টিকার সব তথ্য প্রকাশ করল ভারত-বায়োটেক

টিকার সব তথ্য প্রকাশ করল ভারত-বায়োটেক

কোম্পানিটি জানিয়েছে, তথ্যের স্বচ্ছতা প্রকাশে সর্বোচ্চ সর্তকতা নিয়েছে তারা। মানুষের দেহে ট্রায়ালের যাবতীয় তথ্য প্রকাশের ক্ষেত্রে এই প্রতিষ্ঠান দেশে অন্যদের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে। ভারতীয় জনগণের উপর ট্রায়ালে সবচেয়ে বেশী সফলতার রেকর্ড রয়েছে এই টিকার।

ভারতে করোনাভাইরাস প্রতিরোধী টিকা কোভ্যাকসিন তৈরি বিষয়ক সব ধরনের গবেষণা পত্র প্রকাশ করেছে দেশটির শীর্ষস্থানীয় বহুজাতিক ওষুধ প্রস্তুককারক প্রতিষ্ঠান ভারত-বায়োটেক।

দেশীয় প্রযুক্তি ও উপাদান ব্যবহার করে ভারত-বায়োটেকের তৈরি কোভ্যাকসিন টিকার কার্যকারিতা নিয়ে বিতর্ক দেখা গেলে প্রতিষ্ঠানটির কর্তৃপক্ষ এমন পদক্ষেপ নেয়।

এদিকে প্রতিষ্ঠানটি তাদের উৎপাদিত টিকার কার্যকারিতা ও সুরক্ষার উপর করা অন্তত ৯টি গবেষণাপত্র এরিই মধ্যে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় ৫টি সাময়িকীতে গত এক বছরে প্রকাশ করেছে।

দেশটির ওষুধ নিয়ন্ত্রক সংস্থা এর আগে, এই টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগের (ট্রায়াল) তৃতীয় ধাপের তথ্য প্রকাশের নির্দেশ দিয়েছিল। প্রতিষ্ঠানটি প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপের ট্রায়ালের তথ্য প্রকাশ করেছিল। তবে চলতি মাসের ২০ তারিখে তাদের তৃতীয় ধাপের ট্রায়ালের তথ্য প্রকাশ করার কথা রয়েছে।

৬ মাস আগে, জরুরী ব্যবহারের জন্যে অনুমোদন পায় কোভ্যাকসিনের টিকাটি। এর পর থেকেই টিকাটির কার্যকারিতা নিয়ে প্রশ্ন উঠে নানা মহলে। তৃতীয় ধাপের ট্রায়ালের তথ্য প্রকাশ করার জন্যে এরিই মধ্যে দুইবার তারিখ পিছিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

দেশটির সংবাদমাধ্যম দ্য ইন্ডিয়ান টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে শনিবার এক বিবৃতিতে এসব কথা জানিয়েছে ভারত-বায়োটেক।

কোম্পানিটি জানিয়েছে, তথ্যের স্বচ্ছতা প্রকাশে সর্বোচ্চ সর্তকতা নিয়েছে তারা। মানুষের দেহে প্রয়োগের যাবতীয় তথ্য প্রকাশের ক্ষেত্রে এই প্রতিষ্ঠান দেশে অন্যদের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে। ভারতীয় জনগণের উপর ট্রায়ালে সবচেয়ে বেশী সফলতার রেকর্ড রয়েছে এই টিকার।

এর আগে, গত ৯ মার্চ ভারতের উদ্ভাবিত করোনাভাইরাস প্রতিরোধী টিকা ‘কোভ্যাকসিন’ নিরাপদ বলে মত দিয়েছে চিকিৎসাবিষয়ক সাময়িকী দ্য ল্যানসেট।

দ্বিতীয় ধাপের ট্রায়ালের ফল পর্যালোচনা শেষে এই তথ্য জানিয়েছে সাময়িকীটি।

তাদের পর্যালোচনায় বলা হয়, দ্বিতীয় ধাপের ট্রায়াল শেষে টিকাটির কার্যকারিতা সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা পাওয়া যায়নি। তবে এটি নিরাপদ। ট্রায়ালে অংশ নেয়া স্বেচ্ছাসেবীদের মধ্যে গুরুতর কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয়নি।

তৃতীয় ধাপের ট্রায়ালের পর টিকাটির কার্যকারিতা জানা যাবে।

ভারতে প্রাথমিকভাবে দুটি টিকা দেয়া হচ্ছে প্রথম সারির করোনাযোদ্ধাদের। একটি অক্সফোর্ড ও অ্যাস্ট্রাজেনেকা উদ্ভাবিত ‘কোভিশিল্ড’। ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট টিকাটি উৎপাদন করছে।

অন্যটি সম্পূর্ণ দেশীয় পদ্ধতিতে তৈরি কোভ্যাকসিন। ভারত-বায়োটেক এই ভ্যাকসিন তৈরি করেছে।

প্রথম থেকেই কোভ্যাকসিন নিয়ে বিতর্ক ওঠে। অভিযোগ, তৃতীয় পর্যায়ের পরীক্ষার আগেই এই ভ্যাকসিনকে ছাড়পত্র দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। দেশের বিভিন্ন রাজ্যে ভারত-বায়োটেকের টিকা সরবরাহ করা হলেও অনেকেই সেই ভ্যাকসিন নিতে চাইছেন না।

আরও পড়ুন:
কোভ্যাকসিন নিরাপদ, গুরুতর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই: ল্যানসেট

শেয়ার করুন

মন্তব্য