জনসনের টিকা ব্যবহারের অনুমোদন

জনসনের টিকা ব্যবহারের অনুমোদন

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, জরুরি প্রয়োজনে বেলজিয়ামের জ্যানসেন-সিলাগ ইন্টারন্যাশনাল এনভি উৎপাদিত করোনার টিকা ব্যবহারের অনুমোদনের জন্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে আবেদন করা হয়। এরপর ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর এই টিকার ড্রোসিয়ার (ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল পার্ট, সিএমসি পার্ট ও রেগুলেটরি স্ট্যাটাস) মূল্যায়ন করে করোনা চিকিৎসার জন্য জনস্বাস্থ্যের সুরক্ষায় গঠিত কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে এটি ব্যবহারের অনুমোদন দিয়েছে।

জরুরি প্রয়োজনে জনসন অ্যান্ড জনসনের টিকা ব্যবহারের অনুমোদন দিয়েছে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর।

অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মাহবুবুর রহমান স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে মঙ্গলবার বিষয়টি জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, জরুরি প্রয়োজনে বেলজিয়ামের জ্যানসেন-সিলাগ ইন্টারন্যাশনাল এনভি উৎপাদিত করোনার টিকা ব্যবহারের অনুমোদনের জন্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে আবেদন করা হয়।

এরপর ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর এই টিকার ড্রোসিয়ার (ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল পার্ট, সিএমসি পার্ট ও রেগুলেটরি স্ট্যাটাস) মূল্যায়ন করে করোনা চিকিৎসার জন্য জনস্বাস্থ্যের সুরক্ষায় গঠিত কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে এটি ব্যবহারের অনুমোদন দিয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বাংলাদেশে এই টিকার স্থানীয় এজেন্ট।

গত ১২ মার্চ এটি করোনা চিকিৎসায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার জরুরি অনুমোদন পায়। এই টিকা ১৮ বছর ও তার বেশি বয়সীদের প্রয়োগ করা যাবে। সেই অনুযায়ীই টিকার প্রয়োগ করা হবে।

টিকাটি এক ডোজের ও সংরক্ষণের তাপমাত্রা ২-৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

এই টিকাসহ দেশে পাঁচটি টিকা ব্যবহারের অনুমোদন দেয়া হলো। এর আগে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার কোভিশিল্ড, চীনের সিনোফার্মের বিবিআইবিপি-করভি, সিনোভ্যাকের করোনাভ্যাক ও রাশিয়ার স্পুৎনিক-ভির অনুমোদন দেয়া হয়।

ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রে সহনীয় ও গুরুতর রোগ প্রতিরোধে তাদের তৈরি টিকা ৭২ শতাংশ কার্যকর। সে তুলনায় এটি দক্ষিণ আফ্রিকায় ৫৭ শতাংশ কার্যকর।

আরও পড়ুন:
দেশে রাশিয়ার টিকা উৎপাদন মার্চে
বিশ্ববিদ্যালয়শিক্ষার্থীদের টিকা দেয়ার নির্দেশনা আসেনি
করোনার সব ধরন ‘রুখে দেবে’ কোভভ্যাক্স
গণটিকা আবার শুরু শনিবার
সিনোফার্ম, ফাইজারের টিকা শুরু আগামী সপ্তাহে

শেয়ার করুন

মন্তব্য