× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

google_news print-icon

সোমবারই হাসপাতাল ছাড়তে পারেন ট্রাম্প

সোমবারই-হাসপাতাল-ছাড়তে-পারেন-ট্রাম্প

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের শারীরিক অবস্থার উন্নতি হচ্ছে জানিয়ে তার ব্যক্তিগত চিকিৎসক শন কনলে বলেছেন, সোমবারই হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেতে পারেন তিনি।

শুক্রবার ট্রাম্পকে ওয়াশিংটন ডিসির কাছে দেশটির অন্যতম সামরিক হাসপাতাল ওয়াল্টার রিড ন্যাশনাল মিলিটারি মেডিকেল সেন্টারে ভর্তি করা হয়।

রোববার সেখানে এক সংবাদ সম্মেলনে কনলে বলেন, শনিবার ট্রাম্পের অক্সিজেনের লেভেল দ্বিতীয়বারের মতো কমে গিয়েছিল। তাকে এখন ডেক্সামেথাসন নামের একটি স্টেরয়েড দেয়া হচ্ছে।

ট্রাম্পকে বাড়তি অক্সিজেন দেয়া হয়েছে কি না তা স্পষ্ট করেন নি তিনি।

কনলে জানান, করোনা শনাক্ত হওয়ার পরে ট্রাম্পের অক্সিজেনের মাত্রা দুই বার নিচে নেমে গিয়েছিল। প্রথমবার অক্সিজেন নামার ঘটনা ঘটে শুক্রবার সকালে। তখন আধঘণ্টা ধরে ট্রাম্পকে অক্সিজেন দেয়া হয়।

এর আগে শনিবার কনলে জানিয়েছিলেন, ট্রাম্পকে তখন পর্যন্ত অতিরিক্ত অক্সিজেন দিতে হয়নি। প্রায় ২৪ ঘণ্টা তার জ্বর নেই।

রোববারের সংবাদ সম্মেলনে কনলে স্বীকার করেন তার এই বক্তব্য অতিরঞ্জিত ছিল।

ডনাল্ড ট্রাম্প শুক্রবার সকালে এক টুইটবার্তায় তার নিজের ও স্ত্রী মেলানিয়া ট্রাম্পের করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ট্রাম্পের বয়স ৭৪ বছর। এ ছাড়া তিনি স্থুল এবং পুরুষ। এই তিনটি বিষয়ই তাকে গুরুতর সংক্রমণের ঝুঁকিতে ফেলেছে।

সূত্র: বিবিসি

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
9 people died in a moving bus fire in India

ভারতে চলন্ত বাসে আগুনে ৯ জনের মৃত্যু

ভারতে চলন্ত বাসে আগুনে ৯ জনের মৃত্যু বাসটিতে মহিলা ও শিশুসহ ৬০ জনের বেশি যাত্রী ছিলেন। ছবি: এনডিটিভি
বেঁচে যাওয়া এক যাত্রী বলেন, ‘আমরা ১০ দিনের জন্য তীর্থযাত্রা করতে বাস ভাড়া করেছিলাম। শুক্রবার রাতে আমরা বাড়ি ফিরছিলাম। রাতে ঘুমানোর সময় ধোঁয়ার গন্ধ পেয়েছি। মোটরসাইকেল আরোহী চালককে সতর্ক করার পরে বাসটি থামানো হয়।’

ভারতে হরিয়ানা রাজ্যে একটি যাত্রীবাহী চলন্ত বাসে আগুন লেগে ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে।

উত্তরপ্রদেশের মথুরা ও বৃন্দাবনে তীর্থস্থান থেকে ফেরার সময় রাজ্যের নুহ জেলায় শুক্রবার রাতে এ ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি। এতে আহত হয়েছেন অনেকে।

বাসটিতে মহিলা ও শিশুসহ একটি পরিবারের ৬০ জনেরও বেশি লোক ছিল, যাদের সবাই পাঞ্জাবের বাসিন্দা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শুক্রবার রাত দেড়টার দিকে বাসের পেছনে ধোঁয়ার গন্ধ পান তারা। একজন মোটরসাইকেল আরোহী বাসের পেছনে আগুন দেখতে পেয়ে সেটি অনুসরণ করেন। পরে তিনি বাসে উঠে বাস থামানোর জন্য চালককে সতর্ক করেন।

বেঁচে যাওয়া এক যাত্রী বলেন, ‘আমরা ১০ দিনের জন্য তীর্থযাত্রা করতে বাস ভাড়া করেছিলাম। শুক্রবার রাতে আমরা বাড়ি ফিরছিলাম। রাতে ঘুমানোর সময় ধোঁয়ার গন্ধ পেয়েছি। মোটরসাইকেল আরোহী চালককে সতর্ক করার পরে বাসটি থামানো হয়।’

ইন্সপেক্টর জিতেন্দ্র কুমার সংবাদ সংস্থা পিটিআইকে জানান, দুর্ঘটনায় ছয় নারী ও তিন পুরুষসহ ৯ জন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় ১৫ জন আহত হয়েছেন এবং তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, বাসটি সম্পূর্ণ পুড়ে যাওয়ার তিন ঘণ্টা পর উদ্ধার কর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছান।

স্থানীয় একজনের ভাষ্য, ‘আগুনের তীব্রতা বেড়ে যাওয়ার আগেই আমরা বাসের পেছনে দৌড়ে গিয়ে জানালা ভেঙে যতটা সম্ভব লোকদের বের করে আনতে পারি। পুলিশকে খবর দিয়েছিলাম, কিন্তু তারা আসতে অনেক সময় নেয়।’

আগুন লাগার কারণ এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

আরও পড়ুন:
এক ঘণ্টা পর নিভল ধোলাইখালের মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের আগুন
ধোলাইখালে মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকে আগুন
ট্যুরিস্ট ভিসায় তিন দিন ভারতে যেতে পারবেন না বাংলাদেশিরা
থানচির থুইসাপাড়ায় ভয়াবহ আগুন নিয়ন্ত্রণ বিজিবির
দেড় মাসে তৃতীয়বারের মতো আগুন ফরিদপুরের বঙ্গবন্ধু হাসপাতালে

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Hamas ready for long war with Israel spokesman

ইসরায়েলের সঙ্গে দীর্ঘ যুদ্ধে প্রস্তুত হামাস: মুখপাত্র

ইসরায়েলের সঙ্গে দীর্ঘ যুদ্ধে প্রস্তুত হামাস: মুখপাত্র ফিলিস্তিনের গাজার রাফাহতে ২০১৭ সালের ৩১ জানুয়ারি সাংবাদিকদের উদ্দেশে বক্তব্য দেন হামাসের সামরিক শাখা আল-কাসাম ব্রিগেডসের মুখপাত্র আবু ওবেইদা। ছবি: আলি জাদাল্লাহ/আনাদোলু এজেন্সি
‘আমাদের জনগণের ওপর আগ্রাসন বন্ধে আমাদের (হামাস) পূর্ণ অঙ্গীকার সত্ত্বেও আমরা শত্রুর সঙ্গে দীর্ঘ যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত’, বলেন আবু ওবেইদা।

ইসরায়েলের সেনাবাহিনীর সঙ্গে দীর্ঘ যুদ্ধের জন্য প্রস্তুতির কথা শুক্রবার জানিয়েছে হামাস।

ফিলিস্তিনের গাজার শাসক দলটির সামরিক শাখা আল-কাসাম ব্রিগেডসের মুখপাত্র আবু ওবেইদা এক ভিডিওবার্তায় এ কথা জানান বলে তুরস্কের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা আনাদোলুর প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

‘আমাদের জনগণের ওপর আগ্রাসন বন্ধে আমাদের (হামাস) পূর্ণ অঙ্গীকার সত্ত্বেও আমরা শত্রুর সঙ্গে দীর্ঘ যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত’, বলেন আবু ওবেইদা।

তিনি জানান, আল-কাসাম ব্রিগেডসের যোদ্ধারা গত ১০ দিনে গাজা উপত্যকাজুড়ে ইসরায়েলি সেনাবাহিনীর ১০০ সামরিক যানকে লক্ষ্যবস্তু বানিয়েছে।

তার অভিযোগ, ইসরায়েলের সেনাবাহিনী তাদের সব ক্ষতির কথা ঘোষণা করে না।

‘আল-কাসাম ব্রিগেডস যোদ্ধারা রাফাহ শহরের পূর্বাঞ্চলে শত্রুদের ওপর মারাত্মক আঘাত হেনেছে’, বলেন আবু ওবেইদা।

গত সপ্তাহে ইসরায়েলের সেনাবাহিনী মিসর সীমান্তবর্তী গাজার দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর রাফাহতে হামলা করে, যেখানে আশ্রয় নেন বাস্তুচ্যুত ১৫ লাখের বেশি ফিলিস্তিনি।

রাফাহতে হামলার পাশাপাশি সীমান্তের ফিলিস্তিন অংশের নিয়ন্ত্রণও নেয় ইসরায়েল।

গত বছরের ৭ অক্টোবর দক্ষিণ ইসরায়েলে হামাসের প্রাণঘাতী হামলার জবাবে গাজায় পাশবিক আক্রমণ শুরু করে ইসরায়েল।

হামাসের হামলায় নিহত হয় প্রায় এক হাজার ১৩৯ ইসরায়েলি। অন্যদিকে গাজায় ইসরায়েলি হামলায় নিহত হয় ৩৫ হাজারের বেশি ফিলিস্তিনি।

আরও পড়ুন:
হামাসের সুড়ঙ্গ থেকে ৩ জিম্মির মরদেহ উদ্ধারের দাবি ইসরায়েলের
গাজা নিয়ে ইসরায়েলের মন্ত্রিসভার বিরোধ প্রকাশ্যে
‘যুক্তরাষ্ট্র নির্মিত ঘাট দিয়ে গাজায় ত্রাণ ঢুকছে’
নিজেদের হামলায় ৫ ইসরায়েলি সেনা নিহত
অবস্থান পাল্টাল বাইডেন প্রশাসন, যুক্তরাষ্ট্রের অস্ত্রেই গাজায় হামলা চালাবে ইসরায়েল

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Israel claims to have recovered the bodies of 3 hostages from the Hamas tunnel

হামাসের সুড়ঙ্গ থেকে ৩ জিম্মির মরদেহ উদ্ধারের দাবি ইসরায়েলের

হামাসের সুড়ঙ্গ থেকে ৩ জিম্মির মরদেহ উদ্ধারের দাবি ইসরায়েলের গাজায় তিন জিম্মির মরদেহ উদ্ধারের কথা জানিয়েছে ইসরায়েল। ছবি: বিবিসি
আইডিএফ জানায়, গত বছরের ৭ অক্টোবর হামাসের হামলার সময় দক্ষিণ ইসরায়েলে গাজার সীমানার কাছে নোভা মিউজিক ফেস্টিভাল চলছিল। হামাসের হামলায় ওই উৎসবে উদ্ধার করা তিনজনসহ ৩৫০ জন প্রাণ হারান।

ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকায় হামাসের একটি সুড়ঙ্গে থেকে তিন জিম্মির মরদেহ উদ্ধারের কথা জানিয়েছে ইসরায়েলের প্রতিরক্ষা বাহিনী (আইডিএফ)।

আইডিএফের বরাত দিয়ে শনিবার বিবিসি জানায়, গত বছর ৭ অক্টোবরের হামাসের হামলায় তাদের হত্যা করা হয়েছে। এরপর তাদের দেহাবশেষ গাজায় ফিরিয়ে নেয়া হয়।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যম বলছে, হামাসের একটি সুড়ঙ্গে মরদেহগুলো পাওয়া গেছে।

প্রাণ হারানো তিনজন হলেন শানি লোউক (২২), অমিত বুসকিলা (২৮) এবং ইজহাক গেলেরেন্তার (৫৬)।

এ ঘটনায় ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু বলেছেন, ‘আমরা আমাদের সকল জিম্মি, জীবিত ও মৃত সবাইকে ফিরিয়ে আনব।’

রাতভর অভিযান চালিয়ে মৃতদেহগুলো উদ্ধার করা হয়েছে বলে এক বিবৃতিতে জানিয়েছে আইডিএফ।

বাহিনী জানায়, গত বছরের ৭ অক্টোবর হামাসের হামলার সময় দক্ষিণ ইসরায়েলে গাজার সীমানার কাছে নোভা মিউজিক ফেস্টিভাল চলছিল। হামাসের হামলায় ওই উৎসবে উদ্ধার করা তিনজনসহ ৩৫০ জন প্রাণ হারান।

হামাসের ৭ অক্টোবরের হামলায় ১ হাজার ২০০ জন নিহত হন। তারা আরও ২৫২ জনকে জিম্মি করে গাজায় নিয়ে যান।

হামাস পরিচালিত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, ৭ অক্টোবরের পর গাজায় ইসরায়েলের চলমান হামলায় এ পর্যন্ত অন্তত ৩৫ হাজার মানুষ নিহত হয়েছেন, যাদের বেশিরভাগই বেসামরিক নাগরিক।

আরও পড়ুন:
গাজায় বোলতার কামড়ে হাসপাতালে ইসরায়েলের ১২ সেনা
বাইডেন ইসরায়েলে সব সহায়তা বন্ধ করতে চান: ট্রাম্প
ফিলিস্তিনকে পূর্ণ সদস্য করতে জাতিসংঘে বিপুল ভোটে প্রস্তাব পাস
আমেরিকান অস্ত্র দিয়ে আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করে থাকতে পারে ইসরায়েল
গাজায় একা লড়তে প্রস্তুত ইসরায়েল: নেতানিয়াহু

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Heavy storms kill four in Houston

হিউস্টনে প্রবল ঝড়, চারজনের মৃত্যু

হিউস্টনে প্রবল ঝড়, চারজনের মৃত্যু
হিউস্টনের মেয়র জন হুইটমায়ার বলেন, ঝড়ের তাণ্ডবে গোটা শহরে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়াসহ সম্পদের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। রাস্তায় রাস্তায় গাছ ও কাচ পড়ে আছে। সড়কের বাতি জ্বলছে না। বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হতে ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টা লাগবে।’

যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের বৃহত্তম শহর হিউস্টন এলাকায় শক্তিশালী ঝড়ের আঘাতে অন্তত চারজনের মৃত্যু হয়েছে। ঝড়ের তাণ্ডবে গোটা শহরে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়াসহ সম্পদের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার রাতে ঝড়টির আঘাতে এসব ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন হিউস্টনের মেয়র জন হুইটমায়ার। হারিকেন আইকের যেভাবে কৃষি ও অবকাঠামো ধ্বংস করেছিল তার সঙ্গে এই ঝড়ের ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণের তুলনা করেন তিনি।

২০০৮ সালে হিউস্টনের কাছে আঘাত হানা ক্যাটাগরি-২ মাত্রার হারিকেনের উল্লেখ করে বৃহস্পতিবার রাতে এক ব্রিফিংয়ে মেয়র বলেন, ‘ঝড়টি ঘণ্টায় ১০০ মাইল বেগে বয়ে গেছে। এটি শহরের কেন্দ্রে যথেষ্ট ক্ষতি করেছে।’

হিউস্টনে প্রবল ঝড়, চারজনের মৃত্যু

হিউস্টনের দমকল বাহিনীর প্রধান স্যামুয়েল পেনা সাংবাদিকদের বলেন, ‘নিহত চারজনের মধ্যে অন্তত দু’জন উপড়ে পড়া গাছের আঘাতে মারা যান। বাতাসে উল্টে যাওয়া ক্রেনের আঘাতে আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে।’

ঝড়ে গোটা এলাকায় ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। গাছপালা ও বিদ্যুতের লাইন উপড়ে পড়েছে। হিউস্টন শহরের কেন্দ্রের অনেক এলাকায় রাস্তাঘাট প্লাবিত হয়েছে। বেশ কয়েকটি অফিস ভবনের জানালা ভেঙে গেছে।

হিউস্টন এলাকার কয়েক শ’ স্কুল শুক্রবারের সব ক্লাস বাতিল করেছে। টেক্সাসের বৃহত্তম হিউস্টন ইন্ডিপেন্ডেন্ট স্কুল ডিস্ট্রিক্ট (এইচআইএসডি) শুক্রবার তাদের সব স্কুল বন্ধ ঘোষণা করেছে।

মেয়র হুইটমায়ার বলেন, ‘হিউস্টনের রাস্তায় রাস্তায় গাছ পড়ে আছে। শহরের সব রাস্তায় কাচ ছড়িয়ে-ছিটিয়ে পড়ে আছে। সড়কের বাতি জ্বলছে না।’

বাসিন্দাদের বাড়িতে থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেছেন, শহরে নিয়োজিত কর্মীরা জরুরি সেবার জন্য ব্যাকলগ ৯১১-এর মাধ্যমে কাজ করছে। তাদের মধ্যে অনেকগুলো গ্যাস লিক বা তার ছিঁড়ে পড়ে রয়েছে বলে জানা গেছে।

হিউস্টনে প্রবল ঝড়, চারজনের মৃত্যু

স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, হিউস্টনে বৈরী আবহাওয়ার কারণে একটি ভবনের একাংশ ধসে পড়েছে।

হিউস্টনের ন্যাশনাল আবহাওয়া সেবা বিভাগ এর আগে বৃহস্পতিবার সকালে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সতর্ক করে বলে, ‘এই ঝড়ের কবলে কেউ থাকলে এখনই আশ্রয় নিন। নিচতলায় অবস্থান নিন।’

সন্ধ্যায় হিউস্টন অঞ্চলের বিভিন্ন অংশে আকস্মিক বন্যা এবং তীব্র বজ্রপাতের বিষয়েও সতর্কতা জারি করা হয়।

ইউটিলিটি ট্র্যাকার পাওয়ারআউটেজ.ইউএস জানিয়েছে, স্থানীয় সময় রাত ১১টা ৪০ মিনিট পর্যন্ত টেক্সাসের প্রায় ৯ লাখ ২৪ হাজার গ্রাহক বিদ্যুৎহীন অবস্থায় ছিলেন। এর মধ্যে হিউস্টনের বেশিরভাগ অংশ নিয়ে গঠিত হ্যারিস কাউন্টি ও এর আশপাশে আট লাখের বেশি গ্রাহক বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েন।

বিদ্যুৎ কোম্পানি সেন্টারপয়েন্ট এনার্জির মুখপাত্র লোগান অ্যান্ডারসন বলেন, ‘হিউস্টন এলাকায় বর্তমানে ব্যাপক লোডশেডিং চলছে, ঝড় শেষ না হওয়া পর্যন্ত আমরা আমাদের সিস্টেমের ক্ষতির পরিমাণ জানতে পারব না।’

হিউস্টনের মেয়র বলেন, ‘আমি সবাইকে ধৈর্য্য ধরতে বলছি, প্রতিবেশীদের দিকে নজর রাখতে বলছি। এই বিদ্যুৎ পুনরুদ্ধার করতে ২৪ ঘণ্টা সময় লাগবে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে ৪৮ ঘণ্টা সময়ের প্রয়োজন হবে।’

এর আগে চলতি মাসের শুরুর দিকে কয়েক দফা বজ্রপাতের কারণে হিউস্টন এলাকাসহ টেক্সাসের পূর্বাঞ্চলে ভয়াবহ বন্যা দেখা দেয়। এর ফলে বাধ্যতামূলকভাবে স্কুল বন্ধ করে দেয়াসহ বাসিন্দাদের সরিয়ে নেয়া হয়েছিল।

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Israels cabinet rifts over Gaza are out in the open

গাজা নিয়ে ইসরায়েলের মন্ত্রিসভার বিরোধ প্রকাশ্যে

গাজা নিয়ে ইসরায়েলের মন্ত্রিসভার বিরোধ প্রকাশ্যে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইউআভ গালান্ট, যাদের বিরোধ এরই মধ্যে প্রকাশ্যে চলে এসেছে। ছবি: রয়টার্স
কয়েক মাস আগে ইসরায়েলের সেনারা যেসব জায়গায় হামাসের সঙ্গে লড়ছিল, সেসব এলাকায় তাদের ফিরে যাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর কাছে স্পষ্ট কৌশল জানতে চান প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইউআভ গালান্ট। এর মধ্য দিয়ে মন্ত্রিসভায় বিরোধের বিষয়টি উন্মুক্ত হয়ে যায়।

ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকায় যুদ্ধ নিয়ে ইসরায়েলের মন্ত্রিসভার বিরোধ চলতি সপ্তাহে প্রকাশ্যে চলে এসেছে বলে জানিয়েছে রয়টার্স।

বার্তা সংস্থাটির প্রতিবেদনে জানানো হয়, কয়েক মাস আগে ইসরায়েলের সেনারা যেসব জায়গায় হামাসের সঙ্গে লড়ছিল, সেসব এলাকায় তাদের ফিরে যাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর কাছে স্পষ্ট কৌশল জানতে চান প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইউআভ গালান্ট। এর মধ্য দিয়ে মন্ত্রিসভায় বিরোধের বিষয়টি উন্মুক্ত হয়ে যায়।

গালান্টের ভাষ্য, গাজা উপত্যকায় সামরিক সরকার বসানোর বিষয়ে তার সমর্থন নেই।

তার এ বক্তব্যে যুদ্ধ শেষে গাজার শাসনভার অর্পণ নিয়ে নেতানিয়াহুর নির্দেশনার ঘাটতি নিয়ে শীর্ষ নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের ক্রমবর্ধমান অস্বস্তির বিষয়টি ফুটে উঠেছে।

গালান্টের এ বক্তব্যের পক্ষে-বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে নিজেদের বিভক্তি স্পষ্ট করেছেন প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহুর নেতৃত্বাধীন মন্ত্রিসভার চার সদস্য।

ইসরায়েলের প্রতিরক্ষামন্ত্রীর বক্তব্যকে সমর্থন করেছেন মধ্যমপন্থি হিসেবে পরিচিত সেনাবাহিনীর সাবেক দুই জেনারেল বেনি গানৎজ ও গাদি এইজেনকট। অন্যদিকে কট্টর ডানপন্থি অর্থমন্ত্রী বেজালেল স্মোটরিচ ও অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা মন্ত্রী ইতামার বেন-গভির গালান্টের বক্তব্যের নিন্দা জানিয়েছেন।

রয়টার্সের খবরে বলা হয়, নেতানিয়াহুর মন্ত্রিসভার বিরোধ নিয়ে ‘এটি যুদ্ধ চালানোর কোনো পন্থা নয়’ শিরোনামে খবর ছাপে ডানপন্থি ইসরায়েলি ট্যাবলয়েড ইসরায়েল টুডে। সংবাদে বিভিন্ন দিকে তাকানো নেতানিয়াহু ও গালান্টের ছবি ছাপা হয়েছে।

গাজার শাসক দল হামাসকে নির্মূল ও তাদের হাতে থাকা ১৩০ জনের মতো বন্দিকে ফেরতের পাশাপাশি উপত্যকায় যুদ্ধ অভিযান শেষ করার কৌশলগত কোনো লক্ষ্য ঠিক করেননি নেতানিয়াহু। এরই মধ্যে ইসরায়েলের হামলায় গাজায় ৩৫ হাজারের বেশি ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে। এটি ইসরায়েলের আন্তর্জাতিক বিচ্ছিন্নতা প্রতিনিয়ত বাড়াচ্ছে।

আরও পড়ুন:
বাইডেন ইসরায়েলে সব সহায়তা বন্ধ করতে চান: ট্রাম্প
ফিলিস্তিনকে পূর্ণ সদস্য করতে জাতিসংঘে বিপুল ভোটে প্রস্তাব পাস
আমেরিকান অস্ত্র দিয়ে আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করে থাকতে পারে ইসরায়েল
গাজায় একা লড়তে প্রস্তুত ইসরায়েল: নেতানিয়াহু
বাইডেনের হুঁশিয়ারি উপেক্ষা করে রাফায় ইসরায়েলের হামলা

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Unraveling the secret of making pyramids

পিরামিড তৈরির রহস্য উন্মোচন!

পিরামিড তৈরির রহস্য উন্মোচন! ছবি: সংগৃহীত
গবেষক দলের একজন ড. সুজান অনস্টাইন বলেন, ‘নীল নদের হারিয়ে যাওয়া শাখাটি ৩১টি পিরামিডের সীমানায় রয়েছে। এই জলপথ ভারী ব্লক, সরঞ্জাম ও মানুষ পরিবহনের জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকতে পারে। আর এসব কিছুই আমাদের পিরামিড নির্মাণ ব্যাখ্যা করতে সাহায্য করেছে।’

চার হাজার বছরেরও বেশি সময় আগে মিসরে বিশ্বখ্যাত গিজা কমপ্লেক্সসহ ৩১টি পিরামিড কীভাবে তৈরি হয়েছিল সেই রহস্যের সমাধান করেছেন- এমনটা বিশ্বাস করেন বিজ্ঞানীরা।

ইউনিভার্সিটি অফ নর্থ ক্যারোলিনা উইলমিংটনের একটি গবেষক দল বলছে, পিরামিডগুলো সম্ভবত দীর্ঘ-হারিয়ে যাওয়া নীল নদের একটি প্রাচীন শাখার পাশে নির্মিত হয়েছিল যা এখন মরুভূমি এবং কৃষি জমির নিচে ঢাকা পড়ে গেছে।

প্রত্নতত্ত্ববিদরা বহু বছর ধরেই ধারণা পোষণ করে আসছেন যে প্রাচীন মিসরীয়রা নদীর ওপর পিরামিড নির্মাণের জন্য প্রয়োজনীয় পাথরের খণ্ডের মতো উপকরণ পরিবহনের জন্য নিকটবর্তী জলপথ ব্যবহার করেছিল।

অধ্যাপক ইমান ঘোনিমের মতে, এখনও পর্যন্ত এই মেগা জলপথের পাশে প্রকৃত পিরামিড সাইটের অবস্থান, আকৃতি, আকার বা নৈকট্য সম্পর্কে কিছুই নিশ্চিত ছিল না। গবেষকরা স্যাটেলাইট থেকে প্রাপ্ত ছবি থেকে এই নদের শাখাটি শনাক্ত করে। পরে ফিল্ড সার্ভে ও সেখান থেকে পাওয়া পলি থেকে বিজ্ঞানীরা নদীর শাখা থাকার বিষয়টি নিশ্চিত হন।

গবেষণায় বলা হয়, বিজ্ঞানীদের আবিষ্কার করা ৬৪ কিলোমিটার দীর্ঘ নীল নদের শাখাটি শুকিয়ে মরুভূমির নিচে চাপা পড়ে গেছে। এই নদী থেকে এখন বিজ্ঞানীরা বের করার চেষ্টা করছেন যে কেন গিজা পিরামিড কমপ্লেক্সের ৩১টি পিরামিড এই মরুভূমিতে এক সারিতে তৈরি করা হয়েছিল।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, এই পিরামিডগুলো চার হাজার ৭০০ থেকে তিন হাজার ৭০০ বছরের পুরনো।

নেচার জার্নালে প্রকাশিত গবেষণায় বলা হয়েছে, রাডার প্রযুক্তি ব্যবহার করে গবেষক দলটি বালির পৃষ্ঠে লুকানো বৈশিষ্ট্যগুলোর চিত্র আঁকতে সক্ষম হয়েছিলেন।

গবেষণার একজন সহ-লেখক ড. সুজান অনস্টাইন বিবিসিকে বলেন, ‘ডেটা বিশ্লেষণে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে এটা বলা যায় যে এখানে একটি জলপথ ছিল যা ভারী ব্লক, সরঞ্জাম ও মানুষ পরিবহনের জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকতে পারে। আর এসব কিছুই আমাদের পিরামিড নির্মাণ ব্যাখ্যা করতে সাহায্য করেছে।’

বিজ্ঞানীদের দাবি, নীল নদের হারিয়ে যাওয়া শাখাটি প্রায় ৬৪ কিলোমিটার দীর্ঘ ছিল। আর নদীটির প্রস্থ ছিলে দু শ’ থেকে সাত শ’ মিটার। ওই শাখাটি ৩১টি পিরামিডের সীমানায় রয়েছে, যা চার হাজার ৭০০ থেকে তিন হাজার ৭০০ বছর আগে নির্মিত হয়েছিল।

বিলুপ্ত নদী শাখার আবিষ্কারটি গিজা এবং লিস্ট (মধ্য রাজ্যের সমাধিস্থল)-এর মধ্যে উচ্চ পিরামিডের ঘনত্ব ব্যাখ্যা করতে সাহায্য করে, যা এখন সাহারান মরুভূমির অন্তর্ভুক্ত।

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Aid is flowing into Gaza through the US built ghats

‘যুক্তরাষ্ট্র নির্মিত ঘাট দিয়ে গাজায় ত্রাণ ঢুকছে’

‘যুক্তরাষ্ট্র নির্মিত ঘাট দিয়ে গাজায় ত্রাণ ঢুকছে’ মানবিক সহায়তা প্রবেশের উদ্দেশ্যে গাজা উপকূলে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী ও ইসরায়েলি সামরিক বাহিনীর সদস্যরা এই অস্থায়ী ঘাটটি নির্মাণ করেছে। ছবি: যুক্তরাষ্ট্রের সেন্ট্রাল কমান্ড/রয়টার্স
এর আগে ইসরায়েলের আশদোদ বন্দরে একটি ঘাট নির্মাণ করে যুক্তরাষ্ট্র। ওই ঘাটের অবকাঠামো খুলে নিয়ে গাজা উপকূলে অস্থায়ী ঘাট নির্মাণ করেছে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনী।

ইসরায়েলের ওপর ক্রমবর্ধমান আন্তর্জাতিক চাপের মধ্যে অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকায় ত্রাণবাহী ট্রাক ঢুকতে শুরু করেছে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

শুক্রবার স্থানীয় সময় সকাল ৯টায় গাজা উপকূলে যুক্তরাষ্ট্রের নির্মিত একটি অস্থায়ী ঘাট দিয়ে আনা ত্রাণসামগ্রী নিয়ে ট্রাকগুলো ঢুকতে শুরু করেছে বলে যুক্তরাষ্ট্রের সেন্ট্রাল কমান্ডের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে।

রয়টার্সের খবরে বলা হয়েছে, এর আগে ইসরায়েলের আশদোদ বন্দরে একটি ঘাট নির্মাণ করে যুক্তরাষ্ট্র। ওই ঘাটের অবকাঠামো খুলে নিয়ে গাজা উপকূলে অস্থায়ী ঘাট নির্মাণ করেছে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনী।

উপকূলে ঘাট তৈরি করলেও যুক্তরাষ্ট্রের কোনো সেনা তীরে পদার্পণ করেননি বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করেছে সেন্ট্রাল কমান্ড।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, এই পথে আসা ত্রাণ একটি চলমান বহুজাতিক প্রচেষ্টার অংশ। বেশ কয়েকটি দেশের দান করা মানবিক সহায়তা এই পথ দিয়ে গাজায় ঢুকছে।

এদিকে যুক্তরাজ্য বলেছে, ওই ঘাটের মাধ্যমে তারা ইতোমধ্যে প্রাথমিক চিকিৎসার একটি চালান সরবরাহ করেছে। অন্যদিকে, এ পথ দিয়ে গাজায় প্রবেশ করা ত্রাণসামগ্রী কোথায়, কীভাবে বণ্টন করা হবে, সেসব পরিকল্পনা চূড়ান্ত করা হয়েছে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ।

গাজার উদ্দেশে পাঠানো ত্রানসামগ্রী প্রথমে সাইপ্রাসে পরীক্ষা করে দেখবে ইসরায়েলি নিরাপত্তা বাহিনী। এরপর গাজায় ইসরায়েলি চেকপয়েন্টগুলোর মধ্য দিয়ে সেগুলোকে যেতে হবে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা।

গত ৭ অক্টোবর ইসরায়েলে ঢুকে আকস্মিক হামলা চালায় হামাস। ওই হামলার প্রতিক্রিয়ায় গাজায় টানা হামলা চালাচ্ছে ইসরায়েল। হামলা শুরুর পর ৯ অক্টোবর গাজায় সর্বাত্মক অবরোধের ঘোষণা দেয় দখলদার ইসরায়েল।

টানা হামলায় খাবার, পানি, ওষুধ ও জ্বালানির অভাবে অনেক আগে থেকেই ধুঁকছে হামাস নিয়ন্ত্রিত উপত্যকাটি। সীমানা অবরুদ্ধ করে ইসরায়েলের আগ্রাসনে মৃত্যু নগরীতে পরিণত হয়েছে গাজা।

হামাস পরিচালিত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুসারে, গাজায় চলমান ইসরায়েলি সামরিক হামলায় সাড়ে ৩৪ হাজারের বেশি ফিলিস্তিনি নিহত এবং ৭৮ হাজারের মতো আহত হয়েছেন। আর হামাসের হামলায় নিহত হয়েছেন এক হাজার ১৩৯ ইসরায়েলি।

আরও পড়ুন:
নিজেদের হামলায় ৫ ইসরায়েলি সেনা নিহত
অবস্থান পাল্টাল বাইডেন প্রশাসন, যুক্তরাষ্ট্রের অস্ত্রেই গাজায় হামলা চালাবে ইসরায়েল
রাফায় হামলা চালিয়ে হামাসকে নির্মূল করা যাবে না: ব্লিংকেন

মন্তব্য

p
উপরে