আবার পরীক্ষা হবে সেই ৭ জনের নমুনা

আবার পরীক্ষা হবে সেই ৭ জনের নমুনা

জেলা প্রশাসক বলেন, ‘এখন তাদের কী অবস্থা, তারা করোনায় আক্রান্ত কি না, তা জানতে নমুনা সংগ্রহ করা হবে। তাদের যে নমুনা পাঠানো হয়েছিল, সেটা সংগ্রহ করা হয়েছিল ১৯ তারিখ। ১০ দিন পার হয়ে গেছে। তারা কেউ কেউ তখন হাসপাতালে ছিলেন, কেউ সুস্থ হয়ে বাড়িও চলে গিয়েছিলেন।’

চাঁপাইনবাবগঞ্জে করোনাভাইরাসের ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হওয়া সাতজনের নমুনা আবারও পরীক্ষার জন্য পাঠানো হবে।

জেলা সিভিল সার্জন মঞ্জুরুল হাফিজ শনিবার নিউজবাংলাকে বিষয়টি জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘শনিবার দুপুরে আমরা অফিশিয়ালি সাতজনের শরীরে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট শনাক্তের খবর জেনেছি। ওই সাতজনের নাম-ঠিকানা ধরে তাদের পরিবারের সদস্যদের হোম কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে। আজই সাতজনের নমুনা সংগ্রহ করে আবার রাজশাহী মেডিক্যালে পাঠানো হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এখন তাদের কী অবস্থা, তারা করোনায় আক্রান্ত কি না, তা জানতে নমুনা সংগ্রহ করা হবে। তাদের যে নমুনা পাঠানো হয়েছিল, সেটা সংগ্রহ করা হয়েছিল ১৯ তারিখ। ১০ দিন পার হয়ে গেছে। তারা কেউ কেউ তখন হাসপাতালে ছিলেন, কেউ সুস্থ হয়ে বাড়িও চলে গিয়েছিলেন।’

সরকারের রোগতত্ত্ব, নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান আইইডিসিআর শুক্রবার রাতে জানায়, চাঁপাইনবাবগঞ্জে সাতজনের দেহে করোনাভাইরাসের ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হয়েছে। তাদের মধ্যে পাঁচজনের বাড়ি সদর উপজেলায়, বাকি দুজনের শিবগঞ্জ উপজেলায়।

সিভিল সার্জনের কার্যালয় জানিয়েছে, ওই সাতজনের পরিবারের সদস্য, নিকটজন বা তাদের সংস্পর্শে যারা এসেছেন, তাদেরও নমুনা সংগ্রহ করে করোনা পরীক্ষা করা হবে। আগামী দু-এক দিনের মধ্যেই যতটা সম্ভব কন্ট্যাক্ট ট্রেসিং করে নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করা হবে।

করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় চাঁপাইনবাবগঞ্জে সাত দিনের চলমান লকডাউনের পঞ্চম দিনে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হওয়ায় এলাকাবাসীর মাঝে আতঙ্ক কাজ করছে।

এ ছাড়া প্রয়োজন ছাড়া বাড়ির বাইরে গেলেই পুলিশের জেরার মুখে পড়তে হচ্ছে। স্বাস্থ্যবিধি না মানায় অনেককেই দিতে হয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালতকে জরিমানা।

এদিকে জেলার প্রধান অর্থকরী ফসল আমের বেচাকেনা লকডাউনের আওতামুক্ত রাখা হলেও ব্যবসা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বলে মনে করছেন ব্যবসায়ীরা।

লকডাউনের সময় বাড়ানো হবে কি না, এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক জানান, গত কয়েক দিনের চেয়ে করোনা সংক্রমণের হার কিছুটা কমতে শুরু করেছে। এখনও হাতে সময় আছে। পরিস্থিতি বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

বাংলাদেশে ভ্যারিয়েন্টটির প্রবেশ ঠেকাতে ২৬ এপ্রিল থেকে ভারতের সঙ্গে যাত্রী চলাচলে সীমান্ত বন্ধ করে সরকার।

এরপরেও ৮ মে ভারতফেরত একজনের শরীরে দেশে প্রথমবারের মতো ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টটি শনাক্ত হয়।

আরও পড়ুন:
দেশে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টের ‘কমিউনিটি সংক্রমণ’
ভারতফেরত করোনা রোগীর দেহে আফ্রিকান ভ্যারিয়েন্ট
ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টে অ্যাস্ট্রাজেনেকা ৮১% কার্যকর
হাসপাতাল পালানো ভারত ভ্যারিয়েন্টের রোগী আটক
ভারতের ভ্যারিয়েন্ট শনাক্তে চলছে জিনোম সিকোয়েন্স

শেয়ার করুন

মন্তব্য