20201002104319.jpg
ইউক্রেনে সামরিক বিমান বিধ্বস্ত, নিহত ২২

ইউক্রেনে সামরিক বিমান বিধ্বস্ত, নিহত ২২

ইউক্রেনে সামরিক বিমান বিধ্বস্ত হয়ে ২২ জন নিহত হয়েছে। তাদের বেশিরভাগই এয়ার ক্যাডেট বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। 

স্থানীয় সময় শুক্রবার রাতে দেশটির পূর্বাঞ্চলীয় শহর খারকিভে অবতরণের সময় বিধ্বস্ত হয় ‘অ্যানটোনভ-২৬’ নামের বিমানটি। 

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, সামরিক বিমানটি খারকিভ বিমান বাহিনীর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ক্যাডেটদের নিয়ে যাচ্ছিল। এটি ছিল প্রশিক্ষণ ফ্লাইট। 

ইউক্রেনের জরুরি পরিস্থিতি মোকাবিলা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা বলছেন, বিমানে ২৭ জন আরোহী ছিলেন। 

বিমানটি বিধ্বস্তের পর দুজনকে আশঙ্কজনক অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। আরও তিনজনকে খুঁজতে উদ্ধারকাজ অব্যাহত রেখেছে কর্তৃপক্ষ। 

বিধ্বস্তের ঘটনার তদন্ত চলছে। 

জরুরি মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা বলছেন, চুহিভ শহরে থাকা সামরিক বিমানবন্দর থেকে মাত্র দুই কিলোমিটার দূরে বিমানটি বিধ্বস্ত হয়। 

বিমানটি বিধ্বস্তের সঙ্গে ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলে চলা সংঘাতের সম্পর্ক নেই বলে দাবি করেছে দেশটি। 

ইউক্রেনের সরকারি বাহিনীর সঙ্গে রুশ বিচ্ছিন্নতাবাদীদের লড়াইক্ষেত্র থেকে  ১০০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত চুহিভ। 

বিমানটি বিধ্বস্তের পর ঘটনাস্থলে আগুন ধরে যায়। পরে সংশ্লিষ্ট কর্মীরা এসে আগুন নিভিয়ে ফেলে।

ইউক্রেনের উপ-স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্তন গেরাশচেঙ্কো বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, ‘এটি বড় ধাক্কা। এর কারণ এ মুহূর্তে বলা সম্ভব নয়।’   

দেশটির প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির জেলেনস্কি স্থানীয় সময় শনিবার ওই অঞ্চল পরিদর্শনে যাওয়ার কথা রয়েছে। 

খারকিভের গভর্নর ওলেক্সি কুচারের বরাত দিয়ে ইন্টারফ্যাক্স-ইউক্রেনের প্রতিবেদনে বলা হয়, বিধ্বস্তের আগে পাইলটদের একজন বিমানের একটি ইঞ্জিন বিকলের কথা জানিয়েছিলেন। তবে সেটি তেমন গুরুতর কিছুু ছিল না।

প্রত্যক্ষদর্শী একজন বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানান, বিধ্বস্ত বিমান থেকে একজনকে দৌড়াতে দেখেছেন তিনি।

প্রত্যক্ষদর্শী বলেন, ‘আমাদের পেছনে একটি গাড়ি দাঁড়ানো অবস্থায় ছিল। আমরা আরেকজন চালক ও অগ্নিনির্বাপক নিয়ে তার সাহায্যে এগিয়ে যাই।’

শেয়ার করুন