মগজহীন মানেই কিন্তু ‘নির্বোধ’ নয়

মগজহীন মানেই কিন্তু ‘নির্বোধ’ নয়

গবেষণা নিবন্ধের প্রথম লেখক ও অ্যালগমা ইউনিভার্সিটির সহযোগী অধ্যাপক ও অ্যালেন ডিসকভারি সেন্টারের সাবেক সদস্য নিরোশা মুরুগান বলেন, ‘ফিজারামের ভেতরে কোনো নিউরাল বা স্নায়বিক ব্যবস্থা নেই। এটি মূলত একটি বিশাল কোষ।'

‘মগজহীন’ বলতে সাধারণত নির্বোধ, বুদ্ধিহীন মানুষকেই বোঝায়। বেশ অপমানজনক শব্দ এটি।

তবে স্লাইম মোল্ড বা ‘ফিজারাম পলিসেফালাম’ অর্গানিজমের আক্ষরিক অর্থেই কোনো মগজ নেই, এরপরেও এরা চিন্তাভাবনা করতে সক্ষম।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, ফিজারাম পলিসেফালাম জীবন ধারণের বিস্ময়কর জটিল হিসাব-নিকাশ করতে পারে। যেমন ধাঁধার সমাধান বা স্মৃতিশক্তির মৌলিক বিষয়ও তারা বুঝতে পারে।

ফিজারাম মোল্ড মগজ ছাড়াই কীভাবে বুদ্ধিদীপ্ত সিদ্ধান্ত নিতে পারে, সে বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটির ওয়েস ইনস্টিটিউট ও টাফটস ইউনিভার্সিটির অ্যালেন ডিসকভারি সেন্টারের গবেষকরা তাদের পরিবেশগত সচেতনতা পরীক্ষা করেছেন।

বিজ্ঞানবিষয়ক সাময়িকী অ্যাডভান্সড ম্যাটেরিয়ালসে প্রকাশিত গবেষণা নিবন্ধে বলা হয়, পরীক্ষার ফলে দেখা যায়, এককোষী ওই ফিজারামের অভিনব পক্ষপাত ও বোধশক্তির ক্ষমতা রয়েছে।

এই দুই গুণের কারণে মগজহীন অর্গানিজমটির বুদ্ধিমত্তায় এক নতুন দিক উদ্ভাসিত হয়। শুধু তাই নয়, আচরণগত ক্ষমতার বিষয়েও ওইসব গুণ অন্তর্দৃষ্টির সন্ধান দেয়।

এককোষী ফিজারামের পক্ষপাত ও বোধশক্তির ক্ষমতা সফট রোবটিক্সের উন্নয়ন, কৃত্রিম নিউরাল নেটওয়ার্ক ও অন্যান্য বায়োইঞ্জিনিয়ারিং অ্যাপ্লিকেশনকেও বার্তা পাঠায়।

গবেষণা নিবন্ধের প্রথম লেখক ও অ্যালগমা ইউনিভার্সিটির সহযোগী অধ্যাপক ও অ্যালেন ডিসকভারি সেন্টারের সাবেক সদস্য নিরোশা মুরুগান বলেন, ‘ফিজারামের ভেতরে কোনো নিউরাল বা স্নায়বিক ব্যবস্থা নেই। এটি মূলত একটি বিশাল কোষ।

গবেষণা প্রতিবেদনের জ্যেষ্ঠ লেখক ও ওয়েস অ্যাসোসিয়েট ফ্যাকাল্টির সদস্য মাইক লেভিন বলেন, ‘ফিজারামের সিদ্ধান্ত গ্রহণের আচরণই হচ্ছে এর মরফোজেনেসিস। এ বিষয়টি মজার।’

তিনি বলেন, ‘ত্রিমাত্রিক স্থানে সিদ্ধান্ত গ্রহণ ও মরফোলজিক্যাল স্থানে সিদ্ধান্ত গ্রহণের ছেদবিন্দুতে পুরো প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়।’

শেয়ার করুন

মন্তব্য