পশ্চিমবঙ্গের বনমন্ত্রী রাজীব ব্যানার্জির পদত্যাগ

পশ্চিমবঙ্গের বনমন্ত্রী রাজীব ব্যানার্জির পদত্যাগ

বহুদিন ধরেই জল্পনা চলছে, তিনি বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন। এর আগে পরিবহনমন্ত্রীর পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে তৃণমূল ত্যাগ করেন শুভেন্দু অধিকারি। পরে তিনি যোগ দেন বিজেপিতে।

ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের বনমন্ত্রী রাজীব ব্যানার্জি ইস্তফা দিয়েছেন। শুক্রবার তিনি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির কাছে পদত্যাগপত্র পাঠিয়ে দেন। খুব সম্ভবত তিনি বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন।

বহুদিন ধরেই জল্পনা চলছে মমতার মন্ত্রিসভার বনমন্ত্রী বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন। এর আগে পরিবহন মন্ত্রীর পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে তৃণমূল ত্যাগ করেন শুভেন্দু অধিকারি। পরে যোগ দেন বিজেপিতে।

রাজ্যের ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছেন সাবেক ক্রিকেটার লক্ষ্মীরতন শুক্লাও। তিনি অবশ্য রাজনীতি থেকেই অবসর নেয়ার কথা বলেছেন।

রাজীব বিজেপিতে যাওয়ার কথা অবশ্য এখনও ঘোষণা করেননি। তবে দলের নেতাদের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দেন দিন কয়েক আগেই। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে তাঁর ক্ষোভ প্রকাশ থেকেই জল্পনা বেড়েছিল। আজ আরও বাড়ল।

রাজীবের ইস্তফা প্রসঙ্গে তৃণমূল নেত্রী বৈশালী ডালমিয়াও তাঁর দলবদলের সম্ভাবনা উসকে দিলেন। বললেন, ‘রাজীবের পদত্যাগই প্রমাণ করে তৃণমূলে এখন ছেড়ে দে মা কেঁদে বাঁচি অবস্থা।’

রাজীব তাঁর ইস্তফাপত্রে লিখেছেন, আমি দুঃখের সঙ্গে এই পদত্যাগের কথা জানাচ্ছি।তবে রাজ্যের মানুষের জন্য কাজ করতে দেয়ার সুযোগ করে দেওয়ার জন্য আমি সম্মানিত বোধ করছি।’

ফেসবুকে তিনি লেখেন, ‘প্রিয় বন্ধুরা, আমি আজ থেকে পশ্চিমবঙ্গের বন দপ্তরের ভারপ্রাপ্ত মন্ত্রী হিসেবে পদত্যাগ করছি ।অনেক বছর ধরে আমি সম্পূর্ণ দায়িত্ব ও পরিশ্রমের সাথে আমার দায়িত্ব পালন করার চেষ্টা করেছি।’

তবে তাঁর ফেসবুক প্রোফাইলে আজ সকালেও লেখা ছিল, ‘বাংলার গর্ব মমতা’। ছিল তৃণমূলের ঘাসফুল প্রতীকও। এই প্রতিবেদন লেখার সময়ও সেটি বদল করা হয়নি।

বিজেপি নেতা শমীক ভট্টাচার্য রাজীবের বিজেপিতে যোগ দেয়া নিয়ে কোনও মন্তব্য করতে নারাজ। তিনি বলেন, ‘তৃণমূল কংগ্রেস ক্ষমতায় ফিরবে না। তৃণমূলের অন্দরে যে চরম স্বেচ্ছাচারিতা চলেছে সেই বিবৃতি দলের লোকেরাই দিচ্ছে।’

রাজীবের অবসর প্রসঙ্গে তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চ্যাটার্জি বলেন, ‘উনি (রাজীব) দল ছাড়ায় তৃণমূলের কোনও ক্ষতি হবে না।বেশ কিছুদিন ধরেই মন্ত্রিসভার বৈঠকে যাচ্ছিলেন না। বনমন্ত্রী জঙ্গলে না গিয়ে শহরেই ব্যস্ত ছিলেন।’

শেয়ার করুন

মন্তব্য

ফিলিস্তিনে যুদ্ধাপরাধ: আইসিসির তদন্তে আপত্তি যুক্তরাষ্ট্র-ইসরায়েলের

ফিলিস্তিনে যুদ্ধাপরাধ: আইসিসির তদন্তে আপত্তি যুক্তরাষ্ট্র-ইসরায়েলের

যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস ও ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। ছবি: এএফপি

আইসিসির প্রধান প্রসিকিউটর ফাতাও বেনসুদা অঙ্গীকার করে বলেন, কোনো ধরনের ভয়ভীতি বা আনুকূল্য ছাড়া স্বাধীন, পক্ষপাতহীন ও নিরপেক্ষভাবে তদন্ত কাজ পারিচালনা করা হবে।

ফিলিস্তিনি অধ্যুষিত অঞ্চলে সম্ভাব্য যুদ্ধাপরাধ নিয়ে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের (আইসিসি) তদন্ত তৎপরতাকে বিরোধিতা করেছে যুক্তরাষ্ট্র। বিষয়টি ফের ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুকে জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস।

ফিলিস্তিনে সংঘটিত যুদ্ধাপরাধ নিয়ে স্থানীয় সময় বুধবার তদন্তের ঘোষণা দেয় আইসিসি। পরের দিন বৃহস্পতিবার কমলা ও নেতানিয়াহুর মধ্যে ফোনালাপ হয় বলে হোয়াইট হাউজের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০ জানুয়ারি ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেয়ার পর এই প্রথম ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা হয় কমলার।

গত মাসে আইসিসির পক্ষ থেকে বলা হয়, দখলিকৃত ফিলিস্তিন অঞ্চল আইসিসির আওতায় পড়ে। ফলে ওই অঞ্চলে ফিলিস্তিনি ও ইসরায়েলিদের যুদ্ধাপরাধ তদন্ত করার এখতিয়ার আইসিসির রয়েছে।

আইসিসির প্রধান প্রসিকিউটর ফাতাও বেনসুদা অঙ্গীকার করে বলেন, কোনো ধরনের ভয়ভীতি বা আনুকূল্য ছাড়া স্বাধীন, পক্ষপাতহীন ও নিরপেক্ষভাবে তদন্ত কাজ পারিচালনা করা হবে।

ইসরায়েলের সেনাবাহিনী ও ফিলিস্তিনের সশস্ত্র সংগঠন হামাসকে সম্ভাব্য অপরাধী হিসেবে উল্লেখ করেন বেনসুদা।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে বেনসুদা বলেছিলেন, পশ্চিম তীর ও গাজা উপত্যকায় যুদ্ধাপরাধ সংঘটিত হয়েছে।

আগামী ১৬ জুন বেনসুদাকে স্থলাভিষিক্ত করবেন ব্রিটিশ প্রসিকিউটর করিম খান।

দুই নেতার ফোনালাপের বিষয়ে হোয়াইট হাউস জানিয়েছে, ইসরায়েলের সেনাদের ওপর আইসিসির অধিকার ফলানোর বিরোধিতা করেছে যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরায়েল সরকার। এ বিষয়ে কমলা ও নেতানিয়াহুর মধ্যে কথা হয়।

এর আগের দিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্থনি ব্লিঙ্কেন বলেছিলেন, আইসিসির তদন্তের সিদ্ধান্তকে দৃঢ়ভাবে বিরোধিতা করে ওয়াশিংটন। একই সঙ্গে আন্তর্জাতিক আদালতের এ সিদ্ধান্তে যুক্তরাষ্ট্র গভীরভাবে হতাশ।

ব্লিঙ্কেন এক বিবৃতিতে বলেন, ‘ইসরায়েল আইসিসির অংশী নয়। এ ছাড়া আন্তর্জাতিক আদালতের এখতিয়ারের বিষয়ে দেশটি সম্মতও হয়নি। ইসরায়েলের সেনাদের বিষয়ে আইসিসির অধিকার চর্চার চেষ্টায় আমরা গভীরভাবে উদ্বিগ্ন।’

শেয়ার করুন

মিয়ানমারে আন্দোলনকারীদের টিকটকের মাধ্যমে মৃত্যুর হুমকি

মিয়ানমারে আন্দোলনকারীদের টিকটকের মাধ্যমে মৃত্যুর হুমকি

মিয়ানমারের রাজধানী নেপিদোতে বিক্ষোভকারীদের লক্ষ্য করে বন্দুক তাক করে পুলিশের এক কর্মকর্তা। এএফপির ফাইল ছবি

ফেব্রুয়ারির শেষের দিকে পোস্ট করা ভিডিওতে দেখা যায়, এক ব্যক্তি ক্যামেরার দিকে বন্দুক তাক করে আন্দোলনকারীদের উদ্দেশে বলছে, ‘আমি তোমাদের মুখে গুলি করব। এজন্য আমি সত্যিকারের বুলেট ব্যবহার করব। গোটা শহর আজ রাতে আমি টহল দিব। দেখামাত্রই গুলি করব। আপনাদের শহিদ হওয়ার বাসনা আমি পূরণ করব।’

মিয়ানমারের সামরিক শাসনবিরোধী আন্দোলনে অংশ নেয়া বিক্ষোভকারীদের টিকটকের মাধ্যমে দেশটির পুলিশ ও সেনারা মৃত্যুর হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

বৃহস্পতিবার বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

ডিজিটাল অধিকার নিয়ে কাজ করা সংগঠন মিয়ানমার আইসিটি ফর ডেভেলপমেন্ট (এমআইডিও) জানিয়েছে, টিকটকের আট শতাধিক ভিডিওতে আন্দোলনকারীদের ভয়-ভীতি দেখানো হয়েছে।

এমআইডিওর নির্বাহী পরিচালক তাইকে তাইকে অং বলেন, ‘এটা হিমশৈলের কেবল উপরিভাগ। টিকটকে এমন আরও শত শত ভিডিও রয়েছে, যেখানে উর্দি পরা সেনা ও পুলিশ আন্দোলনকারীদের হুমকি দিচ্ছে।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ও সামরিক জান্তা সরকারের মুখপাত্র কোনো মন্তব্য করেনি।

ফেব্রুয়ারির শেষের দিকে পোস্ট করা ভিডিওতে দেখা যায়, এক ব্যক্তি ক্যামেরার দিকে বন্দুক তাক করে আন্দোলনকারীদের উদ্দেশে বলছে, ‘আমি তোমাদের মুখে গুলি করব। এজন্য আমি সত্যিকারের বুলেট ব্যবহার করব। গোটা শহর আজ রাতে আমি টহল দিব। দেখামাত্রই গুলি করব। আপনাদের শহিদ হওয়ার বাসনা আমি পূরণ করব।’

টিকটকে আসা উর্দি পরা ওই ব্যক্তি বা অন্যদের সঙ্গে যোগাযোগে ব্যর্থ হয় রয়টার্স। তারা সেনাবাহিনীতে কাজ করেন কি না, তাও যাচাই করা সম্ভব হয়নি বার্তা সংস্থাটির পক্ষে।

মিয়ানমারের আন্দোলনকে ঘিরে চীনা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টিকটকে ভীতি প্রদর্শনমূলক বা বিদ্বেষপ্রসূত ভিডিও দেয়া সম্প্রতি উল্লেখযোগ্যভাবে বেড়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রযুক্তি জায়ান্ট ফেসবুক এরই মধ্যে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী সংশ্লিষ্ট সব পেজ বন্ধ করে দিয়েছে। এর আগে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ক্ষমতা দখলের পর দেশটিতে ফেসবুক নিষিদ্ধ করে।

টিকটক এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ‘কোনো ধরনের সহিংসতা উসকানো বা ক্ষতিকর ভুল তথ্য সম্বলিত কনটেন্ট প্রকাশে আমরা অনুমোদন দিই না। এ বিষয়ে আমাদের স্পষ্ট নির্দেশনা রয়েছে। মিয়ানমারকে নিয়ে সব ধরনের সহিংসতামূলক বা মিথ্যা তথ্য ছড়ানোর মতো কনটেন্ট আমরা সরিয়ে ফেলছি। আমাদের নির্দেশনা লঙ্ঘন করে এমন সব কনটেন্ট দ্রুতই সরানো হচ্ছে।’

টিকটকে পোস্ট করা ১২টির বেশি ভিডিও পর্যালোচনা করেছে রয়টার্স। সামরিক শাসন উৎখাত ও নির্বাচিত নেতা অং সান সু চির মুক্তির দাবিতে কর্মসূচি ডাক দেয়া বিক্ষোভকারীদের উর্দি পরা ব্যক্তিরা বন্দুক হাতে হুমকি দিচ্ছে বলে ওইসব ভিডিওতে দেখা যায়।

ওইসব হুমকিমূলক ভিডিওর কোনো কোনোটি কয়েক হাজার বার ভিউ হয়েছে। রয়টার্সের পর্যালোচনা করা ভিডিও চলতি সপ্তাহে সরিয়ে ফেলা হয়। যুক্তরাষ্ট্রের নামী তারকাদের নাম হ্যাশট্যাগ দিয়েও কেউ কেউ আন্দোলনকারীদের হুমকি দিচ্ছে।

১ ফেব্রুয়ারি সু চি, প্রেসিডেন্ট উইন মিন্টসহ বেশ কয়েকজন নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের গ্রেপ্তারের মধ্য দিয়ে মিয়ানমারের ক্ষমতায় বসে সেনাবাহিনী।

সেনাশাসনের বিরুদ্ধে চলমান আন্দোলন দমাতে মিয়ানমারের আইনশৃখলা বাহিনী ব্যাপক মারমুখী অবস্থানে রয়েছে। এরই মধ্যে তাদের হাতে নিহত হয়েছে অর্ধ শতাধিক মানুষ। বুধবার সবচেয়ে বেশি হতাহতের ঘটনা ঘটে। জাতিসংঘের তথ্য অনুযায়ী, ওই একদিনই ৩৮ বিক্ষোভকারীর মৃত্যু হয়েছে।

শেয়ার করুন

নেপালে পুলিশের গুলিতে ভারতীয় নিহত

নেপালে পুলিশের গুলিতে ভারতীয় নিহত

ভারত-নেপাল সীমান্তে নেপাল পুলিশের গুলিতে নিহত হয়েছেন এক ভারতীয়। ছবি: এনডিটিভি

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়, নিহতের নাম গোবিন্দ। ২৬ বছর বয়সী ওই তরুণ বৃহস্পতিবার পাপ্পু সিং এবং গুরমিত সিং নামের আরও দুইজনের সঙ্গে নেপাল গিয়েছিলেন। সেখানকার পুলিশের সঙ্গে কী বিষয়ে তাদের কথা-কাটাকাটি হয়েছে, তা জানা যায়নি।

ভারত-নেপাল সীমান্তবর্তী এলাকায় কথা-কাটাকাটির জেরে এক ভারতীয়কে গুলি করে হত্যা করেছে নেপালের পুলিশ।

ভারতের উত্তর প্রদেশের পুলিশ বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বলে এনডিটিভির প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, উত্তর প্রদেশের পিলিভিত জেলাসংলগ্ন নেপালের সীমান্তবর্তী এলাকায় ওই ঘটনা ঘটে।

বার্তা সংস্থা এএনআইয়ের প্রতিবেদনে বলা হয়, নিহতের নাম গোবিন্দ। ২৬ বছর বয়সী ওই তরুণ বৃহস্পতিবার পাপ্পু সিং এবং গুরমিত সিং নামের আরও দুইজনের সঙ্গে নেপাল গিয়েছিলেন। সেখানকার পুলিশের সঙ্গে কী বিষয়ে তাদের কথা-কাটাকাটি হয়েছে, তা জানা যায়নি।

পিলিভিত জেলার পুলিশ প্রধান জয় প্রকাশ এক বিবৃতিতে বলেন, ‘সীমান্ত প্রহরী সংস্থার (এসএসবি) মাধ্যমে আমরা জানতে পেরেছি, ভারতের তিন নাগরিক নেপাল গিয়েছিলেন। সেখানে কিছু বিষয় নিয়ে দেশটির পুলিশের সঙ্গে তাদের কথা-কাটাকাটি হয়।

‘নেপালের পুলিশের গুলিতে তাদের একজনের মৃত্যু হয়েছে। অন্যজন ভারতে ফিরে আসতে সক্ষম হয়েছেন। বাকিজনের খোঁজ এখনও পাওয়া যায়নি।

‘ভারতে যিনি ফিরেছেন তাকে জিজ্ঞাসাবাদের চেষ্টা চলছে। এ ঘটনার সঙ্গে সীমান্তে আইনশৃঙ্খলা বিষয়ের কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই।’

শেয়ার করুন

নেপালের ‘সাহসী’ মুসকান পাচ্ছেন আন্তর্জাতিক পুরস্কার

নেপালের ‘সাহসী’ মুসকান পাচ্ছেন আন্তর্জাতিক পুরস্কার

মুসকানের বয়স যখন ১৫ তখন একটি ছেলের প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় অ্যাসিড হামলার শিকার হয়েছিলেন। এতে তার মুখাবয়ব, বুক ও হাত মারাত্মকভাবে পুড়ে যায়।

অ্যাসিড হামলার বিরুদ্ধে কাজ করার স্বীকৃতি হিসেবে আন্তর্জাতিক সাহসী নারী পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছেন নেপালের মুসকান খাতুন।

নেপালে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস থেকে দেয়া এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে বলে কাঠমান্ডু পোস্টের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। এতে বলা হয়, অ্যাসিড হামলার শেষ ঘটাতে অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে মুসকানকে এই পুরস্কার দেয়া হচ্ছে।

৮ মার্চ নারী দিবসের দিন দেয়া হবে এই পুরস্কার। এ উপলক্ষে আয়োজিত ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন যুক্তরাষ্ট্রের ফার্স্ট লেডি জিল বাইডেন ও দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী টনি ব্লিনকেন।

১৭ বছর বয়সী মুসকান নিজেও অ্যাসিড আক্রান্ত। পুরস্কারটির জন্য তাকে মনোনীত করায় উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে টুইট করেছেন নেপালে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত র‌্যান্ডি বেরি।

‘আমি সত্যিকার অর্থে খুব রোমাঞ্চিত যে, অ্যাসিড হামলা নির্মূলে নেপালের মুসকান খাতুন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আন্তর্জাতিক সাহসী নারী পুরস্কার পেতে যাচ্ছেন।’

মুসকানের বয়স যখন ১৫ তখন একটি ছেলের প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় অ্যাসিড হামলার শিকার হয়েছিলেন। এতে তার মুখাবয়ব, বুক ও হাত মারাত্মকভাবে পুড়ে যায়।

নৃশংস ওই অ্যাসিড হামলার বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তোলেন মুসকান। অ্যাসিড হামলাকারীদের কঠোর শাস্তি নিশ্চিতে কঠোর আইন প্রণয়নের দাবি তোলেন তিনি।

এর জেরে অ্যাসিড হামলার বিরুদ্ধে নতুন আইন প্রণয়নে বাধ্য হয় নেপাল সরকার। গত বছরের সেপ্টেম্বরে এ বিষয়ে একটি অধ্যাদেশ জারি করেন দেশটির প্রেসিডেন্ট।

নেপালে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস জানিয়েছে, হিমালয় অধ্যুষিত দেশটির প্রথম নারী হিসেবে এই পুরস্কার পেতে যাচ্ছেন মুসকান। এই পুরস্কারজয়ী সবচেয়ে কম বয়সী নারী হবেন তিনি।

১৫ বছর ধরে আন্তর্জাতিক সাহসী নারী পুরস্কার দিয়ে আসছে যুক্তরাষ্ট্র। শান্তি, ন্যায়বিচার, মানবাধিকার, লিঙ্গ বৈষম্য, নারীর ক্ষমতায়ন ইত্যাদি কাজে অনন্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ দেয়া হয় এই পুরস্কার।

এই পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন পাকিস্তানের মালালা ইউসুফজাই ও বাংলাদেশের সারাহ হোসেনসহ অনেকে।

এবার মুসকান ছাড়াও আরও যারা পুরস্কারটি পাচ্ছেন, তারা হলেন- বেলারুশের মারিয়া কালেসনিকাভা, কলম্বিয়ার মায়েরলিস অ্যাঙ্গারিতা, কঙ্গোর জুলিয়েনে লুসেনগে, গুয়াতেমালার বিচারক এরিকা আইফান, ইরানের শোহরেহ বায়েত, সোমালিয়ার জাজরা মোহামেদ আহমেদ, স্পেনের সিস্টার অ্যালিসিয়া ভাকাস মোরো, শ্রীলঙ্কার রানিথা জ্ঞানারাজ, তুরস্কের ক্যানান গুলু ও ভেনেজুয়েলার রোসারিও কন্ট্রেরাস।

শেয়ার করুন

আফগানিস্তানে হামলায় নারী চিকিৎসকসহ নিহত ৮

আফগানিস্তানে হামলায় নারী চিকিৎসকসহ নিহত ৮

প্রাদেশিক পুলিশপ্রধানের মুখপাত্র ফরিদ খান বলেন, নিহত শ্রমিকরা আফগানিস্তানের ধর্মীয় সংখ্যালঘু শিয়া হাজারা সম্প্রদায়ের। তারা কাবুল, বামিয়ান ও উত্তরাঞ্চলের বালখ প্রদেশ থেকে নানগারহারে কাজের উদ্দেশে এসেছিলেন।

আফগানিস্তানের পূর্বাঞ্চলের জালালাবাদ শহরে বোমা হামলায় এক নারী চিকিৎসকের মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া একদল বন্দুকধারীর গুলিতে কমপক্ষে সাত বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন।

দেশটির নানগারহার প্রদেশের কর্মকর্তারা বৃহস্পতিবার বিষয়টি নিশ্চিত করেন বলে আল জাজিরার প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

প্রদেশটির গভর্নর কার্যালয়ের এক মুখপাত্র বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, ওই নারী চিকিৎসক রিকশায় চড়ে হাসপাতালের দিকে যাচ্ছিলেন। ওই সময় রিকশার সঙ্গে লাগানো ম্যাগনেটিক বোমা বিস্ফোরিত হয়। এ ঘটনায় এক শিশুও আহত হয়।

নানগারহার প্রদেশের পুলিশপ্রধান জুমা গুল হেমাত বলেন, বন্দুকধারীদের গুলিতে নিহত ব্যক্তিরা সবাই সরখ রড জেলার একটি প্লাস্টার কারখানায় কাজ করতেন। ওই ঘটনায় সন্দেহভাজন চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

প্রাদেশিক পুলিশপ্রধানের মুখপাত্র ফরিদ খান বলেন, নিহত শ্রমিকরা আফগানিস্তানের ধর্মীয় সংখ্যালঘু শিয়া হাজারা সম্প্রদায়ের। তারা কাবুল, বামিয়ান ও উত্তরাঞ্চলের বালখ প্রদেশ থেকে নানগারহারে কাজের উদ্দেশে এসেছিলেন।

নানগারহার প্রদেশে একই দিনে দুই হামলার দায় এখনও কোনো সংগঠন নেয়নি। তবে আইএসের জঙ্গিরা শিয়া সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছিল।

নানগারহার হামলার দুই দিন আগে জালালাবাদ শহরেই বেসরকারি এক টেলিভিশন স্টেশনে কর্মরত তিন নারী সংবাদকর্মীকে গুলি করে হত্যা করা হয়। মুরসাল ওয়াহিদি, সাদিয়া সাদাত ও শাহনাজ রাউফি নামের ওই সংবাদকর্মীদের হত্যার দায় স্বীকার করেছিল আইএস।

শেয়ার করুন

ইরাকে যাচ্ছেন পোপ

ইরাকে যাচ্ছেন পোপ

ক্যাথলিক খ্রিষ্টানদের সর্বোচ্চ ধর্মগুরু পোপ ফ্রান্সিস। এএফপির ফাইল ছবি

সফরকালে ইরাকের সর্বোচ্চ শিয়া মুসলিম ধর্মীয় নেতার সঙ্গে সাক্ষাতের কথা রয়েছে পোপের। এ ছাড়া দেশটির মসুল শহরে প্রার্থনার পাশাপাশি স্টেডিয়ামে আয়োজিত ধর্মীয় সভায় অংশ নিবেন তিনি।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি ও নিরাপত্তা হুমকির মধ্যেই প্রথমবারের মতো ইরাক সফরে যাচ্ছেন ক্যাথলিক খ্রিষ্টানদের সর্বোচ্চ ধর্মগুরু পোপ ফ্রান্সিস।

শুক্রবার বিবিসির প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, ইরাকে চার দিনের সফরে দেশটির ক্রমহ্রাসমান খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের মনোবল বাড়ানো ও আন্তঃধর্মীয় আলোচনা উন্নত করবেন পোপ।

সফরকালে ইরাকের সর্বোচ্চ সম্মানিত শিয়া মুসলিম ধর্মীয় নেতার সঙ্গে সাক্ষাতের কথা রয়েছে পোপের। এ ছাড়া দেশটির মসুল শহরে প্রার্থনার পাশাপাশি স্টেডিয়ামে আয়োজিত ধর্মীয় সভায় অংশ নেবেন তিনি।

ইরাকে করোনার সংক্রমণ নতুন করে বেড়ে যাওয়া ও নিজের নিরাপত্তা সংক্রান্ত উদ্বেগের মধ্যেও দেশটি সফরে যাওয়ার পরিকল্পনায় অনড় পোপ।

গত বুধবার ইরাকে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাদের এক ঘাঁটিতে রকেট হামলার কয়েক ঘণ্টা পর পোপ বলেন, ইরাকের খ্রিষ্টানদের দ্বিতীয়বার হতাশ করা যাবে না।

এর আগে ১৯৯৯ সালের শেষের দিকে ইরাক সফরের পরিকল্পনা করেও শেষ পর্যন্ত বাতিল করেছিলেন পোপ দ্বিতীয় জন পল।

বিশ্বের অন্যতম আদি খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের বাস ইরাকে। কিন্তু দেশটিতে গত দুই দশকে তাদের সংখ্যা ১৪ লাখ থেকে আড়াই লাখে নেমে আসে।

২০০৩ সালে যুক্তরাষ্ট্র নেতৃত্বাধীন জোটের আগ্রাসনের মধ্য দিয়ে ইরাকের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট সাদ্দাম হোসেন ক্ষমতাচ্যুত হন। এর পরই ধর্মীয় সহিংসতার হাত থেকে বাঁচতে দেশটির লাখ লাখ খ্রিষ্টান দেশ ছেড়ে পালাতে বাধ্য হয়।

এ ছাড়া ২০১৪ সালে ইরাকের উত্তরাঞ্চল আইএসের জঙ্গিরা দখল নেয়ার পর বাস্তুচ্যুত হয় দেশটির হাজার হাজার খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বী মানুষ।

শেয়ার করুন

নিউজিল্যান্ডে এবার ৮.১ মাত্রার ভূমিকম্প

নিউজিল্যান্ডে এবার ৮.১ মাত্রার ভূমিকম্প

৮.১ মাত্রার ভূমিকম্প হলেও সুনামির সম্ভাবনা নেই বলে জানিয়েছে নিউজিল্যান্ডের ন্যাশনাল ইমার্জেন্সি ম্যানেজম্যান্ট এজেন্সি।

ভূমিকম্পের পর পরই সুনামি সংকেত দেয়া হলেও শঙ্কা কেটে যাওয়ায় সে সংকেত ধীরে ধীরে নামিয়ে নিচ্ছে দেশটির ন্যাশনাল ইমার্জেন্সি ম্যানেজম্যান্ট এজেন্সি।

সাত মাত্রার বেশি দুটি ভূমিকম্পের পর নিউজিল্যান্ডে এবার ৮ দশমিক ১ মাত্রার ভূমিকম্প হয়েছে। এতে শুরুতে সুনামি সংকেত দেয়া হলেও শঙ্কা কেটে যাওয়ায় সে সংকেত ধীরে ধীরে নামিয়ে নিচ্ছে দেশটির ন্যাশনাল ইমার্জেন্সি ম্যানেজম্যান্ট এজেন্সি।

স্থানীয় সময় শুক্রবার সকাল ৮টা ২৮ মিনিটে ভূমিকম্পটি হয়। এর কেন্দ্রস্থল জনহীন কেরমাদেক দ্বীপপুঞ্জের কাছে, যা উত্তর-পূর্ব নিউজিল্যান্ড থেকে এক হাজার কিলোমিটার দূরে।

আগের দুটি ভূমি কম্পের পর দেয়া সুনামি সতর্কতা প্রত্যাহারের ঘোষণা দেয়ার পর পরই হয় ৮.১ মাত্রার ভূমিকম্পটি। ফলে নতুন করে কিছু কিছু এলাকায় সুনামি অ্যালার্ট দেয়া হয়।

জনসাধারণের মোবাইল ফোনে জরুরি সতর্কতা পাঠানো হয়। বেজে ওঠে সুনামি সতর্ক সংকেত। দ্রুত তাদেরকে উপকূলীয় এলাকা ছেড়ে নিরাপদ স্থানে আশ্রয় নিতে বলা হয়।

সতর্ক সংকেতে বলা হয়, ‘বাড়িতে অবস্থান করবেন না। প্রলয়ংকারী সুনামির সম্ভাবনা রয়েছে।’

স্থানীয় সময় বিকেলের দিকে অবশ্য সুনামি সতর্কতা সংকেতের মাত্রা হ্রাস করে ন্যাশনাল ইমার্জেন্সি ম্যানেজম্যান্ট এজেন্সি। ভূমিকম্পের ফলে ‘ভূমি ও সামুদ্রিক হুমকির’ বদলে ‘সৈকত ও সামুদ্রিক হুমকির’ বিষয়ে সতর্ক থাকতে বলা হয়।

যার অর্থ, বাসিন্দাদের তাদের বাড়ি ফিরতে কোনো বাধা নেই।

তবে সতর্কতায় আরও বলা হয়েছে, শক্তিশালী ভূকিকম্পের প্রভাবে তীব্র স্রোত ও ঢেউ কয়েক ঘণ্টা অব্যাহত থাকতে পারে। জনসাধারণকে সৈকত, তীর এবং নদীতে নামা থেকে বিরত থাকতে পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

শেয়ার করুন

ad-close 103.jpg