করোনা মোকাবিলায় হাজারের বেশি চিকিৎসকের বদলি

করোনা মোকাবিলায় হাজারের বেশি চিকিৎসকের বদলি

চিকিৎসা সেবায় গতি আনতে হাজারেরও বেশি চিকিৎসককে একসঙ্গে বদলি করেছে সরকার। ফাইল ছবি

প্রজ্ঞাপনে আরও বলা হয়েছে, বুধবারের মধ্যে নতুন কর্মস্থলে যোগ না দিলে, বৃহস্পতিবার তাদের ‘তাৎক্ষণিক অবমুক্ত’ ঘোষণা করা হবে। আর বেতন ভাতাদি আগের কর্মস্থল থেকে উত্তোলনেরও নির্দেশ দেয়া হয়েছে প্রজ্ঞাপনে।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ভয়াবহ আকার ধারণ করায় চিকিৎসা সেবায় গতি আনতে হাজারেরও বেশি চিকিৎসককে একসঙ্গে বদলি করেছে সরকার।

রোববার ও সোমবার মোট ৪৬টি প্রজ্ঞাপনে এক হাজার ২৫১ চিকিৎসকের এই বদলির সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ।

উপসচিব সারমিন সুলতানা ও জাকিয়া পারভিনের সই করা এসব আদেশে বলা হয়েছে, করোনাভাইরাস মহামারি মোকাবিলা এবং জনসেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত নতুন কর্মস্থলে করোনা চিকিৎসায় কাজ করবেন বদলি করা চিকিৎসকরা।

বদলি করা চিকিৎসকদের তালিকায় দেখা যায় তাদের অধিকাংশ দেশের বিভিন্ন মেডিক্যাল কলেজে শিক্ষকতা করছিলেন। তাদেরকে নতুন কর্মস্থলে বুধবারের মধ্যে যোগ দিতে বলা হয়েছে।

দেখা গেছে, বর্তমানে কর্মরত মেডিক্যাল কলেজ থেকে ওই মেডিক্যাল কলেজের হাসপাতালে, কিংবা ওই জেলার জেনারেল হাসপাতাল বা সদর হাসপাতাল, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কিংবা পাশের কোনো জেলায় তাদের পাঠানো হয়েছে।

বদলি হওয়া চিকিৎসকদের লকডাউনের মধ্যে নতুন কর্মস্থলে যোগ দিতে সময় দেওয়া হয়েছে দুই দিন। অনেক চিকিৎসককে মেডিকেল কলেজে লাগোয়া হাসপাতালে বদলি করা হলেও এক জেলা থেকে আরেক জেলায়, উপজেলায় বদলি করা হয়েছে এমন চিকিৎসকের সংখ্যাও কম নয়।

প্রজ্ঞাপনে আরও বলা হয়েছে, বুধবারের মধ্যে নতুন কর্মস্থলে যোগ না দিলে, বৃহস্পতিবার তাদের ‘তাৎক্ষণিক অবমুক্ত’ ঘোষণা করা হবে। আর বেতন ভাতাদি আগের কর্মস্থল থেকে উত্তোলনেরও নির্দেশ দেয়া হয়েছে প্রজ্ঞাপনে।

করোনা মোকাবিলায় হাজারের বেশি চিকিৎসকের বদলি
বদলি করা চিকিৎসকদের নতুন কর্মস্থলে বুধবারের মধ্যে যোগ দিতে বলা হয়েছে। ফাইল ছবি

যেখানে বদলি করা হয়েছে:

রংপুর মেডিক্যাল কলেজ থেকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ৬৫ জন।

দিনাজপুরের এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ থেকে দিনাজপুরের এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসাপাতালে ২৯ জন এবং দিনাজপুর জেলা হাসপাতালে ১৭ জন।

যশোর মেডিক্যাল কলেজ থেকে চুয়াডাঙ্গা জেলা হাসপাতালে ১৪ জন।

বরিশালের শেরেবাংলা মেডিক্যাল কলেজ থেকে ঝালকাঠি জেলা হাসপাতালে ২০ জন।

বরিশালের শেরেবাংলা মেডিক্যাল কলেজ থেকে পিরোজপুর জেলা হাসপাতালে ২০ জন।

বরিশালের শেরেবাংলা মেডিক্যাল কলেজ থেকে বরিশালের শেরেবাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ৩২জন এবং বরিশাল জেলা হাসপাতালে ১৯ জন।

পটুয়াখালী মেডিক্যাল কলেজ থেকে বরগুনা জেলা হাসপাতালে ১২ জন।

পটুয়াখালী মেডিক্যাল কলেজ থেকে ভোলা জেলা হাসপাতালে ১২ জন।

যশোর মেডিক্যাল কলজে থেকে নড়াইল জেলা হাসপাতালে ১২ জন।

নোয়াখালী আব্দুল মালেক উকিল মেডিক্যাল কলেজ থেকে লক্ষ্মীপুর জেলা হাসপাতালে ১৯ জন।

চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল থেকে ফেনী জেলা হাসপাতাল ও দাগন ভূঁইয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২৪ জন।

রাঙামাটি মেডিক্যাল কলেজ থেকে রাঙামাটি জেনারেল হাসপাতালে ১৮ জন।

নোয়াখালী আব্দুল মালেক উকিল মেডিক্যাল কলেজ থেকে নোয়াখালী জেলা হাসপাতালে ২৮ জন।

চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ থেকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, চট্টগ্রামে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অফ ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশন ডিসিজেজ এবং ফটিকছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১১৪ জন।

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ থেকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসাপাতালে ১০২ জন।

সিরাজগঞ্জের শহীদ এম মনসুর আলী মেডিক্যাল কলেজ এবং সিরাজগঞ্জ মেডিক্যাল অ্যাসিসটেন্স ট্রেনিং স্কুল থেকে দুইজন মিলিয়ে সিরাজগঞ্জ ২৫০ বেড বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে ২০ জন।

বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ ও রংপুর মেডিক্যাল কলেজ থেকে জয়পুরহাট জেলা হাসপাতাল ও জয়পুরহাটের কালাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২১ জন।

বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ থেকে বগুড়া ২৫০ বেড মোহাম্মদ আলী জেলা হাসপাতালে ৪৩ জন।

পাবনা মেডিক্যাল কলেজ ও সিরাজগঞ্জের শহীদ এম মনসুর আলী মেডিক্যাল কলেজ থেকে নাটোর জেলা হাসপাতালে ১৫ জন।

ঝিনাইদহ ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজি এবং কুষ্টিয়া মেডিক্যাল কলেজ থেকে ঝিনাইদহ জেলা হাসপাতালে ১৫ জন।

কুষ্টিয়া মেডিক্যাল কলেজ থেকে মেহেরপুর জেলা হাসপাতালে ১৫ জন।

খুলনা মেডিক্যাল কলেজ থেকে খুলনা জেলা হাসপাতাল ও খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসাপাতালে ২৮ জন।

নওগাঁ মেডিক্যাল কলেজ থেকে নওগাঁ জেলা হাসপাতালে ১৪ জন।

রাজশাহী ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজি এবং রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ থেকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ ২৫০ বেড আধুনিক সদর হাসপাতালে ২২ জন।

পাবনা মেডিক্যাল কলেজ থেকে পাবনা ২৫০ বেড জেনারেল হাসপাতালে ১৮ জন।

দিনাজপুরের এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ থেকে ঠাকুরগাঁও জেলা হাসপাতালে ১৮ জন।

রংপুর মেডিক্যাল কলেজ থেকে গাইবান্ধা জেলা হাসপাতালে ১৭ জন।

রংপুর মেডিক্যাল কলেজ থেকে কুড়িগ্রাম জেলা হাসপাতালে ২৪ জন।

নীলফামারী মেডিক্যাল কলেজ থেকে নীলফামারী জেলা হাসপাতালে ১১ জন।

রংপুর মেডিক্যাল কলেজ থেকে লালমনিরহাট জেলা হাসপাতালে ২০ জন।

দিনাজপুরের এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ থেকে পঞ্চগড় জেলা হাসপাতালে ১৮ জন।

যশোর মেডিক্যাল কলেজ ও সাতক্ষীরা মেডিক্যাল কলেজ থেকে যশোর জেলা হাসপাতালে ২৪ জন।

খুলনা মেডিক্যাল কলেজ থেকে বাগেরহাট জেলা হাসপাতালে ১৪ জন।

পটুয়াখালী মেডিক্যাল কলেজ থেকে পটুয়াখালী জেলা হাসপাতালে ১৩ জন।

রাঙামাটি মেডিক্যাল কলেজ থেকে বান্দরবান জেলা হাসপাতালে ১৬ জন।

ফরিদপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিক্যাল কলেজ থেকে শরিয়তপুর জেলা হাসপাতালে ২৭ জন।

ফরিদপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিক্যাল কলেজ থেকে ফরিদপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিক্যাল কলেজ ও ফরিদপুর জেলা হাসপাতালে ৩৬ জন।

চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ থেকে খাগড়াছড়ি জেলা হাসপাতালে ১৮ জন।

কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা হাসপাতালে ২২ জন।

কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ থেকে নারায়ণগঞ্জ ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে ২১ জন।

নোয়াখালীর আব্দুল মালেক উকিল মেডিক্যাল কলেজ ও চাঁদপুর মেডিক্যাল কলেজ থেকে চাঁদপুর জেলা হাসপাতালে ২২ জন।

কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ থেকে কুমিল্লা জেনারেল হাসপাতাল ও কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ৬১ জন।

কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ থেকে কক্সবাজার জেলা হাসপাতাল ও কক্সবাজারের রামু উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৪৮ জন।

যশোর মেডিক্যাল কলেজ থেকে মাগুরা জেলা হাসপাতালে ১৪ জন।

সাতক্ষীরা মেডিক্যাল কলেজ থেকে সাতক্ষীরা জেলা হাসপাতালে ১৬ জন।

কুষ্টিয়া মেডিক্যাল কলেজ এবং কুষ্টিয়া মেডিক্যাল অ্যাসিসটেন্স ট্রেনিং স্কুল থেকে কুষ্টিয়া জেলা হাসপাতালে ২৩ জন।

আরও পড়ুন:
এবার নারী চিকিৎসককে চেকপোস্টে আটকে রাখার অভিযোগ

শেয়ার করুন

মন্তব্য