20201002104319.jpg
করোনা নিয়ে ট্রাম্প-বাইডেন ‘বিতর্ক’

করোনা নিয়ে ট্রাম্প-বাইডেন ‘বিতর্ক’

করোনা ঠেকাতে ট্রাম্পের নেয়া পদক্ষেপের সমালোচনা করেন বাইডেন।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের দুই সপ্তাহ আগে পরোক্ষ বিতর্কে জড়িয়েছেন ডনাল্ড ট্রাম্প ও তার ডেমোক্র্যাটিক পার্টির প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেন।

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার দুটি টেলিভিশন চ্যানেলে দুই প্রার্থী পরস্পরকে আক্রমণ করেন।

ওই দিন ট্রাম্প ও বাইডেনের মধ্যে সামনাসামনি দ্বিতীয় বিতর্ক অনুষ্ঠিত হওয়ার হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ট্রাম্প করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর অনুষ্ঠানটি বাতিল করা হয়।

ফিলাডেলফিয়া অঙ্গরাজ্যে এবিসি টাউন হলে ভোটারদের সামনে করোনা ঠেকাতে ট্রাম্পের নেয়া পদক্ষেপের সমালোচনা করেন বাইডেন।

ওই সময় করোনায় মৃত্যু গোপন করার জন্য রিপাবলিকান প্রার্থী ট্রাম্পের প্রতি অভিযোগ তোলেন তিনি।

বাইডেন বলেন, ‘তিনি (ট্রাম্প) বলেছেন তিনি কাউকে জানাননি। কারণ দেশের মানুষ ভয় পাবে। আমেরিকানরা ভয় পায় না; বরং তিনি ভয় পেয়েছিলেন।’

অন্যদিকে ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের মায়ামি শহরে এনবিসি টাউন হলে ভোটারদের মুখোমুখি হন ট্রাম্প।

করোনা মহামারি ও সুপ্রিম কোর্টে সদ্য শূন্য হওয়া বিচারক পদে তাড়াহুড়ো করে প্রার্থী ঘোষণার অনুষ্ঠান নিয়ে নিজের অবস্থান তুলে ধরেন ট্রাম্প।

হোয়াইট হাউজের অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত বেশির ভাগই মাস্ক পরেননি; শারীরিক দূরত্বও মেনে চলেননি।

ট্রাম্প বলেন, ‘আমি প্রেসিডেন্ট। লোকজনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে হয় আমাকে। আমি বেজমেন্টে পড়ে থাকতে পারি না।’

তিনি জানান, মাস্ক পরার কার্যকারিতা নিয়ে বিভিন্ন ধরনের গল্প শুনেছেন তিনি।

যদিও ট্রাম্প প্রশাসনের স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে মাস্ক পরা উচিত।

শেষবার করোনা পরীক্ষার ফল নেগেটিভ আসার প্রশ্নে ট্রাম্প সরাসরি কোনো উত্তর দেননি। বিষয়টি মনে করতে পারছেন না বলে জানান তিনি।

এনবিসি সঞ্চালক সাভানাহ গাথরির প্রশ্নে ট্রাম্পকে আক্রমণাত্মক ভঙ্গিতে উত্তর দিতে দেখা যায়। এর দুই সপ্তাহ আগে অনুষ্ঠিত প্রথম বিতর্কে বারবার বাইডেনকে কথা বলতে বাধা দিয়েছিলেন ট্রাম্প।

দুই দশক ধরে কর ফাঁকি সংক্রান্ত নিউ ইয়র্ক টাইমসের অনুসন্ধানী প্রতিবেদন নিয়ে প্রশ্নও এড়িয়ে যান ট্রাম্প।

সূত্র: দ্য হিন্দুস্তান টাইমস

শেয়ার করুন