20201002104319.jpg
করোনা নিয়ে চীন-যুক্তরাষ্ট্রের উত্তাপ জাতিসংঘে

করোনা নিয়ে চীন-যুক্তরাষ্ট্রের উত্তাপ জাতিসংঘে

করোনাভাইরাসজনিত রোগ (কোভিড-১৯) নিয়ে চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যকার উত্তাপ ছড়িয়েছে জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনেও। 

দুই দেশের রাষ্ট্রপ্রধানদের মধ্যে এ নিয়ে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়েছে।  

স্থানীয় সময় মঙ্গলবার নিউ ইয়র্কে ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠিত হয় জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের বার্ষিক অধিবেশন।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, অধিবেশনে দেওয়া ভাষণে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প করোনাভাইরাসকে বৈশ্বিক মহামারী পর্যায়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য চীনকে দায়ী করেন। 

তিনি বলেন, ‘দেশে দেশে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য চীনকে আমাদের অবশ্যই দায়ী করা উচিত। করোনা সংক্রমণের শুরুতেই চীন অভ্যন্তরীন বিমান চলাচল বন্ধ রাখলেও আন্তর্জাতিক বিমান চলাচল বন্ধ করেনি। এতে করোনা বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়ে।’

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র থেকে চীনে যাওয়ার ফ্লাইট বন্ধ করার ঘোষণা দিলে ওই সময় সমালোচনা করে চীন। অথচ সেই দেশই অভ্যন্তরীণ বিমান চলাচল বন্ধ করার মাধ্যমে নিজ দেশের মানুষকে সুরক্ষিত রাখে।’

 

ট্রাম্পের পরপরই দেওয়া বক্তব্যে চীনের প্রেসিডেন্ট সি চিন পিং 'সভ্যতার সংঘাতের' ঝুঁকি নিয়ে সতর্কবার্তা দেন।

তিনি বলেন, 'আমরা সংলাপ ও সমঝোতার মাধ্যমে অন্যদের সঙ্গে মতপার্থক্য কমানোর পাশাপাশি দ্বন্দ্ব নিরসন করব। আমরা শুধু নিজেদের উন্নয়ন করা কিংবা একতরফা খেলতে চাই না।'

ট্রাম্পের অভিযোগ খারিজ করে সি বলেন, কোনো দেশের বিরুদ্ধে স্নায়ুযুদ্ধে যাওয়ার পরিকল্পনা নেই তাদের।

তিনি বলেন, ‘বৈশ্বিক বিষয়ে প্রভাব খাটানোর অধিকার কোনো দেশের নেই। একই সঙ্গে অন্য দেশের ভাগ্য নির্ধারণের দায়িত্বও কেউ কাউকে দেয়নি।’

বাণিজ্য, প্রযুক্তিসহ নানা ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে উত্তেজনা চলছে। চীনের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় শিনজিয়াংয়ে সংখ্যালঘু উইঘুর মুসলমানদের ওপর চীনের হস্তক্ষেপের সমালোচনা করে আসছে যুক্তরাষ্ট্র।

শেয়ার করুন