× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

স্বাস্থ্য
Ambulance driver in the role of doctor in Upazila Health Complex
google_news print-icon

হাসপাতালে রোগী দেখছেন অ্যাম্বুলেন্সচালক!

হাসপাতালে-রোগী-দেখছেন-অ্যাম্বুলেন্সচালক
ফেসবুকে অ্যাম্বুলেন্সচালক আমজাদের চিকিৎসা দেয়ার ছবিটি ছড়িয়ে পড়ে। ছবি: সংগৃহীত
জেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা এ কে এম শাহাবুদ্দিন জানান, বাইরের কেউ কোনোভাবেই জরুরি বিভাগে রোগী দেখতে পারে না। বিষয়টি তদন্ত করে আমজাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নাটোরের লালপুরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে চিকিৎসকের ভূমিকায় দেখা গেছে অ্যাম্বুলেন্সচালক আমজাদ হোসেনকে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে তার চিকিৎসা দেয়ার একটি ছবি ছড়িয়ে পড়ে। এরপরই শুরু হয় নানা সমালোচনা।

ছবিতে দেখা যায়, হাসপাতালকেন্দ্রিক বেসরকারি অ্যাম্বুলেন্সচালক আমজাদ কানে স্টেথোস্কোপ লাগিয়ে জরুরি বিভাগে রোগী দেখছেন।

এ বিষয়ে হাসপাতালের আরএমও সুরুজ্জামান শামীম অভিযোগ করে জানান, বেসরকারি অ্যাম্বুলেন্সচালক আমজাদ হাসপাতাল চত্বরে দালালি করে। স্থানীয় ও প্রভাবশালী হওয়ায় কোনো কোনো স্টাফদের সঙ্গেও তার সুসম্পর্ক রয়েছে। হাসপাতালে রোগী এলেই আগবাড়িয়ে তাদের সঙ্গে পরিচিত হন আমজাদ এবং তাদের সমস্যা সমাধান করার কথা বলে আর্থিক সুবিধা নেন।

জরুরি বিভাগের ঘটনাটি উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘রোগীর খোঁজ নিতে রাউন্ডে ছিলাম। এ সুযোগে আমজাদ জরুরি বিভাগে ঢুকে থাকতে পারে।’

হাসপাতাল চত্বরে দালালির কথা অস্বীকার করে অ্যাম্বুলেন্সচালক আমজাদ জানান, রাত সাড়ে ৭টার দিকে পাশের মোমিনপুর এলাকার মারামারিতে আহত এক রোগী আসে। এ সময় একজন চিকিৎসক তাকে ওই রোগীর প্রেসার মাপতে বলেন। এ সময় কেউ জানালা দিয়ে গোপনে ছবি তুলে ফেসবুকে ছেড়েছে।

জরুরি বিভাগে তিনি এই কাজ করতে পারেন কি না এমন প্রশ্নের কোনো উত্তর দেননি তিনি।

জেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা এ কে এম শাহাবুদ্দিন জানান, বাইরের কেউ কোনোভাবেই জরুরি বিভাগে রোগী দেখতে পারে না। বিষয়টি তদন্ত করে আমজাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সিভিল সার্জন রোজী আরা খাতুন বলেন, ‘অ্যাম্বুলেন্সচালক জরুরি বিভাগে রোগী দেখছেন, এটা তো হওয়ার কথা না। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে জরুরি বিভাগে সব সময় চিকিৎসক থাকার কথা। অ্যাম্বুলেন্সচালকের রোগী দেখার কোনো বৈধতা নেই। বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

আরও পড়ুন:
‘ভুল চিকিৎসা’য় প্রসূতির মৃত্যুর জেরে সংঘর্ষ
নিজ হাসপাতালে হয়রানির শিকার হয়ে বিস্মিত চিকিৎসক
বাবার লাশের পাশে ফেসবুক লাইভ: অভিযোগের সত্যতা নিয়ে প্রশ্ন
রোগীকে ধর্ষণচেষ্টার মামলায় চিকিৎসক কারাগারে
দাঁতের ব্যথায় পল্লি চিকিৎসকের কাছে গিয়ে শিশুর মৃত্যু

মন্তব্য

আরও পড়ুন

স্বাস্থ্য
Youth sentenced to death for killing three people in Sirajganj

সিরাজগঞ্জে তিনজনকে হত্যার দায়ে যুবকের মৃত্যুদণ্ড

সিরাজগঞ্জে তিনজনকে হত্যার দায়ে যুবকের মৃত্যুদণ্ড দণ্ডপ্রাপ্ত আইয়ুব আলী। ছবি: নিউজবাংলা
মামলা সূত্রে জানা যায়, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে ঋণ নেয়া তাঁত শ্রমিক আইয়ুব খালার কাছে টাকা ধার চান। পরে ধার না পেয়ে গভীর রাতে রওশন আরার ঘরে ঢুকে টাকা চুরির চেষ্টা করেন তিনি। ওই সময় রওশন নড়ে উঠলে চুরির বিষয়টি বুঝ পেরেছেন ধারণা করে তার বুকে শিল পাথর দিয়ে আঘাত করেন আইয়ুব। এরপর তাকে গলাটিপে তাকে হত্যা করেন।

সিরাজগঞ্জের বেলকুচিতে সৎ খালা ও তার দুই ছেলেকে হত্যার দায়ে একজনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আদালত। একইসঙ্গে দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

সিরাজগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক ফজলে খোদা নাজির সোমবার এ আদেশ দেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত ২৯ বছর বয়সী আইয়ুব আলী উল্লাপাড়া উপজেলার নন্দিগাতি গ্রামের বাসিন্দা।

জেলা ও দায়রা জজ আদালতের স্টেনোগ্রাফার রাশিদুল ইসলাম সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ২০২২ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর রাতে আইয়ুব আলী তার সৎ খালা রওশন আরার বাড়িতে যান। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে ঋণ নেয়া তাঁত শ্রমিক আইয়ুব খালার কাছে টাকা ধার চান। পরে ধার না পেয়ে গভীর রাতে রওশন আরার ঘরে ঢুকে টাকা চুরির চেষ্টা করেন তিনি। ওই সময় রওশন নড়ে উঠলে চুরির বিষয়টি বুঝ পেরেছেন ধারণা করে তার বুকে শিল পাথর দিয়ে আঘাত করেন আইয়ুব। এরপর তাকে গলাটিপে তাকে হত্যা করেন।

মামলায় আরও উল্লেখ আছে, ওই সময় রওশন আরার পাশে ঘুমিয়ে থাকা তার তিন বছরের শিশু মাহিন কান্নাকাটি শুরু করলে তাকেও গলাটিপে হত্যা করা হয়। তখন রওশন আরার অপর সন্তান জিহাদ জেগে উঠলে তাকেও গলাটিপে হত্যা করে ঘরের দরজা লাগিয়ে পালিয়ে যান আইয়ুব।

ঘটনার তিন দিন পর ১ অক্টোবর বিকেলে নিজ ঘর থেকে সুলতান আলীর স্ত্রী রওশন আরা, তার দুই শিশু সন্তান মাহিন ও জিহাদের অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। ওইদিন রাতেই নিহতের ভাই নুরুজ্জামান বাদী হয়ে বেলকুচি থানায় অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে একটি হত্যা মামলা করেন।

মামলার পর জেলা গোয়েন্দা পুলিশ ও বেলকুচি থানা পুলিশ মামলার কাজ শুরু করে। তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় জেলা গোয়েন্দা পুলিশের একটি টিম ২ অক্টোবর রাত সোয়া ১২টার দিকে উল্লাপাড়ার নন্দিগাতি গ্রাম থেকে হত্যাকাণ্ডের হোতা আইয়ুব আলীকে গ্রেপ্তার করে। পরে তার দেয়া স্বীকারোক্তি ও তথ্যের ভিত্তিতে আলামত উদ্ধার করা হয়।

আরও পড়ুন:
ঋণের চাপে দুই শিশুকে হত্যার পর মায়ের আত্মহত্যা, ধারণা পুলিশের
ঝালকাঠিতে শ্রমিক লীগ কর্মীকে কুপিয়ে হত্যা, চাচাত ভাই পলাতক
বাসে বসা নিয়ে ইবি শিক্ষার্থীকে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ
কুমিল্লায় স্ত্রীকে হত্যার পর স্বামীর আত্মহত্যা, ধারণা পুলিশের
মানসিক ভারসাম্যহীনকে ‘পিটিয়ে হত্যা’, ২ হাসপাতালকর্মী গ্রেপ্তার

মন্তব্য

স্বাস্থ্য
If there is no drama about the result I will win Sakku
কুসিক উপনির্বাচন

ফল নিয়ে নাটক না হলে আমিই জয়ী হব: সাক্কু








ফল নিয়ে নাটক না হলে আমিই জয়ী হব: সাক্কু প্রচারের তৃতীয় দিন রোববার গণসংযোগে ব্যস্ত সময় পার করেন টেবিল ঘড়ি প্রতীক নিয়ে মেয়র পদে লড়া মনিরুল হক সাক্কু। ছবি: নিউজবাংলা
নির্বাচনের ফল নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করে সাবেক মেয়র বলেন, ‘গেল নির্বাচনে ভোটের ফলাফল কেমন হয়েছে, তা নগরবাসী দেখেছে৷ গতবারের মতো শেষ মুহূর্তে ফলাফল নিয়ে নাটক না হলে আমিই বিজয়ী হব।’ 

কুমিল্লা সিটি করপোরেশনে (কুসিক) মেয়র পদে উপনির্বাচনের ফল নিয়ে নাটক না হলে জয়ী হবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন দুবারের সাবেক মেয়র মনিরুল হক সাক্কু।

কুমিল্লা হাই স্কুল সংলগ্ন এলাকায় রোববার গণসংযোগের সময় দেয়া বক্তব্যে তিনি এ আশার কথা জানান।

ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) আগামী ৯ মার্চ কুমিল্লা সিটি করপোরেশনে উপনির্বাচন হবে।

এ নগরে দুই লাখ ৪২ হাজার ৬৯৮ জন ভোটার ১০৫টি কেন্দ্রের ৬৮৫টি কক্ষে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবেন।

নির্বাচনের দুই সপ্তাহেরও কম সময় আগে জমে উঠেছে প্রচার। সকাল থেকে রাত অবধি প্রার্থীরা যাচ্ছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে।

নির্বাচনি প্রচারের তৃতীয় দিন সকাল থেকেই প্রার্থীদের গণসংযোগ করতে দেখা যায়।

কুমিল্লা হাই স্কুল সংলগ্ন এলাকা থেকে সকাল ৯টার দিকে গণসংযোগ শুরু করেন বিএনপির বহিষ্কৃত নেতা সাক্কু।

তিনি ভোটারদের হাতে লিফলেট বিতরণ করে টেবিল ঘড়িতে ভোট দেয়ার আহ্বান জানান।

মেয়র পদপ্রার্থী সাক্কু বলেন, ‘নগরবাসী আমাকে পছন্দ করে। আমিও নগরবাসীর চাহিদামতো নগরের কাজ করেছি। আরও কিছু কাজ বাকি আছে। এবার বিজয়ী হয়ে অসমাপ্ত কাজগুলো শেষ করব।’

নির্বাচনের ফল নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করে সাবেক মেয়র বলেন, ‘গেল নির্বাচনে ভোটের ফলাফল কেমন হয়েছে, তা নগরবাসী দেখেছে৷ গতবারের মতো শেষ মুহূর্তে ফলাফল নিয়ে নাটক না হলে আমিই বিজয়ী হব।’

আরও পড়ুন:
প্রতীক পেয়েই মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন কুসিকের ৪ প্রার্থী
মধুচন্দ্রিমা থেকে ফিরেই পিকআপের ধাক্কায় গেল প্রাণ
ময়নামতিতে মুজিব বর্ষ ১৮তম ফিজ আপ কাপ গলফ টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত
উপজেলা নির্বাচনে চকরিয়ায় আ.লীগের ডজনখানেক প্রার্থী
কুমিল্লায় মেয়র প্রার্থীদের কে কোন প্রতীক পেলেন

মন্তব্য

স্বাস্থ্য
The police believe that the mother committed suicide after killing two children under the pressure of debt

ঋণের চাপে দুই শিশুকে হত্যার পর মায়ের আত্মহত্যা, ধারণা পুলিশের

ঋণের চাপে দুই শিশুকে হত্যার পর মায়ের আত্মহত্যা, ধারণা পুলিশের মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার কেয়াইন ইউনিয়নের উত্তর ইসলামপুর গ্রামের একটি ঘর থেকে রোববার তিনজনের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। ছবি: নিউজবাংলা
পুলিশের ধারণা, ঋণের চাপ সইতে না পেরে রোববার সকালের কোনো এক সময়ে দুই সন্তানকে হত্যার পর আত্মহত্যা করেন ওই নারী।

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে রোববার দুই শিশু সন্তানসহ এক নারীর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

উপজেলার কেয়াইন ইউনিয়নের উত্তর ইসলামপুর গ্রামের একটি ঘর থেকে ওই তিনজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

পুলিশের ধারণা, ঋণের চাপ সইতে না পেরে রোববার সকালের কোনো এক সময়ে দুই সন্তানকে হত্যার পর আত্মহত্যা করেন ওই নারী।

প্রাণ হারানো তিনজন হলো ৩৩ বছর বয়সী সায়মা বেগম ও তার ১১ বছরের মেয়ে ছাইমুনা ও সাত বছরের ছেলে তাওহীদ।

সায়মার স্বামী আলী মিয়া সৌদি আরব প্রবাসী।

মুন্সীগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সিরাজদিখান সার্কেল) মোস্তাফিজুর রহমান রিফাত জানান, স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে পুলিশ বসতঘর থেকে মা ও দুই শিশুর মরদেহ উদ্ধার করে। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ তিনটি মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হচ্ছে।

তিনি আরও জানান, ঋণের চাপে প্রথমে দুই সন্তানকে বিষ পান করিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে মা গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন বলে ধারণা করছে পুলিশ।

এ বিষয়ে তদন্ত শেষে বিস্তারিত জানানো যাবে বলেও জানান পুলিশের এ কর্মকর্তা।

আরও পড়ুন:
কুমিল্লায় স্ত্রীকে হত্যার পর স্বামীর আত্মহত্যা, ধারণা পুলিশের
টাকা ভাগাভাগির দ্বন্দ্বে জানাজায় বাধা, পুলিশি হস্তক্ষেপে দুই দিন পর দাফন
চেকপোস্ট বসিয়ে পুলিশের পোশাক পরে ডাকাতি, একজন আটক
কারাগার থেকে সাংবাদিক হত্যা মামলার আসামির ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার
হাসপাতাল থেকে পালানো দগ্ধ কিশোরের মরদেহ পুকুরে

মন্তব্য

স্বাস্থ্য
Cousin of Sramik League worker hacked to death in Jhalkathi is absconding

ঝালকাঠিতে শ্রমিক লীগ কর্মীকে কুপিয়ে হত্যা, চাচাত ভাই পলাতক

ঝালকাঠিতে শ্রমিক লীগ কর্মীকে কুপিয়ে হত্যা, চাচাত ভাই পলাতক প্রাণ হারানো ইমরান হোসেন। ছবি: সংগৃহীত
ইমরানের বড় ভাই রাসেল হাওলাদার বলেন, “আমারই চাচাত ভাই আলমিন হাওলাদারসহ ছয় থেকে সাতজন শনিবার রাতে রামদা নিয়ে ওকে (ইমরানকে) ধাওয়া করে কুপিয়েছে। ইমরান মৃত্যুর আগে শুধু এতটুকুই বলেছে, ‘আলমিন আমারে কোপাইছে।”

ঝালকাঠির নলছিটিতে এক যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে তার চাচাত ভাইয়ের বিরুদ্ধে।

নলছিটি পৌর এলাকায় শনিবার রাত ৮টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

প্রাণ হারানো ৩২ বছর বয়সী ইমরান হোসেন শ্রমিক লীগের নলছিটি উপজেলা শাখার কর্মী এবং নলছিটির ভাড়ায়চালিত মোটরসাইকেল চালক সমিতির সভাপতি।

নলছিটি থানার ওসি মো. মুরাদ আলী এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

পরিবারের বরাত দিয়ে তিনি জানান, শনিবার রাত ৮টার দিকে নলছিটি পৌর এলাকার নান্দিকাঠিতে ইমরানকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে ফেলে রেখে যায় দুর্বৃত্তরা। রক্তাক্ত অবস্থায় আহত ইমরানকে স্থানীয়রা নলছিটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। অবস্থার অবনতি হলে সেখানকার চিকিৎসকরা তাকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠান। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় ইমরানের।

ইমরানের মৃত্যুর খবরটি সংবাদমাধ্যমকে জানান তার বড় ভাই রাসেল হাওলাদার।

তিনি সাংবাদিকদের বলেন, “আমারই চাচাত ভাই আলমিন হাওলাদারসহ ছয় থেকে সাতজন শনিবার রাতে রামদা নিয়ে ওকে (ইমরানকে) ধাওয়া করে কুপিয়েছে। ইমরান মৃত্যুর আগে শুধু এতটুকুই বলেছে, ‘আলমিন আমারে কোপাইছে।”

নলছিটি থানার ওসি মো. মুরাদ আলী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহটি বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ পেলে পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

আরও পড়ুন:
স্ত্রীকে দুই বছরে ১১ বার হত্যার হুমকি সন্ত্রাসীদের!
শেরপুরে হাতুড়ির আঘাতে বৃদ্ধকে হত্যার অভিযোগ, ছেলে আটক
শিশুকে হত্যা করে ধানখেতে পুঁতে রাখেন সৎ বাবা
মায়ের অন্যত্র বিয়ে, শিশুপুত্রকে পুড়িয়ে হত্যাচেষ্টা বাবার
ক্রাচে ভর দিয়ে চলা বৃদ্ধার মরদেহ ঝুলছিল গাছে

মন্তব্য

স্বাস্থ্য
Killed fish worth 3 lakh taka by poisoning the pond in the middle of the night

‘আমাদের স্বপ্ন এখন পুকুরের পানিতে ভাসছে’

‘আমাদের স্বপ্ন এখন পুকুরের পানিতে ভাসছে’ মরা মাছগুলো উল্টে শ‌নিবার সকালে পুকুরে ভেসে উঠে। ছবি: নিউজবাংলা
মাদারীপুর সদর থানার ওসি এইচ এম সালাহ উদ্দিন বলেন, ‘ঘটনাটি শুনলাম। কেউ অভিযোগ দিলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

‘আমরা তিন বন্ধু মিলে লেখাপড়ার পাশাপাশি স্বাবলম্বী হতে এই মাছ চাষ করি, কিন্তু আমাদের সেই স্বপ্ন এখন পুকুরের পানিতে ভাসছে। কারা আমাদের পুকুরে বিষ দিয়েছে, আমরা জানি না।’

কথাগুলো বলছিলেন মাদারীপুর সদরের খোয়াজপুর ইউনিয়নের চরগোবিন্দপুর গ্রামের মাথাভাঙ্গা এলাকার সোহানুর বেপারী।

তার অভিযোগ, শুক্রবার রাতের আঁধারে দুর্বৃত্তরা তাদের পুকুরে বিষ দিয়ে তিন লাখ টাকার মাছ নিধন করেছে।মরা মাছগুলো উল্টে শ‌নিবার সকালে পুকুরে ভেসে ওঠে।

সোহানুর জানান, ছয় মাস আগে তিনি, রাব্বি সরদার ও ফেরদাউস শিকদার মিলে মাথাভাঙ্গা হাটের পশ্চিম পাশে সোনালি ব্রিকস নামের ইটভাটা সংলগ্ন ৪০ শতাংশ জমিতে পুকুর খনন করে মাছ চাষ শুরু করেন। পুকুরে তারা ছয় লাখ টাকার তেলাপিয়া, রুই, কাতলা, ব্রিগেড, পাঙ্গাসসহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছ ছাড়েন।

তিনি জানান, সেই মাছগুলোর একেকটা এক কেজি ওজনের বেশি হয়েছে। তারা তিন বন্ধু মিলে ভেবেছিলেন, দুই-এক দিনের মধ্যে মাছগুলো ধরবেন, কিন্তু তার আগেই পুকুরে দেয়া হয় বিষ।

এ যুবক জানান, পুকুরে বিষ প্রয়োগের পর চিকিৎসক ডেকে আনে পানি পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষা শেষে চিকিৎসক জানান, পুকুরে বিষ প্রয়োগ করা হয়েছে, যার কারণে মাছ মরে উল্টো হয়ে ভেসে ওঠে।

সোহানুরের বন্ধু রাব্বি সরদার বলেন, ‘মাছের সাথে এ কেমন শত্রুতা? আমরা নিজের অর্থ দিয়ে এই মাছ চাষের উদ্যোগ নিয়েছি। এখনও আমাদের মাছের খাবারের এক লক্ষ টাকা বাকি পড়ে আছে দোকানে।

‘এ অবস্থায় এখন আবার পুকুরের অর্ধেক মাছ মারা গেছে। আমরা এখন এই ক্ষতি কেমন করে পূরণ করব? যারা আমাদের এই ক্ষতি করেছে, আমি প্রশাসনের কাছে তাদের বিচার চাই।’

জানতে চাইলে মাদারীপুর সদর থানার ওসি এইচ এম সালাহ উদ্দিন বলেন, ‘ঘটনাটি শুনলাম। কেউ অভিযোগ দিলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

মন্তব্য

স্বাস্থ্য
I will work for the development of football in Bangladesh Barrister Suman

বাংলাদেশের ফুটবলের উন্নয়নে কাজ করব: সুমন

বাংলাদেশের ফুটবলের উন্নয়নে কাজ করব: সুমন বাংলাদেশের ফুটবলের উন্নয়নে কাজ করবেন বলে জানিয়েছেন ব্যারিস্টার সুমন। ছবি: নিউজবাংলা
সুমন বলেন, ‘আমি ফুটবলের ব্যাপারে প্রতিবাদ করছি বহুদিন আগে থেকেই, প্রতিবাদ করতে করতেই আমি এখন মেম্বার অফ পার্লামেন্ট। আমি এখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সামনে কথা বলতে পারি। আমার একটা বিশ্বাস ফুটবলের এখন গণজাগরণ শুরু হয়েছে।’

নব্বই দশকের ফুটবলে ফিরে যেতে চান উল্লেখ করে ব্যারিস্টার সায়েদুল হক সুমন জানিয়েছেন, তিনি বাংলাদেশের ফুটবলের উন্নয়নে কাজ করে যাবেন।

তিনি বলেন, ‘আমার যতটুকু সাধ্য, আমি মেম্বার অফ পার্লামেন্ট হিসেবে শুধু আমার এলাকার ফুটবল না, বাংলাদেশের ফুটবলের উন্নয়নে কাজ করব। যেভাবে কাজ করলে নব্বই দশকের ফুটবলে ফিরে যাওয়া যায়, যেখানে ফুটবল আমাদের ঐহিত্য ছিল। আমরা সেটাই করব।’

জামালপুর বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট আবদুল হাকিম স্টেডিয়ামে প্রীতি ফুটবল ম্যাচ খেলতে গিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

সুমন বলেন, ‘আমি ফুটবলের ব্যাপারে প্রতিবাদ করছি বহুদিন আগে থেকেই, প্রতিবাদ করতে করতেই আমি এখন মেম্বার অফ পার্লামেন্ট। আমি এখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সামনে কথা বলতে পারি। আমার একটা বিশ্বাস ফুটবলের এখন গণজাগরণ শুরু হয়েছে।’

ভারতের ফুটবলের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘দেখেন, ইন্ডিয়া অনেক দূর এগিয়ে গেছে, এখন তারা মধ্যপ্রাচ্যের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে। আর আমরা এখনও সাউথ এশিয়াতেই টিকতে পারি না।

‘যেহেতু আমাদের প্রথম প্রেম ফুটবল, এ ফুটবলের প্রেমটা আবার ফিরিয়ে নিয়ে আসতে চাই। আমরা সবাই আবার মাঠে আসতে চাই।’

আরও পড়ুন:
পোস্টারে জাতির পিতার ছবি, ব্যারিস্টার সুমনকে শোকজ
ব্যারিস্টার মইনুলের দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত
ব্যারিস্টার মইনুলের সম্মানে অর্ধবেলা বন্ধ বিচারকাজ
ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন মারা গেছেন
শোকজের জবাব দিয়ে যা বললেন ব্যারিস্টার সুমন

মন্তব্য

স্বাস্থ্য
Munshiganj passenger bus ditch

মুন্সীগঞ্জে যাত্রীবাহী বাস খাদে

মুন্সীগঞ্জে যাত্রীবাহী বাস খাদে 
দুর্ঘটনাকবলিত বাস। ছবি: নিউজবাংলা
ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা বাসের ভে।তরে তল্লাশি চালিয়েছেন। তবে বাসে কোনো যাত্রী পাওয়া যায়নি। বাসের নিচে কেউ চাপা পড়েছে কি না তা নিশ্চিত করতে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিসের টিম।

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে একটি যাত্রীবাহী বাস খাদে পড়ে গেছে।

শনিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার কাজীরবাগ চৌরাস্তা এলাকায় সিরাজদিখান-টঙ্গিবাড়ী আঞ্চলিক সড়কে ওই দুর্ঘটনা ঘটে।

খবর পেয়ে উদ্ধার অভিযানে যোগ দিয়েছে সিরাজদিখান ফায়ার সার্ভিসের একটি টিম।

ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ঢাকা থেকে টঙ্গিবাড়ীর উদ্দেশে ছেড়ে আসা যাত্রীবাহী বাসটি রাত সাড়ে ৯টার দিকে সিরাজদিখান উপজেলার কাজীরবাগ চৌরাস্তা এলাকায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে খাদে পড়ে যায়।

ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা বাসের ভেতরে তল্লাশি চালিয়েছেন। তবে বাসে কোনো যাত্রী পাওয়া যায়নি। বাসের নিচে কেউ চাপা পড়েছে কি না তা নিশ্চিত করতে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিসের টিম।

সিরাজদিখান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুজাহিদুল ইসলাম জানান, দুর্ঘটনা কবলিত বাসে অল্পসংখ্যক যাত্রী ছিল, তারা বাস থেকে নেমে যেতে সমর্থ হয়েছে। এদের মধ্যে আহত তিনজনকে সিরাজদিখান স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে। বাস টেনে তোলার কাজ অব্যাহত রয়েছে বলে জানান তিনি।

মন্তব্য

p
উপরে