× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

আন্তর্জাতিক
সোমালিয়ায় আত্মঘাতী গাড়িবোমা হামলায় নিহত ২০
hear-news
player
google_news print-icon

সোমালিয়ায় আত্মঘাতী গাড়িবোমায় নিহত ২০

সোমালিয়ায়-আত্মঘাতী-গাড়িবোমায়-নিহত-২০
আত্মঘাতী গাড়িবোমা বিস্ফোরণের পর ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয় এলাকাটি। ছবি: এএফপি
নৈশভোজের জন্য রেস্তোরাঁয় অনেক মানুষের সমাগম ছিল। বিস্ফোরণের পর ধোঁয়ায় ছেয়ে যায় গোটা এলাকা। এরপর শুরু হয় গোলাগুলি।

সোমালিয়ার রাজধানী মোগাদিসুতে আত্মঘাতী গাড়িবোমা হামলায় ২০ জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে কমপক্ষে ৩০ জন।

বন্দর এলাকার একটি রেস্তোরাঁর বাইরে শুক্রবার রাতে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীর বরাতে আল জাজিরা জানিয়েছে, নৈশভোজের জন্য রেস্তোরাঁয় অনেক মানুষের সমাগম ছিল। বিস্ফোরণের পর ধোঁয়ায় ছেয়ে যায় গোটা এলাকা। এরপর শুরু হয় গোলাগুলি।

বিস্ফোরণে রেস্তোরাঁর পাশের একটি ভবন ধসে পড়ে। এ ঘটনায় ধ্বংসস্তূপের নিচে অনেকেই আটকা থাকতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

স্থানীয় অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস আমিনের প্রতিষ্ঠাতা ড. আবদুল কাদির আদেন বলেন, ‘এ পর্যন্ত ঘটনাস্থল থেকে ২০ জনের মরদেহ উদ্ধার হয়েছে। আহত ৩০ জনকে বিস্ফোরণস্থল থেকে সরিয়ে নেয়া হয়েছে।’

স্থানীয় বাসিন্দা আহমেদ আব্দুল্লাহি জানান, দ্রুতগতিতে ছুটে আসা একটি গাড়ি লুল ইয়েমেনি রেস্তোরাঁর সামনে বিস্ফোরিত হয়।

‘আমি রেস্তোরাঁয় যাচ্ছিলাম। বিস্ফোরণের শব্দে ফিরে আসি। পেছনে ফিরে দেখি ধোঁয়ায় ছেয়ে গেছে এলাকা।’

নিরাপত্তা কর্মকর্তা মোহাম্মদ ওসমান বলেন, ‘শক্তিশালী বিস্ফোরণে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। হতাহতের সংখ্যা বাড়ার আশঙ্কা রয়েছে।’

হামলার দায় স্বীকার করেনি কেউ। পুলিশের মুখপাত্র সাদিক আদেন হামলার জন্য জঙ্গি সংগঠন আল শাবাবকে দায়ী করেছেন।

আল-কায়েদার মতাদর্শী আল শাবাব সোমালিয়ায় বিভিন্ন সময় এ ধরনের বোমা হামলা চালিয়ে আসছে।

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
Domestic workers in the Emirates are entitled to 30 days of annual leave

আমিরাতে গৃহকর্মীকে বছরে ছুটি দিতে হবে ৩০ দিন

আমিরাতে গৃহকর্মীকে বছরে ছুটি দিতে হবে ৩০ দিন সংযুক্ত আরব আমিরাতে কর্মরত অভিবাসী গৃহকর্মী। ছবি: গালফ নিউজ
অধ্যাদেশে বলা হয়েছে, প্রত্যেক গৃহকর্মীর বছরে ছুটি ৩০ দিনের কম হতে পারবে না। বাৎসরিক এই ছুটি শুরুর তারিখ নির্ধারণের স্বাধীনতা রয়েছে প্রতিটি কর্মীর। বার্ষিক ছুটি কাটানোর জন্য কর্মী নিজের দেশে যেতে চাইলে নিয়োগকর্তাকে অবশ্যই উড়োজাহাজের টিকিট কেনার খরচ বহন করতে হবে। প্রতি দুই বছরে একবার এই খরচ দিতে হবে কর্মীকে।

মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাতে গৃহকর্মীদের অধিকার সুরক্ষায় নতুন ফেডারেল আইন অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

স্থানীয় সময় বুধবার নতুন শ্রম আইনের খসড়ার অনুমোদন দেয় দেশটির শ্রমবিষয়ক মন্ত্রণালয় ‘হিউম্যান রিসোর্স অ্যান্ড এমিরেটাইজেসন’।

দেশটির রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা এমিরেটস নিউজ এজেন্সির (ডব্লিউএএম) বরাত দিয়ে এ খবর প্রকাশ করেছে আরব নিউজ

জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমইটি) তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ শ্রমবাজার সংযুক্ত আরব আমিরাতে বাংলাদেশি অভিবাসীর সংখ্যা প্রায় ৮ লাখ।

দেশটিতে কর্মরত গৃহকর্মীদের একদিন সাপ্তাহিক ছুটি দিতে হবে। যদি বিশেষ কারণে সাপ্তাহিক ছুটি না দেয়া হয় সেক্ষেত্রে নিয়োগকর্তাকে ওই কর্মীকে সেই দিনের মজুরি দিতে হবে।

শ্রমবিষয়ক মন্ত্রণালয় ‘হিউম্যান রিসোর্স অ্যান্ড এমিরেটাইজেসন’ এর নির্বাহী প্রস্তাবে এসব উল্লেখ করা হয়েছে।

অধ্যাদেশে বলা হয়েছে, প্রত্যেক গৃহকর্মীর বছরে ছুটি ৩০ দিনের কম হতে পারবে না। বাৎসরিক এই ছুটি শুরুর তারিখ নির্ধারণের স্বাধীনতা রয়েছে প্রতিটি কর্মীর।

বার্ষিক ছুটি কাটানোর জন্য কর্মী নিজের দেশে যেতে চাইলে নিয়োগকর্তাকে অবশ্যই উড়োজাহাজের টিকিট কেনার খরচ বহন করতে হবে। প্রতি দুই বছরে একবার এই খরচ দিতে হবে কর্মীকে।

সেই সঙ্গে নিয়োগকর্তা ও নিয়োগ প্রতিষ্ঠান পরিবর্তনের অধিকারও নিশ্চিত করা হয়েছে এই নতুন আইনে।

অন্যদিকে, ওই কর্মী যদি কোনো অন্যায় আচরণ করে তবে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে মন্ত্রণালয় বরাবর আবেদন করতে পারবেন নিয়োগকর্তা।

আমিরাতে গৃহকর্মীকে বছরে ছুটি দিতে হবে ৩০ দিন

আমিরাতে কর্মরত অভিবাসী গৃহকর্মী। ছবি: গালফ টুডে

চাকরির মেয়াদ যদি ৬ মাসের বেশি ও এক বছরের কম হয় তবে কর্মীকে মাসে অন্তত ২ দিন বাধ্যতামূলক ছুটি দিতে হবে।

এ ছাড়া অসুস্থ শ্রমিকের চিকিৎসার জন্য ৩০ দিনের ছুটি পাওয়ার অধিকার রয়েছে। সংশোধিত খসড়া আইনে শ্রমিকদেরকে তাদের দেশে ফেরত পাঠানোর খরচ নিয়োগকারী অফিস বহন করবে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

এর আগে ২০১৭ সালের ১ জুন, গৃহকর্মীদের অধিকার সুরক্ষায় নতুন শ্রম আইনের খসড়ায় অনুমোদন দেয় আমিরাতের ফেডারেল ন্যাশনাল কাউন্সিল (এফএনসি)।

এতে বলা হয়েছে, নাগরিকদের সবচেয়ে ভালো সেবাদান নিশ্চিতে নতুন শ্রম আইনের খসড়ায় অনুমোদন দেয়া হয়। এ ছাড়া গৃহকর্মীদের অধিকার সুরক্ষা ও নিয়োগ প্রক্রিয়াসহ বিভিন্ন বিষয়ে সচ্চতা ও জবাবদিহিতা আনাই বিশেষ এই আইনের মূল লক্ষ্য।

নিয়োগকারী, শ্রমিক ও নিয়োগকারী সংস্থাগুলোর মধ্যে ত্রিপক্ষীয় সম্পর্ক জোরালো করতে নতুন শ্রম আইনের খসড়ায় অনুমোদন দিয়েছে এফএনসি।

সেই সঙ্গে খসড়ায় ১৮ বছরের কম বয়সী শ্রমিক নিয়োগে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে। একই সঙ্গে শ্রমিক নিয়োগে আমিরাতের নাগরিক নন, এমন কেউ মধ্যস্থতাকারী হিসেবে কাজ করতে পারবেন না।

আরও পড়ুন:
গৃহকর্মীদের সুরক্ষায় সঠিক নীতিমালা প্রণয়নে হাইকোর্টের রুল
৭ তলা থেকে পড়ে গৃহকর্মী নিহত
অতিরিক্ত আইজিপির গৃহকর্মীর ফাঁস ছাড়া আঘাতের চিহ্ন নেই
ইস্তাম্বুলে এরদোয়ানের সঙ্গে বৈঠক আমিরাতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
The daughter of Irans former president was arrested on charges of inciting protests

বিক্ষোভে ‘উসকানি’: ইরানের সাবেক প্রেসিডেন্টের মেয়ে গ্রেপ্তার

বিক্ষোভে ‘উসকানি’: ইরানের সাবেক প্রেসিডেন্টের মেয়ে গ্রেপ্তার পূর্ব তেহরান থেকে গ্রেপ্তারের পর ইরানের সাবেক প্রেসিডেন্ট আকবর হাশেমি রাফসানজানির মেয়ে ফাইজেহ হাশেমি। ছবি: এএফপি
আন্দোলনকারীদের উসকে দেয়ার অভিযোগে পূর্ব তেহরান থেকে ফাইজেহ হাশেমিকে গ্রেপ্তার করেছে দেশটির একটি গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা। নিরাপত্তা সংস্থার দাবি, উসকানি দিয়েও তিনি মানুষকে রাস্তায় নামাতে ব্যর্থ হয়েছেন।

ইরানে পুলিশি হেফাজতে কুর্দি তরুণী মাহসা আমিনির মৃত্যুর ঘটনায় ছড়িয়ে পড়া বিক্ষোভে উসকানি দেয়ার অভিযোগে এবার গ্রেপ্তার করা হয়েছে দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্ট আকবর হাশেমি রাফসানজানির মেয়ে ফাইজেহ হাশেমিকে।

রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা তাসনিম নিউজ এজেন্সির বরাত দিয়ে আনাদৌলু এজেন্সির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আন্দোলনকারীদের উসকে দেয়ার অভিযোগে পূর্ব তেহরান থেকে তাকে গ্রেপ্তার করেছে দেশটির একটি গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা। নিরাপত্তা সংস্থার দাবি, উসকানি দিয়েও তিনি মানুষকে রাস্তায় নামাতে ব্যর্থ হয়েছেন।

প্রেসিডেন্ট পদে নারী প্রার্থী হিসেবে ৫৯ বছর বয়সী বিশিষ্ট নারী অধিকারকর্মী ফাইজেহ হাশেমির নাম শোনা যাচ্ছে।

বিভিন্ন ইস্যুতে সরকারবিরোধী আন্দোলনে সংক্রিয় থাকায় তিনি গোয়েন্দা সংস্থার নজরদারিতে ছিলেন।

এর আগে, ২০১২ সালের সেপ্টেম্বরে সরকারবিরোধী প্রচারণারমূলক কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে ৬ মাস তেহরানের কারাগারে থাকতে হয় তাকে।

২০০৯ সালে সরকারবিরোধী বিক্ষোভে জড়িত থাকার অভিযোগেও গ্রেপ্তার হয়েছিলেন কয়েকবার।

১৯৮৯ থেকে ১৯৯৭ পর্যন্ত প্রেসিডেন্টের দায়িত্বে থাকা আলী আকবর রাফসানজানি ইরান বিপ্লবের অন্যতম সংগঠক। সংস্কারপন্থি এই নেতা এর পরও বিভিন্ন রাষ্ট্রীয় গুরুত্ব পদে দায়িত্ব পালন করেন। ২০১৭ সালে তার মৃত্যু হয়। তবে যোগ্যতায় তার মেয়েও কম নন।

সম্প্রতি ইরানে ‘সঠিকভাবে’ হিজাব না করার অভিযোগে গ্রেপ্তারের পর কুর্দি তরুণী মাহসা আমিনির পুলিশি হেফাজতে মৃত্যুর ঘটনায় দেশজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে তুমুল বিক্ষোভ।

বিক্ষোভে ‘উসকানি’: ইরানের সাবেক প্রেসিডেন্টের মেয়ে গ্রেপ্তার

মাহসা আমিনির মৃত্যুর পর বিক্ষোভে উত্তাল ইরান। ছবি: এএফপি

রাজধানী তেহরানসহ অন্তত ৮০টি শহর এখন অগ্নিগর্ভ। পোশাকের স্বাধীনতার দাবিতে চলমান বিক্ষোভে সোমবার পর্যন্ত ৭৫ জনের বেশি মানুষ মারা গেছেন, বলে জানিয়েছে ওসলোভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা ইরান হিউম্যান রাইটস। এ সময় আহত হয়েছেন হাজারের বেশি মানুষ।

১৯৭৯ সালে দেশটিতে ইসলামি বিপ্লবের পর থেকে নারীর পোশাক ইস্যুতে সবচেয়ে বড় বিক্ষোভ এটি।

ইরানে ১৯৭৯ সালের ওই বিপ্লবের পরই নারীদের জন্য হিজাব বাধ্যতামূলক করা হয়। দেশটির ধর্মীয় শাসকদের কাছে নারীদের জন্য এটি ‘অতিক্রম-অযোগ্য সীমারেখা’। বাধ্যতামূলক এই পোশাকবিধি মুসলিম নারীসহ ইরানের সব জাতিগোষ্ঠী ও ধর্মের নারীদের জন্য প্রযোজ্য।

এর আগে দেশটির ‘নৈতিকতা পুলিশ’ ইউনিটের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয় যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডা।

স্থানীয় সময় সোমবার কানাডার অটোয়ায় দেশটি প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘কুর্দি তরুণী মাহসা আমিনির মৃত্যুর প্রতিবাদে দেশজুড়ে বিক্ষোভে ফেটে পড়া আন্দোলনকারীদের ওপর ইসলামিক রিপাবলিকটির সরকারের নজীরবিহীন দমন-পীড়নের কারণে এই নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে। তথাকথিত নৈতিকতা পুলিশ সদস্যরা, প্রজাতন্ত্রের একাধিক শীর্ষ কর্মকর্তা ও সংস্থা এর আওতায় পড়বে।’

একই ইস্যুতে স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার দেশটির বিতর্কিত নৈতিকতা পুলিশের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ট্রেজারি বিভাগ।

বিবৃতিতে যুক্তরাষ্ট্র জানিয়েছে, কুর্দি তরুণীর মৃত্যুর দায় দেশটির নৈতিকতা পুলিশ ইউনিটের। এই মৃত্যুর প্রতিবাদে বিক্ষোভরত নারীদের পুলিশের নির্বিচার দমন-পীড়নের ঘটনায় এমন নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে।

নারীর জন্য কঠোর পোশাকবিধি দেখভালের দায়িত্বে আছে ইরানের ‘নৈতিকতা পুলিশ’ ইউনিট, ফারসি ভাষায় যার প্রাতিষ্ঠানিক নাম ‘গাস্ত-ই এরশাদ’। নিবর্তনমূলক ভূমিকার কারণে এই ইউনিট দীর্ঘদিন ধরেই অত্যন্ত অজনপ্রিয়। মাহসার মৃত্যুকে কেন্দ্র করে ইরানে ‘নৈতিকতা পুলিশ’-এর বিরুদ্ধে ক্ষোভের বিস্ফোরণ ঘটেছে। পাশাপাশি দেশটির শাসকগোষ্ঠীর প্রতিও বিপুলসংখ্যক মানুষের অনাস্থার প্রকাশ ঘটেছে এবার।

আরও পড়ুন:
ইরান বিক্ষোভে ভাইরাল সেই তরুণী কি গুলিতে নিহত?
বিক্ষোভ দমনে সীমান্ত পেরিয়েও ইরানি হামলা, ৯ কুর্দি নিহত
ইরান বিক্ষোভের পরিণতি কী?
নারী কোন পোশাক পরবে, সে সিদ্ধান্ত নারীর: মালালা
ইরানে গুলির মুখেও বিক্ষোভকারীরা অটল, নিহত বেড়ে ৭৬

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
The king made the Saudi prince the prime minister

সৌদি যুবরাজকে প্রধানমন্ত্রী করলেন বাদশাহ

সৌদি যুবরাজকে প্রধানমন্ত্রী করলেন বাদশাহ সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের সঙ্গে বাদশাহ সালমান বিন আবদুলাজিজ আল সৌদ। ছবি: সৌদি গেজেট
শাসনের মৌলিক আইনের ৫৬ অনুচ্ছেদের বিধান এবং মন্ত্রিপরিষদ আইনের সংশ্লিষ্ট বিধানগুলোতে ছাড় দিয়ে যুবরাজ এমবিএসকে প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ দিয়েছেন বাদশাহ সালমান বিন আবদুলাজিজ আল সৌদ, তবে এমবিএস প্রধানমন্ত্রী হলেও মন্ত্রিসভার সাপ্তাহিক অধিবেশনে সভাপতিত্ব করবেন বাদশাহ।

সৌদি আরবের যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানকে (এমবিএস) প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন বাদশাহ সালমান বিন আবদুলাজিজ আল সৌদ।

স্থানীয় সময় মঙ্গলবার রাজ ফরমানে এমবিএসের ওপর নতুন এ দায়িত্ব অর্পণ করেন তার ৮৬ বছর বয়সী বাবা।

ফরমানের বরাত দিয়ে সৌদি গেজেটের প্রতিবেদনে জানানো হয়, এমবিএস প্রধানমন্ত্রী হলেও মন্ত্রিসভার সাপ্তাহিক অধিবেশনে সভাপতিত্ব করবেন বাদশাহ।

এতে জানানো হয়, শাসনের মৌলিক আইনের ৫৬ অনুচ্ছেদের বিধান এবং মন্ত্রিপরিষদ আইনের সংশ্লিষ্ট বিধানগুলোতে ছাড় দিয়ে যুবরাজকে প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ করা হয়েছে।

আরেক ফরমানে যুবরাজের নেতৃত্বে মন্ত্রিপরিষদে রদবদল আনেন বাদশাহ সালমান।

তিনি উপপ্রতিরক্ষা মন্ত্রী প্রিন্স খালিদ বিন সালমানকে প্রতিরক্ষামন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেন। নতুন শিক্ষামন্ত্রী নিযুক্ত করা হয় ইউসেফ বিন আবদুল্লাহ আল-বেনিয়ানকে। এ ছাড়া তালাল বিন আবদুল্লাহ আল-ওতাইবিকে সহকারী প্রতিরক্ষামন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেন বাদশাহ।

মন্ত্রিপরিষদে রদবদলের পরও যারা পদ ধরে রাখতে পেরেছেন, তাদের মধ্যে রয়েছেন প্রতিমন্ত্রী প্রিন্স মনসুর বিন মিতেব, জ্বালানিমন্ত্রী প্রিন্স আবদুলাজিজ বিন সালমান, প্রতিমন্ত্রী প্রিন্স তুর্কি বিন মোহাম্মদ বিন ফাহদ, ক্রীড়ামন্ত্রী প্রিন্স আবদুলাজিজ বিন তুর্কি বিন ফয়সাল, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী প্রিন্স আবদুলাজিজ বিন সৌদ বিন নাইফ, ন্যাশনাল গার্ড মন্ত্রী প্রিন্স আবদুল্লাহ বিন বন্দর, পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রিন্স ফয়সাল বিন ফারহান বিন আবদুল্লাহ, সংস্কৃতিমন্ত্রী প্রিন্স বদর বিন আবদুল্লাহ বিন ফারহান, প্রতিমন্ত্রী শেখ সালেহ বিন আবদুলাজিজ আল-শেখ।

এ ছাড়াও পদে বহাল আছেন ইসলামবিষয়ক মন্ত্রী ড. আবদুললতিফ আল-শেখ, আইনমন্ত্রী ড. ওয়ালিদ আল-সামানি, প্রতিমন্ত্রী ড. মুত্তালিব আল-নাফিসাহ, প্রতিমন্ত্রী ড. মুসায়েদ বিন মোহাম্মদ আল-আইবান, প্রতিমন্ত্রী ড. ইব্রাহিম আল-আসাফ, হজ ও ওমরাহ মন্ত্রী ড. তৌফিক আল-রাবিয়াহ, শুরা পরিষদবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ড. ইসাম বিন সাদ বিন সাইদ, বাণিজ্যমন্ত্রী ও ভারপ্রাপ্ত গণমাধ্যমবিষয়ক মন্ত্রী ড. মাজেদ আল-কাসাবি।

আরও পড়ুন:
সৌদি আরবে সড়ক দুর্ঘটনায় দুই ভাইসহ ৩ বাংলাদেশি নিহত
যেকোনো ভিসাতেই সৌদিতে ওমরাহ পালনের সুযোগ
দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য বাড়াতে সৌদির সঙ্গে চুক্তি প্রস্তাব অনুমোদন
৩ মাসের ভিসা পাবেন ওমরাহযাত্রীরা
সৌদির ৪৮ শতাংশ নাগরিক সপ্তাহে খেলাধুলা করেন ৩০ মিনিট

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Saudi Arabia deletes 5 million telegram messages

উগ্রবাদী ৫০ লাখ টেলিগ্রাম বার্তা মুছল সৌদি আরব   

উগ্রবাদী ৫০ লাখ টেলিগ্রাম বার্তা মুছল সৌদি আরব    সৌদি আরবের রিয়াদে অবস্থিত এতিদালের সদরদপ্তর। ছবি: এএফপি
দ্য গ্লোবাল সেন্টার ফর কমবেটিং এক্সট্রিমিস্ট আইডিওলজি (এতিদাল) জানিয়েছে, ১৭ জুলাই থেকে ১৩ সেপ্টেম্বরের মধ্যে সন্ত্রাসবাদ এবং সহিংস চরমপন্থা প্রতিরোধ ও মোকাবিলায় টেলিগ্রামের একটি টাস্ক ফোর্সের সঙ্গে মিলে ৫২ লাখ ৬৯ হাজার ৭৮টি কনটেন্ট মুছে ফেলেছে তারা।

সৌদি আরবে দুই মাসে ৫০ লাখের বেশি উগ্রবাদী টেলিগ্রাম বার্তা মুছে দিয়েছে দেশটির সরকার।

দ্য গ্লোবাল সেন্টার ফর কমবেটিং এক্সট্রিমিস্ট আইডিওলজি (এতিদাল) সোমবার এ তথ্য জানিয়েছে। তারা বলেছে, ১৭ জুলাই থেকে ১৩ সেপ্টেম্বরের মধ্যে সন্ত্রাসবাদ এবং সহিংস চরমপন্থা প্রতিরোধ ও মোকাবিলায় টেলিগ্রামের একটি টাস্ক ফোর্সের সঙ্গে মিলে ৫২ লাখ ৬৯ হাজার ৭৮টি কনটেন্ট মুছে ফেলা হয়েছে।

মুছে ফেলা কনটেন্টগুলোর মধ্যে আছে, সিরিয়া গৃহযুদ্ধে জড়িত জঙ্গি গোষ্ঠী তাহরির আল-শাম সম্পর্কিত ৩০ লাখ ১২ হাজার ৪৮৩টি বার্তা, আল-কায়েদা সম্পর্কিত ১১ লাখ ৬৮ হাজার ৪৪৭টি এবং আইএস সম্পর্কিত ১০ লাখ ৮৮ হাজার ১৪২টি বার্তা।

এতিদাল জানায়, উগ্রবাদী কনটেন্ট সরিয়ে নিতে চলতি বছরের ২১ ফেব্রুয়ারি থেকে টেলিগ্রামের সঙ্গে কাজ শুরু করে তারা। মূলত ব্যবহারকারীদের হুমকি এবং নেতিবাচক মতাদর্শ থেকে রক্ষা করতেই এ পদক্ষেপ নেয়া হয়। মুছে ফেলা আরবি বার্তাগুলোর মধ্যে আছে, পিডিএফ, ভিডিও এবং ভিডিওসহ বিভিন্ন ধরনের মিডিয়া ফাইল।

সৌদি লেখক এবং রাজনৈতিক বিশ্লেষক মুবারক আল-আতি মনে করছেন, চরমপন্থি বক্তব্য ও সন্ত্রাসবাদের ধারণা মোকাবিলায় তারা যথেষ্ট... এটা প্রমাণ করতে যাচ্ছে এতিদাল।

তিনি বলেন, ‘স্থানীয়, আঞ্চলিক এবং বৈশ্বিকস্তরে হুমকি মোকাবিলায় সংস্থাটির কাজ সুপরিচিত। টেলিগ্রামের মতো হাই-প্রোফাইল অংশীদারের সঙ্গে কাজ করে সোশ্যাল মিডিয়া এবং অন্যান্য পাবলিক অনলাইনে চরমপন্থী প্রভাব কমাতে পারবে তারা।

‘এটি সমাজে এ ধরনের কনটেন্টের প্রভাব কমিয়ে আনবে। পাশাপাশি প্রাসঙ্গিক সংস্থাগুলোকে সমাজের নিরাপত্তা রক্ষা ও বজায়ে নিজেদের দায়িত্বগুলোকে মনে করিয়ে দেবে।’

উগ্রবাদী ৫০ লাখ টেলিগ্রাম বার্তা মুছল সৌদি আরব
সৌদি লেখক এবং রাজনৈতিক বিশ্লেষক মুবারক আল-আতি

এতিদাল হলো একটি বৈশ্বিক সংস্থা; যার কাজ চরমপন্থা মোকাবিলা এবং এর মূলোৎপাটন করা। সেই সঙ্গে জনগণের মধ্যে সহনশীলতা ও সহাবস্থানের সংস্কৃতি প্রচার করে থাকে সংস্থাটি।

রিয়াদে ২০১৭ সালের ২১ মে আরব-ইসলামিক-আমেরিকান শীর্ষ সম্মেলনের সময় আঞ্চলিক এবং আন্তর্জাতিক নেটওয়ার্কগুলোর মধ্যে সহযোগিতার লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল এতিদাল। এটির সদরদপ্তর সৌদি রাজধানী রিয়াদে।

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Saudi launched Nusuk with all the benefits of Hajj

হজের সব সুবিধা নিয়ে ‘নুসুক’ চালু করল সৌদি

হজের সব সুবিধা নিয়ে ‘নুসুক’ চালু করল সৌদি মুসলমানদের পবিত্র কাবাঘর। ছবি: সংগৃহীত
প্ল্যাটফর্মটির অফিসিয়াল টুইটার থেকে এক পোস্টে বলা হয়, ‘নুসুক হজযাত্রী ও ভ্রমণকারীদের অনেক বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য ও সেবা দেবে। এ ছাড়া খুব সহজে ও স্বাচ্ছদ্যে ওমরাহ করার জন্য তথ্য দিয়ে সহায়তা করবে নুসুক।’

নতুন একটি অনলাইন প্ল্যাটফর্ম চালু করেছে সৌদি আরব সরকার। ভিশন-২০৩০ সামনে রেখে দেশটিতে হজযাত্রী এবং মক্কা ও মদিনা শহর ভ্রমণের বিভিন্ন সুবিধা দিতেই প্ল্যাটফর্মটি চালু করা হয়েছে বলে জানায় সৌদি আরবের হজ ও ওমরাহ মন্ত্রণালয়।

যে কোনো বিষয়ের চেয়ে অনন্য প্ল্যাটফর্ম ‘নুসুক’ গতকাল সোমবার উন্মোচন করা হয়। এই প্ল্যাটফমটির মাধ্যমে এখন থেকে মক্কা ও মদিনায় ভ্রমণকারীরা তাদের নিজেদের পরিষেবার জন্য ওমরাহর ভ্রমণপথ নির্দিষ্ট করতে পারবেন।

ওয়েবসাইটটিতে বলা হয়, ‘নুসুকের মাধ্যমে ভ্রমণকারীরা খুব সহজেই সৌদিতে তাদের ভ্রমণকে সংগঠিত করতে পারবেন। এর মাধ্যমেই ই-ভিসায় আবেদন করা, হোটেল বুক করা এবং ফ্ল্যাইট বুক করার মতো সুবিধা পাবেন।’

এ ছাড়া ওয়েবসাইটটি ওমরাহ বা হজযাত্রীদের জন্য বিভিন্ন বিষয়ের বিস্তারিত তথ্য সরবরাহ করবে। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, এটি আবাসন, ল্যান্ডমার্ক এবং পবিত্র সাইটগুলো ভ্রমণের ক্ষেত্রে তারা চাইলে সেগুলো তালিকায় যুক্ত করতে পারবেন।

বুকিং প্রক্রিয়া সহজ করতে ইন্টার‍্যাক্টিভ ম্যাপ ছাড়াও শহরে ভ্রমণের ক্ষেত্রে বিভিন্ন ধরনের পরিবহন সম্পর্কিত তথ্য ও সেবা পাবেন নুসুক থেকেই।

প্ল্যাটফর্মটির অফিসিয়াল টুইটার থেকে এক পোস্টে বলা হয়, ‘নুসুক হজযাত্রী ও ভ্রমণকারীদের অনেক বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য ও সেবা দেবে। এ ছাড়া খুব সহজে ও স্বাচ্ছদ্যে ওমরাহ করার জন্য তথ্য দিয়ে সহায়তা করবে নুসুক।’

বিবৃতিতে জানানো হয়, প্ল্যাটফর্মটি হজ মন্ত্রণালয় দেশটির পর্যটন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যৌথভাবে তৈরি করেছে।

নুসুক ডট এসএ (nusuk.sa) তাদের সার্ভিস প্রোভাইডারদের সঙ্গে এর একটি স্লোগান ঠিক করেছে। ‘ভিজিট সৌদি আরব’ স্লোগান নিয়ে ওমরাহযাত্রী ও সৌদির মক্কা ও মদিনা ভ্রমণকারীদের নানাবিধ সুবিধার প্যাকেজ দেবে।

হজ ও ওমরাহ এবং হজযাত্রীদের এক্সপেরিয়েন্স প্রোগ্রাম কমিটির চেয়ারম্যান ড. তৌফিক বিন ফাউজান আল-রাবিয়াহ বলেন, ‘সবশেষ প্রযুক্তির সমন্বয়ে হজযাত্রী ও পর্যটকদের মানসম্মত পরিষেবা দিতে নুসুক প্ল্যাটফর্মটি আনা হয়েছে।’

পর্যটন মন্ত্রণালয়ের চেয়ারম্যান এবং সৌদি পর্যটন কর্তৃপক্ষের পরিচালক আহমেদ আল-খতিব বলেন, ‘নতুন এই প্ল্যাটফর্ম সৌদি আরবের ভিশন-২০৩০ বাস্তবায়নের মূল চাবিকাঠি। বিশ্বের সব মুসলিমদের সৌদিতে ওমরাহ ও হজের জন্য সুবিধা দিতেই এটির উন্মোচন করা হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
দুই ওমরাহর মধ্যে ব্যবধান ১০ দিন
চীনা টিকা নিলে ওমরাহে যেতে বাধা নেই
শিশু-কিশোর ও বৃদ্ধের ওমরাহ পালনে বাধা
ওমরাহ পালনে শর্ত কী, জানাল ধর্ম মন্ত্রণালয়
ওমরাহ পালনে করোনা টিকা নিতে হবে

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
US Canada Sanctions on Irans Morality Police

ইরানের নৈতিকতা পুলিশের ওপর যুক্তরাষ্ট্র কানাডার নিষেধাজ্ঞা

ইরানের নৈতিকতা পুলিশের ওপর যুক্তরাষ্ট্র কানাডার নিষেধাজ্ঞা পুলিশ হেফাজতে কুর্দি তরুণী মাহসা আমিনির মৃত্যুর প্রতিবাদে ইরানের তেহরানে বিক্ষোভ। ছবি: এএফপি
স্থানীয় সময় সোমবার কানাডার অটোয়ায় দেশটি প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘কুর্দি তরুণী মাহসা আমিনির মৃত্যুর প্রতিবাদে দেশজুড়ে বিক্ষোভে ফেটে পড়া আন্দোলনকারীদের ওপর ইসলামিক রিপাবলিকটির সরকারের নজীরবিহীন দমন-পীড়নের কারণে এই নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে। তথাকথিত নৈতিকতা পুলিশ সদস্যরা, প্রজাতন্ত্রের একাধিক শীর্ষ কর্মকর্তা ও সংস্থা এর আওতায় পড়বে।’

ইরানে পুলিশি হেফাজতে কুর্দি তরুণী মাহসা আমিনির মৃত্যুর ঘটনায় দেশটির ‘নৈতিকতা পুলিশ’ ইউনিটের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডা।

স্থানীয় সময় সোমবার কানাডার অটোয়ায় দেশটি প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘কুর্দি তরুণী মাহসা আমিনির মৃত্যুর প্রতিবাদে দেশজুড়ে বিক্ষোভে ফেটে পড়া আন্দোলনকারীদের ওপর ইসলামিক রিপাবলিকটির সরকারের নজীরবিহীন দমন-পীড়নের কারণে এই নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে। তথাকথিত নৈতিকতা পুলিশ সদস্যরা, প্রজাতন্ত্রের একাধিক শীর্ষ কর্মকর্তা ও সংস্থা এর আওতায় পড়বে।’

একই ইস্যুতে স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার দেশটির বিতর্কিত নৈতিকতা পুলিশের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ট্রেজারি বিভাগ।

বিবৃতিতে যুক্তরাষ্ট্র জানিয়েছে, কুর্দি তরুণীর মৃত্যুর দায় দেশটির নৈতিকতা পুলিশ ইউনিটের। এই মৃত্যুর প্রতিবাদে বিক্ষোভরত নারীদের পুলিশের নির্বিচার দমন-পীড়নের ঘটনায় এমন নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে।

সম্প্রতি ইরানে ‘সঠিকভাবে’ হিজাব না করার অভিযোগে গ্রেপ্তারের পর কুর্দি তরুণী মাহসা আমিনির পুলিশি হেফাজতে মৃত্যুর ঘটনায় দেশজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে তুমুল বিক্ষোভ।

রাজধানী তেহরানসহ অন্তত ৮০টি শহর এখন অগ্নিগর্ভ। পোশাকের স্বাধীনতার দাবিতে চলমান বিক্ষোভে সোমবার পর্যন্ত ৭৫ জনের বেশি মানুষ মারা গেছেন, বলে জানিয়েছে ওসলোভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা ইরান হিউম্যান রাইটস। এ সময় আহত হয়েছেন হাজারের বেশি মানুষ।

১৯৭৯ সালে দেশটিতে ইসলামি বিপ্লবের পর থেকে নারীর পোশাক ইস্যুতে সবচেয়ে বড় বিক্ষোভ এটি।

ইরানে ১৯৭৯ সালের ওই বিপ্লবের পরই নারীদের জন্য হিজাব বাধ্যতামূলক করা হয়। দেশটির ধর্মীয় শাসকদের কাছে নারীদের জন্য এটি ‘অতিক্রম-অযোগ্য সীমারেখা’। বাধ্যতামূলক এই পোশাকবিধি মুসলিম নারীসহ ইরানের সব জাতিগোষ্ঠী ও ধর্মের নারীদের জন্য প্রযোজ্য।

ইরানের নৈতিকতা পুলিশের ওপর যুক্তরাষ্ট্র কানাডার নিষেধাজ্ঞা
মাহসা আমিনির মৃত্যুর পর বিক্ষোভে উত্তাল ইরান। ছবি: সংগৃহীত

নারীর জন্য কঠোর পোশাকবিধি দেখভালের দায়িত্বে আছে ইরানের ‘নৈতিকতা পুলিশ’ ইউনিট, ফারসি ভাষায় যার প্রাতিষ্ঠানিক নাম ‘গাস্ত-ই এরশাদ’। নিবর্তনমূলক ভূমিকার কারণে এই ইউনিট দীর্ঘদিন ধরেই অত্যন্ত অজনপ্রিয়। মাহসার মৃত্যুকে কেন্দ্র করে ইরানে ‘নৈতিকতা পুলিশ’-এর বিরুদ্ধে ক্ষোভের বিস্ফোরণ ঘটেছে। পাশাপাশি দেশটির শাসকগোষ্ঠীর প্রতিও বিপুলসংখ্যক মানুষের অনাস্থার প্রকাশ ঘটেছে এবার।

আরও পড়ুন:
ইরানে মাহসার পর এবার বিদ্রোহের প্রতীক হাদিস নাজাফি
পোশাকের স্বাধীনতায় ইরানি ২ বোনের হৃদয়ছোঁয়া ‘বেলা চাও’
বিশ্ববাসীকে বিক্ষোভকারীদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান ইরানি অস্কারজয়ীর

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Death of Muslim Brotherhood leader Yusuf al Qaradai

মুসলিম ব্রাদারহুডের আধ্যাত্মিক নেতা ইউসুফ আল-কারাদায়ির মৃত্যু

মুসলিম ব্রাদারহুডের আধ্যাত্মিক নেতা ইউসুফ আল-কারাদায়ির মৃত্যু মুসলিম ব্রাদারহুডের আধ্যাত্মিক নেতা ও আন্তর্জাতিক ইউনিয়ন অফ মুসলিম স্কলারের সাবেক চেয়ারম্যান ইউসুফ আল-কারাদায়ি। ছবি: রয়টার্স
সোমবার ৯৬ বছর বয়সে তার মৃত্যু হয়েছে। মৃত্যুর খবরটি তার অফিশিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে এক পোস্টে জানানো হয়।

কাতারভিত্তিক মুসলিম ব্রাদারহুডের আধ্যাত্মিক নেতা ও আন্তর্জাতিক ইউনিয়ন অফ মুসলিম স্কলারের সাবেক চেয়ারম্যান ইউসুফ আল-কারাদায়ির মৃত্যু হয়েছে

আল অ্যারাবিয়ার খবরে বলা হয়, সোমবার ৯৬ বছর বয়সে তার মৃত্যু হয়েছে। মৃত্যুর খবরটি তার অফিশিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে এক পোস্টে জানানো হয়।

তার পুত্র আবদুল রহমান ইউসুফ আল-কারাদায়ি টুইটার অ্যাকাউন্টে দেয়া খবরটি নিশ্চিত করেছেন।

মিসরীয় ইউসুফ আল-কারাদায়ি ২০১৩ সাল থেকে কাতারে নির্বাসিত ছিলেন। পরে কাতার তাকে নাগরিকত্ব দেয়।

২০১৫ সালে মিসরে তার অনুপস্থিতিতে বিচার করা হয় এবং দেশটি তখন ইউসুফের কারাদণ্ডের রায় দেয়।

২০০৪ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে ‘আন্তর্জাতিক ইউনিয়ন অফ মুসলিম স্কলার’-এর চেয়ারম্যান ছিলেন ইউসুফ আল-কারাদায়ি। এরপর টানা ১৫ বছর একই পদে ছিলেন তিনি।

মিসরে ১৯২৬ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর জন্ম হয় ইউসুফ আল-কারাদায়ির। মিসরের উত্তর নীলনদের তীরবর্তী সাফাত তোরাব গ্রামে তার বেড়ে ওঠা শুরু। দুই বছর বয়সে বাবা মারা যান। পরে চাচা তার লালন-পালন করেন। ১০ বছর বয়সে তিনি সম্পূর্ণ কোরআন হিফজ করেন।

আরও পড়ুন:
আইনজীবী ইউসুফের ‘ফি’ ১৬ কোটি টাকা
নারী ও শিশুনির্ভর কন্টেন্ট নির্মাণে মালালার সঙ্গে অ্যাপল
করোনায় বিএনপি নেতা কামাল ইবনে ইউসুফের মৃত্যু
করোনায় আক্রান্ত নাসির উদ্দীন ইউসুফ

মন্তব্য

p
উপরে