× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

google_news print-icon

ট্রাম্প-বাইডেন বিতর্কে জয় কার

ট্রাম্প-বাইডেন-বিতর্কে-জয়-কার
বিতর্কে ডনাল্ড ট্রাম্প ও জো বাইডেন

ব্যক্তিগত আক্রমণ, বক্তব্য বারবার বাধাগ্রস্ত করার মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ডেমোক্র্যাটিক পার্টির জো বাইডেন ও রিপাবলিকান পার্টির ডনাল্ড ট্রাম্পের মধ্যকার প্রথম প্রেসিডেন্ট বিতর্ক।

৩ নভেম্বর অনুষ্ঠেয় নির্বাচনকে সামনে রেখে স্থানীয় সময় মঙ্গলবার এ বিতর্ক হয়।

বিতর্কে দুই প্রেসিডেন্ট প্রার্থীই ব্যক্তিগত আক্রমণ ও বিষোদগার করেছেন। সেদিক দিয়ে কাউকে এগিয়ে রাখা মুশকিল। তবে তাৎক্ষণিক ভোট ও বাজির পরিসংখ্যান থেকে বলা যায়, এ বিতর্কে জিতেছেন বাইডেন।

নির্বাচনের আগে তিনটি বিতর্ক হবে ক্ষমতাসীন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ও সাবেক ভাইস-প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের মধ্যে। এর মধ্যে প্রথমটিতে বাইডেন জনগণের কাছে নিজের বিচক্ষণতা তুলে ধরার চেষ্টা করেন।

কীভাবে চাপের মুখে ধৈর্য ধরে রাখতে হয়, সেটি দেখিয়েছেন বাইডেন। পাশাপাশি আক্রমণ প্রতিহত করতে বয়সের বাধা উপেক্ষা, মুখের ওপর কড়া জবাব দিতে পারার সক্ষমতাও প্রদর্শন করেছেন তিনি।

ধীরস্থিরও থাকতে পেরেছেন এ ডেমোক্র্যাট।

বিতর্কের সময় ট্রাম্প বারবার জো বাইডেনকে থামিয়েছেন। রীতিবিবর্জিত, বাগাড়ম্বরপ্রিয়, অপমানকারী ট্রাম্প টানা ৯০ মিনিটের বিতর্কে তার ঔদ্ধত্য জনসমক্ষে প্রকাশে দ্বিধান্বিত হননি। এতে স্বাভাবিকভাবেই টুইটার আসক্ত ট্রাম্পের সমর্থকসহ অনেকে মনোক্ষুণ্ন হয়েছেন।

বিশ্লেষকদের ধারণা, প্রথম বিতর্কের ফলের প্রভাব নির্বাচনে তেমন পড়বে না। এর কারণ হলো আমেরিকান ভোটারদের ১০ জনের একজন এখনও জানেন না, তারা কাকে ভােট দেবেন।

সূত্র: বিবিসি

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
New US sanctions against Russia

রাশিয়ার বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের নতুন নিষেধাজ্ঞা

রাশিয়ার বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের নতুন নিষেধাজ্ঞা যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। ছবি: সিএনএন
ইউক্রেনে যুদ্ধ ও রুশ কারাগারে বিরোধীদলীয় নেতা অ্যালেক্সেই নাভালনির মৃত্যুর ঘটনায় রাশিয়াকে জবাবদিহির মুখোমুখি করতে শুধু যুক্তরাষ্ট্র নয়, আরও বেশ কিছু দেশ এ নিষেধাজ্ঞা দিচ্ছে।

ইউক্রেনে রুশ হামলার দ্বিতীয় বার্ষিকীর প্রাক্কালে শুক্রবার রাশিয়া সংশ্লিষ্ট পাঁচ শতাধিক পাঁচ শতাধিক ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

ইউক্রেনে ২০২২ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি সামরিক অভিযান শুরু করে রাশিয়া, যা শেষ হয়নি দুই বছরেও।

ইউক্রেনে যুদ্ধ ও রুশ কারাগারে বিরোধীদলীয় নেতা অ্যালেক্সেই নাভালনির মৃত্যুর ঘটনায় রাশিয়াকে জবাবদিহির মুখোমুখি করতে শুধু যুক্তরাষ্ট্র নয়, আরও বেশ কিছু দেশ এ নিষেধাজ্ঞা দিচ্ছে।

রাশিয়ার ওপর নতুন করে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়নও। জবাবে ইউরোপীয় ইউনিয়নের বেশ কয়েকজন কর্মকর্তার ওপর রাশিয়ায় প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে মস্কো।

নিষেধাজ্ঞার ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এক বিবৃতিতে বলেছেন, এসব নিষেধাজ্ঞা বিদেশে রাশিয়ার আগ্রাসন এবং দেশটির অভ্যন্তরে বসবাসকারী জনগণের ওপর নিপীড়ন চালানোয় প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের কঠোর মূল্য প্রদান নিশ্চিত করবে।

বাইডেন বলেন, ‘দুই বছর আগে তিনি (পুতিন) ইউক্রেনকে মানচিত্র থেকে মুছে দিতে চেয়েছিলেন। পুতিনকে যদি নাভালনির মৃত্যু ও ধ্বংসযজ্ঞের জন্য মূল্য দিতে না হয়, তাহলে তিনি তা চালিয়েই যাবেন।’

রাশিয়ার সাইবেরিয়া অঞ্চলের একটি কারাগারে বন্দী অবস্থায় নাভালনির মৃত্যুর এক সপ্তাহের মাথায় রাশিয়ার ওপর এই নিষেধাজ্ঞা দিল যুক্তরাষ্ট্র। নাভালনির মৃত্যুর জন্য রুশ প্রেসিডেন্টের দায় থাকার বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই বলেও মন্তব্য করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট।

আরও পড়ুন:
সুপারসনিক বোমারু বিমানে পুতিন
রাশিয়া সংশ্লিষ্ট ৫ শতাধিক লক্ষ্যবস্তুকে নিষেধাজ্ঞা দেবে যুক্তরাষ্ট্র
নাভালনির মরদেহ পেতে পুতিনের হস্তক্ষেপ দাবি মায়ের
নাভালনির মরদেহ কোথায়, বলছে না রাশিয়া

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Putin in a supersonic bomber

সুপারসনিক বোমারু বিমানে পুতিন

সুপারসনিক বোমারু বিমানে পুতিন অন্যান্য কর্মকর্তার সঙ্গে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। ছবি: সংগৃহীত
পুতিন এ বিমান থেকে নেমে আসার পর সাংবাদিকদের বলেন, ‘এটি সত্যিই একটি নতুন যন্ত্র। এটি বিভিন্ন দিক থেকে একেবারেই নতুন একটি বিমান। এটি পরিচালনা করাও অনেক সহজ। এমনকি আপনি একেবারে খালি ও অপ্রশিক্ষিত চোখ দিয়েও দেখতে পাবেন।’

জীবনের কোনো স্বাদই বুঝি আর অপূর্ণ রাখলেন না রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। এবার তিনি পারমাণবিক ওয়ারহেড বহনে সক্ষম একটি সুপারসনিক সামরিক বিমানে পরীক্ষামূলক যাত্রা করেছেন। বৃহস্পতিবার দেশটির রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম এ কথা জানিয়েছে।

এএফপির জানায়, মস্কো ইউক্রেনের বিরুদ্ধে সামরিক হামলার দ্বিতীয় বার্ষিকী উদযাপনের দুদিন আগে এই শক্তি প্রদর্শন করল। এ ধরনের যুদ্ধবিমান তৈরির মধ্যদিয়ে রাশিয়া যুদ্ধক্ষেত্রে আরও গতি অর্জনের চেষ্টা করছে।

রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের খবরে বলা হয়, সুপারসনিক এই বোমারু বিমানটিকে রাশিয়ার মধ্যাঞ্চলীয় কাজানে অবস্থিত বিমান প্রস্তুতকারক একটি কোম্পানির রানওয়ে থেকে উড্ডয়ন করে কিছুক্ষণের মধ্যে ফিরে আসতে দেখা যায়।

পুতিন এ বিমান থেকে নেমে আসার পর সাংবাদিকদের বলেন, ‘এটি সত্যিই একটি নতুন যন্ত্র। এটি বিভিন্ন দিক থেকে একেবারেই নতুন একটি বিমান। এটি পরিচালনা করাও অনেক সহজ। এমনকি আপনি একেবারে খালি ও অপ্রশিক্ষিত চোখ দিয়েও দেখতে পাবেন।’

এই বোমারু বিমানের কাছে কর্মকর্তাদেরকে পুতিনের শুভেচ্ছা জানানোর ভিডিও ফুটেজ রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে বার বার প্রচার করা হয়। ভিডিও ফুটেজে ৭১ বছর বয়সী রাশিয়ার এ নেতাকে বিমানটি থেকে সিঁড়ি বেয়ে নিচে নেমে আসতে দেখা যায়।

রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থার খবরে বলা হয়, পুতিন বিমানটিতে ৩০ মিনিট সময় কাটিয়েছেন। এটি সোভিয়েত ইউনিয়ন আমলে পরিকল্পিত একটি কৌশলগত বোমারু বিমান, যা রাশিয়ার পারমাণবিক অস্ত্রাগারের অংশ।

আরও পড়ুন:
শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন পুতিনের
গাজায় দ্রুত যুদ্ধবিরতি চান পুতিন
রূপপুর পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্র দৃঢ় সম্পর্কের প্রতীক: পুতিন
কিমের বাসায় দাওয়াত পেলেন ‘বন্ধু’ পুতিন
আনুগত্য প্রকাশে ওয়াগনার যোদ্ধাদের পুতিনের চাপ

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Appeal rejected Shamima is not returning to Britain

আপিল খারিজ, ব্রিটেনে ফেরা হচ্ছে না শামীমার

আপিল খারিজ, ব্রিটেনে ফেরা হচ্ছে না শামীমার শামীমা বেগম। ছবি: সংগৃহীত
ব্রিটেনের নাগরিকত্ব ফিরে পেতে আপিল করেছিলেন সিরিয়ায় অবস্থান শামীমা বগেম। সেই আপিল খারিজ করে দেয়া রায়ে প্রধান বিচারপতি বলেছেন, শামীমা বেগমের মামলায় বিষয়ে সিদ্ধান্ত দেয়া কঠিন হলেও তিনি নিজেই তার দুর্ভাগ্যের ভিত্তি রচনা করেছেন।

তথাকথিত ইসলামিক স্টেট (আইএস) জঙ্গি গোষ্ঠীতে যোগ দিতে ২০১৫ সালে যুক্তরাজ্য থেকে সিরিয়ায় পালিয়ে যাওয়া শামীমা বেগম ব্রিটেনে ফিরতে পারছেন না। নাগরিকত্ব ফিরে পাওয়া নিয়ে শামীমার আপিল শুক্রবার যুক্তরাজ্যের আদালত খারিজ করে দিয়েছে। অর্থাৎ তিনি আর ব্রিটেনের নাগরিক নন। সূত্র: বিবিসি

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত শামীমা বেগমের জন্ম ও বেড়ে ওঠা যুক্তরাজ্যে। কিন্তু আট বছর আগে ব্রিটেন থেকে পালিয়ে সিরিয়ায় গিয়ে আইএসে যোগ দেয়ার কারণে তার নাগরিকত্ব বাতিল করে ব্রিটিশ সরকার।

সরকারের এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে গত বছরের অক্টোবরে লন্ডনের আপিল আদালতে মামলা করেন শামীমা।

শুক্রবার বাংলাদেশ সময় বিকেল ৪টার পর শামীমার আপিল মামলার রায় দেয় ব্রিটিশ আদালত। রায়ে জানানো হয়, আইনগতভাবেই শামীমা বেগমের নাগরিকত্ব বাতিল করেছিল ব্রিটিশ সরকার এবং বর্তমানে সিরিয়ায় বসবাসরত শামীমা বেগমের যুক্তরাজ্যে ফেরত আসার আর কোনও সম্ভাবনা নেই।

প্রধান বিচারপতি বলেছেন, শামীমা বেগমের মামলায় বিষয়ে সিদ্ধান্ত দেয়া কঠিন হলেও, তিনি নিজেই তার দুর্ভাগ্যের ভিত্তি রচনা করেছেন।

আদালতের এই রায়ের পর সন্তোষ প্রকাশ করেছে ব্রিটেনের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেছেন, ‘ব্রিটেনের জাতীয় নিরাপত্তা রক্ষা করাটা আমাদের সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার। আর তা করতে গিয়ে আমরা যে কোনো ধরনের বড় সিদ্ধান্ত নেব।’

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Hawaii Sweets Banned In Tamil Nadu Due To Cancer Content

ক্যানসারের উপাদান পাওয়ায় তামিলনাড়ুতে নিষিদ্ধ হাওয়াই মিঠাই

ক্যানসারের উপাদান পাওয়ায় তামিলনাড়ুতে নিষিদ্ধ হাওয়াই মিঠাই প্রতীকী ছবি
তামিলনাড়ুর স্বাস্থ্যমন্ত্রী মা সুব্রামানিয়ান গত সপ্তাহে একটি বিবৃতিতে বলেছিলেন, ল্যাব পরীক্ষায় ক্যান্ডিতে যুক্ত কৃত্রিম রঙে রোডামাইন-বি উপস্থিতি পাওয়া গেছে, যা ভারতের ফুড সেফটি অ্যান্ড স্ট্যান্ডার্ডস অ্যাক্ট ২০০৬-এর বিধান অনুযায়ী ‘নিম্নমান’ এবং ‘অনিরাপদ’ খাদ্য বলে নিশ্চিত করা হয়েছে।

তামিলনাড়ুসহ ভারতের কিছু রাজ্যে ক্যান্ডি ফ্লস (হাওয়াই মিঠাই) নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। জনপ্রিয় মিষ্টি স্বাদের এ খাবারে কৃত্রিম রঞ্জক পদার্থে ক্যানসার সৃষ্টিকারী উপাদান পাওয়া গেছে বলে দাবি করছেন বিশেষজ্ঞরা।

যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংবাদ মাধ্যম ইন্ডিপেনডেন্টের প্রতিবেদনে বলা হয়, ল্যাব পরীক্ষায় এ খাবারটিটে ক্যানসার সৃষ্টিকারী উপাদান ‘রোডামাইন-বি’ পাওয়া গেছে।

ইতোমধ্যে দক্ষিণ ভারতের তামিলনাড়ুর গত সপ্তাহে মিষ্টির বিক্রি নিষিদ্ধ করেছে। অন্য রাজ্যগুলোও শিশুদের কাছে জনপ্রিয় এ ক্যান্ডি পরীক্ষা করার প্রস্তুতি নিচ্ছে।

তামিলনাড়ুর স্বাস্থ্যমন্ত্রী মা সুব্রামানিয়ান গত সপ্তাহে একটি বিবৃতিতে বলেছিলেন, ল্যাব পরীক্ষায় ক্যান্ডিতে যুক্ত কৃত্রিম রঙে রোডামাইন-বি উপস্থিতি পাওয়া গেছে, যা ভারতের ফুড সেফটি অ্যান্ড স্ট্যান্ডার্ডস অ্যাক্ট ২০০৬-এর বিধান অনুযায়ী ‘নিম্নমান’ এবং ‘অনিরাপদ’ খাদ্য বলে নিশ্চিত করা হয়েছে।

ইন্ডিপেনডেন্টের প্রতিবেনে বলা হয়, ক্যানসারের ঝুঁকির সম্পৃক্ততা থাকায় রোডামাইন-বি ইউরোপ ও ক্যালিফোর্নিয়ায় খাদ্য পণ্যে নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

চেন্নাইয়ের ফুড সেফটি ডিপার্টমেন্টের মনোনীত অফিসার পি সতীশ কুমার ‘দ্য হিন্দুকে’ বলেন, ‘এটি (রোডোমিন-বি) চামড়ার রঙের পাশাপাশি কাগজের মুদ্রণেও ব্যবহৃত হয়। এটি খাদ্য রঙের জন্য ব্যবহার করা যাবে না, এটির তাৎক্ষণিক এবং দীর্ঘমেয়াদী স্বাস্থ্যের ঝুঁকি রয়েছে।’

জনস্বাস্থ্য রক্ষায় অন্ধ্রপ্রদেশ এবং দিল্লিও হাওয়াই মিঠাই নিষিদ্ধ করার কথা ভাবছে।

ন্যাশনাল লাইব্রেরি অফ মেডিসিন ওয়েবসাইট অনুসারে, দীর্ঘদিন রোডামাইন-বি গ্রহণের ফলে যকৃত অচল হয় বা ক্যানসারের দিকে পরিচালিত করে এবং যখন অল্প সময়ের জন্য বেশি পরিমাণে গ্রহণ করা করা হয়, তখন এটি তীব্র বিষক্রিয়া তৈরি করে।

আরও পড়ুন:
ভারত থেকে দেড় লাখ টন পেঁয়াজ চিনি কিনতে চায় সরকার
অজিত দোভালের ঢাকা সফর নিয়ে যা বলল দিল্লি
ভারতে সাজাভোগ শেষে দেশে ফিরল ২৫ নারী-পুরুষ ও শিশু
পররাষ্ট্রমন্ত্রী নয়াদিল্লিতে, জয়শঙ্করের সঙ্গে বৈঠক বুধবার
ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রীর পদ ছাড়ার পরই গ্রেপ্তার হেমন্ত

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
The United States will ban more than 500 targets related to Russia

রাশিয়া সংশ্লিষ্ট ৫ শতাধিক লক্ষ্যবস্তুকে নিষেধাজ্ঞা দেবে যুক্তরাষ্ট্র

রাশিয়া সংশ্লিষ্ট ৫ শতাধিক লক্ষ্যবস্তুকে নিষেধাজ্ঞা দেবে যুক্তরাষ্ট্র মস্কোর ক্রেমলিনে ২০ ফেব্রুয়ারি বৈঠকের সময় কৃষিমন্ত্রী দিমিত্রি পাত্রুশেভের বক্তব্য শোনেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। ছবি: রয়টার্স
আদেয়েমো জানান, নিষেধাজ্ঞার আওতায় পড়বে রাশিয়ার সামরিক শিল্প এবং রাশিয়ার প্রত্যাশা অনুযায়ী দেশটিকে পণ্য সরবরাহ করা অন্য দেশের কোম্পানিগুলো।

ইউক্রেনে রুশ হামলার দ্বিতীয় বার্ষিকীর প্রাক্কালে শুক্রবার রাশিয়া সংশ্লিষ্ট পাঁচ শতাধিক লক্ষ্যবস্তুকে যুক্তরাষ্ট্র নিষেধাজ্ঞার আওতায় আনবে বলে জানিয়েছেন আমেরিকার ডেপুটি ট্রেজারি সেক্রেটারি ওয়ালি আদেয়েমো।

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি এ কথা জানান।

ইউক্রেনে ২০২২ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি সামরিক অভিযান শুরু করে রাশিয়া, যা শেষ হয়নি দুই বছরেও।

ইউক্রেনে যুদ্ধ ও রুশ কারাগারে বিরোধীদলীয় নেতা অ্যালেক্সেই নাভালনির মৃত্যুর ঘটনায় রাশিয়াকে জবাবদিহির মুখোমুখি করতে বেশ কিছু দেশকে সঙ্গে নিয়ে এ নিষেধাজ্ঞা দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র।

আদেয়েমো জানান, নিষেধাজ্ঞার আওতায় পড়বে রাশিয়ার সামরিক শিল্প এবং রাশিয়ার প্রত্যাশা অনুযায়ী দেশটিকে পণ্য সরবরাহ করা অন্য দেশের কোম্পানিগুলো।

ইউক্রেনে সামরিক অভিযান শুরুর পর যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্ররা রাশিয়ার ওপর হাজারো নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। ইউরোপের বৈশ্বিক পরাশক্তিটির ওপর চাপ বাড়াতে নতুন করে নিষেধাজ্ঞা দিচ্ছে আমেরিকা ও মিত্র রাষ্ট্রগুলো। যদিও ইউক্রেনকে আরও নিরাপত্তা সহায়তা দেয়ার বিষয়টি যুক্তরাষ্ট্রের আইনসভা কংগ্রেসে অনুমোদন পাবে কি না, তা নিয়ে রয়েছে সংশয়।

আরও পড়ুন:
পোল্যান্ড বা লাটভিয়ায় হামলার পরিকল্পনা নেই: পুতিন
ভিসা নীতির পরিবর্তন হয়নি, ড. ইউনূসকে ভয় দেখানো হচ্ছে: যুক্তরাষ্ট্র
হুতিদের ওপর ফের হামলা যুক্তরাষ্ট্রের
এবার হুতিদের ওপর হামলা যুক্তরাষ্ট্র যুক্তরাজ্যের
ইরাক ও সিরিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের বিমান হামলায় নিহত ৩৯

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
US spacecraft on the moon after half a century

অর্ধশতাব্দী পর চাঁদে যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশযান

অর্ধশতাব্দী পর চাঁদে যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশযান প্রায় ৫০ বছর পর চাঁদে অবতরণ করল যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশযান। ছবি: দ্য গার্ডিয়ান
নাসার জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা জোয়েল কার্নস জানান, বর্তমান মিশনটি চাঁদের দক্ষিণ মেরুর পরিবেশগত অবস্থা পর্যবেক্ষণ করবে, যেখানে তারা মহাকাশচারী পাঠাতে যাচ্ছেন।

প্রায় ৫০ বছর পর আবারও চাঁদে অবতরণ করল যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশযান।

চাঁদের দক্ষিণ মেরুর কাছে স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার বিকেলে মহাকাশযানটি সফলভাবে অবতরণ করে বলে দ্য গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে জানানো হয়।

তবে যানটির অবতরণের পরবর্তী অবস্থা সম্পর্কে তাৎক্ষণিক কোনো তথ্য দেয়নি যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা প্রতিষ্ঠান নাসা। টেক্সাসভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ‘ইনটুইটিভ মেশিন’ ব্যক্তিমালিকানাধীন পর্যায়ে মহাকাশযানটি তৈরি করেছে এবং চন্দ্রাভিযানে অর্থায়ন করেছে নাসা।

কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা স্টিভ আলটেমাস বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টা ২৩ মিনিটে (স্থানীয় সময়) ষড়ভুজ আকৃতির ‘অডিসিয়াস’ চন্দ্রযানটির সফল অবতরণের কথা জানিয়ে বলেন, ‘চাঁদে স্বাগতম’।

অর্ধশতাব্দী পর চাঁদে যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশযান
‘অডিসিয়াস’ চন্দ্রযান। ছবি: এপি

নাসার জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা জোয়েল কার্নস জানান, বর্তমান মিশনটি চাঁদের দক্ষিণ মেরুর পরিবেশগত অবস্থা পর্যবেক্ষণ করবে, যেখানে তারা মহাকাশচারী পাঠাতে যাচ্ছেন।

তিনি বলেন, ‘সেখানে কী ধরনের ধুলো বা ময়লা আছে, পরিবেশ কতটা গরম বা ঠান্ডা হয়, বিকিরণ পরিবেশ কী? এসব মূলত মানব অভিযাত্রী পাঠানোর আগে জানতে হয়।’

১৯৭২ সালের ডিসেম্বরে নাসা সর্বশেষ চাঁদে অ্যাপোলো ১৭ মিশন পাঠায়। অ্যাপোলো মহাকাশ অভিযান কর্মসূচি নাসা পরিচালিত একাধিক মহাকাশ অভিযানবিশিষ্ট একটি কর্মসূচির নাম।

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট জন এফ কেনেডির পরিকল্পনায় ১৯৬১ সালের ২৫ মে থেকে এ অভিযান কর্মসূচির শুরু হয়। এ প্রকল্পের পাঁচটি মহাকাশযান চাঁদে সফলভাবে অবতরণ করে। এই কর্মসূচি থেকেই চাঁদে ১২ জন মানুষের পা পড়েছে।

অ্যাপোলো ১৭ মহাকাশযানটি চাঁদে অবতরণ করা সর্বশেষ মনুষ্যবাহী মহাকাশযান।

আরও পড়ুন:
সাংবাদিককে মামলায় ফাঁসানোর হুমকি ‘কুত্তা মাসুদের’
সাংবাদিক পরিচয়ে চাঁদাবাজি মামলায় নাটোরে কারাগারে ৪
নির্বাচনে জিতেই সিএনজি স্ট্যান্ডের চাঁদা বন্ধ করলেন এমপি আজাদ
ঢামেকে রোগীকে জিম্মি করে টাকা দাবির অভিযোগ
বৈধ অস্ত্র ভাড়া নিয়ে চলছিল অপহরণ-দখল

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Door to door distribution of contraceptives in election campaign

ভোটের প্রচারে বাড়ি বাড়ি গিয়ে গর্ভনিরোধক বিতরণ

ভোটের প্রচারে বাড়ি বাড়ি গিয়ে গর্ভনিরোধক বিতরণ
লোকসভা নির্বাচনের আগে দক্ষিণের এক রাজ্য দেখছে এমনই কাণ্ড! অন্ধ্রপ্রদেশের দুই রাজনৈতিক দল এই মুহূর্তে গর্ভনিরোধক বা কন্ডোমের মোড়ককে কাজে লাগিয়ে ভোটের প্রচারে নেমেছে, এমনটাই অভিযোগ।

পৃথিবীর সর্বাধিক জনবহুল দেশ ভারত। সেই সুবাদে পরিবার পরিকল্পনা ও জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের জন্য দেশীয় রাজনীতিতে আলোচনা ও তর্ক-বিতর্ক লেগেই থাকে। তবে গর্ভনিরোধকের মাধ্যমে ভোটের প্রচার!

লোকসভা নির্বাচনের আগে দক্ষিণের এক রাজ্য দেখছে এমনই কাণ্ড! অন্ধ্রপ্রদেশের দুই রাজনৈতিক দল এই মুহূর্তে গর্ভনিরোধক বা কন্ডোমের মোড়ককে কাজে লাগিয়ে ভোটের প্রচারে নেমেছে, এমনটাই অভিযোগ।

আনন্দবাজার পত্রিকা বলছে, ঘটনার কেন্দ্রে রয়েছে রাজ্যের শাসকদল ওয়াইএসআর কংগ্রেস এবং বিরোধী দল তেলুগু দেশম পার্টি (টিডিপি)।
সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সেই ঘটনার ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। যদিও ভিডিওটির সত্যতা যাচাই করা যায়নি।

অভিযোগ, ভোটের প্রচারের জন্য দুই দল দুই রঙের গর্ভনিরোধকের প্যাকেট ব্যবহার করছে। প্রকাশিত ভিডিও এবং ছবি অনুযায়ী, প্রচারের জন্য নীল রঙের প্যাকেট বেছেছে ওয়াইএসআর কংগ্রেস।সেই প্যাকেটের ওপর দলীয় প্রতীক এবং দলের নাম ছেপে ভোটারদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে বিলি করা হচ্ছে বলে স্থানীয় সূত্রের দাবি।

তবে আরও উল্লেখযোগ্য বিষয় হলো, শাসক এবং বিরোধী দুই দলই পরস্পরের বিরুদ্ধে এই প্রচার কৌশল নিয়ে অভিযোগের আঙুল তুলেছে।
ওয়াইএসআর কংগ্রেস এই প্রচার কৌশল নিয়ে টিডিপি নেতৃত্বকে আক্রমণ করে বলেছে, “আর কত নীচে নামবেন আপনারা?”

খানেই থামেনি শাসকদল। আরও এক ধাপ সুর চড়িয়ে তারা বলেছে, “কন্ডোম বিলিতেই কি প্রচার শেষ করবেন আপনারা, নাকি এবার জনসাধারণের মধ্যে ভায়াগ্রাও বিলি করা শুরু করবেন?”

এই বক্তব্যের বিরুদ্ধে সরব হয়ে টিডিপিও পাল্টা আক্রমণে নেমেছে। ওয়াইএসআর কংগ্রেসের দলীয় প্রতীক এবং নাম লেখা একটি গর্ভনিরোধকের প্যাকেট পাল্টা পোস্ট করে টিডিপির দাবি, তা হলে তারাও কি এভাবেই ভোটে লড়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে?

স্বাভাবিকভাবেই এই কন্ডোম-রাজনীতি তোলপাড় ফেলে দিয়েছে দক্ষিণের এই রাজ্যে।

আরও পড়ুন:
ঐশ্বরিয়াকে নিয়ে রাহুলের মন্তব্যের নিন্দা সংগীতশিল্পীর
যেভাবে ভারতে পাঠানো হলো বন্য দুই হাতিকে
নিজস্ব মুদ্রায় ভারতের সঙ্গে বাণিজ্যে আগ্রহ প্রধানমন্ত্রীর

মন্তব্য

p
উপরে