ইরানে নির্বাচন কাল, ‘তুমুল’ লড়াইয়ের সম্ভাবনা

ইরানে নির্বাচন কাল, ‘তুমুল’ লড়াইয়ের সম্ভাবনা

ইরানের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ৪ প্রার্থী (বাম থেকে) আব্দলনাসের হেম্মাতি, মোহসেন রেজাই, আমির হোসেন গাজিজাদেহ হাশেমি ও এব্রাহিম রাইসি।

১২ সদস্যের গার্ডিয়ান কাউন্সিলের প্রধান খাদখোদেঈ বলেন, ‘সংবাদমাধ্যম ও জনগণই বলছে, শুক্রবার প্রার্থীদের মধ্যে জোর প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে।’

ইরানে আগামীকালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে চার প্রার্থীর মধ্যে তুমুল লড়াই হবে বলে মন্তব্য করেছেন দেশটির পার্লামেন্টের অভিভাবক পরিষদের (গার্ডিয়ান কাউন্সিল) প্রধান আব্বাস আলী খাদখোদেঈ।

সংবাদ সম্মেলনে বৃহস্পতিবার তিনি এ মন্তব্য করেন বলে বার্তা সংস্থা এএফপির প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

১২ সদস্যের গার্ডিয়ান কাউন্সিলের প্রধান খাদখোদেঈ বলেন, ‘সংবাদমাধ্যম ও জনগণ বলছে, শুক্রবার প্রার্থীদের মধ্যে জোর প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে।’

ইরানের প্রায় ৬ কোটি ভোটারকে কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দিতে আহ্বান জানান তিনি।

বিশ্লেষকদের ধারণা, নির্বাচনে দেশটির কট্টর রক্ষণশীল প্রার্থী প্রধান বিচারপতি এব্রাহিম রাইসির জয়ের সম্ভাবনা বেশি।

খাদখোদেঈ বলেন, নির্বাচনে অংশ নেয়া প্রার্থীরা টেলিভিশনে তিনটি বিতর্কে গুরুতর বাগযুদ্ধে জড়িয়েছেন। এতেই বোঝা যায়, নির্বাচনে তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে।

শুক্রবারের নির্বাচনে জয়ী ব্যক্তি ইরানের মধ্যপন্থি প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানিকে স্থলাভিষিক্ত করবেন। টানা দুইবার চার বছর মেয়াদে দেশটির প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন রুহানি। আগস্টে তার দায়িত্ব হস্তান্তরের কথা।

ইরানের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে অংশ নিতে প্রায় ৬০০ প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন। এদের মধ্যে কেবল সাতজনকে নির্বাচনে দাঁড়ানোর অনুমতি দেয় গার্ডিয়ান কাউন্সিল। এতে অনেক ভোটারই হতাশ হন।

গার্ডিয়ান কাউন্সিলের বাদ পড়া তালিকায় ইরানের পার্লামেন্টের সাবেক স্পিকার আলি লারিজানিসহ ছিলেন আরও অনেক আলোচিত ব্যক্তি। প্রার্থীতা থেকে বাদ দেয়ার সব কারণ আনুষ্ঠানিক ও সর্বসমক্ষে প্রকাশের জন্য কাউন্সিলের প্রতি দাবি জানিয়েছিলেন লারিজানি।

রুহানি পরে জানান, নির্বাচনে জোর প্রতিদ্বন্দ্বিতার জন্য চিঠিতে দেশের সর্বোচ্চ নেতা আলি খামেনিকে আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

অনেক যোগ্য প্রার্থী নির্বাচনে দাড়াঁনোর সুযোগ থেকে বঞ্চিত হওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেন খামেনি। রুহানির চিঠির জবাবে তিনি বলেন, কয়েকজন প্রার্থী ও তাদের পরিবারের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ থাকায় অন্যায়ভাবে তাদের প্রার্থীতা বাতিল করা হয়েছে।

এদিকে নির্বাচনের শেষ সময়ে বুধবার সাত প্রার্থীর মধ্যে তিন প্রার্থী নিজেদের নির্বাচনি লড়াই থেকে সরিয়ে নেন। এরা হলেন সংস্কারপন্থি মোহসেন মেহরালিজাদেহ, চরমপন্থি আলিরেজা জাকানি ও রক্ষণশীল সাঈদ জালিলি।

নির্বাচনে রক্ষণশীল প্রার্থী মোহসেন রেজাই, আমির হোসেন গাজিজাদেহ হাশেমি ও এব্রাহিম রাইসির বিরুদ্ধে লড়াইয়ের ময়দানে সংস্কারপন্থিদের মধ্যে রয়েছেন অপেক্ষাকৃত কম পরিচিত ইরানের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রধান আব্দলনাসের হেম্মাতি।

প্রেসিডেন্ট প্রার্থী রাইসিকে ‘বড় ধরনের শয়তান’ হিসেবে অভিহিত করে থাকে যুক্তরাষ্ট্র।

আরও পড়ুন:
ইরানের ট্যাংকার ছেড়ে দিল ইন্দোনেশিয়া
ইরানের নৌবহরের দিকে যুক্তরাষ্ট্রের গুলি, দাবি পেন্টাগনের
ইরানের সঙ্গে পরমাণু চুক্তি নিয়ে ৫ দেশের আলোচনা শুরু
ইউরেনিয়াম ৬০ শতাংশ সমৃদ্ধকরণ শুরু ইরানের
ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ ৬০ শতাংশ বাড়াচ্ছে ইরান

শেয়ার করুন

মন্তব্য