পিসিআর মেশিনে ভাইরাস, বন্ধ নমুনা পরীক্ষা

পিসিআর মেশিনে ভাইরাস, বন্ধ নমুনা পরীক্ষা

শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ আবদুল কাদের জানান, পিসিআর মেশিন বন্ধ থাকায় করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠানো হচ্ছে। ল্যাবটি সম্পূর্ণ জীবাণুমুক্ত করে শুক্রবার থেকে হয়তো আবার নমুনা পরীক্ষা শুরু করা যাবে।

গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের আরটিপিসিআর মেশিনে করোনাভাইরাস পাওয়ায় বন্ধ রয়েছে নমুনা পরীক্ষা।

হাসপাতালের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ও ল্যাবপ্রধান সাইফুল ইসলাম বৃহস্পতিবার সকালে নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, গত ২ আগস্ট বিকেলে ১২৩টি নমুনা পরীক্ষার জন্য মেশিনে দেয়া হয়। এতে ১১৫ জনের পজিটিভ ফল এলে বিষয়টি নিয়ে সন্দেহ হয়।

এরপর মঙ্গলবার পরীক্ষা করে মেশিনের টিউবে ভাইরাসের নমুনা পাওয়া গেলে করোনা পরীক্ষা বন্ধ করে দেয়া হয়। এ ছাড়া ওই ১২৩টি নমুনা আবারও পরীক্ষার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ আবদুল কাদের জানান, পিসিআর মেশিন বন্ধ থাকায় করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠানো হচ্ছে। ল্যাবটি সম্পূর্ণ জীবাণুমুক্ত করে শুক্রবার থেকে হয়তো আবার নমুনা পরীক্ষা শুরু করা যাবে।

আরও পড়ুন:
কর্মীদের বেতন দেবেন এমপি, পাবনায় চালু পিসিআর মেশিন
বিনা মূল্যে করোনাভাইরাস টেস্টিং বুথ উদ্বোধন
বেসরকারি পর্যায়ে করোনা পরীক্ষার ফি কমল

শেয়ার করুন

মন্তব্য

অসতর্কতা-অব্যবস্থাপনায় সৈকতে যাচ্ছে প্রাণ

অসতর্কতা-অব্যবস্থাপনায় সৈকতে যাচ্ছে প্রাণ

সৈকতে গোসলে নেমে গত দুইদিনে প্রাণ গেছে তিনজনের। ছবি: নিউজবাংলা

বিশ্বের বৃহত্তম সমুদ্র সৈকতে এসব দুর্ঘটনার কারণ হিসেবে সামনে এসেছে বেশ কিছু বিষয়। তার মধ্যে পর্যটকদের অসতর্কতা, সৈকত এলাকায় প্রশাসনের নজরদারি ও উদ্ধার সরঞ্জামের সংকটের কথা উঠে এসেছে অনেকের কথায়।

পরিবারসহ কক্সবাজারে বেড়াতে গিয়েছিলেন ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী তৌফিক মকবুল। গোসলে নেমে ভেসে গিয়ে প্রাণ হারান ওই তরুণ।

আনন্দ যাত্রার বিষাদ রূপ দেখে তৌহিদের মরদেহ নিয়ে কক্সবাজার ছাড়ে তার পরিবার। এ ঘটনা গত ৮ সেপ্টেম্বরের।

এরপর গত শুক্রবার তিন ঘণ্টার ব্যবধানে সৈকতের দুই পয়েন্ট থেকে উদ্ধার করা হয় এক কিশোর ও যুবকের মরদেহ এবং শনিবার আরেক পয়েন্টে ভেসে আসে আরও এক যুবকের নিথর দেহ।

কক্সবাজার সৈকতের লাইফ গার্ড কর্তৃপক্ষের তথ্যানুযায়ী, সাগরে গোসল করতে নেমে গত এক মাসে তিন ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন ছয়জন। আহত হয়েছে অর্ধশতাধিক। এর মধ্যে শুধু পর্যটকই নন, আছেন স্থানীয়রাও।

আর কক্সবাজার সি সেইফ লাইফ গার্ড সংস্থার তথ্যে জানা গেছে, গত পাঁচ বছরে সমুদ্রে নেমে মৃত্যু হয়েছে ১৯ পর্যটকের। আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে ৩৫৪ জনকে।

বিশ্বের বৃহত্তম সমুদ্র সৈকতে এসব দুর্ঘটনার কারণ হিসেবে সামনে এসেছে বেশ কিছু বিষয়। তার মধ্যে পর্যটকদের অসতর্কতা, সৈকত এলাকায় প্রশাসনের নজরদারি ও উদ্ধার সরঞ্জামের সংকটের কথা উঠে এসেছে অনেকের কথায়।

সমুদ্রস্নানের সময় পর্যটকের নিরাপত্তায় থাকা কর্মীদের সংখ্যাও অনেক কম। কক্সবাজার সি সেইফ লাইফ গার্ড সংস্থার তথ্যে, এ ধরনের নিরাপত্তায় আছেন দুই শিফটে মাত্র ২৭ কর্মী।

অসতর্কতা-অব্যবস্থাপনায় সৈকতে যাচ্ছে প্রাণ

তবে লাইফ গার্ড কর্মীদের দাবি, সৈকতে নামার নির্দেশনা উপেক্ষা করায় একের পর এক প্রাণহানির ঘটনা ঘটছে।

লাইফ গার্ডের সুপারভাইজার মাহবুবুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সৈকতে আসা পর্যটকদের মৃত্যুঝুঁকি এড়াতে বৈরী আবহাওয়া ও ভাটায় সময় পানিতে না নামতে প্রতিনিয়ত মাইকিং ও সতর্ক চিহ্ন অর্থ্যাৎ লাল পতাকা উড়ানো হয়। তবে অনেক সময় দেখা যায়, কিছু পর্যটক ও স্থানীয়রা তা না মেনে দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে।’

পর্যটকদের দাবি, সৈকতে নিরাপত্তাকর্মীদের সংখ্যা নগণ্য। আর সতর্কতামূলক যে ব্যবস্থার কথা বলা হচ্ছে তার অর্থ অনেকেই জানেন না। নিরাপদ সৈকতের জন্য নজরদারি বাড়াতে হবে।

ঢাকা থেকে কক্সবাজারে যাওয়া বেসরকারি ব্যাংকের কর্মকর্তা এসএম আসাদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘প্রতিটি পয়েন্টে লাইফ গার্ড কর্মীর সংখ্যা কম। লাবণী পয়েন্টে আমি মাত্র তিনজনকে দেখেছি, যা প্রয়োজনের তুলনায় অনেক কম। এ ছাড়া নির্দিষ্ট নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেই। যার কারণে অনিরাপদ হয়ে উঠেছে সৈকত।’

চট্টগ্রাম থেকে আসা ব্যবসায়ী ইমাম হোসেন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সৈকতের প্রবেশদ্বারগুলোতে নেই সমুদ্রস্নানের নির্দেশনা। তবে সৈকতের বালিয়াড়িতে টাঙানো আছে সংকেতবাহী লাল ও লাল-হলুদ পতাকা। তবে এসব রঙের পতাকার অর্থই জানেন না পর্যটকরা। প্রতিটি পয়েন্ট নির্দেশনা অমান্য করে দিব্যি বিপজ্জনক জায়গায় যাচ্ছেন পর্যটকরা।’

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, পর্যটকদের অসতর্কতা ও অনিরাপদ সৈকতের কারণেই প্রাণহানি বাড়ছে। এজন্য সৈকতে পর্যটকদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টেগুলোতে নেট বা জাল দিতে হবে। পাশাপাশি গোসলের স্থান বিভিন্ন জোনে ভাগ করতে হবে।

অসতর্কতা-অব্যবস্থাপনায় সৈকতে যাচ্ছে প্রাণ

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অফ মেরিন সায়েন্সেস অ্যান্ড ফিশারিজ বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ নূরুল আজিম সিকদার নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সব সময় সাগরের আচরণ পাল্টায়। এটা প্রাকৃতিকভাবে হয়ে থাকে।

‘যেমন জোয়ারের সময় যেই স্থানে সমতল, ভাটার সময় সেখানে খাদের সৃষ্টি হতে পারে। ঘূর্ণিপাকে হঠাৎ সৃষ্টি হয় চোরাবালির। তাই সৈকতে গোসল করতে নামতে হবে নিরাপদ জায়গায়। নয়তো যেকোনো সময় প্রাণহানি ঘটতে পারে।’

তিনি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশের প্রায় প্রত্যেকটা সমুদ্র সৈকত অনিরাপদ। এর কারণ পর্যাপ্ত নিরাপত্তার অভাবে। এ ব্যবস্থার উন্নতি ছাড়া সৈকত নিরাপদ করা সম্ভব নয়। পাশাপাশি পর্যটকদের সতর্ক হতে হবে। নয়তো প্রাণহানি ঠেকানো যাবে না।’

কক্সবাজার নাগরিক আন্দোলনের সদস্য সচিব এইচ এম নজরুল ইসলাম বলেন, ‘সৈকতে একের পর এক ভেসে গিয়ে মৃত্যুর ঘটনায় আতঙ্কিত পর্যটকরা। সৈকতে বিনোদনের প্রধান মাধ্যম নোনা জলে গোসল। এটি কীভাবে নিশ্চিত করা যায় তা নিয়ে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়া জরুরি।’

সৈকতের গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টগুলোতে নির্দিষ্ট দূরত্বে পরিবেশবান্ধব নেট দিয়ে নিরাপদ গোসলের পরিবেশ নিশ্চিত করা উচিত বলে জানান তিনি।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা জানান, সৈকতের কলাতলী, লাবণী ও সুগন্ধা পয়েন্টে পর্যটকদের চাপ বেশি থাকে। তাই তারা কিছু এলাকাকে গোসল করার জন্য নির্দিষ্ট করেছেন। তবে সে নির্দেশনা না মেনে অনেকে গোসলে নামেন। এ কারণেই দুর্ঘটনা ঘটছে।

অসতর্কতা-অব্যবস্থাপনায় সৈকতে যাচ্ছে প্রাণ

জেলা প্রশাসক মামুনুর রশীদ বলেন, ‘বিশ্বের দীর্ঘতম এই সমুদ্র সৈকতে লাখ লাখ পর্যটক আসেন। তবে একটু অসর্তকতার কারণে অনেক পর্যটকের আনন্দ বিষাদে পরিণত হচ্ছে, যেটা আমাদের কারও কাম্য নয়।

‘এ ধরনের অনাকাঙ্খিত মৃত্যু আমরা রোধ করতে চাই। পর্যটকরা সাগরে সতর্কতার সঙ্গে বা নিয়ম মেনে গোসলে নামলে সহজেই এ ধরনের দুর্ঘটনা এড়ানো সম্ভব। তবে দুঃখজনক হলেও সত্য অনেকেই প্রশাসনের নির্দেশনা মানছেন না।’

সাগরে নামতে ১০ নির্দেশনা

পর্যটকদের এমন মৃত্যুর পর সাগরে নামার আগে ১০ করণীয় নিয়ে সচেতনতামূলক ক্যাম্পেইন চালু করেছে কক্সবাজার জেলা প্রশাসন।

নির্দেশনাগুলো হলো সাঁতার না জানলে সমুদ্রের পানিতে নামার সময় লাইফ জ্যাকেট ব্যবহার করা, লাল পতাকা চিহ্নিত পয়েন্টে কোনোভাবে না নামা, সৈকত এলাকায় সব সময় লাইফ গার্ডের নির্দেশনা মানা, বিকেল ৫টার পর সমুদ্রে না নামা ও সমুদ্রে নামার আগে জোয়ার-ভাটাসহ আবহাওয়ার বর্তমান অবস্থা জেনে নেয়া।

আরও বলা হয় লাইফ গার্ড নির্দেশিত স্থান ছাড়া অন্য কোনো পয়েন্ট থেকে সমুদ্রে না নামা, সমুদ্রে যেকোনো মুহূর্তে তীব্র স্রোত এবং গুপ্ত গর্ত সৃষ্টি হতে পারে, যেকোনো ভাসমান বস্তু নিয়ে পানিতে নামার আগে বাতাসের গতি সম্পর্কে জেনে নেয়া, শিশুদের সৈকতে সব সময় অভিভাবকের সঙ্গে রাখা এবং অসুস্থ বা দুর্বল শরীর নিয়ে সমুদ্রে হাঁটু পানির বেশি না নামা।

আরও পড়ুন:
কর্মীদের বেতন দেবেন এমপি, পাবনায় চালু পিসিআর মেশিন
বিনা মূল্যে করোনাভাইরাস টেস্টিং বুথ উদ্বোধন
বেসরকারি পর্যায়ে করোনা পরীক্ষার ফি কমল

শেয়ার করুন

ঘাট পারাপারে ৪০ গ্রামের ভরসা একটি খেয়া

ঘাট পারাপারে ৪০ গ্রামের ভরসা একটি খেয়া

জয়পুরহাটের ছোট যমুনা নদীর মাধবঘাটে একটি খেয়া নৌকা দিয়ে পারাপার হয় ৪০ গ্রামের মানুষ। ছবি: নিউজবাংলা

নামা বুধইল গ্রামের বিকাশ চন্দ্র জানান, তিনি ছোটবেলা থেকে শুনে আসছেন এখানে একটি সেতু হবে, হচ্ছে করে আজও হয়নি। তাদের বাপ-দাদারাও তাই শুনেছেন।

জয়পুরহাট সদরের ছোট যমুনা নদীর মাধবঘাট দিয়ে পারাপার হয় দুই পারের প্রায় ৪০ গ্রামের মানুষ। অথচ এ ঘাটে রয়েছে মাত্র একটি খেয়া নৌকা, যা আবার সব সময় চলে না।

সদর উপজেলার মোহাম্মাদাবাদ ইউনিয়নের বুধইল গ্রামের পাশ দিয়ে বয়ে গেছে নদীটি। এ নদীর মাধবঘাট থেকে জয়পুরহাট শহরের দূরত্ব ৩ থেকে ৪ কিলোমিটার। সড়ক পথে গেলে ঘুরতে হয় ১৪ থেকে ১৫ কিলোমিটার।

নদীর এক পাশে জয়পুরহাট সদরের মোহাম্মদাবাদ, ধলাহার ও দোগাছী ইউনিয়ন, অন্য পাশে পাঁচবিবি উপজেলার ধরঞ্জী ও আয়মারসুলপুর ইউনিয়ন।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, জনপ্রতিনিধিরা বারবার সেতু নির্মাণের আশ্বাস দিলেও তা বাস্তবায়ন হয়নি। আর কর্তৃপক্ষ বলছে, স্থানীয় লোকজন এত দিন সেখানে সেতু নির্মাণের জন্য কিছু বলেনি।

ঘাট পারাপারে ৪০ গ্রামের ভরসা একটি খেয়া

নামা বুধইল গ্রামের বিকাশ চন্দ্র জানান, তিনি ছোটবেলা থেকে শুনে আসছেন এখানে একটি সেতু হবে, হচ্ছে করে আজও হয়নি। তাদের বাপ-দাদারাও তা-ই শুনেছেন।

উঁচা বুধইল গ্রামের হাসানুজ্জামান আলম জানান, বর্ষাকালে নদীতে পানি বাড়লে এলাকার মানুষ পড়ে চরম ভোগান্তিতে। এ ছাড়া প্রতিদিন শত শত শিক্ষার্থী এই ছোট নৌকায় ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করে। তারাও চায় স্কুলে যাতায়াতের জন্য দ্রুত সেতুটি নির্মাণ হোক।

বুধইল গ্রামের কলেজ শিক্ষার্থী দৃষ্টি রানী জানায়, সে জয়পুরহাট শহরসহ মাধবঘাটের দুই পাশের বেশ কয়েকটি স্কুলে লেখাপড়া করছে। সেতু তো নেই, সব সময় নৌকাও পাওয়া যায় না।

মোহাম্মদাবাদ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান জানান, জরুরি সময় বিকল্প পথে অনেক রাস্তা ঘুরে শহরে যাওয়া বেশ কষ্টদায়ক রোগী ও প্রসূতিদের জন্য। এ ছাড়া একটি নৌকা থাকায় সময়মতো ব্যাবসায়িক ও কৃষিপণ্য বাজারে নেয়াও সম্ভব হয়ে ওঠে না।

ঘাট পারাপারে ৪০ গ্রামের ভরসা একটি খেয়া

আয়মা রসুলপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জাহেদুল আলম বেনু নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সেতুটি নির্মিত হলে এ অঞ্চলের মানুষ ১৫ কিলোমিটার রাস্তার বদলে মাত্র ৩ কিলোমিটার রাস্তা পার হয়ে শহরে যেতে পারবেন। রোগী, শিক্ষার্থীদের সুবিধার পাশাপাশি কৃষি ও ব্যবসার সুবিধাসহ সব মানুষই উপকৃত হবেন।’

সেতু নির্মাণের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ করছেন বলেও জানান তিনি।

জয়পুরহাট এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী আলাউদ্দিন হোসেন বলেন, ‘নদীটির দুই পাশে দুই উপজেলার অনেক বাসিন্দা। স্থানীয় এলজিইডি জনগণের সেতুর দাবির সঙ্গে একমত পোষণ করে। তাই স্থানীয় সংসদ সদস্যের সঙ্গে পরামর্শ করে সেতুটির প্রকল্প গ্রহণ করা হবে।’

আরও পড়ুন:
কর্মীদের বেতন দেবেন এমপি, পাবনায় চালু পিসিআর মেশিন
বিনা মূল্যে করোনাভাইরাস টেস্টিং বুথ উদ্বোধন
বেসরকারি পর্যায়ে করোনা পরীক্ষার ফি কমল

শেয়ার করুন

তুরাগে যাত্রীসহ প্রাইভেটকার, নিহত ১

তুরাগে যাত্রীসহ প্রাইভেটকার, নিহত ১

প্রতীকী ছবি।

উত্তরা ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার মনির হোসেন জানান, প্রাইভেটকারটি ঢাকা থেকে আশুলিয়ার দিকে যাচ্ছিল। গাড়িটি টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড সড়কের মরাগাং এলাকায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে তুরাগ নদে পড়ে যায়। এসময় গাড়ি থেকে দুইজন বেরিয়ে আসতে পারলেও, আটকা পড়েন একজন।

ঢাকার সাভারে একটি প্রাইভেটকার নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে তুরাগ নদে পড়ে একজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন দুইজন।

তাদের আশুলিয়ার নারী ও শিশু স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে।

টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড সড়কের মরাগাং এলাকায় শনিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত ব্যক্তির নাম ভোলা দাশ। আহত দুইজনের নাম জানা যায়নি।

উত্তরা ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার মনির হোসেন জানান, প্রাইভেটকারটি ঢাকা থেকে আশুলিয়ার দিকে যাচ্ছিল। গাড়িটি টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড সড়কের মরাগাং এলাকায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে তুরাগ নদে পড়ে যায়। এসময় গাড়ি থেকে দুইজন বেরিয়ে আসতে পারলেও, আটকা পড়েন একজন।

‘ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট গাড়ির ভেতর থেকে একজনকে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করে। আহত দুইজনকে হাসপাতালে পাঠায় পুলিশ।’

আশুলিয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সুদীপ কুমার গোপ বলেন, ‘পানিতে তলিয়ে যাওয়া প্রাইভেটকারের আহত দুই যাত্রীকে আশুলিয়ার নারী ও শিশু স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে। মরদেহ থানায় নেয়া হয়েছে। পানির নিচে থাকা প্রাইভেটকারটি উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।’

আরও পড়ুন:
কর্মীদের বেতন দেবেন এমপি, পাবনায় চালু পিসিআর মেশিন
বিনা মূল্যে করোনাভাইরাস টেস্টিং বুথ উদ্বোধন
বেসরকারি পর্যায়ে করোনা পরীক্ষার ফি কমল

শেয়ার করুন

গৃহবধূর ক্ষতবিক্ষত মরদেহের পাশে বসে কাঁদছিল শিশু

গৃহবধূর ক্ষতবিক্ষত মরদেহের পাশে বসে কাঁদছিল শিশু

ওবায়দুর রহমান বলেন, এলাকার একটি হাওরে কয়েকজন লোক মাছ ধরছিলেন। এ সময় তারা একটি শিশুর কান্না শুনতে পান। তখন আশপাশে খোঁজাখুঁজি করে দেখতে পান হাওরের পাশে নির্জন স্থানে ক্ষতবিক্ষত এক নারীর মরদেহ পড়ে আছে। পাশে বসে শিশুটি কাঁদছে।

ময়মনসিংহের নান্দাইলে ইয়াসমিন নামে এক গৃহবধূর ক্ষতবিক্ষত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ঘটনার পর থেকে পলাতক আছেন স্বামীসহ পরিবারের অন্য সদস্যরা।

শনিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলার গাঙাইল ইউনিয়নের শ্রীরামপুর গ্রামে মদনপুর-যুগের হাওর নামক স্থান থেকে ওই নারীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

বিষয়টি নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেছেন নান্দাইল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ওবায়দুর রহমান।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে তিনি জানান, শ্রীরামপুর গ্রামের সাদ্দাম হোসেনের সঙ্গে প্রায় ১০ বছর আগে নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলার পাইকুড়া ইউনিয়নের সোহাগপুর গ্রামের ইয়াসমিনের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে পারিবারিক কলহ ছিল। তাদের মধ্যে প্রায়ই ঝগড়া হতো। পারিবারিক কলহে গৃহবধূ ইয়াসমিন তার বাপের বাড়িতে চলে গেলেও দুই দিন আগে স্বামীর বাড়িতে ফিরে আসেন।

ওবায়দুর রহমান বলেন, ‘এলাকার একটি হাওরে কয়েকজন লোক মাছ ধরছিলেন। এ সময় তারা একটি শিশুর কান্না শুনতে পান। তখন আশপাশে খোঁজাখুঁজি করে দেখতে পান হাওরের পাশে নির্জন স্থানে ক্ষতবিক্ষত এক নারীর মরদেহ পড়ে আছে। পাশে বসে শিশুটি কাঁদছে।

‘জেলেদের চিৎকারে স্থানীয়রা এসে থানায় খবর দেয়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মরদেহ উদ্ধার করে।’

পুলিশের ওই এসআই বলেন, ‘তিন বছর বয়সী ফাতেমা আক্তার নামের শিশুটি নিহত গৃহবধূর মেয়ে। গৃহবধূর বুকে, পিটে ও হাতে ছুরির আঘাত রয়েছে। তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হতে পারে।’

মরদেহ থানায় রাখা হয়েছে। রোববার সকালে মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হবে। ঘটনার পর থেকে ওই নারীর স্বামী ও তার পরিবারের সদস্যরা লাপাত্তা বলে জানায় পুলিশ।

আরও পড়ুন:
কর্মীদের বেতন দেবেন এমপি, পাবনায় চালু পিসিআর মেশিন
বিনা মূল্যে করোনাভাইরাস টেস্টিং বুথ উদ্বোধন
বেসরকারি পর্যায়ে করোনা পরীক্ষার ফি কমল

শেয়ার করুন

স্কুলের মাঠ দখল করে কলাবাগান

স্কুলের মাঠ দখল করে কলাবাগান

স্কুলের মাঠ দখল করে সেখানে রোপন করা হয় কলাগাছ। ছবি: নিউজবাংলা

করোনায় বন্ধ থাকার সুযোগে স্কুলের মাঠে কলাগাছের চারা রোপন করেন ওই স্কুলের জমিদাতার নাতিরা। তাদের দাবি, জমির মালিকানা তাদের দাদি পিয়ারজান বিবির ছিল না। তাই তিনি জমি লিখে দিতে পারেন না। এ নিয়ে আদালতে মামলা চলছে স্কুল কর্তৃপক্ষ ও জমিদাতার স্বজনদের মধ্যে।

ময়মনসিংহের নান্দাইলে একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠ দখল করে কলাগাছের বাগান করেছেন জমিদাতার পরিবারের সদস্যরা। এ অবস্থায় বিদ্যালয়ে পাঠদান চললেও, মাঠে খেলাধুলা করতে পারছে না শিক্ষার্থীরা। এ নিয়ে ক্ষোভ জানিয়েছেন শিক্ষক, শিক্ষার্থী, অবিভাবকসহ স্থানীয়রা।

উপজেলার কুতুবপুর গ্রামের কুতুবপুর পিয়ারজান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটেছে। বিদ্যালয়ের মাঠজুড়ে কলাগাছ লাগানোর ঘটনায় কর্তৃপক্ষ প্রতিবাদ জানালেও, লাভ হয়নি। সালিশে বসেও সমাধান না হওয়ায় বিষয়টি গড়িয়েছে আদালত পর্যন্ত।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ১৯৭৪ সালে বিদ্যালয়ের নামে জমি লিখে দেন পিয়ারজান বিবি নামের এক নারী। তিনি বর্তমানে বেঁচে নেই।

৪৭ বছর পর জমিদাতার নাতিরা দাবি করছেন, জমির মালিকানা পিয়ারজান বিবির ছিল না। তাই তাদের দাদি জমি লিখে দিতে পারেন না। এ নিয়ে আদালতে মামলা চলছে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ও জমিদাতার স্বজনদের মধ্যে।

স্থানীয়রা জানান, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে প্রায় দেড় বছর সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল। এ সময়ে শিক্ষকরা বিদ্যালয়ে কম আসতেন। এই সুযোগে বিদ্যালয় মাঠে কলাগাছের চারা রোপন করে জমিদাতার স্বজনরা।

খবর পেয়ে শিক্ষকরা বিদ্যালয়ে গেলে তাদের দেয়া হয় নানা রকম হুমকি। পরে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বাদী হয়ে নান্দাইল মডেল থানায় মামলা করেন।

প্রধান শিক্ষক রোকেয়া খাতুন বলেন, ‘গত ২৯ মে স্থানীয় পর্যায়ে সালিশ হয়। সেখানে সিদ্ধান্ত হয় জমিদাতার স্বজনরা বিদ্যালয়কে ৩১ শতক জমি সাফকবলা দলিল করে দেবেন। বিনিময়ে তাদের তিন লাখ টাকা দেয়া হয়। কিন্তু এখন তারা জমি লিখে দেয়ার কোনো উদ্যোগ নিচ্ছে না।’

তিনি আরও বলেন, ‘বর্তমানে পাঠদানের জন্য একমাত্র টিনশেড ঘরটি আমাদের নিয়ন্ত্রণে থাকলেও, মাঠ থেকে কলাগাছ সরানো হয়নি। এ অবস্থায় গত ১২ সেপ্টেম্বর প্রতিষ্ঠানটি খোলা হয়।’

জমিদাতা পিয়ারজান বিবির নাতি আবুল ইসলাম জানান, তারা তিন লাখ টাকা পেয়েছেন। তবে জমি লিখে দিতে হলে আগের দলিল বাতিল করতে হবে।

পিয়ারজান বিবির আরেক নাতি সুরুজ আলী বলেন, ‘আগের দলিল বাতিল করা না হলে নতুন করে জমি লিখে দেব না। গাছগুলো সরানোর বিষয়ে তিনি কোনো কথা বলতে রাজি হননি।

এ বিষয়ে নান্দাইল উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলী সিদ্দিক বলেন, ‘একটি মীমাংসিত বিষয়কে জটিল করে তুলেছেন জমিদাতার স্বজনরা। ঘটনাটি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরও পড়ুন:
কর্মীদের বেতন দেবেন এমপি, পাবনায় চালু পিসিআর মেশিন
বিনা মূল্যে করোনাভাইরাস টেস্টিং বুথ উদ্বোধন
বেসরকারি পর্যায়ে করোনা পরীক্ষার ফি কমল

শেয়ার করুন

বান্দরবানে পর্যটকবাহী গাড়িতে গুলি, আহত ২

বান্দরবানে পর্যটকবাহী গাড়িতে গুলি, আহত ২

বান্দরবানে সন্ত্রাসী হামলায় আহত ২ জন হাসপাতালে ভর্তি আছেন।

স্থানীয় সাংবাদিক আকাশ মারমা জানান, বান্দরবানের রুমা থেকে রাজস্থলী পোয়াইতি মুখ পাড়ার ১৯ জন পর্যটক ফেরার পথে রাঙামাটি-বান্দরবান সড়কের গলাচিপা এলাকায় হামলার শিকার হন। এ সময় তাদের গাড়ি লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি ছোঁড়ে একদল সন্ত্রাসী। এতে দুই জন আহত হন।

বান্দরবানে একটি গাড়িতে সন্ত্রাসীদের গুলিতে ২ আদিবাসী নারী আহত হয়েছেন। জেলার গলাচিপা এলাকায় শনিবার বিকেল ৪টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

আহত দুই নারীর একজন য়‌ইসিং‌নু মারমা, অন্যজন মেহাইসিং মারমা। তারা কাপ্তাই চন্দ্রঘোনা খ্রিস্টান হাসপাতলে ভর্তি আছেন।

স্থানীয় সাংবাদিক আকাশ মারমা জানান, বান্দরবানের রুমা থেকে রাজস্থলী পোয়াইতি মুখ পাড়ার ১৯ জন পর্যটক ফেরার পথে রাঙামাটি-বান্দরবান সড়কের গলাচিপা এলাকায় হামলার শিকার হন। এ সময় তাদের গাড়ি লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি ছোঁড়ে একদল সন্ত্রাসী। এতে দুই জন আহত হন।

এ ঘটনায় জনসংহতি সমিতিকে (জেএসএস) দায়ী করছে স্থানীয়রা। জেএসএস অবশ্য কোনো প্রতিক্রিয়া জানায়নি।

বান্দরবান সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শহীদুল ইসলাম বলেন, ‘পর্যটকবাহী একটি চাঁদের গাড়িতে হামলার ঘটনার কথা শুনেছি। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।’

আরও পড়ুন:
কর্মীদের বেতন দেবেন এমপি, পাবনায় চালু পিসিআর মেশিন
বিনা মূল্যে করোনাভাইরাস টেস্টিং বুথ উদ্বোধন
বেসরকারি পর্যায়ে করোনা পরীক্ষার ফি কমল

শেয়ার করুন

সৈকতে ২ শিক্ষার্থীর লাশ: পরিবারে মাতম, দাবি পরিকল্পিত হত্যা

সৈকতে ২ শিক্ষার্থীর লাশ: পরিবারে মাতম, দাবি পরিকল্পিত হত্যা

কক্সবাজার সৈকতে উদ্ধার দুই মরদেহ রাফিদ ঐশিক (বাঁয়ে) এবং মেহের ফারাবি অভ্র।

কাসেদুজ্জামান সেলিম বলেন, ‘তারা কখন, কীভাবে সৈকতে গোসল করতে নেমেছিল; ছয় বন্ধুর মধ্যে দুজন নিখোঁজ হওয়ার তথ্য প্রশাসন ও পরিবারকে বাকি চার বন্ধু কেন জানায়নি? আমার ধারণা, আমার ছেলেকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে।’

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত থেকে শুক্রবার যে দুই শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে তাদের বাড়িতে শোকের মাতম চলছে। দুজনকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে বলে দাবি করেছে পরিবার।

মারা যাওয়া দুই শিক্ষার্থীর বাড়িই যশোরে। তারা হলেন, যশোর উপশহরের এ ব্লকের কবি কাসেদুজ্জামান সেলিমের ছেলে রাফিদ ঐশিক ও শহরের লাল দিঘির এলাকার কলেজ শিক্ষক শাহরিয়ার মেহের ইবনে মিজানের ছেলে মেহের ফারাবি অভ্র।

২৩ বছর বয়সী দুই তরুণ রাফিদ ঐশিক যশোর ক্যান্টনমেন্ট কলেজের অনার্স প্রথম বর্ষের ও অভ্র ঢাকার একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী।

সন্তানের আকস্মিক মৃত্যুতে হতবিহ্বল হয়ে পড়েছেন বাবা-মা ও আত্মীয়-স্বজনরা।

ওই দুই শিক্ষার্থীর বাড়ি গিয়ে দেখা গেছে, পরিবারের সবাই শোকে স্তব্ধ। সন্তানের আকস্মিক মৃত্যু কোনোভাবেই মেনে নিতে পারছেন না বাবা-মা। তাদের সমবেদনা জানাতে বাড়িতে ভিড় করছেন আত্মীয়-স্বজনসহ প্রতিবেশীরা।

রাফিদ ঐশিকের বাবা কাসেদুজ্জামান সেলিম বলেন, ‘গত ১৪ সেপ্টেম্বর ছয় বন্ধু একসঙ্গে কক্সবাজার বেড়াতে যায়। শুক্রবার দুপুর থেকে তাদের সঙ্গে আর কোনো যোগাযোগ করা যাচ্ছিল না। শনিবার দুপুরের দিকে জানতে পারি শুক্রবার দুপুরে ও বিকেলে সৈকতের সিগ্যাল পয়েন্টে দুই যুবকের মরদেহ ভেসে এসেছে। তাদের মধ্যে একজন আমার ছেলে রাফিদ ঐশিক ও আরেকজন তার বন্ধু অভ্র।’

তিনি বলেন, ‘তারা কখন, কীভাবে সৈকতে গোসল করতে নেমেছিল; ছয় বন্ধুর মধ্যে দুজন নিখোঁজ হওয়ার তথ্য প্রশাসন ও পরিবারকে বাকি চার বন্ধু কেন জানায়নি? আমার ধারণা, আমার ছেলেকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে।’

মেহের ফারাবি অভ্রর ছোট ভাই আবির হোসেন বলেন, ‘বড় ভাইয়ের সঙ্গে শেষ শুক্রবার সকালে আম্মুর কথা হয়েছে। তারপর থেকে ভাইয়ার সঙ্গে কোনো কথা হয়নি। মরদেহ দ্রুত বাড়িতে আনতে আমরা কক্সবাজার প্রশাসনের সঙ্গে কথা বলছি।’

কক্সবাজার সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মুনীরুল গিয়াস জানান, দুইজনের মরদেহ মিলেছে। তারা কীভাবে সমুদ্রে গেছেন বা আগে কী ঘটেছিল তা তদন্ত করে জানা যাবে।

তাদের চার বন্ধুকে পুলিশ হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

আরও পড়ুন:
কর্মীদের বেতন দেবেন এমপি, পাবনায় চালু পিসিআর মেশিন
বিনা মূল্যে করোনাভাইরাস টেস্টিং বুথ উদ্বোধন
বেসরকারি পর্যায়ে করোনা পরীক্ষার ফি কমল

শেয়ার করুন