যবস্থাপক ও তার অনুসারী ছিলেন রঞ্জিত।

রাম রহিম নিজের যৌন লালসা চরিতার্থ করতে কীভাবে নারীদের অসহায়ত্বের সুযোগ নেন, সে বর্ণনা সম্বলিত একটি বেনামী চিঠি ছড়িয়েছিল সে সময়।

সিবিআইয়ের অভিযোগপত্রে বলা হয়, চিঠিটি রঞ্জিত লিখেছেন বলে সন্দেহের বশবর্তী হয়ে তাকে হত্যার পরিকল্পনা করেন ও নির্দেশ দিয়েছিলেন রাম রহিম নিজেই।

চলতি মাসের শুরুতে হরিয়ানার পাঞ্চকুলায় কেন্দ্রীয় তদন্ত ব্যুরোর (সিবিআই) একটি বিশেষ আদালত অভিযুক্ত পাঁচজনের সবাইকে দোষী সাব্যস্ত করে। এ মামলায় অভিযুক্ত ষষ্ঠজনের গত বছর মৃত্যু হয়েছে।

হরিয়ানার রোহটাক জেলার সুনায়রা কারাগারে ২০১৭ সাল থেকে বন্দি আছেন ৫৪ বছর বয়সী রাম রহিম। দুই অনুসারীকে ধর্ষণের অপরাধে ২০ বছরের সাজা ভোগ করছেন তিনি। সোমবারের রায় শুনানিতে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অংশ নেন তিনি; আদালতে উপস্থিত ছিলেন বাকি চার অপরাধী।

আদালতের রায় সামনে রেখে নাশকতার আশঙ্কায় পাঞ্চকুলা ও সির্সা জেলায় কঠোর নিরাপত্তা জারি করে পুলিশ। সির্সা জেলায় রাম রহিমের আশ্রম ডেরা সাচ্চা সওদার প্রধান কার্যালয় অবস্থিত বলে সেখানে তার সমর্থক ও ভক্তরা সহিংস হয়ে উঠতে পারে বলে শঙ্কা প্রশাসনের।

২০১৭ সালে রাম রহিমের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলার রায় ঘোষণার জেরে সহিংসতায় অচল হয়ে পড়েছিল হরিয়ানা ও পাঞ্জাব রাজ্য। হরিয়ানায় সংঘাতে নিহত হয়েছিল কমপক্ষে ৩৬ জনের, আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ ১১৮ কোটি রুপি।

ধর্ষণের অপরাধে ২০ বছরের কারাদণ্ডের পাশাপাশি সাংবাদিক রাম চন্দ্র ছত্রপতি হত্যার ঘটনাতেও যাবজ্জীবন দেয়া হয়েছে রাম রহিমকে।

আরও পড়ুন:
আফগানিস্তান ছাড়লেন বাইডেনকে বাঁচানো দোভাষী
জি ২০ সম্মেলনে প্রাধান্য পাবে আফগানিস্তান ইস্যু
নারীদের নিয়ে তালেবানের অঙ্গীকার ভঙ্গে ক্ষুব্ধ জাতিসংঘ
এবার ইইউর সঙ্গে বৈঠক তালেবানের
বিশ্বকাপ খেলতে বাধা নেই আফগানিস্তানের

শেয়ার করুন

মিয়ানমারে ৫,৬৩৬ অভ্যুত্থানবিরোধীকে মুক্তি দেবে সেনাবাহিনী

মিয়ানমারে ৫,৬৩৬ অভ্যুত্থানবিরোধীকে মুক্তি দেবে সেনাবাহিনী

মিয়ানমারের সেনাপ্রধান জেনারেল মিন অং হ্লাইং। ফাইল ছবি

এএপিপির তথ্য অনুযায়ী, এখনও মিয়ানমারের বিভিন্ন কারাগারে বন্দি প্রায় সাড়ে সাত হাজার বিক্ষোভকারী। তাদের মধ্যে আছেন যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক এক সাংবাদিক ড্যানি ফেনস্টারও। ২৪ মে গ্রেপ্তার করা হয় তাকে।

মিয়ানমারে সামরিক অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করায় গ্রেপ্তার পাঁচ হাজার ৬৩৬ জনকে মুক্তি দেবে সেনাবাহিনী। ফেব্রুয়ারির ওই অভ্যুত্থানে ক্ষমতাচ্যুত হয় দেশটির বেসামরিক সরকার।

টার্কিশ রেডিও অ্যান্ড টেলিভিশনের (টিআরটি) প্রতিবেদনে বলা হয়, সামনেই মিয়ানমারের ঐতিহ্যবাহী থাডিংইয়ুৎ ফেস্টিভ্যাল বা আলোকোৎসব। দিবসটি সামনে রেখে এ বিপুলসংখ্যক বন্দিকে মুক্তি দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে দেশটির সামরিক শাসকদলের প্রধান জেনারেল মিন অং হ্লাইং।

বার্মিজ চন্দ্র বর্ষপঞ্জিতে থাডিংইয়ুৎ মাসে পূর্ণিমার দিন আলোকোৎসব উদযাপন করে মিয়ানমার। এ বছর ২০ অক্টোবর, অর্থাৎ দুইদিন পরই হবে উৎসবটি।

বুধবারের উৎসব উপলক্ষে মুক্তি পেতে যাওয়া বন্দিদের কারা অগ্রাধিকার পাবে, সে বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানাননি মিয়ানমারের সেনাপ্রধান।

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর জোট আসিয়ান মিয়ানমারের সেনাপ্রধানকে বাদ দিয়েই শীর্ষ সম্মেলন আয়োজনের সিদ্ধান্ত নেয়ার পর আসে মিন অং হ্লাইংয়ের এ ঘোষণা। দেশের রাজনীতিতে রক্তক্ষয়ী অচলাবস্থা নিয়ন্ত্রণের প্রতিশ্রুতি পালনে ব্যর্থতার অভিযোগে জান্তা সরকারের বিরুদ্ধে এ সিদ্ধান্ত নেয় আঞ্চলিক জোটটি।

১ ফেব্রুয়ারির সেনা অভ্যুত্থানের পর থেকেই অরাজক পরিস্থিতি চলছে মিয়ানমারে। গণতান্ত্রিক সরকারকে ক্ষমতা ফিরিয়ে দেয়ার দাবিতে হওয়া বিক্ষোভ দমনে শক্তি প্রয়োগ করে সেনাবাহিনী, যাতে নিহত হয় প্রায় এক হাজার ২০০ জন বেসামরিক মানুষ।

স্থানীয় পর্যবেক্ষক সংস্থা অ্যাসিস্ট্যান্স অ্যাসোসিয়েশন ফর পলিটিক্যাল প্রিজনার্সের (এএপিপি) তথ্য অনুযায়ী, সেনা অভ্যুত্থানের বিরোধিতা করায় ফেব্রুয়ারি থেকে নয় হাজারের বেশি বিক্ষোভকারীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

চলতি বছরের জুলাইয়ে মিয়ানমারের বিভিন্ন কারাগার থেকে দুই হাজার বিক্ষোভকারীকে মুক্তি দেয়া হয়। মুক্তিপ্রাপ্তদের মধ্যে সামরিক সরকারের সমালোচক অনেক সংবাদকর্মীও ছিলেন।

এএপিপির তথ্য অনুযায়ী, এখনও মিয়ানমারের বিভিন্ন কারাগারে বন্দি প্রায় সাড়ে সাত হাজার বিক্ষোভকারী। তাদের মধ্যে আছেন যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক এক সাংবাদিক ড্যানি ফেনস্টারও। ২৪ মে গ্রেপ্তার করা হয় তাকে।

আরও পড়ুন:
আফগানিস্তান ছাড়লেন বাইডেনকে বাঁচানো দোভাষী
জি ২০ সম্মেলনে প্রাধান্য পাবে আফগানিস্তান ইস্যু
নারীদের নিয়ে তালেবানের অঙ্গীকার ভঙ্গে ক্ষুব্ধ জাতিসংঘ
এবার ইইউর সঙ্গে বৈঠক তালেবানের
বিশ্বকাপ খেলতে বাধা নেই আফগানিস্তানের

শেয়ার করুন

দিল্লিতে এক দশকে রেকর্ড বৃষ্টি

দিল্লিতে এক দশকে রেকর্ড বৃষ্টি

ভারী বৃষ্টিতে ভারতের রাজধানী দিল্লিতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। ছবি: হিন্দুস্তান টাইমস

রোববার থেকে সোমবার ভোর সাড়ে ৫টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় সফদারজংয়ে ৮৫ মিলিমিটার ও পালামে ৫৫ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়। এক দশকে এটাই সর্বোচ্চ। এর আগে ১৯৫৪ সালে দিল্লিতে ১৭২.৭ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়।

ভারতের রাজধানী দিল্লি ও এর আশপাশের এলাকায় ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড বৃষ্টি হয়েছে। এক দশকে এত বেশি বৃষ্টি এর আগে দেখেনি রাজধানীবাসী। সোমবার আরও বৃষ্টি হতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া দপ্তর।

রাতভর টানা কয়েক ঘণ্টার প্রবল বর্ষণে দিল্লির বেশ কয়েকটি অঞ্চলে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। এ কারণে সোমবার সকাল থেকে সড়কে যান চলাচলে ছিল ধীরগতি। কয়েকটি এলাকার রাস্তা বন্ধ করে দেয় ট্রাফিক পুলিশ।

এনডিটিভির প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

ভারতের বেসরকারি আবহাওয়া পূর্বাভাস সংস্থা স্কাইমেট ওয়েদার সার্ভিসের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, দিল্লির দক্ষিণাঞ্চলীয় সফদারজং এলাকায় ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড বৃষ্টি হয়েছে।

রোববার থেকে সোমবার ভোর সাড়ে ৫টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় সফদারজংয়ে ৮৫ মিলিমিটার ও পালামে ৫৫ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়। এক দশকে এটাই সর্বোচ্চ। এর আগে ১৯৫৪ সালে দিল্লিতে ১৭২.৭ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়।

আগামী দুই ঘণ্টায় দিল্লি ছাড়াও নয়ডা, গাজিয়াবাদ, বৃহত্তর নয়ডা, বারাউত, আগ্রা, হাথরাস, সনিপাত, গানাউর, গোহানা, সোহানা, ঝুনঝুনু ও পিলানি শহরে অল্প বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছে ভারতের আবহাওয়া দপ্তর (আইএমডি)।

দিল্লি ট্রাফিক পুলিশ জানিয়েছে, পুলপ্রহলাদপুর আন্ডারপাসে ভারি বর্ষণে সৃষ্ট জলাবদ্ধতার কারণে এমবি রোড বন্ধ করা হয়েছে।

রোববারের ভারি বৃষ্টিতেও দিল্লির বেশ কয়েকটি এলাকায় জলাবদ্ধতা ও যানজটের সৃষ্টি হয়।

ওই দিন দিল্লির সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

আরও পড়ুন:
আফগানিস্তান ছাড়লেন বাইডেনকে বাঁচানো দোভাষী
জি ২০ সম্মেলনে প্রাধান্য পাবে আফগানিস্তান ইস্যু
নারীদের নিয়ে তালেবানের অঙ্গীকার ভঙ্গে ক্ষুব্ধ জাতিসংঘ
এবার ইইউর সঙ্গে বৈঠক তালেবানের
বিশ্বকাপ খেলতে বাধা নেই আফগানিস্তানের

শেয়ার করুন

বেসামরিক হত্যায় কাশ্মীরি জড়িত নয়: ফারুক আব্দুল্লাহ

বেসামরিক হত্যায় কাশ্মীরি জড়িত নয়: ফারুক আব্দুল্লাহ

কাশ্মীরে বেসামরিক নাগরিক হত্যায় কাশ্মীরিদের সংশ্লিষ্টতা নেই বলে জানান জম্মু-কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ফারুক আব্দুল্লাহ। ছবি: আউটলুক

জম্মু-কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ফারুক আব্দুল্লাহ বলেন, ‘সাম্প্রতিক এসব হত্যা দুঃখজনক। চক্রান্ত করে এসব ঘটানো হয়েছে। কাশ্মীরের সাধারণ জনগণ কোনোভাবেই এসব হামলায় জড়িত নয়।’

কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল জম্মু-কাশ্মীরে বেসামরিক নাগরিক হত্যায় কাশ্মীরের সাধারণ মানুষ জড়িত নয় বলে মন্তব্য করেছেন স্থানীয় রাজনৈতিক দল ন্যাশনাল কনফারেন্সের (জেকেএনসি) প্রেসিডেন্ট ও সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ফারুক আব্দুল্লাহ।

কাশ্মীরিদের নামে কুৎসা রটাতে ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে সাম্প্রতিক হামলাগুলো চালানো হয় বলেও জানান তিনি।

কাশ্মীরের বর্ষীয়ান নেতা ফারুক রোববার সাংবাদিকদের কাছে এসব মন্তব্য করেন বলে এনডিটিভির প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

ফারুক আব্দুল্লাহ বলেন, ‘কেন্দ্রশাসিত জম্মু-কাশ্মীরের শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বিনষ্ট করার চেষ্টার লক্ষ্যে সম্প্রতি এই হামলাগুলো হয়।’

তিনি বলেন, ‘সাম্প্রতিক এসব হত্যা দুঃখজনক। চক্রান্ত করে এসব ঘটানো হয়েছে। কাশ্মীরের সাধারণ জনগণ কোনোভাবেই এসব হামলায় জড়িত নয়।’

শনিবার জম্মু-কাশ্মীরের শ্রীনগর ও পুলওয়ামা জেলায় সন্ত্রাসীদের গুলিতে বিহারের দুই শ্রমিক নিহত হন।

কাশ্মীরে ২ অক্টোবর থেকে ৮ অক্টোবর পর্যন্ত পৃথক ঘটনায় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের চার সদস্যসহ ১১ বেসামরিক নাগরিক সন্ত্রাসী হামলায় প্রাণ হারান।

ওই সব ঘটনায় কাশ্মীরজুড়ে জনমনে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে জাতীয় নিরাপত্তা বিষয়ে উপদেষ্টা পর্যায়ের বৈঠক বিষয়ে ফারুক জানান, দুই দেশের বন্দুত্বপূর্ণ সম্পর্ক প্রতিষ্ঠায় যেকোনো উদ্যোগকে স্বাগতম।

তিনি বলেন, ‘ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে যাতে মৈত্রীর সম্পর্ক গড়ে ওঠে, আমাদের তা প্রার্থনা ও আশা করা উচিত। এটি হলে আমরা শান্তিতে বসবাস করতে পারব।’

জি নিউজের প্রতিবেদনে বলা হয়, চলতি বছরে জম্মু ও কাশ্মীরে সন্ত্রাসী হামলায় ৩০ জন বেসামরিক নাগরিকের মৃত্যু হয়।

সাম্প্রতিক হামলার পর জম্মু-কাশ্মীরজুড়ে এখন পর্যন্ত ‘বিচ্ছিন্নতাবাদী’ সন্দেহে প্রায় ৯০০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে ভারতীয় পুলিশ।

পাশাপাশি সন্ত্রাসবাদবিরোধী অভিযান জোরদার করেছে ভারতের নিরাপত্তা বাহিনী। পুলিশের ভাষ্য, গত এক সপ্তাহে ১৪ জন ‘সন্ত্রাসীকে’ হত্যা করা হয়েছে।

পুলিশের মহাপরিদর্শক বিজয় কুমার বলেন, ‘বেসামরিক নাগরিকের প্রাণহানির পর ১৩ সন্ত্রাসী পুলিশের সঙ্গে ৯টি সংঘর্ষে মারা গেছে। আমরা ২৪ ঘণ্টারও কম সময়ে শ্রীনগরে পাঁচ সন্ত্রাসীর মধ্যে তিনজনকে হত্যা করতে সক্ষম হই।’

আরও পড়ুন:
আফগানিস্তান ছাড়লেন বাইডেনকে বাঁচানো দোভাষী
জি ২০ সম্মেলনে প্রাধান্য পাবে আফগানিস্তান ইস্যু
নারীদের নিয়ে তালেবানের অঙ্গীকার ভঙ্গে ক্ষুব্ধ জাতিসংঘ
এবার ইইউর সঙ্গে বৈঠক তালেবানের
বিশ্বকাপ খেলতে বাধা নেই আফগানিস্তানের

শেয়ার করুন

আইএমএফের পরামর্শে পেট্রলের দাম বাড়েনি: পাকিস্তান

আইএমএফের পরামর্শে পেট্রলের দাম বাড়েনি: পাকিস্তান

পেট্রোল-ডিজেলের দাম বাড়ার সঙ্গে আইএমএফের সঙ্গে চলমান আলোচনার সম্পর্ক নেই বলে জানান পাকিস্তানের অর্থমন্ত্রী শওকত তারিন। ছবি: দ্য নেশন

পাকিস্তানের অর্থমন্ত্রী শওকত তারিন বলেন, ‘আন্তর্জাতিক বাজারে গ্যাসের উচ্চ মূল্যবৃদ্ধি পেট্রোলিয়ামজাতীয় পণ্যের মূল্য বাড়াতে পাকিস্তান সরকারকে বাধ্য করেছে।’

ঋণসুবিধা ফের পাওয়ার বিষয়ে আন্তর্জাতিক মুদ্র্রা তহবিল (আইএমএফ) ও পাকিস্তানের চলমান আলোচনার সঙ্গে সাম্প্রতিক পেট্রল-ডিজেলের দাম বাড়ার কোনো সম্পৃক্ততা নেই বলে মন্তব্য করেছেন দেশটির অর্থমন্ত্রী শওকত তারিন।

ওয়াশিংটনে স্থানীয় সময় শনিবার সন্ধ্যায় পাকিস্তানি দূতাবাসে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন বলে ডনের প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

তারিন বলেন, ‘আন্তর্জাতিক বাজারে গ্যাসের উচ্চ মূল্যবৃদ্ধি পেট্রোলিয়াম জাতীয় পণ্যের মূল্য বাড়াতে পাকিস্তান সরকারকে বাধ্য করেছে।’

শনিবার পেট্রল, ডিজেলসহ পেট্রোলিয়ামজাতীয় পণ্যের মূল্যবৃদ্ধি সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি দেয় পাকিস্তানের অর্থ মন্ত্রণালয়।

এতে বলা হয়, প্রতি ব্যারেল জ্বালানি তেলের মূল্য প্রায় ৮৫ ডলার বাড়ানো হয়েছে। ২০১৮ সালের অক্টোবরের পর এটাই সর্বোচ্চ বৃদ্ধি।

ওই বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, শনিবার থেকে পাকিস্তানিদের এক লিটার পেট্রল ১৩৭ দশমিক ৭৯ রুপি, প্রতি লিটার ডিজেল ১৩৪ দশমিক ৪৮ রুপি ও প্রতি লিটার কেরোসিন ১১০ দশমিক ২৬ রুপিতে কিনতে হচ্ছে।

পেট্রোলিয়ামজাতীয় পণ্যের এত চড়া দাম এর আগে দেখেনি পাকিস্তান।

এদিকে পেট্রল, ডিজেল ও কেরোসিনের উচ্চমূল্যে ক্ষুব্ধ পাকিস্তানের বিরোধী দল থেকে শুরু করে সাধারণ জনগণ। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের নেতৃত্বাধীন সরকার আইএমএফকে খুশি করতে এ পদক্ষেপ নিয়েছে বলে সমালোচনা অনেকের।

ওই সমালোচনা প্রত্যাখ্যান করে পাকিস্তানের অর্থমন্ত্রী তারিন বলেন, ‘সরকার বুঝতে পেরেছে, কাঠামোগত পরিবর্তন ছাড়া শুল্ক বাড়ালে মূল্যস্ফীতি বাড়বে।’

অবশ্য পাকিস্তানের সঙ্গে আইএমএফের আলোচনায় সংস্থাটির পরামর্শ বিবেচনা করার কথা স্বীকার করেছেন অর্থমন্ত্রী তারিন। মূল্যস্ফীতির বিষয়ে সংস্থাটির সঙ্গে কিছু কথাবার্তা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

তারিন বলেন, ‘আমরা ধীরে ধীরে বিভিন্ন খাতে শুল্ক বাড়াব, যাতে মূল্যস্ফীতি এক লাফে না বাড়ে।’

২০১৯ সালের জুলাইয়ে এক্সটেন্ডেড ফান্ড ফেসিলিটির আওতায় পাকিস্তানের অর্থনৈতিক সংস্কার কর্মসূচিতে দেশটিকে ছয় বিলিয়ন ডলার ঋণ দিতে রাজি হয় আইএমএফ। ওই অর্থ ৩৯ মাস ধরে ধাপে ধাপে দেয়ার কথা থাকলেও দেশটিকে নতুন কিস্তি দিচ্ছে না সংস্থাটি।

ওয়াশিংটনে অবস্থানকালে ঋণসুবিধা ফের পাওযার বিষয়ে আইএমএফ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বেশ কয়েকবার বৈঠক করেন পাকিস্তানের অর্থমন্ত্রী তারিন।

অর্থমন্ত্রী ওয়াশিংটন থেকে নিউ ইয়র্কে যাওয়ার পর তার অর্থসচিব আইএমএফের সঙ্গে আলোচনা জারি রেখেছেন।

পেট্রোলিয়ামজাতীয় পণ্যের মূল্য না বাড়াতে শনিবার পাকিস্তান সরকারের প্রতি আহ্বান জানান পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) নেতা ও সিনেটের সাবেক চেয়ারম্যান মিঞা রেজা রাব্বানি।

তিনি বলেন, ‘চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে প্রতি লিটার পেট্রলের মূল্য ৯ রুপি বাড়ানো হয়। নিত্যপ্রয়োজনীয় সব দ্রব্যের দাম এখন সর্বোচ্চ। পেট্রলের মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্ত সরকারকে দ্রুত বাতিল করতে হবে।’

রাব্বানি বলেন, ‘পেট্রোলিয়ামজাতীয় পণ্যের বর্ধিত মূল্য জনসাধারণ পরিশোধ করতে হিমশিম খাবে। সরকারে থাকা অভিজাত শ্রেণির জনগণকে আত্মহত্যা বা বিদ্রোহের দিকে ঠেলে দিচ্ছে।

‘আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) দাবি মেনে সরকার বিদ্যুৎ শুল্ক প্রতি ইউনিটে ১.৩৯ রুপি বাড়িয়েছে। বিদ্যুতের ওপর ৭৭ বিলিয়ন রুপি ভর্তুকি বাতিলের পর ওই শুল্ক এ পরিমাণে বাড়ানো হয়। সরকারের এই পদক্ষেপের নিন্দা জানাচ্ছে পিপিপি।’

পিপিপির এই নেতা জানান, রান্নার তেল ও ঘি ৪০ শতাংশ বাড়িয়েছে সরকার। এখন প্রতি কেজি রান্নার তেল ও ঘিয়ের মূল্য যথাক্রমে ৩৯৯ ও ৪০৯ রুপি। টম্যাটো, আলু, খাসির মাংস, এলপিজিসহ ২২টি নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রীর মূল্য সম্প্রতি অনেক বেড়েছে।

রাব্বানি দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, ‘গত কয়েক দিন মার্কিন ডলারের মান রেকর্ড পরিমাণ বেড়েছে। ঋণের কারণে পণ্যের ওপর আরও কর বসাতে সরকারের ওপর চাপ দিচ্ছে আইএমএফ।’

এ ছাড়া পেট্রোলিয়ামজাতীয় পণ্যের মূল্যবৃদ্ধির নিন্দা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী ইমরানের পদত্যাগ দাবি করেন বিরোধী দল পাকিস্তান মুসলিম লিগের (পিএমএল-এন) প্রেসিডেন্ট শেহবাজ শরীফ।

তিনি বলেন, “বিদ্যুৎ শুল্ক ১৪ শতাংশ বৃদ্ধির পর জনগণের ওপর ‘পেট্রলবোমা’ ‘মিনি বাজেটের’ ধারাবাহিকতা।

"প্রধানমন্ত্রী ইমরানের ক্ষমতায় থাকার কোনো অধিকার নেই। তার পদত্যাগ জাতিকে কিছুটা হলেও স্বস্তি দেবে। ‘মিনি বাজেট’ বর্তমান সরকারের অর্থনৈতিক ব্যর্থতার প্রমাণ।”

আরও পড়ুন:
আফগানিস্তান ছাড়লেন বাইডেনকে বাঁচানো দোভাষী
জি ২০ সম্মেলনে প্রাধান্য পাবে আফগানিস্তান ইস্যু
নারীদের নিয়ে তালেবানের অঙ্গীকার ভঙ্গে ক্ষুব্ধ জাতিসংঘ
এবার ইইউর সঙ্গে বৈঠক তালেবানের
বিশ্বকাপ খেলতে বাধা নেই আফগানিস্তানের

শেয়ার করুন

আফগানিস্তান ইস্যুতে ভারতে এনএসএ পর্যায়ের বৈঠক

আফগানিস্তান ইস্যুতে ভারতে এনএসএ পর্যায়ের বৈঠক

ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল। ছবি: সংগৃহীত

তুঙ্গে থাকা সীমান্ত অস্থিরতার পাশাপাশি বারবার জঙ্গি অনুপ্রবেশের খবরের মধ্যে ভারতের এই উদ্যোগ খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করছে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। তারা বলছে, বৈঠকে মানবাধিকার ও নিরাপত্তা- এই দুটি বিষয়কেই প্রাধান্য দেয়া হবে বৈঠকে।

আফগানিস্তান ইস্যু নিয়ে এবার ভারতের দিল্লিতে জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টাদের (এনএসএ) বৈঠকের আয়োজন করছে দেশটি।

আগামী ১০ অথবা ১১ নভেম্বর বৈঠকের দিন নির্ধারণের প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। বৈঠকে চীন, রাশিয়া ও পাকিস্তানকে আমন্ত্রণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

পাকিস্তানের পররাষ্ট্র সূত্র আমন্ত্রণের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। দেশটির জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা মঈদ ইউসুফ বৈঠকে উপস্থিতি হলে দিল্লিতে এটি হবে তার প্রথম সরকারি সফর।

ভারতীয় এনএসএ অজিত দোভাল এবং পাকিস্তানি এনএসএ মঈদ ইউসুফ বছরের শুরুতে সাংহাই কোঅপারেশন অর্গানাইজেশন (এসসিও) এনএসএ বৈঠকে তাজিকিস্তানের দুশানবে গেলেও তারা দ্বিপক্ষীয় কোনো বৈঠক করেননি।

এদিকে তুঙ্গে থাকা সীমান্ত অস্থিরতার পাশাপাশি বারবার জঙ্গি অনুপ্রবেশের খবরের মধ্যে ভারতের এই উদ্যোগ খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করছে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। তারা বলছে, বৈঠকে মানবাধিকার ও নিরাপত্তা- এই দুটি বিষয়কেই প্রাধান্য দেয়া হবে বৈঠকে। এর আগে আগামী ২০ অক্টোবর রাশিয়ার মস্কোতে আয়োজিত মস্কো ফরম্যাট মিটিংয়ে যোগ দেবে ভারত। আফগানিস্তান নিয়ে আলোচনা হবে সেখানেও।

ভারতে এনএসএ বৈঠক নিয়ে সরকারি সূত্র জানায়, আফগানিস্তানের বর্তমান পরিস্থিতি আশঙ্কাজনক। পাশাপাশি শীতের শুরুর সঙ্গে সঙ্গে সেখানকার মানবিক পরিস্থিতির অবনতি নিয়ে উদ্বেগ বেড়ে যাওয়ার কারণে বৈঠকের প্রস্তাব আসে।

তালেবানের কাবুল দখলের প্রায় দুই মাস কেটে গেছে। এরই মধ্যে তালেবান সরকার তাদের স্বীকৃতি ও বৈধতার জন্য কাতার, তুরস্ক এবং উজবেকিস্তান সফর করেছে। যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সঙ্গে তারা বৈঠকও করেছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত বিশ্বের কোনো দেশ সরকারিভাবে তাদের স্বীকৃতি দানের কোনো ইঙ্গিত দেয়নি।

গত ৩১ আগস্ট কাতারের দোহায় তালেবানের সঙ্গে বৈঠকে বসেছিল ভারত। ভারতের পক্ষ থেকে বৈঠকে অংশ নিয়েছিলেন রাষ্ট্রদূত দীপক মিত্তল। তালেবানের পক্ষ থেকে ছিলেন বর্তমানে আফগানিস্তানের উপবিদেশমন্ত্রী শের মোহাম্মদ আব্বাস স্তানিকজাই।

আফগানিস্তানের মাটিতে যেন ভারতবিরোধী কোনো সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপ না হয়- ভারতের পক্ষ থেকে তালেবানকে এমন কড়া বার্তা দেয়া হয় বৈঠকে।

এর আগে ২০১৮ সালে মস্কোতে তালেবানের সঙ্গে অনানুষ্ঠানিক এক বৈঠকে মুখোমুখি হয় ভারত। অবসরপ্রাপ্ত পররাষ্ট্র কর্মকর্তা টিসিএ রাঘবন এবং অমর সিনহা ওই বৈঠকে দেশের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করেন। আর পাঁচ সদস্যের তালেবান প্রতিনিধিদলের নেতৃত্বে ছিলেন আব্বাস স্তানিকজাই।

আরও পড়ুন:
আফগানিস্তান ছাড়লেন বাইডেনকে বাঁচানো দোভাষী
জি ২০ সম্মেলনে প্রাধান্য পাবে আফগানিস্তান ইস্যু
নারীদের নিয়ে তালেবানের অঙ্গীকার ভঙ্গে ক্ষুব্ধ জাতিসংঘ
এবার ইইউর সঙ্গে বৈঠক তালেবানের
বিশ্বকাপ খেলতে বাধা নেই আফগানিস্তানের

শেয়ার করুন

কেরালায় ভূমিধসে মৃত ১৫, নিখোঁজ ১২

কেরালায় ভূমিধসে মৃত ১৫, নিখোঁজ ১২

কেরালায় ভারী বর্ষণে ছয় জন প্রাণ হারায়। ছবি: ইন্ডিয়া টিভি

কেরালা উপকূলে আরব সাগরের দক্ষিণ-পূর্বে গত কয়েক দিনে সৃষ্ট নিম্নচাপের ফলে রাজ্যটিতে ভারি বর্ষণ হচ্ছে বলে আবহাওয়া দপ্তর থেকে জানানো হয়েছে।

ভারি বর্ষণে সৃষ্ট ভূমিধসে ভারতের দক্ষিণাঞ্চলীয় কেরালা রাজ্যের ইদুক্কি ও কোত্তায়াম জেলায় অন্তত ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া নিখোঁজ রয়েছে ১২ জন।

রাজ্য সরকারের অনুরোধে ভারতের সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী ও বিমানবাহিনীর সদস্যরা দুর্যোগ মোকাবিলায় কেরালার বেসামরিক প্রশাসনকে সহযোগিতা করছে। দেশটির ন্যাশনাল ডিজাস্টার রেসপন্স ফোর্স প্লাবিত অঞ্চলে তাদের ১১টি দল পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এ ছাড়া সতর্কতার অংশ হিসেবে রোববার ও সোমবার কেরালার পাথানামথিত্তা জেলার সাবারিমালা মন্দিরে ভক্তদের না যেতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে আহ্বান জানানো হয়েছে।

এনডিটিভির রোববারের প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

কেরালার বেশির ভাগ এলাকায় শনিবার সারারাত টানা বৃষ্টি হয়। তবে রোববার সকালে বৃষ্টিপাতের মাত্রা কমে। নতুন এলাকা প্লাবিত হওয়ার খবর এখন পর্যন্ত পাওয়া যায়নি। কোত্তায়াম জেলায় প্রতিকূল আবহাওয়ার কারণে উদ্ধার তৎপরতা বিঘ্নিত হচ্ছে।

কেরালা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ান উদ্ধার তৎপরতা বাড়ানোর বিষয়ে উচ্চপর্যায়ের বৈঠক করেছেন।

তিনি জানান, কোত্তায়ামসহ অন্যান্য বন্যাকবলিত জেলায় আটকে পড়া মানুষজনকে উদ্ধারে প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থাই নেয়া হবে।

করোনাভাইরাসের স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্যাম্প বসানোর নির্দেশ দিয়েছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বিজয়ান। ওই সব ক্যাম্পে মাস্ক, স্যানিটাইজার, খাবার পানি ও ওষুধ পর্যাপ্ত পরিমাণে রাখারও নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

যারা করোনা প্রতিরোধী টিকা নেননি ও জটিল রোগে ভুগছেন, ক্যাম্পে তাদের ক্ষেত্রে বিশেষ ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

কেরালা উপকূলে আরব সাগরের দক্ষিণ-পূর্বে গত কয়েক দিনে সৃষ্ট নিম্নচাপের ফলে রাজ্যটিতে ভারি বর্ষণ হচ্ছে বলে আবহাওয়া দপ্তর থেকে জানানো হয়েছে।

রাজ্যের বিভিন্ন কলেজ সোমবার খোলার কথা থাকলেও ভারি বর্ষণ ও বন্যার কারণে সেসব এখন বুধবার খুলবে।

কেরালার ওয়াইয়ানাদ জেলার সংসদ সদস্য ও কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী টুইটবার্তায় বলেন, ‘কেরালার জনগণ আমার চিন্তায় রয়েছেন। অনুগ্রহ করে আপনারা সবাই নিরাপদে ও সব ধরনের সতর্কতামূলক ব্যবস্থা মেনে চলুন।’

কেরালার স্বাস্থ্যমন্ত্রী ভিনা জর্জ পাথানামথিত্তা জেলার নিচু এলাকায় জলাবদ্ধতা মূল্যায়নে উচ্চপর্যায়ের বৈঠক করেছেন। ওই জেলার পরিস্থিতি পার্শ্ববর্তী কোত্তায়াম জেলার মতোই।

কোত্তায়াম জেলায় ভারি বর্ষণে বিভিন্ন বাঁধসংলগ্ন এলাকায় পানির উচ্চতা ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিদ্যমান পরিস্থিতিতে মানিয়ার বাঁধের গেট খুলে দেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন:
আফগানিস্তান ছাড়লেন বাইডেনকে বাঁচানো দোভাষী
জি ২০ সম্মেলনে প্রাধান্য পাবে আফগানিস্তান ইস্যু
নারীদের নিয়ে তালেবানের অঙ্গীকার ভঙ্গে ক্ষুব্ধ জাতিসংঘ
এবার ইইউর সঙ্গে বৈঠক তালেবানের
বিশ্বকাপ খেলতে বাধা নেই আফগানিস্তানের

শেয়ার করুন