‘খেলা হবে’র ব্যাখ্যা দিলেন মমতা

‘খেলা হবে’র ব্যাখ্যা দিলেন মমতা

১৬ আগস্ট পশ্চিমবঙ্গ সরকার রাজ্যজুড়ে ‘খেলা হবে’ দিবস কেন পালন করবে, তারই ব্যাখ্যা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ছবি: সংগৃহীত

মমতা বলেন, ১৬ আগস্ট স্বাধীনতার পর দিনই পালিত হবে ‘খেলা হবে’ দিবস। দেশে স্বাধীনতা আজ বিপন্ন । দেশের মানুষের কণ্ঠরোধ করা হচ্ছে। দেশের মানুষ যাতে এই সমস্ত বিষয় থেকে মুক্তি পায়। মানুষের স্বাধীনতা অক্ষুন্ন থাকে, সে জন্য আয়োজিত হবে এই দিবস। ওই দিন এক লাখ ফুটবল গ্রামগঞ্জের ক্লাবগুলোকে দেয়া হবে রাজ্যের যুব কল্যাণ ও ক্রীড়া দপ্তরের তরফ থেকে। আইএফএ’র ২৮০টি ক্লাবকেও ১০টি করে বল দেয়া হবে।

ছোট্ট দুটো শব্দবন্ধে তৈরি হওয়া স্লোগান ‘খেলা হবে’ এর সাফল্য স্মরণীয় করে রাখতে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ১৬ আগস্ট দিনটিকে রাজ্যজুড়ে ‘খেলা হবে’ দিবস হিসেবে পালনের কথা রাজ্য সরকারের তরফে আগেই ঘোষণা করেছেন।

বৃহস্পতিবার পশ্চিমবঙ্গ মন্ত্রীসভার বৈঠকে এ ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়ে, মুখ্যমন্ত্রী সাংবাদিকদের কেন ১৬ আগস্ট ‘খেলা হবে’ দিবস উদযাপিত হবে, তা ব্যাখ্যা দিয়ে জানান।

হাওড়ার নবান্ন হলে মমতা বলেন, ‘১৯৮০ সালে ইডেন গার্ডেন্সে একটি মর্মান্তিক ঘটনার কথা মাথায় রেখে ‘খেলা হবে’ দিবস উদযাপিত হবে।’ মোহনবাগান ও ইস্টবেঙ্গল দুই চির প্রতিদ্বন্দ্বীর ডার্বি ম্যাচের উত্তেজনাকে ঘিরে সেদিন ১৬ জনের মৃত্যু হয়।

এরপরই তিনি বলেন, ‘১৬ আগস্ট স্বাধীনতার পর দিনই পালিত হবে খেলা হবে দিবস। দেশে স্বাধীনতা আজ বিপন্ন । দেশের মানুষের কণ্ঠরোধ করা হচ্ছে। দেশের মানুষ যাতে এই সমস্ত বিষয় থেকে মুক্তি পায়। মানুষের স্বাধীনতা অক্ষুন্ন থাকে, সে জন্য আয়োজিত হবে এই দিবস। ওই দিন এক লাখ ফুটবল গ্রামগঞ্জের ক্লাবগুলোকে দেয়া হবে রাজ্যের যুব কল্যাণ ও ক্রীড়া দপ্তরের তরফ থেকে। আইএফএ’র ২৮০টি ক্লাবকেও ১০টি করে বল দেয়া হবে।’

‘এনিয়ে অরূপ বিশ্বাসকে (মন্ত্রী) বলেছি, কাগজপত্র তৈরি করতে। ৫০ হাজার বল ইতিমধ্যে তৈরি হয়ে গেছে। আমাদের ঘরের মা, বোনেদের তৈরি ‘জয়ী’ বল সবাইকে দেয়া হবে। সভ্যতা ও সংস্কৃতিকে রক্ষা করতে খেলার প্রয়োজন। খেলোয়াড় সুলভ মনোভাব প্রত্যেকেরই থাকা দরকার। অনেকেই আবার এর অন্য অর্থ তৈরি করেন।'

‘আসলে খেলা হবে স্লোগানের উৎপত্তি বাংলা (পশ্চিমবঙ্গ) থেকেই। তবে আজ তা গোটা ভারতে জনপ্রিয়। আমরা খেলা হবে দিবস বিশেষভাবে পালন করতে চাই । এবার থেকে প্রতিবছর এই দিনটি পালন করা হবে।’

‘খেলা হবে’ দিবস নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই বিশদ ব্যাখ্যার পরে, বিজেপির তরফে রাজ্যসভার সাংসদ স্বপন দাশগুপ্তের ১৯৪৬ সালের ১৬ আগস্ট কলকাতার সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা শুরুর দিনটিকে স্মরণ করার জবাব পেলেন বলে, মনে করছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা।

আরও পড়ুন:
টিকা দিচ্ছে না কেন্দ্র, অভিযোগ মমতার
মোদি বিরোধী ঐক্য করতে দিল্লি যাচ্ছেন মমতা
দিল্লি জয়ের লক্ষ্যে মমতার ভার্চুয়াল ভাষণ
মমতাকে ৫ লাখ টাকা জরিমানা

শেয়ার করুন

মন্তব্য