আরএসএস প্রধানের মুখে এবার উল্টো সুর

আরএসএস প্রধান মোহন ভাগবত

আরএসএস প্রধানের মুখে এবার উল্টো সুর

বিভিন্ন সময়ে সাম্প্রদায়িক সহিংসতা ও বিভেদ সৃষ্টির অভিযোগ রয়েছে আরএসএসের বিরুদ্ধে। তবে মোহন ভাগবত বলছেন, ‘বিশ্বে সবচেয়ে সুখে-শান্তিতে আছেন ভারতীয় মুসলিমরা। ভারতের মতো অন্য কোনো দেশে মুসলিমরা এতটা সুরক্ষিত নন।’  

ভারতে হিন্দুত্ববাদী রাজনীতির অন্যতম প্রধান পৃষ্ঠপোষক রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ বা আরএসএস-এর প্রধান মোহন ভাগবত দাবি করেছেন, ভারতে ধর্মীয় ভেদাভেদের কোনো জায়গা নেই।

বিভিন্ন সময়ে সাম্প্রদায়িক সহিংসতা ও বিভেদ সৃষ্টির অভিযোগ রয়েছে আরএসএসের বিরুদ্ধে। তবে মোহন ভাগবত বলছেন, ‘বিশ্বে সবচেয়ে সুখে-শান্তিতে আছেন ভারতীয় মুসলিমরা। ভারতের মতো অন্য কোনো দেশে মুসলিমরা এতটা সুরক্ষিত নন।’

মহারাষ্ট্রের একটি হিন্দি ম্যাগাজিন বিবেককে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, ‘ভারতের উপর যখনই কোনো আঘাত হয়েছে, তখন সব ধর্মের মানুষ একসঙ্গে রুখে দাঁড়িয়েছে। ধর্মীয় ভেদাভেদ তারাই করে, যাদের স্বার্থে আঘাত লাগে।’

দেশজুড়ে সাম্প্রদায়িক অসহিষ্ণুতার পরিবেশের মধ্যে ভাগবতের এই বক্তব্য বেশ তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল। আরএসএসকে ভারতের প্রধান শাসক দল ভারতীয় জনতা পার্টির আদর্শগত পথপ্রদর্শক।

দীর্ঘ সাক্ষাৎকারে মোহন ভাগবত দাবি করেছেন, ভারতে মুসলিমদের অস্তিত্ব বিপন্ন নয়, বরং সারা বিশ্বের মধ্যে ভারতেই মুসলিমরা সবচেয়ে সুখে আছেন ।

তার কথায়, ‘মহারাজা প্রতাপ সিংয়ের সেনাবাহিনীতে অনেক মুসলমান ছিলেন। তারা মুঘলদের বিরুদ্ধে লড়েছেন। এটাই আমাদের ভারতবর্ষ। আমাদের দেশের নাম উচ্চারিত হলে সংহতির কথাই আসে সবার আগে। হিন্দু-মুসলমানের মধ্যে ভেদাভেদ করে কিছু মানুষ। ব্যক্তিগত স্বার্থসিদ্ধির জন্য।’

তিনি আরও বলেন, ‘দেশের সংবিধানে কোথাও লেখা নেই যে, ভারতে মুসলিমদের জন্য কোনো জায়গা নেই; শুধু হিন্দুদেরই কথা শোনা হবে, মুসলমানদের নয়; কোথাও বলা নেই যে এদেশে থাকতে হলে হিন্দুদের শ্রেষ্ঠ বলে মেনে নিতে হবে। এটাই ভারতবর্ষ এবং এর সমন্বয়ের অন্তর্নিহিত প্রকৃতিই হিন্দু। যখনই দেশের সংস্কৃতির উপর আক্রমণ হয়েছে, তখন সব ধর্মের মানুষ একসঙ্গে রুখে দাঁড়িয়েছে। তা সে হিন্দু হোক বা মুসলমান। এটাই আমাদের দেশ।’

মোহন ভাগবত বলেন, ‘আপনারা পাকিস্তানে দেখুন। সেখানে সংখ্যালঘু হিন্দুদের একঘরে করে রাখা হয়েছে। কিন্তু ভারতে মুসলিমরা সুখে রয়েছে।’

শেয়ার করুন

মন্তব্য