ঢাকায় করোনার ৬৮ শতাংশই ভারতীয় ধরন

ঢাকায় করোনার ৬৮ শতাংশই ভারতীয় ধরন

আইসিডিডিআরবির সাম্প্রতিক গবেষণায় ২২ শতাংশ দক্ষিণ আফ্রিকান ভ্যারিয়েন্ট পাওয়া গেছে। এ ছাড়া এরই মধ্যে নাইজেরিয়া ভ্যারিয়েন্টও পাওয়া গেছে।

ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট বা ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট সীমান্তের পর এখন ঢাকায়। ঢাকার করোনা আক্রান্তদের ৬৮ শতাংশ নমুনায় ভারতীয় ধরন পাওয়া গেছে। আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র বাংলাদেশের (আইসিডিডিআরবি) একটি গবেষণায় এ তথ্য উঠে এসেছে।

দেশের সীমান্ত এলাকায় করোনার ঢেউ রাজধানীর দিকে ধেয়ে আসছে বলে শঙ্কা প্রকাশ করছেন বিশেষজ্ঞরা। বুধবার সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন ‘(করোনা ঢেউ) ঢাকার কাছাকাছি চলে এসেছে। এ জন্য আমাদের সকলকে সজাগ হতে হবে।’

এমন পরিস্থিতিতে ঢাকায় ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টের উচ্চ হারের অস্তিত্ব জানান দিল আইসিডিডিআরবির গবেষণা।

আইসিডিডিআরবির জ্যেষ্ঠ বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মোস্তাফিজুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, সম্প্রতি একটি গবেষণায় ৬০টি নমুনার জিনোম সিকোয়েন্সিং করে ৬৮ শতাংশ নমুনায় ভারতীয় ধরন পাওয়া গেছে। গত মে মাসের প্রথম সপ্তাহ ও জুন মাসের প্রথম সপ্তাহে এই দুই মাসে ৬০টি নমুনার জিনোম সিকোয়েন্সিং করে এই ফলাফল পাওয়া গেছে। এ ছাড়া ২২ শতাংশ দক্ষিণ আফ্রিকান ভ্যারিয়েন্ট পাওয়া গেছে। এ ছাড়া এরই মধ্যে নাইজেরিয়া ভ্যারিয়েন্টও পাওয়া গেছে।

তিনি আরও বলেন, তারা বিভিন্ন সময় করোনার নমুনা সংগ্রহ করে জিনোম সিকোয়েন্সিং করে থাকেন। সবশেষ জিনোম সিকোয়েন্সিংয়ে করোনা ভাইরাসের ভারতীয় ধরন পাওয়া গেছে।

সংক্রমণের হার হ্রাস করার লক্ষ্যে এবং দেশে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টসহ করোনার অন্যান্য ধরনের বিস্তার রোধে জনসাধারণকে সঠিকভাবে মাস্ক ব্যবহারের পাশাপাশি অন্যান্য স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পরামর্শ দিয়েছে আইইডিসিআর।

এর আগে ৪ জুন রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) এক গবেষণায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ৫০ রোগীর জিনোম সিকোয়েন্সিং করে ৪০ জনের (৮০ শতাংশ) ক্ষেত্রে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট ধরা পড়ে।

এই নমুনাগুলো ছিল সারা দেশ থেকে সংগ্রহ করা।

সেই গবেষণায় ৮টি (১৬ শতাংশ) নমুনায় সাউথ আফ্রিকান ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হয়। এর মধ্যে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা থেকে সংগৃহীত ১৬টি নমুনার ১৫টিতে, গোপালগঞ্জে সাতটি নমুনার সবগুলোতে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হয়। এ ছাড়া, খুলনা শহর থেকে সংগৃহীত তিনটি নমুনার সবগুলোয়, ঢাকা শহরের চারটি নমুনার দুটিতে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টের উপস্থিতি পাওয়া গিয়েছিল।

দেশে করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টের ‘কমিউনিটি সংক্রমণ’ ঘটছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, ভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তি কার দ্বারা কীভাবে সংক্রমিত হলেন, সেটি যখন আর বোঝা যায় না, তখন সেটিকে সামাজিক সংক্রমণ বলে।

এ বিষয়ে আইইডিসিআরের পরিচালক ডা. তাহমিনা শিরীন নিউজবাংলাকে জানান, করোনার সবগুলো নমুনার জিনোম সিকোয়েন্স করা সম্ভব হয় না। সংক্রমণের যে ধরন, তা দেখে মনে হচ্ছে এটার সামাজিক সংক্রমণ ঘটেছে। এই ভ্যারিয়েন্টের মধ্য দিয়ে হঠাৎ করে করোনার তৃতীয় ঢেউ ফিরে আসার আশঙ্কা করছেন এই কর্মকর্তা।

বাংলাদেশে ভ্যারিয়েন্টটির প্রবেশ ঠেকাতে ২৬ এপ্রিল থেকে ভারতের সঙ্গে যাত্রী চলাচলে সীমান্ত বন্ধ করে দেয় সরকার। দফায় দফায় বাড়ানো হয়েছে এর মেয়াদ। ১২ মে ভারতে করোনাভাইরাসের উচ্চ সংক্রমণের জন্য দায়ী ভ্যারিয়েন্টটি ৪৪ দেশে পাওয়ার কথা জানায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

ভারত ভ্যারিয়েন্টের আগে করোনার যুক্তরাজ্য, ব্রাজিল ও সাউথ আফ্রিকা ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হয়।

করোনার ভ্যারিয়েন্টগুলোকে আদি রূপের চেয়ে বেশি ভয়াবহ মনে করা হয়। কারণ ভ্যারিয়েন্টগুলো হয় বেশি সংক্রামক, প্রাণঘাতী অথবা টিকার বিরুদ্ধে কম কার্যকর।

ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট নিয়ে বিজ্ঞানীরা বলছেন, কিছু মিউটেশনের কারণে ভাইরাসটির স্পাইক প্রোটিনে পরিবর্তন ঘটে। মানবদেহের কোষের সঙ্গে নিজেকে আটকে ফেলতে এবং ভেতরে ঢুকতে ভাইরাসটি এই স্পাইক প্রোটিন ব্যবহার করে। ভাইরাসের মধ্যে যখন এ ধরনের মিউটেশন ঘটে, তখন এর সংক্রমণ ঘটানোর ক্ষমতা সম্ভবত বেড়ে যায়। এ ধরনের ভাইরাসে মানুষ বেশি অসুস্থ হয়ে পড়ে এবং এটি প্রতিরোধে টিকা আর কাজ করে না।

ভারত ভ্যারিয়েন্ট দ্রুত রোগীকে কাবু করে ফেলে। কোনো ধরনের উপসর্গ প্রকাশের ১০ ঘণ্টার মধ্যেই অক্সিজেনের চাহিদা তৈরি হয়। অনেক ক্ষেত্রে রোগীকে বাঁচাতে দিতে হয় আইসিইউ সাপোর্ট।

গত বছর সেপ্টেম্বরে করোনাভাইরাস মহামারির বড় ধাক্কা লাগে ভারতে। নভেম্বর থেকে ভাইরাসের সংক্রমণ ক্রমেই নিম্নমুখী হয় এবং চলতি বছরের মার্চ মাসের মাঝামাঝি পর্যন্ত তা বজায় থাকে। এরপরই আবার ঊর্ধ্বমুখী হতে শুরু করে সংক্রমণ।

আরও পড়ুন:
ভারতে ৭৭ দিন পর সর্বনিম্ন শনাক্ত
২৯০ শতাংশ মৃত্যু কম দেখিয়েছে মধ্যপ্রদেশ
ভারতে ২৮ হাতি ও ৯ সিংহের করোনা
ভারতে করোনায় মৃত্যু সাড়ে তিন লাখ ছাড়াল
দুই মাসের মধ্যে ভারতে সর্বনিম্ন শনাক্ত

শেয়ার করুন

মন্তব্য