যুক্তরাষ্ট্রে স্কুল খোলার পর শিশুদের মধ্যে করোনার রেকর্ড

যুক্তরাষ্ট্রে স্কুল খোলার পর শিশুদের মধ্যে করোনার রেকর্ড

গত সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রে রেকর্ড ২ লাখ ৫২ হাজার শিশুর দেহে করোনা শনাক্ত হয়। ছবি: এবিসি নিউজ

টেক্সাসের শিশু হাসপাতালের প্যাথলজি বিভাগের প্রধান ডা. জেমস ভেরসালভিক বলেন, ‘আমরা এটিকে করোনার চতুর্থ ঢেউ বলছি। শিশু ও কিশোরদের ওপর এ ঢেউ অন্যান্য সময়ের চেয়ে ব্যাপক।’

করোনাভাইরাসের ব্যাপক প্রাদুর্ভাব রোধে গত বছর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখতে বাধ্য হয়েছিল বাংলাদেশসহ বিশ্বের বেশির ভাগ দেশ।

সম্প্রতি করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে এলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এগুলোর মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রও রয়েছে।

লাখ লাখ ছাত্র-ছাত্রী দীর্ঘদিন পর শিক্ষাঙ্গনে ফিরলেও এরই মধ্যে উদ্বেগজনক খবর দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পর যুক্তরাষ্ট্রে প্রতি সপ্তাহে রেকর্ডসংখ্যক শিশুর দেহে করোনা শনাক্ত হচ্ছে।

আমেরিকান অ্যাকাডেমি অফ পেডিয়াট্রিকস অ্যান্ড দ্য চিলড্রেনস হসপিটাল অ্যাসোসিয়েশনের তথ্য অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রে শুধু গত সপ্তাহেই প্রায় ২ লাখ ৫২ হাজার শিশুর দেহে করোনার উপস্থিতি পাওয়া গেছে।

গত বছর করোনার সংক্রমণ শুরুর পর যুক্তরাষ্ট্রে এক সপ্তাহে এত বেশিসংখ্যক শিশু এর আগে আক্রান্ত হয়নি বলেও জানায় সংস্থাটি।

যুক্তরাষ্ট্রে করোনার প্রকোপ শুরুর পর ৫০ লাখের বেশি শিশুর দেহে করোনা শনাক্ত হয়।

এদের মধ্যে কেবল গত মাসেই সংক্রমিত হয় সাড়ে সাত লাখের বেশি শিশু।

শিশুদের সংক্রমিত হওয়ার সাপ্তাহিক হিসাব চলতি বছরের জুন মাসের চেয়ে প্রায় ৩০০ গুণ বেশি।

ওই মাসে সপ্তাহে কেবল ৮ হাজার ৪০০টি শিশু করোনায় আক্রান্ত হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ সংস্থার (সিডিসি) তথ্যমতে, দেশের দক্ষিণাঞ্চলে বসবাসরত শিশুদের মধ্যে করোনা বেশি হচ্ছে।

এবিসি নিউজের প্রতিবেদনে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে করোনায় আক্রান্ত হয়ে বা উপসর্গে ভোগা প্রায় আড়াই হাজার শিশু এ মুহূর্তে হাসপাতালে ভর্তি।

করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আসার পর স্কুলে মাস্ক পরার বাধ্যবাধকতা তুলে দিয়েছিলেন টেক্সাসের গভর্নর।

সেখানেই কোভিড-১৯-এ আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি শিশুর সংখ্যা অন্যান্য অঙ্গরাজ্যের চেয়ে বেশি।

টেক্সাসের শিশু হাসপাতালের প্যাথলজি বিভাগের প্রধান ডা. জেমস ভেরসালভিক বলেন, ‘আমরা এটিকে করোনার চতুর্থ ঢেউ বলছি। শিশু ও কিশোরদের ওপর এ ঢেউ অন্যান্য সময়ের চেয়ে ব্যাপক।’

আরও পড়ুন:
২ দশকে পশ্চিমা আগ্রাসনের বলি ৯ লাখ মানুষ
৯/১১ হামলার তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশের নির্দেশ বাইডেনের
নিউ ইয়র্ক-নিউ জার্সিতে ‘নজিরবিহীন’ বন্যা, মৃত ৯
যুক্তরাষ্ট্রে ১ যুগে সর্বোচ্চ হেইট ক্রাইম গত বছর
আফগানদের অনিশ্চয়তায় ফেলে চলে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

শেয়ার করুন

মন্তব্য

শনাক্ত হার পাঁচের নিচে, নিয়ন্ত্রণের পথে দ্বিতীয় ঢেউ

শনাক্ত হার পাঁচের নিচে, নিয়ন্ত্রণের পথে দ্বিতীয় ঢেউ

এর চেয়ে কম শনাক্ত হার ছিল গত ৭ মার্চ। ওই দিন ৪ দশমিক শূন্য ৩ শতাংশ শনাক্ত হারের খবর দেয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গাইডলাইন অনুযায়ী, কোনো দেশে শনাক্ত হার টানা দুই সপ্তাহ ৫ শতাংশের নিচে থাকলে সে দেশে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে বলে ধরা হয়। 

দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় ২৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। কমেছে শনাক্ত হার; নেমে এসেছে পাঁচ শতাংশের নিচে, ৪ দশমিক ৬৯ শতাংশ।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে মঙ্গলবার পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। এতে বলা হয়, গত এক দিনে করোনার সংক্রমণ ধরা পড়েছে ১ হাজার ৫৬২ জনের দেহে।

দেশে এ পর্যন্ত করোনার শনাক্ত ধরা পড়েছে ১৫ লাখ ৪৫ হাজার ৮০০ জনের দেহে। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ২৭ হাজার ২৭৭ জনের।

এর চেয়ে কম শনাক্ত হার ছিল গত ৭ মার্চ। ওই দিন ৪ দশমিক শূন্য ৩ শতাংশ শনাক্ত হারের খবর দেয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গাইডলাইন অনুযায়ী, কোনো দেশে শনাক্ত হার টানা দুই সপ্তাহ ৫ শতাংশের নিচে থাকলে সে দেশে করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে বলে ধরা হয়।

বিস্তারিত আসছে....

আরও পড়ুন:
২ দশকে পশ্চিমা আগ্রাসনের বলি ৯ লাখ মানুষ
৯/১১ হামলার তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশের নির্দেশ বাইডেনের
নিউ ইয়র্ক-নিউ জার্সিতে ‘নজিরবিহীন’ বন্যা, মৃত ৯
যুক্তরাষ্ট্রে ১ যুগে সর্বোচ্চ হেইট ক্রাইম গত বছর
আফগানদের অনিশ্চয়তায় ফেলে চলে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

শেয়ার করুন

সঠিক জায়গার অভাবে পিসিআর ল্যাব বসাতে দেরি

সঠিক জায়গার অভাবে পিসিআর ল্যাব বসাতে দেরি

টিবি হাসপাতালে ওয়ান স্টপ সেন্টার ও রিজিওনাল টিবি ল্যাবরেটরি উদ্বোধন করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। ছবি: নিউজবাংলা

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন,‘খোলা আকাশের নিচে ল্যাব স্থাপনের জায়গা দিয়ে ছিল বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ। খোলা আকাশের নিচে কখনও ল্যাব স্থাপন করা যায় না। এ কারণে ল্যাব বসাতে দেরি হচ্ছে। এখন সঠিক জায়গা নির্ধারণ করা হয়েছে। আশা করি দ্রুত ল্যাব স্থাপনের কাজ শেষ হবে।’

কর্তৃপক্ষ সঠিক জায়গা না দেয়ায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পিসিআর ল্যাব বসাতে দেরি হচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

রাজধানীর শ্যামলীতে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট টিবি হাসপাতালে মঙ্গলবার বেলা ১২টায় ওয়ান স্টপ সেন্টার ও রিজিওনাল টিবি ল্যাবরেটরি উদ্বোধনকালে তিনি এ কথা বলেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘পিসিআর ল্যাব এখনও বসেনি। এতো দিন সঠিক জায়গায় দিতে পারেনি বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ। আজ প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী ও প্রবাসী কল্যাণ সচিবসহ সবাইকে নিয়ে বন্দরের ভেতরে জায়গা নির্ধারণ করে আসলাম।’

তিনি বলেন, ‘খোলা আকাশের নিচে ল্যাব বসানোর জায়গা দিয়ে ছিল কর্তৃপক্ষ। খোলা আকাশের নিচে কখনও ল্যাব স্থাপন করা যায় না। এ কারণে ল্যাব বসাতে দেরি হচ্ছে। এখন সঠিক জায়গা নির্ধারণ করা হয়েছে। আশা করি দ্রুত ল্যাব স্থাপনের কাজ শেষ হবে।’

বিমানবন্দরে পিসিআর ল্যাব স্থাপনের কার্যক্রম পরিদর্শন শেষে সকাল ১০ টার দিকে গণমাধ্যম কর্মীদের সঙ্গে কথা বলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

এ সময় জাহিদ মালেক বলেন, ‘বিমানবন্দরে আরটি-পিসিআর ল্যাব স্থাপনের নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এ কারণে সকালেই ৭টি প্রতিষ্ঠানের ‘স্টেটমেন্ট অব পারপাস’ (এসওপি) সংযুক্ত আরব আমিরাতে পাঠানো হয়েছে। তবে দেশটি এখনো সাড়া দেয়নি। আমরা তাদের অপেক্ষায় আছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘এসওপি পেলে ল্যাবের কাজ দ্রুত গতিতে সম্পন্ন হবে। তবে তাদের আবেদনের জন্য আমরা বসে না থেকে ভেতরে ভেতরে কাজ এগিয়ে নেব।’

ল্যাবের জন্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাত প্রতিষ্ঠানকে অনুমোদন ও পার্কিংয়ের ছাদে জায়গা বরাদ্দ দিয়েছে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ।

আরব আমিরাত সরকারের শর্ত অনুযায়ী, দেশটিতে প্রবেশ করতে হলে সঙ্গে থাকতে ৬ ঘণ্টা আগের করোনা নেগেটিভ সনদ। এ প্রেক্ষিতে এক মাসেরও বেশি সময় ধরে আন্দোলন করে আসছেন দেশে আটকে পড়া প্রবাসীরা। মূলত এ কারণেই বিমানবন্দরে পিসিআর ল্যাব বসানোর সিদ্ধান্ত নেয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

আরও পড়ুন:
২ দশকে পশ্চিমা আগ্রাসনের বলি ৯ লাখ মানুষ
৯/১১ হামলার তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশের নির্দেশ বাইডেনের
নিউ ইয়র্ক-নিউ জার্সিতে ‘নজিরবিহীন’ বন্যা, মৃত ৯
যুক্তরাষ্ট্রে ১ যুগে সর্বোচ্চ হেইট ক্রাইম গত বছর
আফগানদের অনিশ্চয়তায় ফেলে চলে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

শেয়ার করুন

যক্ষ্মায় মৃত্যু কমে অর্ধেক

যক্ষ্মায় মৃত্যু কমে অর্ধেক

যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণে সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগ তুলে ধরে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘সরকারি সংস্থা  এই চিকিৎসা ফ্রিতে দিচ্ছে। ঔষধ ফ্রি দেয়া হচ্ছে। ল্যাবরেটরি সার্ভিস ফ্রি দেয়া হচ্ছে। মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে এ সেবা দেয়া হচ্ছে। সরকারের লক্ষ্য এই রোগী আরও কমিয়ে আনা।’

সরকারের নানামুখী উদ্যোগের কারণে বাংলাদেশে যক্ষ্মা এখন অনেকটা নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। বলেছেন, গত ১৭ বছরে দেশে যক্ষ্মাতে মৃত্যুহার প্রায় অর্ধেক কমেছে।

রাজধানীর শ্যামলীতে ওয়ান স্টপ টিবি সার্ভিস সেন্টার ও ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট টিবি হাসপাতালে রিজিওনাল টিবি রেফারেন্স ল্যাবরেটরি উদ্বোধনের সময় তিনি এ তথ্য দেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের দেশে ২০০৪ সালের যক্ষ্মাতে ৭০ হাজারের অধিক মানুষের মৃত্যু হতো। তবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারের আমলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর নানামুখী পদক্ষেপে এটি নিয়ন্ত্রণে আসছে। এখন যক্ষ্মাতে ৪৮ শতাংশ মৃত্যু কমে আসছে। এখন প্রতি বছর ২৮ হাজার মৃত্যু হয়। এই মৃত্যু কমানোর চেষ্টা করছি।’

যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণে সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগ তুলে ধরে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘সরকারি সংস্থা এই চিকিৎসা ফ্রিতে দিচ্ছে। ঔষধ ফ্রি দেয়া হচ্ছে। ল্যাবরেটরি সার্ভিস ফ্রি দেয়া হচ্ছে। মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে এ সেবা দেয়া হচ্ছে। সরকারের লক্ষ্য এই রোগী আরও কমিয়ে আনা।’

বাংলাদেশে যক্ষ্মা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হওয়ার পর ৯০ শতাংশই চিকিৎসার মাধ্যমে সুস্থ হয়ে ওঠেন বলে জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ থেকে যদি যক্ষ্মা নির্মূল করতে চাই এবং যক্ষায় মৃত্যুর হার কমাতে চাই, তাহলে প্রাথমিক সময়ে শনাক্ত সঠিকভাবে করতে হবে এবং চিকিৎসার আওতায় আনতে হবে। প্রাথমিকভাবে যক্ষ্মা শনাক্ত করা সম্ভব হলে, সঠিক সময়ে চিকিৎসা করা গেলে অধিকাংশ রোগী ভালো হয়ে ওঠে।’

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, বর্তমানে দেশের প্রায় সব জায়গায় বিনা মূল্যে যক্ষ্মারোগীর চিকিৎসার ব্যবস্থা করেছে সরকার। উপজেলা কমিউনিটি ক্লিনিক, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, জেলা সদর হাসপাতাল, সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে এই চিকিৎসা দেয়া হয়।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, স্বাস্থ্য সচিব লোকমান হোসেন মিয়া, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর মহাপরিচালক আবুল বাশার খুরশীদ আলমসহ আরও অনেকে।

আরও পড়ুন:
২ দশকে পশ্চিমা আগ্রাসনের বলি ৯ লাখ মানুষ
৯/১১ হামলার তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশের নির্দেশ বাইডেনের
নিউ ইয়র্ক-নিউ জার্সিতে ‘নজিরবিহীন’ বন্যা, মৃত ৯
যুক্তরাষ্ট্রে ১ যুগে সর্বোচ্চ হেইট ক্রাইম গত বছর
আফগানদের অনিশ্চয়তায় ফেলে চলে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

শেয়ার করুন

৫ থেকে ১১ বছর বয়সীদের ওপর কার্যকর ফাইজারের টিকা

৫ থেকে ১১ বছর বয়সীদের ওপর কার্যকর ফাইজারের টিকা

শিশুদের দেহে টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগে প্রাক-প্রাথমিক স্কুলশিক্ষার্থীদের খুব অল্প পরিমাণে ডোজ দিয়েছে ফাইজার। প্রাপ্তবয়স্কদের প্রতি ডোজের এক-তৃতীয়াংশ দিয়ে এক ডোজ দিয়েছে শিশুদের। তাও দ্বিতীয় ডোজ নেয়ার পর শিশুদের দেহে কিশোর ও তরুণ প্রাপ্তবয়স্কদের সমপরিমাণই করোনাবিরোধী অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে।

পাঁচ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের ওপর কার্যকর ফাইজার-বায়োএনটেকের করোনাভাইরাস প্রতিরোধী টিকা। ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে শিশুদের দেহে টিকাটি নিরাপদ ও কার্যকর বলে প্রমাণ মিলেছে।

সোমবার যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক ফার্মাসিউটিক্যাল প্রতিষ্ঠান ফাইজার ও জার্মানির জৈবপ্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান বায়োএনটেক যৌথ ঘোষণায় জানায় এ খবর। বলা হয়, শিগগিরই পাঁচ থেকে ১১ বছর বয়সীদের টিকাটি প্রয়োগে যুক্তরাষ্ট্রের নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলোর অনুমোদন চাইবে ফাইজার।

বার্তা সংস্থা এপির প্রতিবেদনে বলা হয়, ১২ বছর ও এর বেশি বয়সীদের টিকাটি প্রয়োগে আগেই অনুমোদন দেয়া হয়েছে। কিন্তু এখন সববয়সী শিশুরা স্কুলে ফিরেছে। এমন সময়ে করোনাভাইরাসের অধিক সংক্রামক ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের বিস্তার বাড়ছে বলে উদ্বিগ্ন শিশুবিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ও অভিভাবকরা। তারা শিশুদের টিকার জন্য উদগ্রীব।

শিশুদের দেহে টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগে প্রাক-প্রাথমিক স্কুলশিক্ষার্থীদের খুব অল্প পরিমাণে ডোজ দিয়েছে ফাইজার। প্রাপ্তবয়স্কদের প্রতি ডোজের এক-তৃতীয়াংশ দিয়ে এক ডোজ দিয়েছে শিশুদের।

তাও দ্বিতীয় ডোজ নেয়ার পর শিশুদের দেহে কিশোর ও তরুণ প্রাপ্তবয়স্কদের সমপরিমাণই করোনাবিরোধী অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে।

ফাইজারের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ড. বিল গ্রুবার বলেন, ‘শিশুদের জন্য নির্ধারিত স্বল্প পরিমাণের ডোজ নিরাপদ। টিকাগ্রহণে প্রাপ্তবয়স্করা যেমন কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় ভুগতে পারেন, তেমনই জ্বর, চুলকানি, হাতে ব্যথার মতো সাধারণ কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া শিশুদের দেহেও দেখা যেতে পারে।

পাঁচ থেকে ১১ বছর বয়সীদের টিকাদানে জরুরি অনুমোদনের জন্য এ মাসেই যুক্তরাষ্ট্রের খাদ্য ও ওষুধ নিয়ন্ত্রক সংস্থার (এফডিএ) কাছে আবেদন করবে ফাইজার। পরে যুক্তরাজ্য আর ইউরোপের ওষুধ নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলোর কাছেও আবেদন করবে।

পশ্চিমা দেশগুলোর বেশিরভাগই ১২ বছরের কমবয়সীদের করোনা প্রতিরোধী টিকা এখনও দিচ্ছে না। এই বয়সী শিশুদের জন্য সঠিক ডোজের মাত্রা জানার অপেক্ষায় রয়েছে দেশগুলো।

তবে ক্যারিবীয় দেশ কিউবায় দুই বছরের বেশি বয়সী শিশুদেরও নিজস্ব গবেষণায় আবিষ্কৃত টিকা দেয়া হচ্ছে। তিন বছরের বেশি বয়সীদের জন্য চীনও নিজস্ব টিকাদানে অনুমতি দিয়েছে।

আরও পড়ুন:
২ দশকে পশ্চিমা আগ্রাসনের বলি ৯ লাখ মানুষ
৯/১১ হামলার তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশের নির্দেশ বাইডেনের
নিউ ইয়র্ক-নিউ জার্সিতে ‘নজিরবিহীন’ বন্যা, মৃত ৯
যুক্তরাষ্ট্রে ১ যুগে সর্বোচ্চ হেইট ক্রাইম গত বছর
আফগানদের অনিশ্চয়তায় ফেলে চলে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

শেয়ার করুন

১৫ মিনিটের ব্যবধানে নারীকে টিকার দুই ডোজ

১৫ মিনিটের ব্যবধানে নারীকে টিকার দুই ডোজ

এক দিনে দুই ডোজ টিকা নেয়া ৭৪ বছর বয়সী খুদেজা খাতুন। ছবি: নিউজবাংলা

খুদেজা খাতুনের স্বামী খেলু মিয়া বলেন, ‘স্ত্রীকে দুইবার টিকা দেয়া হইছে, আমি বিষয়টি আরেকজন নার্সরে জানাইলে তাইন কইছোইন কিছু অইতো না, বাড়িত চলে যাও।’

সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে ৭৪ বছর বয়সী এক নারীকে এক দিনে দুইবার সিনোফার্মের করোনা টিকে দেয়ার ঘটনা ঘটেছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সোমবার দুপুরে টিকা নিতে আসেন খুদেজা খাতুন। তাকে দুইবার ভ্যাকসিন দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

খুদেজা বেগম উপজেলার শ্রীপুর দক্ষিণ ইউনিয়নের নোয়ানগর গ্রামের খেলু মিয়ার স্ত্রী।

খুদেজা জানান, স্বামীর সঙ্গে টিকা কেন্দ্রে গিয়েছিলেন। এক ডোজ টিকা দেয়ার পর তার শরীর দুর্বল লাগছিল। তাই তিনি পাশে আরেকটি চেয়ারে গিয়ে বসেন। প্রায় ১৫ মিনিটের মধ্যে আরেক নার্স এসে তার শরীরে আরেকটি টিকা পুশ করেন।

খুদেজা খাতুনের স্বামী খেলু মিয়া বলেন, ‘স্ত্রীকে দুইবার টিকা দেয়া হইছে, আমি বিষয়টি আরেকজন নার্সরে জানাইলে তাইন কইছোইন কিছু অইতো না বাড়িত চলে যাও।’

তবে এক ব্যক্তিকে দুইবার টিকা দেয়ার বিষয়ে জানা নেই স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের।

তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা সৈয়দ আবু আহম্মেদ শাফি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমি ঢাকায় রয়েছি। এ বিষয়ে কিছু জানি না। তবে এক ব্যক্তিকে একই দিনে দুইবার ভ্যাকসিন দেয়ার কোনো নিয়ম নেই। বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখছি।’

সুনামগঞ্জের সিভিল সার্জন শামস উদ্দিন বলেন, ‘এমন কোনো ঘটনা আমি শুনিনি। তবে খোঁজ নিয়ে দেখছি।’

এর আগে ১০ আগস্ট খুলনায় রোকনুজ্জামান নামের এক যুবককে এক মিনিটে দুই ডোজ করোনা টিকা দেয়ার অভিযোগ ওঠে।

এ ছাড়া রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দিতে ৭ আগস্ট এক নারীকে দুই ডোজ টিকা দেয়া হয়।

আরও পড়ুন:
২ দশকে পশ্চিমা আগ্রাসনের বলি ৯ লাখ মানুষ
৯/১১ হামলার তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশের নির্দেশ বাইডেনের
নিউ ইয়র্ক-নিউ জার্সিতে ‘নজিরবিহীন’ বন্যা, মৃত ৯
যুক্তরাষ্ট্রে ১ যুগে সর্বোচ্চ হেইট ক্রাইম গত বছর
আফগানদের অনিশ্চয়তায় ফেলে চলে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

শেয়ার করুন

করোনায় ১১৬ দিনে সর্বনিম্ন মৃত্যু

করোনায় ১১৬ দিনে সর্বনিম্ন মৃত্যু

গত ২৪ ঘণ্টায় ৮১০ ল্যাবে ২৭ হাজার নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ৫ দশমিক ৬৭ শতাংশ। গতকাল এই হার ছিল ৫ দশমিক ৬২ শতাংশ, যা গত ১৯৪ দিনের মধ্যে সর্বনিম্ন। গত ৯ মার্চ পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ছিল ৫ দশমিক ১৩ শতাংশ।

করোনায় আক্রান্ত হয়ে দেশে আরও ২৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এই মৃত্যু গত ২৭ মের পর সবচেয়ে কম। সে হিসাবে দেশে ১১৬ দিন পর সর্বনিম্ন মৃত্যুর রেকর্ড হয়েছে। সে দিন দেশে করোনায় ২২ জনের মৃত্যু সংবাদ দিয়েছিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

সোমবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা শনাক্ত হয়েছে আরও ১ হাজার ৫৫৫ জনের শরীরে।

গত ২৪ ঘণ্টায় ৮১০ ল্যাবে ২৭ হাজার নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ৫ দশমিক ৬৭ শতাংশ। গতকাল এই হার ছিল ৫ দশমিক ৬২ শতাংশ, যা গত ১৯৪ দিনের মধ্যে সর্বনিম্ন। গত ৯ মার্চ পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ছিল ৫ দশমিক ১৩ শতাংশ।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, এ পর্যন্ত করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে ১৫ লাখ ৪৪ হাজার ২৩৮ জনের দেহে। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ২৭ হাজার ৪৩১ জনের। গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত ব্যক্তিদের মধ্যে পুরুষ ১১ ও নারী ১৫ জন। মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৭৬ শতাংশ।

মৃত ব্যক্তিদের মধ্যে ত্রিশোর্ধ্ব ১, চল্লিশোর্ধ্ব ৩, পঞ্চাশোর্ধ্ব ৯, ষাটোর্ধ্ব ৬, সত্তরোর্ধ্ব ৩ ও অশীতিপর ৪ জন।

বিভাগ অনুযায়ী সর্বোচ্চ ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে ঢাকা বিভাগে। এরপর চট্টগ্রামে ৫, রাজশাহী ৪, খুলনাতে ২, বরিশাল ১, সিলেটে ১, রংপুরে ১ ও ময়মনসিংহে ১ জনের মৃত্যু হয়েছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৫৬৫ জন। এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৫ লাখ ৩ হাজার ১০৬ জন। সুস্থতার হার ৯৭ দশমিক ২৩।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে গত মার্চ থেকে ভারতীয় ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়ার মাস পাঁচেক পর পরিস্থিতি উন্নতির চিত্র দেখা যাচ্ছে। গত কয়েক দিন ধরেই ধারাবাহিকভাবে কমছে মৃত্যু ও শনাক্তের সংখ্যা। সেই সঙ্গে কমছে শনাক্তের হার।

এর আগে চলতি বছরের এপ্রিল, মে, জুন ও জুলাই মাসে পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ২০ শতাংশ ছাড়িয়ে যায়। একপর্যায়ে তা ৩০ শতাংশও হয়ে যায়। এ অবস্থায় এপ্রিলে লকডাউন ও পরে জুলাইয়ে দেয়া হয় শাটডাউন নামে বিধিনিষেধ। ১১ আগস্ট বিধিনিষেধ প্রত্যাহার করা হলেও এরপর থেকে রোগী ও মৃত্যু ধীরে ধীরে কমে আসছে।

এ বিষয়ে জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ডা. লেনিন চৌধুরী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘করোনার ক্ষেত্রে আমরা দেখছি সংক্রমণের ধারাটা নিম্নগামী। করোনা যা পরীক্ষা হচ্ছে, গেল এক সপ্তাহ ধরে করোনা শনাক্তের হার ৫ থেকে ৬ শতাংশের ঘরে। তবে এখনই আমরা বলতে পারব না, এটা নিয়ন্ত্রণে এসেছে।

‘সংক্রমণ যখন ৫ শতাংশের নিচে আসবে এবং এটা যদি তিন সপ্তাহ পর্যন্ত একইভাবে চলে, তাহলে আমরা বলতে পারি সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে চলে এসেছে।’

আশঙ্কা প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘প্রতিবেশী ভারতসহ বিভিন্ন দেশে আবার সংক্রমণ বাড়ছে। আমাদের এখনও দ্বিতীয় ঢেউ নিয়ন্ত্রণে আসেনি। আমার মনে করছি, আগামী ১৫ দিনের মধ্যে এই ঢেউ নিয়ন্ত্রণে আসবে। নিয়ন্ত্রণে আসার চার থেকে ছয় সপ্তাহ পরে আবার কিন্তু নতুন ঢেউ আসার আশঙ্কা থাকে।’

আরও পড়ুন:
২ দশকে পশ্চিমা আগ্রাসনের বলি ৯ লাখ মানুষ
৯/১১ হামলার তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশের নির্দেশ বাইডেনের
নিউ ইয়র্ক-নিউ জার্সিতে ‘নজিরবিহীন’ বন্যা, মৃত ৯
যুক্তরাষ্ট্রে ১ যুগে সর্বোচ্চ হেইট ক্রাইম গত বছর
আফগানদের অনিশ্চয়তায় ফেলে চলে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

শেয়ার করুন

চুক্তিতে অনিয়ম: সাহেদের সঙ্গে আসামি স্বাস্থ্যের সাবেক ডিজি

চুক্তিতে অনিয়ম: সাহেদের সঙ্গে আসামি স্বাস্থ্যের সাবেক ডিজি

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক ডিজি আবুল কালাম আজাদ।

আসামিদের বিরুদ্ধে লাইসেন্স নবায়ন না করা এবং বন্ধ ঘোষিত রিজেন্ট হাসপাতালকে ডেডিকেটেড কোভিড হাসপাতালে রূপান্তর, সমঝোতা স্মারক সই এবং নমুনা পরীক্ষা ও করোনা চিকিৎসার খরচ বাবদ ৩ কোটি ৩৪ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয়েছে।

অনুমোদনহীন রিজেন্ট হাসপাতালের সঙ্গে করোনা পরীক্ষার চুক্তিসহ নানা অনিয়মে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক (ডিজি) আবুল কালাম আজাদসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র অনুমোদন করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

আসামিদের বিরুদ্ধে লাইসেন্স নবায়ন না করা এবং বন্ধ ঘোষিত রিজেন্ট হাসপাতালকে ডেডিকেটেড কোভিড হাসপাতালে রূপান্তর, সমঝোতা স্মারক সই এবং নমুনা পরীক্ষা ও করোনা চিকিৎসার খরচ বাবদ ৩ কোটি ৩৪ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয়েছে।

সোমবার বিকেলে এক ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানান দুদক সচিব মু. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার। দুদকের প্রধান কার্যালয় থেকে ওই চার্জশিট অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

গত বছরের ২৩ সেপ্টেম্বর করা মামলায় সাহেদ করিম ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের চার কর্মকর্তাসহ পাঁচ জনকে আসামি করা হয়। তবে সে সময় অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদের নাম আসামির তালিকায় ছিল না।

সংস্থাটির উপপরিচালক মো. ফরিদ আহমেদ পাটোয়ারী বাদী হয়ে মামলাটি করেন। সে মামলার চার্জশিটে তার নাম দেয়া হলো।

মামলার অন্য আসামিরা হলেন, রিজেন্ট হাসপাতাল লিমিটেডের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাহেদ করিম, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক পরিচালক আমিনুল হাসান, উপপরিচালক (হাসপাতাল-১) ইউনুস আলী, সহকারী পরিচালক (হাসপাতাল-১) শফিউর রহমান এবং গবেষণা কর্মকর্তা দিদারুল ইসলাম।

তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে ক্ষমতার অপব্যবহার করে লাইসেন্স নবায়নবিহীন বন্ধ রিজেন্ট হাসপাতালকে ডেডিকেটেড কোভিড হাসপাতালে রূপান্তর, সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর ও সরকারি প্রতিষ্ঠান নিপসমের ল্যাবে ৩ হাজার ৯৩৯ জন কোভিড রোগীর নমুনা বিনামূল্যে পরীক্ষা করিয়েছেন।

সেখান থেকে অবৈধ অর্থ বাবদ রোগী প্রতি ৩ হাজার ৫০০ টাকা হিসেবে ১ কোটি ৩৭ লাখ ৮৬ হাজার ৫০০ টাকা নিয়েছেন।

এ ছাড়া অনুসন্ধান প্রতিবেদনে রিজেন্ট হাসপাতালের মিরপুর ও উত্তরা শাখার চিকিৎসক, নার্স, ওয়ার্ড বয় ও অন্যান্য কর্মকর্তাদের খাবার খরচ বরাদ্দের বিষয়ে ১ কোটি ৯৬ লাখ ২০ হাজার টাকার মাসিক চাহিদা তুলে ধরাসহ সমঝোতা স্মারকের খসড়া স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ে পাঠানোর উদ্যোগ নেয়ার অভিযোগ আনা হয়েছে।

গত বছরের ২৩ সেপ্টেম্বর লাইসেন্সের মেয়াদ না থাকায় করোনাভাইরাসের নমুনা সংগ্রহ ও চিকিৎসার জন্য চুক্তি করে সরকারের ৩ কোটি ৩৪ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ ওঠে রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাহেদ ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের চার কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। সে অভিযোগে মামলা করে দুদক। তবে সেই মামলায় বাদ পড়েছিলেন আবুল কালাম আজাদ।

দুদক সূত্রে জানা গেছে, এক বছর তদন্তের পর রিজেন্ট হাসপাতালে অর্থ আত্মসাতের ঘটনায় স্বাস্থের সাবেক ডিজির যোগসূত্র খুঁজে পায় সংস্থাটি। নতুন করে স্বাস্থ্যের চার কর্মকর্তার সঙ্গে তার নাম যুক্ত করে অভিযোগপত্র কমিশনে অনুমোদনের জন্য জমা দিয়েছিলেন তদন্ত কর্মকর্তা ফরিদ আহমেদ পাটোয়ারী।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে সঙ্গে জেকেজির মতো প্রতিষ্ঠানের চুক্তি, রিজেন্ট হাসাপাতালের সঙ্গে চুক্তি, স্বাস্থ্যের এক গাড়ি চালককের শত কোটি টাকার সম্পদসহ নানা অভিযোগে জড়িত থাকার নাম আসে সাবেক মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদের। এরপর তদন্ত শুরু করে দুদক।

আরও পড়ুন:
২ দশকে পশ্চিমা আগ্রাসনের বলি ৯ লাখ মানুষ
৯/১১ হামলার তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশের নির্দেশ বাইডেনের
নিউ ইয়র্ক-নিউ জার্সিতে ‘নজিরবিহীন’ বন্যা, মৃত ৯
যুক্তরাষ্ট্রে ১ যুগে সর্বোচ্চ হেইট ক্রাইম গত বছর
আফগানদের অনিশ্চয়তায় ফেলে চলে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

শেয়ার করুন