করোনা টিকার তিন ডোজ দিতে চায় চিলি

করোনা টিকার তিন ডোজ দিতে চায় চিলি

চিলিতে করোনার টিকাকেন্দ্র হিসেবে ব্যবহৃত একটি বাস থেকে বেরিয়ে আসছেন এক ব্যক্তি। ছবি: এএফপি

বিশ্বে সবচেয়ে দ্রুতগতিতে শতভাগ জনগোষ্ঠীকে টিকার আওতায় আনার লক্ষ্য নিয়ে এগোতে থাকা অন্যতম দেশ চিলি। টিকাদানে চিলি সরকারের লক্ষ্যের ৭৮ শতাংশ জনগোষ্ঠী কমপক্ষে এক ডোজ নিয়েছে। দুই ডোজ নিয়েছে ৬১ শতাংশ মানুষ।

করোনাভাইরাস প্রতিরোধী টিকার দুই ডোজ দেয়া হচ্ছে বিভিন্ন দেশে। তবে দক্ষিণ আমেরিকার দেশ চিলি তিনটি ডোজ দেয়া নিয়ে গবেষণা চালাচ্ছে।

একমাত্র জনসন অ্যান্ড জনসন বাদ দিয়ে বিশ্বের সব দেশে করোনা প্রতিরোধী টিকার সবই দুই ডোজের।

এগুলোর মধ্যে আছে ফাইজার-বায়োএনটেক, মডার্না, অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা, চীনের সিনোভ্যাক, রাশিয়ার স্পুৎনিকসহ সব টিকা। এক ডোজের টিকা প্রস্তুত করেছে শুধু জনসন অ্যান্ড জনসন।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে জানানো হয়, করোনার টিকার শেষ ডোজ হিসেবে তৃতীয় ইনজেকশনের কার্যকারিতা নিয়ে গবেষণা করছে চিলি।

দেশটির প্রেসিডেন্ট সেবাস্টিয়ান পিনেরা মঙ্গলবার জানান, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ আরও ভালোভাবে রোধে তৃতীয় ডোজের প্রয়োজনীয়তা খতিয়ে দেখছেন গবেষকরা।

তিনি বলেন, ‘চলমান সমস্যা সমাধানে সরকার প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। একই সঙ্গে আগামী দিনগুলোতে কী ধরনের সংকট তৈরি হতে পারে, সে বিষয়েও চিন্তাভাবনা ও প্রস্তুতির দরকার আছে আমাদের।’

চিলিতে সম্প্রতি নতুন করে সংক্রমণ বাড়তে থাকায় রূপ পরিবর্তিত ভিন্ন বৈশিষ্ট্যের করোনার ওপর টিকার ডোজ বাড়ানো কার্যকর কি না, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

এমন সময়ে দেশটিতে কিশোর বয়সীদেরও করোনার টিকা দিতে শুরু করেছে সরকার।

বিশ্বে সবচেয়ে দ্রুতগতিতে শতভাগ জনগোষ্ঠীকে টিকার আওতায় আনার লক্ষ্য নিয়ে এগোতে থাকা অন্যতম দেশ চিলি।

টিকাদানে চিলি সরকারের লক্ষ্যের ৭৮ শতাংশ জনগোষ্ঠী কমপক্ষে এক ডোজ নিয়েছে। দুই ডোজ নিয়েছে ৬১ শতাংশ মানুষ।

চিলিতে করোনা প্রতিরোধী টিকাদান কর্মসূচির প্রায় পুরোটাই চীনা প্রতিষ্ঠান সিনোভ্যাকের গবেষণালব্ধ টিকা করোনাভ্যাকের ওপর নির্ভরশীল।

দেশটিতে এ পর্যন্ত ১ কোটি ৬৮ লাখ ডোজ টিকা দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে বেশির ভাগই চীনের করোনাভ্যাক।

৩৯ লাখ ডোজ ফাইজার-বায়োএনটেকের। আর খুব সামান্য অংশ অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা ও চীনের ক্যানসিনো বায়োলজিকসের টিকা।

করোনা প্রতিরোধের বিষয়ে সিনোভ্যাকনির্ভর চিলিতে সম্প্রতি রূপ পরিবর্তিত অধিক সংক্রামক ভাইরাসের ওপর চীনা টিকার কার্যকারিতা নিয়েও প্রশ্নের মুখে পড়েছে দেশটির সরকার।

ঘটনার সূত্রপাত চলতি সপ্তাহে ইন্দোনেশিয়া থেকে। সম্প্রতি করোনার ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের সংক্রমণ বাড়তে শুরু করে দেশটিতে। এর মধ্যে আগে সিনোভ্যাকের টিকা নেয়া ৩৫০ জনের বেশি স্বাস্থ্যকর্মী রোগাক্রান্ত হন।

এরপরই ভিন্ন বৈশিষ্ট্যের করোনার ওপর সিনোভ্যাকের টিকার কার্যকারিতা নিয়ে সন্দেহ শুরু হয় চিলিতে।

ভারতে প্রথম শনাক্ত ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টটি এখন পর্যন্ত চিলিতে শনাক্ত হয়নি। তবে প্রতিবেশী পেরু ও আর্জেন্টিনায় পৌঁছে গেছে সেটি।

শেয়ার করুন

মন্তব্য