20201002104319.jpg
সেনা সরানো নিয়ে অনড় চীন-ভারত

সেনা সরানো নিয়ে অনড় চীন-ভারত

দফায় দফায় বৈঠক করেও দুই পক্ষ সীমান্ত বিরোধের মীমাংসায় পৌঁছাতে পারছে না। চীনের দাবি ভারতকে লাদাখের প্যাংগং লেকের দক্ষিণপ্রান্ত থেকে সেনা সরাতে হবে। ভারত বলছে, চীনা সেনাকে আগে সরতে হবে প্যাংগংয়ের উত্তরপ্রান্ত থেকে।

দাবি ও পাল্টা দাবি নিয়েই চলছে ভারত-চীন সীমান্ত বিবাদ সম্পর্কিত দ্বিপাক্ষিক আলোচনা। ফলে সাত দফা বৈঠক শেষেও বিবাদ মেটাতে কোনো সমাধান সূত্র নিয়ে ঐকমত্যে পৌঁছানো সম্ভব হয়নি।

গত ১২ অক্টোবর দুই দেশের সেনা অধিনায়কদের সপ্তম দফার বৈঠক শেষে এক যৌথ বিবৃতি প্রকাশ করা হয়েছিল। ওই বিবৃতিতে বলা হয়েছিল, ‘সীমান্ত বিবাদের সমাধানে ঐকমত্যে পৌঁছানোর জন্য সেনা এবং কূটনৈতিক চ্যানেলে নিয়মিত আলোচনা ও যোগাযোগ রক্ষা করার বিষয়ে দু-পক্ষই সহমত পোষণ করে। যত দ্রুত সম্ভব আলোচনার মধ্যে দিয়েই দুপক্ষের গ্রহণযোগ্য সমাধান সূত্র খুঁজে বের করতে হবে।’

ভারত বা চীন, কোনো পক্ষই সরকারিভাবে আলোচনার বিষয়গুলি নিয়ে কোনো মন্তব্য করেনি। গত বৃহস্পতিবার ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর বলেছিলেন, ‘গোপন আলোচনা চলছে। আলোচনার বিষয় বা গতিপ্রকৃতি কিছুই এখন বলা সম্ভব নয়।’

তবে ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রের খবর, চীন দাবি জানিয়েছে লাদাখে প্যাংগং লেকের দক্ষিণপ্রান্ত থেকে সেনা সরাতে হবে ভারতকে। তারপরই নয়াদিল্লির দাবি মেনে লাদাখে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় এপ্রিলের স্থিতাবস্থা ফেরানোর বিষয়ে আলোচনা হবে।

ভারত-চিন সেনার সপ্তম রাউন্ডের বৈঠকে এই সেনা সরানোর ক্ষেত্রে জোর দিয়েছে বেইজিং। পাল্টা, প্যাংগংয়ের উত্তরপ্রান্ত চীনের সেনা মুক্ত করার দাবি জানানো হয়েছে ভারতের পক্ষ থেকে। ফলে, চীনের এই অনড় অবস্থানই দুই দেশের সীমান্ত পরিস্থিতি প্রশমণের উদ্যোগে নতুন করে বিরোধের সৃষ্টি করতে পারে বলে আশঙ্কা।

ভারত-চীন সীমান্তে উত্তেজনাকর পরিস্থিতি প্রশমণে আলোচনা চালাচ্ছে দুই দেশের সেনা ও কূটনীতিকেরা। পাশাপাশি কথা হয়েছে উভয় রাষ্ট্রের উচ্চ রাজনৈতিক নেতৃত্বের মধ্যেও। কিন্তু তাতেও যে অবস্থায় খুব একটা ফারাক হয়েছে তেমনটা নয়। প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা থেকে বাহিনী না সরানোর বিষয়ে অনড় চীনের সেনারা। মাঝে মধ্যেই আগ্রাসী হয়ে উঠছে তারা।

এই অবস্থায় পাল্টা ভারতীয় সেনাও নিয়ন্ত্রণরেখা পেরিয়ে প্যাংগংয়ের দক্ষিণপ্রান্তের সাতটি পাহাড় চূড়া নিজেদের দখলে রেখেছে। ফলে প্যাংগংয়ের উত্তর অংশে চীনা সেনার অবস্থান ও দক্ষিণে ভারতীয় বাহিনী রয়েছে।

এই অবস্থায় চলতি সপ্তাহে দুই দেশের সেনা ও বিদেশ দফতরের সরকারি কর্মকর্তাদের মধ্যে সপ্তম পর্যায়ের বৈঠক হয়। জানা গিয়েছে, সেই বৈঠকেই উভয় রাষ্ট্রের মধ্যে আলোচনা এগিয়ে নিয়ে যেতে চীন প্যাংগংয়ের দক্ষিণ অংশ থেকে সেনা সরাতে ভারতের উপর চাপ সৃষ্টি করেছে।

সূত্রের খবর, চীন আগ্রাসনের মোকাবিলায় ভারত প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখার সাতটি পয়েন্ট পেরিয়েছে। লাদাখ সম্পর্কে সম্পূর্ণ অবগত ভারতীয় সেনাবাহিনীর এক কর্মকর্তা বলেন, ‘চীনা সেনা নিয়ন্ত্রণরেখা পেরিয়ে এ দেশে ঢুকছে। পাল্টা ভারতের সেনাও নিয়ন্ত্রণরেখায় সাতটি জায়গা পার করেছে। চীন এখনও আলোচনায় আধিপত্ব রেখেছে, এমনটা কেন ভাবা হচ্ছে? বাস্তব অনেকটাই ভিন্ন।’

আগস্টে চুশুল সাব সেক্টরের অধিকাংশ এলাকা ভারতীয় সেনা দখলের পরই প্যাংগংয়ের দক্ষিণ অঞ্চল থেকে ভারতীয় বাহিনী সরানোর উপর জোর দিয়েছে চীন।

সীমান্ত উত্তেজনা প্রশমণ ও সেনা সরানোর বিষয়ে সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহে মস্কোয় সাংহাই কোঅপারেশন অর্গানাইজেশনের সম্মেলন চলাকালে ভারত-চীন প্রতিরক্ষা ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠক হয়। সেখানেই আলোচনা এগিয়ে নিয়ে যাওয়া ও নতুন করে যাতে বিরোধ না বাধে, সেজন্য সহমত পোষণ করা হয়েছিল। কিন্তু সীমান্ত বিবাদ এখনও মেটেনি। 

শেয়ার করুন