পশ্চিমবঙ্গে হারের পরও বিজেপির উত্থানই

পশ্চিমবঙ্গে হারের পরও বিজেপির উত্থানই

পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির নির্বাচনি প্রচার সভায় দলটির প্রতীকে সজ্জিত এক কর্মী। ছবি: এএফপি

অতিরিক্ত উচ্চাশার নিচে চাপা পড়ে গেছে রাজ্যে বিজেপির অভূতপূর্ব এই সাফল্য। যদিও বিজেপির রাজ্য সহসভাপতি জয়প্রকাশ মজুমদার বলেছেন, ‘আমরা লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারিনি ঠিকই। কিন্তু আমাদের কাছে এই ফল মাইলস্টোন।’

আসনসংখ্যা তিন থেকে ৭৬। আর ভোটের হার ১০ দশমিক ১৬ শতাংশ থেকে ৩৮ দশমিক ০২ শতাংশ।

পশ্চিমবঙ্গ নির্বাচনে জয়ের আগাম ঘোষণা দেয়া বিজেপির পরাজয়ের পরেও দলটির যে আসলে উত্থান হয়েছে, তা নিয়ে আলোচনা সেভাবে হয়নি।

এর কারণ অবশ্য বিজেপিরই অতিকথন।

২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনে রাজ্যের ৪২ আসনের মধ্যে ১৮ আসনে জয়লাভ করেছিল। বিজেপি তখনই স্লোগান তুলেছিল, ‘উনিশে হাফ, একুশে সাফ’।

বাংলা দখলে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্ব। নরেন্দ্র মোদি ও অমিত শাহ ২০০-এর বেশি আসনে জিতে বাংলায় বিজেপি সরকার গঠন করবে বলে দাবি করেছিলেন।

এমনকি ষষ্ঠ দফার ভোটের পর অমিত শাহ বলেছেন, ‘অধিকাংশ আসনে বিজেপি জিতে গেছে। দিদি এবার রাজভবনে হেঁটে গিয়ে, রাজ্যপালের কাছে পদত্যাগপত্র জমা দিন।’

বঙ্গ জয়ের আশায় মোদি-অমিত শাহ কার্যত ঘরবাড়ি বানিয়ে ফেলেছিলেন পশ্চিমবঙ্গকে। তৃণমূলের অন্দরের ভাঙনকে সুকৌশলে ব্যবহার করেছিলেন। কিন্তু বিজেপির এই অতি সক্রিয়তা বাঙালি ভালোভাবে নেয়নি।

ভোটের ফল থেকে একটা জিনিস স্পষ্ট, তৃণমূল সরকারের বিরুদ্ধে মানুষের ক্ষোভ ছিল ঠিকই। কিন্তু তা এমন পর্যায়ে যায়নি যে, এখনই সরকার পাল্টে ফেলতে হবে।

তা ছাড়া মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রতিপক্ষ হিসেবে সামনে ছিলেন শুধু অমিত শাহ ও নরেন্দ্র মোদি।

বিজেপির ভোট প্রচারে যতটা জোর দেয়া হয়েছে জয় শ্রীরাম ধ্বনিতে, ততটা জোর দেয়া হয়নি, ‘সবকা সাথ, সবকা বিকাশ’-এর স্লোগানে।

ঝাঁকে ঝাঁকে তৃণমূল ভেঙে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন নেতারা। এসেছেন একঝাঁক তারকা মুখ। বাবুল সুপ্রিয়, লকেট চ্যাটার্জি, নিশীথ প্রামানিক, স্বপন দাশগুপ্ত, মুকুল রায়, শমীক ভট্টাচার্য, শুভেন্দু অধিকারী, রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের মতো রাজ্য ও কেন্দ্রীয় স্তরের বিজেপি নেতারা এবারের বিধানসভা নির্বাচনে অংশ নিলেও মুকুল রায়, নিশীথ প্রামানিক, শুভেন্দু অধিকারী ছাড়া তেমনভাবে কেউ সাফল্যের মুখ দেখেননি।

আগাগোড়া বিতর্কিত মন্তব্য করা বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেছেন, ‘সভায় মানুষের ভিড় দেখে, ভেবেছিলাম ক্ষমতায় আসছি। যত মানুষ সভায় এসেছেন, সবাই আমাদের ভোট দেননি। হয়তো মানুষ আমাদের বিরোধী হিসেবে দেখতে চেয়েছে।’

বাঙালিয়ানার সঙ্গে বিজেপির সংস্কৃতির সংঘাতের প্রশ্নে কৈলাস বিজয়বর্গীয় বলেছেন, ‘আমরা বাংলার মানুষের মনের গতিবিধি বুঝতে পারিনি।’

কিন্তু পাঁচ বছরে তিন থেকে সাম্প্রতিক নির্বাচনে ৭৬ জন বিধায়ক পেতে চলেছে বিজেপি। এটিও বিশাল অর্জন হিসেবে দেখছেন কর্মী-সমর্থকরা।

যদিও অতিরিক্ত উচ্চাশার নিচে চাপা পড়ে গেছে রাজ্যে বিজেপির অভূতপূর্ব এই সাফল্য।

বিজেপির রাজ্য সহসভাপতি জয়প্রকাশ মজুমদার বলেছেন, ‘আমরা লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারিনি ঠিকই। কিন্তু আমাদের কাছে এই ফল মাইলস্টোন।’

বাম, কংগ্রেস বিধানসভায় শূন্য হয়ে গেছে। আইএসএফ একটিমাত্র আসনে জয়লাভ করেছে।

তাই এবার বিধানসভার ভেতর থাকবে তৃণমূল কংগ্রেস আর বিজেপি মুখোমুখি। নির্বাচনে ৩৮.০২ শতাংশ ভোট পেয়ে বিরোধী দল হিসেবে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য বিধানসভায় বিজেপির মাইলস্টোন উত্থানই বটে।

আরও পড়ুন:
দলছুটদের ছুড়ে ফেললেন ভোটাররা
কলকাতা নির্বাচনে তারকাদের জয়-পরাজয়
তৃণমূলের অনুব্রত এবারও নজরবন্দি
ভোট হলো না পার্নোর, নুসরাত গেলেন সপরিবারে
দুর্দান্ত ফিজে রাজস্থানের জয়, হারছেই কলকাতা

শেয়ার করুন

মন্তব্য

ভারতে যুদ্ধবিমানের চাকা চুরি

ভারতে যুদ্ধবিমানের চাকা চুরি

মিরেজ ২০০০ যুদ্ধ বিমান। ছবি: এএফপি

ফরাসি কোম্পানি ডাসাল্ট অ্যাভিয়েশনের নির্মিত মিরেজ ২০০০ যুদ্ধ অনেক দিন ধরে ব্যবহার করে আসছে ভারত। দেশটির বিমান বাহিনীতে এ ধরনের ৫০টি যুদ্ধবিমান সক্রিয় রয়েছে।

ভারতীয় বিমান বাহিনীর মিরেজ ২০০০ যুদ্ধবিমানের একটি চাকা পরিবহনের সময় তা চুরি হয়ে গেছে। এ ঘটনায় এফআইআর করেছে উত্তর প্রদেশ রাজ্য পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে বিমানের যন্ত্রাংশ বহনকারী ট্রেলারের চালককে।

ফরাসি কোম্পানি ডাসাল্ট অ্যাভিয়েশনের নির্মিত মিরেজ ২০০০ যুদ্ধবিমান অনেক দিন ধরে ব্যবহার করে আসছে ভারত। দেশটির বিমান বাহিনীতে এ ধরনের ৫০টি যুদ্ধবিমান সক্রিয় রয়েছে।

সংবাদমাধ্যম নিউজ ১৮-এর প্রতিবেদনে বলা হয়, সম্প্রতি ভারতের উত্তর প্রদেশের শহর লখনৌতে চলন্ত ট্রেলার থেকে মিরেজ যুদ্ধবিমানের চাকা চুরি হয়ে যায়।

ঘটনাস্থলের সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

পুলিশের এফআইআর থেকে জানা যায়, চালক হেম সিংহ রাওয়াতের বলেছেন, উত্তর প্রদেশে আশিয়ানা থানা এলাকায় শহীদ পথ হাইওয়েতে এসে গভীর রাতে যানজটে আটকে যায় যুদ্ধবিমানের চাকা বহনকারী ট্রেলারটি। এ সময় পাশেই দাঁড়িয়ে থাকা একটি কালো রঙের স্করপিওন গাড়ি থেকে দুজন ব্যক্তি নেমে দড়ি কেটে একটি চাকা নিয়ে পালিয়ে যায়। হেম সিংহ তাদের ধাওয়া করলেও যানজটের কারণে ধরতে সক্ষম হননি।

বিমান বাহিনী জানিয়েছে, লখনৌ বিমান বাহিনী স্টেশন থেকে মিরেজ যুদ্ধবিমানের পাঁচটি চাকা ট্রেলারের মাধ্যমে যোধপুর বিমান ঘাঁটি স্টেশনে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল।

সাধারণ কোনো কাজে মিরেজ যুদ্ধবিমানের চাকা ব্যবহারের সুযোগ নেই। তাই এ ঘটনার অন্য কোনো উদ্দেশ্য আছে কি না, তাও বিবেচনায় রেখেছে ভারতীয় বিমান বাহিনী।

বিমান বাহিনীর নিরাপত্তাকর্মীরাও বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে তদন্ত করছে। বিমান স্টেশন থেকে শহীদ পথ হাইওয়ের ঘটনা সংগঠিত হওয়ার স্থান পর্যন্ত সিসিটিভি ফুটেজ পর্যালোচনা করছে তারা।

মিরেজ ২০০০ চতুর্থ প্রজন্মের কমব্যাট, মাল্টিরোল, সুপারসনিক যুদ্ধবিমান। ভারতীয় বিমান বাহিনী ছাড়াও পাকিস্তান, সংযুক্ত আরব আমিরাতসহ অনেক দেশই এই যুদ্ধবিমান ব্যবহার করে আসছে।

আরও পড়ুন:
দলছুটদের ছুড়ে ফেললেন ভোটাররা
কলকাতা নির্বাচনে তারকাদের জয়-পরাজয়
তৃণমূলের অনুব্রত এবারও নজরবন্দি
ভোট হলো না পার্নোর, নুসরাত গেলেন সপরিবারে
দুর্দান্ত ফিজে রাজস্থানের জয়, হারছেই কলকাতা

শেয়ার করুন

ওমিক্রন: বিশ্বকে সতর্ক করল ডব্লিউএইচও

ওমিক্রন: বিশ্বকে সতর্ক করল ডব্লিউএইচও

বিশ্বজুড়ে দ্রুত বিস্তার হচ্ছে করোনার নতুন ধরন ওমিক্রন। ছবি: বিবিসি

পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকায় ডাব্লিউএইচওর আঞ্চলিক পরিচালক ড. তাকেশি কাসাই বলেন, ‘কয়েক দফা মিউটেশন হওয়ায় ওমিক্রন নিয়ে আমাদের ভাবতে হচ্ছে। এ ছাড়া প্রাথমিক তথ্য বলছে, এটি অন্য সব ধরন থেকে দ্রুত সংক্রমিত হচ্ছে। আমাদের বেশি বেশি পরীক্ষা এবং পর্যবেক্ষণ করা উচিত।’

করোনার নতুন ধরন ওমিক্রনের বিস্তার ঠেকাতে বিশ্বের সব দেশকে প্রস্তুত থাকার পরামর্শ দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

ফিলিপাইনের ম্যানিলা থেকে ভার্চুয়ালি সংবাদ সম্মেলনে শুক্রবার এ সতর্কবার্তা দেন পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকায় ডব্লিউএইচওর আঞ্চলিক পরিচালক ড. তাকেশি কাসাই।

তিনি বলেন, ‘সীমান্ত বন্ধ করে ভাইরাসটির বিস্তার সাময়িকভাবে আটকানো যাবে। কিন্তু প্রতিটি দেশ ও জাতিকে নতুন ঢেউয়ের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে।

‘সবকিছুর মধ্যে ইতিবাচক খবর হলো- ওমিক্রন সম্পর্কে এখন পর্যন্ত যেসব তথ্য পাওয়া গেছে, তাতে এই নতুন ধরন মোকাবিলায় আমাদের নতুন কিছু ভাবতে হচ্ছে না। ডেল্টা ঠেকাতে যেসব শিক্ষা আমরা পেয়েছি, নতুন এই ধরন মোকাবিলায় তা কাজে লাগাতে হবে।’

ওমিক্রন: বিশ্বকে সতর্ক করল ডব্লিউএইচও
পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকায় ডাব্লিউএইচওর আঞ্চলিক পরিচালক ড. তাকেশি কাসাই। ছবি: সংগৃহীত

ড. তাকেশি কাসাই আরও বলেন, ‘কয়েক দফা মিউটেশন হওয়ায় ওমিক্রন নিয়ে আমাদের ভাবতে হচ্ছে। এ ছাড়া প্রাথমিক তথ্য বলছে, এটি অন্য সব ধরন থেকে দ্রুত সংক্রমিত হচ্ছে। আমাদের বেশি বেশি পরীক্ষা এবং পর্যবেক্ষণ করা উচিত।’

আফ্রিকার দেশ বতসোয়ানায় ১১ নভেম্বর প্রথম ‘বি.১.১.৫২৯’ ধরনটি শনাক্ত হয়, যাকে এখন আনুষ্ঠানিকভাবে ‘ওমিক্রন’ বলছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

দ্রুত এই ধরনটি ছড়িয়ে পড়ছে বিশ্বের নানা প্রান্তে। এ পর্যন্ত ৩৭টির বেশি দেশ ও অঞ্চলে এটি শনাক্ত হয়েছে।

নতুন ধরনটি কতটা বিপজ্জনক?

সার্স কভ টু ভাইরাসের নতুন ধরনটি নিয়ে গবেষকদের উদ্বেগের মূল কারণ, এর অনেকবারের মিউটেশন। মিউটেশন হলো এমন এক অভিযোজন কৌশল, যার মাধ্যমে ভাইরাস বিরূপ বা নতুন পরিস্থিতিতেও অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে পারে।

বিজ্ঞানীরা ওমিক্রনের স্পাইক প্রোটিনে ৩২টি মিউটেশন খুঁজে পেয়েছেন। অন্যদিকে অত্যন্ত সংক্রামক হিসেবে বিবেচিত ডেল্টা মিউটেশন হয়েছে মাত্র আটবার।

স্পাইক প্রোটিনের বেশি মিউটেশন মানেই ভাইরাসটি বেশি প্রাণঘাতী- এমন মনে করার কোনো কারণ নেই। তবে বিজ্ঞানীরা বলছেন, বহুবার মিউটেশনের কারণে ওমিক্রনের সঙ্গে মানুষের দেহের প্রতিরোধ ব্যবস্থার (ইমিউনিটি সিস্টেম) লড়াই করা কঠিন হতে পারে।

ওমিক্রনের স্পাইক প্রোটিন প্রচলিত করোনাভাইরাসের স্পাইক প্রোটিনের তুলনায় অনেকটা বদলে যাওয়ায় দেহের ইমিউনিটি সিস্টেম দ্রুত একে শনাক্ত করতে পারে না, ফলে এটি সংক্রমণের হার বাড়াতে পারে। যেকোনো করোনাভাইরাস এদের স্পাইকের সাহায্যেই শ্বাসতন্ত্রের কোষে যুক্ত হয়ে কোষের ভেতর প্রবেশ করে।

প্রাথমিক গবেষণা অনুসারে, নতুন ভ্যারিয়েন্টটি টিকার কার্যক্ষমতা ৪০ শতাংশ পর্যন্ত কমিয়ে দিতে সক্ষম।

যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নতুন ভ্যারিয়েন্টের দুটি মিউটেশন- আর ২০৩কে এবং জি ২০৪আর ভাইরাসটির দ্রুত প্রতিলিপি তৈরি করতে সক্ষম। এ ছাড়া তিনটি মিউটেশন- এইচ৬৫৫ওয়াই, এন ৬৭৯কে এবং পি ৬৮১এইচ ভাইরাসটিকে আরও সহজে মানবকোষে প্রবেশে সাহায্য করে। তারা বলছেন, শেষ দুটি মিউটেশনের একসঙ্গে উপস্থিতি বিরল ঘটনা এবং এর ফলে ওমিক্রন টিকা প্রতিরোধী হয়ে উঠেছে।

অস্ট্রিয়ার ভিয়েনার ইনস্টিটিউট অফ মলিকুলার বায়োটেকনোলজির আণবিক জীববিজ্ঞানী ডা. উলরিচ এলিংয়ের মতে, প্রাথমিক লক্ষণ থেকে মনে হচ্ছে করোনার নতুন রূপটি ডেল্টার চেয়ে ৫০০ শতাংশ বেশি সংক্রামক হতে পারে।

অবশ্য নতুন ভ্যারিয়েন্টটি সার্স কভ টুর আগের ধরনগুলোর তুলনায় বেশি প্রাণঘাতী, এমন কোনো প্রমাণ এখনও মেলেনি। তবে এটি দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার সক্ষমতার কারণে স্বাস্থ্যব্যবস্থাকে নতুন করে চাপে ফেলতে পারে।

আরও পড়ুন:
দলছুটদের ছুড়ে ফেললেন ভোটাররা
কলকাতা নির্বাচনে তারকাদের জয়-পরাজয়
তৃণমূলের অনুব্রত এবারও নজরবন্দি
ভোট হলো না পার্নোর, নুসরাত গেলেন সপরিবারে
দুর্দান্ত ফিজে রাজস্থানের জয়, হারছেই কলকাতা

শেয়ার করুন

ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ মোকাবিলায় প্রস্তুত পশ্চিমবঙ্গ

ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ মোকাবিলায় প্রস্তুত পশ্চিমবঙ্গ

ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ মোকাবিলায় সব ধরনের সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিয়েছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। ছবি: সংগৃহীত

আগামী তিন দিন মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। যারা সমুদ্রে গেছেন তাদের শুক্রবারের মধ্যে ফিরে আসতে বলা হয়েছে। পর্যটকদের সমুদ্রে নামতে নিষেধ করা হয়েছে।

পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ মোকাবিলায় পশ্চিমবঙ্গ সরকারের পক্ষ থেকে সব ধরনের সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

ভারতীয় আবহাওয়া অফিস বলছে, ঘূর্ণিঝড়টি শনিবার সকালের দিকে উত্তর অন্ধ্রপ্রদেশ ও পশ্চিমবঙ্গের কাছে দক্ষিণ ওড়িশার মধ্যে স্থলভাগে আঘাত হানতে পারে।

জাওয়াদের প্রভাব বেশি পড়তে পারে পশ্চিমবঙ্গের দীঘাসহ পূর্ব মেদিনীপুর ও আশপাশ এলাকায়। তাই উপকূলবর্তী এলাকার বাসিন্দাদের মাইকিং করে সতর্ক করে দেয়া হয়েছে।

সেই সঙ্গে আগামী তিন দিন মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। যারা সমুদ্রে গেছেন তাদের শুক্রবারের মধ্যে ফিরে আসতে বলা হয়েছে। পর্যটকদের সমুদ্রে নামতে নিষেধ করা হয়েছে।

দীঘা, শঙ্করপুর, মন্দারমনি, তাজপুরের সমুদ্রতটগুলোতে বিশেষ নজরদারি ব্যবস্থা করা হয়েছে। ওয়াচ টাওয়ার থেকেও নজরদারির ব্যবস্থা থাকছে।

জাওয়াদ মোকাবিলায় প্রশাসন প্রস্তুত বলে পূর্ব মেদিনীপুরের জেলা প্রশাসক পূর্ণেন্দু মাজি বলেন, ‘ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলা করতে সব রকম প্রস্তুতি আমরা নিয়েছি।’

ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় বৃহস্পতিবারই জেলা প্রশাসনের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তারা বৈঠকে বসেন।

আলিপুর আবহাওয়া অফিস থেকে জানানো হয়েছে, শুক্রবার কলকাতার আকাশ আংশিক মেঘলা থাকবে। আকাশে মেঘ থাকায় তাপমাত্রা কিছুটা বাড়বে। কমতে পারে শীত। তবে বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই। বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপের জেরে শনিবার থেকে বৃষ্টি হবে দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা ও দুই মেদিনীপুরে। সঙ্গে ঝড়ো হাওয়া থাকবে। ক্রমশ বৃষ্টির পরিমাণ বাড়বে। এ অবস্থা চলবে সোমবার পর্যন্ত।

রোববার ও সোমবার দুই মেদিনীপুর এবং দুই চব্বিশ পরগনা, হাওড়া, ঝাড়গ্রামে অতি ভারী বৃষ্টির সর্তকতা দিয়েছে আবহাওয়া অফিস। বলা হয়েছে, কলকাতা, হুগলি নদীয়াতে ও বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। ৪০ থেকে ৫০ কিলোমিটার বেগে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে।

ভারতীয় আবহাওয়া অফিস বলছে, দক্ষিণ থাইল্যান্ডে সৃষ্ট নিম্নচাপটি ক্রমশ গতি বাড়িয়ে ভারতের অন্ধ্র প্রদেশ ও উড়িশা উপকূলের দিকে এগিয়ে আসছে।

আগাম সতর্কতা হিসেবে ভারতীয় রেলের পূর্ব ও দক্ষিণ-পূর্ব রেলের একাধিক ট্রেন বাতিল করা হয়েছে।

পূর্ব রেল সূত্রে জানা গেছে, ৯৫টি ট্রেন বাতিল করা হয়েছে। রেল অফিসের টুইটারে জানানো হয়, আবহাওয়া অফিসের পূর্বাভাস অনুযায়ী আগামী ৩ থেকে ৪ ডিসেম্বরের মধ্যে ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ উড়িশা উপকূলে আছড়ে পড়তে পারে। তাই বিভিন্ন স্টেশন থেকে আপ ও ডাউন ট্রেনের ৯৫টি ট্রেন বাতিল করেছে রেল। সেই সঙ্গে দক্ষিণ-পূর্ব রেলের ২৭টি আপ ও ২২টি ডাউনের দূরপাল্লার ট্রেন বাতিল করা হয়েছে।

দক্ষিণ-পূর্ব রেলের জনসংযোগ কর্মকর্তা জানান, যাত্রীদের সুরক্ষার বিষয়টি মাথায় রেখেই এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। যেসব যাত্রীদের আগে থেকে আসন সংরক্ষণ করা ছিল তাদের ফোনে মেসেজ পাঠিয়ে দেয়া হবে। তারা টিকিটের টাকা ফেরত পাবেন।

আরও পড়ুন:
দলছুটদের ছুড়ে ফেললেন ভোটাররা
কলকাতা নির্বাচনে তারকাদের জয়-পরাজয়
তৃণমূলের অনুব্রত এবারও নজরবন্দি
ভোট হলো না পার্নোর, নুসরাত গেলেন সপরিবারে
দুর্দান্ত ফিজে রাজস্থানের জয়, হারছেই কলকাতা

শেয়ার করুন

আফগান নারীরা শিগগিরই অধিকার ফিরে পাবেন: হামিদ কারজাই

আফগান নারীরা শিগগিরই অধিকার ফিরে পাবেন: হামিদ কারজাই

আফগানিস্তানের সাবেক প্রেসিডেন্ট হামিদ কারজাই। ছবি: বিবিসি

বিবিসিকে দেয়া সাক্ষাৎকারে সাবেক আফগান প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘নারীরা শিগগিরই কর্মক্ষেত্রে ফিরতে পারবেন। মেয়েরাও স্কুল-কলেজে যাওয়ার অনুমতি পাবে। এ বিষয়ে তালেবানের সঙ্গে আমাদের আলোচনা হয়েছে।’

তালেবানকে নিজের ভাই বলে সম্বোধন করেছেন আফগানিস্তানের সাবেক প্রেসিডেন্ট হামিদ কারজাই। বিবিসিকে দেয়া বিশেষ সাক্ষাৎকারে বৃহস্পতিবার কারজাই জানান, নতুন তালেবান সরকারের সঙ্গে তার চমৎকার বোঝাপড়া। তাদের সঙ্গে বৈঠকে বিরোধপূর্ণ অনেক ইস্যু নিয়ে ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘তালেবানদের আমি ভাইয়ের মতো দেখি, যেমনটা আর সব আফগান নাগরিকের ভাবি। দেশের স্বার্থে আমাদের ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। আমরা এক দেশের নাগরিক, এক জাতি। আমরা এখন ধুঁকছি।’

২০০১ সালে তালেবান সরকারের পতনের পর আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট পদে দুই দফায় ছিলেন হামিদ কারজাই।

সাক্ষাৎকারে কারজাই বলেন, নারীরা শিগগিরই কর্মক্ষেত্রে ফিরতে পারবেন। মেয়েরাও স্কুল-কলেজে যাওয়ার অনুমতি পাবে। এ বিষয়ে তালেবানের সঙ্গে আমাদের আলোচনা হয়েছে।’

কবে কোথায় বৈঠক হয়েছিল, তা উল্লেখ করেননি সাবেক এই প্রেসিডেন্ট।

আফগানিস্তান থেকে যুক্তরাষ্ট্রের সেনা প্রত্যাহারের মধ্যেই গত ১৫ আগস্ট রাজধানী কাবুল দখলে নেয় তালেবান। উদারনীতির প্রতিশ্রুতি দিলেও অতীতের তিক্ত অভিজ্ঞতায় দেশ ছেড়ে পালিয়ে যান অনেক নাগরিক।

সাক্ষাৎকারে এসব নাগরিকের ফিরে দেশ গঠনে সহায়তা করার আহ্বান জানান হামিদ কারজাই।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে কোনো বার্তা দিতে চান কি না- এমন প্রশ্নের উত্তরে কারজাই বলেন, ‘এটা ভালো হবে যদি যুক্তরাষ্ট্রের সেনারা আবার আফগানিস্তানে এসে জনগণকে সাহায্য করে। আফগানিস্তান পুনর্গঠনে যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদের এগিয়ে আসা উচিত।’

আরও পড়ুন:
দলছুটদের ছুড়ে ফেললেন ভোটাররা
কলকাতা নির্বাচনে তারকাদের জয়-পরাজয়
তৃণমূলের অনুব্রত এবারও নজরবন্দি
ভোট হলো না পার্নোর, নুসরাত গেলেন সপরিবারে
দুর্দান্ত ফিজে রাজস্থানের জয়, হারছেই কলকাতা

শেয়ার করুন

পাকিস্তানে ধর্ম অবমাননার অভিযোগে শ্রীলঙ্কানকে পুড়িয়ে হত্যা

পাকিস্তানে ধর্ম অবমাননার অভিযোগে শ্রীলঙ্কানকে পুড়িয়ে হত্যা

শিয়ালকোটের পুলিশপ্রধান আরমাগান গোন্ডাল বার্তা সংস্থা এপিকে জানিয়েছেন, হত্যার আগে প্রিয়ান্থা কুমারার বিরুদ্ধে হজরত মুহম্মদের (স.) নামসংবলিত একটি পোস্টার অবমাননার অভিযোগ তুলেছিল শ্রমিকরা। কারখানার ভেতরেই নির্যাতনে হত্যার শিকার হন তিনি। পরে তার মরদেহ পুড়িয়ে দেয়া হয়।

ইসলাম ধর্মের নবী হজরত মুহম্মদকে (স.) অবমাননার অভিযোগে পাকিস্তানের পাঞ্জাবের শিয়ালকোটের এক কারখানার শ্রীলঙ্কান কর্মকর্তাকে নির্যাতনের পর পুড়িয়ে হত্যা করেছে শ্রমিকরা।

পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যম ডনের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

শুক্রবার স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ১১টার দিকে শিয়ালকোটের ওয়াজিরাবাদ সড়কে এ ঘটনা ঘটে। প্রিয়ান্থা কুমারা নামে ওই শ্রীলঙ্কান কারখানাটির রপ্তানিবিষয়ক কর্মকর্তা ছিলেন।

শিয়ালকোটের পুলিশপ্রধান আরমাগান গোন্ডাল বার্তা সংস্থা এপিকে জানিয়েছেন, হত্যার আগে প্রিয়ান্থা কুমারার বিরুদ্ধে হজরত মুহম্মদের (স.) নামসংবলিত একটি পোস্টার অবমাননার অভিযোগ তুলেছিল শ্রমিকরা। কারখানার ভেতরেই নির্যাতনে হত্যার শিকার হন তিনি। পরে তার মরদেহ পুড়িয়ে দেয়া হয়।

এ ঘটনায় শুক্রবার রাত ৮টা পর্যন্ত ৫০ জনকে গ্রেপ্তারের কথা জানিয়েছেন পাঞ্জাব সরকারের মুখপাত্র হাসান খাওয়ার।

শিয়ালকোটের আরেক পুলিশ কর্মকর্তা সাইদ মালিক জানিয়েছেন, হত্যার প্রকৃত কারণ খতিয়ে দেখা হচ্ছে। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে।

ইতিমধ্যে এই হত্যাকাণ্ডের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে।

শুক্রবার রাত ৮টার দিকে এক টুইট বার্তায় শিয়ালকোট হত্যাকাণ্ডের নিন্দা জানিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

তিনি লিখেছেন, ‘শিয়ালকোটের কারখানায় ঘটা সংঘবদ্ধ নৃশংসতা ও শ্রীলঙ্কান ম্যানেজারকে জীবন্ত পুড়িয়ে মারার ঘটনা পাকিস্তানের জন্য লজ্জার দিন। আমি তদন্তের বিষয়টি দেখভাল করছি। এই ঘটনায় জড়িত সবাইকে আইনের আওতায় এনে শাস্তি দেয়া হবে। অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের প্রক্রিয়া চলছে।’

তবে শুক্রবার রাত ৯টা পর্যন্ত এ ঘটনায় কোনো মন্তব্য জানায়নি শ্রীলঙ্কা সরকার।

হত্যাকাণ্ডের এই ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালসহ বেশ কয়েকটি মানবাধিকার সংগঠন।

২০১০ সালেও শিয়ালকোটে একই রকম ঘটনা ঘটেছিল। ওই সময় ডাকাত আখ্যা দিয়ে দুই ভাইকে পিটিয়ে হত্যা করেছিল স্থানীয়রা।

পাকিস্তানের রাষ্ট্রীয় আইনে ধর্ম অবমাননার সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড।

আরও পড়ুন:
দলছুটদের ছুড়ে ফেললেন ভোটাররা
কলকাতা নির্বাচনে তারকাদের জয়-পরাজয়
তৃণমূলের অনুব্রত এবারও নজরবন্দি
ভোট হলো না পার্নোর, নুসরাত গেলেন সপরিবারে
দুর্দান্ত ফিজে রাজস্থানের জয়, হারছেই কলকাতা

শেয়ার করুন

দিল্লির দূষণ নিয়ন্ত্রণে টাস্ক ফোর্স

দিল্লির দূষণ নিয়ন্ত্রণে টাস্ক ফোর্স

দিল্লি ও আশপাশ এলাকার বায়ু দূষণ নিয়ন্ত্রণে বেশ কিছু উদ্যোগ নিয়েছে ভারত সরকার। ফাইল ছবি

রাজধানীতে দূষণের মাত্রা পরীক্ষা করতে ভারত সরকার এবং রাজ্যগুলোর অক্ষমতার বিষয়ে সুপ্রিম কোর্ট তীব্র অসন্তোষ প্রকাশ করার একদিন পর সরকার এই সিদ্ধান্তের কথা জানাল।

দিল্লি ও পার্শ্ববর্তী অঞ্চলে বায়ুর গুণমান ব্যবস্থাপনা কমিশন ক্রমবর্ধমান বায়ু দূষণের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে পদক্ষেপ নিতে একটি ‘এনফোর্সমেন্ট টাস্ক ফোর্স’ গঠন করেছে বলে সুপ্রিম কোর্টকে জানিয়েছে ভারত সরকার।

রাজধানীতে দূষণের মাত্রা পরীক্ষা করতে ভারত সরকার এবং রাজ্যগুলোর অক্ষমতার বিষয়ে সুপ্রিম কোর্ট তীব্র অসন্তোষ প্রকাশ করার একদিন পর শুক্রবার সরকার এই সিদ্ধান্তের কথা জানাল।

সুপ্রিম কোর্টে দাখিল করা একটি হলফনামায় সরকার জানিয়েছে, পাঁচ সদস্যের টাস্কফোর্স দূষণ নিয়ন্ত্রণ লঙ্ঘনকারীদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক এবং প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নেয়ার ক্ষমতা প্রয়োগ করবে।

পাঁচ সদস্যের কেন্দ্রীয় টাস্কফোর্সের অংশ হিসেবে আরও ১৭টি টাস্কফোর্স গঠন করা হয়েছে। তারা সরাসরি মূল টাস্কফোর্সকে রিপোর্ট করবে।

এর আগে, কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ এবং সংশ্লিষ্ট রাজ্য দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ বায়ু দূষণের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে নজরদারি করতো।

সরকার হলফনামায় জানিয়েছে, এই ফ্লাইং স্কোয়াডগুলো ২ ডিসেম্বর থেকে কাজ শুরু করেছে এবং ইতোমধ্যে ২৫টি জায়গায় অতর্কিত পরিদর্শন চালিয়েছে। সরকার আশ্বাস দিয়েছে, আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে এই জাতীয় স্কোয়াডের সংখ্যা ৪০-এ উন্নীত করা হবে।

হলফনামায় বলা হয়েছে, দিল্লি ও সংলগ্ন অঞ্চলের সব স্কুল ও কলেজ পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। সিএনজি বা বিদ্যুতচালিত এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য পরিবহন ছাড়া ট্রাকের প্রবেশও নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

দিল্লি ও সংলগ্ন অঞ্চলের শিল্প ইউনিটগুলো যেগুলো পিএনজি বা ক্লিনার জ্বালানিতে চলছে না তাদের সপ্তাহের দিনগুলোতে দিনে মাত্র ৮ ঘণ্টা পর্যন্ত কাজ করার অনুমতি দেয়া হবে এবং সপ্তাহান্তে বন্ধ থাকবে।

এছাড়া, দিল্লির ৩০০ কিলোমিটারের মধ্যে অবস্থিত ১১টি তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের মধ্যে পাঁচটি আগামী ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত চালু থাকবে।

আরও পড়ুন:
দলছুটদের ছুড়ে ফেললেন ভোটাররা
কলকাতা নির্বাচনে তারকাদের জয়-পরাজয়
তৃণমূলের অনুব্রত এবারও নজরবন্দি
ভোট হলো না পার্নোর, নুসরাত গেলেন সপরিবারে
দুর্দান্ত ফিজে রাজস্থানের জয়, হারছেই কলকাতা

শেয়ার করুন

জাতিসংঘ সদর দপ্তরে অবস্থান নেয়া বন্দুকধারীর আত্মসমর্পণ

জাতিসংঘ সদর দপ্তরে অবস্থান নেয়া বন্দুকধারীর আত্মসমর্পণ

জাতিসংঘ সদর দপ্তরের সামনে বন্দুকধারীকে আটক করে পুলিশ। ছবি: রয়টার্স

তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা হিসেবে পুলিশ জাতিসংঘ সদর দপ্তরের চারপাশের রাস্তা বন্ধ করে দেয়। তিন ঘণ্টার জন্য সদর দপ্তর অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে।

নিউ ইয়র্ক পুলিশের চেষ্টায় আত্মসমর্পণ করেছেন জাতিসংঘ সদর দপ্তরের সামনে অবস্থান নেয়া বন্দুকধারী। তিনি এখন পুলিশ হেফাজতে রয়েছেন।

রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, বন্দুকধারী ব্যক্তি নিজের গলায় বন্দুক ঠেকিয়ে জাতিসংঘ সদর দপ্তরের ভবনের সামনে অবস্থান নেন।

তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা হিসেবে পুলিশ জাতিসংঘ সদর দপ্তরের চারপাশের রাস্তা বন্ধ করে দেয়। তিন ঘণ্টার জন্য সদর দপ্তর অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে।

সরাসরি সম্প্রচার করা ভিডিওতে বন্দুকধারী ব্যক্তিকে পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করতে দেখা গেছে। ধারণা করা হচ্ছে, তিনি ষাটোর্ধ্ব ব্যক্তি।

নিউ ইয়র্ক পুলিশ ডিপার্টমেন্ট এক টুইট বার্তায় জানায়, ওই ব্যক্তি এখন পুলিশ হেফাজতে রয়েছেন এবং সাধারণ মানুষের জন্য কোনো হুমকি নেই।

এর আগে জাতিসংঘ জানিয়েছিল, এলাকাটি সুরক্ষিত থাকায় জাতিসংঘের কোনো কর্মী বা সহযোগী বিপদে নেই। এই ঘটনায় জাতিসংঘের বৈঠকও বাধাগ্রস্ত হয়নি।

বন্দুকধারী ব্যক্তি জাতিসংঘের সঙ্গে যুক্ত নন বলেও জানায় জাতিসংঘ।

আরও পড়ুন:
দলছুটদের ছুড়ে ফেললেন ভোটাররা
কলকাতা নির্বাচনে তারকাদের জয়-পরাজয়
তৃণমূলের অনুব্রত এবারও নজরবন্দি
ভোট হলো না পার্নোর, নুসরাত গেলেন সপরিবারে
দুর্দান্ত ফিজে রাজস্থানের জয়, হারছেই কলকাতা

শেয়ার করুন