× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

আন্তর্জাতিক
ওয়াশিংটনে ১৫ দিনের জরুরি অবস্থা জারি
google_news print-icon

ওয়াশিংটনে ১৫ দিনের জরুরি অবস্থা জারি

ওয়াশিংটনে-১৫-দিনের-জরুরি-অবস্থা-জারি
ওয়াশিংটন ডিসির মেয়রের শঙ্কা, ট্রাম্প সমর্থকদের ধ্বংসাত্মক ও দাঙ্গা আচরণ রাজধানী ছাড়িয়ে যেতে পারে।

জো বাইডেনকে প্রেসিডেন্ট হিসেবে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দিতে কংগ্রেসে অধিবেশনের সময় ওয়াশিংটন ডিসিতে ট্রাম্প সমর্থকদের তাণ্ডবের পর সেখানে ১৫ দিনের জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে।

ক্যাপিটল হিলে বুধকবার কংগ্রেসের অধিবেশন শুরু হওয়ার মধ্যেই ট্রাম্পের পক্ষে স্লোগান ধরে সেখানে হামলা চালায় শত শত সমর্থক। একই সময়ে ওয়াশিংটনের অন্যান্য এলাকায়ও তাণ্ডব চালায় তারা।

ওয়াশিংটন ডিসি পুলিশ জানিয়েছে, সহিংসতায় এখন পর্যন্ত চার জন নিহতের খবর পেয়েছেন তারা।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে বুধবার বিকেল ছয়টা থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ছয়টা পর্যন্ত কারফিউ জারি করেন যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসির মেয়র মুরিয়েল বোসার।

কারফিউয়ের মেয়াদ শেষ না হতেই নতুন এক বিবৃতিতে তিনি জানান, মেয়র’স অর্ডার ২০২১-০০৩ এর আওতায় শহরে ১৫ দিনের জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে।

সহিংসতা চালানোদের ব্যাপারে মুরিয়েল বলেন, ‘তারা রাসায়নিক বিস্ফোরক উপাদান, ইট পাটকেল, বোতল ছোড়াছুরি করে এবং গুলি চালায়। তারা ক্যাপিটলের নিরাপত্তা লঙ্ঘন করেছে। ধ্বংসাত্মক ও দাঙ্গা আচরণ রাজধানী ছাড়িয়ে যেতে পারে। তাদের কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে।’

আরও পড়ুন:
ট্রাম্প সমর্থকদের তাণ্ডব, নিহত ৪
ট্রাম্পের ফেসবুক-টুইটার অ্যাকাউন্ট ব্লকড

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
Four restaurants in Tangail fined for not having fire extinguishing system

অগ্নি নির্বাপন ব্যবস্থা না থাকায় টাঙ্গাইলে চার রেস্তোরাঁকে জরিমানা

অগ্নি নির্বাপন ব্যবস্থা না থাকায় টাঙ্গাইলে চার রেস্তোরাঁকে জরিমানা ছবি: নিউজবাংলা
টাঙ্গাইল শহরের সুগন্ধা রেস্টুরেন্টকে ২০ হাজার টাকা, সুরুচি রেস্টুরেন্টকে ১ লাখ টাকা, ছেফাত রেস্তোরাঁকে ১০ হাজার টাকা ও ঝাউবন রেস্টুরেন্টকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমান আদালত।

অগ্নি নির্বাপন ব্যবস্থা না থাকায় টাঙ্গাইল শহরের চার রেস্তোরাঁকে দেড় লাখ টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

রোববার বিকেলে শহরের পুরাতন বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এ অভিযান পরিচালনা করে সদর উপজেলা প্রশাসন।

সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হাসান বিন মোহাম্মদ আলীর নেতৃত্বে অভিযানে আরও ছিলেন টাঙ্গাইল ফায়ার সার্ভিসের ইনস্পেক্টর রবিউল ইসলামসহ আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

এ সময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের দায়িত্বরত ইউএনও হাসান বিন মোহাম্মদ আলী বলেন, ‘টাঙ্গাইল শহরের বিভিন্ন রেস্তোরাঁ ও বহুতল ভবনে প্রশাসনের নিয়মিত অভিযান চলছে। তারই ধারাবাহিকতায় শহরের সুগন্ধা রেস্টুরেন্টকে ২০ হাজার টাকা, সুরুচি রেস্টুরেন্টকে ১ লাখ টাকা, ছেফাত রেস্তোরাঁকে ১০ হাজার টাকা ও ঝাউবন রেস্টুরেন্টকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘এদের কারো অগ্নি নির্বাপন ব্যবস্থা না থাকায় জরিমানা করা হয়েছে। এ ধরনের অভিযান অব্যাহত থাকবে।’

টাঙ্গাইল ফায়ার সার্ভিসের ইনস্পেক্টর রবিউল ইসলাম বলেন, ‘যাদের ভবন ও রেস্তোরাঁয় অগ্নি নির্বাপন ব্যবস্থা নেই, তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

আরও পড়ুন:
বার্ন ইনস্টিটিউট থেকে ছাড়পত্র পেয়েছেন ১১ জন, ভর্তি তিন
রাজধানীর আবাসিক এলাকায় রেস্তোরাঁ বন্ধ চেয়ে রিট

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Fuel prices are falling this month State Minister

চলতি মাসেই জ্বালানি তেলের দাম কমছে: প্রতিমন্ত্রী

চলতি মাসেই জ্বালানি তেলের দাম কমছে: প্রতিমন্ত্রী প্রতীকী ছবি
প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘জ্বালানি তেলের নতুন দামের বিষয়টি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে। অনুমোদন পেলেই প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে।’

আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে সমন্বয় করে প্রথমবারের মতো দেশের বাজারে জ্বালানি তেলের মূল্য সমন্বয় করতে যাচ্ছে সরকার। এ কাজে প্রথম দফায় দাম কমানো হচ্ছে বলে জানিয়ে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, চলতি মাসেই গ্রাহক পর্যায়ে দাম কমিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে।

রোববার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘নতুন ফর্মুলায় প্রথমবারের মতো নির্ধারণ করা হচ্ছে জ্বালানি তেলের দাম। শিগগিরই দেশে জ্বালানি তেলের দাম ঘোষণা করা হবে।’

তিনি বলেন, ‘জ্বালানি তেলের নতুন দামের বিষয়টি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে। অনুমোদন পেলেই প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে।’

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশে জ্বালানি তেলের দাম নির্ধারিত হয় সরকারের আদেশে, কিন্তু প্রতিবেশী দেশ ভারতসহ বিভিন্ন দেশে আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে সমন্বয় নিয়মিত মূল্য ওঠানামা করে।

বাংলাদেশেও এই পদ্ধতিতে জ্বালানি তেলে মূল্য সমন্বয় করতে দীর্ঘদিন থেকেই বলে আসছেন সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা।

বিদ্যুতের বাড়ানোর আগে গত মাসের শেষের দিকে নসরুল হামিদ বলেন, ‘মার্চ থেকে দেশের প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে সমন্বয় করে প্রতি মাসে জ্বালানি তেলের মূল্য নির্ধারণ করা হবে।’

এ বিষয়ে ১ মার্চ বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় এক প্রজ্ঞাপনে জানায়, আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে সমন্বয় রেখে প্রতি মাসে জ্বালানি তেলের স্বয়ংক্রিয় মূল্য নির্ধারণ করবে সরকার। প্রাথমিকভাবে চলতি মার্চ থেকেই এ পদ্ধতি কার্যকর হবে।

‘জ্বালানি তেলের স্বয়ংক্রিয় মূল্য নির্ধারণ নির্দেশিকা’শীর্ষক ওই প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, পেট্রোলিয়াম পণ্য (ডিজেল, কেরোসিন, অকটেন ও পেট্রোল) তথা সরকার যে সব গ্রেডের জ্বালানি তেলের বিক্রয়মূল্য নির্ধারণ করে থাকে, সেগুলোর জন্য এই স্বয়ংক্রিয় মূল্য নির্ধারণ পদ্ধতি প্রযোজ্য হবে।

এর বাইরেও প্রয়োজন মনে করলে, সরকার বা বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন অন্যান্য পেট্রোলিয়াম পণ্যের ক্ষেত্রেও শর্ত সাপেক্ষে নির্দেশনা প্রয়োগ করতে পারবে।

আরও পড়ুন:
মার্চ নয়, বিদ্যুতের বর্ধিত মূল্য ফেব্রুয়ারি থেকেই কার্যকর
বিশ্ববাজারের সঙ্গে ওঠানামা করবে জ্বালানি তেলের দাম: প্রতিমন্ত্রী
দাম বাড়ছে বিদ্যুতের, মার্চের প্রথম সপ্তাহে কার্যকরের চিন্তা

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Recruitment of 2 lakh 38 thousand primary teachers in one era

এক যুগে প্রাথমিকে ২ লাখ ৩৮ হাজার শিক্ষক নিয়োগ

এক যুগে প্রাথমিকে ২ লাখ ৩৮ হাজার শিক্ষক নিয়োগ ফাইল ছবি
গত এক যুগে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য প্রধান শিক্ষক ৫ হাজার ২০৫ জন এবং সহকারি শিক্ষক ২ লাখ ৩৩ হাজার ৩৭৪ জনসহ মোট ২ লাখ ৩৮ হাজার ৫৭৯ জন শিক্ষক-শিক্ষিকা নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী রুমানা আলী জানিয়েছেন, গত এক যুগে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ২ লাখ ৩৮ হাজার ৫৭৯ জন শিক্ষক-শিক্ষিকা নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

রোববার জাতীয় সংসদে সরকারি দলের সদস্য এম আবদুল লতিফের লিখিত প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। খবর বাসসের

রুমানা আলী বলেন, গত এক যুগে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য প্রধান শিক্ষক ৫ হাজার ২০৫ জন এবং সহকারি শিক্ষক ২ লাখ ৩৩ হাজার ৩৭৪ জনসহ মোট ২ লাখ ৩৮ হাজার ৫৭৯ জন শিক্ষক-শিক্ষিকা নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এই সময়ে বেসরকারি ও রেজিস্টার্ড প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১ লাখ ৪ হাজার ৮৭৫ জন শিক্ষক-শিক্ষিকার চাকুরি সরকারিকরণ করা হয়েছে।

সরকারি দলের সদস্য মো. মামুনুর রশীদ কিরনের অপর এক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ২০১৩ সালে প্রধানমন্ত্রী বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সমূহকে জাতীয়করণ ঘোষণার পর আর কোনো বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রেজিস্ট্রেশন দেয়া হয়নি। বর্তমানে বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় নিবন্ধন নীতিমালা-২০২৩ প্রণয়ন করা হয়েছে। নীতিমালার আলোকে সব বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে নিবন্ধনের আওতায় আনার কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
BNP leader Habibs sentence is upheld on appeal

বিএনপি নেতা হাবিবের সাজা আপিলেও বহাল

বিএনপি নেতা হাবিবের সাজা আপিলেও বহাল ফাইল ছবি
আদালত অবমাননার দায়ে হাবিবকে ৫ মাসের কারাদণ্ড ও দুই হাজার টাকা জরিমানা করে গত ২২ নভেম্বর রায় দেয় হাইকোর্ট। ওই রায়ের বিরুদ্ধে কারাবন্দি হাবিব গত ৮ ফেব্রুয়ারি লিভ টু আপিলসহ জামিন আবেদন করেন।

আদালত অবমাননার দায়ে বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কমিটির সদস্য হাবিবুর রহমান হাবিবকে ৫ মাসের কারাদণ্ড ও ২ হাজার টাকা জরিমানা করে হাইকোর্ট বিভাগের দেয়া রায় বহাল রেখেছে সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগ।

হাবিবের লিভ টু আপিল (আপিলের অনুমতি চেয়ে আবেদন) ও জামিনের আবেদন খারিজ করে দিয়ে প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বে তিন সদস্যের আপিল বেঞ্চ রোববার এ আদেশ দেয়। খবর বাসসের

আদালত অবমাননার দায়ে হাবিবকে ৫ মাসের কারাদণ্ড ও দুই হাজার টাকা জরিমানা করে গত ২২ নভেম্বর রায় দেয় হাইকোর্ট। ওই রায়ের বিরুদ্ধে কারাবন্দি হাবিব গত ৮ ফেব্রুয়ারি লিভ টু আপিলসহ জামিন আবেদন করেন।

আদালতে হাবিবের পক্ষে শুনানি করেন সিনিয়র আইনজীবী মো. রুহুল কুদ্দুস কাজল। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল শেখ মোহাম্মদ মোরশেদ।

অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল শেখ মোহাম্মদ মোরশেদ সাংবাদিকদের বলেন, হাবিবুর রহমান হাবিবের লিভ টু আপিল খারিজ করে দিয়েছে আপিল বিভাগ। এতে হাইকোর্ট বিভাগের দেয়া রায় বহাল রইল। এতে তাকে কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে এবং জরিমানার অর্থও পরিশোধ করতে হবে।

হাইকোর্ট বিভাগকে কটূক্তি ও আদালত অবমাননার মামলায় রাজধানীর পল্লবী থানার মিরপুর ডিওএইচএস এলাকা থেকে গত ২১ নভেম্বর হাবিবুর রহমানকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এর আগে বিচারপতি মো. আখতারুজ্জামানকে নিয়ে ‘অবমাননাকর বক্তব্যের’ প্রেক্ষাপটে গত বছরের ১৫ অক্টোবর হাবিবের প্রতি স্বতঃপ্রণোদিত আদালত অবমাননার রুল দেয় হাইকোর্ট বিভাগ। ব্যাখ্যা জানাতে তাকে আদালতে হাজির হতে নির্দেশ দেয়া হয়। নির্ধারিত তারিখে তিনি হাজির হননি।

গত ৮ নভেম্বর হাইকোর্ট বিভাগ হাবিবুরকে খুঁজে বের করে অবিলম্বে আদালতে হাজির করতে নির্দেশ দেয়। ২২ নভেম্বর তাকে আদালতে হাজির করে শেরে বাংলা নগর থানা পুলিশ।

আরও পড়ুন:
আইনের শাসন না থাকলে বিপর্যয় ঘটতেই থাকে: ফখরুল
গাজায় গণহত্যার পক্ষ নিয়েছে বিএনপি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
নাশকতা মামলায় বিএনপির সাবেক এমপিসহ ২ নেতা কারাগারে

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Barisal Bhola traffic stopped in truck canal due to broken bridge

ব্রিজ ভেঙ্গে ট্রাক খালে, বরিশাল-ভোলা যান চলাচল বন্ধ

ব্রিজ ভেঙ্গে ট্রাক খালে, বরিশাল-ভোলা যান চলাচল বন্ধ শনিবার রাত আড়াইটার দিকে ট্রাকটি ব্রিজ ভেঙে খালে পড়ে যায়। ছবি: নিউজবাংলা
স্থানীয়দের অভিযোগ, যেনতেনভাবে মাত্র এক মাস আগে ব্রিজটি তৈরি করেছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। বেশকিছু দিন ধরে একাধিকবার বলা হলেও ব্রিজ মেরামতে উদ্যোগ নেয়া হয়নি বলে ক্ষোভ রয়েছে তাদের।

বরিশাল-ভোলা মহাসড়কের টুঙ্গিবাড়িয়া এলাকায় একটি বেইলি ব্রিজ ভেঙ্গে পড়েছে। এতে গুরুতর কোনো হতাহতের ঘটনা না ঘটলেও দীর্ঘ ১২ ঘণ্টার বেশি সময় ওই সড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে বলে জানিয়েছে থানা পুলিশ।

শনিবার রাত আড়াইটার দিকে লোহার কুচি ভর্তি ট্রাক ব্রিজের ওপর উঠলে সেটি ভেঙে খালে পড়ে যায়।

বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের বন্দর থানার ওসি আব্দুর রহমান মুকুল বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, ব্রিজের ওপর উঠলে বরিশাল থেকে ভোলাগামী ট্রাকটি খালে পড়ে যায়। এতে ট্রাকের ভেতরে থাকা চালক ও হেলপার আহত হলেও তাদের কারও অবস্থা গুরুতর নয়।

ওসি বলেন, ‘রোববার সকালে সড়ক ও জনপদ বিভাগের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে আসেন। তারা ব্রিজটি মেরামতের পাশাপাশি বিকল্প সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা সচল করার চেষ্টা চালাচ্ছেন। বিকল্প ব্যবস্থা না হওয়া পর্যন্ত বরিশাল-ভোলা রুটে যান চলচল বন্ধ থাকবে।’

স্থানীয়রা জানান, যান চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সড়কের উভয়প্রান্তে প্রায় এক কিলোমিটার জুড়ে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। ব্রিজটি ভেঙ্গে যাওয়ার কারণে পণ্য ও যাত্রীবাহী বাস চলাচল বন্ধ হয়েছে। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন সাধারণ মানুষ। মানুষকে পায়ে হেঁটে বিকল্প পথে খালটি পার হয়ে গন্তব্যে যেতে হচ্ছে।

ট্রাকের চালক ও হেলপার জানান, বেনাপোল থেকে বরিশাল-ভোলা হয়ে চট্টগ্রাম যাওয়ার কথা ছিল ট্রাকটির, কিন্তু শনিবার রাত আড়াইটার দিকে টুঙ্গিবাড়িয়ার স্লুইজ গেট এলাকার বেইলি ব্রিজে উঠলে ব্রিজটি ভেঙে পড়ে। রড তৈরির কাঁচামালের ২৫ টন লোহার কুঁচিভর্তি করে ট্রাকটি ওই ব্রিজ পার হচ্ছিল।

তারা জানান, ব্রিজটি ভেঙ্গে পড়ায় ট্রাকটি উল্টে খালে পড়ে যায়। এতে অল্পের জন্যে প্রাণে বেঁচে যান তারা। তবে স্থানীয়রা তাৎক্ষনিক তাদের উদ্ধার করে।

টুঙ্গিবাড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান নাদিরা রহমান বলেন, ‘বেইলি ব্রিজটি ভেঙে পড়ায় বরিশাল-ভোলা মহাসড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। শত শত মানুষসহ এ পথ দিয়ে স্বল্প সময়ে সড়কপথে ভোলা, নোয়াখালী, ফেনীসহ চট্টগ্রামে যাতায়াত করেন যাত্রীরা।

স্থানীয়দের অভিযোগ, যেনতেনভাবে মাত্র এক মাস আগে ব্রিজটি তৈরি করেছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। বেশকিছু দিন ধরে একাধিকবার বলা হলেও ব্রিজ মেরামতে উদ্যোগ নেয়া হয়নি বলে ক্ষোভ রয়েছে তাদের।

একই কথা জানিয়েছেন ওই রুটে চলাচলকারী ট্রাক, বাস ও ট্যাংক লরির চালক-হেলপাররাও। তাদের দাবি, সেতুটি দিয়ে কী পরিমাণ ওজনের যানবাহন চলাচল করতে পারবে, তারও নির্দেশনা দেয়া ছিল না; থাকলেও হয়ত ট্রাকটি ঝুকি নিত না।

ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে সড়ক ও জনপদ বিভাগ বরিশালের নির্বাহী প্রকৌশলী মাসুদ মাহমুদ সুমন দাবি করেছেন, ২০ টন ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন বেইলি ব্রিজটিতে অতিরিক্ত পণ্য ওঠাতেই দুর্ঘটনাটি ঘটেছে।

এদিকে সড়কটিতে যানবাহন চলাচলের ব্যবস্থা দ্রুত করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন সড়ক ও জনপদ বিভাগ বরিশাল অঞ্চলের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী একেএম আজাদ রহমান।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, কর্মকর্তারা পরিদর্শনের পর ব্রিজটি সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তবে সেটিতে সময় লাগায় এখন বিকল্প অস্থায়ী সড়ক নির্মাণের কথা জানিয়েছেন তারা।

আর যারা ব্রিজটি সংস্কারের কাজে নিয়জিত তারা বলছেন, কমপক্ষে দুদিন লাগবে ব্রীজটি ঠিক করতে।

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Power sector in deep crisis Rizvi

বিদ্যুৎ খাত গভীর সংকটে: রিজভী

বিদ্যুৎ খাত গভীর সংকটে: রিজভী রোববার রাজধানীর নয়াপল্টনস্থ দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। ছবি: ফোকাস বাংলা
রিজভী বলেন, ‘তাপমাত্রা এখনও সহনীয় পর্যায়ে রয়েছে, অথচ দেশের মানুষ সকাল-সন্ধ্যা লোডশেডিংয়ে ভুগছে।’

দেশের বিদ্যুৎ খাত গভীর সংকটে নিমজ্জিত বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

রোববার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে মত বিনিময়কালে এ কথা বলেন তিনি। খবর ইউএনবির

রিজভী বলেন, ‘বিদ্যুৎ পরিস্থিতি নিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের সাম্প্রতিক বক্তব্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্যের সঙ্গে সাংঘর্ষিক।

‘কাদের দাবি করেছেন, দেশের মানুষ শতভাগ মানুষ বিদ্যুৎ সুবিধা পাচ্ছেন। অথচ তার কিছুদিন আগে প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, দেশে স্বল্প পরিসরে হলেও লোডশেডিং থাকবে।’

তিনি বলেন, ‘তাপমাত্রা এখনও সহনীয় পর্যায়ে রয়েছে, অথচ দেশের মানুষ সকাল-সন্ধ্যা লোডশেডিংয়ে ভুগছে।’

‘বিএনপি দেশের মানুষকে উপেক্ষা করে বিদেশি প্রভুর কাছে ধরনা দিচ্ছে’ ওবায়দুল কাদেরের এ বক্তব্যের নিন্দা করেন রিজভী।

অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের সম্ভবত স্মৃতিশক্তি লোপ পেয়েছে। কারণ তিনি ২০১৪ সালের নির্বাচন ভুলে গিয়েছিলেন, যখন ভারতের তৎকালীন পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুজাতা সিং আওয়ামী লীগকে তাদের সমর্থন করতে এবং এইচএম এরশাদকে নির্বাচনে যোগদান করানোর জন্য বাংলাদেশ সফর করেছিলেন।’

এটি একটি সার্বভৌম দেশে হস্তক্ষেপের স্পষ্ট লক্ষণ বলে উল্লেখ করেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আহমেদ আজম খান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নুল আবেদীন ফারুক, জয়নাল আবেদীন (ভিপি জয়নাল), সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুস সালাম আজাদ, সহ-দপ্তর সম্পাদক মুনির হোসেন, সহ-অর্থনৈতিক সম্পাদক মাহমুদুর রহমান সুমন প্রমুখ।

আরও পড়ুন:
কোন খাতে কত বাড়ছে বিদ্যুতের দাম
আওয়ামী সিন্ডিকেটের মুনাফার জন্য বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হয়েছে: রিজভী
মার্চ নয়, বিদ্যুতের বর্ধিত মূল্য ফেব্রুয়ারি থেকেই কার্যকর

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
First Trade Permit to Shift Chemical Warehouse from Old Dhaka to Shyampur

পুরান ঢাকা থেকে শ্যামপুরে রাসায়নিক গুদাম স্থানান্তরের প্রথম বাণিজ্য অনুমতি

পুরান ঢাকা থেকে শ্যামপুরে রাসায়নিক গুদাম স্থানান্তরের প্রথম বাণিজ্য অনুমতি ফাইল ছবি
এর ফলে দীর্ঘ এক যুগ পর রাসায়নিক গুদাম হিসেবে প্রথম কোনো ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানকে বাণিজ্য অনুমতি দিল দক্ষিণ সিটি।

নিমতলী ও চুড়িহাট্টা অগ্নিকাণ্ডের পর পুরান ঢাকা থেকে শ্যামপুরে রাসায়নিক গুদাম (কেমিক্যাল গোডাউন) স্থানান্তরিত করার জন্য একটি প্রতিষ্ঠানকে বাণিজ্য অনুমতি (ট্রেড লাইসেন্স) দিল ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন।

রোববার বিকেলে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের জনসংযোগ বিভাগ থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য জানানো হয়। এর ফলে দীর্ঘ এক যুগ পর রাসায়নিক গুদাম হিসেবে প্রথম কোনো ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানকে বাণিজ্য অনুমতি দিল দক্ষিণ সিটি।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, শিল্প মন্ত্রণালয় কর্তৃক রাজধানীর শ্যামপুরে বাস্তবায়িত ‘অস্থায়ী ভিত্তিতে রাসায়নিক দ্রব্য সংরক্ষণের জন্য নির্মিত গুদাম’ প্রকল্পে স্থানান্তরিত হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে ‘মেসার্স রয়েল টন লেকার কোটিং’ নামক রাসায়নিক প্রতিষ্ঠানের বাণিজ্য অনুমতি নবায়ন করে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন।

শ্যামপুরে স্থানান্তরিত হওয়ার পর সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান কর্তৃক বাণিজ্য অনুমতি নবায়নের আবেদন করা হলে গত ২৮ ফেব্রুয়ারি ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন উল্লিখিত প্রতিষ্ঠানকে নবায়নকৃত এই বাণিজ্য অনুমতি দেয়।

এ বিষয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মিজানুর রহমান বলেন, ‘শ্যামপুরে স্থানান্তরিত হওয়ায় আমি সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানকে ধন্যবাদ জানাই। আশা করি, তাদের পদাঙ্ক অনুসরণ করে অন্যান্য রাসায়নিক গুদাম ও ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানও সেখানে স্থানান্তরিত হবে। নিরাপদ হবে আমাদের পুরাতন ঢাকার সামগ্রিক পরিবেশ।’

যেসব প্রতিষ্ঠান স্থানান্তরিত হবে না, পর্যায়ক্রমে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে জানিয়ে তিনি আরও বলেন, ‘শ্যামপুরে অস্থায়ী ভিত্তিতে যে রাসায়নিক গুদামগুলো নির্মাণ করা হয়েছে সেখানে অগ্নি নির্বাপণের আধুনিক ব্যবস্থা রয়েছে। এ ছাড়াও খোলামেলা পরিবেশ হওয়ার সেখানে ঝুঁকির মাত্রাও অনেক কম। পাশাপাশি এসব রাসায়নিক গুদাম ও প্রতিষ্ঠানকে স্থায়ীভাবে স্থানান্তরের জন্য শিল্প মন্ত্রণালয় কর্তৃক মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখানে ৩১০ একর জায়গার ওপর যে প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে তা প্রায় শেষ পর্যায়ে রয়েছে বলে আমরা জেনেছি। জননিরাপত্তার জন্য মারাত্মক ঝুঁকি সৃষ্টিকারী এসব রাসায়নিক গুদাম ও প্রতিষ্ঠান যদি সেখানে স্থানান্তরিত না হয় তাহলে আমরা সেসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করব।’

গত বছরের ৪ জুন শ্যামপুরে ‘অস্থায়ী ভিত্তিতে রাসায়নিক দ্রব্য সংরক্ষণের জন্য নির্মিত গুদাম’ প্রকল্প চালু করা হয়। শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন এবং ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস সেসব গুদাম উদ্বোধন করেন।

এ ছাড়া নিমতলী অগ্নিকাণ্ডের পর ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন ২০১৩ সাল থেকে পুরান ঢাকায় অবস্থিত এসব রাসায়নিক গুদাম ও প্রতিষ্ঠানকে এবং চুড়িহাট্টা অগ্নিকাণ্ডের পর ২০১৯ সাল থেকে রাসায়নিক গুদাম ও প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি বিস্ফোরক জাতীয় রাসায়নিক ব্যবহৃত হয় এ ধরনের প্লাস্টিক কারখানা ও প্রতিষ্ঠানকে নতুন করে বাণিজ্য অনুমতি দেয়া ও বাণিজ্য অনুমতি নবায়ন বন্ধ রাখে।

মন্তব্য

p
উপরে